নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

এই আমি...

ধ্রুবক আলো

লেখকরা মনে মনে যত লেখা লিখেন তার ক্ষুদ্র ভগ্নাংশ লিখেন কাগজে-কলমে। - হুমায়ুন আহমেদ

ধ্রুবক আলো › বিস্তারিত পোস্টঃ

ধর্ষণ শব্দটা বাংলা শব্দকোষ\'কে কলুষিত করছে..!

১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:০৬



অমানবতা এখন প্রতিযোগিতা দিয়ে বেড়ে চলছে; মানুষের মানবতা নিঃশেষ হওয়ার পথে। দেশে দিনের পর দিন অন্যায়, দুর্নীতি, অবিচার, ধর্ষণের মাত্রা অতিরিক্ত হারে বৃদ্বি পেয়ে গেছে ঠিক মশা মাছির উৎপাত যেভাবে বেড়েছে!
আমি কোনো অপরাধীকে সমর্থন করিনা; কখনো করবো না। শুধু আমি কেন কোনো সভ্য, সচেতন নাগরিক কোনো অন্যায়, অসভ্যতা মেনে নিবে না। অন্যায় যে করে আর অন্যায় যে সহে তব ঘৃণা যেন তারে তৃণসম দহে।
বর্তমান বিশ্বেও একই অবস্থা খুব বেশি অপরাধ বেড়ে গেছে। খুন, খারাপি, রেষারেষি, অপহরণ, ধর্ষণ সহ অনেক বড় বড় অপরাধ বেড়ে গেছে। এগুলো কেন হচ্ছে!? সামাজিক ও নৈতিক অবক্ষয়ের জন্য!

ধর্ষণ এই শব্দটা বাংলা শব্দকোষে কিভাবে আসলো জানা নেই, না আসলে হয়তো জানা হতনা। কথাটা বলার কারণ শব্দটি একটি বীভৎস শব্দ; যা বাংলা শব্দকোষ'কে কলুষিত করছে।

ধর্ষণের বিচার আমরা সবাই চাই। কিন্তু, বিচার বিভাগ কতটুকু সফল হয়েছে এই ব্যাপারে জানা আছে কারও? নাই! কেন নাই কারণ এরকম নজিরবিহীন বিচার/ঘটনা দেখার সৌভাগ্য দেশের মানুষের হয় নাই।
যেমন তনু হত্যাকান্ড! অনেকেই বিভিন্ন ইস্যুর চাপে পরে ভুলে গেছি যেমন ফাইলটাও চাপা পরে গেছে অনেক নীচে!! আমরা যারা সাধারণ জনগণ বিশেষ করে যারা আমার মত ক্ষুদ্র মানুষ নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করিতেছি, নিরুপায় হইয়া। তনুর বাবা মা কিন্তু নিরবেই চোখের জল ফেলেন কারণ দেখারও নাই বলারও কেউ নাই!
তনু'র হত্যা কান্ড নিয়ে দেশে তুমুল হৈচৈ পড়েছিলো এইতো প্রায় বছর খানেক আগের ঘটনা। পোস্টমর্টেম রিপোর্টে পাওয়া গেলো তনুকে ধর্ষণ করার পর হত্যা করা হয়েছে (কতটা জঘনা মানসিকতার মানুষ হলে এই অপকর্ম করতে পারে)। এরপর বিচারের দাবিতে আন্দোলন হলো, শাহবাগে অনেক মানুষ অবস্থান করলো। কিছু সংখ্যক মানুষ তনুকে বোন বানালো, কেউ নিজের মেয়ে বানালো। তার কয়েক মাস পর সব ইতিহাস। বিচার কাঠগড়ায় ঝুলে আছে, বোধহয় আরও ঝুলবে। এইই ছিলো দেখার বিচার না পেয়ে একটা সংসার কিভাবে ধ্বংস হয়ে যায়।

বিগত বেশ কয়েকদিন যাবৎ একটি ঘটনা খুব আলোড়ন তৈরী করেছে, সেটি হলো বনানীর এক হোটেলে দুই মেয়েকে ধর্ষণ!! এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভালো ফুঁসে উঠেছে দেশ অনেকে এইটা নিয়ে ফেসবুকে লেখে, জোরালো সমর্থন জানিয়ে সেলিব্রিটি হয়ে গেছেন। কিছুদিন আগেও যার নাম জানতাম না উনি এখন পপুলার হয়ে গেছেন (ভালো!)। উনাকে জিজ্ঞেস করা দরকার মশাই আগে কোথায় ছিলেন এতদিন দেশে তো অনেক অন্যায় হয়েছে!! এই কথা বলে নির্ঘাত আমি দোষী হয়ে যেতে পারি, কারণ ফেসবুকে একজন এরকম মন্তব্য করায় স্বাধীনতা চেতনা বিরোধী ট্যাগ খেয়েছেন!!
বিচার অবশ্যই চাই, কিন্তু একটা বিষয় নিয়ে মানুষ এতো ফুঁসে উঠে কিভাবে হয়তো এটা বললেও আমার খবর খারাপ হতে পারে!!
বনানীর ধর্ষণকে কেন্দ্র করে দেশের অনেক মানুষ খুব জাগ্রত হয়েছেন, মানে দেশ ফুঁসে উঠেছে, সাবাস।
আমরা সবাই চাই ধর্ষণ সহ সব ধরণের অপরাধের বিচার হোক। বিচার না হলে অন্যায়-অপরাধ আরও বাড়বে। কিন্তু বিচার কি আদৌ সঠিক ভাবে হচ্ছে! হচ্ছে না। যারা ক্ষমতাসীন, যাদের অনেক টাকা সম্পত্তি আছে তারা আইনের ফাকফোকরের মাধ্যামে পরিত্রাণ পেয়ে যাচ্ছে। উল্টো যে ভিকটিম সে বিপদে পড়ছে। যেমনটা ঠিক ঘটেছে গাজীপুরের শ্রীপুরে, বিচার না পেয়ে ১০ বছর বয়সের মেয়েকে নিয়ে বাবা ট্রেনের নিচে পরে আত্মহত্যা করেছেন। সে বাবা আর কি করবে, তার তো আর অনেক টাকা নেই গরিব মানুষ ইজ্জতই সব। তাই ইজ্জত বাঁচানোর জন্য আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়।
দেশের আইন শৃঙ্খলার ব্যবস্থা মগের মুল্লুক হলে যা হয় আরকি। এখানেই চেতনার প্রশ্নটা জাগে, ঐ ১০ বছরের মেয়েটা আর ওর বাবার কি দোষ ছিল যে তারা সঠিক বিচার পেলো না?! দেশ তখন ফুঁসে উঠলোনা কেন?! এখানে কি কারণ থাকতে পারে!? এই খবরে কোনো গণজাগরণ মঞ্চ, মুক্তমনা নাগরিক, ফেবু রাইটার প্রায় কেউই জেগে উঠেনি(লিখেছেন দুই একজন) যেমন উঠেছেন বনানীতে দুই যুবতীর ধর্ষণের ঘটনা নিয়ে।
এ কথা বললে এ পোষ্টের লেখক খারাপ হয়ে যাবে, তখন কেন ফুঁসে উঠে নাই এখন কেন ফুঁসে উঠেছে? একটা বিশাল প্রশ্ন!

আমি বলে রাখি আমি কোনো অপরাধীকে সমর্থন করিনা, আমি চাই বিচার হোক কঠোরতর। দেশে আইন ব্যবস্থা আরও মার্জিত হোক, পক্ষপাতিত্ব মুছে যাক, সৎ ও নিরপেক্ষ বিচার হোক।
কিন্তু দেশে এতো বিবেঁধ কেন? গরিব মানুষ হওয়ার জন্য তার বিচার হবে না; এটা কি ঠিক?! আপনারাই বলুন..

আপন জুয়েলার্স এর মালিকের ছেলে এই ধর্ষনের সাথে সম্পৃক্ত একজন, দেশের সবাই এখন বলছেন আমরা সবাই আপন জুয়েলার্স বয়কট করলাম, হ্যা বয়কট করাই উচিত। এখন বলুন, আপন জুয়েলার্স কে বয়কট করলেই সব সমাধান হয়ে যাবে?! আমি শুনেছি এই জুয়েলার্সের মালিকের দুই নম্বরি ব্যবসায় রয়েছে, চোরাকারবারি যাকে বলে। তাহলে আপনি বলুন আপন জুয়েলার্সকে বয়কট করে লাভ আছে কি ! উনার তো উল্টা ব্যবসা আছেই, বাংলাদেশের অনেকেরই আছে। বয়কট করলে কিছু হয়তো আপন জুয়েলার্সের কিছু ক্ষতি সাধন হবে, দেখাদেখি অনেক ব্যবসায়ীরা শিক্ষা পাবে। তবে কথাটা এভাবে বললে ভালো হয় বেশি: "আমরা আপন জুয়েলার্সের মত সকল দুর্নীতি গ্রস্ত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান সবকিছুকেই বয়কট করছি" তাহলে বিষয় টা শক্ত ও তরতাজা হয়। এবং যা করা প্রায় দুঃসাধ্য। দেখেছেন নিশ্চই আপন জুয়েলার্স বন্ধ করে দেয়ার ঘোষণায় সকল স্বর্ণকার ব্যবসায়ীরা ধর্মঘট ডেকেছিল গতকালকে। রাতে অবশ্য উঠিয়ে নেয়, কেন ধর্মঘট তাড়াতাড়ি উঠিয়ে নিলো তা জানি না! কিন্তু এমন যদি হয় তাহলে সঠিক বিচার কিভাবে প্রতিষ্ঠা করবে?!
আপন জুয়েলার্সের মালিক ছেলের পক্ষে বলেছেন, এই বয়সে এমন একটুআধটু করেই সবাই।
উনাকে রিমান্ডের ঘরে নিয়ে গিয়ে তেরজন পুলিশ অফিসারের সামনে জিজ্ঞেস করা উচিত, ধর্ষণ যদি আপনার মেয়ের হত তাহলে আপনি এই কথা বলতে পারতেন? উত্তর না দেয়া পর্যন্ত রিমান্ডের মার বন্ধ হবে না।
এই বিষয় নিয়ে কথা চললে, চায়ের দোকানে সবচেয়ে বেশি খবর পাওয়া যায়। একজন বলেন ছেলে ভালো না একজন বলেন মেয়ে ভালো না! সাফায়াত কিন্তু তাই বলছে 'অনুমতি নিয়ে কিছু করলে সেটা কি ধর্ষণ হয়?" ( হায়রে চায়ের দোকান হায়রে মিডিয়া)। ফেসবুক, অনলাইন পত্রিকা আর চায়ের দোকান প্রায় একই রকম কি রেখে কিযে খবর জানাবে বোঝা দায়!!

.

একটি ছেলে বা পুরুষ ধর্ষক হয় কেন? তার সামাজিক অবক্ষয় ও নৈতিকতার শিক্ষার অভাবে যা সন্তানের বাবা মা শিক্ষা দিতে ব্যর্থ। বাবার দুর্নীতির টাকা আছে ছেলে দুহাতে উড়ায়, মেয়ে দুহাতে উড়ায় (ঐশীর কথা ভুলে যাননি তো সবাই) । দুহাতে টাকা উড়ায়, রাত বিরাতে নাইট ক্লাবের বাজে পার্টিতে যায়, বাজে নেশা করে, খারাপ ছেলে মেয়েদের সঙ্গ নেয়। এতে দেখা যায় তার চরিত্র ফুলে ফেঁপে ধুতরা ফুলের মত পবিত্র হয়ে যায়।

ধর্ষণের মত বড় অন্যায় ঠেকাতে হলে কঠোর শাস্তি যেমন প্রয়োজন তেমনি নৈতিকতার ও ধর্মীয় শিক্ষারও প্রয়োজন।
One thing should remember, 'Prevention is better than cure'.
নারীদেরও সচেতন হতে হবে অনেক, বনানীতে যেই ঘটনাটা ঘটেছে সেটা আসলেই দুঃখজনক, কিন্তু একটু সচেতন হলে এ ঘটনা ঘটত না। কি দরকার ছিলো রাত করে পার্টিতে যাওয়ার যে হোটেলে রাতে মদ আর ইয়াবা চলে। দুদিনের পরিচয়ে কেন মেয়ে দুজনের ওই ছেলেদের নিমন্ত্রণ গ্রহণ করতে হবে, তাও রাতের বেলায় পার্টি। সাবধানেই মঙ্গল তাই বলা, আবারও বলে রাখি আমি কিন্তু ধর্ষকদের সমর্থন করছি না। শুধু বোঝানোর চেষ্টা করছি সচেতন সব দিকে থেকেই হওয়া দরকার।
এক নারী নেত্রী বললেন, কেন ভাই মেয়েরা রাতে পার্টিতে গেলে কি কোনো সমস্যা? তাকে বললাম, সমস্যা হয় কি না হয় সেটা তো প্রমান পেলেন।
উনি বললেন, কেন ছেলেদের এ কাজ করতে হবে? তারা ইজ্জতের সম্মান দিতে পারতোনা।
আমি বুঝালাম, দেখেন সমুদ্রে হাঙ্গর থাকে আর হাঙ্গর মাংসাশী তাই মানুষ পানিতে নামার আগে সেভ জোনে নামে। হাঙ্গর তো প্রাণী সে কিন্তু ভালো মন্দ বুঝেনা যাকে পাবে তাকেই খাবে। তো হাঙ্গর কে বুঝাবেন না নিজে সাবধান হবেন?!
পৃথিবীর সবাইকে এক পাল্লায় বিচার করলে তো হবে না।
এরপর উনাকে একটা গল্প শুনালাম-
পাশাপাশি দুই দোকানদার মধু বিক্রি করে। একজন বিশুদ্ধ মধু বিক্রি করে আরেকজন ভেজাল দুই নম্বর মধু বিক্রি করে। মজার বিষয় হলো, বিশুদ্ধ মধুর চেয়ে ভেজাল মধু বেশি বিক্রি হয়।
তো একদিন ভেজাল মধু বিক্রেতার একজন পরিচিত মানুষ জিজ্ঞেস করলো, ভাই আপনি তো ভেজাল মধু বিক্রি করেন আর আপনার পাশের দোকানদার ভালো বিশুদ্ধ মধু বিক্রি করেন তবুও তার চেয়ে আপনার মধু বেশি বিক্রি হয়, কারণ টা কি?
ভেজাল মধু বিক্রেতা উত্তর দিলো, আসলে আমার মুখে মধু আছে তাই ভেজাল হলেও আমার দোকানের বিক্রির পরিমান বেশি।
ভেজালের আকর্ষণ টা বেশি, তাই আমরা ভেজালেই হাত বাড়াই বেশিই।

এখন বলতে পারেন ৬/৮/১০বছরের শিশু কে যখন ধর্ষণ করা হয় তখন!? হ্যা আপনার কথা সত্য পর্দাও অনেক সময় রক্ষার কারণ হয় না! মানুষের ভেতর যখন শয়তান কুমন্ত্রনার জাল বিছিয়ে দেয় তখনই মানুষ এসব কান্ড গুলো করে। এখানে অনেক সময় সাইকিপ্যাথিক বা মনস্তাত্ত্বিক বিষয়ও জড়িত, যেমন শিশু সেক্সুয়াল হেরেসমেন্ট বা ধর্ষণকারীকে বলে 'পিডোফাইল'।



এখন এসব একদিনেই ঠিক করা সম্ভব নয়। সমাজে অনেক আবর্জনার স্তুপ থাকে যা অনেক দিন ধরে জমে পরে থাকলে দুর্গন্ধ হয়ে পরে, যা অপসারণ করতেও সময় লাগে দুর্গন্ধ কমতেও! তবে সার্বিক সচেতনতা ও তদারকিই পারে এসব দ্রুত নির্মূল করতে।
মানুষের জীবনে দুর্ঘটনা ঘটে এটা প্রকৃতি গত নিয়ম। তাই বলে জীবন থেমে থাকে না!


আমার কানে যখন ধর্ষণ শব্দটা ভেসে আসে আমার তখন ঘেন্না লাগে।
ধর্ষণ খুনের চেয়েও খারাপ, কারণ একটি ধর্ষণের ঘটনা সমগ্র দেশের জন্য লজ্জাজনক!!


মানুষ কবে সত্যিকারের মানুষ হবে? কোনদিন মানুষ মানুষের ভালোর জন্য ভাববে? মানুষের মন মানুষের জন্য উন্মুক্ত থাকবে, সেখানে হয়ে যাচ্ছে উল্টো! কাউকে ক্ষতি করে কেউই উপরে উঠতে পারে না। কিন্তু মানুষ কেন এই কথাটা বুঝেও না বুঝার ভান করে!!




(লেখাটা কিছুদিন আগে লিখে রেখেছিলাম, আসলে এখন এরকম লেখা পোস্ট করতে খুব ইচ্ছে হয় না, অনেকেই উল্টো ভাবতে পারে তবুও সব ভেবেই পোস্ট করলাম। ভুল ত্রুটি সংশোধনযোগ্য)।

মন্তব্য ৮৩ টি রেটিং +১২/-০

মন্তব্য (৮৩) মন্তব্য লিখুন

১| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:২১

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: অনেক সুন্দর একটা পোষ্ট দিয়েছেন ভাই। ধর্ষণ সম্পর্কীয় কারণ প্রবণতা সহ সামাজিক অবক্ষয় সামাজিক পারিবারিক অসচেতনতা সবদিক একসাথে তুলে ধরেছেন। ভালো লাগলো ভাই।

শুভকামনা রইল ভাই।

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:১৪

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ভাই, ধৈর্য সহকারে পড়ছেন খুব অনুপ্রানিত হলাম ।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

২| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:২৭

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন:
আমি বলে রাখি আমি কোনো অপরাধীকে সমর্থন করিনা, আমি চাই বিচার হোক কঠোরতর। দেশে আইন ব্যবস্থা আরও মার্জিত হোক, পক্ষপাতিত্ব মুছে যাক, সৎ ও নিরপেক্ষ বিচার হোক। - আপনার সাথে সবসময় সহমত। বিচারবিভাগ সবসময় নিরপেক্ষতা বজায় রাখুক এমনটাই কাম্য।

কিন্তু দেশে এতো বিবেঁধ কেন? গরিব মানুষ হওয়ার জন্য তার বিচার হবে না; এটা কি ঠিক?! - এই বৈষম্য দূর না করতে পারাই আমাদের চরম ব্যর্থতা ভাই। বৈষম্যহীন সমাজ চাই সবসময় মনেপ্রাণে।

এমন গুণাগুণ সম্পন্ন পোষ্ট প্রিয়তে থাকুক অনন্তকাল।

শুভকামনা আপনার জন্য সবসময়।

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:১৯

ধ্রুবক আলো বলেছেন: কৃতজ্ঞতা জানবেন ভাই, আবারো ধন্যবাদ।

বিচারবিভাগ সবসময় নিরপেক্ষতা বজায় রাখুক এমনটাই কাম্য। সহমত।

৩| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৪২

খালিদ১২২ বলেছেন: GOOD POST

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:২১

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ভাই।

৪| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৪৭

সিনবাদ জাহাজি বলেছেন: আমার মনে হয়না সুস্থ মস্তিষ্কের কোনো মানুষ দ্বারা ধর্ষণ সম্ভব। আমার মতে ধর্ষকরা চরম মানসিক বিকারগ্রস্থ।


আর মেয়েদের ক্ষেত্রে যে উপদেশ তা হলো ছেলে বন্ধুকে বিশ্বাস করেন ঠিক আছে কিন্তু সে বিশ্বাস প্রমানের জন্য নির্জনে যাওয়ার দরকার নাই।

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:২৭

ধ্রুবক আলো বলেছেন: আসলেই কোনো সুস্থ মস্তিষ্কের মানুষের দ্ধারা ধর্ষণ সম্ভব নয়! বিকারগ্রস্ত বা দেখা যায় অতিরিক্ত নেশা করার কারণে মস্তিস্ক বিকৃত হওয়ার কারণে ধর্ষণের দিকে ঝুঁকে পরে।

আপনার শেষের উপদেশটা খুব ভালো লাগলো। সুন্দর মন্তব্যে অনুপ্রানিত।

শুভ কামনা রইলো ভাই।

৫| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৫০

সিনবাদ জাহাজি বলেছেন: পাশাপাশি অনেককেই দেখা যায় মেয়েদের চলাফেরাকে ধর্ষণের জন্য দায়ী করতে। যারা ভাবে ধর্ষণের জন্য মেয়েদের পোষাক বা চলাফেরা দয়ী তাদের ও সবার মানসিক চিকিৎসা দরকার

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:০২

ধ্রুবক আলো বলেছেন: কথা ঠিক বলেছেন। তবে নারী পুরুষ উভয়কেই যথেষ্ট বিনয়ী হতে হবে।

৬| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৫০

আমি চির-দুরন্ত বলেছেন: যতদিন বিচারহীনতা থাকবে, যতদিন আমরা স্রোতে গা ভাসাবো, ততদিন কিছুতেই এসব বন্ধ হবে না।

কিন্তু দেশে এতো বিবেঁধ কেন? গরিব মানুষ হওয়ার জন্য তার বিচার হবে না; এটা কি ঠিক?
গরিবের সময় তো আন্দোলনের স্রোত বহে না, তাই আমরাও গা ভাসাই না।

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:০৪

ধ্রুবক আলো বলেছেন: সুন্দর বলেছেন, আমরা বাঙালি স্রোতে গা ভাসানো খুব ভালো ভাবেই পারি।

মন্তব্যে খুব অনুপ্রানিত হলাম ভাই,

অনেক শুভ কামনা রইলো।

৭| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:০৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


দেশ যে ভীষণ বিশৃংখলার শিকার, মানুষ যে অসহায়, কিছু মানুষ অন্যায়ভাবে যে সম্পদের মালিক হচ্ছিল, প্রশাসন যে বিশৃখলায় অবদান রাখছে, পার্টি যে দেশের চেয়ে বড় হয়ে গেছে, মানুষ এগুলোকে অনুধাবন করতে পারছিলেন না; আগে গাছ দেখেছেন, এখন ফল দেখছেন।

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:০৮

ধ্রুবক আলো বলেছেন: খুব সুন্দর এবং ঠিক কথাই বলেছেন ভাই, মানুষ অনুধাবন ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছে বোধহয়!! সবাই আত্মকেন্দ্রিক হয়ে গেছে।

সুন্দর মন্তব্যে খুব অনুপ্রানিত হলাম।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

৮| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:১৯

রাজীব নুর বলেছেন: আমি এই দেশ ছেড়ে চলে যাবো। আমার আর ভালো লাগছে না। আমি সুন্দর ভাবে বাঁচতে চাই।

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:০৬

ধ্রুবক আলো বলেছেন: আমি, আপনি, সবাই সুন্দর ভাবে বাঁচতে চাই, কিন্তু দেশ ছেড়ে পরের দেশে গেলেই শিব সমাধান হবে না।
আমাদের এক হতে হবে, আইন শৃঙ্খলকে মজবুত করতে হবে।

অনেক ধন্যবাদ ভাই। অনেক শুভ কামনা রইলো।

৯| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:২৩

তারেক ফাহিম বলেছেন: খুব সুন্দর পোষ্ট, অল্প কথায় অনেক কিছু লক্ষ্যনিয়, এই ধরনের পোষ্টের জন্য স্যালুট।

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:১০

ধ্রুবক আলো বলেছেন: ভাই, অনেক ধন্যবাদ, পোস্ট ভালো লেগেছে জেনে খুব অনুপ্রানিত হলাম। কৃতজ্ঞ রইলাম।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

১০| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৪৫

সুমন কর বলেছেন: চমৎকার একটি পোস্ট লিখেছেন। সহমত।
+।

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:১৭

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ভাই, সহমত হওয়াতে খুব অনুপ্রানিত হলাম। কৃতজ্ঞ রইলাম।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

১১| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫০

সত্যের ছায়া বলেছেন:
আমরা এখন মহারাণী ভিক্টোরিয়া রাজত্বে আছি। যেখানে কিছু মানুষ দাপিয়ে বেড়াচ্ছে আর বাকীগুলো পিষে পিষে মড়ছে।

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:১২

ধ্রুবক আলো বলেছেন: উত্তম একটা মন্তব্য রেখেছেন ভাই, অনেক ধন্যবাদ। আমরা জনগণ একদম জিম্মি হয়ে আছি অবশ্য এর জন্য আমরাই দায়ী।
কারণ আমরা এক নই।


অনেক শুভ কামনা রইলো।

১২| ১৯ শে মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫৮

কানিজ রিনা বলেছেন: দেশে কেন এত অরাজকা সৃষ্টি হচ্ছে
সরকারের এবিষয়ে জরুরী পদক্ষেপ নেওয়া
জরুরী। মানুষের সয্যের বাঁধ ভেঙে যাচ্ছে।
তনু ধর্ষন সহ খুন বিচার এখনও মানুষ
সন্দীহান। তনু পরে আরও কত মনু ধর্ষন
হোল। এইত বিচার না পেয়ে বাপ মেয়ে ট্রেনে
ঝাপ দিল। দেশের সচেতন মানুষ আর কত
স্তব্দ হয়ে থাকবে।
ধর্ষনের দাবদাহ দেশের মানুষ পুড়া গন্ধ
আকাশ বাতাশ ভারী হচ্ছে, আন্তরজাতীক
বাতাসে গন্ধ ছড়াচ্ছে। একাত্তরের পাকিস্তান
ইস্টাইল শুরু হয়েছে।
প্রধান মন্ত্রূী কেন এত সয্য করছেন বুঝ
আসেনা।
আপনার লেখার প্রসংশায় কি বলব লেখায়
আলো এভাবে ব্লগে আলোকীত হোক,
এই কামনা ধন্যবাদ।

১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:১৫

ধ্রুবক আলো বলেছেন: ভালো কথা বলেছেন,একাত্তরের পাকিস্তান ইস্টাইল শুরু হয়েছে। তবে এখন পরিস্থিতি তার চেয়েও ভয়ানক। আমরা জাতি হিসেবে দুর্বল। আমরা কোনোদিনই জনগণ এক হতে পারলাম না। তাহলে আমাদের অবস্থা এরকম হয় না।

প্রশংসার জন্য অনেক অনুপ্রানিত হলাম। কৃতজ্ঞতা জানবেন।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

১৩| ১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ১১:০৬

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: তিন পক্ষকেই সচতেন হতে হবে। আইনও কঠিন হতে হবে, ছেলেদেরও মানুষ হতে হবে আর মেয়েদেরও সতর্ক হতে হবে...

২০ শে মে, ২০১৭ দুপুর ১২:১৩

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ভাই, গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্যের জন্য। কৃতজ্ঞতা।

ভালো কথা বলেছেন, সবাইকেই সচেতন হতে হবে, কিন্তু দেশে একটাই সমস্যা, যেকনো দুটো পক্ষ সচেতন হয় না।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

১৪| ১৯ শে মে, ২০১৭ রাত ১১:১৫

দপ্তরবিহীন মন্ত্রী বলেছেন: মেয়েদের সতর্ক করার ব্যপারটা নিয়ে আপনার ব্ক্তব্যের সাথে একমত
view this link

২০ শে মে, ২০১৭ দুপুর ১২:১৯

ধ্রুবক আলো বলেছেন: একমত পোষন করায় অনেক কৃতজ্ঞ রলাম।
দেশের সবারই উচিত সচেতন হওয়া। পরিবারের অভিভাবকদের সচেতন হওয়াটা বেশি জরুরি। তাহলে এইসব অপকান্ড অনেকাংশে কমে যাবে।

অনেক শুভ কামনা রইলো ভাই।

১৫| ২০ শে মে, ২০১৭ রাত ৩:৪০

ওমেরা বলেছেন: ১
বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: তিন পক্ষকেই সচতেন হতে হবে। আইনও কঠিন হতে হবে, ছেলেদেরও মানুষ হতে হবে আর মেয়েদেরও সতর্ক হতে হবে..একমত । আপনাকে ধন্যবাদ ।

২০ শে মে, ২০১৭ দুপুর ১২:২১

ধ্রুবক আলো বলেছেন: উনার সাথে আমিও একমত খুব ভালো একটা কথা বলেছেন ভাই। আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ।
সবারই একক সচেতনতা প্রয়োজন।

অনেক শুভ কামনা রইলো ভাই।

১৬| ২০ শে মে, ২০১৭ সকাল ৮:২৩

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: ৥ বিচারমানি তালগাছ আমার
তিন পক্ষকেই সচতেন হতে হবে। আইনও কঠিন হতে হবে, ছেলেদেরও মানুষ হতে হবে আর মেয়েদেরও সতর্ক হতে হবে... আপনার মন্তব্যে আমি খুশী। আমার আর তাল গাছের কোন দাবী রইল না। তাল গাছ এখন থেকে শুধুই আপনার। তবে আমাগ বাড়ীর গুলা ছাড়া।
আর প্রিয় বস সমাজ সচেতনতা মূলক একটা পোষ্ট দিয়ে আপনি বসের দায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করেছেন সে জন্য আপনাকে স্যালুট।

২০ শে মে, ২০১৭ দুপুর ১২:৩৮

ধ্রুবক আলো বলেছেন: বিচারমানি তালগাছ আমার, এই ভাই অনেক জ্ঞানী এবং ভালো মানুষ। উনার লেখা বা মন্তব্য গ্রহণ করার মতই। তাল উনারই থাকুক, তারপরও তাল দেখতে তো পাবো এখন তো তাল, খেজুর গাছ দেখতে পাওয়া দুর্লভ হয়ে দাঁড়িয়েছে।
ভাই আপনার মন্তব্যও খুব ভালো লাগলো।

আর ভাই বস সম্বোধন করলেন, আমিতো খুব ক্ষুদ্র একজন মানুষ। ভালো লেখার সব সময় চেষ্টা করি, সমাজ সচেতনতার কথা ভেবেই লেখাটা লেখা, আসলে সমাজের এ অবস্থা দেখলে ভালো লাগেনা।

অনেক শুভ কামনা রইলো ভাই, কৃতজ্ঞতা।

১৭| ২০ শে মে, ২০১৭ সকাল ৯:০৯

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: ধ্রুবক আলো, সমসাময়ীক বিষয়ে খুব সুন্দর লিখেছেন।
আপনি কিন্তু খুব কম পোষ্ট দেন। এত সুন্দর করে যে লিখতে পারে তার কিন্তু আরও বেশি বেশি পোষ্ট দেওয়া দরকার।

২০ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:১৯

ধ্রুবক আলো বলেছেন: বর্তমান সময়ে যে সকল অন্যায় হচ্ছে তা মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে, কিন্তু প্রশাসন কোনো কাজের কাজই করতে পারছে না। নিরাপত্তাও ঠিক মত দিতে পারছে না।

আর ভাই যেভাবে বললেন ভালো লিখি তার জন্য কৃতজ্ঞ রইলাম। কিন্তু এতো ভালো তো আমি লিখতে পারিনা। চেষ্টা করি মাত্র, এই যতটুকু ভালো করে যায়।
অনেক ধন্যবাদ ভাই।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

১৮| ২০ শে মে, ২০১৭ দুপুর ১২:০১

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: এ বিষয়ে নিয়মিত লিখা উচিৎ । পারলে প্রতি মুহুর্তে ধর্ষণের প্রতি ঘৃণা জন্মানোর প্রচেষ্টা নেয় উচিৎ। এটা আমাদের দায়িত্ব ।বিশেষ করে যারা একটু আধটু লিখি তাদের ।

২০ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:২২

ধ্রুবক আলো বলেছেন: লেখা বা বোঝানো মোটামুটি সবারই দায়িত্ব। ধর্ষণ সহ সকল ধরণের অপরাধ সম্পর্কে বিরত রাখার জন্য যে যার স্থান থেকে তার ছোট যারা আছে সকলকেই শিক্ষা দেয়া উচিত।
অনেক ধন্যবাদ ভাই ।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

১৯| ২০ শে মে, ২০১৭ দুপুর ১২:৩৮

নীলপরি বলেছেন: খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন । পোষ্ট ভালো লাগলো ।

ফেসবুক, অনলাইন পত্রিকা আর চায়ের দোকান প্রায় একই রকম কি রেখে কিযে খবর জানাবে বোঝা দায়!!

সবাই বড়ো বেশী জাজমেন্টাল হয়ে গেছে । বিচার করছে বিবেচনা না করেই । ঐ জুয়েলার্সকে বয়কট করার কথা বলার আগে কেউ কি ভেবেছে সে দোকানের সাধারণ কর্মীদের কথা ?

২০ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:২৭

ধ্রুবক আলো বলেছেন: পোস্ট ভালো লেগেছে জেনে খুব ভালো লাগলো।
আপনার কথা ঠিক আছে ভালো বলেছেন। আপন জুয়েলার্স যখন তৈরি করা হয় তখনই তদারকি করার দরকার ছিলো কিন্তু জানেনই তো দেশে তো আইনের ফাঁকফোকর কম না। এখন যেটা করতে পারে সেটা হলো দুর্নীতি দমন মামলায় নিয়ে আসতে পারে, জরিমানা করে অবৈধ ব্যবসা বন্ধ করতে পারে। এখানেও কিন্তু আছে ঐ যে মালিক সমিতি আছে তাদের একটা চাপ সহ্য করতে হবে।
এদেশের মানুষের রক্তের গভীরে দুর্নীতি ছড়িয়ে গেছে।

অনেক ধন্যবাদ আপু, সুন্দর মন্তব্য রেখেছেন। কৃতজ্ঞ।
অনেক শুভ কামনা রইলো।

২০| ২১ শে মে, ২০১৭ দুপুর ২:৪২

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: ধর্ষণ এই শব্দটা বাংলা শব্দকোষে কিভাবে আসলো জানা নেই, না আসলে হয়তো জানা হতনা। কথাটা বলার কারণ শব্দটি একটি বীভৎস শব্দ; যা বাংলা শব্দকোষকে কলুষিত করছে। আমি আপনার সাথে একমত।

২২ শে মে, ২০১৭ রাত ১২:৫৪

ধ্রুবক আলো বলেছেন: সহমত হওয়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ ভাই, কৃতজ্ঞতা।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

২১| ২১ শে মে, ২০১৭ বিকাল ৪:০৪

মনিরুজ্জামান স্বপন বলেছেন: উনাকে রিমান্ডের ঘরে নিয়ে গিয়ে তেরজন পুলিশ অফিসারের সামনে জিজ্ঞেস করা উচিত, ধর্ষণ যদি আপনার মেয়ের হত তাহলে আপনি এই কথা বলতে পারতেন? উত্তর না দেয়া পর্যন্ত রিমান্ডের মার বন্ধ হবে না।
আপনার প্রায় সব লেখা ভাল লাগে। এ লেখাটা ভিন্ন রকম ভাল লেগেছে।

২২ শে মে, ২০১৭ রাত ১২:৫৫

ধ্রুবক আলো বলেছেন: লেখাটা ভালো লেগেছে জেনে বেশ অনুপ্রানিত হলাম। খুব ভালো লাগলো আমার প্রায় সব লেখা পড়েন, কৃতজ্ঞ র'লাম। অনেক ধন্যবাদ ভাই,

অনেক শুভ কামনা রইলো।

২২| ২২ শে মে, ২০১৭ রাত ১২:১৩

এস,এম,মনিরুজ্জামান মিন্টু বলেছেন: ধর্ষন শব্দটা পুরুষ শব্দটাকেও কলঙ্কিত করছে।
সময়োপযোগী সুন্দর পোস্ট।

২২ শে মে, ২০১৭ রাত ১২:৫৭

ধ্রুবক আলো বলেছেন: আপনার কথাটাও খুব সুন্দর । কি ধরণের পুরুষত্ব দেখাইতে যায় কে জানে মাঝখানে পুরুষেরই বদনাম।
অনেক ধন্যবাদ ভাই। কৃতজ্ঞ।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

২৩| ২২ শে মে, ২০১৭ রাত ১:১৫

মানবী বলেছেন: "আমি বুঝালাম, দেখেন সমুদ্রে হাঙ্গর থাকে আর হাঙ্গর মাংসাশী তাই মানুষ পানিতে নামার আগে সেভ জোনে নামে। হাঙ্গর তো প্রাণী সে কিন্তু ভালো মন্দ বুঝেনা যাকে পাবে তাকেই খাবে। তো হাঙ্গর কে বুঝাবেন না নিজে সাবধান হবেন?! "

- প্রথমে বলে রাখা জরুরী আমি কখনও ছেলেদের সাথে পার্টিতে যাওয়া দূরের কথা ক্লাসের পিকনিকেও যাইনি। সেই অবস্থান থেকে বলছি, পার্টিতে গেলে ধর্ষিতা হবে আর না গেলে নিরাপদ- ব্যাপারটা এমন সহজ গণিত নয়। রক্ষণশীল শুধু নয় রীতিমতো বোরখা পরিহিতা মহিলারা ধর্ষিতা হন, ইভটিজিং এর যন্ত্রণায় আত্মহনন করেন এমন অনেক উদাহরন আছে আমাদের দেশে।
নিষ্পাপ শিশুরা যেখানে এসব হায়েনার পালের হাত থেকে রেহাই পায়না সেখানে মেয়েদের পার্টিতে যাবার সমালোচনাটা অর্থহীন।
কনস্টেবল হালিমা বেগমের কথাই ধরুন, ধর্ষক এসআই তাকে একটি এ্যাসাইনমেন্টে যাবার কথা বলে নিয়ে গিয়েছে। মাদক দ্রব্যের ব্যবসায় রেইডের কথা বলে নিয়ে একজন পুলিশকে ধর্ষন করা হলে মেয়েরা কোথায় নিরাপদ? কর্মক্ষেত্রে, এমনকি যদি তা হয় নিরাপত্তারক্ষাকারী বাহিনীর, সেখানেও নয়।

মেয়েদের যেওনা, করোনা, বলোনাতো সেই শৈশব থেকেই শেখানো হয়। এখন হাইটাইম ছেলেদের শিখানো হোক একজন পতিতাও যদি তার সাথে এক কামরায় থাকে, সন্মতি ছাড়া তাকেও স্পর্শ করার অধিকার তার নেই। একজন ছেলের পৌরষ নারীকে ভোগ করার মাঝে নয় বরং তার চেয়ে কয়েক ইন্চি দূরত্বেও যেকোন নিরাপদবোধ করার মাঝেই।
এই সত্যটা সকল পুরুষকে শৈশব থেকেই শিখানো জরুরী।

সুন্দর পোস্টটি, ভালো লেগেছে পড়ে।
ধন্যবাদ ধ্রুবক আলো।

২২ শে মে, ২০১৭ সকাল ১১:২২

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনার সুন্দর মন্তব্যের জন্য, আপনার কথা গুলোও যথেষ্ট সুন্দর ও যৌক্তিক। আমিও আপনার কথার সাথে একমত।
পার্টিতে গেলে ধর্ষিতা হবে আর না গেলে নিরাপদ, আমি এমন কিছু বুঝাইনি। বুঝাতে চেয়েছি যে, দুদিনের পরিচয়ে ছেলের রাতের পার্টির নিমন্ত্রনে কেন যেতে হবে?! আমি কিন্তু অপরাধীদের সমর্থন করছিনা, শুধু যে ভুল টা করেছে সেটা বুঝাচ্ছি। একটু বিচক্ষণতা দেখালে এমনটা হয় না।
আর ইভ টিজিং, ধর্ষণ এগুলো বাড়ছে সামাজিক মূল্যবোধ, নৈতিকতার শিক্ষা ও ধর্মীয় শিক্ষার অভাবে। আর বাজে সঙ্গ ও নেশা এগুলো আরও নষ্ট করছে সমাজকে।
প্রতিটি ঘরেই সুশিক্ষা জোরদার করা উচিত।
লেডি কনস্টেবলের ঘটনাটাও খুবই দুঃখজনক ও হতাশা পূর্ণ। দেশের আইন শৃঙ্খলা ব্যবস্থা এত অধঃপতন যে মানুষকে নিরাপত্তা দিতে পারছেনা, পুলিশকেও না।
দেশের আইন ব্যবস্থাও আরও কঠোর হওয়া উচিত। কিন্তু প্রশাসন এ ব্যাপারে আমার মনে দিন দিন উদাস হয়ে যাচ্ছে!!

একজন পতিতাও যদি তার সাথে এক কামরায় থাকে, সন্মতি ছাড়া তাকেও স্পর্শ করার অধিকার তার নেই। এই কথার পরিপেক্ষিতে আমার মত, একজন পুরুষ কেন পতিতালয় যাবে, পতিতার সঙ্গ নিবে কেন?! পুরুষ কেন সংযমী হবে না ?!
আর নারীদেরও সংযমী হওয়া জরুরী! নারী পুরুষ উভয়কেই নিজের ইজ্জতের চিন্তা নিজেরই করতে হবে।

পোষ্ট ভালো লেগেছে জেনে ভীষণ অনুপ্রানিত হলাম, কৃতজ্ঞতা জানবেন।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

২৪| ২২ শে মে, ২০১৭ রাত ১:১৬

মানবী বলেছেন: ছোট্ট একটি টাইপ চোখে পরেছে ভাইয়া


One thing we should remember, 'Prevention is better than cure' লিখতে গিয়ে we বাদ পরেছে মনে হয় :-)

ইচ্ছে করলে এই মন্তব্যটি মুছে দিতে পারেন।
অনেক অনেক ভালো থাকুন।

২২ শে মে, ২০১৭ সকাল ১১:২৪

ধ্রুবক আলো বলেছেন: সংশোধন করে দেয়ার জন্যে অশেষ ধন্যবাদ, তারপরও এটা বড় ভুল না, কারণ কথাগুলো আমাদেরই মনে রাখতে হবে।

২৫| ২২ শে মে, ২০১৭ ভোর ৫:৫৮

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ধর্ষণ নিয়ে অনেক গুরুত্বপুর্ণ বিষয় উঠে এসেছে লেখাটিতে ।
এর কারণ ও প্রতিকারেন জন্য বেশ কিছু মুল্যবান দিক নির্দেশনো আছে লিখাটিতে ।
আশু কর্তব্য হল আইন শৃংখলার উন্নতি ও মানুষের মনে আ্‌ইনের শাসনের প্রতি
আস্থা সৃষ্ট করা , কাওকে গাজীপুরের ঘটনার মত ট্রেনের নীচে পড়ে যেন আত্ম হত্যা
করতে না হয় ।

পুলিশ বাহিনীকে আরো বেশী সচেতন ও সততার সহিত ধর্ষনের কেসগুলি মোকাবেলা করতে
হবে । বনানীর ধর্ষনকারীদেরকে থনায় ধর্ষনের অভিযোগ দিতে গিয়ে প্রচন্ড নাযেহাল হতে
হয়েছে ও তাদের অভিযোগ গ্রহন করতে ৩ দিন সময় নিয়েছে পুলিশ ও এই সময়ের মধ্যে
অনেক অনৈতিক কাজও নাকি হয়েছে । তাই এই বিষয়েও ব্যপক গণ সচেতনতা প্রয়োজন ।

ধর্ষনের বিষয়ে দেশের নর নরী ও তাদের পরিবারের গুরুজন হতে শুরু করে স্কুল কলেজের
শিক্ষকদেরকে সচেতন হতে হবে , দিতে হবে নৈতিকতার শিক্ষা উত্তম মতে । মনে রাখতে
হবে এই সামাজিক ব্যধি ও অনাচার বন্ধ করা এককভাবে কারো পক্ষে মোটেও সম্ভব নয়,
দেশ যখন ধর্ষনের বিপক্ষে একিভুত হয় তখন দেখা যায় ধর্ষনকারীরা কৌশল করে
বিভক্তির দেয়াল তুলে । তাই খেয়াল রাখতে হবে কোন ভাবেই যেন ধর্ষণ প্রতিরোধে কোন
অনৈক্য সৃস্টি না হতে পারে দেশে ।

ধন্যবাদ মুল্যবান লেখাটির জন্য , লেখাটি প্রিয়তে গেল ।

২২ শে মে, ২০১৭ সকাল ১১:৩৯

ধ্রুবক আলো বলেছেন: আপনাকে অশেষ অশেষ ধন্যবাদ ভাই, আপনার এই অতি মূল্যবান মন্তব্যের জন্য, ভীষণ অনুপ্রানিত হলাম, কৃতজ্ঞ রইলাম।

ধর্ষণ সহ দেশের সকল অপরাধই ঠেকাতে হলে অবশ্যই আইন প্রশাসনের আরও বেশি সচেতন ও সততার পরিচয় দিতে হবে। বাড়িতে, স্কুল কলেজে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই নৈতিকতা ও ধর্মীয় শিক্ষার ভালোভাবে দিতে হবে, একজন মানুষের মাথায় ভালো জিনিস খুব ভালো ভাবে ঢুকিয়ে দিতে হবে। খারাপ দিক গুলোর যে খারাপ প্রভাব সেটাও বুঝিয়ে দিতে হবে।
আমি এও মনে করি দেশের আইন ব্যবস্থা আরো তৎপর করা উচিত, কোনরূপ পক্ষপাতিত্ব ও টাকার খেলা বন্ধ করতে হবে। দেশে বিচার ব্যবস্থা আরো উন্নত করতে হবে, যদি একটা একটা করে সব গুলোর বিচার হয় তবে অপরাধের প্রবণতা একদম কমে আসবে।

আমার লেখা হলো একটা ক্ষুদ্র প্রয়াস সবাইকে সচেতন করার আর এই লেখাটি আপনি প্রিয়তে রাখলেন, ভাই অশেষ ধন্যবাদ, কৃতজ্ঞ রইলাম।
দেশের বিভিন্ন পরিস্থিতি নিয়ে আমি যখন কথা বলি বিশেষ করে সচেতন হোন সবাই। এক হোন সবাই তখন অনেক আমাকে কিঞ্চিৎ পাগলও বলে বা আমার কথা এড়িয়ে 9অন্য প্রসঙ্গে চলে যায়। তারপরও বলি, দেশ তো আমাদেরই।

অনেক শুভ কামনা রইলো ভাই।।

২৬| ২২ শে মে, ২০১৭ দুপুর ১২:১৬

মানবী বলেছেন: "বুঝাতে চেয়েছি যে, দুদিনের পরিচয়ে ছেলের রাতের পার্টির নিমন্ত্রনে কেন যেতে হবে?! আমি কিন্তু অপরাধীদের সমর্থন করছিনা, শুধু যে ভুল টা করেছে সেটা বুঝাচ্ছি। একটু বিচক্ষণতা দেখালে এমনটা হয় না। "

-আমি জানি আপনি ধর্ষকদের সমর্থন করছেননা। ভেবে দেখুন গত কয়েক সপ্তাহে দেশে কতো ডজন ধর্ষন ঘটেছে, তার মাঝে এই দুজন মেয়ে শুধু পার্টিতে গিয়েছিলো। এখন কোন ভাবে এই দুজনের পার্টিতে যাবার সমালোচনা করার অর্থই চোখে আঙ্গুল দিয়ে তাদের দেখিয়ে দেয়া তোমরা ভুল করেছিলে, চুল তোমাদেরও ছিলো তাই ধর্ষনের শিকার হয়েছো। স্বাভাবিক ভাবেই তখন প্রশ্ন জাগে বাকি ২০-৩০ জন মেয়ে তো কোন ভুল করেনি, ওদের তাহলে কেনো ধর্ষিতা হতে হলো?
এই মেয়ে দুটিকে এধরনের কথা বলা মানেই পরোক্ষ ভাবে কুলাঙ্গার ধর্ষকদের হাতে তাদের ঘৃণ্য কর্মের কিছু যুক্তি তুলে ধরা। এই মেয়ে দুজনকে এই ভার্চুয়্যাল জগতে যে পরিমান সমালোচনার শীকার হতে হচ্ছে, ভয় হয় কোর্টে ধর্ষকের সমর্থক উকিল ওদের পতিতা প্রমান করেই ছাড়বে হয়তো।

"একজন পুরুষ কেন পতিতালয় যাবে, পতিতার সঙ্গ নিবে কেন?! পুরুষ কেন সংযমী হবে না ?!
আর নারীদেরও সংযমী হওয়া জরুরী! নারী পুরুষ উভয়কেই নিজের ইজ্জতের চিন্তা নিজেরই করতে হবে।"

- খুব ভালো বলেছেন। সংযমের ব্যাপারে ১০০% সহমত। তারপরও হাজার হাজার পুরুষ প্রতিদিন পতিতাদের সঙ্গে সময় কাটায়, এবং লক্ষ লক্ষ পতিতা প্রতিদিন তাদের রুজি রোজগার করে।সেই পতিতাদেরও তাঁদের অনুমতি ছাড়া স্পর্শ করার অধিকার কারো নেই।

তবে আমার বক্তব্যে উদ্দেশ্য একটু ভিন্ন ছিলো। আমাদের দেশে যেকোন ধর্ষন আর নারী হত্যার ঘটনায় প্রায় অবধারিত ভাবে ভিক্টিমকে নষ্ট মেয়ে/বারবণিতা/পতিতা হিসেবে প্রমানের চেষ্টা চলে। এই ভয়ংকর আর নৃশংস হত্যাকান্ডের পর হতভাগী ভক্টিমের চরিত্রে কালিমা লেপনের সকল চেষ্টা চলেছে। যখন কোন নারী অভিযোগ করে পুরুষের নোংরামীর বিরুদ্ধে, তখনও তাঁর চরিত্র সম্পর্ক খারাপ ঈঙ্গিতের ধৃষ্টতা একটি নষ্ট চর্চায় পরিনত হয়েছে। সেকারনে বলেছি, শৈশব থেকে প্রতিটি ছেলের মগজে যদি প্রবেশ করানো হয় নারীর চরিত্র যেমনই হোক তোমার তাকে উত্যক্ত করার, তার অনুমতি ছাড়া স্পর্শ করার অধিকার নেই- তাহলে হয়তো এই নষ্ট মানসিকতার অবসান ঘটবে।

প্রতিটি ছেলে যদি জানে তার সামনের নারীর চরিত্র সম্পর্কে দোষারোপ করেও সে তার কুকর্মের যুক্তি দেখাতে পারবেনা, তাহলে ইভটিজিং সহ নারীর প্রতি অনাচার হ্রাস পাবে।

ভালো থাকুন ধ্রুবক আলো।

২২ শে মে, ২০১৭ দুপুর ২:০৩

ধ্রুবক আলো বলেছেন: আপনার কথা খুব যুক্তি সঙ্গত, আসলে আমি কথাটা এইজন্য বলেছি যেন পরবর্তী সময়ে কোন এই ভুলটা যেন না করে।
বাকি ২০-৩০ জন মেয়ের ভুল ছিল না ঠিক, এখন একজন খারাপ নিয়তওয়ালা মানুষকে কিভাবে বুঝানো যায়!? যে এটা অপরাধ!
আমরা যখন রাস্তা দিয়ে হাটি তখনও কিন্তু আমরা সেফ নই কারণ হঠাৎ যদি কোনো গাড়ি আমাদের উপর উঠিয়ে দেয় বা কোন ছিনতাইকরি দল ধরে বসে, আমরা সব সময় সাবধান থাকি কিন্তু এমত মুহূর্তে কি করা যায়!? এতো ধর্ষণ সহ অপরাধ বৃদ্ধির মূল কারণ সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয় ও প্রশাসনের নিরাপত্তার অভাব।

শৈশব থেকে প্রতিটি ছেলের মগজে যদি প্রবেশ করানো হয় নারীর চরিত্র যেমনই হোক তোমার তাকে উত্যক্ত করার, তার অনুমতি ছাড়া স্পর্শ করার অধিকার নেই- তাহলে হয়তো এই নষ্ট মানসিকতার অবসান ঘটবে। আমি এই একমত।
নারী পুরুষ সবাইকেই যথেষ্ট সচেতন হতে হবে।

পুনরায় আপনার মূল্যবান মন্তব্যের জন্য অশেষ ধন্যবাদ। কৃতজ্ঞ।

আপনিও অনেক ভালো থাকুন মানবী আপু।

২২ শে মে, ২০১৭ দুপুর ২:০৬

ধ্রুবক আলো বলেছেন: আমি মনে করি অপসংস্কৃতি ও সভ্যতার নামে অসভ্যতা এগুলো যদি বন্ধ করা যায় তাহলে দেশে এসব অন্যায়, অপরাধ একদম কমে যাবে। আমার সাথে নিশ্চিত একমত হবেন।

২৭| ২২ শে মে, ২০১৭ দুপুর ১২:২৬

নাগরিক কবি বলেছেন: ভালই বলেছেন। আমি মনে করি নারী কিংবা পুরুষ, ধার্মিক কিংবা অধার্মিক - সবার আগে মানুষ তার আগে বিবেক। বিবেকহীন হয়ে পরলে তখন মানুষ আর জন্তু র মধ্যে কোন তফাৎ নেই। সামাজিক মূল্যবোধ আর নিষ্ঠা'ই পারে একজন মানুষকে এই জাতীয় অপরাধ থেকে নিজেকে মুক্ত রাখতে। তার জন্য সবাইকে নিজের দিক থেকে সঠিক ও ভাল যা তাই গ্রহণ করা উচিত। অন্যথায় আমাদের সমাজে অন্যায় দিন দিন বৃদ্ধি পাবে বৈকি কমবে না।!!!

২২ শে মে, ২০১৭ দুপুর ২:১৩

ধ্রুবক আলো বলেছেন: কবি ভাই, অনেক সুন্দর একটা মন্তব্য করেছেন অনেক ধন্যবাদ। কৃতজ্ঞ রইলাম।

সামাজিক মূল্যবোধ আর নিষ্ঠা'ই পারে একজন মানুষকে এই জাতীয় অপরাধ থেকে নিজেকে মুক্ত রাখতে। সবাইকে নিজের দিক থেকে সঠিক ও ভাল যা তাই গ্রহণ করা উচিত। একমত।
কিন্তু বাঙালী বিষয়টা ভুলে গেছে। পকেটে টাকা হইলেই মাথা নষ্ট, মানুষকে আর মানুষ মনে করে না। ক্ষমতার অপব্যবহার করা একটা স্বভাব হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রশাসন তো টাকার গন্ধ পেলে শেষ।

প্রতিটা মানুষ, নিজ দায়িত্বে নিজে শিক্ষা নেয়া উচিত পরে তা ঘরের মানুষ ছোট বড় সকলকেই শিক্ষা দেয়া উচিৎ। মানবিক মূল্যবোধ বৃদ্বি পাক।

অনেক শুভ কামনা রইলো ভাই।

২৮| ২৩ শে মে, ২০১৭ দুপুর ২:২৪

নাদিম আহসান তুহিন বলেছেন: কি বলব ভেবে পাচ্ছিনা। সবতো আপনি যথার্থই বলেছেন

২৩ শে মে, ২০১৭ দুপুর ২:২৯

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ভাই মন্তব্যের জন্য। ভাবুন বেশি করে ভাবুন, দেশের জন্য না ভাবলে হবে না।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

২৯| ২৪ শে মে, ২০১৭ বিকাল ৩:৩৩

সামিউল ইসলাম বাবু বলেছেন:
So,sad. কিছু বলার নেই।

দেখুন, কিছু মানুষ শুধু ছেলেদের তথা ধর্ষককে দোষ দিচ্ছেন। এবং বাস্তবতা এড়িয়ে চলছেন। ধর্ষণের পিছনে অামাদের সমাজ ব্যবস্থা দায়ি। কখনো এটাকে অামরা অস্বিকার করতে পারিনা। অাইনের শাসন নেই। সেক্সুয়াল সিনেমা, নাটক, উপন্যাস, কবিতা তৈরী করছি অাবার ধর্ষণের বিরুদ্ধে বড় বড় কথা বলছি। অামরা ধর্ষণের জাবতিয় পরিবেশ সৃষ্টি করছি। তবে এই মায়া কান্না কেনো???

যারা ধর্ষণ করছে, তাদের বিচার হচ্ছে না। খারাপ মুভি নাটকের মাধ্যমে সমস্ত কিছু শিখছে। লিভটুগেদার করছে। প্রেমের নামে অনৈতক কাজ করছে। ধরা পড়লে বড় নেতার নাম নিয়ে পার পেয়ে যাচ্ছে। কোন বিচার নেই। ধর্ষণের সমস্ত পরিবেষ তৈরী করছি, কোন প্রতিকার নেই। তবে কিভাবে অামারা ন্যায় বিচার পাবো???

অামাদের এই দুঃখ কি এমন হয়ে যাচ্ছেনা? যে....নিজের ঘরে নিজে অাগুন লাগায়া সুর করে কান্না করে দুঃখ প্রকাশ করা। বলুন এতে কোন লাভ হবে???

২৬ শে মে, ২০১৭ রাত ১২:২১

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনার মূল্যবান মন্তব্যের জন্য, কৃতজ্ঞ রইলাম। বেশ সুন্দর কিছু কথা বলেছেন।
সেক্সুয়াল সিনেমা, নাটক, উপন্যাস, কবিতা তৈরী করছি অাবার ধর্ষণের বিরুদ্ধে বড় বড় কথা বলছি। অামরা ধর্ষণের জাবতিয় পরিবেশ সৃষ্টি করছি। তবে এই মায়া কান্না কেনো???
খারাপ মুভি নাটকের মাধ্যমে সমস্ত কিছু শিখছে। এই কথা গুলো নিয়ে আরেক টা পোষ্ট দিবো খুব অচিরেই।

আইন, প্রশাসন এদের কথা বলা বাহুল্য, এখন দেশের অবস্থা এমন যে নেতা হইলেই হইছে সব দোষ মাফ মানে মগের মুল্লুক পাইছে আরকি।


অামাদের এই দুঃখ কি এমন হয়ে যাচ্ছেনা? যে....নিজের ঘরে নিজে অাগুন লাগায়া সুর করে কান্না করে দুঃখ প্রকাশ করা। বলুন এতে কোন লাভ হবে??? আসলেই কোনো লাভ নেই, যতদিন না আমরা জনগণ এক হবো, ভালো বিষয়ে সচেতন হবো, দাবী আদায়ে সচেষ্ট হবো।

অনেক শুভ কামনা ৰিলক ভাই।

৩০| ২৫ শে মে, ২০১৭ রাত ২:১৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


ভালো খবর যে, "আপন জুয়েলার্স", বসুন্ধরা, খুলনা পাওয়ার, বেক্সিককো'রা এই দেশের সম্পদ দখলের সময় কোন নিয়ম মানেনি, তাদের জীবনযাত্রা সেটাই প্রমাণ করছে; মানুষ এগুলো অনুভব করার শুর করেছে।

২৮ শে মে, ২০১৭ রাত ১০:০২

ধ্রুবক আলো বলেছেন: মানুষ এগুলো অনুভব করার সাথে সাথে যদি একটু সচেতন হতো তাহলেই হতো।
এরা তো ধনকুবের হয়ে গেছে পরের টা দখল করে, এখন যা ইচ্ছে তাই করতেছে সরকারও জিম্মি।

অনেকে ধন্যবাদ ভাই, পুনরায় সুন্দর একখানি মন্তব্যের জন্য।

৩১| ২৫ শে মে, ২০১৭ রাত ১০:২১

প্রামানিক বলেছেন: গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো তুলে ধরেছেন । ধন্যবাদ

২৮ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:৫৮

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ভাই , সময় নিয়ে পড়েছেন কৃতজ্ঞ রইলাম।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

৩২| ২৫ শে মে, ২০১৭ রাত ১০:৪১

কল্লোল পথিক বলেছেন:


সময়োপযোগী পোস্ট।

২৮ শে মে, ২০১৭ রাত ৯:৫৯

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ কবি ভাই, সময় নিয়ে লেখা পড়েছেন কৃতজ্ঞ রইলাম।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

৩৩| ২৯ শে মে, ২০১৭ সকাল ১১:২৮

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: কবি আপনাকে নিয়ে একটা সনেট লিখেছি সময় করে একটু দেখে দিলে খুশী হব।

২৯ শে মে, ২০১৭ রাত ১০:১৫

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অশেষ ধন্যবাদ ভাই, কৃতজ্ঞ র'লাম।
এই ক্ষুদ্র মানুষকে নিয়ে এতো সুন্দর একখানি সনেট আমি ধন্য।

৩৪| ২৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:০৬

সমাজের থেকে আলাদা বলেছেন: আপাতত আপনার কাছে অনুরোধ, ‘ধর্ষণ’ এর বিপরীতে কোনও যুতসুই শব্দ আবিষ্কার করে বাংলা অভিধানকে ধন্য করুন।

২৯ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:২৯

ধ্রুবক আলো বলেছেন: ভাই আমি চাই না শুধু বাংলা শব্দকোষ থেকে এই বিদঘুটে শব্দটা মুছে যাক যেন পুরো সমাজ থেকেই এই শব্দ এবং অপকর্ম টা মুছে যাক। কেহই যেন এই শব্দ মন না রাখে কোনোদিন।
ধর্ষণ শব্দের বিপরীত কোনো শব্দ আবিষ্কার করে তো আর লাভ নেই। ধর্ষণ এই শব্দটি অর্থবোধক ভাবে মুছে ফেলতে পারলে বাংলা অভিধান ও জীবন অভিধান ধন্য হতো।
তাই মানব জাতিকে শক্ত ও উন্নত হতে হবে।

সুন্দর মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

অনেক শুভ কামনা রইলো।

৩৫| ২৯ শে মে, ২০১৭ রাত ১০:১১

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন:
এ পোষ্ট আমার চোখে পড়েনি ...... শেষে এসে হাজিরা দিয়ে গেলাম ।

২৯ শে মে, ২০১৭ রাত ১০:১৭

ধ্রুবক আলো বলেছেন: ব্যাপার না ভাই, পোষ্ট আছে থাকবে যখন সময় হবে পড়বেন। অনেক ধন্যবাদ ভাই।

শুভ কামনা নিরন্তর।

৩৬| ২৯ শে মে, ২০১৭ রাত ১০:৩৪

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন:
কেমন আছেন ????

৩০ শে মে, ২০১৭ রাত ৩:২৯

ধ্রুবক আলো বলেছেন: ভালো আছি, এবং কিছুটা ব্যস্ত সময় পার করছি। মানুষ মাত্রই ব্যস্ততা।

আপনি কেমন আছেন? আশা করি খুব ভালো আছেন।

৩৭| ৩০ শে মে, ২০১৭ দুপুর ২:২৬

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: এ পোষ্ট আমার চোখে পড়েনি ...... শেষে এসে হাজিরা দিয়ে গেলাম । -২

হাহাহাহ সুন্দর লিখে ছিলেন ভাইয়া

ধন্যবাদ

৩০ শে মে, ২০১৭ বিকাল ৩:০৩

ধ্রুবক আলো বলেছেন: শেষে হাজির হয়েছেন ব্যাপার না। পাঠদান রেখেছেন অনুপ্রানিত হলাম । অনেক ধন্যবাদ আপু, কৃতজ্ঞ ।

অনেক শুভ কামনা রইলো

৩৮| ৩১ শে মে, ২০১৭ সকাল ১০:১০

রাজীব নুর বলেছেন: আপনি কি আমাকে একটু সাহায্য করতে পারবেন?

বেশ কয়েকদিন ধরে আমাকে ''জেনারেল'' করা হয়েছে। আমার কোনো লেখা প্রথম পাতায় বা নিরবাচির পাতায় প্রকাশ পাচ্ছে না। শুধু মন্তব্য করতে পারছি। (সামুতে কি অপরাধ করেছি তাও জানি না।) এর সমাধান কি?

ওস্তাদ চাঁদগাজী চেষ্টা করে যাচ্ছেন এককভাবে। গতকাল রাতে 'সত্যের ছায়া' একটা মেইল এড্রেস সিলেন কিন্তু সেটা কাজ করছে না। সামুতে ''সহযোগিতা'' গিয়েও কোনো সহযোগিতা পাচ্ছি না।

৩১ শে মে, ২০১৭ রাত ১১:৪২

ধ্রুবক আলো বলেছেন: কিভাবে উপকার করতে সেটা বলে দিন, আমি চেষ্টা করবো।

৩৯| ০১ লা জুন, ২০১৭ সকাল ১০:৩৬

আহা রুবন বলেছেন: এক নারী নেত্রী বললেন, কেন ভাই মেয়েরা রাতে পার্টিতে গেলে কি কোনো সমস্যা?
হ্যাঁ অনেক মানুষই এমনই ভাবে! আমরা কি সবাই অতটা সভ্য হয়ে গড়ে উঠেছি? যদি সত্যই তা হত, যদি তা বিশ্বাসই করতাম তবে বলি না কেন--্এখন আর পুলিশ, আদালতের কোনও প্রয়োজন নেই--আমরা ভাল হয়ে গিয়েছি।

০৪ ঠা জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩৮

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ রুবন ভাই, খুব দারুন এবং বুঝের একটা কমেন্ট করেছেন।
একটা কথা হলো কি ভাই, কেউ যদি সোজা কথা না বুঝে তাহলে কিভাবে আর বুঝানো যায়!!


অনেক শুভ কামনা রইলো।

৪০| ০১ লা জুন, ২০১৭ দুপুর ১২:৫১

প্রথমকথা বলেছেন: খুব মন দিয়ে পড়েছি যদিও অনেক সময় লেগেছে, অনেক কিছু জানলাম বুঝলাম ।

০৪ ঠা জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৪০

ধ্রুবক আলো বলেছেন: মনোযোগ দিয়ে পড়েছেন জেনে বেশ অনুপ্রানিত হলাম, অনেক কিছু শিখতে পেরেছেন জেনে খুব ভালো লাগলো।ভালো লিখতে পারি না, তবুও চেষ্টা করি ভালো লিখার জন্য।

অনেক ধন্যবাদ, অনেক শুভ কামনা রইলো..

৪১| ০৩ রা জুন, ২০১৭ বিকাল ৩:১৪

বিজন রয় বলেছেন: যেহেতু আমরা নৈতিকভাবে শিক্ষিত না, তাই আমাদের দ্বারা ভাল কাজ হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।

অনেক ভাল একটি লেখা পোস্ট করেছেন।

০৪ ঠা জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৪৩

ধ্রুবক আলো বলেছেন: সমস্যা হলো যে ধোনি, টাকা আছে অঢেল তাহারা মানুষকে আর মানুষ মনে করে না। আর শিক্ষা দিবে কোত্থেকে, নিজের ভেতর শিক্ষা থাকতে হবে তো!

আপনি দেখেন, শিক্ষিত সম্ভ্রান্ত ঘরের ছেলে মেয়েরা এরকম করছে না। করছে কারা, বাপের ক্ষমতা আছে, টাকা আছে এমন ঘরের ছেলে মেয়েরা।


পোস্টে ভালো লেগেছে জেনে অনুপ্রানিত।

অনেক শুভ কামনা রইলো ভাই।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.