নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

The best and most beautiful things in the world cannot be seen or even touched - they must be felt with the heart---Helen Keller

জুন

ইবনে বতুতার ব্লগ

জুন › বিস্তারিত পোস্টঃ

প্যাঁচা কয় প্যাঁচানি -----( ছবি ব্লগ )

২৮ শে জুন, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪১


প্যাঁচা কয় প্যাঁচানি,
খাসা তোর চ্যাঁচানি !


শুনে শুনে আন্‌মন
নাচে মোর প্রাণমন !


মাজা-গলা চাঁচা সুর
আহ্লাদে ভরপুর !



গলা চেরা গমকে
গাছ পালা চমকে,


সুরে সুরে কত প্যাঁচ
গিট্‌কিরি ক্যাঁচ্‌ ক্যাঁচ্‌ !


যত ভয় যত দুখ
দুরু দুরু ধুক্‌ ধুক্‌,


তোর গানে পেঁচি রে
সব ভুলে গেছি রে-


চাঁদ মুখে মিঠে গান
শুনে ঝরে দু'নয়ান ।








হুতুম প্যাচার নঁকশা









কবিতাটি বিখ্যাত ছড়াকার সুকুমার রায় ও প্রিয় পাখী প্যাঁচাগুলো সব আমার সংগ্রহ থেকে কিছু কিছু নেয়া ।

এর মাঝে রয়েছে বাঁশের উপর ল্যাকার বার্নিশ করা প্যাচা, চশমা রাখার জন্য প্যাচা, কাপড়ে তৈরী , মায়ানমারের বিখ্যাত স্যান্ডস্টোন পেইনটিং ও ভেনিসের এক শিল্পীর কাছ থেকে কেনা মুরানো গ্লাস ও ধাতব প্যাঁচা ;)

ট্যাগ ঃ অলস মস্তিস্কের ভাবনা :P

মন্তব্য ৭৪ টি রেটিং +১৯/-০

মন্তব্য (৭৪) মন্তব্য লিখুন

১| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:০৩

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: বাহ!

দারুন লাগল

প‌্যাচা তোর প‌্যাচানী
খাসা হল চ্যচানী . . . :P হা হা হা

প‌্যচা-প‌্যাচানী কথনে মুগ্ধতা। সাথে দারুন ছবি সমন্বয় এক অন্যমাত্রা দিয়েছে :)

ভাল লাগা আর অফুরান শুভেচ্ছা সহ

++++

২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:১৬

জুন বলেছেন: কি আর করা বিদ্রোহী নেই কাজ তো খই ভাজ অবস্থা :P

আপনার জন্যও রইলো শুভেচ্ছা অফুরান ।
ভালো থাকুন ।

২| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:০৭

কাবিল বলেছেন: বেশি কথা কইতাম না! শুধু বলব অলস মস্তিস্কের ভাবনা পছন্দ হইছে।

২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:২৩

জুন বলেছেন: অনেকদিন পর আপনাকে দেখে খুব ভালোলাগলো কাবিল । ভালো আছেন তো ?
মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ :)

৩| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:১৮

নাজিম সৌরভ বলেছেন: কবিতা আর ছবির দারুণ কম্বিনেশন ! +++

২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:৪৭

জুন বলেছেন: নাজিম সৌরভ ছড়া ভালোলাগার যথেষ্ট কারন আছে ।
কারন এটি বিখ্যাত চলচিত্রকার সত্যাজিত রায়ের পিতা ছন্দের যাদুকর সুকুমার রায়ের লেখা :)
সাথে আমার সংগ্রহ থেকে দুএকটি প্যাচা ;)

মন্তব্যের জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ আপনাকে ।

৪| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:৩৮

রাজীব নুর বলেছেন: অত্যন্ত মনোরম।

২৯ শে জুন, ২০১৮ সকাল ৮:৫৭

জুন বলেছেন: ছোট একটি বাক্য মনোরম ভালোলাগা ব্যপক :)
চাঁদে প্রথম পদধুলি দেয়া এস্ট্রোনট নীল আর্ম্রস্ট্রং এর বিখ্যাত উক্তি "That's one small step for man, one giant leap for mankind." এর মতই আরকি ;)

অনেক অনেক ধন্যবাদ রাজীব নুর ।

৫| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:৪১

কাওসার চৌধুরী বলেছেন: বাহ!! চমৎকার ভাল লাগার ছবি ব্লগ। প্যাঁচা আর প্যাঁচানিকে নিয়ে লেখা। ছবিগুলো ইউনিক B-) হয়েছে। ছবি ব্লগে লাইক দিলাম।

সুকুমার রায়ের বিখ্যাত
"প্যাঁচা আর প্যাঁচানি" ছড়াটি মনে পড়ে গেল-

প্যাঁচা কয় প্যাঁচানি,
খাসা তোর চ্যাঁচানি !
শুনে শুনে আন্‌মন
নাচে মোর প্রাণমন !
মাজা-গলা চাঁচা সুর
আহ্লাদে ভরপুর !
গলা চেরা গমকে
গাছ পালা চমকে,
সুরে সুরে কত প্যাঁচ
গিট্‌কিরি ক্যাঁচ্‌ ক্যাঁচ্‌ !
যত ভয় যত দুখ
দুরু দুরু ধুক্‌ ধুক্‌,
তোর গানে পেঁচি রে
সব ভুলে গেছি রে-
চাঁদ মুখে মিঠে গান
শুনে ঝরে দু'নয়ান ।।

শুভ কামনা আপনার জন্য।


২৯ শে জুন, ২০১৮ সকাল ৯:০৯

জুন বলেছেন: কাউসার চৌধুরী প্রথমেই জানাই সকালের শুভেচ্ছা :)
অল্প সময়ের মাঝেই আপনি ব্লগে আলোড়ন তুলেছেন শুধু অসাধারন লেখালেখি দিয়েই নয় মন্তব্যে ও। আপনার এই দুটি প্রতিভা আপনাকে খুব দ্রুতই জনপ্রিয় করে তুলেছে আমাদের সামু ব্লগ পরি্বারে । যা অনেকের জন্য দীর্ঘমেয়াদী হয়ে পরে।

আপনি সুকুমার রায়ের কবিতাটি পুরোটা একবারে তুলে দিয়েছেন পাঠকের সুবিধার্থে আর আমি সেটাই ভেংগে ভেংগে দিয়েছি ছবির ক্যপশন হিসেবে । আপনার এই সহযোগীতার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ জানবেন । আর আগামীতেও আমার সকল লেখালেখিতে আপনার সুচিন্তিত মন্তব্যের প্রত্যাশী :)

৬| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:৫১

লাবণ্য ২ বলেছেন: চমৎকার!

২৯ শে জুন, ২০১৮ সকাল ৯:১১

জুন বলেছেন: চমৎকার বলার জন্য আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা জানবেন লাবন্য ২ :)
আপনার এই বাক্যটিতেই অনেক খুশী হয়েছি ।

৭| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:৫২

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: পুরাই ব্যতিক্রম, আমি কিন্তু প্রথম আপনাকেই সুকুমার ভাবছিলাম :)

২৯ শে জুন, ২০১৮ সকাল ৯:১৩

জুন বলেছেন: বহু বহুদিন পর আমার লেখায় আপনাকে পেলাম প্রিয় ব্লগার সাদা মনের মানুষ । আমি তো ভেবেছিলাম ঘুর ঘুর করতে করতে আমাকে ভুলেই গেছেন :)
আমাকে সুকুমার ভাবার তো কথা নয়, খুব বেশী হলে সুকুমারী ভাবতে পারেন :`>
অনেক অনেক শুভকামনা রইলো সকালের :)

৮| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:৫৩

সনেট কবি বলেছেন: অত্যন্ত মনোরম।

২৯ শে জুন, ২০১৮ বিকাল ৩:৫১

জুন বলেছেন: অশেষ ধন্যবাদ এত এত ব্যস্ততার মাঝেও এসে পোষ্টটি দেখে মন্তব্য করেছেন সনেট কবি :)

৯| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:৫৬

সিগন্যাস বলেছেন: আহ কি কিউট প্যাঁচাগুলো।ড্যাবড্যাব করে তাকিয়ে রয়েছে।
কিন্তু দেখতে ড্রাগণের মতো লাগছে কেন?

২৯ শে জুন, ২০১৮ বিকাল ৪:২৩

জুন বলেছেন: সিগন্যাস আপনার মন্তব্যের উত্তরে বলছি প্যাঁচাদের আমার সত্যি কিউট লাগে যেটা ছোট আকৃতির রাত হলে গাছের ডালে বসে থাকে শিকারের আশায়। ড্রাগনের মত ! বলেন কি :-*
আপনার মন্তব্যে অনেক খুশী হয়েছি । সাথে থাকুন নিয়মিত সেই প্রত্যাশায়। আর আপনার নতুন লেখা পড়ার অপেক্ষায় :)

১০| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:৫৭

চাঁদগাজী বলেছেন:



আমার পছন্দের পাখীর উপর ছড়াও আছে? আবার সেই ছড়ার মাঝে 'চাঁদ' শব্দটাও আছে! এই কবির কি কি ছড়া আছে সব পড়ে ফেলবো!

আপনার সংগ্রহেও পেঁচার সুভেনিয়ার আছে? ভালো

২৯ শে জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:২১

জুন বলেছেন: আপনারো পছন্দের ! বলেন কি ! আমিতো ভাবতাম নিশাচর অলক্ষী পাখিটি শুধু আমারই প্রিয় । আমার বাসা থেকে এক কিমি দুরে এক পার্কে প্রতি দিন হাটতে যাই শুধুমাত্র সেখানে সাঁঝের আধারে গুটি চারেক পেচা এসে বসে খাবারের সন্ধানে । আমার আরো কিছু ছিল সংগ্রহে ঢাকা না ব্যংকক কোথায় কি আছে নিজেই জানি না।
সামান্য ছবি ব্লগটি পাঠ ও মন্তব্য এর জন্য অশেষ ধন্যবাদ চাঁদগাজী :)

১১| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ৯:১৮

মনিরা সুলতানা বলেছেন:

এই নাও আর এক দম্পতি ;)
অনেক অনেক কিউট সংগ্রহ আপু !!!
সব গুলো ই অপূর্ব।

২৯ শে জুন, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৫৮

জুন বলেছেন: ওহ মনিরা তোমার প্যাঁচা দেখে প্যাচানীতো মুগ্ধ মুগ্ধ :(
পেচা ভক্তের জন্য দেশে আসার সময় অবশ্য করে এমন এক জোড়া অবশ্যই আনবে 8-|
তোমার প্যাচা দেখে আমারগুলো এখন ফেলে দিতে ইচ্ছে করছে সত্যি বলছি কিন্ত ।

অলস মস্তিকের ভাবনায় মন্তব্যের জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ ও শুভকামনা রইলো ।

১২| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ১০:০১

শামচুল হক বলেছেন: এক কথায় দারুণ লাগল।

২৯ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:২৯

জুন বলেছেন: দারুন লেগেছে জেনে খুব খুব খুশী হয়েছি শামচুল হক ।
সবসময় শুভকামনা আপনার জন্য :)

১৩| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ১০:১১

সুমন কর বলেছেন: একই প্যাঁচা'র কত রূপ !! ভালো সংগ্রহ।
+।

এবার অাধুনিক'টা পড়ুন:

* গাইব তোমাকে (কবির সুমন)

তোমাকে নিয়েই কেটে গেল দিন বয়স চলল বেড়ে
রক্তে আমার দাঁড়ে দাঁড়ে দ্রুম দেড়ে দেড়ে দেড়ে দেড়ে।

তোমাকে নিয়েই চলে গেছি দূরে, ফিরেও এসেছি ঘরে
যেখানে আমার সুকুমার, শুধু সুকুমার খেলা করে।

তোমাকে নিয়েই পেঁচীকে খুঁজেছি কোথায় রেখেছ তাকে
সে কি আসবে না, সে কি শুধু ওই প্যাঁচার গানেই থাকে!


আমি কি তোমার সেই প্যাঁচা নই, তবে কেন গান দিলে
এনে দাও তাকে, গাইব তোমাকে, পেঁচীতে প্যাঁচাতে মিলে।

২৯ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:৪৬

জুন বলেছেন: সেই আদ্যি যুগ থেকেতো সুকুমার রায়ের কবিতাই পড়ে এসেছি সুমন কর । এবার আপনার কল্যানে প্রিয় পাখীকে নিয়ে একটি আধুনিক নতুন কবিতাটি /গানটি পড়ার সুযোগ হলো, তবে কবির সুমন যখন তখন গানই হবে ;)
আমার সকল লেখায় আপনার প্রাঞ্জল পদচারনার জন্য ধন্যবাদটি বড্ড কমই হয়ে যায় :)
শুভকামনা থাকলো সকল সময়ের জন্য ।

১৪| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ১০:৫২

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন:

বাহ ! দারুণ ছবি ব্লগ । ;)

২৯ শে জুন, ২০১৮ রাত ৯:১৭

জুন বলেছেন: ছবি ব্লগটি দেখা ও মন্তব্য রেখে যাবার জন্য আমার আন্তরিক ধন্যবাদ জানবেন শাহরিয়ার কবীর :)

১৫| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ১১:১৪

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:




হা হা! দারুণ তো! এরা কী কথা বলে!?

২৯ শে জুন, ২০১৮ রাত ৯:২১

জুন বলেছেন: এরা কী কথা বলে!? হা হা হা কথাকেথি এরা মানুষের মত কথা বলে না, তবে হু হু করে এক রকম পেঁচা ডাকে। আবার
ছোট ছো এক জাতের প্যাচা ক্যাচ ক্যাচ করে বেশ জোরে শব্দ করে যা বেশ অনেক দূর থেকেই শোনা যায় ।
সময় করে ছবি ব্লগটি দেখা ও মন্তব্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ :)

১৬| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ১১:১৬

অর্ক বলেছেন: অভিভূত হলাম! অপূর্ব অপূর্ব ও অপূর্ব জুন আপু! এরকম পোস্ট আগে দেখেছি বলে মনে পড়ছে না। শৈশবকাল যেন ফিরে পেয়েছি সহসা।

শুভেচ্ছা ভরপুর

৩০ শে জুন, ২০১৮ সকাল ১১:০৬

জুন বলেছেন: অর্ক আমার এই সামান্য একটি ছবি ব্লগে আপনি আভিভূত হয়েছেন জেনে ভীষন ভালোলাগা অনুভব করছি। সামান্য পেঁচা নিয়ে কে আর লিখবে বলুন ? মৃত্যদূত হলেও তাদের চেহারা ও ব্যতিক্রমী আচরনে আমার বড় প্রিয় তারা। এছাড়াও প্রকৃতির প্রতিটি রূপকেই আমি অনেক ভালোবাসি।
পোষ্টটি দেখার জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভকামনা জানবেন।

১৭| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ১১:৪১

উম্মে সায়মা বলেছেন: চশমা রাখার পেঁচাগুলো পছন্দ হয়েছে জুন আপু :) আমার একটা লাগবে :-B (যদিও আমি চশমা পরিনা এখনো :P)
প্রথম ছবির পেঁচাগুলোও অনেক কিউট!
ছড়ায় ছড়ায় অনেক সুন্দর ছবি ব্লগ হয়েছে আপু.....

আপনার পোস্টের কল্যানে জানা হল চাঁদগাজী ভাইয়ের প্রিয় পাখি পেঁচা B-)

৩০ শে জুন, ২০১৮ সকাল ১১:১০

জুন বলেছেন: চশমা রাখার পেঁচাগুলো আমার ও ভারী পছন্দের উম্মে সায়মা । তবে চশমাই যখন পরেন না তখন আর ঐ পেঁচা দিয়ে কিইবা করবেন ;)
ছবি ব্লগ ভালোলাগার জন্য অশেষ ধন্যবাদ ।
সহব্লগার চাঁদগাজির পেঁচা প্রিয় পাখি আমিও আপনার সাথে সাথে জানলাম :)

১৮| ২৮ শে জুন, ২০১৮ রাত ১১:৪৫

অচেনা হৃদি বলেছেন: আপু আপনাকে নিয়ে সনেট কবি সুন্দর একটা লেখা লিখেছেন । সেখানে ব্লগার ভাইয়ারা একবাক্যে স্বীকার করছে আপনি অনেক ভালো এবং সাদাসিধা মনের একজন মানুষ । তাই আপনার পোস্ট দেখতে পেয়ে ক্লিক করলাম । আপনার এই একটি পোস্টই বলে দিচ্ছে সবাই আপনার ব্যপারে যা বলেছে তা একদম সত্যি ।
পেঁচা পেঁচির ছবিগুলো দেখে মন ভরে গেলো । পেঁচাও যে এতো সুন্দর কালেকশনের উপাদান হতে পারে তা আগে জানতাম না ।

৩০ শে জুন, ২০১৮ সকাল ১১:৩৭

জুন বলেছেন: স্বাগতম আমার ব্লগে অচেনা হৃদি । আমার সম্পর্কে যা শুনে এসেছেন সনেট কবির ব্লগে সেটা উনি সহ অন্যান্য আমার সহ ব্লগারদের মহানুভবতা ।
আমার অবশ্য নির্দিষ্ট কোন পছন্দ নেই সংগ্রহের ব্যাপারে তবে আমার ঘরের লোকের শখ ছোট ছোট হাতী সংগ্রহ করা । বাসায় তার বিশাল হাতীশালাও রয়েছে যাতে বিভিন্ন দামী পাথর , সেমি প্রেশাস পাথর , বিভিন্ন ধাতব, কাঠ আর নানান জিনিসে নির্মিত।
মন্তব্যের জন্য অশেষ ধন্যবাদ আপনাকে :)

১৯| ২৯ শে জুন, ২০১৮ রাত ১২:১২

মনিরুল ইসলাম বাবু বলেছেন: চমৎকার

৩০ শে জুন, ২০১৮ সকাল ১১:৪৩

জুন বলেছেন:
বাবু বলেছেন চমৎকার
এ বিষয়ে বলো অমতকার

;)
হা হা হা মনিরুল ইসলাম বাবু না না অন্ততপক্ষে আমার কোন অমত নেই এই ব্যপারে :)
অনেক অনেক ধন্যবাদ পোষ্টটি দেখার জন্য ।

২০| ২৯ শে জুন, ২০১৮ রাত ১২:২৫

সৈয়দ ইসলাম বলেছেন: জুন আপু,

দেশে গেলে এম। পেঁচাদের সাথে রাতে কথা হত, অথচ আমাদের বাচ্চারা এসব শুনে ভয় পেয়ে নিজেকে খুবই লুকিয়ে রাখার চেষ্টা করতো, আর আমরা সেই পেঁচাকে খোঁজে যেতাম।

পেঁচা নিয়ে আপনার ছবি ব্লগ খুবই ভাল লেগেছে।

০১ লা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:৫৯

জুন বলেছেন: সৈয়দ ইসলাম আমিও প্রিয় পাখি পেচা দেখতে অনেক দূরে যাই। তাদের চোখ আর ডাকটি বাচ্চাদের ভয়ের জন্য যথেষ্ট কারনই বটে। আপনার মন্তব্যে অনেক খুশী হোলাম। শুভেচ্ছান্তে।

২১| ২৯ শে জুন, ২০১৮ রাত ১২:২৯

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:

কি কিউট দেখতে! চমৎকার পোষ্ট আপু!

০১ লা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:০২

জুন বলেছেন: ভ্রমরের ডানা কি ভয়ংকর ব্যস্ততায় যে আছি বলার নয়। আপনাদের মন্তব্যের উত্তরগুলো দিতেও দেরী হয়ে যাচ্ছে। পেচা আমার কাছেও অনেক কিউট লাগে :)
ভালো থাকবেন অনেক। আর আপনার কবিতায় যাচ্ছি শীঘ্রই।

২২| ২৯ শে জুন, ২০১৮ ভোর ৪:১৩

সোহানী বলেছেন: আপু আমার সংগ্রহ ও আছে কিছু প্যাঁচা.... তবে এর মধ্যে অামার এ মালাটি খুব পছন্দ। তাই ছবি দিলাম।



আপনার কালেকশান অসাম..............

০১ লা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:০৪

জুন বলেছেন: সোহানী প্রথমেই আপনাকে জানাই এত্তগুলা ভালোলাগা সুন্দর একটি লকেট দিয়ে মন্তব্য করার জন্য :) আপনার ও মনিরার দুটো পেচার অলংকারগুলো অসাধারণ। আমারো ভালোলাগে অনেক ওদের।
শুভকামনা রইলো অজস্র।

২৩| ২৯ শে জুন, ২০১৮ সকাল ৯:৫৪

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: বাহা!!! খুব সুন্দর । মুগ্ধতা রেখেগেলাম। +++++

শুভ কামনা জানবেন।

০১ লা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:০৬

জুন বলেছেন: আপনার মন্তব্যও দারুন খুশী হয়েছি পদাতিক চৌধুরী। সাথে থাকুন সকল লেখায় এই প্রত্যাশায়।
শুভেচ্ছান্তে

২৪| ২৯ শে জুন, ২০১৮ সকাল ১০:৫৭

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: সুন্দর।+

০২ রা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:১১

জুন বলেছেন: সুন্দর বলার জন্য অনেক ধন্যবাদ কবি সেলিম আনোয়ার । তবে কবি হলেও আপনি অন্যান্য লেখায়ও দারুন দক্ষতা দেখিয়ে থাকেন । ভালো থাকুন নিয়ত ।

২৫| ২৯ শে জুন, ২০১৮ সকাল ১১:৩৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: উপস্থিতি জানান দিয়ে গেলাম।

০২ রা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:১৩

জুন বলেছেন: গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: উপস্থিতি জানান দিয়ে গেলাম। তার অর্থ আরেকবার আপনার আগমন প্রত্যাশা করতে পারি গিয়াস লিটন :)
মন্তব্যে অনেক ধন্যবাদ ও শুভকামনা ।

২৬| ২৯ শে জুন, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৩

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: জুনাপি প্যাঁচা কি আপনার প্রিয় পাখি? ছোট বেলায় আমাদের ঘরের সামনে নারিকেল গাছে বা বাড়ির পেছনে বড় আমগাছে বড় হুতুম প‌্যাচা এসে সন্ধ্যার সময় বসত আমি খুব ভয় পেতাম।ছোটবেলায় শুনেছিলাম ওরা নাকি সুযোগ পেলে চোঁখ তুলে খাই।হাহাহা।
আর ওদের ডাকটা ছিল খুবই ভয়ঙ্কর!

০২ রা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:২৩

জুন বলেছেন: জুনাপি প্যাঁচা কি আপনার প্রিয় পাখি? ঠাট্টা নয় মোস্তফা সোহেল পেঁচা সত্যি আমার খুব প্রিয় বিশেষ করে তার গঠন বৈচিত্র ও কার্য্যকলাপের জন্য । আমার বাসা থেকে প্রায় এক কিমি পথ পেরিয়ে আমি সন্ধ্যার পর হাটতে যাই এক পার্কে শুধুমাত্র কিছু ক্ষুদ্রাকৃতির পেচা দেখার উদ্দেশ্যে । খেলার মাঠের একধারে কিছু গাছ ছিল সেখানের পাতা ঝরা ডালের উপর অথবা বাঁশের ডগায় কিছু পেচা নিয়মিত বসতো শিকার ধরার আশায়।একদিন এক লোক সেখানে জগিং করছিল আমি সব কিছু ভুলে দৌড়ে গিয়ে তাকে বলেছিলাম "এখান থেকে সরে যান, নইলে পেঁচাগুলো ভয় পেয়ে পালিয়ে যাবে "। আমার এই কথায় সেই লোক যত না তাজ্জব হয়েছিল আমার সহ হাটা পার্টনার তার চেয়ে দিগুন অবাক । তার মুখ দিয়ে শুধু একটাই কথা বের হলো তুমি ঐ ভদ্রলোককে এই কথাটা বললে কেমন করে !!
এমনই আমার পেচা প্রেম :`>
তবে লক্ষীর বাহন লক্ষী পেঁচার চেহারা একটুও ভালোলাগেনা, তার চেয়ে নীচের ছবির এই পেঁচাগুলোই আমার কাছে সুইট লাগে মোস্তফা সোহেল ।

মন্তব্যে অনেক অনেক ধন্যবাদ ও শুভকামনা রইলো । কিন্ত মন ভার হয়ে আছে গুহায় হারিয়ে যাওয়া ছেলেগুলোর জন্য ।

২৭| ২৯ শে জুন, ২০১৮ বিকাল ৩:৫০

করুণাধারা বলেছেন: পেঁচা নিয়েও এমন চমৎকার পোস্ট হয়, জানা ছিল না। নানা রকম পেঁচা দেখে চমৎকৃত হলাম। পরের বারে এডিট করে পেঁচাদের যেভাবে সাজিয়েছেন সেটাই ভালো লাগলো।

পোস্টে লাইক।

০২ রা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৩১

জুন বলেছেন: পেঁচা নিয়েও এমন চমৎকার পোস্ট হয়, জানা ছিল না।
হয় হয় করুনাধারা যারা আমার মত হাবিজাবি লিখে তারা যে কোন বিষয় নিয়েই একটা হাবিজাবি পোষ্ট লিখে ফেলতে পারে ;)
হাসছি বটে কিন্ত মন পরে আছে সেই সাতদিন ধরে ভয়ংকর গুহায় আটকে পরা কিশোর ছেলেগুলোর কাছে।
এই পোষ্টটাও খুব দ্রুত দিয়েছিলাম তাই ছবিগুলো অত বাছতে পারি নি । তাছারা আরো পেচা ছিল সেগুলো খোজাখুজিতে সময় নষ্ট হলো আর আজকের মন ভারাক্রান্ত লেখাটিও অনেক তাড়াতাড়ি লিখেছি ।
যাই হোক সাথে থাকবেন আশাকরি বরাবরের মতই ।

২৮| ২৯ শে জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:৩২

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: কী অসাধারণ পোস্ট। ব্যতিক্রমীও বটে।


ধন্যবাদ বোন জুন।

০২ রা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৫

জুন বলেছেন: হেনা ভাই বিভিন্ন ঝামেলায় আপনাদের মন্তব্যগুলোর উত্তর দিতে দেরী হয়ে গেল। তার উপর গুহার ভেতর সেই ছেলেগুলোর সাতদিন ধরে হারিয়ে যাওয়া যে গুহার কিছুটা আমি দেখে এসেছি । সব কিছু নিয়েই দেরী ।
পেঁচার পোষ্টটি ভালোলাগার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ ও শুভকামনা জানবেন।

২৯| ২৯ শে জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৮

চঞ্চল হরিণী বলেছেন: আপু আপনার প্যাঁচার সংগ্রহগুলো খুব সুন্দর। আমিও প্রথমে ভেবেছিলাম ছড়াটা আপনার লেখা, কিন্তু 'গিটকিরি' পড়েই কেমন সুকুমার মনে হচ্ছিলো, পরে দেখি সত্যি তাই। কত মজার ছড়া যে তিনি লিখে গেছেন। আপনার প্যাঁচাগুলো দেখে আমিও দুপুর থেকে বসে প্যাঁচা নিয়ে একটা ছড়া লিখে ফেলেছি। :#)

০২ রা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৮

জুন বলেছেন: চঞ্চলা হরিনী
আমি এত উচ্চমানের কবিতা লিখতে পারলেতো কাজই হতো ।
আর আপনার কবিতাতো সুকুমার রায়কেও হার মানিয়েছে :)
অনেক অনেক মজা পেয়েছি আপনার কবিতা পড়ে =p~
শুভেচ্ছান্তে ------

৩০| ২৯ শে জুন, ২০১৮ রাত ৮:০১

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: ছোট একটি বাক্য মনোরম ভালোলাগা ব্যপক :)
চাঁদে প্রথম পদধুলি দেয়া এস্ট্রোনট নীল আর্ম্রস্ট্রং এর বিখ্যাত উক্তি "That's one small step for man, one giant leap for mankind." এর মতই আরকি ;)

অনেক অনেক ধন্যবাদ রাজীব নুর ।

গুড থিংস মোস্ট অব দ্য টাইম কাম ইন স্মল প্যাকেজ।

০২ রা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৯

জুন বলেছেন: গুড থিংস মোস্ট অব দ্য টাইম কাম ইন স্মল প্যাকেজ।
অবশ্য অবশ্যই আমিও তাই মনে প্রানে বিশ্বাস করি রাজীব নুর ।

আরেকবার এসেছেন তার জন্য কৃতজ্ঞ রাজীব নুর :)

৩১| ২৯ শে জুন, ২০১৮ রাত ৯:২৪

মোহেবুল্লাহ অয়ন বলেছেন: ধন্যবাদ প্যাঁচার ছবি দিয়ে আমাদের আনন্দ দেয়ার জন্য। আফসোস, আমি মাত্র একবার প্যাঁচা দেখেছিলাম টাঙ্গাইলে।

০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:১৩

জুন বলেছেন: বলেন কি মোহেবুল্লাহ অয়ন জীবনে একবার মাত্র প্যাচা দেখেছেন ! আর আমি তাদের দেখতে দৈনিক এক কিমি হাটি প্রতি সন্ধ্যায় । অলস মস্তিষ্কের ভাবনা পড়ার জন্য অশেষ ধন্যবাদ ।

৩২| ০১ লা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:২৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: জুন ,




খুব সামান্য একটি প্রানীকে সুকুমার রায়ের সুকুমার ছড়ায় সাজিয়ে যিনি অনবদ্য করে তুলতে পারেন , বলতেই হয় মননে তিনি সুকুমার বৃত্তি ধারন করেন ।

অদ্ভুত এক প্যাঁচা বিষয়ক প্যাঁচানি । আঙিকে , প্যাঁচার চোখের চাহনিতে যেন সেই অদ্ভুত কিছুই পেঁচিয়ে পেঁচিয়ে উঠে গেছে ।
তাই পাঠককেও সুকুমারীয় ঢংয়ে বলতেই হয় -
"জুন বিবির প্যাঁচানি
খাঁসা তার লেখনি.....!"

০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:২৩

জুন বলেছেন: মন্তব্যের উত্তর দিতে কেন দেরী হলো তা আশা করি বুঝতে পারছেন আহমেদ জী এস । এই হাল্কা লেখাটি যখন লেখি তখন আমার মন পরেছিল গুহায় হারিয়ে যাওয়া ছেলেগুলোর প্রতি। তাদের বাবা মায়ের মনের কথা ভেবে মনটা ব্যাথাতুর হয়ে উঠছিল । মনে পরছিল উরুগুয়ের রাগবি টিমের কথা যারা প্লেন এক্সিডেন্ট করে বিশাল আন্দিজ পাহাড়ের বরফে হারিয়ে গিয়েছিল । খুজে পায়নি কোন উদ্ধারকারী দল । মরে যাওয়া আত্নজনের মাংস খেয়ে ৭২ দিন পরে ফিরে এসেছিল লোকালয়ে ।
আপনার মন্তব্য সবসময়ের মতই সরস এবং প্রিয় সবার । যা আমারও প্রিয় বরাবরের মতই । অনেক ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য ।

৩৩| ০১ লা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:০৮

জাহিদ অনিক বলেছেন:


প্যাঁচা কয় প্যাঁচানি, খাসা তোর চ্যাঁচানি ! শুনে শুনে আন্‌মন নাচে মোর প্রাণমন


খুব সুন্দর ছবিগুলো আর একদম ঠিক আছে ছড়ার উপযুক্ত ব্যবহার। সুন্দর।

০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:৩০

জুন বলেছেন: ছবির সাথে ছড়া তো ঠিক থাকবেই জাহিদ অনিক । দেখতে হবে না কে লিখেছে ! ছড়া সম্রাট সুকুমার রায়ের লেখা আর সাথে আমার প্রিয় পাখি নিয়ে আমি একটি ভাবনাকে দূরে সরিয়ে রাখতে চাইছিলাম যা আমার মস্তিষ্কের ভেতরটা কুড়ে কূড়ে খাচ্ছিল । মন্তব্যের জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ ।

৩৪| ০১ লা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:০৭

শামছুল ইসলাম বলেছেন: মনোমুগ্ধকর সব ছবি । তার সাথে আবার সেই রকম মজার ছড়া । দারুণ উপভোগ করলাম ।

০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:৩৩

জুন বলেছেন: অনেকদিন পর আপনাকে দেখে ভালোলাগলো শামছুল ইসলাম । ভালো আছেন তো ? লেখাটা পড়ার জন্য ধন্যবাদ অনেক ।

৩৫| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:২৫

আখেনাটেন বলেছেন: এত এত প্যাঁচার প্যাঁচাপেঁচি দেখে তো প্যাঁচ লাগিয়ে ফেলেছি। :D

সুকুমার রায়ের ছড়ার সাথে সাথে এক্কেরে ফিট খেয়ে গেছে প্যাঁচা।

ভালোলাগা পোস্টে জুনাপা।

০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:৩৬

জুন বলেছেন: সুকুমার রায়ের ছড়ার সাথে সাথে এক্কেরে ফিট খেয়ে গেছে প্যাঁচা। ৷ মজার এই মন্তব্যটির জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ আখেনাটেন । সহ ব্লগার চাঁদগাজীর মত আমারও প্রিয় এই অদ্ভুত পাখি কেউ বলে অমংগলের প্রতীক কেউ বা বলে লক্ষীর বাহন :)

৩৬| ০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ রাত ১২:৫০

প্রামানিক বলেছেন: ছবির সাথে সাথে দারুণ ছড়া। ধন্যবাদ জুন আপা।

০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:৩৮

জুন বলেছেন: প্রামানিক ভাই আপনার মতই এক ছড়াকার সুকুমার রায়ের ছড়াতো ভালো হবেই । সাথে আমার দু একটা সংগ্রহ । মন্তব্যে অশেষ ধন্যবাদ ।

৩৭| ০৭ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:০৫

মিথী_মারজান বলেছেন: ওয়াও!!!
কি দারুণ আর কিউট কিউট কালেকশন!
প্যাঁচা আমারও খুব পছন্দ আপু।
ছোটবেলায় যখন ভারতেশ্বরী হোমসে ছিলাম তখন প্রায়ই বিভিন্ন ধরণের প্যাঁচা প্রায় সকালেই দেখা যেতো আমাদের ডাইনিংয়ের কাছে মরে পরে আছে।
কত যে বাহারী তাদের রঙ!
আর কি মনকাড়া যে তাদের সৌন্দর্য!
আমার ভীষণ মন খারাপ হতো তবে সেইসময়টাতেই প্রথম এত কাছ থেকে প্যাঁচা দেখা হয়েছে আমার।

মনিরা আপুর প্যাঁচাজোড়াটা তো মারাত্মক সুন্দর।
আর সোহানী আপুর কালেকশনটাও খুব সুন্দর!

ছড়ার সাথে মিলিয়ে দারুণ ছন্দময় ছবিব্লগ।
অনেক অনেক ভালোলাগা জুন আপু।:)

১৭ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪১

জুন বলেছেন: মিথী মারজান আমি অত্যন্ত দুঃখিত আপনার মন্তব্যের উত্তরটি দিতে দেরী হয়ে যাবার জন্য ।
আমি আসলে সেই থাইল্যান্ডের গুহায় আটকে পড়া ঘটনাটি নিয়ে নিয়মিত আপডেট দিচ্ছিলাম । যার জন্য এই মন্তব্যটি চোখ এড়িয়ে গেছে ।
ভারতেশ্বরী হোমসে আমি বেড়াতে গিয়েছিলাম কয়েকবার । এর পেছনে নদীর ওপারে আমার বহু পরিচিতা একজন আছে তার সাথে দেখা করতে গিয়ে । খুব ভালোলেগেছিল সেই ধানক্ষেত, নদী আর গাছপালায় ঘেরা গ্রামীন মায়াবী পরিবেশ।
আন্তরিক ধন্যবাদ জানবেন সাথে ফিলিপাইনের নীল প্যাঁচার শুভেচ্ছা :)

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.