নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

www.facebook.com/abdur.sharif

আবদুর রব শরীফ

বাধা বিঘ্ন না পেরিয়ে বড় হয়েছে কে কবে?

আবদুর রব শরীফ › বিস্তারিত পোস্টঃ

স্বদেশী বাবুর বিদেশী হালচাল!

০৮ ই জুন, ২০১৮ দুপুর ১২:২৮

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিআমিন নেতা নিয়াহু ফোন করেছিলেন আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্টকে জেরুজালেমে মেসিদের প্রস্তুতি ম্যাচটি বাতিল না করার জন্য কিন্তু কোন লাভ হয়নি,
.
আর্জেন্টিনা এবং ইসরায়েল ম্যাচটি প্রথমে হাইফা শহরে হওয়ার কথা কিন্তু রাজনৈতিক কৌশলে তা জেরুজালেমে স্থানান্তর করা হয়েছিলো!
.
ডোনাল্ড ট্রাম্পের জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণার পর জাতিসংঘে ১৭২ টি দেশ ভোটাভুটিতে অংশগ্রহণ করে তাদের মধ্যে ১২৮টি দেশ ট্রাম্পের বিপক্ষে ভোট দেন এবং ৩০টি দেশ ভোট দান থেকে বিরত থাকেন আর মাত্র ৯টি দেশ ডোনাল্ড ট্রাম্পের পক্ষে ভোট দিয়েছিলেন,
.
যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইল ছাড়া ইসরাইলের পক্ষে ভোট দেওয়া বাকী ৭টি দেশ মার্শাল আইল্যান্ড, হন্ডুরাস, গুয়াতেমালা, টোগো, পালাউ, মাইক্রনেশিয়া আর নাউরু'র নাম শুনলে বুঝা যায় পুরো পৃথিবীর সমর্থন ফিলিস্তিনীদের পক্ষে!
.
একমাত্র আমেরিকার রাজনৈতিক আশ্রয় প্রশ্রয়ে জোর করে অন্যের ভূমি দখল করা ইসরায়েল টিকে আছে!
.
কিন্তু অনেকে বলে তাদের অর্থনৈতিক আশ্রয় প্রশ্রয়টা নাকিআমরা দিচ্ছি!
.
তাই ইন্টারনেট সার্চ করে নিম্মের পণ্যগুলো পেলাম যেগুলো আমরা সব সময় ব্যবহার করে আসছি!
.
ভাবলাম আমার পকেটের টাকা সব ইসরায়েল নিয়ে যাচ্ছে!
.
কারণ,
.
গতকাল আমি নিজে ইফাতারির সময় সেভেন আপ পান করেছি কিন্তু PEPSI বলা হয়ে থাকে PAY EVERY PENNY SAVE ISRAIL এর সাথে কোকাকোলা , ফানটা, মিরিন্ডা, সেভেন আপ, স্প্রাইট এগুলো নাকি তাদের পণ্য আসলে এগুলো আমেরিকান পণ্য তবে ওরা যখন ইসরায়েলকে সমর্থন করে তাদের বয়কট করা যেতে পারে জাস্ট এতটুকু,
.
লোকে বলে ইফতারের পর ইজরায়েলের তাজা চা পাতার এক কাপ চা কিংবা সেহেরির পর তাদের এক কাপ নেসলে ছাড়া আমাদের চলে না কিন্তু মূল বেপার হলো তাজা ইউনিলিভারের প্রোডাক্ট এবং ইউনিলিভার হলো ব্রিটিশ এবং ডাচ্ কোম্পানীর সমন্বয় আর নেসলে পৃথিবীর অন্যতম শান্তি প্রিয় দেশ সুইজারল্যান্ডের কোম্পানী,
.
নরমেল পানি পান করতে গিয়ে বললাম মিনারেল ওয়াটার আকুয়াফিনাই নিয়ে আয় তাও তো নাকি ইসরায়েলের আরে বাবা এটা তো উত্তর আমেরিকার কোম্পানী!
.
ম্যাগী নুডলস্ খেয়ে নাকি তাদের সহায়তা করছি কিন্তু ম্যাগী নুডুলস তো সুইজারল্যান্ডের কোম্পানী,
.
সকালে ব্রাশ নিয়ে তাতে হালের পেপসোডেন্ট কিংবা ক্লোজ আপ মেখে শোভাকলোণীর পুকুর ঘাটে আমিই তো বসে থাকি সমস্যা কি! এটা তো ব্রিটিশ ডাচ্ কোম্পানী!
.
এরপর বলা হয়ে থাকে ক্লিয়ার, সানসিল্ক কিংবা ডোব দিয়ে গোসল শেষ করে প্রসাধনী ভ্যাসলিন, পন্ডস, ফেয়ার এন্ড লাভলী নামক ইসরায়েলি পণ্য ছাড়া আমরা তো অচল! নো নো ইউনিলিভার ব্রিটিশ আর নেদারল্যান্ডসের কোম্পানী!
.
গোসলের পর কাপড় ধৌত করার জন্য ওদের সার্ফ এক্সেল, হুইল, রিন ছাড়া আমরা ভাবতেও পারি না! কোন পবলেম নেই এগুলো ব্রিটিশ এবং নেদারল্যান্ডসের কোম্পানী!
.
এরপর কেডিএস এক্সেসোরিজ অফিসে রওনার উদ্দেশ্য বগল তলে মাখলাম রেক্সোনা এবং সেন্টুর নিচে মারলাম তাদের ফারফিউম এক্স কিন্তু তা তো ইউনিলিভারের,
.
আমি যখন এই লেখাটা লিখছি তখন আমার পা'য়ে তাদের বাটা সু পড়া এবং একটু আগে বায়জিদ ক্যান্টেনম্যাট মার্কেটে বাটা সু'য়ের দোকান থেকে আমি ঘুরে এসেছি!
.
যদিও আমি বাটা সু বয়কট করার চিন্তা করছি ইসরায়েলের কথা মাথায় রেখে না ইদানিং তাদের জুতোর তলা ফেটে যায় তাই!
.
জেনে রাখা ভালো বাটা সুইচ্ কোম্পানী নট্ ইজরায়েলী!
.
আমার কাছে তাদের মটোরোলা সিমেন্স মোবাইল ছিলো বর্তমানে তাদের নোকিয়া ফোনও আমার নিত্যদিনের সঙ্গী কিন্তু এগুলো ইজরাইলের পণ্য বলা প্রচার করা হলেও মূলতো আমেরিকান, ইউরোপ আর ফিনল্যান্ডের কোম্পানী!
.
কিভাবে বহুজাতিক কোম্পানীগুলো পণ্যকে ভুলবাল বলে চালিয়ে দিয়ে বলা হচ্ছে এগুলো ইসরায়েলী পণ্য!
.
তবে এটা বলা যায় এসব অনেক প্রতিষ্ঠানের ইহুদি কর্মকর্তা রয়েছে এর মানে এই নয় যে সেগুলো ইসরাইয়েলের কোম্পানী
.
তবে একটা বিষয় পরিষ্কার যে আমরা বাঙ্গালী হলেও পুরো বিদেশী স্টাইলে চলাফেরা করি!
.
আন্ডার প্যান্ট থেকে শুরু করে প্রায় সবকিছু আমরা বিদেশী জিনিস্ ব্যবহার করি!
.
তারপরও কে বলবে, দেশ উন্নয়নশীল কিংবা ডিজিটেল হয়ে যায়নি?

মন্তব্য ৫ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (৫) মন্তব্য লিখুন

১| ০৮ ই জুন, ২০১৮ দুপুর ২:২৫

রসায়ন বলেছেন: ইসরাইলের হোক বা নাহোক তাতে পণ্য গ্রহণ বা বর্জন করার কোন যৌক্তিকতা দেখি না। পণ্য ব্যবহার করি বা করে উপযোগিতা জন্য। এখন উপযোগিতা যেখানে ভালো পাবো ওটাই কিনবো বা পাবলিক কিনবে । সেক্ষত্রে এটা ইজরায়েল , আমেরিকা , ভারত , পাকিস্তান , চীন , বাংলাদেশ কোন দেশে তৈরি ঐটা মুখ্য বিষয় না । যারা কিছু হলেই পণ্য বর্জনের ডাক দেয় এরা হলো মূর্খ ।

আর ইজরাইলের চাইতেও মুসলিমদের বেশি ক্ষতি করছে সৌদি আরব , আরব আমিরাত , জর্ডান ইত্যাদি দেশগুলো। কাজেই তাদের আগে বর্জন করে দেখান উচিৎ

২| ০৮ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৩:৩২

মঈনুদ্দিন অারিফ মিরসরায়ী বলেছেন: তাহলে ইজরাইলী পন্য কি?

৩| ০৮ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৩:৪৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: স্বদেশী পণ্য, কিনে হও ধন্য !!!!!

৪| ০৮ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৪:৫২

হাঙ্গামা বলেছেন: পণ্য গ্রহন আর বর্জনে কারো কিছু আসে যায় না। যে পন্য সারা বিশ্বে এক নামে চিনে আর ব্যবহার করে সেটা আমাদের দেশের মানুষ ব্যবহার না করলে কিছু আসবে যাবে না। চলবে।

৫| ০৮ ই জুন, ২০১৮ রাত ৮:৪৬

রাজীব নুর বলেছেন: পোষ্ট টি মন্দ নয়।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.