নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

www.facebook.com/abdur.sharif

আবদুর রব শরীফ

বাধা বিঘ্ন না পেরিয়ে বড় হয়েছে কে কবে?

আবদুর রব শরীফ › বিস্তারিত পোস্টঃ

মেইড ইন বাংলাদেশ

০১ লা জুন, ২০১৮ দুপুর ১২:৫৯

২০১৪ সালে বিশ্বকাপের প্রায় ত্রিশটি দলের শুধু দর্শকদের জন্য বাংলাদেশ জার্সি বানালেও ব্রাজিল একমাত্র দেশ ছিলো যার শুধু দর্শক না তাদের মূল খেলোয়ারদের জার্সিতে 'মেইড ইন বাংলাদেশ' লিখেছিলো,
.
ব্রাজিল গার্মেন্টেস দূর্ঘটনায় যেসব শ্রমিক নিহত হয়েছিলো তাদের সম্মান এবং স্মরণে 'মেইড ইন বাংলাদেশ' লেখা জার্সি গায়ে নেমেছিলো,
.
অনেকে বলে ব্রাজিল নিয়ে লাফালাফি করো কিন্তু ব্রাজিলের কয়জন প্লেয়ার বাংলাদেশের নাম জানে তাদের বলছি ওরা বাংলাদেশ গা'য়ে দিয়ে স্বপ্নের বিশ্বকাপ খেলেছিলো,
.
২০১৮ সালের বিশ্বকাপে বাংলাদেশে তৈরী জ্যাকেট পড়বেন আর্জেন্টিনা, জার্মানি, স্পেন, বেলজিয়াম, কলম্বিয়া, মেক্সিকো, স্বাগতিক রাশিয়া দলের খেলোয়াররা,
.
আর্জেন্টিনার সাপোর্টারদের যদি কেউ বলে ভাই আর্জেন্টিনার কয়জন সাপোর্টার বাংলাদেশকে চিনে তাদের বলুন তাদের গায়ে মেইড ইন বাংলাদেশ ঝুলছে!
.
কেডিএস এক্সেসোরিজের চাকরির সুবাধে অ্যাডিডাস যে প্রতিষ্ঠানে তাদের বিশ্বকাপের জার্সিগুলো বানাতে দিয়েছে সে কর্ণফুলী শু ইন্ডাস্ট্রিজকে আমরা প্যাকেজিং সাপ্লাই দিয়েছি সুতরাং এজ এ সেলস্ পার্সন হিসেবে আমিও গর্বিত,
.
কিন্তু যে শ্রমিকরা মাথার ঘাম পা'য়ে পেলে যত্ন সহকারে পোশাকগুলো তৈরী করে তাদের জীবন এতোবেশী সংগ্রাম মুখর যে এসব আবেগ নিয়ে ভাবার তাদের সময় হয় না!
.
ব্যবসার সুবাধে চট্টগ্রামের প্রায় গার্মেন্টেসে আমার যাওয়ার সুযোগ হয়েছে আমি কাছ থেকে দেখেছি কিভাবে অর্থনৈতিক মুক্তির সংগ্রামে অনবদ্য ভূমিকা রেখে চলেছে নারী পুরুষরা!
.
কারখানা ছুটির পর যখন লক্ষ লক্ষ শ্রমিক ইপিজেড কেইপিজেড দিয়ে বের হয় তখন রাস্তার বুক পর্যন্ত কেঁপে উঠে! প্রতিদিন অর্থনৈতিক মুক্তির মিছিল বের হয়!
.
আনিসুল হকের লেখা 'জিম্মি' উপন্যাস অবলম্বনে মোস্তফা সরয়ার ফারুকী 'মেইড ইন বাংলাদেশ' নামক একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছিলেন সেখানে এক বেকার যুবকের দুঃখ কষ্ট যাতনা রূপায়িত হয়েছিলো এমন লক্ষ যুবক যুবতী আজ 'মেইড ইন বাংলাদেশ' বানিয়ে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখার সাহস পাচ্ছে,
.
আর 'মেইড ইন বাংলাদেশ' শিল্পে বর্তমানে জড়িত আছে প্রায় ৪৫ লক্ষ মানুষ যার ৮০ শতাংশ নারী! ভাবা যায়!
.
বাংলাদেশে নাইক(Nike), রিবোক (Reebok) , লাফোমা(Lafuma), এইচ এন এম(H & M), গ্যাপ(Gap), ব্রুকস(Brouks), জে সি প্যানি(J.C. Penny), ওয়ালমার্ট (Walmart),মার্ট (Kmart), ওসপিগ(Ospig), মাদার কেয়ার(Mother Care), লি(Lee), রেংলার (Wrangler), ডকার্স(Dockers), নাভা(Nba), টম্মি(Tommy Hilfiger), এডিডাস(Adidas), ফ্যালকন(Falcon), এডি বায়ার(Edie Bauyer), আইগেল(Eagle),রেলি(Releigh), এম্মিলি(Emmilee),ফ্রি(Free Spiril), মাইলস(Miles), আমেরিকান আইগেল(American Eagle), হাই টেক(Hi-Tech ), ফিলিফ(Phillip-Maurice), উইনস মোর(Wins More), ডিকাথলোন(Decathlon) নামক যেসব বায়ার কাজ করে তাদের মধ্যে H & M অন্যতন,
.
সুইডিশ কোম্পানী H & M এর প্রায় ৪৩ টি দেশে ২০০০ এর উপর শো-রুম আছে যেখানে আপনি মেইড ইন বাংলাদেশের পোষাক পাবেন,
.
সুইডেনের 'ডগেন ইন্ডাষ্ট্রি' নামক একটি পত্রিকায় একবার একটি নিউজ করেছিলো 'বাংলাদেশে আন্দোলনের মুখে সুইডেনের এইচ এন্ড এম কোম্পানী বন্ধের পথে' এমন,
.
বাংলাদেশে একজন শ্রমিকের বেতন যদি ৫২০০ টাকা ধরি তা একজন সুইডিশ ক্লিনারের একদিনের বেতনের চেয়েও কম!
.
ওস্তাদ কিইন্না লন 'মেইড ইন বাংলাদেশ' পিতলের দামে সোনা বানাইছে!

মন্তব্য ২ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (২) মন্তব্য লিখুন

১| ০১ লা জুন, ২০১৮ দুপুর ১:১২

রাজীব নুর বলেছেন: হুম বাংলাদেশ দরিদ্র। ভন্ড।
সব খারাপ বাংলাদেশ মেনে নিলাম।
তবু এই দেশকেই আমি ভালোবাসি। এই দেশেই আমার জন্ম।

২| ০১ লা জুন, ২০১৮ দুপুর ২:০৯

শাহাদাত নিরব বলেছেন: বাংলাদেশে চেতনার দাবীদার তো শুধু তারাই যারা এমপি/মন্ত্রী দের চারিপাশে থাকে এবং চাঁদাবাজি,টেন্ডারবাজী করে ।
বিশ্ব বাসীর সামনে "মেইড ইন বাংলাদেশ" উপহার দেওয়া ওরা তো শুধু মাত্র গার্মেন্স কর্মী ।
এখনো বেতন ভাতার জন্য পুলিশের লাঠি চার্জ খেতে হয়। প্রান হারাতে হয় অনেক পোশাক শ্রমিক কে। পঙ্গুত্ব বরন করে নির্বাসন জীবন যাপন করতে হয় অনেক শ্রমিক কে ।
#সুন্দর_পোষ্ট
দুনিয়ার মজদুর এক হও এক হও ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.