নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

The best and most beautiful things in the world cannot be seen or even touched - they must be felt with the heart---Helen Keller

জুন

ইবনে বতুতার ব্লগ

জুন › বিস্তারিত পোস্টঃ

থাইল্যান্ডের গুহায় ১৮ দিন ধরে আটকে থাকা কিশোর ফুটবল টিমের কোচ সহ ১৩ জনের সবাই উদ্ধার…. সাফল্যের সাথে শেষ হলো এক অবিশ্বাস্য অভিযান

০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৫৬



হারিয়ে যাওয়ার ১০ দিন পর থাইল্যান্ডের দুর্গম এক গুহার গভীরে খুজে পাওয়া কিশোর ফুটবল দলের প্রথম ছবিটি যা সারা বিশ্বে ঝড় তুলেছে।


এই সেই ভয়ংকর থাম লুয়াং গুহা মুখ যেখানে ২৩শে জুন বিকেলে সামান্য খাবার নিয়ে প্রাকটিস শেষে বসেছিল ক্ষুদে ফুটবল দলের ১৩ জন

তিনজন অস্ট্রেলীয় উদ্ধারকর্মী যারা গুহার ভেতরে তৃতীয় চেম্বারে অবস্থান করছিল তারা নাম না প্রকাশ করার শর্তে আজ বুধবার গার্ডিয়ান পত্রিকার সাথে এক সাক্ষাতকারে জানিয়েছেন কালকের সেই বিশাল অর্জন কি ভাবে এক বিরাট বিপর্যয়ের সন্মুখীন হতে যাচ্ছিল। তাদের কাছ থেকে জানা যায় থাম লুয়াং গুহা থেকে শেষ ব্যক্তি ওয়াইল্ড বোরের কোচকে উদ্ধারের ঘন্টা খানেক পর গুহার ১.৫ কিমি ভেতর থেকে উদ্ধারকর্মীরা সব কিছু পরিস্কার করে বের করে নিয়ে আসছিলো। এসময় অস্ট্রেলীয় তিন জন উদ্ধারকর্মী হঠাৎ করেই গুহার ভেতর থেকে লোকজনের চিৎকার এবং সরু পথ দিয়ে দ্রুত এগিয়ে আসা হেড লাইটের আলো দেখতে পান। তারা আরো দেখেন যে এগিয়ে আসা উদ্ধারকর্মীরা দ্রুত একটি নিরাপদ যায়গায় ওঠার চেষ্টা করছে । তাদের মুখ থেকে সেই তিন অস্ট্রেলিয়ান জানতে পারেন যে গুহার ভেতরে এতদিন ধরে অনবরত পানি সেচতে থাকা সবচেয়ে বড় পাম্পটি নষ্ট হয়ে গেছে। এর ফলে গুহার ভেতরে দ্রুত পানি বাড়ছিল যা খালি চোখেই দেখা যাচ্ছিল । অবশেষে এক ঘন্টার মধ্যেই ছেলেদের সাথে থাকা ডাক্তার হ্যারিস ও থাই সীলের তিন সদস্য সহ প্রায় ১০০ উদ্ধারকর্মীরা সবাই নিরাপদে গুহা থেকে দৌড়ে বের হয়ে আসতে সক্ষম হয় ।

ডুবুরীর পোশাকে বিখ্যাত অস্ট্রেলিয়ান ডাক্তার রিচার্ড হ্যারিস
তবে এই বিশাল আনন্দটি ডাক্তার হ্যারিসের জন্য বেশিক্ষন স্থায়ী হয়নি । তার কারন এর অল্প কিছু পরেই তিনি তার পিতার আকস্মিক মৃত্যুর কথা জানতে পারেন। ফলে দ্রুত তাকে দেশে ফেরার প্লেন ধরতে হয়।

গুহা থেকে সবার শেষে বের হয়ে আসা অস্ট্রেলীয় ডাক্তার ও তিন থাই নেভী সীলের সদস্য যারা বাচ্চাদের খুজে পাওয়ার পর থেকে সর্বক্ষন তাদের সাথে ছিলেন
সারা বিশ্ব জুড়ে পারমানবিক শক্তির অধিকারী দেশগুলোর ক্ষমতাধর নেতাদের যতই হুংকার উঠুক, যতই অস্ত্রের ঝনঝনানীর আওয়াজ শোনা যাক দিক বিদিকে,মানবতা এখনো দুনিয়া থেকে উধাও হয়ে যায়নি সেটাই প্রমানিত হলো থাইল্যান্ডের থাম লুয়াং গুহায় ১৭ দিন ধরে আটকে থাকা ক্ষুদে ফুটবলারদের উদ্ধারের ঘটনা থেকে। সাধারন মানষের মাঝে যে একে অপরের জন্য মমত্ববোধ আজও রয়েছে। তার প্রমান উদ্ধারকাজে সাহায্যের জন্য স্বেচ্ছায় এগিয়ে আসতে দেশ বিদেশের সুদক্ষ উদ্ধারকর্মীরা এক মুহুর্ত দেরী করেনি।
যার একটি উদাহরন প্রাক্তন থাই এলিট বাহিনীর সদস্ সানাম গুনান যিনি জীবন দিয়ে মানবতার প্রতি ভালোবাসার প্রমান দিয়ে গেল।
অসম্ভব প্রতিকুল প্রকৃতির সাথে লড়াই করে উদ্ধারকর্মীরা ছিনিয়ে এনেছে গুহায় আটকে থাকা ১৩ জন ফুটবল খেলোয়ারকে যার মাঝে বিশ্বখ্যাত মেসি বা রোনালদোরা নেই, আছে রাজধানী শহর থেকে কয়েকশ মাইল দুরের নাম না জানা অখ্যাত এক পাড়ার ক্লাবের ক্ষুদে ফুটবলাররা।

উদ্ধারপ্রাপ্ত তের জনই হাসপাতালে আছে, তাদের ভেতর সামান্য জ্বর ও কাটাছেড়া তেমন কোন কঠিন অসুখের আলামত পাওয়া যায়নি। তাদের এক সপ্তাহের মত পর্যবেক্ষনে রাখা হবে। ফলে ফিফা প্রধানের আমন্ত্রন রক্ষা করা সম্ভব হলো না। তবে আগামী সিজনে ম্যাঞ্চেষ্টার ইউনাইটেডের আমন্ত্রন রক্ষা করতে পারবে হয়তো ওল্ড ট্রাফোর্ডে খেলা দেখে ও খেলে ।

তাদের সবার প্রতিই রইলো আমাদের অভিনন্দন ও শুভকামনা ।

সর্বশেষ আপডেট ১০ ই জুলাই রাত ৮টা ৫৫ মিনিট
একজন ডাক্তার সহ নেভী সীলের তিন সদস্য যারা এ কদিন কিশোর ফুটবল দলের সাথে গুহায় ছিল তারাও দু মিনিট আগে গুহা থেকে বের হয়ে এসেছে। এরই সাথে সমাপ্তি ঘটলো এক অবিশ্বাস্য উদ্ধার অভিযান যা উদ্ধারকর্মীদের কাছেও বিজ্ঞান নাকি মির‍্যাক্যল না কি সেটাই ভাবনার বিষয় !!

সফল অভিযান শেষ হওয়ার পর পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের নেতৃবর্গ থেকে শুরু করে আপামর জনগন কিশোর ফুটবল দল ও উদ্ধারকর্মীদের অভিনন্দনের স্রোতে ভাসিয়ে দিচ্ছে বিভিন্ন বার্তায়। এর মধ্যে আছেন আমেরিকান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, বৃটিশ প্রথান মন্ত্রী থেরেসা মে, জার্মানীর চ্যন্সেলার এঞ্জেলা মার্কেল, আইসল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী, ফিফা প্রধান, ইংল্যান্ডের ম্যাঞ্চেষ্টার ইউনাইটেড ক্লাব, আমেরিকান ধনকুবের এলোন মাস্ক যিনি উদ্ধার কাজে সাহায্যের জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন এছাড়াও আরো আরো অনেকেই। তবে এরই ফাকে উদ্ধার কাজে স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে এসে প্রান দেয়া থাই নেভী সীলের প্রাক্তন সদস্য সামান কুনানকে স্মরন করতে ভুলে যাননি অনেকেই ।

একজন ডাক্তার সহ নেভী সীলের যে তিন জন সদস্য কিশোর ফুটবলারদের সাথে ছিল তাদের বের না হয়ে আসা পর্যন্ত প্রার্থনা করতে থাই নেভী সীল তাদের ফেসবুক পেইজে সবাইকে অনুরোধ জানিয়েছে। তারা তাদের ফেসবুকে আরো লিখেছে “We are not sure if this is a miracle, a science, or what. All the thirteen Wild Boars are now out of the cave,”

মাত্র ২ মিনিট আগে অর্থাৎ সন্ধ্যা ৬টায় গুহার ভেতর থেকে কোচ এক্কাপোলকে বের করে নিয়ে আসার সাথে সাথেই সাফল্যের সাথে শেষ হলো রুদ্ধশ্বাস এক দুধর্ষ উদ্ধার অভিযান যা শুধু থাইল্যান্ডই নয় বিশ্বের ইতিহাসের অংশ হিসেবেই লেখা থাকবে ।


ব্রেকিং নিউজ সন্ধ্যা ৫টা ৫৫ মিনিট
গুহায় আটকে পরা শেষ ছেলেটিকেও এই মুহুর্তে বের করে নিয়ে আসা হলো । অত্যন্ত জটিল ও দীর্ঘ এই অভিযানের মাধ্যমে মোট ১২ জনকে উদ্ধার করা হলো । এখন শুধু রইলো তাদের কোচ। নবম ছেলেটিকে এম্বুলেন্স করে ৬০ কিমি দুরের হাসপাতালে পাঠানো হলেও ১০ ও ১১ নম্বর ছেলে দুটোকে হেলিকপ্টারে পাঠানো হয়।

সর্বশেষ আপডেট বিকাল ৫টা ২ মিনিট
থাই নেভী সীলের সদস্যরা জানিয়েছেন আজকের মধ্যেই ওয়াইল্ড বোর ফুটবল দলের সদস্যদের একত্রীত করা হবে। স্থানীয় সংবাদ থেকে নিশ্চিন্ত হওয়া গেল যে সবশেষে উদ্ধার করা ১১তম ছেলেটিই হচ্ছে ওয়াইল্ড ফুটবল দলের কনিষ্ঠতম সদস্য। তার বিশাল নাম Chanin Wiboonrungruen এর চেয়ে ডাক নাম টাইটান বলাই সহজ । পাচ বছর ধরে ফুটবল খেলা ১১ বছরের টাইটান তিন বছর আগে স্কুল ক্লাবে নাম লেখানোর পর ওয়াইল্ড বোর ক্লাব তাকে তাদের ক্লাবের হয়ে খেলতে আমন্ত্রন জানায়।

সর্বশেষ আপডেট বিকাল ১০ই জুলাই ৪টা ৪৫ মিনিট

উদ্ধার হলো আরো একজন। মোট উদ্ধার ১১ জন। ধারনা করা হচ্ছে উদ্ধারকৃত ছেলেটি ফুটবল টিমের বছর ১১ র সবচেয়ে ছোট সদস্য। তবে সংবাদটি এখনো নিশ্চিত নয়। এই মাত্র পাওয়া খবরে আরো জানা গেলো থাই প্রধানমন্ত্রী জেনারেল প্রায়ুথ চান ওচা বলেছেন ছেলেদের বের করে আনার জন্য অজ্ঞান করার কোন ঔষধ ব্যবহার করা হয়নি। ব্যবহার করা হয়েছে উৎকন্ঠা দূর করার ঔষধ যা নাকি সে নিজেও নিয়ে থাকে গুলি চালানোর সময় ।
তথ্যসুত্র গার্ডিয়ান

সর্বশেষ আপডেট ১০ই জুলাই বিকাল ৩টা ৪৪ মিনিট
এই মাত্র পাওয়া খবরে জানা যায় আরো দুজনকে গুহা থেকে স্ট্রেচারে করে বের করে আনা হয়েছে। তবে যথারীতি তাদের পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে। এই নিয়ে ওয়াইল্ড বোর ফুটবল দলের কোচ সহ তেরোজন সদস্যের ভেতর মোট ১০ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হলো
তথ্যসুত্র রয়টার

সর্বশেষ আপডেট দুপুর ১০ই জুলাই ১২টা ২৫ মিনিট
তৃতীয় ও শেষ দিনের মত উদ্ধার কার্যক্রম শুরু হয়েছে স্থানীয় সময় সকাল ১০টা ৮ মিনিটে।। আজকের ভেতরেই বাকি ৫ জনকে বের করে নিয়ে আসার কথা ঘোষনা করেছেন উদ্ধার কাজের প্রধান সমন্বয়কারী চিয়াং রাই এর প্রাক্তন গভর্নর নারংসাক। গুহায় থাকা বাকি ৫ জনকেই একসাথে বের করে আনা হবে যার মাঝে রয়েছে ফুটবল দলের সবচেয়ে কনিষ্ঠ সদস্য যার বয়স মাত্র ১১ এবং তাদের ২৫ বছর বয়স্ক কোচ। একজন ডাক্তার এবং থাই নেভী সিলের তিনজন সদস্যও আজ গুহা থেকে বেরিয়ে আসবে বলে বলা হয়েছে। তবে আজ উদ্ধার কাজে গতকালের চেয়ে বেশি সময় লাগবে বলে জানা গেছে। নারংসাকের এই বক্তব্যে উদ্ধারকর্মী ও মিডিয়ার ব্যক্তিবর্গ সজোরে হাততালির মাধ্যমে অভিনন্দন জানিয়েছেন ।

সাংবাদিক সন্মেলনে উদ্ধার কাজের প্রধান সমন্বয়কারী চিয়াং রাই এর প্রাক্তন গভর্নর নারংসাক

তথ্য সুত্র সি এন এন, আলজাজিরা ও ব্যংকক পোস্ট

সর্বশেষ আপডেট ১০ই জুলাই সকাল ১১টা


আজ মঙ্গলবার ১০ ই জুলাই অবসান হোক ১৮দিনের সকল উৎকন্ঠার। সেই প্রার্থনায় থাই জনগন
সোমবার রাতে প্রথম উদ্ধারপ্রাপ্ত চারটি ছেলের সাথে তাদের পরিবারের সাক্ষাৎ। যদিও আদর করে কাছে টেনে নেয়ার সুযোগ ছিল না। কারন সংক্রমনের ভয়ে কাচের বাইরে থেকে দেখতে হয়েছে । পাবলিক হেলথ মিনিস্ট্রির স্থায়ী সেক্রেটারী জানিয়েছেন আটটি ছেলের প্রত্যকেই সুস্থ আছে । কারো কোন জ্বর নেই এবং মানসিক দিক দিয়ে প্রত্যেকেই ভালো অবস্থায় আছে। তবে রবিবারে উদ্ধারপ্রাপ্ত ছেলেদের মধ্যে দুজন এর মাঝে নিউমনিয়ার লক্ষন দেখা যাচ্ছে। তাদের এন্টিবায়োটিক দেয়া হচ্ছে। প্রথম উদ্ধারপ্রাপ্ত চারজন মশল্লা ছাড়া সাধারন খাবার খাচ্ছে । তাদের কমপক্ষে এক সপ্তাহ পর্যবেক্ষনে রাখা হবে।

সর্বশেষ আপডেট ১০ই জুলাই সকাল ৯টা ত্রিশ

কিশোর উদ্ধারে এগিয়ে আসা আমেরিকান ধনকুবের এলোন মাস্ক থাম লুয়াং গুহার অভ্যন্তরে

আমেরিকান স্পেস এন্টারপ্রেনার ধনকুবের এলোন মাস্ক গতরাত এবং আজ মঙ্গলবার সকালে থাম লুয়াং গুহার ২ কিমি গভীরে ৩ নং গুহা ঘুরে পর্যন্ত ঘুরে এসেছেন। রকেট তৈরীর উপাদান দিয়ে তৈরী একটি মিনি সাবমেরিন সেখানে রেখে এসেছেন যদি ছেলেদের উদ্ধারে কাজে লাগে।

সর্বশেষ আপডেট ১০ই জুলাই সকাল ৮টা ৩৫

গতকাল প্রধানমন্ত্রী জান্তা প্রধান প্রায়ুথ চান ওচা সশরীরে দ্বিতীয়বারের মত ঘটনাস্থলে হাজির হয়েছিলেন। এছাড়াও তিনি হাসপাতালে গিয়ে আটটি ছেলেকে দেখা ও খোজ খবর নিয়েছেন। প্রথমবার এসেও তিনি উদ্ধারকর্মীদের সাথে মত বিনিময় ছাড়াও ও কিশোরদের অভিভাবকের সাথে কথা বলেন, তাদের ছেলেদের উদ্ধারে সব কিছু করার আশ্বাস দেন। কিছু কিছু পত্রিকার মতে উদ্ধার অভিযানে তার এই ভাবমুর্তি আগামী সাধারন নির্বাচনে একটি ব্যপক প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করছে।


থাই প্রধানমন্ত্রীর প্রথমবারের ঘটনাস্থল সফর করে দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন


সর্বশেষ আপডেট ৯ই জুলাই রাত ৮টা ৪০ মিনিট

উদ্ধার কাজ আপাতত স্থগিত । আগামীকাল বাকি ৫ জনকে উদ্ধার করা হবে বলে আশা করা যায়।

সর্বশেষ আপডেট ৯ই জুলাই রাত ৭টা ১৫ মিনিট
এইমাত্র পাওয়া সি এন এনের আরেকটি খবরে জানা গেলো আজকের মত উদ্ধার কাজ স্থগিত করা হয়নি এখনো চলছে। আর মাত্র চারজন ফুটবলার ও তাদের ২৫ বছর বয়সী কোচ এই মোট ৫ জন বাকি রয়েছে উদ্ধারে । রবিবার ৮ই জুলাই চারজন এবং আজ সোমবার ৯ই জুলাই এখন পর্যন্ত চার জন অর্থাৎ মোট আটজনকে এই পর্যন্ত উদ্ধার করা হয়েছে।

কর্ত্তৃপক্ষ এখন পর্যন্ত উদ্ধারপ্রাপ্ত ছেলেদের পরিচয় প্রকাশ না করায় অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষায় উদ্ধারপ্রাপ্ত প্রতিটি ছেলেই এম্বুলেন্স বা হেলিকপ্টারে ওঠা পর্যন্ত ডাইভিং পোশাক ও মুখোশ পরা ছিল। ফলে তাদের পরিচয় জানা সম্ভব হয়নি।
তবে রেসকিউ চীফ নারাংসাক জানিয়েছেন সবাইকে উদ্ধার করা হলে একেবারেই সবার পরিচয় প্রকাশ করবে। নাহলে যাদের পরিবারের সদস্যরা এখনো গুহায় আটকে আছে তারা মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পরতে পারে। সবাই উদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত কিশোর ফুটবল দলের তেরো পরিবারই গুহার সামনে অপেক্ষমান থাকবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।


সর্বশেষ আপডেট ৯ই জুলাই বিকেল ৪টা ৩০ মিনিট
সদ্য পাওয়া খবরে জানা গেল গুহায় আটকে পড়া আরো দুজন কিশোরকে এইমাত্র উদ্ধার করা হয়েছে। এদের একজনকে এম্বুলেন্সে করে এইমাত্র হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আরেকজন স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে গুহা মুখের কাছে এগিয়ে আসছে । এছাড়াও বাকি দুজন কিশোর মাত্রই বর্তমান অস্থায়ী মেডিকেল ক্যাম্পে এসে পৌছেছে। খানিক পরেই তাদের বের করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হবে। অর্থাৎ তের জনের মাঝে সর্বমোট আটজন কিশোর ফুটবলারকে গুহা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। গতকালের চেয়ে তুলনামুলকভাবে আজ বেশ দ্রুতগতিতেই উদ্ধার কাজ চলছে। আজ প্রথম ছেলেটিকে ৫ ঘন্টার মধ্যেই বের করে আনা সম্ভব হয়ে যা গতকাল সময় নিয়েছিল ১১ ঘন্টা।


আজ উদ্ধারপ্রাপ্ত চারজন ছেলের মাঝে একজনকে এম্বুলেন্সে করে হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছে যেখানে গতকালের উদ্ধারপ্রাপ্ত তার চার সহ খেলোয়াড়রা রয়েছে।

সর্বশেষ আপডেট ৯ই জুলাই বিকেল ৪টা ১৫ মিনিট
এইমাত্র রয়টার থেকে পাওয়া খবরে জানা যায় গুহার ভেতর থেকে স্ট্রেচারে করে এক ব্যাক্তিকে এনে এম্বুলেন্সে ওঠানো হয় । সে কি আটকে পড়া ছেলেদের একজন নাকি কোন উদ্ধারকারী তা বিস্তারিত জানা যায় নি । তবে উদ্ধার অভিযান চলছে এখনো ।

সর্বশেষ আপডেট ৯ই জুলাই দুপুর ৩টা- ৩৫ মিনিট
স্থানীয় সময় সকাল ১১ টায় জনৈক থাই অফিসার প্রেস ব্রিফিং এ জানিয়েছে যে গুহায় আটকে থাকা কিশোর ফুটবল দলকে বের করে আনার জন্য দ্বিতীয় পর্যায়ের উদ্ধার কাজ শুরু হয়েছে । এখন থেকে আর ঘন্টাখানেকের মধ্যেই একটি শুভ সংবাদের আশা করছেন উদ্ধার কাজের প্রধান সমন্বয়কারী চিয়াং রাই এর প্রাক্তন গভর্নর মিস্টার নারাংসাক । তিনি আরো জানিয়েছেন সারা রাত বৃষ্টি হলেও গুহার পানির উচ্চতা তেমন বৃদ্ধি পায়নি যা উদ্ধার কাজে বিঘ্ন ঘটাতে পারে।

সর্বশেষ আপডেট ৯ই জুলাই দুপুর ১টা ৪০ মিনিট
কোচ সহ নয়জনকে থাম লুয়াং গুহা থেকে উদ্ধারের জন্য আজ মঙ্গলবার ৯ই জুলাই আবার অভিযান শুরু করেছে দেশ বিদেশের বিখ্যাত ডুবুরীরা । তবে আজই সবাইকে বের করে আনতে সক্ষম হবে কি না বোঝা যাচ্ছে না।


কি ভাবে তাদের বের করা হয়েছে সেই কল্পিত ছবি

সর্বশেষ আপডেট ৯ই জুলাই সকাল ১১।৩৫ মিনিট।

সি এন এন থেকে ২০ মিনিট আগে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী উদ্ধার কার্যক্রম এখনো শুরু হয়নি বলে জানিয়েছেন মেজর জেনারেল Chalongchai Chaiyakum. সিদ্ধান্ত নেয়ার ব্যাপারে জড়িত এই মেজর জেনারেল সি এন এন কে ফোনে জানিয়েছেন উদ্ধার অভিযান এখনো শুরু হয়নি , তারা এই ব্যপারে জরুরী মিটিং এ আছেন। গত রাতেই ১০ ঘন্টার জন্য উদ্ধার অভিযান স্থগিত করা হয়েছে অক্সিজেন ট্যাংকগুলো রিফিল করার জন্য ।
তথ্যসুত্র সি এন এন

সর্বশেষ আপডেট ৯ই জুলাই সকাল ১০টা ১৭ মিনিট
উদ্ধারকৃত চারটি ছেলেই হাসপাতালে এবং তারা সুস্থ আছে। তবে তাদের আরো পরীক্ষা নীরিক্ষার প্রয়োজন রয়েছে বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন। আজ বাকী ছেলেগুলোকে উদ্ধারের কথা রয়েছে তবে তার আগে গুহায় পর্যাপ্ত পরিমানে অক্সিজেন সাপ্লাই ও ডাইভারদের শরীর স্বাস্থ্যও নীবিড় পর্যবেক্ষনের আওতায় এনে তারপরই তারা উদ্ধার কাজে এগিয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন প্রধান সমন্বয়কারী মিঃ নারংসাক ।

তথ্যসুত্র সি এন এন

সর্বশেষ আপডেট ঃ (৮ই জুলাই রাত ১২।৩০ মিনিট।) গুহার অভ্যন্তর থেকে চারজনকে উদ্ধার করা হলেও বাকি নয়জনকে এখনো তাদের পুরনো জায়গাতেই আরেকটি রাত কাটাতে হবে । উদ্ধারকর্মী দলের নেতা গভর্নর নারাংসাক ঘোষনা দিয়েছেন তাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি। দশ ঘন্টা বিশ্রাম শেষে আগামীকাল বাকিদের উদ্ধার করা হবে বলে তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। নারংসাক আরো জানিয়েছেন আজ রবিবারের অভিযানে ৯০ ই জন ডুবুরী অংশগ্রহন করেছে তার মাঝে ৫০ জনই বিদেশী দক্ষ ডাইভার।


এ পর্যন্ত চারজন ক্ষুদে ফুটবলারকে উদ্ধার করা হয়েছে


রয়েল থাই এর হেলকপটার প্রথম উদ্ধার পাওয়া ছেলেটিকে নিয়ে চলেছে ৬০ মাইল দুরের হাসপাতালে

এখন সেখানে প্রচুর বৃষ্টিপাত হচ্ছে বলে জানা গেছে । আবার গুহায় পানি জমে যাওয়ার আশংকায় কর্তৃপক্ষ ।
একজন উদ্ধারকর্মী জানিয়েছেন তাদের উদ্ধার অভিযান আগামীকাল সোমবার সকাল আটটায় আবার শুরু হবে। আমারাও আটকে পড়া নয়জন কিশোরের সাথে অপেক্ষায় ।

এইমাত্র পাওয়া খবরে (জুলাই সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিট) জানা যাচ্ছে থাই নেভী সীল ও বিভিন্ন দেশের মোট ৯০ জন ডুবুরী এক রুদ্ধশাস অভিযান চালিয়ে মোট চারজন ক্ষুদে ফুটবলারকে গুহা থেকে উদ্ধার করতে পেরেছে । ১৬ দিন ধরে গুহার গভীরে আটকে থাকা কিশোর ফুটবলারদের চারজনকে রাজকীয় নৌ বাহিনীর হেলিকপ্টারের মাধ্যমে ৬০ মাইল দুূরে চিয়াং রাই এর প্রাচানুখর হসপিটালে পাঠানো হয়েছে।


ব্রেকিং নিউজ ৮ই জুলাই বিকাল ৬, ৩০ মিনিট
এই মাত্র খবরে জানা গেলো দুটো কিশোর ফুটবলার কে ডুবুরীরা সেই দুর্গম গুহা থেকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে । ক্ষুধার্ত এবং পরিশ্রান্ত ছেলেদুটোকে গুহা মুখেই প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দেয়ার পর দাঁড়িয়ে থাকা হেলিকপ্টারে করে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। প্রথম বেরিয়ে আসা বছর তেরোর ছেলেটির নাম মংকল বুনপিয়েম । বাকিদের বের হয়ে আসার প্রতীক্ষায় উদ্গ্রীব বিশ্ব । থাইল্যান্ডের ইতিহাসে এটাই সবচেয়ে বড় দুরহ একটি উদ্ধার অভিযান।


Click This Link target='_blank' >view this link

view this link

সর্বশেষ আপডেট ৮ই জুলাই বিকাল ৫ টা ২৫ মিনিট

পানিতে প্লাবিত অন্ধকার গুহায় বিশ্বের সেরা সব উদ্ধারকর্মীরা এগিয়ে যাচ্ছে
ঘোর ঘুটঘুটে অন্ধকারে পানিতে প্লাবিত এক সরু, জটিল সাথে ভয়ংকর দুর্গম এই গুহা পথ দিয়ে আটকে পরা ফুটবলারদের উদ্ধার করে নিয়ে আসা উদ্ধারকর্মীদের জন্য যেমন কঠিন, তেমনি সাতার না জানা ছেলেগুলোর কাছে অনভ্যস্ত প্রক্রিয়ায় এ পথ পাড়ি দেয়া তার চেয়েও অসম্ভব এক প্রচেষ্টা।

উদ্ধার অভিযান শুরু হবার পর থেকে প্রায় সাত ঘন্টার ও বেশি সময় পেরিয়ে গেছে। ৪ কিমি গুহাপথ পেরিয়ে প্রথম ছেলেটির এতক্ষনে বের হয়ে আসার কথা । ব্যংকক পোস্টের তথ্য অনুযায়ী আটকে পরা ছেলেদের চারটি ভাগে ভাগ করে বের করা হবে। রেসকিউ অথরিটি জানিয়েছে কোচকে সবার শেষে বের করে আনা হবে। তবে অফিসিয়াল আপডেট জানা সম্ভব হয়নি। সেখানে আবার প্রচন্ড বর্ষন শুরু হয়েছে যা আবার গুহার ভেতর পানির উচ্চতা বাড়িয়ে তুলবে। উদ্ধারকাজের প্রধান চিয়াং রাই এর প্রাক্তন গভর্নর নারাংসাক এর মতে আটকে পড়াদের উদ্ধার করতে চার পাচ দিন সময় লাগবে।

এমনি হাসি খুশীতে থাকুক সারা জীবন
এদের মাঝে দুজনার জন্মদিন ছিল, তাদের পরিবারের লোকজন বলেছে তারা তাদের অপেক্ষায় ফ্রীজে কেক রেখে দিয়েছে। ফিরে আসলেই কেক কাটা হবে। আমাদেরও অন্তর থেকে দোয়া থাকলো তারা যেন আনন্দ উল্লাসের সাথে সেই কেক কেটা জন্মদিনের উৎসব পালন করতে পারে।

সর্বশেষ আপডেট ৮ই জুলাই ৩টা ২৫ মিনিট

এই মাত্র পাওয়া খবর অনুযায়ী আবার প্রচন্ড বৃষ্টি শুরু হওয়াতে ক্ষুদে ফুটবলারদের উদ্ধার নিয়ে চিন্তিত আপামর জনগন ।

৮ই জুলাই দুপুর ২টা ২৬ মিনিট, সর্বশেষ আপডেট।
বিভিন্ন দেশের ডুবুরী দলের সদস্যরা হাতে হাত বেধে ক্ষুদে ফুটবলারদের নিরাপদ উদ্ধারে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ । ছবিটি উনষাট মিনিট আগে প্রকাশিত
একজন ছেলেকে বের করে আনতে দুজন ডাইভার থাকবে বলে প্রকাশ। গভীর অন্ধকার, দুষিত পানি, শ্বাস প্রশ্বাস ছাড়াও মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা থাকায় তাদের দ্রুত বের করে আনার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এমন উদ্ধার অভিযানে অংশ নেয়ার জন্য অন্যান্যদের সাথে বিশ্বের অনেক দুঁদে ডাইভার নিজের ইচ্ছেয় এগিয়ে এসেছে । দেখা যাক কি হয়। এরই মাঝে ১লা জুলাই এক ক্ষুদে ফুটবলার ১৪ থেকে ১৫তে পা দিল । তাকে জড়িয়ে ধরার জন্য তার দাদী সাগ্রহ প্রতীক্ষায় আছে বলে জানিয়েছেন।
সর্বশেষ আপডেট ১২টা ৩০ মিনিট

এলোন মাস্কের আঁকা চিত্র অনুযায়ী এমন রবারের টিউবের ভেতরে ভরে তাদের বাইরে আনতে চেষ্টা করছে বলে থাই স্থানীয় টিভিতে বলা হচ্ছে।

সর্বশেষ আপডেট ৮ই জুলাই সকাল ১১টা
উদ্ধারকর্মীরা থাম লুয়াং গুহার অভ্যন্তরে আটকে পড়া ছেলেদের উদ্ধারে সর্বশেষ প্রস্ততি নিয়ে আজ ভোরে গুহায় প্রবেশ করেছে। ছেলেরাও সকল চ্যলেঞ্জ গ্রহনে প্রস্তত বলে রেসকিউ চীফ নারংসাক সংবাদ কর্মীদের অভিহিত করেছেন।
এছাড়া আর কোন তথ্য তাদের জানানো হয়নি । উর্ধতন কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন সংবাদকর্মী সহ অপ্রয়োজনীয় লোকজনদের গুহা মুখ থেকে দুই কিমি দূরে সরিয়ে দিয়েছে। এখন পর্যন্ত তাদের আর কোন তথ্য জানা যায়নি।
টেকনোলজি গুরু এলোন মাস্ক টুইটারের মাধ্যমে জানিয়েছেন যে তিনি ছোট একটি সাবমেরিন বানিয়ে তাদের বের করে করে আনার চিন্তা ভাবনা করছে।
স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় ১৩ জন বিদেশী ও ৫ জন থাই নেভী সীলের ডাইভারদের গুহায় ঢুকতে দেখা গেছে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে উর্ধতন কর্তপক্ষ অন্য সমস্ত রাস্তা বাদ দিয়ে স্কুবা ডাইভিং এবং সাতারের সাহায্যে ৫ কিমি ভেতরে আটকে পরা ছেলেদের বের করে আনার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে ।


বিস্তারিত বিবরন চ্যানেল নিউজ এশিয়া

সর্বশেষ আপডেট ৮ই জুলাই সকাল ১০টা।

পুরনো পথেই ১৬ দিন ধরে আটকে থাকা ক্ষুদে ফুটবলারদের বের করে আনার চেষ্টায় বিভিন্ন বাহিনীর অভিযান প্রস্ততি ।

চিয়াং রাইয়ের প্রাক্তন গভর্নর নারংসাক যিনি উদ্ধারকাজের নেতৃত্য দিচ্ছেন তার মতে গুহায় পানি বর্তমানে সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে, আবহাওয়াও ভালো, ছেলেগুলোর শরীর স্বাস্থ্যও উন্নতি করছে সুতরাং আগামীতে প্রচন্ড বৃষ্টিপাত শুরুর আগেই তাদের বের করে আনার জন্য জোরদার চেষ্টা চালাতে হবে। বৃষ্টি হলে ছেলেগুলোর আশ্রয়স্থানটির অনেক অংশ পানিতে ডুবে যাবে বলে সংশ্লিষ্ট সবাই উদবিগ্ন।

ফলে স্কুবা ডাইভিং এর মাধ্যমেই নিরাপদে তাদের বের করে আনার দিকটি সংশ্লিষ্ট সবাই ক্ষতিয়ে দেখছে। এ ব্যপারে থাই নেভী সীলের সদস্যরা ছাড়াও বিভিন্ন দেশের বিশেষ বাহিনীর ডুবুরীরা সহযোগীতা করছে। বর্তমানে তাদের প্ল্যান একজন ডাইভার এক একটি ছেলেকে সাথে করে নিয়ে বের হয়ে আসবে । কিন্ত সেই পথ জায়গায় জায়গায় বড়ই সংকুচিত এবং পেচানো ।

এদিকে দক্ষিন আফ্রিকার ধনকুবের টেসলা গাড়ী নির্মাতা ও SpaceX/Boring Company র মালিক এলোন মাস্ক নয়জন ইঞ্জিনিয়ার পাঠাবে যারা ইতিমধ্যেই রওনা দিয়েছে। তারা অন্য কোন ভাবে বাচ্চাদের নিরাপদে বের করে আনতে পারে কিনা সেই চেষ্টা চালাবে ।

এরই মাঝে গতকাল কোচ সহ ছেলেরা তাদের পিতা মাতার কাছে ভালোবাসা পুর্ন চিঠি পাঠিয়েছে। কেউবা চিকেন ফ্রাই খেতে চেয়েছে, কেউবা টিচারদের পড়া কম দিতে বলার অনুরোধ জানিয়েছে। তবে তারা সবাই জানিয়েছে তারা ভালো আছে। এবং তাদের পরিবারের সকল সদস্যকে কত ভালোবাসে তার আকুতি ফুটে উঠেছে সেই চিঠিতে । তাদের কোচ ছেলেগুলোর অভিভাবকদের কাছে ক্ষমা চেয়েছে তাদের এখানে নিয়ে আসার জন্য ।
বিশ্বের সবার সাথে আমরাও অপেক্ষায় তাদের নিরাপদ প্রত্যাবর্তনে।

সর্বশেষ আপডেট ৭ই জুলাই, দুপুর ১২টা ৩০ মিনিট
ছেলেগুলোকে এখনো গুহার ভেতর থেকে উদ্ধার করা যায়নি। এদিকে গুহায় প্রচুর উদ্ধারকর্মী থাকায় অক্সিজেনের পরিমান কমে গিয়ে দুর্যোগের মাত্রা বৃদ্ধি করছে। বিশেষ করে অক্সিজেনের অভাবে প্রাক্তন নেভী সীলের মৃত্যুর ঘটনায় উদ্ধারকাজ কিছুটা স্থগিত করা হয়েছে। ছেলেগুলোকে উদ্ধার করতে গিয়ে কোন রকম দুর্ঘটনা না ঘটে এই ব্যাপারে তারা আরো সাবধানতা অবলম্বন করেছে।

পঁচে যাওয়া ফসলের মাঠ পরীক্ষা করে দেখছে এক কৃষক ।

গুহা থেকে পানি সেচের ফলে আশেপাশের জমির ফসল নষ্ট হয়ে গেছে। তবে কৃষকরা জানিয়েছে দরকার হলে তারা আবার ফসল বুনবে । তারপরও যেন ছেলেগুলোকে নিরাপদে ফিরিয়ে আনা হয় ।

সর্বশেষ আপডেট ৬ই জুলাই, সন্ধ্যা ৭টা ৪৫ মিনিট
ফিফা সভাপতি গুহায় আটকে থাকা ফুটবলার ও তাদের কোচকে মস্কো গিয়ে সশরীরে বিশ্বকাপ ফাইনাল দেখার আমন্ত্রন জানিয়েছেন। তিনি অবশ্য প্রথম থেকেই এদের ব্যপারে উদ্ববেগ প্রকাশ করে আসছিলেন, এমনকি তাদের খোজ পাওয়ার সাথে সাথে অভিনন্দন জানিয়েছিলেন।
ব্রেট ফিটজেরাল্ড নামে এক ব্যক্তি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে জানিয়েছেন যে থাম লুয়াং গুহার ভেতর যেখানে যেখানে গভীর পানি রয়েছে সেখানে একটি মানুষ প্রবেশ করতে পারে এমন নিস্ছিদ্র টিউব প্রবেশ করিয়ে তার ভেতর দিয়ে দড়ি ধরে টেনে বের করা। সাতার ও স্কুবা ডাইভিং শেখানোর চেয়ে এই পদ্ধতিটি সহজ কম সময় লাগবে। তার সাথে একই মত প্রকাশ করেছেন Arthur Willemse and Marc Thiadens নামে দুই ব্যাক্তিও ।


স্কেট বোর্ডের সাথে ছেলেগুলোকে দড়ি দিয়ে বেধে গভীর পানির জায়গাগুলো পার করা যেতে পারে।

Henry Crichlow নামে একজন প্রফেশনাল ইঞ্জিনিয়ার উপরের ছবিটি একে দেখিয়েছেন স্কেট বোর্ডের সাথে ছেলেগুলোকে দড়ি দিয়ে বেধে দড়ি ধরে টেনে টেনে কিভাবে গভীর পানির জায়গাগুলো পার করা যেতে পারে।

তবে সব কথার শেষ কথা হলো প্রতিটি উদ্ধার পদ্ধতিতেই রয়েছে বিপদের আশংকা । আর তাদের কাছে প্রধান বিষয়ই হলো সেফটি ফার্স্ট । এর উদাহরন হিসেবে বলা যায় ঢাকা এয়ার পোর্টের মেট্রো রেল নির্মাতা থাই কনস্ট্রাকশন জায়ান্ট ইটাল থাই কোম্পানী তাদের প্রতিটি নির্মান যন্ত্রপাতি ও নির্মিত স্থাপনার উপরে লিখে রেখেছে Safety first


সর্বশেষ আপডেট ৬ই জুলাই, সকাল ১১টা ৩০ মিনিট

ব্রেকিং নিউজ ঃ-
শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ওয়াইল্ড বোর কিশোর ফুটবল দল এখনো গুহায় আটকে আছে। এছাড়াও এলিট নেভী সীলের একজন প্রাক্তন সদস্য সামান গুনান ৫ই জুলাই রাত সাড়ে আটটায় গুহায় প্রবেশের পর অজ্ঞান হয়ে পরেন। নিকটস্থ হাসপাতালে নেয়ার পর ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষনা করেন। গুহার ভেতর অক্সিজেন সিলিন্ডার পৌছানের দায়িত্বে থেকে তিনি নিজেই অক্সিজেনের অভাবে মারা যান ।
রাজা মহাভাজিরালংকর্ন রাজকীয় মর্যাদায় তার শেষকৃত্য করার ঘোষনা দিয়েছেন।

উদ্ধারকর্মীরা ১২ জন ক্ষুদে ফুটবলার ও তাদের কোচকে দ্রুত ও নিরাপদ উদ্ধারের জন্য মোট চারটি অপশন নিয়ে এগুচ্ছে।
১, বর্ষা কাল শেষ না হওয়া পর্যন্ত অর্থাৎ অক্টোবর পর্যন্ত অপেক্ষা।
২, পানি অপসারন করে তাদের বাইরে নিয়ে আসা।
৩। সাতার না জানা ছেলেদের অল্প সময়ের মধ্যে সাতার ও স্কুবা ডাইভিং শিখিয়ে ৩ ঘন্টার কঠিন গুহা পথ দিয়ে নিয়ে আসা যা একজন দক্ষ ডুবুরীর জন্যও খুব একটা সহজ নয়।
৪। পাহাড়ের উপরিভাগে কোন গুহা মুখ খুজে পাওয়া বা গর্ত করে বের করে নিয়ে আসা।

পাহাড়ের উপরে ফাটলের সন্ধানে দড়ি নিয়ে উদ্ধারকারীরা

আজকের সর্বশেষ আরেকটি খবর অনুযায়ী দক্ষিন আফ্রিকার মার্কস নামে ধনাঢ্য এক ব্যাক্তি গুহায় আটকে পড়া ছেলেগুলোকে উদ্ধারের জন্য সহায়তার প্রস্তাব দিয়েছেন । তিনি তার বোরিং কোম্পানীর মাধ্যমে মাটি খুড়ে বাচ্চাদের উদ্ধার করা অথবা তার শক্তিশালী পাম্প মেশিন দিয়ে গুহা থেকে পানি অপসারন করে তাদের বাইরে নিয়ে আসার প্রস্তাব দিয়েছেন। প্রস্তাবটি থাই সরকারের বিবেচনাধী রয়েছে ।

পরিবারের সদস্যরা তাদের খবর পেয়ে যতটা উল্লসিত হয়েছিল সময় পেরোবার সাথে সাথে তাদের মনের অবস্থা তার চেয়েও খারাপ হয়ে পরেছে। আবহাওয়া অফিসের বার্তা অনুযায়ী গত দু এক দিন ধরে বৃষ্টির প্রকোপ কিছুটা কম ছিল। তবে আগামীকাল আবারো শুরু হবে প্রবল ধারা বর্ষন। তখন তাদের সেই আশ্রয়স্থলটুকুও ডুবে যায় কি না সেই আতংকে আছে সংশ্লিষ্ট সবাই।

২রা জুলাই ২০১৮, রাত ৯টা ৩২ মিনিট

এইমাত্র পাওয়া খবরে জানা গেলো থাইল্যান্ড নেভী সিল বাহিনী গুহা মুখ থেকে চার কিলোমিটার গভীরের এক দুর্গম স্থানে খুজে পেয়েছে নয়দিন আগে গুহার মাঝে হারিয়ে যাওয়া থাইল্যান্ড এর সেই ক্ষুদে ফুটবলারদের। অত্যাধিক দুর্বলতা ও গুহার ভেতর প্রচুর পানি থাকায় বের করে আনতে সময় লাগবে।


প্রথম দর্শন ( থাই নেভী সীলের ভিডিও থেকে)


সামনে একটি পথই খোলা (৪ঠা জুলাই সর্বশেষ আপডেট )

ছেলেগুলোকে বের করে নিয়ে আসা অত্যন্ত কঠিন বলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ আশংকা প্রকাশ করছেন । কেউ বলেছিল বর্ষাকাল শেষ হওয়ার অপেক্ষা করতে তাতে মাস তিন চার লাগবে । কিন্ত বিশেষজ্ঞদের মত এতদিন সেখানে থাকাটা অসম্ভব আর তাতে বিপর্যয় আরো বাড়বে বলেই ধারনা। তাই তারা চাচ্ছে এখনই তাদের বের করে আনতে।


এভাবেই সাতার না জানা বাচ্চা ছেলেগুলোকে আড়াই কিমি পথ ঘোলা কাদা-পানি সাতরে পেরিয়ে বাইরে আসতে হবে

এর জন্য ক্ষুদে ফুটবল দলকে পাড়ি দিতে হবে প্রচন্ড বৃষ্টিতে প্লাবিত গুহার সরু বন্ধুর পথ যা যেমন কঠিন তেমনি বিপজ্জনক। সাতার না জানা ছেলেগুলোকে আড়াই কিলোমিটার পথ তীব্র স্রোত, কাদা, জিরো ভিজিবিলিটি ছাড়াও ডুবুরীর পোশাক পরে পাড়ি দিতে হবে যা পরে সাতরানো নতুনদের জন্য খুবই কঠিন বলে কেইভ ডাইভিং এক্সপার্ট মতামত দিয়েছেন গতকাল রাতে। কিছু কিছু জায়গা যেগুলো অত্যন্ত সরু সেখানে তাদের সাহায্য ছাড়াই সাতার কেটে আসতে হবে। এবং অনেক জায়গায় পানির গভীরতা ১৬ ফিটেরও বেশী। সেই অবস্থায় একবার তাদের জীবন বাচানোর কিছু হাত ছাড়া হয়ে গেলে মৃত্যু অনিবার্য্য ।


গুহার ম্যাপ, একদম বা দিকের বড় চেম্বারটিতে বাইরের পৃথিবীতে ফিরে আসার অপেক্ষায় বাচ্চাগুলো

গুহায় ১০০০ এরও বেশী রেসকিউ ওয়ার্কাররা দিন রাত পানি পাম্প সহ অন্যান্য কাজে ব্যস্ত। থাই নৌবাহিনী সীলের সাতজন সদস্য রাজকীয় নৌবাহিনীর একজন ডাক্তার ও একজন নার্স খাবার দাবার ঔষধ পানি নিয়ে তাদের সাথে গুহায় অবস্থান করছে। তাদের শক্তি বাড়ানোর জন্য খাবার দেয়া হচ্ছে। একটু সুস্থ হলে একে একে তাদের বের করে আনা হবে বলে তথ্য সুত্র জানিয়েছে। এতে এক সপ্তাহ বা একমাস লাগতে পারে। এছাড়াও তাদের ডুবুরীর পোশাক পরে সাতরানোর প্রশিক্ষন দিচ্ছে প্রশিক্ষকরা ।

প্রাকটিস শেষে হাসি খুশী ফুটবল টিমের একটি ছবি তাদের কোচের সাথে


আপডেট ৫ই জুলাই

পাম্প করা বাইরে ফেলা হচ্ছে পানি , একরের পর একর জমির ফসল নষ্ট হয়ে যাচ্ছে কৃষকদের তারপর ও তাদের অভিযোগ নেই। তারাও চাইছে বালকদের নিরাপদ মুক্তি

যে দুটি পাহাড়ী নদীর পানি থাম লুয়াং গুহায় প্রবেশ করেছে তাতে আজ বাঁধ দেয়া হয়েছে। তারপরও আজ কিছু অনিবন্ধিত স্বেচ্ছাসেবী ভুল করে গুহার দিকেই পানি ফেলতে থাকে যা সাময়িক কিছুটা সমস্যা তৈরী করেছিল। এব্যাপারে উর্ধতন কতৃপক্ষের সাথে পরামর্শ না করে কেউ যাতে আগ বাড়িয়ে কিছু না করে তার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন চিয়াং রাই এর গভর্নর নারংসাক। তবে আশার কথা হলো আজ গুহার ভেতর পানির পরিমান খানিকটা কমেছে ।

চিয়াং রাই এ এখন বর্ষাকাল ফলে তুমুল বৃষ্টিপাতে প্লাবিত গুহাতে কিছু জায়গায় ১৬ ফুটের উপর পানি, সেই পানি অপসারনের জন্য তারা প্রচুর শক্তিশালী পাম্প ব্যবহার করছে যাতে তাদের হাটিয়ে নিরাপদে বের করে আনতে পারে আর তাদের নিরাপত্তাই কতৃপক্ষের প্রধান বিবেচ্য।


ফাটলের সন্ধানে যেখান দিয়ে বের করা যাবে ক্ষুদে ফুটবলারদের

এছাড়াও উপর থেকে গর্ত করে তাদের টেনে তোলার চিন্তা ভাবনাও হচ্ছে । ৩০টি টিম পাহাড়ের উপরভাগে চিরুনী চালানোর মত চষে বেড়াচ্ছে ফাটল বা মুখ আছে কিনা ছেলেগুলোর কাছে পৌছানোর ।ছেলেগুলোর কাছে খাবার, ঔষধপত্র, এলুমিনিয়াম ফয়েলের কম্বল ইত্যাদি সহ সহ অন্যান প্রয়োজনীয় জিনিস পৌছালেও ফোন লাইন নিতে পারেনি। গতকাল চেষ্টা করেছিল কিন্ত সাতরে পাড়ি দেয়ার সময় এক ডুবুরীর হাত থেকে পরে হারিয়ে যায়। আর সেই গুহাতে গিয়ে ফিরে আসতে পাকা ডুবুরীদেরও ৬ থেকে ৭ ঘন্টা সময় ব্যয় হচ্ছে। তারা চাইছে দ্রুত তাদের কাছে একটি ফোন পৌছেতে যাতে তারা পরিবারের সদস্যদের সাথে যোগাযোগ করতে পারে যাতে তাদের মানসিক চাপ কমে আসে কিছুটা।


রসদ নিয়ে যাচ্ছে স্বেচ্ছাসেবী দল

খাবার দাবার, ঔষধপত্র সহ চার মাসের প্রস্ততি থাকলেও উদ্ধারকারী দলের সমন্বিত চিন্তা ভাবনা হচ্ছে যত দ্রুত সম্ভব গুহা থেকে ক্ষুদে ফুটবলারদের বের করে নিয়ে আসা। কারন দীর্ঘদিন সেই গভীর গুহায় থাকলে তারা বিভিন্ন শারিরীক এবং মানসিক প্রতিক্রিয়ার সন্মুখীন হতে পার। এব্যপারে থাইল্যান্ডের রাজা মহাভাজিরালংকর্ন ও প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুথ চান ওচাও একই মত প্রকাশ করেছেন। সাতার না জানা ছেলেদের সাতার শিখিয়ে তারপর স্কুভা ডাইভের পোশাক পরে আড়াই কিলোমিটার জটিল পথ পাড়িয়ে দিয়ে বের করে আনা খুবই দুরহ। তারপরও তাদের দ্রুত সাতার শেখানো বিশেষ করে ডুবুরীর পোশাক পড়ে সাতার শেখানোর চেষ্টা করছে তাদের সাথে থাই নেভী সীলের সাতজন সদস্য। তাদের সাথে থেকে একটু একটু করে সাহস ফিরে পাচ্ছে সেই বালকেরা ।



বিস্তারিত জানতে চাইলে আমার এই পোষ্টে ক্লিক করুন

থাইল্যান্ড পাহাড়ের ভয়ংকর গুহায় হারিয়ে যাওয়া কিশোর ফুটবল দল



তথ্যসুত্র ব্যংকক পোস্ট পত্রিকা থেকে

মন্তব্য ২৩৬ টি রেটিং +৩৩/-০

মন্তব্য (২৩৬) মন্তব্য লিখুন

১| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:০২

আহমেদ জী এস বলেছেন: জুন ,





বাহ.... সুখবর .... সুখবর ...সুখবর ।
আপনার প্রার্থনা কবুল হয়েছে ।

০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:১০

জুন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য। নীচে আমার দেয়া লিংকটায় ক্লিক করে দেখতে পারেন তাদের

২| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:০৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


মিরাকল; পরিবারগুলোর জন্য মিরাকল ঘটলো

০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:১১

জুন বলেছেন: সত্যি মিরাকল। শুনলে অবাক হবেন ফিফা প্রেসিডেন্ট থেকে শুরু করে মেসি রোনালদো রা পর্যন্ত তাদের জন্য উদ্বিগ্ন ছিল

৩| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:০৬

করুণাধারা বলেছেন: আলহামদুলিল্লাহ। আপনাকে ধন্যবাদ খবরটা জানানোয়।

থাই উদ্ধারকারী দল খুবই এফিশিয়েন্ট। এরা কেন গুহায় ঢুকতে গিয়েছিল সে খবরটা জানা গেছে কি?

০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:১৭

জুন বলেছেন: বাচ্চাগুলোর বাস সেই পাহাড়ের কাছাকাছি। ছোটবেলা থেকেই হয়তো এর আশেপাশে ঘুরে ফিরে বেড়াতো। এর আগেও তারা গুহাতে গিয়েছে বলে সেখানকার কর্মচারীরা জানিয়েছে। কিন্ত এবার ভেতরে প্রবেশের সাথে সাথেই প্রচন্ড বৃষ্টি শুরু হয় সাথে ফুলে উঠে পানি গুহা মুখ বন্ধ করে ফেলে। এরপর পানির স্তর বারতেই থাকে। ওরাও জীবন বাচাতে ভেতরের দিকে যেতে থাকে। শেষে পথ শেষ হয়ে যায় আর ওরাও আটকে যায় করুনাধারা।

৪| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:০৬

কানিজ রিনা বলেছেন: সুবহানআল্লাহ্ ক্ষদেরা সুস্থ অবস্থায় ফিরে
আসুক মা বাবার কোলে কামনা রইল।
অভিনন্দন লেখককে।

০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:১৯

জুন বলেছেন: ধন্যবাদ আমিও ওই বাবা মায়ের কথাই ভেবেছি সাতদিন ধরে। যেমন এখনো ভাবি সিলেটের সেই রাজিব আর বিশ্বজিতের করুন মৃত্যুর কথা ভাবি তাদের বাবা মায়ের কষ্টের কথা।

৫| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:০৮

জুন বলেছেন: Click This Link

৬| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:১০

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সবাই যেন ভালো থাকে। জীবন অনেক সুন্দর। এটা বার বার আসে না।

০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:১২

জুন বলেছেন: মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন জীবন অনেক সুন্দর। এটা বার বার আসে না এই অনুভুতিটি মনে হয় তারা সারা জীবন বয়ে বেড়াবে।

৭| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:১৯

কাওসার চৌধুরী বলেছেন: বাহ!! হাফ ছেড়ে বাঁচলাম।

০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:১৫

জুন বলেছেন: সত্যি খুব খারাপ লাগছিল বাচ্চাগুলো ও তাদের পরিবারের কথা ভেবে । ধন্যবাদ কাওসার চৌধুরী

৮| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:১৯

তারেক ফাহিম বলেছেন: সৃষ্টিকর্তার রহমত দেখে আবারও সুবহানআল্লাহ।

০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:১৬

জুন বলেছেন: সুবহানআল্লাহ।

৯| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:৪০

চঞ্চল হরিণী বলেছেন: ওদেরককে পাওয়ার খবরটা জেনে ভালো লাগছে। ধন্যবাদ জুন আপু শেয়ার করার জন্য। পৃথিবীর প্রতিটা শিশুর জীবন নিরাপদ হোক।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:১৭

জুন বলেছেন: ক্ষুদে ফুটবলারদের মঙ্গল কামনার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ চঞ্চলা হরিনী । পৃথিবীর প্রতিটা শিশুর জীবন নিরাপদ হোক :)

১০| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:৪৩

রাকু হাসান বলেছেন: সুখবর !!! .............. চার কিমি অনেক!! ....ভালেই ভালই উদ্ধার হোক ।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:১৯

জুন বলেছেন: এখন সবচেয়ে ভয়ংকর পর্ব হচ্ছে কিছু কিছু জায়গায় জমে থাকা গভীর পানির ভেতর দিয়ে স্কুবা ডাইভের মাধ্যমে বের করে আনা রাকু হাসান । আর চার কিমি শুধু দুরত্বই নয় সে পথ ভীষন বন্ধুর ও বটে ।

১১| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:৫২

শামচুল হক বলেছেন: বের করে আনলে বিস্তারিত দিয়ে আবার পোষ্ট দিবেন সেই অপেক্ষায় রইলাম।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৩৬

জুন বলেছেন: শামচুল হক ভয়ংকর সেই গভীর গুহার অন্ধকারে অনিশ্চিত অবস্থায় না খেয়ে থাকা দুর্বল সেই ছেলেগুলোকে সেখানেই চলাফেরা করতে পারে সেই অবস্থায় এনে যত শীঘ্রী সম্ভব বের করে আনার জন্য চেষ্টা চলছে। মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

১২| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:০৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রথমেই, আলহামদুলিল্লাহ!
এত চমৎকার একটা সুখবর দেয়ার জন্য আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ।
খুব ভাল লাগছে। + +

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৪১

জুন বলেছেন: আমিও কাল শুকরিয়া জানিয়েছি খায়রুল আহসান । গত কয়েকদিন ধরে বিশ্বের নামী দামী ফুটবলারদের ফুটবল রেখে তাদের ক্ষুদে ফুটবলারদের নিয়েই সারা থাইল্যান্ড উদবিগ্ন ছিল । মায়ের কোলে ফিরে এসেছে এটাই বিশাল ব্যপার ।

এক মা তাদের বাচ্চারা জীবিত আছে এটুকু জেনেই তারা কেঁদে কেটে, লাফিয়ে উল্লাস করে, সবাইকে জড়িয়ে ধরে তার মনের অবস্থা প্রকাশ করেছে এই ছবিতে।

১৩| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:১৫

আখেনাটেন বলেছেন: আপডেট কি? জুনাপু।

০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:২২

জুন বলেছেন: আপডেট জানতে চেয়েছেন তাই আপনার মন্তব্যটির উত্তর স্কিপ করে আগে দিয়ে নিচ্ছি । আশাকরি অন্যান্য সহ ব্লগাররা কিছু মনে করবেন না।

আখেনাটেন চার কিমি দীর্ঘ গুহা পথটি শুধু দুর্গমই নয় তা অত্যন্ত সরু এবং চোখা বাঁক যুক্ত , সাথে রয়েছে কাদা এবং মাঝে মাঝেই দুই তিন মানুষ সমান পানি । সেখান দিয়ে ৪ কিমি পথ তাদের বের করে আনা আরেকটি ভয়ংকর কাজ। তবে আজ রাতের মধ্যেই তা করা হবে বলে জানিয়েছেন কতৃপক্ষ ।

১৪| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:৩২

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: এই ঘটনার সাথে কয়েক বছর আগের চিলির খনিতে আটকে পড়া শ্রমিকদের ঘটনার মিল আছে। কিন্তু বাচ্চারা যদি বেঁচে থাকে কীভাবে বেঁচেছিল তাও এক বিস্ময় ও পরে জানা যাবে হয়ত...

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৪৫

জুন বলেছেন: আপনি ঠিকই বলেছেন বিচার মানি । আমারো মনে হয়েছিল তাদের কথা । কিন্ত এখানে বাচ্চাগুলোর বয়স ও গভীর গুহায় নিয়মিত না যাওয়াটা একটি বড় পার্থক্য সৃষ্টি করেছে খনি শ্রমিকদের সাথে। প্রবল বৃষ্টি থেকে বাচতে তারা গুহামুখে প্রবেশ করেছিল কিন্ত পানি ফুসে উঠলে তারা ধীরে ধীরে আরো ভেতরে প্রবেশ করতে থাকে ।
যাইহোক ফিরে এসেছে এটাই বিশাল ব্যপার । এখন বাবা মায়ের উদবিগ্ন অপেক্ষা কখন তাদের সোনা মানিকরা তাদের বুকে ফিরে আসে ।
মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ ।

১৫| ০২ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:৪৪

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: বাহাব!! ভীষন ভালো লাগলো আপু খবরটা জেনে। ওরা ভালো থাকুক।

অনেক শু কামনা আপনাকে।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৪৭

জুন বলেছেন: ওরা ভালো থাকুক আপনি ঠিকই বলেছেন তবে এত গভীর আর দুর্গম সেই পথ তাতে ক্লান্ত বিদ্ধস্ত ছেলেগুলোকে বের করে আনাও বেশ কঠিন । তবে দেশের উচ্চ পর্যায় থেকে সবাই এ বিষয়ে তদারকি চলছে ।

১৬| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ২:২৫

মিথী_মারজান বলেছেন: ওহ্!
আলহামদুলিল্লাহ্!
মহান আল্লাহ্ সবাইকে হেফাজত করুক, আমিন।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৪৮

জুন বলেছেন: মহান আল্লাহ্ সবাইকে হেফাজত করুক, আমিন।
ধন্যবাদ মিথী মারজান ফিরে আসুক যত তাড়াতাড়ি তাদের পরিবারের কাছে এটাই কামনা সবার ।

১৭| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ ভোর ৫:১৮

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ধন্যবাদ , শুভ সংবাদটুকু সকলকে জানানোর জন্য ।
এটা আল্লাহ পাকের অশেষ মেহেরবানী ও কুদরতি নিশান ।
অাল্লাহ সকলের মঙ্গল করুন ।

শুভেচ্ছা রইল ।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:০৩

জুন বলেছেন: ডঃ এম এ আলী
The chief organiser of the successful search for 12 boys and their football coach said Tuesday that discussions are under way about the best and "totally safe" way to bring them out of the Tham Luang caves.
নীচের ছবিতে ভালো করে দেখলে বুঝতে পারবেন প্রায় চার কিমি দুর্গম পথ পারি দিতে একটি জায়গায় ৫ মিটার গভীর পানি সাতরে আসতে হবে । যেখানে তাদের স্কুবা ডাইভিং এর গিয়ার প্রয়োজন হবে যাতে তারা অভ্যস্ত নয় । দেখা যাক তবে সকল বাহিনী আপ্রান চেষ্টা করছে তাদের উদ্ধারে ।

১৮| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ ভোর ৬:১৯

সিগন্যাস বলেছেন: বাচ্চাগুলো অনেক ভাগ্যবান।
থাইল্যান্ডের জনগণের কি অবস্থা?

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৪০

জুন বলেছেন: জী সিগন্যাস গ্রামের এই ছেলেগুলো উদ্ধারে দেশি বিদেশী দক্ষ বাহিনী ছাড়াও থাইল্যান্ডের আপামর জনগন যেভাবে তাদের পাশে দাড়িয়েছে তা থেকে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে । এক হাজারের ও বেশি লোক সেই উদ্ধারকাজে প্রত্যক্ষ্যভাবে জড়িত ।
থাইরা গতকাল তাদের ফুটবলারদের উদ্ধার নিয়েই বেশি ব্যাস্ত ছিল বিশ্বকাপ ফুটবল দেখার চেয়ে।
মন্তব্যে অশেষ ধন্যবাদ আপনাকে ।

১৯| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:৫৭

সোহানী বলেছেন: আলহামদুলিল্লাহ। এখন অপেক্ষা ওরা যেন সুস্থ্য ভাবে ফিরে আসে।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:১৩

জুন বলেছেন: সেই অপেক্ষায় জাতি সোহানী । আমাদের দেশে কিশোর রাজীবকে কি অমানুষিক নির্যাতন করলো কল্পিত অপরাধে আজও মনে হলে গা শিউড়ে উঠে। সেখানে সুদুর চিয়াং রাই এর কিছু স্থানীয় ছেলেপুলের গুহায় হারিয়ে যাওয়া নিয়ে সারাদেশ ঝাপিয়ে পরেছে তাদের উদ্ধারে । পথ বড় বন্ধুর সোহানী তারপরও তাদের দৃপ্ত উচ্চারন The chief organiser of the successful search for 12 boys and their football coach said Tuesday that discussions are under way about the best and "totally safe" way to bring them out of the Tham Luang caves.
সংবাদটিতে সহমর্মিতা প্রকাশের জন্য ধন্যবাদ ।

২০| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:১৯

অনন্য দায়িত্বশীল আমি বলেছেন: থাইল্যান্ডে গুহায় হারিয়ে যাওয়া কিশোরদের খোঁজ মিলেছে। এক সপ্তাহেরও বেশি সময় আগে ১২জন কিশোর ফুটবলার এবং তাদের কোচ থাইল্যান্ডের একটি গুহার মধ্যে হারিয়ে যান। গত ২৩ জুন চিয়াং রাই প্রদেশের একটি গুহায় প্রবেশের পর নিখোঁজ হয় ফুটবল টিমের সদস্য ও তাদের কোচ। কিন্তু তাদের সবাইকে জীবিত অবস্থায় নয়দিন পর পাওয়া গেলেও এখন তাদের সবাইকে গুহার ভিতর থেকে বাইরে বের করে আনাটা আরেকটা চ্যালেঞ্জ। কারণ তাদের পানির নিচে দিয়ে আনতে হবে। গুহার প্রবেশ পথে তাদের সাইকেল পাওয়া গিয়েছিলো। এরপর উদ্ধারকারী দল প্রথম খুঁজে পায় তাদের পায়ের জুতা এবং ব্যাগ। ২৪ শে জুন প্রবল বৃষ্টির পানিতে গুহার মধ্যে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। প্রবল বৃষ্টিপাতে উদ্ধারকাজ ব্যাহত হতে থাকে তখন পানি তোলার পাম্প বসানো হয়, রোবট ব্যবহার করা হয়। এরপর তারা পায়ের ছাপ আবিষ্কার করে কিন্তু ছেলেদের কোন চিহ্ন পায়নি। যেহেতু বৃষ্টি অব্যাহত ছিল তাই তারা গুহায় ঢোকার অন্য রাস্তা খুঁজতে লাগলো। উদ্ধারকারীরা রীতিমত সময়ের সাথে যুদ্ধ করেছে যাতে করে ভিতরে পানির উচ্চতা বেড়ে না যায়। কিন্তু গুহায় ঢোকার প্রধান প্রবেশ পথটি বৃষ্টির কারণে একেবারে প্রবেশের অযোগ্য হয়ে পরে। এরপর খোঁজা শুরু হয় একটা চিমনি'র। গুহার উত্তর দিকে একটা প্রাকৃতিক চিমনি আবিষ্কার করা হয়। ২৯ জুন গুহার ভিতরে বন্যার পানি কমতে শুরু করে। উদ্ধার-কর্মীদের এটাই সুযোগ করে দেয় ভিতরে ঢোকার, আশা বাড়তে থাকে। সোমবার রাতে খবর আসে, তাদের সবাইকে জীবিত এবং নিরাপদ অবস্থায় পাওয়া গেছে। এই খবরে, অপেক্ষায় থাকা পরিবারগুলো আনন্দে উল্লাস প্রকাশ করেছে। এখন চলছে তাদের উদ্ধারের চেষ্টা। আর সেজন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় আছেন স্বজনেরা।

সূত্র: বিবিসি

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:১৭

জুন বলেছেন: অনন্য দায়িত্বশীল আমি ,
আপনি অত্যন্ত দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়েছেন মন্তব্যে । সাংসারিক কাজের ফাকে ফাকে ব্লগিং । ভাত চড়িয়ে এসে এক লাইন তো তরকারী নামিয়ে দ্বিতীয় লাইন এভাবেই চালিয়ে যাচ্ছি । যাক আপনার আপডেটে অনেকের অনেক কৌতুহল নিবৃত্ত হলো যা জানাতে আমার কিছুটা সময় লাগতো । আমি অবশ্য ব্যাংকক পোস্ট পত্রিকা আর থাই এক ফেসবুক গ্রুপ এর তাৎক্ষনিক আপডেট ফলো করছিলাম । যে জন্য অন্যান্য জায়গায় পরিবেশিত হওয়ার আগেই আমি জেনেছিলাম তাদের জীবিত পাওয়া গেছে। এখন বের করে আনতে পারাটাই হলো বিরাট ব্যপার ।
অনেক অনেক ধন্যবাদ মন্তব্যে ।

২১| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:২৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: এই আপডেটটুকুর জন্য ধন্যবাদ, অনন্য দায়িত্বশীল আমি (২০ নং মন্তব্য)।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:১৬

জুন বলেছেন: আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ বিষয়টি নিয়ে কনসার্নের জন্য খায়রুল আহসান ।

২২| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:৪০

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ প্রভুকে।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২২

জুন বলেছেন: ধন্যবাদ রাজীব নুর তবে এখনো তাদের উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি সেই গভীর গুহা থেকে ।

২৩| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:০২

সাহসী সন্তান বলেছেন: আপডেটটা মূল পোস্টে জুড়ে দিলে ভাল করবেন। কারণ মূল পোস্টটা বর্তমানে নির্বাচিত পাতায় অবস্থান করছে। আর এই পোস্টের থেকে সেই পোস্টে মানুষের নজর পড়বে সব থেকে বেশি...

আমি ঘটনার আপডেট সম্পর্কে পূর্বেই অবগত আছি, বিধায় ঐ ব্যাপারে আর কিছু বললাম না। শুধু সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ, বাচ্চাগুলোকে এখনো পর্যন্ত সহিসালামতে রাখার জন্য! তবে মাথার মধ্যে বেশ কিছু প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে। হয়তো তাদের বের হওয়ার পর সেই প্রশ্নগুলোর সদুত্তর মিলবে বলে আমার বিশ্বাস!

আর আপনাকে ধন্যবাদ আপডেটটা সবার সামনে উপস্থাপন করার জন্য! শুভ কামনা জানবেন!

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২৮

জুন বলেছেন: মুল পোস্টে জুড়ে দেয়ার পদ্ধতি না জানায় এভাবে আলাদা পোস্ট দিতে হলো ।
বাচ্চাগুলোর অবস্থান সনাক্ত করা গেছে কিন্ত তাদের এখনো সেখান থেকে বের করা সম্ভব হয়নি সাহসী সন্তান ।
সেখান থেকে বেরিয়ে আসার পথ বড় বন্ধুর । কিছু কিছু জায়গায় পানি ১৬ ফিটেরও বেশী উচ্চতায় তার উপর পথটিও অপেক্ষাকৃত সরু যেখান দিয়ে শুধু একজন ব্যক্তি যেতে পারে । সেই পথে সাতার না জানা ছেলেগুলো ডাইভিং গিয়ার পরে সাহায্য ছাড়া একা একা বের হয়ে আসা ভীষন দুরূহ । এখন আল্লাহ ভরসা দেখা যাক এ ব্যপারে পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ দক্ষ লোকগুলো কি করতে পারে। নভেম্বর পর্যন্ত বর্ষা ।
ঘটনাটি নিয়ে কনসার্ন থাকার জন্য অনেক ধন্যবাদ ।

২৪| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:২৩

রানা আমান বলেছেন: আলহামদুলিল্লাহ ! ভীষন ভালো লাগলো খবরটা জেনে।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩০

জুন বলেছেন: আমারও ভালোলেগেছে তাদের অবস্থান খুজে পাওয়ায় কিন্ত বন্ধুর পথ দিয়ে বের করে নিয়ে না আসা পর্যন্ত কেউই স্বস্তিতে নেই রানা আমান । মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ আপনাকে ।

২৫| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:০১

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: খবরটা জেনে খুব ভাল লাগল।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৬

জুন বলেছেন: ক্ষুদে ফুটবলারদের অবস্থান খুজে পাওয়ায় সবার সাথে আমরাও দারুন খুশী মোস্তফা সোহেল । কিন্ত দুর্গম সেই পথ যা জায়গায় জায়গায় ১৬ ফিটের চেয়েও বেশী পানিতে ডুবে আছে। সেখান দিয়ে সাতার না জানা তেরোটি ছেলেকে বের করে নিয়ে আসাটা তার চেয়েও কঠিন । এখন সবাই দিন গুনছে তাদের উদ্ধারের।

২৬| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:০৪

শাহাদাৎ হোসাইন (সত্যের ছায়া) বলেছেন: সু-খবর এবং আশাজাগানিয়া খবর।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৭

জুন বলেছেন: সুখবর তো অবশ্যই এখন তাদের বের করে আনাটাই হলো আসল ব্যপার। আমরা দোয়া করি তারা যেন সহি সালামতে তাদের পিতা-মাতার বুকে ফিরে আসে শাহাদাৎ হোসাইন (সত্যের ছায়া) । মন্তব্যে অশেষ ধন্যবাদ ।

২৭| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৩৬

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: সকালে ফেসবুকে হালকা করে জানলেও এখানে বিস্তারিত জেনে স্বস্তি লাগছে!
হাফ ছেড়ে বাঁচা যাকে বলে!
দীর্ঘক্ষন পানির নীচে দম আটকে থাকর পর জলে ভেসে উঠার আনন্দ :)

অনেক অনেক ধন্যবাদ জুনাপু :)

+++

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪৪

জুন বলেছেন: আমি কাল রাত ৯টা ৩২ মিনিটেই তাদের উদ্ধারের খবর জেনেছি যা থাই চ্যানেলে লাইভ দেখাচ্ছিল । কিন্ত সমস্যা হলো তারা যেখানে আটকা পরে আছে সেখান থেকে বের করে নিয়ে আসা খুবই সংকটজনক । গুহা মুখ থেকে দুর্গম পথে প্রায় চার কিমি দুরত্বে অবস্থানরত বাচ্চাগুলো পাহাড়ের ভুমি থেকে এক কিলোমিটারের চেয়েও গভীরে । ১৭ নং মন্তব্যের উত্তরে একটি ছবি দিয়েছি সেখানে কিছু কিছু জায়গা ১৬ ফুট পানির নীচে । সেখান দিয়ে সাতার না জানা ছেলেগুলোকে বের করে আনা বড়ই দুরহ । আমরা সর্বশক্তিমান আলাহ তায়ালার কাছে দোয়া করি যেন প্রত্যেকেই নিরাপদে তাদের পরিবারের কাছে ফিরে আসে যেন ভৃগু ।

২৮| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৯

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: আপডেটের জন্য ধন্যবাদ বোন। আমি গতকাল রাতেই বাচ্চাদের উদ্ধারের খবর টেলিভিশনে দেখেছি এবং আজ সকালে আপনার আগের পোস্টে মন্তব্য কলামে জানিয়ে দিয়েছি।

০৩ রা জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৫০

জুন বলেছেন: হেনা ভাই আপনাকেও ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য। আমি গত রাত ৯টা ৩২ মিনিটে বাচ্চাগুলোকে খুজে পাওয়ার সংবাদ পেয়েছি কিন্ত এই পোস্টটি লিখতে কিছুটা সময় লেগেছে । তবে তাদের এখনো উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি ।গুহা মুখ থেকে দুর্গম পথে প্রায় চার কিমি দুরত্বে পাহাড়ের ভুমি থেকে এক কিলোমিটারের চেয়েও গভীরে বাচ্চাগুলো অবস্থান করছে। ১৭ নং মন্তব্যের উত্তরে একটি ছবি দিয়েছি সেখানে কিছু কিছু জায়গা অত্যন্ত সরু এবং পানিতে প্লাবিত, একটি জায়গা প্রায় ১৬ ফুট এর চেয়েও বেশী পানির নীচে । সেখান দিয়ে সাতার না জানা ছেলেগুলোকে বের করে আনা বড়ই দুরহ । আমরা সর্বশক্তিমান আলাহ তায়ালার কাছে দোয়া করি যেন প্রত্যেকেই নিরাপদে তাদের পরিবারের কাছে ফিরে আসে যেন ।

২৯| ০৩ রা জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:০১

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: আল্লাহ এদেরকে নিরাপদে ফিরিয়ে আনার তৌফিক দিন।

এসব ঘটনা পড়লে আমার দম বন্ধ হবার উপক্রম হয়। আমার জীবনেও এরকম একটা ঘটনা ঘটেছিল।

০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৬

জুন বলেছেন: ছাই ভাই আজ সর্বশেষ আপডেট দিয়েছি দেখেন তারা কি ভয়ংকর পরিস্থিতিতে আছে । এই ক্ষুদে ফুটবলারদের খুজে পেয়ে সারা থাইল্যান্ড আনন্দের জোয়ার বয়ে গিয়েছিল যার ফলে তারা বিশ্বকাপের খেলা পর্যন্ত দেখার অবস্থায় ছিল না। এখন তাদের বাইরে নিয়ে আসাটা কতটা কঠিন তা ভেবেই উদ্ধারকারী সহ সারা দেশবাসী ব্যকুল ।
পোষ্টটি দেখার জন্য অনেক ধন্যবাদ দেশি ভাই ।
আপনার জীবনের ঘটনাটিও আমাদের অবশ্যই জানাবেন একদিন সময় করে।

৩০| ০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ রাত ১২:৫৩

প্রামানিক বলেছেন: আল্লাহ সকলের দোয়া কবুল করেছেন। উদ্ধার হওয়ার পর আপনি বিস্তারিত বিবরন দিয়ে আবার পোষ্ট দিবেন এই আশায় রইলাম।

০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:০৯

জুন বলেছেন: প্রামানিক ভাই আল্লাহ সকলের দোয়া কবুল করেছেন। কিন্ত আসল কাজটাই বাকি । তাদের উদ্ধার করা যে কতখানি কঠিন তার আপডেট এখানে সংযোজিত করেছি । দেখতে পারেন সময় থাকলে।

৩১| ০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:১৮

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আল্লাহ সকল শিশুকে নিরাপদে মায়ের কোলে পৌঁছাক ।
এই উদ্ধারকর্ম থেকে আমাদের অনেক কিছু শিখবার আছে।

০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:০৮

জুন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ গিয়াস লিটন মন্তব্যের জন্য

৩২| ০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:০৮

মনিরা সুলতানা বলেছেন: কয়েকদিন থেকে বিশ্ব মিডিয়া তোলপাড় এই নিউজে;
আলহামদুলিল্লাহ এদের অবস্থান জানা গেছে ,ইনশাআল্লাহ আশা করছি ভালোভাবেই মায়ের কোলে ফিরে আসবে।

০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:১৩

জুন বলেছেন: মনিরা আমিতো প্রথম থেকেই ঘটনাটি অনুসরন করছিলাম । তারপর আমাদের দু একট পেপারে পত্রিকায় হাল্কা আলোকপাত করেছে। তখন ভাবলাম ব্লগে লিখি । ভাবতে ভাবতে সময় পার হলো। তাছাড়া আমিও ভাবিনি এত দীর্ঘ সময় লাগবে। থাই নেভি সীল প্রধান যখন ঘোষণা দিলেন এর শেষ না দেখে পিছু হটবে না তখন আমিও লিখতে বসলাম । ফিরে আসাটাই এখন বিশাল সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে । তারপর ও আল্লাহ ভরসা।



৩৩| ০৪ ঠা জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:০১

সামিয়া বলেছেন: দুর্দান্ত প্রতিবেদন আপু।।
আলহামদুলিল্লাহ যে ওদের পাওয়া গেছে, বাকী সব কাজ ভালোয় ভালোয় হোক, সুস্থভাবে ফিরে আসুক বাচ্চাগুলা।।

০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৫২

জুন বলেছেন: অশেষ ধন্যবাদ সামিয়া মন্তব্যের জন্য ।
সুস্থভাবে ফিরে আসুক বাচ্চাগুলা।। এটাই এখন সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষের কাছে বিশাল প্রতবন্ধকতা হয়ে প্লাবিত গুহা থেকে বাচ্চাদের বের করে আনা

৩৪| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:১১

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: বিষয়টা নিয়ে খুবই টেনশনে আছি

০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৫৫

জুন বলেছেন: যারা যারা অবগত তারা সবাই টেনশনে আছে সাদা মনের মানুষ । থাইল্যান্ড বাসীতো বটেই অলিম্পিক কমিটির প্রধান ফিফা প্রধান পর্যন্ত চিন্তিত এই ক্ষুদে ফুটবলারদের নিয়ে ।

৩৫| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:০০

নীলপরি বলেছেন: পড়তে দেরী হোলো । তবে আপডেট জেনে ভালো লাগলো ।

০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২১

জুন বলেছেন: ধন্যবাদ নীলপরী তবে বেরিয়ে না আসা পর্যন্ত কি হবে জানি না । তবে আমরা আশাবাদী ।

৩৬| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:৩০

চোরাবালি- বলেছেন: আল্পবয়সী বলেই তারা এখনও বেচে আছে। বয়ষ্করা হলে ভয়েই মরে যেত।

০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:০১

জুন বলেছেন: ঠিক বলেছেন আপনি চোরাবালি-
ধন্যবাদ আপনাকে

৩৭| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:৪০

এম ডব্লিউ এস বলেছেন: মায়ের কোলেতে ফিরে যাক শিশুগুলো

০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:০২

জুন বলেছেন: মায়ের কোলেতে ফিরে যাক শিশুগুলো
আমিও তাই চাই

৩৮| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:৫৯

হাসান রাজু বলেছেন: মায়ের আদর পাওয়ার আরও বাকি আছে বাচ্চাগুলোর । আল্লাহ তাদের সেই পাওনা আদায়ের সব ব্যাবস্থা করে দিবেন ইনশাল্লাহ । সবাই ফিরবে মায়ের কোলে । দোয়া করি।

০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:১১

জুন বলেছেন: হাসান রাজু সবাই ফিরবে মায়ের কোলে আমাদেরও এই প্রত্যশা ।

৩৯| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:০০

পান-সুপারি বলেছেন: খবরটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ জুন ম্যাডাম। তবে সামুতে স্টিকি করার মত না সময় এইটা না যখন কিনা দেশে কোটা আন্দোলনে নিরীহ সাধারণ ছাত্ররা সরকার দলীয় গুন্ডাদের রামধোলাম খাইতেছে। এর আগের গণআন্দোলনটা সামুর ব্লগাররাই করছিল।

০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৩

জুন বলেছেন: পান-সুপারি বলেছেন: খবরটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ জুন ম্যাডাম।তবে সামুতে স্টিকি করার মত না সময় এইটা না যখন কিনা দেশে কোটা আন্দোলনে নিরীহ সাধারণ ছাত্ররা সরকার দলীয় গুন্ডাদের রামধোলাম খাইতেছে। এর আগের গণআন্দোলনটা সামুর ব্লগাররাই করছিল।
ভাই পান সুপারি আমি নিজেও জানতাম না আমার এই পোষ্ট স্টিকি হয়েছে । কারন এটা করে সামু কর্তপক্ষ এতে আমার কোন হাত নেই ভাই ।
এছাড়া এটা একান্তই নিজের আবেগ এর স্থান থেকে লেখা। একজন মানুষ হিসেবে বাচ্চাগুলোর করুন অবস্থা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের মনের অবস্থা চিন্তা করেই লিখেছি ।
আপনার মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ

৪০| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:০৫

সম্রাট ইজ বেস্ট বলেছেন: আল্লাহ সবাইকে সহি-সালামতে নিজ নিজ পরিবারের কাছে পৌঁছে দিন! আমীন!

০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৮

জুন বলেছেন: সবারই একই প্রার্থনা সম্রাট ইজ বেস্ট। মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ

৪১| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:০৭

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: আপডেটের জন্য ধন্যবাদ জুনাপু ! +++
জীবন বেড়ে উঠুক সহজ পথে।

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৩০

জুন বলেছেন: আপনাদেরও ধন্যবাদ স্পর্শকাতর সংবাদটির সাথে থাকার জন্য স্বপ্নবাজ সৌরভ

৪২| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:০৯

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: জেনে ভালো লাগছে। ফিরে আসুক। শুভকামনা।

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:১৩

জুন বলেছেন: বিশ্ব জুড়ে সবার একই কামনা ফিরে আসুক তারা গভীর গুহার অন্ধকার থেকে আলোর পৃথিবীতে জুনায়েদ বি রাহমান । ধন্যবাদ ।

৪৩| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:৩৯

জোকস বলেছেন: পোস্টটি স্টিকি করায় আমার নজরে এসেছে, এ জন্য মডুদের ধন্যবাদ জানায়।
পোস্টটি পড়ার পর সম্পূর্ণ বুঝতে না পারায় আপনার প্রোফাইলে যেয়ে দেখি এর আগেও পোস্ট দিয়েছিলেন।

আপডেট দেওয়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ।
নিরাপদে ফিরে আসুক সবাই।

আগের পোস্টটির লিঙ্ক দিলে ভালো হতো আমার মতে।

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৩৮

জুন বলেছেন: পোষ্ট স্টিকি করার জন্য সামু কর্তপক্ষকে ধন্যবাদ জোকস ।
তবে আমি নিজের মনের তাগিদ থেকেই পোষ্টটা লিখেছি অনেকের সাথে সমগ্র বিশ্বে আলোড়ন তোলা খবরটি শেয়ার করার জন্য ।
আপনার পরামর্শ মেনে আগের লেখাটির লিংক দিয়েছি ।
দোয়া করুন তারা যেন ভালোয় ভালোয় বের হয়ে আসতে পারে সেই দুর্গম গুহার ভেতর থেকে ।

৪৪| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:২৪

শামচুল হক বলেছেন: জুন আপা, এটা তো খুবই কঠিন কাজ মনে হচ্চে

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪০

জুন বলেছেন: এটা তো খুবই কঠিন কাজ মনে হচ্চে
আপনি যথার্থই বলেছে শামচুল হক । উপরের সর্বশেষ আপডেট দেখলে বুঝতে পারবেন কি দুরহ কাজ তাদের বের করে আনা ।
সাথে থাকা ও মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ অনেক ।

৪৫| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:২৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: পোস্টটা স্টিকি করাতে খুশী হয়েছি, এজন্য কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ। এখন আপডেট জানা অনেক সহজ হবে। আর কষ্ট করে আমাদেরকে আপডেটেড রাখার জন্য আপনাকেও আন্তরিক ধন্যবাদ।
বাচ্চারা মায়ের কোলে ফিরে আসুক, অভিযান সফল হোক।
ওরা কয়েকটি ফুলকে বাঁচাতে যুদ্ধ করছে, এক সময় আমরাও গর্বভরে করতাম এবং তা গান গেয়ে বলতাম। এখন আমরা চোখের সামনে কত ফুলকে ঝরে যেতে দেখি, কিন্তু আমাদের অনুভূতি ভোঁতা হয়ে গেছে!

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪৪

জুন বলেছেন: বাচ্চারা মায়ের কোলে ফিরে আসুক, অভিযান সফল হোক।
খায়রুল আহসান একজন সশস্ত্র বাহিনীর সদস্য হিসেবে আপনি পরিস্থিতি বিশ্লেষন করে অবশ্যই বুঝতে পারছেন কাজটি কতখানি দুরহ । উপরে আপডেটগুলো পড়লে বুঝতে পারবেন কত হিসাব নিকাশ করতে হচ্ছে তাদের নিরাপদে বের করে নিয়ে আসার জন্য ।
সাথে থেকে মন্তব্যের মাধ্যমে বিষয়টির সর্বশেষ আপডেট জানতে আগ্রহ প্রকাশ করার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ ।

৪৬| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৩৮

ঠ্যঠা মফিজ বলেছেন: আল্লাহু তাদের সুস্থ ভাবে ফিরিয়ে আনুক।

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪৫

জুন বলেছেন: ধন্যবাদ ঠ্যঠা মফিজ ।

৪৭| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৫৫

রাকু হাসান বলেছেন: সবচেয়ে খুশি হয়েছি যে ছেলেগুলো বেঁচে আছে । আর এমন একটা নিউজের অপেক্ষায় ছিলাম । আামার পক্ষ থেকে অকৃত্রিম দোয়া থাকবে তাদের জন্য ,ফিরে আসো তোমরা ,বিশ্বের ভালবাসা তোমাদের সাথে আছে,স্রষ্টার আর্শীবাদ আসুক তোমাদের উপর ।

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪৬

জুন বলেছেন: আামার পক্ষ থেকে অকৃত্রিম দোয়া থাকবে তাদের জন্য ,ফিরে আসো তোমরা ,বিশ্বের ভালবাসা তোমাদের সাথে আছে,স্রষ্টার আর্শীবাদ আসুক তোমাদের উপর ।
আপনার সাথে সাথে আমাদেরও একই দোয়া করছি রাকু হাসান । মন্তব্যে অনেক ধন্যবাদ ।

৪৮| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:২৯

লাবণ্য ২ বলেছেন: আলহামদুলিল্লাহ! বাচ্চাগুলো সুস্থ ভাবে ফিরে আসুক।

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪৭

জুন বলেছেন: একই কথা আমরা সহ সবারই লাবন্য ২ । মন্তব্যে অনেক ধন্যবাদ ।

৪৯| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৩৮

নতুন নকিব বলেছেন:



আল্লাহ পাকের নিকট বিনীত প্রার্থনা, সুন্দরভাবে এবং সুস্থাবস্থায় বাচ্চাগুলোকে মায়ের কোলে প্রত্যাবর্তনের ব্যবস্থা করুন তিনি। পোস্ট দিয়ে বিষয়টি জ্ঞাত করানোয় ধন্যবাদ।

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪৮

জুন বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ ক্ষুদে ফুটবলারদের নিরাপদ প্রত্যাবর্তনের জন্য দোয়া করছেন বলে। ধন্যবাদ ।

৫০| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৫২

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমি সিএনএন'এ অনুসরণ করছি; পাম্পিং'এর ফলে, "পুরো ডুবন্ত এলাকার" অনেক এলাকার পানি খালি করা সম্ভব হবে; তখন "পুরো পানির এলাকা (যেখানে গুহার ছাদ অবধি পানি)" ছোট হয়ে আসবে।

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৫১

জুন বলেছেন: আমি সি এনএন , ব্যংকক পোস্ট, থাই নেভী সীল ফেসবুক পেইজ ছাড়াও আরো অনেক তথ্যসুত্রই অনুসরন করছি চাঁদগাজী ।
যেই প্রবল বর্ষন হচ্ছে যে পানি সেচেও তেমন লাভ হচ্ছে না। বিভিন্ন ফাটল দিয়ে আবার পানি ভরে উঠছে ।
মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ আপনাকে ।

৫১| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩৫

করুণাধারা বলেছেন: দোয়া করি, বাচ্চাগুলো নিরাপদে ফিরে আসুক পরিবারের কাছে।

ক'দিন ধরে আপনি নিয়মিত আপডেট দিয়ে যাচ্ছেন, আমরাও জানতে পারছি তাই। অনেক ধন্যবাদ, জুন।

উদ্ধারকাজ দেখতে দেখতে আমার শুধু মনে পড়ে যাচ্ছে আমাদের দেশের কতগুলো বাচ্চার কথা, এদের বয়স ছিল পাঁচের আশেপাশে। এদের কেউ নালায় পড়েছিল, কেউ কূয়ায়, কেউ ড্রেনে। আমি এদের কারো নাম মনে করতে পারছি না, শুধু একটা ছেলের কথা মনে আছে- হলুদ গেঞ্জি গায়ে বড় বড় চোখ মেলে ছেলেটি উদ্ধারের আশায় তাকিয়ে থাকত। তারপর ছেলেটির মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছিল... কষ্ট হয় ছেলেটার কথা মনে পড়লে।

অভিনন্দন জানাই থাই উদ্ধারকারী দলকে। তাদের চেষ্টা সফল হোক, তাড়াতাড়ি।

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:০৩

জুন বলেছেন: আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ করুনাধারা সব সময় সাথে থাকার জন্য । আমাদের রানা প্লাজা আমাদের শিশু জিহাদ সবার কথাই মনে পরে

৫২| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৫৪

তারেক ফাহিম বলেছেন: পোষ্টটি স্টিকি করাতে ভালো লাগছে।

০৭ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪৯

জুন বলেছেন: পোষ্টটি স্টিকি করাতে ভালো লাগছে।
তারেক ফাহিম তার চেয়েও ভালোলাগছে আপনার এই ঘটনায় সহমর্মিতা প্রকাশ করছেন বলে ।
অনেক ধন্যবাদ ।

৫৩| ০৫ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:২৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: জুন ,



পোস্টটি ষ্টিকি হয়েছে বলে ভালো হয়েছে । পাঠকরা ঐ অসম সাহসী উদ্ধার পর্বের আপডেট জানছেন ।
আর আপনি "চিয়াংরাই" নিয়ে আগে পোস্টও দিয়েছেন । সেখানকার ঐ গুহাটিতেও গিয়েছেন , তাই আপনার পক্ষে উদ্ধার পর্বের অনেক দিক বোঝা সহজ বলেই আপডেটটিতে আপনার মতামতও ( প্রতিমন্তব্য সহ ) জানতে পারছেন পাঠক ।

সহব্লগার করুণাধারার মন্তব্য পড়ে আরেক সহব্লগার খায়রুল আহসান এর মন্তব্য - "ওরা কয়েকটি ফুলকে বাঁচাতে যুদ্ধ করছে, এক সময় আমরাও গর্বভরে করতাম এবং তা গান গেয়ে বলতাম। এখন আমরা চোখের সামনে কত ফুলকে ঝরে যেতে দেখি, কিন্তু আমাদের অনুভূতি ভোঁতা হয়ে গেছে! " যথার্থই মনে হয়েছে ।

আমরাও জেগে আছি আপনার সাথে সাথেই ..............


০৭ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৫৫

জুন বলেছেন: আর আপনি "চিয়াংরাই" নিয়ে আগে পোস্টও দিয়েছেন । সেখানকার ঐ গুহাটিতেও গিয়েছেন ,
আহমেদ জী এস আপনি সব সময় খুব আন্তরিকতার সাথে পোষ্টগুলো পড়ে থাকেন তাই অনেক আগের কথাগুলো দিব্যি মনে করতে পারেন। তবে আমি চিয়াং রাই বর্ডারের মেসাইতে এই পাহাড় শ্রেনীতেই অন্য একটি গুহায় প্রবেশ করেছিলাম।
এখনো তাদের উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি যা আমি সর্বশেষ আপডেটে উল্লেখ করেছি ।
সাথে জেগে আছেন জেনে অনেক অনেক ভালোলাগলো ।
তার জন্য অসীম ধন্যবাদ ।

৫৪| ০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১:০৪

:):):)(:(:(:হাসু মামা বলেছেন: ছেলে গুলোর জন্য খুব কষ্ট লাগছে। আমার একটা ছোট প্রশ্ন এই ক্ষুদে ফুট রাজেরা
ওই ভয়ংকর জায়গায় কেমনে এবং কি কারনে গেছিল ?
জানলে জানাবেন আপু প্লীজ। আর না জানলে প্রয়োজন নাই।

০৮ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:৩৬

জুন বলেছেন: খুজে পাওয়ার আটদিন পরেও উদ্ধার করা যায়নি ক্ষুদে ফুটবলারদের হাসু মামা :(
থাই বার্মা বর্ডার গেট এর দিকে চলে যাওয়া জাতীয় সড়কের বাদিকে মায়ানমার সীমান্ত ঘেষে এই পাহাড়শ্রেনী সারিবদ্ধভাবে চলে গেছে। তারা সেখানকার স্থানীয় অধিবাসী। ঐ গুহায় তারা আগেও গিয়েছে কিন্ত এত গভীরে প্রবেশ করেনি । ২৩শে জুন প্রাকটিস শেষে সাথে আনা খাবার নিয়ে ঢুকেছিল গুহা মুখে সেখানে বসেই খাবে বলে। হঠাৎ প্রবল বৃষ্টি ও তা থেকে হঠাৎ প্লাবনে গুহামুখ ডুবে যায় ফলে তারা আর বের হতে পারে নি । পানি বেড়ে যাবার সাথে সাথে তারাও ভেতরের দিকে এগিয়ে যায় আর আটকে পরে।
আট নং ছবিতে গুহার ম্যাপ দেখলে বুঝবেন কিছু কিছু জায়গায় পানি কত গভীর । এমনকি এক জায়গায় ১৬ ফুটের ও বেশি এবং কাদাময়, জিরো ভিজিবিলিটি সাথে প্রচন্ড স্রোত। সে পথে সাতার না জানা ছেলেগুলোর বের হয়ে আসা খুবই বিপদজনক ।
মন্তব্যের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ

৫৫| ০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১:১৪

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: ভয়াবহ অবস্থা। সবাই বেচে থাকুক । নিরাপদে গন্তব্যে ফিরে আসুক ।

০৮ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:২৪

জুন বলেছেন: সেলিম আনোয়ার বর্তমানে তাদের ডুব সাতারের মাধ্যমে সেখান থেকে বের করে আনার প্রচেষ্টা চলছে । দোয়া করুন যাতে তারা নিরাপদে উদ্ধার হতে পারে।

৫৬| ০৬ ই জুলাই, ২০১৮ ভোর ৬:০৪

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
মানুষ মানুষের জন্য।
মানুষ মানুষের জন্য ব্যথিত হয়।
মানুষ মানুষকে বাচাতে সর্বশক্তি ব্যয় করে। রাষ্ট্রের সমস্ত অর্থের বিনিময়ে হলেও।

আবার কিছু মানুষ বেশি সংখ্যক মানুষ হত্যা করতে পেটে বোমা বেধে মসজিদে বা বাজারে আত্নঘাতী হয়।
মানুষের গলা কাটতে/দেহদান করতে 'আলহামদুলিল্লাহ' বলে পরিবার সহ সিরিয়া গমন করে।

০৮ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৪৫

জুন বলেছেন: মানুষ মানুষের জন্য।
মানুষ মানুষের জন্য ব্যথিত হয়।
মানুষ মানুষকে বাচাতে সর্বশক্তি ব্যয় করে। রাষ্ট্রের সমস্ত অর্থের বিনিময়ে হলেও।


আপনিও তাদের পাশে দাড়ানোর জন্য অনেক ধন্যবাদ হাসান কাল বৈশাখী ।

৫৭| ০৬ ই জুলাই, ২০১৮ ভোর ৬:৪৪

নাবিল বিন মুমিন বলেছেন: vai tora et strong keno ..tory neymarer video dekh Here

০৮ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৪৯

জুন বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য নাবিল বিন মুমিন

৫৮| ০৬ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৪

বৃষ্টি বিন্দু বলেছেন: দ্রুত ছেলেরা পরিবারের কাছে ফিরে যাক সেই দোয়া করছি, আমিন...

০৮ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৫০

জুন বলেছেন: বৃষ্টি বিন্দু ,
উদ্ধারকর্মীরা আশাবাদী যে আজকের মধ্যেই তারা সবাইকে বের করে আনতে পারবে গুহা থেকে। মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

৫৯| ০৬ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:২৫

সিগন্যাস বলেছেন: বাচ্চাগুলো গুহায় গিয়েছিল কেন?এডভেঞ্চারের নেশায়?

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪৪

জুন বলেছেন: সিগন্যাস ছেলেগুলো ঐ এলাকাতেই বসবাস করে । কোচিং শেষে তারা কিছু চিপস নিয়ে গুহা মুখের কাছে বসেছিল পিকনিকের মতই । এমন সময় প্রচন্ড বর্ষনে গুহামুখ প্লাবিত হয়ে পরে। পানি উপরের দিকে উঠতে থাকলে তারাও ভেতরের দিকে শুকনো জায়গার খোজে এগিয়ে যেতে যেতে সেই ৪কিমি পথ পেরিয়ে যায়। কিন্ত গভীর পানিতে অনেক পথ প্লাবিত হয়ে গেলে তারা আটকে পরে । এটাই ছিল মুল ঘটনা । আর গুহার ভেতর থাকা যেসব পরী নারী যাদুকরীর কাহিনী বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় পড়ছেন তা সবই ভুয়া ।
মন্তব্যে ধন্যবাদ আপনাকে ।

৬০| ০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:৫৭

নতুন বলেছেন: আশা করি বাচ্চাগুলি ভালো মতন ফিরে আসবে।

আমাদের দেশের রানা প্লাজাতেও মানুষ ঝাপিয়ে পড়েছিলো মানুষকে বাচাতে...

মানবতা সব সময়ই জয়ী হয়... এই বাচ্চাদের উদ্ধার অভিজান উদাহরন হয়ে থাকবে।

কিন্তু এখন দেশে সাধারন ছাত্রদের উপরে আক্রমন করছে ছাত্রলীগ.... যেখানে দেশের যারা আয়ামীলীগের সাথে যুক্ত তাদের বেশিরভাগই কিন্তু সমথ`ন করছে... হয়তো প্রধানমন্ত্রীও খুশি এই আক্রমনে।

মানবতার জয় হউক....

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৫৩

জুন বলেছেন: নতুন আপনার আমার সবার দোয়ায় এই পর্যন্ত কিশোর ফুটবল দলের আটজন সদস্যকে বের করে আনা হয়েছে থাইল্যান্ডের সবচেয়ে দীর্ঘ এবং দুরহ গুহা থাম লুয়াং থেকে । এখন বাকি ৫ জনও বের হয়ে আসুক সেই প্রত্যাশা সবার।
ধন্যবাদ ভালো থাকবেন ।

৬১| ০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:২৬

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
উদ্ধার তৎপরতা চালাতে গিয়ে এক উদ্ধারকর্মী নিহত।
তিনি থাইল্যান্ডের নৌবাহিনীর ডুবুরি ছিলেন। নিহত উদ্ধারকর্মীর নাম সামান গুনান। তার দায়িত্ব ছিল আটকে পড়া ফুটবলারদের কাছে অক্সিজেন পৌছে দেয়া। এদিন তিনি কিশোর ফুটবলারদের অক্সিজেন দিয়ে ফিরে আসার পথে অচেতন হয়ে পড়েন। অন্য উদ্ধারকর্মীরা তাকে বের করে আনলেও ততক্ষণে মৃত্যুবরণ করেন তিনি।
উদ্ধার তৎপরতায় নিয়োজিত এক কর্মকর্তা বলেন, তার কাজ ছিল গুহার মধ্যে অক্সিজেন সরবরাহ করা। কিন্তু ফিরে আসার সময় তার নিজের সিলিন্ডারেই পর্যাপ্ত অক্সিজেন ছিল না। এ অবস্থায় অচেতন হয়ে মৃত্যুবরণ করেন তিনি।
সামান গুনাম নৌবাহিনী থেকে অবসর নিয়েছেন অনেক আগেই। কিন্তু তিনি স্বেচ্ছায় গুহায় আটকে পড়া ফুটবলারদের উদ্ধার তৎপরতায় যোগ দিয়েছিলেন ।
সুত্র - বিবিসি

০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:৩৯

জুন বলেছেন: হাসান কালবৈশাখী আপনাকে অনেক ধন্যবাদ আরেকবার এসে আমার পোষ্টটি দেখার জন্য । আমি আপনার তথ্যটি আজ সকাল সাড়ে এগারোটাতেই আপডেট দিয়ে দিয়েছি । শুভেচ্ছা রাত্রির ।

৬২| ০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:৪৯

জাহিদ হাসান বলেছেন: এই ঘটনা আমাদের বাংলাদেশে ঘটলে শিশু জিহাদের মত শুধু লাশই বের করে আনা সম্ভব হতো,
কাউকে জীবিত বের করা সম্ভব হতো না।

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:৪১

জুন বলেছেন: তাদের দেশেও হয়তো সম্ভব হতোনা যদি না দেশ বিদেশের বিভিন্ন বাহিনী এতে স্বেচ্ছায় যোগ না দিত ।
তবে দুর্যোগ মোকাবেলায় আমরা খানিকটা পিছিয়ে থাকলেও সচেতনতা বৃদ্ধির ফলে ও সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপে পাহাড় ধ্বাস ও সাইক্লোনে মৃত্যুর হার কমিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ।

৬৩| ০৬ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:০০

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: ভালো লাগলো খবরটা জেনে।
..................................................................................................................................................................

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:৪৯

জুন বলেছেন: তাদের খুজে পাওয়ায় সমগ্র বিশ্ব যতটা উল্লসিত হয়েছিল তাদের উদ্ধারে ততটাই জটিল হওয়ার কারনে উদবিগ্ন সবাই। তারপর ও গতকাল সন্ধ্যা নাগাদ চারজনকে উদ্ধার করে আনায় সবার মাঝেই কিছুটা আশার সঞ্চার হয়েছে ।
মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

৬৪| ০৭ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৮:৪৫

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: ওরা হুহায় আটকা পড়ে নাই, গুহায় আটকা পড়েছি আমরা বিশ্বের সবাই........কবে যে বাচ্চাগুলো উদ্ধার হবে আল্লাহই জানেন।

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:৫৪

জুন বলেছেন: সাদা মনের মানুষ আপনি যথার্থই বলেছে আটকা পরেছি আমরা । গুহার ভেতর আটকে পড়াদের কিশোর ফুটবলারদের নয়দিন পরে খুজে পাওয়া তাদের সফল উদ্ধারের জন্য পরিচালিত এই রুদ্ধশ্বাস এই অভিযান এটাই প্রমান করে যে পৃথিবী থেকে মানবতা এখনো ধুয়ে মুছে যায়নি। মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ ।

৬৫| ০৭ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:০৫

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
মহান আল্লাহ্ সবাইকে হেফাজত করুক,
সবাই নিরাপদ তাদের পিতা-মাতার কোলে
ফিরে আসুক। আমিন

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২৩

জুন বলেছেন: সবাই নিরাপদ তাদের পিতা-মাতার কোলে
ফিরে আসুক।

বিশ্বব্যাপী সবাই একই কথাই বলছে আপনার মতই । অনেক ধন্যবাদ মন্তব্যে ।

৬৬| ০৭ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:৩২

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:



খুবই হৃদয়বিদারক ঘটনা। ওরা যে বৈরি আবহাওয়ার মধ্যে এতোদিন নিখোঁজ হয়ে বেচেছিলো তাই তো বড় বিস্ময়। ওদের এই যুদ্ধ করে বেচে থাকাটা সার্থক হবে গুহা থেকে সুস্থভাবে বেরিয়ে আসলে। ওরা ফিরে আসুক, ওদের মায়ের কোল ভরে আবারো। ওরা ফিরে আসুক বিজয়ীর বেশে, মৃত্যুকে জয় করে।

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩০

জুন বলেছেন: যাক তারপর ও তাদের তেরো জনের মাঝে আটজন ঐ কঠিন দুর্গম পথ পেরিয়ে ধীরে ধীরে বের হয়ে আসছে এটাই বিরাট ব্যাপার কথাকেথিকথন । বাকি ৫ জনও নিরাপদে ফিরে আসুক, আসুক সেখানে কররমরত সকল উদ্ধারকর্মীরা সেটাই হোক আমাদের সবার প্রার্থনা । ভালো থাকুন সবসময় ।

৬৭| ০৭ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:২২

দীপঙ্কর বেরা বলেছেন: সবাই নিরাপদে ফিরুক এই আশা করি।

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩২

জুন বলেছেন: দীপঙ্কর বেরা বলেছেন: সবাই নিরাপদে ফিরুক এই আশা করি।
পৃথবী ব্যাপী কোটি কোটি মানুষের একই প্রত্যাশা দীপংকর বেরা ।
ভালো থাকুন । মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

৬৮| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:৩১

কামরুননাহার কলি বলেছেন: দোয়া করি সবাই যেনো নিরাপত্তায় ফিরে আসে।

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩৫

জুন বলেছেন: কামরুননাহার কলি আমাদের সকলের দোয়ায় তেরোজনের মাঝে আটজনই বেরিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছে সেই ভীতিকর দুর্গম গুহা থেকে । ধন্যবাদ মন্তব্যে ।

৬৯| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:১১

মোস্তফা কামাল পলাশ বলেছেন:
জুন আপু, আজ সকাল ১০ টায় উদ্ধার কাজ শুরু হয়েছে। সব কিছু পরিকল্পনা মতো এগোলে আগামী ২/৩ দিনের মধ্যে সকলকে উদ্ধার করা সম্ভব হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

Divers Begin Rescue Operation to Free 12 Boys and Their Soccer Coach Trapped in a Thai Cave

০৮ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৩২

জুন বলেছেন: মোস্তফা কামাল পলাশ অনেক অনেক ধন্যবাদ আপডেটটি জানানোর জন্য । আমিও ব্যংকক পোষ্ট থেকে এইমাত্র পাওয়া তথ্যটির আপডেটটি সংযুক্ত করছিলাম পোষ্টে । দেখতে পারেন । তারা আজ ভোরেই গুহায় প্রবেশ করেছে তাদের উদ্ধারের জন্য ।
দোয়া করি তাদের নিরাপদ প্রত্যাবর্তন হোক ।

৭০| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:১২

নতুন নকিব বলেছেন:



নিয়মিত আপডেট দিয়ে যাওয়ায় ভাল লাগছে। আমরা কিন্তু প্রতি দিন আপডেটে নজর রাখি। সময় সংকীর্নতা, সাংসারিক ব্যতি-ব্যস্ততা (যেমনটি জানতে পেরেছি এই পোস্টের প্রতিমন্তব্যে) ইত্যাদি কারনে জানি, আপনার কষ্ট হচ্ছে। তবু আশা রাখতে চাই, ছেলেগুলো মায়ের কোলে অব্দি এটি অব্যহত রাখবেন।

আবারো মোবারকবাদ জানাচ্ছি, শত ব্যস্ততার ভেতরেও অভূতপূর্ব এমন একটি মানবিক বিপর্যয়ের ঘটনাকে আদ্যোপান্ত সবার সামনে তুলে ধরায় এবং প্রতি দিন, প্রতিনিয়ত আপডেটগুলো জানিয়ে সকলের কৌতুহল নিবৃত্ত করায়।

অনেক ভাল থাকার প্রার্থনা।

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪৭

জুন বলেছেন: আমার আপডেট আপনারা নিয়মত দেখছেন জেনে ধন্যবাদ । আমাদের সবার একটাই কামনা ছেলেগুলো সুস্থ ও নিরাপদে তাদের পরিবারের কাছে ফিরে যাক । আসলেও অনেক সাংসারিক অনেক ব্যতিব্যস্ততার মাঝেও চেষ্টা করছি সার্বক্ষনিক আপডেট জানাতে । মন্তব্যে ধন্যবাদ

৭১| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৩৬

রানার ব্লগ বলেছেন: ফি আমানিল্লাহ !!! আল্লাহ তাদের সহায় হন।

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪৯

জুন বলেছেন: জী সারা দুনিয়াব্যাপী এত মানুষের দোয়া কি বৃথা যাবে রানার ব্লগ !
যাইহোক এই পর্যন্ত ৮ জন বেরিয়ে এসেছে ঐ ভয়ংকর গুহার অন্ধকার থেকে এখন বাকি ৫ জন সহি সালামতে বেরিয়ে আসুক এটাই আমাদের একান্ত কামনা ।

৭২| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৪০

তাজেরুল ইসলাম স্বাধীন বলেছেন: শুভ কামনা রইল সবার প্রতি।

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৫৫

জুন বলেছেন: আপনার শুভকামনাতেই এই পর্যন্ত আটজন কিশোরকে বের করে আনা সম্ভব হয়েছে তাজেরুল ইসলাম স্বাধীন । বাকিরাও নিরাপদে বের হোক এই প্রত্যাশা আমাদের সবার।

৭৩| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৫১

ধ্রুবক আলো বলেছেন: পৃথিবী জুড়ে শুধু দুর্ঘটনা আর অঘটনে ছেয়ে যাচ্ছে।

১০ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:০৫

জুন বলেছেন: ধ্রুবক আলো বলেছেন: পৃথিবী জুড়ে শুধু দুর্ঘটনা আর অঘটনে ছেয়ে যাচ্ছে।
তারপর ও ভালো কিছু ঘটছে ধ্রুবক আলো যেমন কিশোরদের উদ্ধার ।
মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

৭৪| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:২১

শামছুল ইসলাম বলেছেন: থাম লুয়াং গুহা, ১২ জন কিশোর ও তাদের কোচ - সবার মনে তাদের জন্য শুভ কামনা ও প্রচেষ্টা দেখে খুব ভালো লাগছে । আপনি প্রতিটা আপডেট এত সুন্দর করে দিচ্ছেন যে, স্টিকি হওয়া পোস্টটা আরো আকর্ষণীয় ও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠছে । কিশোরেরা সবাই মায়ের কোলে ফিরে আসুক - এই শুভ কামনায় নিরন্তর মন ছেঁয়ে আছে ।

১০ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:৪২

জুন বলেছেন: কিশোরেরা সবাই মায়ের কোলে ফিরে আসুক - এই শুভ কামনায় নিরন্তর মন ছেঁয়ে আছে ।
আপনার এই কামনা সত্যি হয়ে উঠুক এটাই প্রত্যাশা শামছুল ইসলাম ।

৭৫| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৬

আবু আফিয়া বলেছেন: সুস্থতার সাথে সবাই ফিরে আসুক এই কামনাই করি।
আপডেট সবকিছু জানানোর জন্য ধন্যবাদ।

১০ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:২১

জুন বলেছেন: সুস্থতার সাথে সবাই ফিরে আসুক এই কামনাই করি।
সবারই একই প্রত্যাশা আবু সুফিয়ান । মন্তব্যে ধন্যবাদ

৭৬| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:১৬

বিষাদ সময় বলেছেন: সৃষ্টিকর্তার কাছে আজকের অভিযানের সফলতা কামনা করছি। ছেলেগুলো তাদের মায়ের কোলে ফিরে আসুক.............

১০ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:২৪

জুন বলেছেন: সৃষ্টিকর্তার কাছে আজকের অভিযানের সফলতা কামনা করছি। ছেলেগুলো তাদের মায়ের কোলে ফিরে আসুক.

আজকেই শেষ হোক দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান বিষাদ সময় । মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

৭৭| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:৪৮

শামছুল ইসলাম বলেছেন: মাঝে মাঝে এসে আপডেট জেনে নাই । আজ ২:৩০ এর সর্বশেষ আপডেট দেখে আশা জাগছে । কী দু:সহ সময় কাটাচ্ছে কিশোরদের মা-বাবারা!

১০ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:২৬

জুন বলেছেন: শামছুল ইসলাম,
দোয়া করেন আজকেই যেন সকল প্রতীক্ষার অবসান হয়। মন্তব্যে ধন্যবাদ।

৭৮| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৫১

খায়রুল আহসান বলেছেন: আজকের অভিযান সফল হোক এবং এর সাথে অবসান হোক সকল উৎকন্ঠার!
একজন পেশাদার সাংবাদিকের মত সময় সময় আপডেট দিয়ে আমাদের জিজ্ঞাসার জবাব দিয়ে যাবার জন্য আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ, জুন!
আল্লাহ আমাদের সবার সহায় হউন!

১০ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:৩১

জুন বলেছেন: আজকের অভিযান সফল হোক এবং এর সাথে অবসান হোক সকল উৎকন্ঠার!
আপনার আকাঙ্ক্ষা আজ সফল হোক সেটাই আপামর বিশ্ববাসীর প্রত্যাশা ।
মন্তব্যে ধন্যবাদ খায়রুল আহসান ।

৭৯| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:২৪

গড়ল বলেছেন: এই প্রযুক্তির উৎকর্ষতার যুগেও বাচ্চাগুলোকে উদ্ধার করতে এত সময় লেগে যাচ্ছে এটা খুবি হতাশাজনক। প্রযুক্তি এখনও ওনেক পিছিয়ে আছে, সবাই শুধু ব্যাবসা সফল প্রযুক্তির দিকেই নজর দিচ্ছে কিন্তু দূর্যোগ মোকাবিলার প্রযুক্তি সেভাবে কারো নজর কাড়ছে না।

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:৩৫

জুন বলেছেন: এই প্রযুক্তির উৎকর্ষতার যুগেও বাচ্চাগুলোকে উদ্ধার করতে এত সময় লেগে যাচ্ছে এটা খুবি হতাশাজনক। প্রযুক্তি এখনও ওনেক পিছিয়ে আছে, সবাই শুধু ব্যাবসা সফল প্রযুক্তির দিকেই নজর দিচ্ছে কিন্তু দূর্যোগ মোকাবিলার প্রযুক্তি সেভাবে কারো নজর কাড়ছে না।
আপনি অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ন একটি মন্তব্য করেছেন তার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে । কিছু কিছু ক্ষেত্রে যতই উন্নত প্রযুক্তি হোক না কেন প্রকৃতির কাছে ঠিকই হার মেনে যায়। তেমনি এই জটিল ও দুর্গম এক বিপদজনক গুহা থাম লুয়াং থেকে অসময়ে প্রবেশ করা ছেলেদের উদ্ধারে জানপ্রান ঢেলে দিচ্ছে দেশ বিদেশের বিখ্যাত সব ৯০ জন ডাইভার । তাদের উদ্ধারের ব্যপারে কোন পথ তারা বাকি রাখেনি বা রাখছে না । প্রচন্ড বৃষ্টির সাথে প্রতিকুল পরিবেশে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে এই বীর যোদ্ধারা। তাদের অবশ্যই সালাম জানাই সকলে।
নীচের ছবিতে দেখে কি মনে হচ্ছে তারা উদ্ধারের ব্যপারে গাফিলতি করছে ! এই উদ্ধারের ব্যাপারে বিশ্বের বিখ্যাত বিখ্যাত সব এক্সপার্টরা সেখানে হাজির হয়েছে। চেষ্টা চালাচ্ছে , দিক নির্দেশনা দিচ্ছে ।

এমন হামাগুড়ি দিয়ে উদ্ধারকর্মীদের এগুতে হচ্ছে অক্সিজেন ট্যাংক সহ প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি নিয়ে সরু একটি প্যাসেজের মাধ্যমে । অথবা তীব্র স্রোতের ঘোলা কাদাপানিতে পাড়ি দিতে হচ্ছে ।

৮০| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:১৩

চোরাবালি- বলেছেন: ধন্যবাদ প্রতিনিয়ত আপডেট করার জন্য। আল্লাহ বাচ্চাদের সুস্থ্য ভাবে ফিরিয়ে দিন।

১০ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:৩৩

জুন বলেছেন: আল্লাহ বাচ্চাদের সুস্থ্য ভাবে ফিরিয়ে দিন।
সেটাই হোক আজকের প্রত্যাশা চোরাবালি ।
মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

৮১| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৬

শরতের ছবি বলেছেন: বের হয়ে আসতে পারে যেন নিরাপদে সেই দুআ করছি ! ধন্যবাদ জুন আপা পোস্টটি শেয়ার করলেন বলে !

১০ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:১৭

জুন বলেছেন: বের হয়ে আসতে পারে যেন নিরাপদে সেই দুআ করছি !
আমাদের সবারই একই দোয়া শরতের ছবি । মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

৮২| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২২

সোহানী বলেছেন: অপেক্ষায় আছি কখন আপনি সুখবরটি আপডেট করেন। ভালো লাগলো শেয়ারিং।

১০ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:১৮

জুন বলেছেন: সোহানী আজকের মধ্যেই সব ছেলেরা নিরাপদে বেরিয়ে আসবে বলে আশা করছি । মন্তব্যে ধন্যবাদ ।

৮৩| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:০৫

হাসান মাহবুব বলেছেন: বাচ্চাগুলোর জন্যে প্রার্থনা।

অসাধারণ কাজ করছেন আপনি।

১০ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:২০

জুন বলেছেন: বাচ্চাগুলোর জন্যে প্রার্থনা। গুহার অন্ধকারে থাকার এটাই হোক আজ শেষ দিন।
মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ ।

৮৪| ০৮ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪৯

নূর আলম হিরণ বলেছেন: পোষ্টটির উপর সার্বক্ষণিক নজর রেখেছি। পোষ্টদাতাকে অসংখ্য ধন্যবাদ ।

১০ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:১৫

জুন বলেছেন: আশাকরি আমার এই লেখার মাধ্যমে কিছুটা হলেও এই ব্যপারে আপনাদের জানাতে পেরেছি বলে ভালোলাগছে। পুরোপুরি উদ্ধার হওয়া পর্যন্ত সাথে থাকবেন এই প্রত্যাশায়।
ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য।

৮৫| ০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:২৮

জাহিদ অনিক বলেছেন:
মূলত আপনার পোষ্ট থেকেই এমন একটা খবর জানতে পারি। আপডেটগুলোও দেখলাম।
সবাই ভালো থাকুক

১০ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:১৯

জুন বলেছেন: জাহিদ অনিক আমি যখন জানি সেদিন ছিল ২৪ শে জুন । তখন ছিল নিখোজ হওয়ার খবর। যখন জানতে পারি তারা সেই দুর্গম গুহায় প্রবেশ করেছে তখন থেকেই চিন্তা করছিলাম তাদের ও তাদের পিতা মাতার জন্য ।
যাই হোক যেখান থেকেই হোক সারা বিশ্বে আলোড়ন তোলা খবরটি আমার মাধ্যমে জানতে পেরেছেন জেনে অনেক ভালোলাগলো । এখন আমাদের দোয়া থাকবে তাদের সবার নিরাপদ মুক্তি । মন্তব্যে অনেক ধন্যবাদ।

৮৬| ০৯ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:১৯

রানার ব্লগ বলেছেন: থাই গুহা থেকে উদ্ধার ৬, বৃষ্টিতে বিঘ্ন তৎপরতা

০৯ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:৪০

জুন বলেছেন: রানার ব্লগ আমি নীচে দেয়া এই সব স্থান থেকে তথ্য সংগ্রহ করেছি সাথে স্থানীয় থাই টেলিভিশন থেকেও ।https://www.theguardian.com/world/live/2018/jul/09/thai-cave-rescue-resumes-to-free-eight-boys-and-coach-still-trapped-latest-news গার্ডিয়ান
Thailand cave rescue operation: All the latest updates
CBS/AP July 9, 2018, 4:22 AM Thai cave rescue: Second phase of rescue underway -- live updates
আপনি এসব লিংকে দেখতে পারেন । মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ।

১০ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:২৩

জুন বলেছেন: আমিও ভারতের প্রথম সারির পত্রিকা রবিবারের আনন্দবাজার ও বাংলাদেশ প্রতিদিনে এই ভুয়া খবরটি দেখি । আপনাকে লিংক দিয়েছি যা আমি অনুসরন করছি । এছাড়া একজন থাই বিশিষ্ট ব্যক্তির কাছ থেকেও আমি থাই টিভির আপডেট জানছিলাম যা আমি এখানে শেয়ার করছিলাম। মন্তব্যের জন্য আরেক বার ধন্যবাদ ।

৮৭| ০৯ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:০২

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: শিশুগুলো সুস্থভাবে ফিরে আসুক। শুভকামনা...

ধন্যবাদ আপু, নিউজ আপডেট করার জন্য।

১০ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৭

জুন বলেছেন: জুনায়েদ বি রাহমান আপনার শুভকামনায় এই পর্যন্ত ১১ জন বের হয়ে এসেছে দুর্গম সেই গুহা থেকে। মন্তব্যে ধন্যবাদ ।.

৮৮| ০৯ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৪৩

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আলহামদুলিল্লাহ!

একে একে সুস্থ ভাবে নিরাপদেই বেরিয়ে আসছে সবাই!
উদ্ধারঅভিযানের বীর সৈনিকদের সশ্রদ্ধ সালাম। সরকারকেও সাধূবাদ সর্বোচ্চ প্রয়োরিটি দিয়ে সফল উদ্ধাকাজের জন্য।
একজন নাগরিকের মূল্য, একটা জীবনের মূল্য কত এমন ঘটনায় বোঝায় যায়!
আমাদের মানবতাবোধ জাগরিত হোক এমনি উচ্চতায়!
শুধু বিরোধীতায় প্রাণ কেড়ে নেয়া নয়- সর্বাবস্থায় একটা জীবন বাঁচানোই হোক পণ।

আমাদের পত্রিকাগুলৌর আগেই আপনার কল্যানে আপডেট পেয়ে যাচ্ছি এখানে।
এ কঠিন কাজে আপনার অবদানে হ্যাটস অফ অভিবাদন। :)

১০ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২১

জুন বলেছেন: আলহামদুলিল্লাহ বিদ্রোহী ভৃগু আপনাদের আমাদের সবার দোয়ায় এই মাত্র ১৩ জনকেই পর্যায়ক্রমে গুহা থেকে বের করে আনা হয়েছে ১৮ দিন পরে । এ এক অবিশ্বাস্য অভিযান । দশদিন ধরে না খেয়ে থাকা সাতার না জানা ছেলেগুলোকে বের করে সত্যিই দুরহ ছিল ।
আপনাদের কিছুটা জানাতে পেরে আমিও অনেক খুশী হয়েছি । কারন ২৩শে জুন ওরা হারিয়ে যাবার পর থেকেই যখন স্থানীয় খবরে আসতে থাকলো তখন থেকেই আমি খবরটি অনুসরন করছিলাম।
মন্তব্যের জন্য অশেষ ধন্যবাদ ।

৮৯| ০৯ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:১৭

হাসান জাকির ৭১৭১ বলেছেন: তাদের নিরাপদ প্রত্যাবর্তনের প্রতিক্ষায় পুরো বিশ্ব।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:২৯

জুন বলেছেন: তাদের নিরাপদ প্রত্যাবর্তনের প্রতিক্ষায় পুরো বিশ্ব। নিরাপদেই ফিরে এসেছে হাসান জাকির ।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ।

৯০| ০৯ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪৫

তারেক ফাহিম বলেছেন: ধন্যবাদ প্রতিনিয়ত আপডেট দেখার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৩৩

জুন বলেছেন: ধন্যবাদ তারেক ফাহিম বলেছেন সাথে থাকার জন্য

৯১| ০৯ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:৫৫

সনেট কবি বলেছেন: মনে কিছুটা শান্তি পেলাম।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৩৫

জুন বলেছেন: সবাই শান্তি পেয়েছে সনেট কবি । মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ।

৯২| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১২:০৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনি সব সময়ে আপডেট দেয়াতে অনেক ভালো হলো।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৩৯

জুন বলেছেন: ধন্যবাদ চাঁদগাজী । আমি চাইছিলাম যারা বিষয়টির প্রতিটি পর্যায় নিয়ে অতটা অবগত নয় তারা সবাই যেন আমার পোষ্ট থেকে সামান্য হলেও জানতে পারে ।

৯৩| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ ভোর ৬:৫৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


আজকে মনে হয়, সব কষ্টের অবসান হবে।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৪৩

জুন বলেছেন: জী আপনার দোয়ায় গতকালই আটকে পরা থেকে শুরু করে উদ্ধারকাজে নিয়োজিত সবার কষ্টেরই অবসান হয়েছে । সবাই নিরাপদে বেরিয়ে এসেছে

৯৪| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:১৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: জুন ,




থাই গুহায় আটকে পড়া শিশুদের উদ্ধারে পৃথিবীর বাঘা বাঘা ডুবুরীদের মতো প্রচন্ড দক্ষতা আর আন্তরিকতা নিয়ে আপনিও একটি শ্বাসরূদ্ধকর, উৎকন্ঠিত অবস্থা থেকে আমাদেরকেও উদ্ধার করার পর্ব ( আপডেট) চালিয়ে যাচ্ছেন অবলীলায় ।

রান্নাঘরের হাতা-খুন্তি ঠেলার পাশাপাশি ব্লগে নাগরিক জার্নালিজমের একটি সঠিক ও অনুকরনীয় দৃষ্টান্ত দেখিয়ে গেলেন আপনি ।

বিদ্রোহী ভৃগুর মতো ,এ কঠিন কাজে আপনার অবদানকে শুধু হ্যাটস অফ অভিবাদনই জানাচ্ছি না, জানাচ্ছি সকল প্রশংসাসূচক অভিবাদন ।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৫৫

জুন বলেছেন: Hooyah!
থাই নেভী সীলের নিজস্ব সৃষ্টি একটি শব্দ যা তারা বিজয়ী হলে ব্যবহার করে আহমেদ জীএস। এই শব্দটি তারা প্রতিটি ছেলেকে উদ্ধারের পর তাদের নিজস্ব ফেসবুকে ব্যবহার করেছিল । আমরাও তাদের মত বলি হুউউইয়াহ
থাই গুহায় আটকে পড়া শিশুদের উদ্ধারে পৃথিবীর বাঘা বাঘা ডুবুরীদের মতো প্রচন্ড দক্ষতা আর আন্তরিকতা নিয়ে আপনিও একটি শ্বাসরূদ্ধকর, উৎকন্ঠিত অবস্থা থেকে আমাদেরকেও উদ্ধার করার পর্ব ( আপডেট) চালিয়ে যাচ্ছেন অবলীলায় । আমাকে এতখানি মর্যাদা দেয়ার জন্য আপনাকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই । আসলে প্রথম থেকেই ঘটনাটি অনুসরন করছিলাম। মনটা খারাপ ছিল তাই একবার মনকে ঘুরিয়ে নিতে প্যাচা কাহিনী পোষ্টটা দিলাম। তাও কাজ হলো না । তখন ভাবলাম আমার ব্লগে সবার সাথে ঘটনাটি শেয়ার করি তাতে হয়তো কিছুটা স্বস্তি পাবো এছাড়া আরো অনেকের দোয়াও থাকবে সেই ছোট ছোট ছেলেগুলোর জন্য যাদের উদ্ধার একেবারেই অসম্ভব মনে হচ্ছিল প্রাথমিক পর্যায় থেকে শেষ পর্যন্ত।

রান্নাঘরের হাতা-খুন্তি ঠেলার পাশাপাশি ব্লগে নাগরিক জার্নালিজমের একটি সঠিক ও অনুকরনীয় দৃষ্টান্ত দেখিয়ে গেলেন আপনি ।
এই কথাটিও আপনি সঠিক বলেছেন। ভাত বসিয়ে এসে এক লাইন লিখলাম অথবা টেবিলে খাবার লাগাতে গিয়ে একটা মন্তব্যের জবাব দিচ্ছি। যাই হোক কিছুটা হলেও আপনাদের নগদ খবরগুলো জানাতে পেরেছি তার জন্য ভালোও লাগছে অনেক।
বিদ্রহীর সাথে আপনাকেও আরেকবার ধন্যবাদ জানাই এত সুন্দর মন্তব্যের জন্য ।

৯৫| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৫

শহিদুল ইসলাম মৃধা বলেছেন: সকলে নিরাপদে ফিরুক এই প্রার্থনা করছি।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৫৮

জুন বলেছেন: সকলে নিরাপদে ফিরে এসেছে আমার আপনার বিশ্বব্যাপী সবার প্রার্থনায় শহিদুল ইসলাম মৃধা ।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ

৯৬| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৫১

একাল-সেকাল বলেছেন: সুসংবাদ
ফিফা প্রেসিডেন্ট রাশিয়ায় আমন্ত্রণ জানিয়েছেন, আটকে পড়া সকলকে বিশ্বকাপ ফাইনাল দেখার জন্য

১১ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:০৭

জুন বলেছেন: জী এই আমন্ত্রনটা ফিফা প্রেসিডেন্ট ছেলেগুলোর গুহায় আটকে পরার খবর প্রচার পাওয়ার পর পরই দিয়েছিল একাল-সেকাল।
তবে গতকাল তাদের ডাক্তার জানিয়ে দিয়েছে এই অবস্থায় তাদের মস্কো পর্যন্ত ভ্রমন সম্ভব নয়। আগামী বিশ্বকাপ পর্যন্ত এই আমন্ত্রন বলবৎ থাকবে কি না কে জানে !
মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

৯৭| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৪

তারেক ফাহিম বলেছেন: মনে শান্তি আসলো।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:১১

জুন বলেছেন: সবার মনেই শান্তি আসলো । ভবিষ্যতেও এমন ঘটনায় মানবতার জয় হোক ।

৯৮| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৪

চোরাবালি- বলেছেন: অবশেষে শেষ হল উদ্ধার কাজ। সবাইকে বের করা হল।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:১৫

জুন বলেছেন: স্বস্তির নিশ্বাস ফেললো সারা দুনিয়া চোরাবালি-
সাথে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ

৯৯| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২৩

হাসান মাহবুব বলেছেন: ওহ! কী যে প্রশান্তি লাগছে!

১১ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:১৭

জুন বলেছেন: হাসান মাহবুব বলেছেন: ওহ! কী যে প্রশান্তি লাগছে!
সারা দুনিয়ায় হানাহানি মারামারির মধ্যে সত্যি প্রশান্তির সংবাদ ।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ

১০০| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩২

ভুয়া মফিজ বলেছেন: প্রথমেই আপনাকে অনেক ধন্যবাদ আপা, দিনের পর দিন কষ্ট করে আমাদেরকে আপডেট জানানোর জন্যে।

এ ক'দিন আপডেটের জন্য বিবিসি কে ফলো করেছি, আর আপনার পোষ্টে কতোবার যে ঢুকেছি, তার কোন হিসাব নাই। তখনই ভেবেছিলাম সব ভালোয় ভালোয় শেষ হলে কমেন্ট করবো।

এই উদ্ধার অভিযান থেকে আমাদের কর্তাব্যক্তিদের শেখার অনেক কিছুই আছে, যদি শিখতে চায়।

Once again, thank you very much.

১১ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:২১

জুন বলেছেন: বিবিসির মত একটি বিশ্বখ্যাত সংবাদ মাধ্যমের সাথে আমার মত এক অখ্যাত ব্লগারের লেখাকেও অনুসরন করেছেন বলে অসংখ্য ধন্যবাদ ভুয়া মফিজ । সামান গুনানের মৃত্যুটি বাদ দিলে বড় ধরনের কোন ক্যাজুয়ালটি ছাড়া উদ্ধার অভিযানটি সম্পন্ন হয়েছে যা সত্যি অবিশ্বাস্য ।
এই উদ্ধার অভিযান থেকে আমাদের কর্তাব্যক্তিদের শেখার অনেক কিছুই আছে, যদি শিখতে চায়। :(

আবারো অনেক অনেক ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য ।

১০১| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪৭

করুণাধারা বলেছেন: অবশেষে সমস্ত উৎকণ্ঠার পরিসমাপ্তি ঘটলো!!! এই পুরো সময়টা আমি আপডেটের জন্য বারে বারে ফিরে এসেছি আপনার পোস্টে। আপনি অক্লান্তভাবে সবসময় আপডেট দিয়ে গেছেন, ছবির সাহায্যে অনেক কিছু পরিষ্কার করে তুলেছেন। এই সব কিছুর জন্য আপনাকে বিশাল অভিনন্দন, এবং ধন্যবাদ।

এই খুশির মধ্যেও মন খারাপ হয়ে যাচ্ছে বারবার, থাইল্যান্ড পারল, আমরা কেন পারি না!!!

এই মন্তব্য শুধু আমার মনের শান্তির জন্য করেছি- এর উত্তর দেবার দরকার নেই। এখন একটু বিশ্রাম নিন।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:২৫

জুন বলেছেন: অবশেষে সমস্ত উৎকণ্ঠার পরিসমাপ্তি ঘটলো!!! এই পুরো সময়টা আমি আপডেটের জন্য বারে বারে ফিরে এসেছি আপনার পোস্টে। আপনি অক্লান্তভাবে সবসময় আপডেট দিয়ে গেছেন, ছবির সাহায্যে অনেক কিছু পরিষ্কার করে তুলেছেন। এই সব কিছুর জন্য আপনাকে বিশাল অভিনন্দন, এবং ধন্যবাদ।
আপনাকেও বিশাল ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য করুনাধারা । আর সত্যি আপনার কথা মেনে নিয়ে গতরাত দশটাতেই আমি ঘুমিয়ে পরেছি । উঠেছি সকাল আটটায় ।
শুভকামনা রইলো আপনার জন্য ।

১০২| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪৮

নতুন বলেছেন: মানুষ চেস্টা করলে সবই সম্ভব.... :)

অনেক ধন্যবাদ আপনাকে আপডেটের জন্য....

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০৫

জুন বলেছেন: আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য নতুন ।

১০৩| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪৭

অনল চৌধুরী বলেছেন: উন্নত প্রযুক্তি থাকলে অঅমি এই ঘটনা নিয়ে দারুণ একটা ছবি বানাতাম!!

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০৮

জুন বলেছেন: অনল চৌধুরী আপনার মত একই চিন্তায় হলিউডের বেশ নামী দুজন পরিচালক ইতিমধ্যেই সেখানে উপস্থিত আছেন ।
আশাকরি আপনারা সকলে মিলে একটি সুন্দর ছবি তৈরী করবেন যেখানে মৃত্যুর মুখ থেকে ছিনিয়ে আনা কিশোরদের মনের অনুভুতিগুলো সঠিক ভাবে ফুটে উঠে ।

১০৪| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:২৭

জহিরুল ইসলাম সেতু বলেছেন: ওহ বড় একটা স্বস্তি, ওদের জন্য সবসময়ই একটা টেনশনে ছিলাম। প্রযুক্তির উন্নয়নেই এ উদ্ধারকাজ সফল হলো।
কৃতজ্ঞতার সাথে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি জুন আপাকে। আপনার নিয়মিত আপডেট পোষ্টের দিকেই নজর ছিল সব সময়। :)

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:১৮

জুন বলেছেন: কৃতজ্ঞতার সাথে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি আপনাকেও জহিরুল ইসলাম সেতু।

১০৫| ১০ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:১৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


থাইরা সন্মান পাবার যোগ্য

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২৪

জুন বলেছেন: সেটাই চাঁদগাজী তারা এখনো মিডল ইনকাম হয়েও অনেক ক্ষেত্রেই অনেক উন্নত দেশের সমকক্ষ ।

১০৬| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১২:১৪

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
নিহত উদ্ধারকর্মী অকুতভয় বীর ডুবুরি থাই নেভি সিল সদস্য সামান গুনান কে প্রথমে স্যালুট।
থাই নৌবাহনী, ব্রিটেন ও অষ্ট্রেলিয়ার ডুবুরি টেকনিক্যাল টিম সহ সকল উদ্ধারকারি সদস্যকে অভিনন্দন।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২৫

জুন বলেছেন: নিহত উদ্ধারকর্মী অকুতভয় বীর ডুবুরি থাই নেভি সিল সদস্য সামান গুনান কে প্রথমে স্যালুট।
থাই নৌবাহনী, ব্রিটেন ও অষ্ট্রেলিয়ার ডুবুরি টেকনিক্যাল টিম সহ সকল উদ্ধারকারি সদস্যকে অভিনন্দন।

আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য ।

১০৭| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৮:৫৮

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: আপুম‌নি, এই ঘটনা‌টি বাংলা‌দে‌শের হ‌লে কি হ‌তো কল্পনা কর‌তে পা‌রেন?

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩১

জুন বলেছেন: আপুম‌নি, এই ঘটনা‌টি বাংলা‌দে‌শের হ‌লে কি হ‌তো কল্পনা কর‌তে পা‌রেন?
এমন ঘটনা আমাদের দেশে না ঘটুক সেটাই হোক আমাদের কাম্য । কারন আমরা হয়তো তাদের উদ্ধার করতে সক্ষম নাও হতে পারি ।

১০৮| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:৪৫

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: যাক শেষ পর্যন্ত সবগুলো ক্ষুদে ফুটবলার জীবন নিয়ে ফিরেছে।

সুন্দর মানবিক পোস্টে স্যালুট।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৩

জুন বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ মোঃ মাইদুল সরকার সাথে থাকার জন্য ।

১০৯| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:২৪

আল-শাহ্‌রিয়ার বলেছেন: সত্যি খুব ভালো লাগলো জেনে প্রত্যেকে উদ্ধার হয়েছে কিন্তু জীবন হারানো নেভি সিল সদস্যের জন্য প্রার্থনা থাকবে।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৭

জুন বলেছেন: জীবন হারানো নেভি সিল সদস্য সামান গুনানের জন্য প্রার্থনা থাকবে সবার। সে নিজের ইচ্ছেয় এসেছিল এই উদ্ধারকাজে ।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

১১০| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৪০

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: আলহামদুলিল্লাহ! বাচ্চারা সবাই নিরাপদে উদ্ধার পাওয়ায় স্বস্তি পেলাম। উদ্ধারকারী দলকে অভিনন্দন। উদ্ধার কাজে জীবন হারানো নেভি সিলের আত্মা শান্তি পাক, এই প্রার্থনা করি।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৮

জুন বলেছেন: হেনা ভাই আপনার সাথে আমিও গলা মিলিয়ে বলি আলহামদুলিল্লাহ! বাচ্চারা সবাই নিরাপদে উদ্ধার পাওয়ায় স্বস্তি পেলাম। উদ্ধারকারী দলকে অভিনন্দন। উদ্ধার কাজে জীবন হারানো নেভি সিলের আত্মা শান্তি পাক, এই প্রার্থনা করি।

১১১| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:২৯

শামচুল হক বলেছেন: উদ্ধারকারী দলকে অভিনন্দন। উদ্ধারকারী জীবন হারানো নেভি সিলের আত্মার শান্তি কামনা করি। সব শেষে সকল প্রশংসা আল্লার।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৯

জুন বলেছেন: ধন্যবাদ শামচুল হক সবাইকে অভিনন্দিত করার জন্য ।

১১২| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:০৭

একাল-সেকাল বলেছেন: এই দুর্ঘটনা বাংলাদেশে হলে জীবিত উদ্ধার হত! বলার ধৃষ্টতা আমার নাই, তবে লাশগুলো কী পাওয়া যেত ?

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩৯

জুন বলেছেন: মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ একাল-সেকাল ।

১১৩| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:৪২

শামছুল ইসলাম বলেছেন: রুদ্ধশ্বাস অভিযানের সাথে আপনি মানবতাকেও সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন । খারাপ লাগছে থাই এলিট বাহিনীর প্রাক্তন সদস্য সানাম গুনানের জন্য ।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪০

জুন বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ সুন্দর একটি মন্তব্যে শামছুল ইসলাম ।
শুভকামনা জানবেন

১১৪| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:৫৮

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্যারয়ুথ চান ওচা গুহায় আটকে থাকা স্বজনদের সঙ্গে দেখা করেছেন। তাদের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন। সোমবার প্রধানমন্ত্রীর গুহা এলাকা পরিদর্শনের কথা ছিল। কিন্তু এতে করে উদ্ধার কার্যক্রম ব্যাহত হতে পারে বলে তিনি চিয়াং রাই শহরে অবস্থান করেন। এখানেই তিনি স্বজনদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪৮

জুন বলেছেন: নূর মোহাম্মদ নূরু
আপনার তথ্যের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ ।
প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুথ চান ওচা উদ্ধার কাজ শুরু হওয়ার আগেও একবার চিয়াং রাই এসে স্বজনদের সাথে সাক্ষাৎ করে গিয়েছিলেন। গত পরশু তিনি ফুকেট থেকে সরাসরি এসে থাম লুয়াং গুহার আটকে পরা পরিজনের সাথে সাক্ষাৎ করেন। এছাড়াও তিনি তখন পর্যন্ত উদ্ধার হওয়া ৮টি ছেলেকে হাসপাতালে দেখে আসেন। থাই সরকারী টিভি পিবিএস থেকে এই সংবাদটি আমি আমার আপডেটে তখনি সংযুক্ত করেছি ।
আবার ও আপনাকে ধন্যবাদ ও শুভকামনা রইলো ।

১১৫| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:৫৮

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:




বেশ চমৎকার ভাবে উদ্ধারকাজ সম্পন্ন হলো। ভয়ংকর সকল আশংকাকে হার মানিয়ে উদ্ধারকারীরা বিজয় পেল। খুব ভাল লাগছে। আশা করি ওদের উপর ঘটে যাওয়া বিপর্যয়গুলোর প্রভাব দ্রুত কেটে যাবে এবং ভবিষ্যতের পথে ওরা আরো সাহসী হবে।

আপনার প্রতি রইলো অসংখ্য ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতা।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:৫৮

জুন বলেছেন: আপনাকেও আন্তরিক ধন্যবাদ কথাকেথিকথন মন্তব্যের জন্য ।

১১৬| ১৩ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৭:৪৪

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ব্যস্ততার জন্য এতদিন স্টিকি হয়ে থাকা এই এই মুল্যবান পোষ্টটি দেখা হয়ে উঠেনি বলে নীজের প্রতিই রাগ হচ্ছে । বিষয়টা স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমে নিয়মিত দেখা হতো বলে প্রায় প্রতিদিনের উদ্বার অভিজানের বিষয় কিছুটা জানা হতো । তাদের ভয়াবহ অবস্থার কথা শুনে মন শিহরিয়ে উঠত । কিশোরদের অনেকে সাঁতার জানতো না। ফলে তাদের উদ্ধার করে আনার বিষয়টি নিয়ে অনেকের মত আমার মধ্যেও ভিষন উদ্বেগ তৈরি হয়েছিল। গুহাটির অনেক জায়গা ছিল খুবই সংকীর্ণ, যা আপনার লেখা ও সচিত্র বিবরণ দেখেও বুঝা যাচ্ছিল । আর অতিবর্ষণে পরিস্থিতি ক্রমেই ভয়াবহ হয়ে উঠেছিল। তারা গুহার যেখানে আটকা পড়েছিল, সেই জায়গাটিও ছিল খুবই জটিল। অভিজ্ঞ ডুবুরিদের জন্যও সেখানে যাওয়া বেশ জটিল ছিল। একজন অভিজ্ঞ থাই উদ্ধারকারী ডুবুরীতো এ কাজে নীজের জীবনকে উৎসর্গই করেছেন। এই বীর উদ্ধারকারীর প্রতিউ রইল বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালবসা । আপনার দেয়া পোষ্টটিতে প্রতিদিনের উদ্ধার পর্বের কথা সচিত্র ও বিস্তারিতভাবে উঠে এসেছে । সামাজিক সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে এই পোষ্টটি একটি মাইলস্টোন হিসাবে গন্য । পোষ্টের লেখা ও মুল্যবান মন্তব্যসমুহের অনেকগুলি দেখলাম । নিয়মিতভাবে এমন একটি রোমহর্ষক বিপজ্জনক উদ্ধার অভিজানের সচিত্র আপডেট দেয়া এবং শত শত মন্তব্যের বিস্তারিত তথ্য ভিত্তিক উত্তর দেয়া অতি পরিশ্রমি ও মনযোগী একজন লেখকের কাজ, তাতে কোন সন্দেহ নেই । এ জন্য ধন্যবাদের সাথে কৃতজ্ঞতা থাকল । পোষ্টটি প্রিয়তে নিতে পেরে নীজকে ধন্য মনে করছি ।

গুহার গভীরে আটকে পরা কিশোর ফুটবলারদেরকে শ্বাসরুদ্ধকর উদ্ধার অভিযানের পর তাদেরকে প্রথমবারের মতো দেখতে পেলাম হাসপাতালের বিছানায়। ছবিতে দেখা যায়, গুহা থেকে উদ্ধার পাওয়া কিশোর ফুটবলাররা হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কক্ষে পাশাপাশি বিছানায় বসে বা শুয়ে আছে।তাদের পরনে হাসপাতালের গাউন এবং মুখে মাস্ক । কিশোর ফুটবলারদের একজন ক্যামেরা দেখে বিজয়সূচক 'ভি' চিহ্ন দেখিয়েছে। তবে গুহার ভেতরে দীর্ঘদিন থাকা এবং বিপদজনক উদ্ধার অভিযানের ধকল সামলাতে তাদের কিছুটা সময় প্রয়োজন। কর্তৃপক্ষও বলেছে, তাদের কিছুদিন হাসপাতালে থাকতে হবে। একারণে বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনাল খেলা দেখার জন্য এই কিশুর ফুটবল দলের প্রতি ফিফার আমন্ত্রন জানানোর পরেও তারা সেখানে যেতে পারবেনা । তবে জায়ান্ট মানচেষ্টার ইউনাইটেডসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফুটবল ক্লাব উদ্ধার হওয়া কিশোর ফুটবলার এবং তাদের কোচকে ক্যাম্পে ম্যাচ দেখার প্রস্তাব দিয়েছে এবং একটি টুর্নমেন্টে অংশ নেয়ার আমন্ত্রণ জানিয়েছে। দোয়া করি এই সাহসী কিশোর ফুটবলারগন দ্রুত আরোগ্য লাভ করুক ও সুস্থ সুন্দর জীবনে বিচরণ করুক ।

অনেক অনেক শুভেচ্ছা রইল ।

১৩ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:২৪

জুন বলেছেন: নাহ খুব একটা দেরী করে ফেলেন নি ডাঃ এম আলী । আমি এটা লেখা তারপরবর্তী আপডেট গুলো দেয়ার সময় অনেকবারই আপনার কথা ভেবেছি । আশা করেছি একটি সুচিন্তিত ও প্রাসংগিক মন্তব্যের । তারপরেই মনে হয়েছে মেয়ের আদরের শাসনে এখনো হয়তো ল্যাপটপ হাতের নাগালের বাইরে ।
আমি আসলে স্থানীয় সরকারী টিভি থাই পিবিএস এবং ব্যংকক পোস্ট থেকে খবরটা জেনেছি ওদের হারিয়ে যাবার একেবারেই প্রথম দিক থেকেই। তারপর গুহার প্রবেশ মুখে তাদের সাইকেল আরেকটু ভেতরে তাদের ব্যগপ্যাক জুতা আরেকটু এগিয়ে দেয়ালের গায়ে তাদের হাতের ছাপে কনফার্ম হলো তারা গুহার ভেতরেই আছে। কতদুর গিয়েছে বেচে আছে কি না ইত্যাদি সংবাদগুলো অনেকের মত আমার ভেতরেও দারুন কৌতুহল সৃষ্টি করেছিল। সাথে তাদের বাবা মায়ের কষ্টটা একজন মা হিসেবে উপল্বদ্ধি করছিলাম। তারপর তো ইতিহাস । আমি এ বছরেরই ফেব্রুয়ারীতে চিয়াং রাই এর ঐ মেসাই তে গিয়েছিলাম । যাবার পথে এক গুহার সামান্য ভেতরেও প্রবেশ করেছিলাম । তখনই বুঝেছি কি দুর্গম যায়গায় গিয়েই না ওরা ঢুকেছে।
আমিও আশা করছি এ বছর বিশ্বকাপের ফাইনাল টা দেখতে না পারলেও আগামী কোন খেলা যেন উপভোগ করতে পারে ছেলেগুলো । আর ম্যাঞ্চেষ্টার ইউনাইটডকে যেন অবশ্য হারিয়ে দেয় এই সাহসী বাচ্চাগুলো ।
আপনার জন্যও রইলো অনেক শুভকামনা । আশাকরি এখন সুস্থ হয়েছেন আপনার বিশ্রী ব্যকপেইন থেকে ? আর ফিরে আসুন ব্লগে থাম লুয়াং এর গুহায় আটকে পরা বীর ছেলেগুলোর মতই স্বমহিমায় :)

১১৭| ১৩ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৪৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনি একটি অসাধারণ কাজ করেছেন, জুন! আবারো অভিনন্দন!

১৩ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৫

জুন বলেছেন: আপনাকেও অনেক অনেক ধন্যবাদ কষ্ট করে আমার লেখাটি অনুসরন করার জন্য খায়রুল আহসান । আপনাদের সবার উৎসাহ অনুপ্রেরনাতেই শেষ পর্যন্ত জানাতে চেষ্টা করেছি সারা বিশ্ব জুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করা ঘটনাটি । ভবিষ্যতেও সাথে থাকবেন সেই প্রত্যাশা রইলো । শুভকামনা আপনার জন্যও

১১৮| ২০ শে জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৩৪

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় জুন :
আপনার এই লেখাটাই হয়তো দেশে এই নিউজ নিয়ে সবচেয়ে প্রথম প্রকাশিত লেখা |আমি CNN, MSNBC-তে নিউজটা ফলো করছিলাম শুরু থেকেই I দুটো নিউজ চ্যানেল-ই মাঝে মাঝেই ভিডিও দেখাচ্চলিলো আপ ডেট দিয়ে তাদের গ্রাউন্ড ক্রুদের নিউজ বেসিসেই | অনেক আপস আর ডাউনের পর ক'দিন পরে যখন সবাইকে উদ্ধার করা হলো তখন ভালো লেগেছিলো খুব | উদ্ধারের দিন সকালেই ফিফা আটকে পড়া সবগুলো ছেলেকে বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলা দেখার আমন্ত্রণ জানিয়েছে সেটাও MSNBC-তে শুনলাম |এই নিউজের সাথে জড়ানো সব কিছুই ভালো হলো |শুধু দুধে চুন পরে গেলো কদিন পরে দেশের একটা ঘটনায় | আমাদের দেশে কোথায় যেন পাঁচটা ছোট ছেলে ফুটবল খেলতে গিয়ে মারা গেলো ! অনেক আগ্রহ করে বিদেশে কেমন করে কতগুলো ছোট ছেলেকে উদ্ধার করা হলো দেখলাম কিন্তু নিজের দেশের ছেলেগুলোকে বাঁচানোর খবরটা আর শোনা হলো না |শুনলাম তাদের মৃত্যুর খবর ! কোনো কিছুতেই আমরা আর ভালো খবর কেনো যে পাইনা ! নতুন নকীবের সাথে একমত হয়ে বলি ধন্যবাদ আপনাকে অসাধারণ নাগরিক জার্নালিজমের জন্য |

২০ শে জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৫৮

জুন বলেছেন: মলাসইলমুইনা
আমি খবরটি প্রথম দেখি ব্যংকক পোষ্ট পত্রিকা থেকে । তারপর প্রতিদিন দেখতাম কি হলো কি হলো ! আমারো ছেলে আছে, সেই মা গুলোর কেমন লাগছে এমন নানা রকম উদ্বেগ থেকে একটু পর পরই অনলাইন পত্রিকাটি দেখতাম।অনুসন্ধান শুরু হলো, কত দেশ বিদেশের এক্সপার্টরা আসলো তারপরতো ইতিহাস। প্রকাশ পেলো গুহার আধারে ১৩ জনের মলিন মুখের ছবি উই আর থার্টিন এক থাই মেয়ে আমাকে ম্যাসেজে সেই মুহুর্তেই জানালো মামা, মামা দ্যে আর অল এলাইভ কারন সেই খবর তখনো পত্রিকায় আসে নি । ওরা লাইভ দেখছিল থাই নেভী সীলের ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে যা থাই ভাষায়।সে মুহুর্তে আমার মনে কি যে আনন্দ হয়েছিল তা ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না।
আপনাকেও অসংখ্য ধন্যবাদ আমার লেখাটি পড়ার জন্য ।
তবে এই উদ্ধার অভিযানটি ছিল সফল তাই এত আনন্দ শুধু নেভী সীলের প্রাক্তন সদস্য সানাম গুনানের মৃত্যু ছাড়া। কিন্ত আমি আপনাকে আমার দুই পর্বে খুব ছোট করে লেখা ব্যারেন্ট সাগরের কান্না পড়ার অনুরোধ করছি ।সেটা মনে হলে আজও আমার চোখ অশ্রু সজল হয়ে উঠে মলাসইলমুনা । ভালো থাকুন । আর লিখুন প্লিজ ।
ব্যারেন্ট সাগরের কান্না (প্রথম পর্ব)
এর নীচেই দ্বিতীয় পর্বের লিংক রয়েছে ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.