নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

“আমি আপনার কথার সাথে দ্বিমত পোষণ করতেই পারি কিন্তু আপনার কথা বলার স্বাধীনতা রক্ষার প্রয়োজনে জীবনও উৎসর্গ করতে পারি”

রুপম হাছান

আমি আপনার কথার সাথে দ্বিমত পোষণ করতে পারি, কিন্তু আপনার কথা বলার স্বাধীনতা রক্ষার প্রয়োজনে জীবন ও দিতে পারি...”।

রুপম হাছান › বিস্তারিত পোস্টঃ

-গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস, জানা থাকলে উপকারে আসবে-

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:০৩



১। রাতে একা একা হাটলে যদি বুঝতে পারেন পিছে কেউ আছে, তাইলে শুধু ঘাড় ঘুরাবেন না। পুরো শরীর ঘুরিয়ে দেখবেন। ঘাড় ঘুরালে মটকে দেবার সম্ভাবনা আছে। তবে একেবারে না তাকানো উত্তম।

২।ঘরে, মসজিদে ও বিছানার ওপর সাপ দেখতে পেলে মারবেন না, প্রথমে চলে যেতে বলবেন। কারন জ্বীন সাপের রুপ ধারন করে থাকেন, মারলে আপনার ক্ষতি হওয়ার আশংকা আছে। আর যদি চলে না যায়, তবে বুঝবেন আসলেই ওটা সাপ, তখন মারবেন বা তাড়িয়ে
দিবেন।

৩। যদি রাতে দেখেন গাছের কোন ডাল বা বাঁশ ঝুকিয়ে পরেছে তবে তার ওপর বা নিচে দিয়ে যাবেন না। আয়াতুল কুরসি পড়বেন, ক্ষতির কোন আশংকা থাকলে সরে গিয়ে ঠিক হয়ে গেছে, তখন যাবেন।

৪। শুধু গভির রাতে যদি যেকেউ বাহির থেকে আপনার নাম ধরে ডাকলে সাড়া দিবেন না। ৩ বার ডাকার পর সাড়া দিবেন এবং দেখে বুঝে সতর্কতার সহিত বের হবেন।

৫। গাছে যদি কিছু বসা দেখতে পান তাইলে তার দিকে তাকিয়ে থাকবেন না। চুপ করে মাটির দিকে তাকিয়ে চলে যাবেন।

৬। যদি একা রাতে আপনার রুমে এসে দেখেন আপনিই রুমে বসে আছেন। মানে নিজেকে নিজেই দেখতে পান তাইলে ভয় পাবেন না। ওটা আপনার সাথে থাকা জিন। (কারিন জিন)। শুধু চোখ বন্ধ করে আয়াতুল কুরসি পড়বেন ও তারপর চোখ খুলবেন।

৭। রাতে কখনো চিত হয়ে ঘুমাবেন না। আর যদি ভয়ের স্বপ্ন দেখেন, তাইলে উঠে বুকের বাম পাশে আস্তে আস্তে করে ৩ বার থুথু ফেলবেন। -(বুখারী)

৮। পুকুরে গোছল করলে যদি বুঝতে পারেন কেউ আপনার পা ধরে টানিয়ে নিয়ে যাচ্ছে তবে প্রথমে চিৎকার দিবেন। ও সাথে সাথে দোয়া ইউনুস পড়া শুরু করবেন। কারন পুকুরে বা নদী তে জিন থাকে।

৯। যদি রাতের বেলা একা একা দেখতে পারেন কুকুর আপনাকে আক্রমণ করতে আসছে আর কুকুর টা কে যদি অস্বাভাবিক মনে হয়, তাইলে যথাক্রমে মাটিতে একটা বিত্ত (বাউন্ডারী) আঁকাবেন এবং তার ভিতর দাঁড়িয়ে আয়াতুল কুরসি পড়বেন।

১০। যদি দেখেন আপনি রাতের বেলায় বার বার পথ হারিয়ে বা ভুলিয়ে যাচ্ছেন, একই পথে বার বার ফিরিয়ে আসছেন বা অনেক দূর যাওয়া পরও গন্তব্যে পৌছাতে পারছেন না,সাহস হারাবেন না দাড়িয়ে আজান দিবেন। তাইলে সব ঠিক হয়ে যাবে। গয়রান নামক জিন আপনাকে ঘুরাচ্ছেন।

১১। রাতে ঘুমের মধ্যে যদি বুঝতে পারেন আপনার বুকে কেউ ভর করে আছে। তবে চিৎকার দিবেন না। চিৎকার দিলে কোন লাভ হবে না, কারন আপনার চিৎকার মুখ দিয়ে বের হবে না। আপনার যানা যেকোনো সুরা বা আয়াত পাঠ করবেন।

১২। মরা মানুষের আত্মা যদি দেখতে পান তাইলে ভয় পাবেন না। ওটা আত্মা নয়। জিন ওই মরা মানুষের রুপ ধারন করেছে। শুধু সালাম দিয়ে চলে যাবেন।

১৩। গভীর রাতে একা রাস্তায় হাঁটার সময় যদি দেখেন কালো কুকুর বা কালো বিড়াল আপনার বামপাশ থেকে আপনাকে ক্রস করার চেষ্টা করছে তবে ক্রস করতে দিন। কোন সমস্যা নেই। এটা সমাজের কুসংস্কার। তবে তাকে মারবেন না।

১৪। অনেকেই বলে কবরস্থান একটা পবিত্র স্থান। কথা টি ঠিক তবে কবরস্থানে ঘুল নামক জিন থাকে। তাই পবিত্র স্থান হলেও সর্তকের সাথে চলবেন।

১৫। আয়নার মধ্যে জিন প্রবেশ করতে পারে। তাই গভির রাতে আয়না না দেখাই ভাল। আর আয়না তে সবসময় পর্দা দিয়ে রাখবেন। বাথরুমে আয়না না রাখাই ভাল কারন বাথরুমে খান্নাস নামক জিন থাকে, যদিও দুর্বল জিন। আর আয়নার সামনে গিয়ে এই দোয়া পাঠ করবেন "আল্লাহুম্মা আনতা হাস্সানতা খালকি ফাহাস্সিন খুলুকি"।

১৬। বাসার ছাদের ওপর জিন বসবাস করে, তাই গভির রাতে একলা ছাদে যাইবেন না। গেলে কাউকে সাথে নিয়ে যাবেন।

১৭। যদি আপনি একা একা কোন মিষ্টি বা পিঠা জাতিও কিছু খেতে থাকেন ও দেখলেন যে কোন বিড়াল আপনাকে ডিস্টার্ব করছে তবে তাকেও খেতে দিন। কখনোই তাড়িয়ে দিবেন না বা মারবেন না। কারন কোন সময় জিনও আকৃতি ধারন করে আসে, ও মিস্টি জাতিও জিনিস তাদের প্রিয় খাবার।

১৮। অতিরিক্ত রাগ করবেন না। আমাদের মাঝে মধ্যে রাগ এতোটাই বেড়ে যায় যে মুখ দিয়ে কথা আটকে আটকে যায়। এই রাগের কারনে জিন আপনার শরিরে প্রবেশ করতে পারে। তাই রাগ হলে বসে পড়বেন, বা বসে থাকবে দাঁড়িয়ে যাবেন। এবং অযু করে নিবেন।

১৯। মাগরীবের সময়, ঠিক দুপুরবেলা, রাত ১২টার ও আমাবস্যার সময় জিন দের প্রভাব বেশি থাকে। তাই এই সময় সর্তক থাকবেন। ছোট বাচ্চাদের নিরাপদে রাখবেন, বিশেষ করে মাগরীবের সময় বিসমিল্লাহ বলে ঘরের দরজা বন্ধ করে দিবেন।

২০। প্রতিনিয়ত যদি ভয়ের স্বপ্ন দেখেন ও প্রতিনিয়ত দেখেন যে ওপর থেকে নিচে পরে যাচ্ছেন, কাটাকাটি মারামারি ইত্যাদি দেখেন, তাহলে দ্রুত সঠিক চিকিৎসা নিবেন।

বিভিন্ন সূত্র থেকে সংগ্রহকৃত।

মন্তব্য ৫৫ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (৫৫) মন্তব্য লিখুন

১| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:১৩

শায়মা বলেছেন: বাপরে ! এত দিকে জ্বীন!

আমি তো কোনোদিন একটাকেও দেখলাম না ! :(

আমার খুব দেখার ইচ্ছা ছিলো ! :( :( :(


আচ্ছা ভাইয়া তুমি কোথায় কোথায় দেখেছো!

রাস্তা, ঝোঁপঝাঁড়, আয়না বিছানা সবখানেই!!!!!!!! B:-)

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১০:৪৭

রুপম হাছান বলেছেন: ধন্যবাদ বোন শায়মা আপনার জীন দেখার প্রতি আপনার মাঝে এক ধরণের শুণ্যতা অনুভব করার জন্য। তবে জানেন তো বোন, বাংলায় একটা কথা বলে- সুখে থাকতে ভুতে কেলায়!

যখন আপনি সত্যি জীন দেখে ফেলবেন ঠিক তখন থেকে আপনাকে আর আপনার জগতের কেউ ভালো ভাবে দেখতে চাইবে না। আর এটাই তো সত্যি। হয়তো আপনার জীবনে কখনো না কখনো জীনদের গল্প শুনে থাকবেন। যেটা স্বয়ং পবিত্র কোরআন এ রয়েছে। মানুষদের মাঝে যেমন ভালো-খারাপ রয়েছে তো জীনদের মাঝে সেটা আছে। আর এটা অস্বীকার করার কী আছে?

আরেকটি কথা বলতে ও শুনেছি- অপ্রিয় সত্য শুনতেও কখনো ভালো লাগেনা, আর সেটা দেখা তো পরের হিসাব। আর যদি সত্যি আপনি জীন দেখতে চান তবে হাক্কানি আলমদের সাথে যোগাযোগ রেখে পবিত্র কোরআন এর জীন সুরাটি পড়বেন এবং তা নিয়ম করে। নিশ্চয় আপনি জীন দেখতে পাবেন।

অসুস্থ মানুষের সহচর কেউ হয়না তাই বলবো, ভালো থাকুন এবং সব সময় ভালোর সাথে থাকুন। ধন্যবাদ।

২| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:১৬

হাসান মাহবুব বলেছেন: ছবিটা কোনো জ্বীনের? আপনার সাথে মেসেঞ্জারে চ্যাট করার সময় দিয়েছে? নাকি ইনস্ট্রাগামে আপলোড করেছে?

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১০:৫৯

রুপম হাছান বলেছেন: ভাই হাসান মাহবুব, আপনি কি প্রকৃত কোনো আর্টিস্ট নাকি কৌতুকার? মনে হচ্ছে মজা করতে খুব পছন্দ করেন? আর নতুবা নেট দুনিয়া সম্পর্কে আপনার খুব বেশি জানাশোনা রয়েছে? কোনটা? বলবেন কি?

ব্লগ এ এসে অনেকে অনেকের সাথে পরিচিত হয়েছেন কেউ খোঁচা মেরে মন্তব্য করে নতুবা খোঁচা দিয়ে কিছু লিখে। কেউবা আবার সবাইকে আনন্দ দিয়ে লিখতে পছন্দ করে পরিচিত হয়েছেন কেউবা লিখেন দুঃখভরা দুনিয়া নিয়ে। আপনি কোন গ্রুপের সদস্য?

আমার কাছে মনে হয়েছে এগুলোর কোনোটার মধ্যে আপনার অবস্থান নেই! তাই বলছি- লেখার সাথে যায় এমন কোনো ছবি দিলে তা সেই লেখার বাস্তবিক ছবি হতে হবে তার কোনো শর্ত ব্লগ এডমিনের নেই। তাহলে এই ছবিটি নিয়ে আপনার ছেলে মানুষী করার মাঝে কি মজা ছিলো? এতে দেখেছি আবার পাঁচজন খুব মজাও পেয়েছেন। হা হা হা। এতো সুন্দর মন্তব্য করেন আপনি, ভাবায় যায় না!!!

৩| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:১৯

শাহীবুল বারী বলেছেন: এইটা কত সাল ?

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:০৩

রুপম হাছান বলেছেন: ভাই শাহীবুল বারী, আপনার প্রশ্ন শুনে মনে হয়েছে; আপনি লেখাটা পড়ে সত্যি জীনের ভয় পেয়ে গেছেন! চলমান সালটাই যখন আপনার মস্তিষ্ক থেকে গায়েব হয়ে গেছে তখন কিছু লিখে সময় নষ্ট করার দরকার কি?

তবুও ভালো থাকুন এবং সব সময় ভালোর সাথে থাকুন, এমনটাই প্রত্যাশা।

৪| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:২০

GM Kibria বলেছেন: Ha ha

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:০৪

রুপম হাছান বলেছেন: আমি জানি না হাসার মতো কোনো তথ্য দিয়েছি কিনা। তবে অন্যদের মন্তব্যগুলো পড়লে সত্যি হাসি পেয়ে যাবে অনেকের।

ভালো থাকবেন।

৫| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:২২

শাহীবুল বারী বলেছেন: জ্বীন জাতীর পক্ষ থিকা আপনাকে নোবেল দেওয়া উচিৎ ....

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:০৯

রুপম হাছান বলেছেন: আমাকে নিয়ে এতো বেশি ভাবার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ না দিয়ে তো আর পারা যায় না ভাই শাহীবুল বারী। এতো কষ্ট করে আবার সেটা প্রকাশ করতে এসে আপনার মূল্যবান সময়ও নষ্ট করেছেন বটে। তার কৃতজ্ঞতা কিভাবে যে প্রকাশ করবো ভেবে পাচ্ছিনা!

সত্যি বলতে আপনাদের দোয়া থাকলে শুধু জীন থেকে কেনো, পুরো মানবজাতীর পক্ষ থেকেও নোবেল পাওয়ার মতোই দায়িত্ব নিয়েই কাজ করে যাচ্ছি প্রতিনিয়তই। হয়তো এটাও একদিন পেয়ে যাবো ইনশাল্লাহ। দোয়া রাখবেন। আর কাউকে তুচ্ছ ব্যাপারে হলেও উপহাস করা থেকে নিজেকে নিবৃত রাখবেন কারণ কাউকে তুচ্ছ করার মাঝে নিজের জ্ঞানের পরিধির প্রকাশ পায়।

৬| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:২৪

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: যেখানে জীন আছে বলে মনে হবে কোন রকম ভয় না পেয়ে আল্লার নাম নিয়ে দোয়া দুরুদ পড়ে বলবেন ইয়া আলী মুশকিল কুশা , জীন পালাবে বা চলে যাবে কোন ক্ষতি সে করতে পারবেনা ।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:২০

রুপম হাছান বলেছেন: যারা ন্যুনতম কোরআন এর জ্ঞান রাখে কিন্তু পুরো তাৎপর্য জানেন না তারাও এতটা উপহাস করেন না, যতটা ব্লগের জ্ঞানী লোকেরা করেন! আমি হয়তো তেমন কিছুই জানি না তবে এতোটা নির্বোধ নই, যে পবিত্র কোরআন এর কোনো অংশের সাথে আমার মন্তব্যর সাংঘর্ষিক রুপ থাকবে।

তবুও জানিনা অনেকে মন্তব্যর মধ্যে জেনে কিংবা না জেনে মন্তব্য করেছেন যা সত্যি পড়ে অবাক হয়েছি!

ধন্যবাদ ভাই ডঃ এম এ আলী আপনার সুন্দর মন্তব্যর জন্য। যারা সত্যিটা জেনেও লুকিয়ে রেখে অন্যর কাছ থেকে বাহ বাহ নিতে চায়, তারা আর যেমনটা হোক ভালো মানুষ হতে পারেন না। আর আমরা জানি, সত্যি সব সময় আপন গুণে প্রফুস্টিত। হয়তো সবাই একদিন এই সত্যিটা অনুভব করতে পারবে যে, দুনিয়াতে জীন নামক কোনো প্রাণীর অস্তিত্ত্ব আছে।

৭| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:২৫

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: মনে হচ্ছে মধ্য যুগের কোন ব্লগ পড়লাম ;)

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:২৩

রুপম হাছান বলেছেন: হয়তো পড়েছেন নতুবা এমনো তো হতে পারে কেউ কেউ মধ্য যুগেই রয়ে গেছেন।

৮| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:২৮

রিএ্যাক্ট বিডি বলেছেন: হমমমম ReactBd

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:২৭

রুপম হাছান বলেছেন: ধন্যবাদ আপনার রিএ্যাক্ট প্রকাশ করার জন্য।

ভালো থাকবেন এবং সব সময় ভালোর সাথে থাকবেন।

৯| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:৩৫

তিক্তভাষী বলেছেন: মজা পেলুম!

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:২৯

রুপম হাছান বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই তিক্তভাষী।

মজা দেয়ার মতো তেমন কিছু লিখিনি তবে মন্তব্য পড়ে মজা পাচ্ছি, যদিও আমি এমন মন্তব্য অনেকের কাছে আশা করিনি। কারণ আমি ভেবেছি সত্যিটা সবারই জানা আছে কিন্তু মন্তব্য দেখলার তার পুরো উল্টো।

যাই হোক-ভালো থাকুন এবং সব সময় ভালোর সাথে থাকুন।

১০| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:৪০

রাজীব নুর বলেছেন: বিনোদন মূলক পোষ্ট।
কুসংস্কার বিশ্বাস করবেন না।
অন্ধকারে না থেকে আলোতে আসুন।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৩৮

রুপম হাছান বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই রাজীব নুর আপনার সুন্দর মন্তব্যর জন্য।

আমিও কুসংস্কার বিশ্বাস করি না। তবে কুসংস্কার বলতে কিন্তু জীনদের ব্যাপারে বলা হয়নি। জীন সত্যি তাই এটা কখনোই কুসংস্কার হতে পারে না। কুসংস্কার তো সেটা যেটা ওঝারা করে থাকেন, যেখানে মিথ্যার আশ্রয় থাকে।

অথচো পুরো ব্যাপারটি মন্তব্যকারেরা চরমভাবে হাল্কা করে ফেলেছেন। আর এমন ভাবে বলেছেন যেনো কেউ জীবনে কখনোই ভয় পায়নি। অথচো মানব জাতীর এই ভয় পাওয়ার ব্যাপারেও জীনদের আশ্রয় থাকে। তবুও আমরা সত্যি অস্বীকার করছি।

হয়তো সবাই অনেক বেশি ধর্মভীরু আমার তুলনায়। কারণ ধর্মভীরুরা কখনো ভয় পায় না। হা হা হা।

১১| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৫:০৬

কানিজ রিনা বলেছেন: কোরআনে জীন জাতি নিয়ে বিস্তারিত বলা
আছে। কখনও মসজিদে নামাজ পড়া অবস্থায়
দেখা যায়। জীন জাতির মধ্যে ভাল মন্দ আছে
মানুষ যেমন ভাল মন্দ আছে। জিন অনেক
রকম রুপ ধারন করতে পারে। তবে সয়তান
জীন মানুষকে ভয় দেখায়। ভয় পেলেই ক্ষতি
হয় রোগ বালাই চেপে ধরে।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৪৬

রুপম হাছান বলেছেন: আপনি হয়তো সত্যিটার অনেক বেশি কাছাকাছি তাই সত্যিটা বলতে পেরেছেন কিন্তু আমাদের মাঝেও কত মত পার্থক্য ভাবাই যায় না। অথচো সবাই কম বেশি এদের নিয়ে পড়েছি এবং প্রতিনিয়তই পড়ছি আর বলছি এসব কুসংস্কার।

এখন আমার, তাদেরকে বলতে ইচ্ছে করছে-অন্যান্য ধর্মের লোকেরাও তো সত্যটা পড়ছে তবে কেনো সবাই সত্যটাকে মেনে নিচ্ছে না যেমন-হিন্দুরা মুসলিম হচ্ছে না!? কারণ হিন্দুদের বেদ এর মধ্যেও আমাদের শেষ নবীর কথা আছে কিন্তু তারা সত্যিটা জেনে উপেক্ষা করছে।

এটা সব সময় হয়ে এসেছে আর কেয়ামত পর্যন্ত হয়ে যাবে। এক পক্ষ সব সময় সত্যকে মিথ্যা বলবে আর এক পক্ষ সব সময় সত্য কে সত্য বলবে। আর এই থেকে আমাদের কে সত্যটা কে গ্রহণ করতে হবে। কোনটা সত্যি আর কোনটা কুসংস্কার তা আলাদা করে আমাদের গ্রহণ করতে হবে।

ধন্যবাদ আবারও পোষ্টটি কষ্ট করে পড়ে সুন্দর মন্তব্য শেয়ার করার জন্য। ভালো থাকবেন আপু।

১২| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৫:২৬

টারজান০০০০৭ বলেছেন: :D =p~

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৪৮

রুপম হাছান বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে, অনন্তপক্ষে উল্টোপাল্টা মন্তব্য না করে সবারটা পড়ে মজা নিচ্ছেন। হা হা হা।

ভালো থাকুন এবং সব সময় ভালোর সাথে থাকুন।

১৩| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৫:৪৬

শাহাদাৎ হোসাইন (সত্যের ছায়া) বলেছেন: কিছু জিন মানুষ কে আক্রমণ করে বিশেষ করে তাদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আঘাত লাগলে, যারা জিন বিরোধী মন্তব্য করেছেন তারা সাবধান ;) ;)

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৫৫

রুপম হাছান বলেছেন: আমি জানি না, জীনদের স্বার্থবিরোধী কিছু বললে মানুষের কোনো ক্ষতি হয় কিনা; তবে এটা তো দিনের আলোর মতো পরিষ্কার যে, জীন নামক কোনো প্রাণী এই গ্রহে আছে এবং তারা দৃশ্যমান প্রাণীর (বিশেষ করে মানুষদের) ক্ষতি করে থাকে। আর এটা আমাদের মতো বিশেষ জ্ঞানী লোকেরা অস্বীকার করছেন।

ধন্যবাদ ভাই শাহদাৎ হোসাইন আপনার সুন্দর মন্তব্যটির জন্য।

১৪| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:০৪

কাউয়ার জাত বলেছেন: ১। এই পোস্ট ক'দিন আগেও ব্লগে দেখেছি। রিপোস্ট দিলেন কেন? বারবার উপহাসের পাত্র হতে মনে চায়?

২। কোথায় পেয়েছেন এসব? তথ্যসূত্র জানতে পারি কি?


৩। ঢাকায় ইদানীং কিছু তাবিজ ব্যবসায়ী দেখা যাচ্ছে।
তারা নাকি ইসলামি তদবির করে। এদের অনেকে আবার জ্বিনের সাহায্য নিয়ে প্রেমে সফল হওয়া, শত্রুকে বশীকরণ করা আরো ভং চং ইত্যাদির ব্যবস্থা করার দাবী করে। আপনি কি তাদের এজেন্ট?


৪। আরেক ডক্টর শিখিয়ে গেছেন "ইয়া আলী মুশকিল কুশা"
আমি বলি বিপদে আলীর কাছে সাহায্য না চেয়ে বরং আমার কাছে সাহায্য চান। বলুন "ইয়া কাউয়া মুশকিল কুশা" আশাকরি বেশি উপকৃত হবেন।

৫। মরা মানুষের আত্মা কিভাবে দেখা যাবে, জ্যান্ত মানুষের আত্মাই তো দেখা যায়না।

আমি জ্বিনে অবিশ্বাসী নই। কিন্তু আজগুবি কিছু তথ্য দেখে মেজাজ খিটখিট করছিল। তাই সময় নষ্ট করে গেলাম।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:০৭

রুপম হাছান বলেছেন: আগের পোষ্ট সম্পর্কে আমার জানা ছিলো না ভাই কাউয়ার জাত!

আমি জানতাম না ভাই কাউয়ার জাত, ব্লগে যে প্রতিটি ব্যক্তি এক একজন শেরেবাংলা!

আমার কাছে মনে হচ্ছে আপনি একবার পড়ে দ্বিতীয়বার আর সেটা পড়েন না এবং প্রতিটি ক্লাসের বই আপনার খুবই মুখস্থ! দাড়ি, কমাসহ!

আর সর্বশেষে লিখেছেন আপনি জ্বিনে অবিশ্বাসী নন অথচো তথ্যগুলো আপনার কাছে অমূলক মনে হয়েছে! এক সাথে সত্যি-মিথ্যা চলতে পারেনা। তার মানে হচ্ছে আপনি পানি পান করবেন কিন্তু প্রস্রাব করবেন না, তা তো হয় না!

আপনাকে নির্ধারণ করতে হবে কোনটা সত্যি আর কোনটা মিথ্যা কারণ অন্য ধর্মের তারাও তাদের নিজ ধর্মকে বিশ্বাস করেন বিধায় অন্য ধর্মের প্রতি বিশ্বাস রাখতে পারেন না কিন্তু তারা অনেকেই আবার সুশিক্ষিতও বটে। জানেন তো- হিন্দুদের বেদ কিতাবেও আমাদের নবী মুহাম্মদ (সাঃ) এর কথা বলা আছে অথচো হিন্দুরাও তো পড়াশুনা করে শিক্ষিত হচ্ছেন কিন্তু তারা কি মুসলিম ধর্ম দীক্ষা নিচ্ছেন!? অর্থাৎ তারাও সত্যিটা জেনে মিথ্যাকে গ্রহণ করছেন।

তাদের মাঝে আর আমাদের কিছু লোকের মাঝে চিন্তা-ভাবনা ঠিক একই রকম কাজ করে থাকে বলে আপনার কাছে সত্যিকে আজগুবি বলেই মনে হয়েছে। পরক্ষভাবে সত্যিটা হয়ে গেলো কুসংস্কার! আর যারা সত্যিটা হজম করতে পারেন না কিংবা সত্যি দেখলে মেজাজ খিটখিট করে তারা কোনো মনোবিজ্ঞানী দেখালে নিজস্ব চিন্তাশক্তির উন্নতি হবে বলে আশা করছি।

১৫| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:২৮

শায়মা বলেছেন: ১৩. ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৫:৪৬ ০
শাহাদাৎ হোসাইন (সত্যের ছায়া) বলেছেন: কিছু জিন মানুষ কে আক্রমণ করে বিশেষ করে তাদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আঘাত লাগলে, যারা জিন বিরোধী মন্তব্য করেছেন তারা সাবধান ;) ;)


হায় হায় !

আমার মন্তব্যটা কি জ্বীন বিরোধী হয়ে গেলো না তো ভাইয়া! :(

চিন্তায় পড়লাম! :(

আমি অবশ্য ধরি মাছ না ছুঁই পানি মন্তব্য করেছি যাহাতে আমি বিশেষ পারদর্শী! জ্বীনের কি আর এত বুদ্ধি আছে নাকি ভাবছি !


:(

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:১৭

রুপম হাছান বলেছেন: বোন শায়মা আপনার কোনো দোষ নেই কারণ সব দোষ ঐ জীন সম্প্রদায়ের কারণ তারা অহেতুক দৃশ্যমান প্রাণীর (অথাৎ মানুষের) ক্ষতি করে থাকে। তবে আপনার সাথে তাদের দেখা না হওয়াতে আমার কাছেও খুব খারাপ লাগতেছে। (বিশ্বাস করুন)

আর আমি জানি, শয়তান জিন কখনো শয়তান মানুষের নিকট আশ্রয় গ্রহণ করেন না। আপনি কি জানেন, গরীবের নিকট কেউ টাকা ধার চায় না!? তাহলে শয়তান কেনো আরেক শয়তানের কাছে যাবে?

আমরা যেমন টাকাওয়ালা কিংবা ধ্বনী (যিনি অর্থবিত্তে স্বামলম্বী) লোকের নিকট সাহায্য প্রার্থনা করি তেমনি শয়তান জিনও ইমানদার ব্যক্তির নিকট আশ্রয় গ্রহণ করে তাকে দুর্বল করার জন্য।

আর আপনার চিন্তায় পড়ার কোনো কারণ নাই, কারণ যারা ধরি মাছ নাই ছুঁই পানি গ্রহণ পন্থা অবলম্বন করে তাদের কাছে শয়তান জিন কখনোই আসার সম্ভাবনা নাই।

১৬| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৫১

শাহাদাৎ হোসাইন (সত্যের ছায়া) বলেছেন: @শায়মা,
আপনার সম্ভাবনা ফিফটি ফিফটি। তবে জীন কাবিলের সামনে যেন না পরেন সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:১৯

রুপম হাছান বলেছেন: হা হা হা।

জানেন তো ভাই শাহাদাৎ হোসাইন, দুষ্টু মানুষের কাছে শয়তান জিন কখনই আসে না! হা হা হা।

১৭| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৫৩

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
কিচ্ছু কমুনা, জিন যদি মাইন্ড করে !!
এক বিংশ শতাব্দীতেও ভূতের ডর দেখান ??
রিয়ালি ফানি!!

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:২৫

রুপম হাছান বলেছেন: না কইয়্যাই ভালো করছেন! হা হা হা।

হয়তো অনেকে কাছে তথ্যগুলো ফানি কিন্তু তথ্যগুলোর অনেকাংশে অনেকের জন্য সঠিকও হয়েছে।

কথায় বলে না, যার হাতে রান্না খাইনি তিনি বড় রাধুনী আর রান্না খাওয়ার পর গল্পটা ঠিক তার উল্টোই হয়। সেরকম কিছু একটা হবে হয়তো। অর্থাৎ যারা এখনো শয়তান জীনের খপ্পরে পড়েননি তারা ব্যাপারটিকে বলছেন আজগুবি কিংবা ফানি আর যারা এমন কিছুর শিকার হয়েছেন তারা ভাবছেন তথ্যগুলোর অনেকাংশ সঠিক।

মানুষের জীবনে কখনো না কখনো ভয় পান নি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে বলে মনে হয় না। কিন্তু এখন সবই উপেক্ষা করছি কিংবা মিথ্যা বলছি। আর সেটা ভয় পাওয়াটার পিছনেও শয়তান জিনের কারসাজি ছিলো।

সে যাই হোক- সত্যিটা বুঝার কিংবা উপলদ্ধি করার মন-মানসিকতা আমাদের সবার মাঝে উপস্থিত থাকুক এমনটাই প্রত্যাশা।

১৮| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:১৫

সাকিন সিকদার (জেন) বলেছেন: :-B আল্লাহু আকবার

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:২৮

রুপম হাছান বলেছেন: আপনি পোষ্টটি পড়ে অনন্তপক্ষে একটি ভালো কাজ হলেও করেছেন আর সেটা হলো মহান আল্লাহ’র বড়ত্ব প্রকাশ করেছেন।

ভালো থাকবেন এবং সব সময় ভালোর সাথে থাকবেন। ধন্যবাদ।

১৯| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:১৬

সাকিন সিকদার (জেন) বলেছেন: :-B এরকম পোস্ট ফেসবুকে অনেক দেখেছি!!

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৩১

রুপম হাছান বলেছেন: পৃথিবীতে সব কিছু আপনার কিংবা আমার সাথে বিশ্বাস ঘাতকতা করতে পারে কিন্তু মাথায় থাকা জ্ঞান (যেটা পড়ে সংগ্রহ করেছেন) তা কখনোই আপনাকে ছেড়ে যাবে না। তাই মনিষীরা বলেন-যত পারো বই পড়ো কারণ জ্ঞানই আলো।

তাই যেখানে শিখার মতো কিছু দেখবেন সেখান থেকেই তা সংগ্রহ করবেন। ভালো থাকুন।

২০| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:৪৩

চেংকু প্যাঁক বলেছেন: তিন ক্বুলের আমল করলে উপরের সবগুলা থেকে নিরাপদ থাকা যায়

কুরআন শরীফের শেষ তিন সুরা প্রত্যেকটি তিনবার করে সকালে ও বিকালে পড়তে হয়। আর বিপদ হলে প্ড়ত্যেক নামাজের পরে বা আরো বেশি পড়তে হয়।

বিঃদ্রঃ কমেন্টের ছাগলগুলা নাস্তিক্যবাদি পাদের গন্ধের কারনে বুদ্ধিপ্রতিবন্দ্ধি হয়ে গেছে। এই আহম্মকদের ইগনোর করে এরকম পোষ্ট দিতে থাকুন।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৪০

রুপম হাছান বলেছেন: আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ দিচ্ছি যে, আপনি সুন্দর একটি মন্তব্য সবার জন্য উপহার দিয়েছেন আর সেটা হলো পবিত্র কোরআন-এ চারটি কূল এর কথা বলা হয়েছে। অর্থাৎ কোনো ব্যক্তি যদি প্রতিদিন ঘর থেকে বাইর হওয়ার সময় ঐ চার কূল পড়ে, বলা হয় মৃত্যু ব্যতিত তার কোনো ক্ষতি স্পর্ষ্শ করবে না। অর্থাৎ তিনি নিরাপদ থাকবেন।

উল্লেখিত চারটি কুল (৪টি কোরআন এর সুরা)
০১। সুরা কাফিরুন ০২। সুরা এখলাস ০৩। সুরা ফালাক এবং ০৪। সুরা নাস
যেমন- ০১। কূল ইয়া আয়্যু আল কাফিরুন ০২। কূলহু আল্লাহ হুআহাদ ০৩। কূল আউয়ুজু বিরাব্বিল ফালাক এবং ০৪। কূল আউয়ুজু বিরাব্বিন নাস

যারা প্রকৃত সত্য জেনেও মিথ্যার আশ্রয় গ্রহন করে তারা প্রকৃত মোমেন কখনোই হতে পারে না।

আপনাকে অাবারো ধন্যবাদ জানাচ্ছি, পোষ্টটি পড়ে সুন্দর মন্তব্য করে সবাইকে উপকৃত করার জন্য। ভালো থাকবেন।

২১| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:০৩

পুকু বলেছেন: পাগলে কি না বলে ছাগলে কি না খায়!আমি confusion এ আছি উনাকে পাগল বলবো না ছাগল বলবো!!!

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৪

রুপম হাছান বলেছেন: আপনি কি জানেন ভাই পুকু, যারা কনফিউশনে ভোগে তারাও এক ধরণের পাগলপ্রায় মানুষ। কারণ সুস্থ এবং সুচিন্তকরা কখনোই কনফিউশনে ভোগেনা। তাই বলবো, বেশি বেশি পড়েন আর সত্য সংগ্রহ করেন। দেখবেন সত্যিটা আপনার জানার থেকে বেশি দূরে অবস্থান করতেছে। আর আপনি তা পড়ে পড়ে দূরত্ব কমাতে থাকেন। একদিন দেখবেন কনফিউশন নয় বরং সত্যি মন্তব্য করে কৃতার্থ করবেন সবাইকে।

ভালো থাকুন।

২২| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:১৩

প্রামানিক বলেছেন: ১৯৮০ সাল পর্যন্ত জ্বীন ভুত কিছু কিছু চোখে পড়েছে এর পর থেকে আর চোখে পড়ে নাই। বর্তমান ডিজিটাল যুগে তো কথাই নাই।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৭

রুপম হাছান বলেছেন: তার মানে হলো উল্লেখিত কথাগুলো অনেকাংশে অনেকের জন্য সত্যি এবং তা অনেকের মাঝে প্রতিয়মানও দেখেছি বটে। যেমনটা আপনি বললেন।

অথচো অনেকেই এগুলো আজগুবি বলে চালিয়ে দিলো! কতই না বেরসিক মানুষ পৃথিবীতে আছে, যারা সত্যিটা উপলদ্ধি তো দূরের কথা জানতে কিংবা মানতেও চায় না।

অনেক ধন্যবাদ ভাই প্রামানিক আপনাকে। ভালো থাকুন এবং সব সময় ভালোর সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ।

২৩| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১১:৫৮

সুমন কর বলেছেন: এ পোস্ট তো আগেই ব্লগে দেখেছি। আবার কেন !!!

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৫৫

রুপম হাছান বলেছেন: ব্লগে আগে পড়েছেন বলে কি পরে পড়া যাবে না? আগে যে দিয়েছেন সেটা তো তার পেজে থেকে গেলো কিন্তু জানার মতো কিছু হলে সেটা যে কেউ সংগ্রহ করে রাখতে দোষ কি আছে।

আমার মনে হয় না ব্লগে সবাই এক একজন শেরেবাংলা হয়ে গেছে। যে একবার পড়ে দ্বিতীয়বার সেই পেজে আসতে হয়নি। তাই বলবো এজাতীয় প্রশ্ন না করে বরং ভালো-মন্দের ব্যাখ্যা থাকলে ভালো লাগতো।

ভালো থাকুন সব সময়।

২৪| ১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:১৪

ঘুড্ডির পাইলট বলেছেন: ভাই ফালতু হিংসুটেদের কথায় কান দেবেন না। এরা এমনই করে, আপ্নার কিছু তথ্য গুলো সঠিক ছিলো , কিছু বিষয় জানতাম না সেগুলো জেনে ভালো লাগলো।

এই ধরনের বিষয় গুলো নিয়ে পড়তে আমার ভালো লাগে,

শুভ কামনা রইলো।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:৩৬

রুপম হাছান বলেছেন: প্রতিউত্তরের শুরুতেই বলছি-
প্রতিটি লেখার জন্য শুভাকাঙ্খীদের প্রতিক্রিয়া থাকবে সেটা সব সময় মনে করি কিন্তু একটা ভালো লেখাকে নেগেটিভলি উপস্থাপন করা কখনোই যুক্তি সংগত নয়। আর আমরা ঠিক সেটাকেই বেশি করছি।

এবার আপনার মন্তব্যর প্রতিউত্তরে বলছি-
শুরুতেই আপনার এমন সুন্দর মন্তব্যর জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি। কারণ সুন্দর কিংবা ভালো কিংবা অনেকের জন্য প্রয়োজনীয় এসবকে যখন স্বীকার না করে বরং তুচ্ছজ্ঞান করা হয় তখন সত্যি বলতে তাদের উপর একটু মনটা খারাপই লাগে। যদিও আমি, প্রতিটি ব্যক্তির বাক-স্বাধীনতাই পরিপূর্ণভাবে বিশ্বাসী। তাই রাগ না করে বরং বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করি।

মূলত সেসকল ব্যক্তিদের জানা উচিত-
ব্লগে কেউ কারো আপন নয় যেমনটা ফেসবুকে আছে অর্থাৎ ফেসবুকে কে ভাই/কে বোন/কে মা/কে বাবা/কে চাচা আর কে চাচি সবার একটা ছোট্ট তালিকা কম বেশি সবার প্রোফাইলে পাওয়া যায় তাই সেখানে উত্তরগুলো ঠিক সেই রকম হয় যেমনটা একাউন্ট হোল্ডার চায়। অর্থাৎ একাউন্ট হোল্ডার চাইলে তা অনেককে দেখার সুযোগ না দিয়ে তিনি একাই দেখতে পারেন কিংবা চাইলে সবাই দেখতে পারে ন। কিন্তু ব্লগ এমন একটি স্টেশন যেখানে কেউ কিছু লিখলে তা সবার নজরে আসবেই এবং প্রতিটি মন্তব্য যে কেউ চাইলে পড়তে পারবে। তাই অন্যদের প্রতি সম্মান দেখিয়ে (যাতে করে তার লেখায় কিংবা মন্তব্যর কারণে হেয় প্রতিপন্ন হওয়ার আশংখা না থাকে) লেখা কিংবা মন্তব্য করা আমাদের কর্তব্য বলেও মনে করি। সেজন্য এখানে প্রতিটি লেখক কিংবা মন্তব্যকারককে অনেক বেশি সাবধানতা অবলম্বন করা দরকার। আমরা প্রায় এসবের থোড়াই কেয়ার করতে দেখি। মাঝে মাঝে কিছু লোককে মনে হয় তারা এক একজন শেরেবাংলা কিংবা শহিদুল্লাহ, যা কখনোই কাম্য নয়।

মোদ্দকথা-
তথ্যগুলোর সত্য মিথ্যা আমি বলতে যাবো না বরং আমি বলবো পৃথিবীতে জীন ছিলো, আছে এবং কেয়ামত পর্যন্ত থাকবে। আর এদের মধ্যে থেকে খারাপ জিনেরা মানুষদেরকে বিপথগামী করবে। আর এটাই সত্যি।

আপনার ভালো লাগার প্রতি সহমত প্রকাশ করতে পেরে আমার কাছেও ভালো লাগছে। ভালো থাকবেন সব সময় এবং ভালোর সাথেই থাকবেন। ধন্যবাদ।

২৫| ১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ২:২৪

বাকরখানি বলেছেন: আফনে এক্কেবারে ঠিক পোস্ট দিসেন। কালকে মাঝরাইতে বাসার নিচে খাড়ায়া দিনের শেষ সিগ্রেটটা খালি ধরায়া পায়চারি কর্তাসিলাম। হঠাৎ মনে হৈল পেছনে কেউ আসতাছে। আফনের পুস্টের কথা মত আমি ভুলেও পিছনে ফিরা চাই নাই। এরপর দেখি কেডা জানি আমার নাম ধৈড়া ডাকে। আফনের কথা মত দুইবার ডাকল, সাড়া দেই নাই, ফিরাও তাকাই নাই। তিন নাম্বার বার পিছন থিক্যা শার্টের কলার ধৈড়া ঝাঁকি মাইরা বউয়ে কৈল: "ঐ ট্যাংরার বাপ, বয়রা হয়া গেলা নাকি? ট্যাংরায় তোমারে ছাড়া ঘুমাইতে যাইব না মনে লয়।"

১৯ শে জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৩:২৬

রুপম হাছান বলেছেন: পোষ্টটি পড়ে খুব ভালো ভাবে আমল করেছেন বৈকি। হা হা হা। দারুণ ভালো লাগলো। তবে এ্যাবসেন্ট মাইন্ডে কখনো কোন পোষ্ট পড়বেন না কারণ পরবর্তীতে এমন কোনো লেখা পড়ার পর নিজ পরিবারের সদস্যদের ব্যাপারে কিঞ্চিৎ সন্দেহের অবকাশ আসিতে পারে! হা হা হা।

ভালো থাকবেন এবং সব সময় ভালোর সাথে থাকবেন। ধন্যবাদ।

২৬| ১৮ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৫:১৬

বাংলার জামিনদার বলেছেন: পোষ্টের হেডলাইন দেইখা মনে করছিলাম কোন কামের কথা থাকবে। কি আর করা, কপালে নাই।

১৯ শে জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৩:২৯

রুপম হাছান বলেছেন: হা হা হা।

ভাইরে আমি তো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দেয়নি যে এখানে কামের কথা থাকবে! দেখি পরবর্তীতে যদি কোনো কামের ব্যাপারে পোষ্ট থাকে, নিশ্চয় আপনাদের উদ্দেশ্যে দেয়ার চেষ্টা করবো।

ভালো থাকবেন সব সময়। ধন্যবাদ।

২৭| ১৯ শে নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:২৭

বাংলার জামিনদার বলেছেন: একটা জ্বীন পালতে চাই, কই পাবো?

১৯ শে নভেম্বর, ২০১৭ বিকাল ৩:৪৬

রুপম হাছান বলেছেন: হা হা হা। ভালো বলেছেন, তবে জিন নামক কোরআন এর একটি সূরা আছে। আমার মনে হয় এই সূরাটি নিয়মিত আমল করলে তবে আপনি জিনের দেখা পেতে পারেন এবং সেই জিন পালতেও পারেন। তবে এর ভালো-মন্দর আলেম-ওলামারাই বলতে পারবেন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.