নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ফেরদৌসা রুহী

আমার সম্পর্কে আসলে বলার কিছুই নেই। আমি অতি সাধারণ একজন মানুষ

ফেরদৌসা রুহী › বিস্তারিত পোস্টঃ

নেদারল্যান্ড ভ্রমণ। ডাচদের শহর আমাস্টারডামে ঘুরাঘুরি

০৫ ই জুন, ২০১৭ সকাল ১০:৫৯



যখন প্লেন নেদারল্যান্ড এর সিপূল এয়ারপোর্ট এ ল্যান্ড করেছে , ইমিগ্রেশন এর কাজ শেষ করে বাইরে এসে সুন্দর গুছানো এক শহর দেখে মন ভরে গেল।আমাস্টারডাম এর এই এয়ারপোর্ট সমুদ্রপৃষ্ট থেকে ১১ ফিট নিচে অবস্থিত। এয়ারপোর্ট এর বাইরেই দেখা পেয়ে গেলাম নেদারল্যান্ড এর বিখ্যাত টিউলিপ ফুলের।









নেদারল্যান্ড এর আমাস্টারডাম যার চার ভাগের এক ভাগ নদী, নালা আর খালবিলে ভরা। এক সময় বেশির ভাগ সময় পানিতেই ডুবে থাকতো আমাস্টারডাম, তখন শহরের অ্যামস্টেল নদীতে বিশাল এক ড্যাম বানানো হয়। এই ড্যাম থেকে শহরের নাম হয় আমাস্টারডাম ।পানি আটকানোর জন্য পুরা শহরে তৈরি করা হয় ১৬৫টি ক্যানেল বা খাল। ৯০টি ছোটবড় দ্বীপ রয়েছে শহরে। আর এগুলি যুক্ত রয়েছে প্রায় ১৫০০সেতুর মাধ্যমে। এজন্য আমাস্টারডামকে বলা হয় সিটি অফ ক্যানেল।বেশির ভাগ সেতুর নিচ দিয়ে যখন জাহাজ চলাচল করে তখন সেতু দুইভাগ হয়ে উপরে উঠে যায়, এভাবেই সিস্টেম করা। ক্যানেলের উপর আছে অনেক বোট হাউজ।










যে শহরে মানুষের চেয়ে সাইকেল বেশি


যখন সেতুর নিচ দিয়ে কোন জাহাজ পার হতে যায় তখন সেতু এভাবেই খাড়া হয়ে উপরে উঠে যায়। সেতুর উপর বাস, ট্রাম সবই চলাচল করে।

ডাচরা পানির উপর জাগিয়ে তুলেছিল তাদের শহর। কথিত আছে ডাচরা বলে ‘ গড পুরা দুনিয়া সৃষ্টি করেছে আর আমাষ্টারডাম সৃষ্টি করেছে ডাচরা’।প্রায় ছয় হাজার ৮০০ ঘরবাড়ি রয়েছে শহরটিতে। এরমধ্যে ষোড়শ থেকে বিংশ শতাব্দীর তৈরি বাড়িঘর যেমন আছে তেমনি রয়েছে অত্যাধুনিক স্থাপনা। আমরা হোটেলে পৌঁছে ব্যাগ রেখেই বের হয়ে গেলাম শহরের একটা ধারনা নিতে। শহরের ডামরাক ট্যুরিষ্টদের জন্য আছে নানা ট্যুর অফিস। ওখান থেকে ট্যুরিষ্ট স্পটের সমস্ত তথ্য পাওয়া যায়। কোন স্পটে কিভাবে যেতে হয় তারাই সব ব্যবস্থা করে দেয়। পরেরদিনের জন্য সিটি ট্যুর বাস আর বোটে ক্যানেল ট্যুরের টিকেট কেটে বেড়িয়ে পড়লাম হাটতে।














পর্যটকদের আমাস্টারডাম শহর ঘুরানোর জন্য আছে এই সিটি ট্যুর বাস আর সিটি ট্যুর বোট

সাইকেলের জন্য আমাষ্টারডাম বিখ্যাত। একে সাইকেলের শহরও বলা হয়। এমন কেউ নেউ যার সাইকেল নেই। মানুষের চেয়ে সাইকেল বেশি। এমনকি প্রেসিডেন্ট ও সাইকেল চালিয়ে অফিস করেন। সাইকেলের জন্য আছে আলাদা রাস্তা। সব হোটেলে, সব জায়গায় সাইকেল ভাড়া পাওয়া যায়।পুরা শহর দেখতে হলে পায়ে হেটে, ট্রামে, বোটে দেখা যায়।




পানির উপর বাড়ি











সিটি সাইট সিয়িং হপ অব হপ অফ বাসে এবং বোটেও পুরা শহর দেখা যায়। বাসে বা বোটে নানা স্পটে নামিয়ে দিবে, ঘুরে ফিরে আবার একই টিকেটে পরের বাসে বা বোটে উঠে পড়া যায়। শহরের আছে প্রায় ৫০টি যাদুঘর। যাদুঘর দেখতে পায়ে হেটে, ট্রামে, বাসে, বোটে সব ভাবেই যাওয়া যায়। শহরে ঘুরার সময় আমরা একটা হালাল খাবারের রেষ্টোরেন্ট পেয়ে গেলাম।ওখানেই আমরা প্রতিদিন রাতের খাবার খেয়ে হোটেলে ফিরতাম।





মন্তব্য ৫১ টি রেটিং +১১/-০

মন্তব্য (৫১) মন্তব্য লিখুন

১| ০৫ ই জুন, ২০১৭ সকাল ১১:৪১

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: সত্যি ছবির মত সুন্দর দেশ। ও দেশের মানুষের সাইকেল চালানোর বিষয়টি ভাল লাগল।
সুন্দর একটি পোষ্টের জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

০৫ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ১:৩৯

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে সুন্দর মন্তব্যের জন্য।
তাদের সব কিছুই গুছানো, ছবির মতই দেশ। ওখানে সবার সাইকেল আছে। শহরের বাইরে গাড়ি পার্ক করে নাকি সবাই সাইকেল চালিয়ে অফিস করে। তাই শহরে ট্রাম, নৌকা ছাড়া অন্য গাড়ি দেখা যায়না খুব একটা।

২| ০৫ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ১২:২৫

নবিনের আলো বলেছেন: ইউরোপের দেশগুলো সত্যিই স্বপ্নের মত দেখতে । মনোরম প্রাকৃতিক দৃশ্য কিংবা অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ছোঁয়া সবই আছে পাশাপাশি ।

০৫ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ১:৪৮

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: এজন্যই তো কেউ একবার ইউরুপ যেতে পারলে আর ফিরতে চাইনা।

তাদের সবই চলে নিয়মে আর আমাদের সবই অনিয়মে।
মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ আপনাকে।

৩| ০৫ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ১২:২৫

ধ্রুবক আলো বলেছেন: খুব সুন্দর দেশ, একদম ছবির মতো, ছবিতেও ফুটে উঠেছে সৌন্দর্য।

০৫ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ১:৫১

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: সব কিছুই সুন্দর। যেদিকেই যেতাম মনে হয় এখানেই বসে থাকি।

মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

৪| ০৫ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ১২:৩৬

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আহা!

আমাদের বরিশাল হতে পারত বাংলার আমস্টার্ডাম!!! ;)

স্বাপ্নিক উদ্যোক্তার বড্ড অভাব!!!!

দারুন ভ্রমনে দারুন সুন্দর এক শহর পরিভ্রমন করানোয়া থ্যাংকস!

+++++++++

০৫ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ১:৫৬

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: হা হা হা আমিও আপনার সাথে সহমত। কেন যে আমাদের বরিশালকে সরকার আমস্টারডাম বানায়নি।

ওখানে নাকি বাড়ির স্কয়ার ফিট হিসাবে ট্যাক্স দিতে হয় তাই ট্যাক্সের পরিমান অনেক, হয়ত আমাদের দেশে এভাবে কেউ ট্যাক্স দিতে পারবেনা বলে সরকার এপথে পা বাড়ায়নি :D
অনেক ধন্যবাদ আপনাকে সুন্দর মন্তব্যের জন্য।

৫| ০৫ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ১২:৩৯

নতুন নকিব বলেছেন:



//বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আহা!

আমাদের বরিশাল হতে পারত বাংলার আমস্টার্ডাম!!! ;)

স্বাপ্নিক উদ্যোক্তার বড্ড অভাব!!!!//

-সহমত।

ভ্রমন ব্লগ দারুন উপভোগ্য!

ভালো থাকুন।

০৫ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৫২

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: আমিও বিদ্রোহী ভাই আর আপনার সাথে সহমত।
অনেক ধন্যবাদ আপনাকে মন্তব্যের জন্য।

৬| ০৫ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ১:১৩

মানবী বলেছেন: প্রায় ২১ বছর আগে প্রথম গিয়েছিলাম নেদারল্যান্ড, প্রচন্ড এ্যাডেভেন্চারাস সময় কেটেছে।
কোন এক ডিসেম্বরের বরফ ঢাকা শহরের প্রাণখুলে ঘুরেছিলাম আমরা, লেক দিয়ে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়ানো এ্যামস্টারডাম শহরটার শীতের রূপের এক ভিন্ন সৌন্দর্য্য আছে।
পৃথিবীর সেরা সিফুদ পিজ্জাটাও এখানে পাওয়া যায় মনে হয় :-)

সেন্ট্রাল স্টেশনের আশেপাশের টুরিস্ট স্পট(যদি ভুল না হয়ে থাকে), ফার্মার্স মার্কেটের মতো সারি সারি দোকান, নানা বর্ণের ফুল আর ক্রাফ্টসের দোকান এখনও আছে কিনা জানা নেই। অদ্ভুত ঘোর লাগা একটা সময় কেটেছে সেবার, এই পোস্টটির ছবি দেখে সময়টা হঠাৎ জীবন্ত মনে হলো।

সুন্দর পোস্টের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ ফেরদৌসা রুহী।




০৫ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৫৯

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: ওয়াও ২১ বছর আগেই ঘুরে ফেলেছেন।

আমার তো মনে হয় আপনি ২১ বছর আগে আমাস্টারডাম, সেন্ট্রাল স্টেশন এলাকা যেমন দেখেছেন এখনো অবিকল তাই আছে।

কারন ৪০০ বছর আগেই তারা যেভাবে সব কিছু অর্গানাইজ করে করেছে তাতে শহরে কোন কিছু চেঞ্জ করার উপায় নেই। সব কিছুই আগের মত আছে, নতুন কিছু দোকান পাট হয়ত হয়েছে।
আমি সেন্ট্রাল স্টেশনেই ছিলাম। আমার হোটেলের নিচ দিয়ে রেল লাইন ছিল।
অনেক ধন্যবাদ আপনাকে আপনার কিছু অভিজ্ঞতা শেয়ার করার জন্য।

৭| ০৫ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ১:৫০

চাঁদগাজী বলেছেন:

নতুন কিছু দেখলাম না, সেই পুরাতন ঘরবাড়ী, গাড়ী ঘোড়ার কথা

০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ২:৪৩

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: তারা তো সেই ৪০০ বছর আগেই করে ফেলছে যা করার।

নতুন কিছু দেখতে হবে তাদের যা আছে সব ভেংগে আবার নতুন করে সব করা লাগবে।

৮| ০৫ ই জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫৮

সুমন কর বলেছেন: ছবিগুলো দেখে গেলাম। সুন্দর।

০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ২:৫১

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: ছবি দেখে যাওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানবেন।

৯| ০৫ ই জুন, ২০১৭ রাত ১০:১৯

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন:
সাইকেলটা ভাল লেগেছে +

ছবিগুলো সুন্দর হয়েছে ।

০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ৩:০৫

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: সাইকেলের শহর আমাস্টারডামে গিয়ে সাইকেল না চালালে জীবনই বৃথা। আমারো জীবন বৃথা গেল। এত ব্যস্ত ছিলাম যে ৭দিন ছিলাম তাও সময় করতে পারিনি সাইকেল চালানোর।
অনেক ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য।

১০| ০৫ ই জুন, ২০১৭ রাত ১০:৩৫

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ধন্যবাদ আপু শেয়ার করার জন্য !!

০৬ ই জুন, ২০১৭ ভোর ৫:১৫

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ আপু মন্তব্যের জন্য।

১১| ০৫ ই জুন, ২০১৭ রাত ১১:০০

আহমেদ জী এস বলেছেন: ফেরদৌসা রুহী ,



সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১১ ফুট নীচে । এমন একটি ভুখন্ডকে নেদারল্যান্ডবাসীরা তলিয়ে যেতে দেয়নি । তাদের করা বাঁধের কারনেই । আর আমাদের হাওর বিলের বাঁধগুলো এক ধাক্কাতেই ধরাশায়ী ফি বছর । নেদারল্যান্ডবাসীদের কি চারটি মাথা ?
অনেক কষ্ট নিয়ে এটুকু বলতে হলো আপনার এমন সুন্দর পোস্টেও । দুঃখিত ।

ভালো লাগলো ছবিতে আমাস্টারডাম ভ্রমন । ছিমছাম সবকিছু । চমৎকার এই পোস্টে বেশ কিছু ছবির ক্যাপশান বা টুকটাক বর্ণনা থাকলে আরো ভালো লাগতো ।

০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:১৮

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: তাদের বুদ্ধির জন্য, নিজের দেশকে উন্নত করার যে মানসিকতা এসব কারনেই তারা উন্নত দেশ, উন্নত জাতি।

আর আমাদের দেশের এসব দেখে কষ্ট লাগে শুধু। যেকোন কাজ করার জন্য বাজেটের বেশি টাকা নিবে, তারপর উপর মহল থেকে

নিচের মহল সবাই চেটেপুটে খাবে। এজন্য আমাদের এই দুরবস্থা।

ভ্রমণ পোস্ট মাত্র শুরু করেছি, নেদারল্যান্ড মাত্র স্টার্ট করলাম আরো বহু কিছু আছে।

হুম ক্যাপশন আর সাথে কিছু বর্ণনা দিলে আরো ভালো হত।

অনেক ধন্যবাদ আপনাকে সুন্দর মন্তব্যের জন্য।

১২| ০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ১:৫৩

সচেতনহ্যাপী বলেছেন: অজানাা একটি দেশ ঘুরে এলাম, আপনার কল্যানে।।। যেন পটে আঁকা ছবি।।
শুধু মানসিকতার অভাবে আমরা এরচেয়েও সুন্দর ছবিকে মাতাল উন্মত্বতার সাথে নষ্ট করে চলেছি অহরহ!!

০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:২৬

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: শুধু মানসিকতার অভাবে আমরা এরচেয়েও সুন্দর ছবিকে মাতাল উন্মত্বতার সাথে নষ্ট করে চলেছি অহরহ!!
আপনার সাথে সম্পূর্ন একমত।
তারা জানে নিজের দেশকে কিভাবে ভালো রাখতে হয় আর আমরা জানি কিভাবে নিজের দেশকে ধ্বংস করতে হয়।
মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

১৩| ০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ২:০৩

পলক শাহরিয়ার বলেছেন: ইউরোপের দেশ/শহরগুলো আসলেই দারুণ। একটা আরেকটার মত আধুনিক আবার একেকটার একেক বৈশিষ্ট্য। ইতিহাস, ঐতিহ্য প্রিয় মানুষগুলো তাদের শহরের সৌন্দর্য নিয়ে দারুন সচেতন। সব শহরেই এত এত জাদুঘর! অবাক করা
ব্যাপার স্যাপার। গতবছর ইউরোপের কয়েকটা দেশে গিয়েছিলাম। নেদারল্যান্ডে যাওয়ার ইচ্ছা থাকলেও সময় হয়নি।
মিস করা শহরটা আপনার পোস্টে দেখে ফেললাম।
"ডাচরা পানির উপর জাগিয়ে তুলেছিল তাদের শহর। কথিত আছে ডাচরা বলে ‘ গড পুরা দুনিয়া সৃষ্টি করেছে আর আমাষ্টারডাম সৃষ্টি করেছে ডাচরা’।"
ইন্টারেস্টিং তথ্য জানা হলো। আরেকটু বর্ণনা দিতে পারতেন। আরো কিছু জানা হতো।
ভাল থাকবেন। শুভরাত্রি।

০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৩৪

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: নেদারল্যান্ড এর আরো কয়েকটা পর্ব লেখার চেষ্টা করবো। আমরা প্রায় ৭ দিন ছিলাম নেদারল্যান্ড। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত শুধু ঘুরেছি।
আসলেই ট্যুরিষ্টদের জন্য তাদের সব কিছু কত সুন্দর করে অর্গানাইজ করা। আর আমাদের দেশে কত কিছু আছে দেখার তাও কোন অর্গানাইজ নাই ট্যুরিষ্টদের জন্য। নিজের দেশেই আমরা ট্রাভেল করতে ভয় পাই।
আমরা তো গাইডের সাথে ঘুরেছি তাই গাইড সব এলাকা সম্পর্কে নানা তথ্য দিত, ইতিহাস বলতো।
আমরা ৫ টা দেশ ঘুরে এসেছি একসাথে।
অনেক ধন্যবাদ আপনাকে সুন্দর মন্তব্যের জন্য।

১৪| ০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ২:৩৮

কল্লোল পথিক বলেছেন:

আপনার চোখে দেখে নিলাম আমস্টারডাম।

০৬ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৩৬

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: সাথে থাকার জন্য অনেক ধন্যবাদ।
আরো পর্ব লিখতে চেষ্টা করবো নেদারল্যান্ড নিয়ে।

১৫| ১০ ই জুন, ২০১৭ রাত ৮:৪২

শায়মা বলেছেন: ছবির মত সুন্দর আপুনি!!!!!!!

১১ ই জুন, ২০১৭ রাত ৮:০৬

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ পোস্ট দেখে মন্তব্য করার জন্য।

১৬| ১০ ই জুন, ২০১৭ রাত ১১:৪৮

নাগরিক কবি বলেছেন: এখন পর্যন্ত যাবার সৌভাগ্য হয়নি :| , সুন্দর ছবি ও আলোচনা আপু।

১১ ই জুন, ২০১৭ রাত ৮:০৯

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: আশা করি একবার যাওয়ার সৌভাগ্য হয়ে যাবে। ইচ্ছা থাকলে সবই হয়।
অনেক ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য।

১৭| ১১ ই জুন, ২০১৭ রাত ১২:০৫

কোলড বলেছেন: Did you walk inside the red light district too? What do you think about it?

১১ ই জুন, ২০১৭ রাত ৮:১২

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: আমি গিয়েছি কিন্তু গাড়ি থেকে নামিনি। রাস্তা ঘুরে চলে আসছি।

১৮| ১১ ই জুন, ২০১৭ রাত ১:১৫

নস্টালজিক বলেছেন: ছবি-লেখায় উপভোগ্য ভ্রমণ ব্লগ।

শুভেচ্ছা নিরন্তর।

১১ ই জুন, ২০১৭ রাত ৮:১৪

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ পোস্ট দেখে মন্তব্য করার জন্য।

১৯| ১২ ই জুন, ২০১৭ সকাল ৯:১৫

জুন বলেছেন: কি সুন্দর সাজানো গোছানো একটি দেশ। ছবিগুলো দারুন হয়েছে। ককেনহফ গিয়ে থাকলে টিউলিপের ছবি শেয়ার করতে ভুলবেন না ফেরদৌসা রুহী ।
অনেক ভালোলাগা রইলো ।
+

১২ ই জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:০৮

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ আপু।

জি কেইকনহফ টিউলিপ গার্ডেনে গিয়েছি। এবং তখন গার্ডেন খোলাও পেয়েছি।
কেউকনহফ নিয়েও লিখবো একটা পোস্ট।

২০| ১৪ ই জুন, ২০১৭ রাত ৩:২১

চাঁদগাজী বলেছেন:


মানুষের কি অবস্হা; দেখলে সুখী মনে হয়?

১৯ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:৪৬

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: দেখলে তো সুখিই মনে হয়। ভেতরের খবর কে রাখে।
ধন্যবাদ আপনাকে আবারো এসে মন্তব্য করার জন্য।

২১| ১৪ ই জুন, ২০১৭ ভোর ৫:২৩

রিফাত হোসেন বলেছেন: +
যখন আবহাওয়া অনুকূলে থাকে তখন সাইকেলে করে কাজ থেকে বাসায় আসি। যদিও আমি ভাল চালাতে পারি না।

১৯ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:৫৩

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: আমিও শিখেছি সাইকেল চালানো।
নেদারল্যান্ড ইচ্ছে ছিল চালানোর কিন্তু সময় হয়নি।
অনেক ধন্যবাদ আপনাকে মন্তব্যের জন্য।

২২| ১৪ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ২:২০

প্রামানিক বলেছেন: ছবি বর্ণনা ভালো লাগল। ধন্যবাদ

১৯ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:৫৮

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ভাই মন্তব্যের জন্য।

২৩| ১৪ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ২:৩১

বিজন রয় বলেছেন: সাইকেলটার জন্য আমার লোভ হলো।

ডাচ উপলব্ধি।

১৯ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:০১

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: আমারো লোভ হচ্ছিল দেখে।
ভাবছি এমন একটা কালারের সাইকেল কিনবো।
অনেক ধন্যবাদ আপনাকে মন্তব্যের জন্য।

২৪| ১৫ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৪১

গেম চেঞ্জার বলেছেন: ওরা আজ যেখানে বাস করছে সেখান থেকে আমরা বছর শয়েক দুরে বাস করছি সর্বসাকুল্যে! আমাদের ভোগ/ব্যাক্তিস্বার্থকেন্দ্রিক ভাবনাই আমাদের পেছনে রেখেছে!

আপনার ছবিব্লগ ঘুরে ঘুরে দেখার সময় দেশের সাথেই কমপেয়ার করেছিলাম। তাই ঐ কথা বলা।

খুব সুন্দর ছবি ব্লগ!!

(+)

১৯ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:০৭

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: ওদের থেকে আমরা হাজার পর পেছনে পড়ে আছি।
আপনার মতামতের সাথে আমিও একমত।
ছবির মত দেশ তাদের, নিজ হাতে তৈরি করেছে তারা তাদের দেশ।
আরো কিছু পর্ব থাকবে নেদারল্যান্ড নিয়ে নিয়ে।
মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

২৫| ১৮ ই জুন, ২০১৭ বিকাল ৩:৩৯

খাঁন রোজেন বলেছেন: ভালো লেগেছে।

১৯ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:০৮

ফেরদৌসা রুহী বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.