নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

একজন সুখী মানুষ, স্রষ্টার অপার ক্ষমা ও করুণাধন্য, তাই স্রষ্টার প্রতি শ্রদ্ধাবনত।

খায়রুল আহসান

অবসরে আছি। কিছু কিছু লেখালেখির মাধ্যমে অবসর জীবনটাকে উপভোগ করার চেষ্টা করছি। কিছু সমাজকল্যানমূলক কর্মকান্ডেও জড়িত আছি। মাঝে মাঝে এদিক সেদিকে ভ্রমণেও বের হই। জীবনে কারো বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ করিনি, এখন তো করার প্রশ্নই আসে না। জীবন যা দিয়েছে, তার জন্য স্রষ্টার কাছে ভক্তিভরে কৃতজ্ঞতা জানাই। যা কিছু চেয়েও পাইনি, এখন বুঝি, তা পাবার কথা ছিলনা। তাই না পাওয়ার কোন বেদনা নেই।

খায়রুল আহসান › বিস্তারিত পোস্টঃ

ছবি ব্লগঃ জীবনের বৈচিত্র ও বৈপরীত্য (Diversity and contrariety of life)

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:১০

আজ প্রত্যুষে ফজরের নামায শেষে হাঁটতে বের হই। পথে জীবনের কিছু বৈচিত্র ও বৈপরীত্য চোখে পড়ে। সেলফোনের ক্যামেরায় সেগুলোর কিছু ছবি তুলে রাখি।
শেষের দুটো জোড়া শালিকের ছবি গুগল থেকে নেয়া, বাকীগুলো আমার আইফোন দিয়ে তোলাঃ



“ঝরা পাতা গো, আমি তোমারি দলে।
অনেক হাসি অনেক অশ্রুজলে
ফাগুন দিল বিদায়মন্ত্র
আমার হিয়াতলে॥”

Oh the fallen leaves, I belong to thee!
With lots of laughter, lots of tears
The Autumn whispers farewell
Deep down my heart!

(The Bangla verses are from Nobel Laureate Poet Rabindranath Tagore’s poem “প্রকৃতি” and the English translation is mine.)


অঙ্কুরিত মুকুল
(Blossoming bud)


সজীব
(Youthful)


স্বপ্নিল ও বর্ণিল
(Brilliant and beautiful!)


পুষ্পকাননে হাস্যোজ্জ্বল পুষ্পের সমারোহ
(Sparkling flowers, gleeful)


বিচ্ছিন্ন, বিষাদগ্রস্ত
(Sad and solitary)


সঙ্গীর সাথে
Together
(Picture Credit: Google)


সঙ্গীর সাথে, খাদ্যের সন্ধানে
A joint search for food
(Picture Credit: Google)



মন্তব্য ৯৭ টি রেটিং +২৩/-০

মন্তব্য (৯৭) মন্তব্য লিখুন

১| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:১৯

রাজীব নুর বলেছেন: আপনি তো সুন্দর ছবি তুলেন।

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:৩০

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রথম মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। ছবিগুলো ক্যামেরার কৃতিত্ব, শিরোনামগুলো আমার। :)

২| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:২৫

সোহানী বলেছেন: অসাধারন... তবে প্রথম প্লাসের জন্য সাদা ভাইয়ের মতো চা চাই...............হাহাহাহাহা

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:৩৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রথম প্লাসের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!
চা টা আমি বানাতে পারিনা, তবে প্রথম প্লাসের জন্য আপনাকে স্বপ্নিল ও বর্ণিল ফুলগুলো দিয়ে দিলাম! :)

৩| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:৩৮

সোহানী বলেছেন: ওতেই আমি মহা খুশি। আমি কফিখোর.... চা থেকে ফুল বেশী ভালোবাসি........ হাহাহাহা। তবে সত্যিই সাধারন ছবি কিন্তু অসাধারন হয়েছে।

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:০৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: কফির ক্যাফিন নাকি খুব বেশী ভাল নয়, হৃদস্পন্দন বাড়িয়ে দেয়। তবে আপনারা শীতের দেশের মানুষ, আপনাদের জন্য স্বাস্থ্যের হিসেব নিকেশ হয়তো আলাদা হবে।
পুনরায় মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা।

৪| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:৪৬

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:





ছবিগুলোর সাথে চার লাইনের কবিতাটি চমৎকার লাগল!

২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:৪৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: ছবিগুলোর সাথে চার লাইনের কবিতাটি চমৎকার লাগল! - ধন্যবাদ, প্রীত হ'লাম। প্লাসে অনুপ্রাণিত।

৫| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:৫৯

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: ছবি ব্লগ দেখলেই মনটা ভালো হয়ে যায়, এখনো হলো............শুভেচ্ছা জানবেন ভাই।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৭:৫৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: ছবি ব্লগ দেখলেই মনটা ভালো হয়ে যায় - আমারও যায়। বিশেষ করে আপনার কোন ছবি ব্লগ দেখলে মনটা একটু বেশীই ভালো হয়ে যায়।
মন্তব্যে অনুপ্রাণিত হ'লাম। আপনাকেও আন্তরিক শুভেচ্ছা!!

৬| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:০০

সাদা মনের মানুষ বলেছেন:

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:৪২

খায়রুল আহসান বলেছেন: ধন্যবাদ। চায়ের রঙটা খুবই ভাল হয়েছে। স্বাদটাও নিশ্চয়ই তাই হবে!
আরেকটু আগে এই চা নিয়ে এলে তো সোহানী কে বলতে পারতাম এখান থেকে এক কাপ খেয়ে যেতে! :)

৭| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:০৪

তারেক ফাহিম বলেছেন: অনেক সুন্দর ছবি ব্লগ।

আপনার ছবি তোলার কায়দা অনেক ভালো মনে হচ্ছে।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:০৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: ছবি ব্লগটা দেখার জন্য অনেক ধন্যবাদ। প্রশংসায় অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভেচ্ছা---

৮| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:০৫

আটলান্টিক বলেছেন:























দাড়ান পড়ার আগে একটু প্রস্তুত হয়ে নিচ্ছি।

২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ২:১৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: প্রস্তুতি এখনো শেষ হয় নি? :)
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

৯| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:১৫

আবিদা সিদ্দিকী বলেছেন: শুকনো পাতাঃ

"ও ঝরা পাতা ও ঝরা পাতাগো
.।.।.।.।.।.।.।.।.।.।.।।।
একটা পাতার ইচ্ছে হলো
আকাশটাকে ছোঁবে
পাখির সাথে মেললো ডানা
সূর্য উঠলো পূবে।" শুকনো পাতার ছবিটা আমার জানি-প্রাণি বন্ধুকে মনে করিয়ে দিল, 'জলের গান'-এর এই কয়টা লাইন সে মাঝে মাঝে চিঠিতে লেখে, আমার পছন্দ অবশ্য "ঝরা পাতা গো আমি তোমার দলে..."।

কলা পাতাঃ

এই ফুলকেই কি কলাবতী ফুল বলে? কে জানে! কলা গাছ আমার খুব প্রিয়। কি কারণে জানি না, দেখলেই ভালো লাগে।

আম গাছে শালিকঃ

"এক শালিকে দুঃখ হয়,
দুই শালিকে প্রেম;
তিন শালিকে ফস্কা গেরো
ভীষণ প্রবলেম"।
ছোটবেলায় এক শালিক দেখলে মন খারাপ হতো, এক শালিক দেখলেই নাকি দুঃখ আসে। একদিন অফিসে ঢুকেই এক কলিগ বললেন, কে জানে আজ কপালে কি আছে, গেইটের কাছে একটা শালিক দেখে এলাম।
আমি বললাম, গুগলে দুই শালিকের ছবি দেখে নেন।
বলেছি মজা করে, কিন্তু তিনি দ্রুত পিসি খুলেই গুগলে দুই শালিকের ছবি বের করলেন!

শুকনো পাতার ছবিটা স্মৃতিজাগানিয়া আর আম গাছের একলা শালিক বিষণ্নতার ঝলক এনে দেয়।

অনেক ধন্যবাদ।

২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ২:০৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: "পাতায় পাতায় কাব্য গাঁথা
পাতায় লেখা গান।
শিরায় শিরায় স্বপ্ন আমার
ভীষণ অভিমান" - গানটার কথাগুলো বেশ ভাল।
"এই ফুলকেই কি কলাবতী ফুল বলে?" - সম্ভবতঃ তাই বলে, তবে আমি পুরোপুরি নিশ্চিত নই।
আপনার আম গাছে শালিক এর লাইনগুলো পড়ে শালিখ নিয়ে লেখা আমার একটা কবিতার কয়েকটা চরণ উল্লেখ করছিঃ
এক শালিখে দুঃখ আসে, দুই শালিকে হর্ষ,
কে দিয়েছে এমন বিধান কে জানে সে রহস্য।
তিন শালিখে পত্র আসে, উদোম কিম্বা খামে,
চার শালিখে আসে কুটুম, সবাই কি তা মানে?

পুরো কবিতাটা পাবেন এখানেঃ শালিখ সমাচার
আম গাছের একলা শালিক বিষণ্নতার ঝলক এনে দেয় - পশু, পাখি, মানুষ- সবাই কখনো না কখনো একাকীত্বের শিকার হয়!
মনযোগ দিয়ে ছবি ব্লগটা পড়েছেন, পড়ে নিজস্ব ভাবনাগুলো সুন্দর করে এখানে উপস্থাপন করেছেন, এজন্য অসংখ্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

১০| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:১৯

মোহেবুল্লাহ অয়ন বলেছেন: ফযরের পরের সময়টা ঘুরে বেড়াতে অন্য রকম মজা। ফুলের ছবি ভালো লাগল।

২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৩:১৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: লেখাটা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্য এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

১১| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:০২

কঙ্কাবতী রাজকন্যা বলেছেন: কি দারুণ এক ছবি পোস্ট।

২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৩:২৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: দারুণ অনুপ্রাণিত হ'লাম।
পড়া এবং প্লাসের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

১২| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:০৪

বিজন রয় বলেছেন: গভীর , বর্ণিল ও জীবনমুখী।

কেমন আছেন?

২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:০৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: গভীর , বর্ণিল ও জীবনমুখী - আপনার মাত্র তিনটে শব্দেই যেন লেখাটি লেটার মার্কস পেয়ে গেল!
আমি ভাল আছি। আশাকরি আপনিও ভাল আছেন।
ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা---

১৩| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:৪১

তারেক_মাহমুদ বলেছেন: খুব ভাল লাগলো স্যার,আগে আমার ব্লগে মাঝেমাঝে উকি মারতেন, ইদানীং আসছেন না। কুকুর নিয়ে একটা পোষ্ট দিয়েছি পড়ার আমন্ত্রণ রইল।

২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:৫৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: কুকুর নিয়েেখা আপনার পোষ্ট টা পড়ে এলাম। ভাল লিখেছেন।
আমার এ লেখাটা আপনার ভাল লেগেছে জেনে প্রীত হ'লাম।

১৪| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:৪১

জনৈক অচম ভুত বলেছেন: ছবি এবং ক্যাপশন ভাল হয়েছে। :)

২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:০০

খায়রুল আহসান বলেছেন: ছবি এবং ক্যাপশন ভাল হয়েছে - অনেক ধন্যবাদ, বিশেষ করে ক্যাপশন এর কথাটা উল্লেখ করার জন্য।
ভাল থাকুন। শুভেচ্ছা---

১৫| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ২:০৯

মনিরা সুলতানা বলেছেন: শিরোনামে মুগ্ধতা আহসান ভাই ;
ছবি গুলো ও দারুণ !

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৮:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: ছবি ও শিরোনামের প্রশংসায় আমিও মুগ্ধ ও প্রীত হ'লাম। প্লাসে অনুপ্রাণিত।
ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

১৬| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৪:৪১

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: প্রথম মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। ছবিগুলো ক্যামেরার কৃতিত্ব, শিরোনামগুলো আমার।

প্রথম মন্তব্যকারীকে তো চা দেয়া হয়।

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৮:৫৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: আচ্ছা, পরের বার দেখা যাবে।

১৭| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৪:৫১

জাহিদ অনিক বলেছেন:

জোড়া শালিক দেখে ভালো লাগলো। শুনেছি জোরা শালিক দেখলে মনের আশা পুরণ হয়।
আগে জোড়া শালিক দেখলেই মনে মনে অনেক কিছুই চাইতাম।
শালিকের ডানায় অত জোর কোথায় আমার ইচ্ছে পূরন করে!

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:৫৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: এক শালিখে দুঃখ আসে, দুই শালিকে হর্ষ,
কে দিয়েছে এমন বিধান কে জানে সে রহস্য!
- জোড়া শালিক দেখেন কিংবা নাই দেখেন, আপনার মনের ইচ্ছেগুলো যেন পূরণ হয়, সে কামনাই করি।
লেখাটা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত।

১৮| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:০৪

নূর-ই-হাফসা বলেছেন: দারুন সুন্দর সব গুলো ছবি ।

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: ছবিগুলো দেখা এবং পোস্টটা পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

১৯| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩২

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: দেখার নজর চাই :) অনুভবের গহন গভীর - সাধারনও হয়ে ওঠে অনন্য :)

দারুন উপস্থাপনায় মুগ্ধ :)

+++

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৩৩

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার এমন প্রশংসা পেয়ে উজ্জীবিত ও অনুপ্রাণিত বোধ করছি। প্লাসের জন্য ধন্যবাদ।
শুভেচ্ছা জানবেন।

২০| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩৩

উম্মে সায়মা বলেছেন: ছবি এবং ক্যাপশন দুটোই দারুণ হয়েছে খায়রুল আহসান ভাই!

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৫৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: ছবি এবং ক্যাপশন দুটোই দারুণ হয়েছে - অনেক অনুপ্রাণিত হ'লাম আপনার এ প্রশংসাটুকু পেয়ে।
মন্তব্য এবং প্লাসের জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

২১| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩৮

প্রামানিক বলেছেন: চমৎকার ছবি পোষ্ট। খুব ভালো লাগল।

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:২৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ পোস্টটা পড়ার জন্য। ছবিগুলো ভাল লেগেছে জেনে প্রীত ও অনুপ্রাণিত হ'লাম।

২২| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:০৫

মলাসইলমুইনা বলেছেন: খায়রুল ভাই, কবিতার ইংলিশ ট্রান্সলেশনটা কিন্তু খুবই ভালো লাগলো | আর প্রথম ফটোটা কি কলাবতী ? কেন যেন মনে হলো এটা কলাবতী না ? নারায়নগঞ্জে আমাদের বাসায় একটা কলাবতীর গাছ ছিল | যতদূর মনে পরে একটু লাল বা লালচে আর সাদা রঙের ছিল মনে হয় সেই কলাবতী | কলাবতীতো বর্ষার ফুল | ফুলটার নাম জানানবেন সম্ভব হলে | ফলতো এখন আর নেই এখানে শুধুই স্নো |এখানে ফলের চিহ্ন নিয়ে আছে পাতাঝরা গাছের পর গাছ | ঝরা পাতার ফটোটা ভালোই লাগলো |

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:৪৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবিতার ইংলিশ ট্রান্সলেশনটা আপনার ভাল লেগেছে জেনে অনুপ্রাণিত বোধ করছি। কথাটা জানানোর জন্য অশেষ ধন্যবাদ।
"আর প্রথম ফটোটা কি কলাবতী"? - খুব সম্ভবতঃ ওটা কলাবতীই হবে, তবে এ ব্যাপারে আমি নিশ্চিত নই।
ঝরা পাতার ফটোটা ভালোই লাগলো - অনেক ধন্যবাদ।
মন্তব্যে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪২

খায়রুল আহসান বলেছেন: জুন এর ৪৩ নম্বর মন্তব্যটার সূত্র ধরে উইকিপিডিয়া ঘেঁটে জানতে পারলাম, অংকুরিত মুকুলটি বার্ড অব প্যারাডাইস প্ল্যান্টের (Strelitzia reginae) গোত্রভুক্ত।

২৩| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৩৯

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:





চমৎকার স্নিগ্ধতা । যেন এই রাত্রিতেও সেই ভোর... !

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:২৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: চমৎকার মন্তব্য। মন্তব্যে ও প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।
ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

২৪| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৫৫

শাহাদাৎ হোসাইন (সত্যের ছায়া) বলেছেন: চমেৎকার ছবি। প্রকৃতি, পরিবেশ এবং ফুলের সমারোহ।

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: চমেৎকার ছবি। প্রকৃতি, পরিবেশ এবং ফুলের সমারোহ - ধন্যবাদ এমন চমৎকার মন্তব্যের জন্য। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

২৫| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:৫৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


খাওয়া, পরা, থাকার সুব্যবস্হা থাকলে ফুল, ফল, পাখী নিয়ে ভাবার সময় থাকে!

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:৪১

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবি জীবনান্দ দাশ একসময় ভয়ানক অর্থকষ্টে ছিলেন। তবুও তিনি ফুল, ফল, পাখী নিয়ে ভাবতেন।

২৬| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:৪২

সুমন কর বলেছেন: ভালো লাগা রইলো। প্লাস।

২৮ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৮:০৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: মন্তব্যে এবং প্লাসে অনেক অনুপ্রাণিত হ'লাম। ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা।

২৭| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:৪৫

সচেতনহ্যাপী বলেছেন: দেখার চোখ থাকলেই এমনতর ছবি তোলা যায়।। আর এই আনন্দটুকু ছড়িয়ে দেয়ায় ধন্যবাদ।।

৩০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৫২

খায়রুল আহসান বলেছেন: আর অন্যের ভাল কিছু প্রশংসা করার মত মন থাকলেই কেবল এমন উদারভাবে তার প্রশংসা করা যায়। আপনার সেটা আছে বলেই এত সুন্দর মন্তব্য করতে পেরেছেন।
অনেক, অনেক ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা!

২৮| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১:০০

শকুন দৃিষ্ট বলেছেন: আহ্‌ কবি!!!

এজন্যইতো বলি, মরুর বুকে কবি খুঁজে পায় প্রস্ফুটিত ফুলের কলি
আর আমরা আমজনতা দেখি শুধুই ধু-ধু মরুবালি!!

এই না হলে কবি!

ঝরা পাতা মনকে উদাস করে দেয়, ফাগুনের কথা মনে পড়ে। কবিগুরুর কথায় -

ফাগুন হাওয়ায় হাওয়ায়, করেছি যে দান,
তোমার হাওয়ায় হাওয়ায়, করেছি যে দান,
আমার আপন হারা প্রাণ, আমার বাঁধনছেড়া প্রাণ।
তোমার হাওয়ায় হাওয়ায়, করেছি যে দান।

তোমার অশোকে কিংশুকে,
অলক্ষ্য রঙ লাগল আমার অকারণের সুখে,
তোমার ঝাউয়ের দোলে,
মর্মরিয়া ওঠে আমার দুঃখরাতের গান॥

ফাগুন হাওয়ায় হাওয়ায়

ছোটবেলায় ফা্ঁদ পেতে শালিক ধরা ছিল নেশার মত। তবে, মারতাম না। ছেড়ে দিতাম শখ পূরন হলে।

ভাল লাগল ছবিময় উপস্থাপনা! আমি মুগ্ধ!! ভাললাগাটুকু রেখে গেলাম।

৩০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:৪৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: ভাল লাগল ছবিময় উপস্থাপনা! আমি মুগ্ধ!! ভাললাগাটুকু রেখে গেলাম -- আপনার এমন চমৎকার মন্তব্য এবং উদার প্রশংসায় আমিও যারপরনাই মুগ্ধ হ'লাম।
গানের লিঙ্কটির জন্য ধন্যবাদ।

২৯| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৮:৪২

অাব্দুল্লাহ অাল কাফি বলেছেন: খুব সুন্দর ছবি ব্লগ।
শালিকের ছবিগুলো বেশি ভালো লেগেছে।

৩১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৫৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: লেখাটা পড়ার জন্য অশেষ ধন্যবাদ। মন্তব্যে প্রীত হ'লাম।
জোড়া শালিকের ছবিগুলোর কৃতিত্ব আমার নয়, গুগলের। আম গাছে বসা নিঃসঙ্গ শালিকটির ছবি আমার তোলা।

৩০| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:৫৯

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: ছবি গুলো ভাল লেগেছে ভাইয়া।

৩১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: ছবিগুলো ভাল লেগেছে জেনে প্রীত হ'লাম। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত।
শুভকামনা রইলো---

৩১| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:০৮

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: আপনি দেখছি ছবিতোলাতেও সিদ্ধহস্ত।

ভাল থাকুন।

০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:০৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনি দেখছি ছবি তোলাতেও সিদ্ধহস্ত -- মাঝে মাঝে এখানে ওখানে গেলে আপন খেয়ালে কিছু ছবি তুলে রাখি, এই আর কি!
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। শুভেচ্ছা জানবেন।

৩২| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:২১

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: সুন্দর ছবি, সাথা কাব্যিক ক্যাপশান ।

০২ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৮:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: সুন্দর ছবি, সাথা কাব্যিক ক্যাপশান -- যা কিছু আশা করেছিলাম, তার সবই পেয়ে গেছি এ পাঁচটি শব্দে।
অনেক অনুপ্রাণিত হ'লাম, অনেক অনেক ধন্যবাদ।
শুভেচ্ছা জানবেন।

৩৩| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:৪২

শায়মা বলেছেন: ভাইয়া ঝরা পাতা আর ফুল দেখে মন উদাস হলো আর শকুনীমামাভাইয়ার গানটা শুনে আমার গানটাও মনে পড়ে গেলো ...


https://www.youtube.com/watch?v=p_UWcsxQyTI

০৩ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:০৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: ঝরা পাতা আর ফুল দেখে মন উদাস হলো - ঝরা পাতা, ঝরা ফুল, নিঃসঙ্গ পাখি, গোধূলি, সূর্যাস্ত, মেঘাচ্ছন্ন আকাশ, মৃদুমন্দ বাতাস, ইত্যাদি মন উদাস করে দেয় বৈকি। মানব মনের উপর প্রকৃতির একটা সহজাত প্রভাব রয়েছে।
লেখাটা পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ। মন্তব্যে অনুপ্রাণিত।

৩৪| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:৪৩

শায়মা বলেছেন: ধ্যাৎ লিঙ্ক ভুল হলো! :(


ফাগুন হাওয়ায়

০৩ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩০

খায়রুল আহসান বলেছেন: ফাগুন হাওয়ায় গানটির লিঙ্ক দেয়ার জন্য ধন্যবাদ। রবীন্দ্র সঙ্গীত আমিও খুব ভালবাসি।

৩৫| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:০১

ধ্রুবক আলো বলেছেন: অসাধারণ । ভালো লাগা রইলো।

০৩ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৫০

খায়রুল আহসান বলেছেন: ধন্যবাদ ধ্রুবক আলো, মন্তব্যে এবং প্লাসে অনেক অনুপ্রাণিত হ'লাম।
শুভেচ্ছা রইলো---

৩৬| ২১ শে জানুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৪:২৬

অজানিতা বলেছেন: Oh the fallen leaves, I belong to thee!
ঝরাপাতার ছবিটা দেখতেই মনটা উদাস হয়ে গেল।

ভালোলাগা ছবি এবং শিরোনামে।

০৩ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:৩২

খায়রুল আহসান বলেছেন: লেখাটা থেকে উদ্ধৃতির জন্য ধন্যবাদ। প্লাসে অনুপ্রাণিত।
ভালোলাগা ছবি এবং শিরোনামে - শিরোনামের কথাটা আলাদাভাবে উল্লেখ করার জন্যও অনেক ধন্যবাদ।

১৭ ই এপ্রিল, ২০১৮ বিকাল ৪:৪০

খায়রুল আহসান বলেছেন: আমায় খোঁজ! এবং ভাবনায় তুমি - আপনার এ দুটো পোস্টে দুটো মন্তব্য রেখে এসেছি।

৩৭| ২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ২:১৪

আখেনাটেন বলেছেন: চমৎকার প্রাতভ্রমণ।

অঙ্কুরিত মুকুলটা কি কচু গাছের ফুল নাকি।

০৪ ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৭:৫০

খায়রুল আহসান বলেছেন: অঙ্কুরিত মুকুলটা কি কচু গাছের ফুল নাকি - সম্ভবতঃ ওটা কলাবতী ফুল, তবে আমি নিশ্চিত নই। পথের পাশে একাকী মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে ভাল লেগেছে, তাই ছবি তুলেছি অত কিছু না জেনেই।
মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে এবং প্লাসে অনুপ্রাণিত।

০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:২৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: জুন এর ৪৩ নম্বর মন্তব্যটার সূত্র ধরে উইকিপিডিয়া ঘেঁটে জানতে পারলাম, অংকুরিত মুকুলটি বার্ড অব প্যারাডাইস প্ল্যান্টের (Strelitzia reginae) গোত্রভুক্ত।

৩৮| ২২ শে জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:১৭

শকুন দৃিষ্ট বলেছেন: শায়মা বলেছেন: ভাইয়া ঝরা পাতা আর ফুল দেখে মন উদাস হলো আর শকুনীমামাভাইয়ার গানটা শুনে আমার গানটাও মনে পড়ে গেলো ...

শকুনীমামাভাইয়া !!!!???:) তুমি আমার এমন ছুন্দর (শকুন দৃস্টি) নামটার একি হাল করেছ? খাড়াও!!! তোমার রিমোরে খবর দেই!!:)

তোমার গানটা শুনলুম, ভালই উঠেছে তোমার কন্ঠে "ফাগুন হাওয়ায় হাওয়ায়"। তবে, গুড ফিনিশিং এর জন্য কন্ঠে আরও সাবলীলতা ও স্মুথনেস আনাটা জরুরী আর সে জন্য চর্চার বিকল্প নেই। তুমি অন ট্রাকে আছ, জাস্ট কিপিটাপ।

এই দেখ তোমার শকুনীমামাভাইয়া কি ছুন্দর চর্চা করে - এইখানে দেখ

একটা রিকোঃ "দিয়ে গেনু বসন্তেরও এই, গান খানি" ও "রোদনো ভরা এ বসন্ত" এই গান দুখানি আমাদেরকে শুনাও যদি সম্ভব হয়।

০৪ ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:৩৯

খায়রুল আহসান বলেছেন: একটা রিকোঃ - আপনার অনুরোধের সাথে আমিও কন্ঠ মেলাচ্ছি।

৩৯| ৩০ শে জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৫৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: কিছুটা দুঃসময়ের ভেতর দিয়ে দিন পার করছি, তাই অনিবার্য ব্যস্ততার কারণে বাকী সবার মন্তব্যের উত্তর দিতে পারছিনা বলে আন্তরিকভাবে তাদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করছি। আশাকরি, অচিরেই আবার ব্লগে নিয়মিত হতে পারবো।
সবার জন্য শুভকামনা---

৪০| ০২ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:০৭

করুণাধারা বলেছেন: পোস্টে ভালোলাগা জানাতে এসে উপরের প্রতিমন্তব্যটি পড়ে একটু থমকে গেলাম। প্রার্থনা করি দুঃসময় পার হবার তৌফিক আল্লাহ আপনাকে দিন।

০৪ ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:৫৪

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনার এ প্রার্থনার জন্য। আল্লাহ রাব্বুল 'আ-লামীন এর অশেষ করুণায় কিছুটা রিলিফ পেয়েছি, তাই ব্লগেও কিছু কিছু করে লিখতে পারছি।
শুভকামনা----

৪১| ০৩ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:১২

শায়মা বলেছেন: কি হয়েছে ভাইয়া?

০৪ ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:০৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: পারিবারিক অসুখ বিসুখ নিয়ে একটু ব্যতিব্যস্ত ছিলাম।

৪২| ০৪ ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩২

অয়ি বলেছেন: আইফোন কী পূর্ণাংগ প্রকৃতি তুলতে পারে মানুষের চোখ আর মন মিলিয়ে যা দেখতে পাওয়া যায় ?

০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:২৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: এক কথায়- না, পারেনা।
লেখাটা পড়ার জন্য ধন্যবাদ। মন্তব্যে অনুপ্রাণিত হ'লাম।

৪৩| ০৪ ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:৫২

জুন বলেছেন: ছবি আর ক্যপশন দুটোই একে অপরকে যেন পরিপুর্ন করে তুলেছে খায়রুল আহসান । শালিকগুলো দেখে আমার বাসার শালিকদুটোর কথা খুবই মনে পরছে । আর অংকুরিত মুকুল ফুলটি বার্ড অব প্যারাডাইস ফুলের খুব কাছাকাছি । এখানে প্রচুর দেখা যায়। আপনি বার্ড অব প্যরাডাইস ফ্লাওয়ার লিখে একটু নেটে সার্চ দিয়ে দেখতে পারেন । একেবারে এক না হলেও কাছাকাছি । কলাবতীতো নয়ই ।
আপনার কষ্ট লাঘব হোক শীঘ্রই এই কামনা করি । ভালো থাকুন ।

০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: ছবি আর ক্যপশন দুটোই একে অপরকে যেন পরিপুর্ন করে তুলেছে -- ধন্যবাদ এমন প্রেরণাদায়ক মন্তব্যের জন্য।
আপনি ঠিকই বলেছেন, অংকুরিত মুকুলটি বার্ড অব প্যারাডাইস প্ল্যান্টের (Strelitzia reginae) গোত্রভুক্ত। অনেক ধন্যবাদ, আমার মত আরো অনেক পাঠকের জিজ্ঞাসার জবাবে সঠিক তথ্যটি তুলে ধরার জন্য।
আপনার শুভকামনার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

৪৪| ০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:২২

আহমেদ জী এস বলেছেন: খায়রুল আহসান ,




শিরোনামটির প্রতি যথাযথ বিচার করা হয়নি, মনে হয় ।
জীবনের বৈপরীত্যের ছবি প্রথমটি বাদে আর নেই । যদি ঝরে পড়া শুকনো পাতাদের পাশাপাশি ঐ গাছটির সবুজ পাতাদের ছবিও দিতেন তাহলে বৈপরীত্যটা চোখে লাগতো অনেক । আর বৈচিত্রের ছবিগুলোতে আরও কিছু লিখে বৈচিত্রের রূপটি জোড়ালো করতে পারতেন । শুধু ক্যাপশানে তৃষ্ণা মেটেনি । শেষের শালিকের ছবিটির ব্যঞ্জনা দিয়েই তো ছোটখাটো মহাকাব্য লেখা যেত !

শিরোনামটি হতে পারতো ---- "একদিন সকালে ..."

এই ব্যক্তিগত মতামতটি আপনার প্রতি ভালোবাসার আস্থা রেখেই করলুম । ছবিগুলো কিন্তু সুন্দর হয়েছে !

( আশা করি আপনি এখন কঠিন সময়গুলো পেরিয়ে এসে স্থিত হতে পরেছেন । ভালো থাকুন স্বপরিবারে । )

০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:১৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: মন্তব্যের জন্য অশেষ ধন্যবাদ, আর ব্যক্তিগত মতামতটি জানিয়ে বন্ধুসুলভ কাজ করেছেন, এজন্য দারুণ প্রীত হ'লাম।
শিরোনামটা, জীবনের বৈচিত্র ও বৈপরীত্য এজন্য দিয়েছি যে রাস্তার উপর ঝরাপাতা দেখে যেমন একটা উদাস উদাস বোধ মনে ভেসেছিল, তার পরে পরেই আবার নবজীবনের প্রতীক অংকুরিত মুকুলটি দেখে মন ভাল হয়ে গিয়েছিল। তেমনি, সবুজ সজীব পাতা, স্বপ্নিল এবং বর্ণিল ফুল, পুষ্পকাননে হাস্যোজ্জ্বল পুষ্পের সমারোহ ইত্যাদি দেখে জীবনে তারুণ্যের প্রতিচ্ছবি দেখতে পেয়েছিলাম, যা দেখতে আমি ভালবাসি। আম গাছের শাখায় যেমন একটি বিচ্ছিন্ন, বিষাদগ্রস্ত শালিককে বসে থাকতে দেখে তার জন্য মনে দুঃখবোধ জেগেছিল, দেয়ালে বসে থাকা জোড়া শালিককে দেখে ভাল লাগলেও তাদের অভিব্যক্তিতে বিষাদের ছায়া দেখে কেমন যেন লাগছিল। শেষের ছবিটাতে খাদ্যের সন্ধানে জোড়া শালিক দুটোকে বিচরণ করতে দেখে তাদের স্বাধীনতা ভাল লেগেছিল, সেই সাথে তাদের স্বাবলম্বী স্বভাবটাকেও। একসাথে থাকলেও খাদ্য সন্ধানের প্রয়াসে তারা পৃথকভাবে স্বাবলম্বী ছিল।
হাঁটতে হাঁটতে এইসব বিচ্ছিন্ন চিন্তা নিয়েই ভাবতে ভাবতে ঘরে ফিরে ছবি ব্লগটা সাজিয়ে ফেলি। এটাই এ লেখার পটভূমি।

০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:০৮

খায়রুল আহসান বলেছেন: আমার কঠিন সময় এর কিছুটা অবসান হয়েছে। সহমর্মী অনুভূতি প্রকাশের জন্য অশেষ কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

৪৫| ০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৫০

জুন বলেছেন: খায়রুল আহসান আপনার শেষ ছবিটির ক্যাপশন নিয়ে একটু বলতে চাই । নীল আকাশের নীচে মুক্ত পশু পাখি কি জীবিকার সন্ধান করে নাকি খাদ্যের সন্ধান করে ! জীবিকা মানেতো কাজ করা । পোষা হলেও চলে কিন্ত এযে একেবারে স্বাধীন বিহংগ । কে করাবে তাকে দিয়ে কাজ বলুন :)

০৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:৫৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: ভুলটা ধরিয়ে দেবার জন্য সূক্ষ্মদর্শী জুনকে অসংখ্য ধন্যবাদ। :)
তাৎক্ষণিকভাবে সম্পাদনা করে নিয়েছি।

৪৬| ০৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৩৩

নীলপরি বলেছেন: ছবি ও লেখা খুব ভালো লাগলো । তবে আমার দেখতে একটু দেরী হয়ে গেলো ।
++++++

শুভকামনা ।

০৮ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:১১

খায়রুল আহসান বলেছেন: দেরীতে হলেও লেখাটি পড়েছেন, মন্তব্য করেছেন, প্লাস দিয়েছেন- এতেও আমি যথেষ্ট খুশী হয়েছি।
আন্তরিক ধন্যবাদ এবং শুভকামনা---

৪৭| ১০ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:০৫

MirroredDoll বলেছেন: Beautiful!!!!!

০২ রা এপ্রিল, ২০১৮ রাত ১০:১০

খায়রুল আহসান বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ। প্রশংসা পেয়ে অনুপ্রাণিত হ'লাম।
বিলম্বে উত্তর দেয়ার জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.