নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সবার উপরে মানুষ সত্য, তাহার উপরে...

C:\Users\asusmobile\Desktop\FF.jpg

কেএসরথি

ভালো আছি, ভালো থেকো...আকাশের ঠিকানায় চিঠি লিখো!

কেএসরথি › বিস্তারিত পোস্টঃ

কানাডা দিলাম পাড়ি - ছবিব্লগ - ২

৩০ শে আগস্ট, ২০১৪ সকাল ৭:১৮

*********************************************

কানাডা দিলাম পাড়ি -ছবিব্লগ - ১

*********************************************

বিমান ভ্রমন ৪/৫ ঘন্টার হলে মানায়। এর বেশী হলে, ভয়ংকর রকম বোরিং একটা ব্যাপার হয়ে দাড়ায়। কারন আপনি একটা সিটের মাঝে বন্দী। নড়াচড়ার জায়গা কম, আবার কারো কারো কান বন্ধ হয়ে আসে, কেউ কেউ তো মাথাঘুরে পড়েও যায়। জানালা দিয়ে বাইরে তাকাবেন, তো একই দৃশ্য দেখতে পাবেন ঘন্টার পর ঘন্টা - সেই বিস্তৃত ভূমি না হয় জলরাশি।







আমি ছিলাম আকাশে, হয়ত ততক্ষনে পাকিস্তান পার হয়ে গেছি। নাস্তা খেতে খেতে দেখছি বাইরের একঘেয়ে সেই দৃশ্য। উপর থেকে দেখে কিছু বোঝা না গেলেও, একটু খেয়াল করলেই জনবসতি টের পাবেন, রাস্তাঘাট, বন্দর - এসবের দেখা পাওয়া যায়। তবে প্লেন আরো উপরে উঠে গেলে অন্য কথা।







মাঝে মাঝে সূর্যের ঝিলিকে জানালার স্লাইডার নামিয়ে দিতে বাধ্য হই। কারন, এই ছোট জানালা দিয়ে যে পরিমান আলো প্লেন ঢুকছে, তাতে অন্য যাত্রীদের অসুবিধা হবার কথা। আমার পাশের সিটে বসেছিলেন একজন ব্রিটিশ ভদ্রলোক, উনি প্রায় ৬'৫", বেচারার বসতে অনেক কষ্ট হচ্ছিল। তার পায়ের এক অংশ সিটের বাইরে পড়েছিল। আর কেউ সে পথে চলাচল করলেই, বারবার সরিয়ে ফেলতে বাধ্য হচ্ছিলেন।



আমাদের প্লেনের এন্টারটেইনমেন্ট সিস্টেমটা কাজ করছিল না। পুরো ৮ ঘন্টার যাত্রায় আমি বেকুবের মতো কুজো হয়ে জানালার দিকে হেলে বসেছিলাম। পাশের ব্রিটিশ দেখি নাস্তা খেয়ে লম্বা ঘুম দিল। আমার চোখে কোন ঘুম নাই।



এভাবেই কয়েক ঘন্টা পর দুপুরের খাওয়া। এবারের খাবারের কোয়ালিটি একটু ভাল। চিকেন স্যান্ডউইচ, দই, ব্লুবেরী মাফিন, পানি। এর পর কফিও পরিবেশন করা হলো।







খাবার শেষ হবার পর, আবারো সেই মূর্তির মতো বসে থাকা। কিছুক্ষন মোবাইল গুতাই, আগের তোলা ছবি দেখি, গান শুনি, বাইরে তাকিয়ে থাকি। এসব করতে করতেই ৮ ঘন্টা কাটাতে হয়েছে।



তারপর একসময় দেখি তুরস্ক চলে এসেছে। উপর থেকে বোঝ যাচ্ছিল এটাই তুরস্ক, কারন ওদের সব বাড়ীগুলো উপরিভাগটাই লাল রংয়ের।







ইস্তানবুল যেহেতু একটু বন্দর নগরী, তাই তার কূল ঘেষে অসংখ্য জাহাজ, ট্রলার এসব দেখতে পেলাম। এয়ারপোর্টটাও সমুদ্রের তীরে, এই ছবিতে একটু খেয়াল করলে দেখতে পাবেন।







প্লেন ভালোভাবেই ল্যান্ড করল। এখানে বলতে ভুলে গেছি, ঢাকা থেকে আমার প্লেন ছাড়ার কথা ভোর ৬:১০ এ, সেই প্লেন ছেড়েছে ভোর ৬:৪৫। তুরস্কে এসে নামার কথা বেলা ১১:৪০ এ (তুরস্ক সময়), এসে নেমেছি ১১:৩৫ এ। মানে ৩৫ মিনিট দেরিতে প্লেন ছাড়ার পরও ৫ মিনিট আগে এসে পৌছে গেছি। খারাপ না :)



রানওয়েতে কিছুক্ষন অপেক্ষা করতে হলো, বেজায় ব্যস্ত বিমানবন্দর ইস্তানবুল এয়ারপোর্ট। আমরা নামতে না নামতেই আরো কয়েকটি প্লেন এসে লাইনে দাড়াল। আমার সরে গেলে, এরা একে একে উড়াল দেবে। আমাদের পেছনেও কম করে ৫ টি প্লেন দাড়িয়ে ছিল।







প্লেন গিয়ে থামল অনেক দুরের এক টার্মিনালে, ওখান থেকে ২টি বাস এসে যাত্রীদের মূল টার্মিনালে নিয়ে এল। সাগরের হাওয়ায় ভালই লাগছিল।



মূল টার্মিনালে এসে, আমি দিলাম ছূট। যদিও আমার পরবর্তী প্লেন ছাড়বে আরো ২ঘন্টা পর, কিন্তু আমি এই অজানা অচেনা দেশে কোন কিছুই 'সম্ভাব্য' হিসেবে রাখতে চাই না। অনেক কে দেখলাম খাওয়ার দোকানে ঢুকছে, অনেকে বাথরুমে, অনেকে কেনাকাটার জন্য, কিন্তু আমি টানা ব্যাগটাকে টান দিয়ে হাটা শুরু করলাম :)



যাত্রা শেষে ক্লান্ত? হাটার কি দরকার, দাড়িয়ে থাকুন, প্লাটফর্মই আপনাকে টেনে নিয়ে যাবে :)









কত্তবড় চেয়ার, কত্তছোট চেয়ার :-*







প্রায় ১৫-২০ মিনিট হাটার পর, সেই টার্মিনালে এসে পৌছলাম যেখান থেকে টরন্টোর উদ্দেশ্যে প্লেন ছেড়ে যাবে। কোথাও না থেমে সরাসরি চলে এসেছি, তাই চেকিং-এ আমার সামনে শুধু আরেকজন যাত্রী ছিলেন।



আমার চেকিং-এর সময় টার্কিশ অফিসার কিছু প্রশ্ন করলেন:



"হোয়ার আর ইয়ু কামিং ফ্রম স্যার?"

"বাংলাদেশ"

"এক্সকিউজ মি, হোয়ার?"

"ঢাকা, বাংলাদেশ"

"ও ও ডাকা ডাকা......গোয়িং টু কানাদা?"

"ইয়েস"

"হোয়াই?"

"ইমিগ্রেশন"

"অকে। ওয়েট হিয়ার প্লিজ"।



তারপর সে দেখি একটা সাধারন ডিজিটাল ক্যামেরা দিয়ে আমার ভিসার ছবি তুলল। ব্যাপারটা আমার কাছে বোকামী মনে হয়েছে। কারন যে কেউ এই ক্যামেরা থেকে ছবি গুলো মুছে দিতে পারে, বা কপি করে ফেলতে পারে। তো এভাবে ছবি তোলার মানে কি হলো! যাই হোক।



বোর্ডিং রুমে গিয়ে বসলাম। এখানে বাথরুম, পানীয় সব পাওয়া যায়। তাই আগে কোথাও সময় নষ্ট না করে ভূল করি নি। এই রুমে বসেই ইস্তানবুলের অল্প কিছু ছবি তুললাম।











দূরে সাগরের জলরাশি দেখা যাচ্ছে







বাথরুমে গিয়ে একটু চোখমুখে পানি দিয়ে এলাম। তারপর ল্যাপটপটা খুলে হুমায়ুন আহমেদের "প্রেমের গল্প" পড়া শুরু করলাম। ভয়ংকর বোরিং লাগছিল তাই আর কিছু না পেয়ে...... :|



দেখতে দেখতে আরো যাত্রীতে রুম ভরে গেল। অনেকে এসে জায়গা না পেয়ে মাটিতে বসে পড়লেন। আগে এসেছি বলে আমার পথ হারানোর ভয় ছিলনা, আরাম করে বসেছি - পরে আসলে এয়ারপোর্টটা একটু ঘুরে দেখতে পারতাম - যার যেটা পছন্দ, আমার পছন্দ "প্লেন মিস হবে না এটা জানার শান্তি" তাই আমি আগেই এসেছি।



এরপর সবার বোর্ডিং পাসে লেখা ছিল এ / বি / সি - যার পাসে যা লেখা, সে ঐ লাইনে গিয়ে দাড়াল। আমার ছিল 'এ', তো আমি প্রথম লাইনেই দাড়িয়ে থাকলাম। অনেক কে দেখলাম কিছু না বুঝে-সুঝে এদিক ওদিক ঢুকে যাবার চেষ্টা করছে।



লাইন ধরে প্লেনে উঠলাম। এই প্লেনটা বিশাল বড়! জায়গাও বেশি। আরাম করে জানালার পাশেই বসলাম। এখানে এন্টারটেইনমেন্ট সিস্টেমও কাজ করছে। আর মুভি হিসেবে "এমাজিং স্পাইডারম্যান ২", "ম্যান অফ স্টিল" সহ আরো অনেক মুভি দেখাচ্ছিল। সব মিলিয়ে প্রায় ৪০ টার উপর মুভি, তার সাথে ড্রামা সিরিয়াল, কার্টুন, কম্পিউটার গেমস - সবকিছুই আছে।







যাত্রা তখনও শুরু হয়নি। টরন্টো আর মাত্র ৮ হাজার ২০৮ কিমি দূরে







এবার আমার যাত্রাপথের সাথী মধ্যবয়সী দুজন আলবেনিয়ান স্বামী-স্ত্রী। তখনও অবশ্য তাদের সাথে কথা হয়নি। পরে জেনেছি।



অল্প কিছুক্ষন পর আবার প্লেন আকাশে উড়ল। এবারের যাত্রা ১১ঘন্টার।



নিচে ইস্তানবুলের লাল চাদর











ইবোলা ভাইরাস সংক্রমন থামানোর জন্য, দেখলাম প্লেনে একটা বিশেষ স্প্রে দেয়া হলো। ভয়ংকর ব্যাপার!



ইবোলা ধরে কিনা, এই ভয় নিয়ে শুরু হলো টরন্টোর দিকে যাত্রা।



(চলবে)

মন্তব্য ২১ টি রেটিং +৭/-০

মন্তব্য (২১) মন্তব্য লিখুন

১| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৪ সকাল ৭:৪১

সাঈফ শেরিফ বলেছেন: আপনার পেশা কি?

ক্যানাডা গিয়েছিলাম ২০০৮ এ । মাস্টার্সও করেছি সেখানে। ২০১০ সালে নতুন নিয়ম করা হলো --তাতে করে ক্যানাডিয়ান ডিগ্রি, ক্যানাডিয়ান অভিজ্ঞতা আর কোন কিছুই কাজে লাগবেনা ইমিগ্রেশন পেতে। অথচ এককালে সেটা ছিল ডাল ভাতের মত ব্যাপার।

ক্যানাডার ইমিগ্রেশন এখন অনেকটা ভাগ্য/লটারির মত হয়ে গেছে, ২০০৯ থেকে ক্যানাডার মাটি কামড়ে পড়ে আছে, খুবই ভাল চাকুরি করছে, একজনকে চিনি এখনো ইমিগ্রেশন পায়নি। ২০১০-২০১৪ পি এইচ ডি করেও সম্প্রতি ইমিগ্রেশন প্রত্যাখ্যাত হয়েছে শুনেছি।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৪ সকাল ৯:১৩

কেএসরথি বলেছেন: আসলে আমি বলব না, যে এটা লটারীর মত। আমার কাছে মনে হয়, খুব সুক্ষ্ম চিন্তাধারনা করে এগিয়ে গেলে, কোন রকম জট-ঝামেলা ছাড়া ইমিগ্রেশন পাওয়া সম্ভব। তবে মাঝে মাঝে উটকো ঝামেলা এসে পড়ে, তখন আসলেই কিছু করার থাকে না।

আমি কাজ হিসেবে ম্যানেজারিয়াল এক্সপেরিয়েন্স দেখিয়েছি। আর ২০১০ এর নিয়মের কথা মনে আছে। আসলেই একটা চিন্তার কারন দাড়িয়ে গিয়েছিল। তবে তাদের কানাডিয়ান এক্সপেরিয়েন্স ক্লাসের আওতায় কিন্তু অনেক বাংলাদেশী স্টুডেন্টরা ১৪ মাসের মাঝেই পার্মানেন্ট রেসিডেন্সি পেয়ে গেছেন।

২| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৪ সকাল ৮:১২

ওয়ালিউর রহমান টুটুল বলেছেন: কানাডাতে আপনাকে স্বাগতম। নিজেকে সফল করার জন্য কানাডা যেমন একটি সুযোগের দেশ তেমনি তিমিরে তলানোর জন্যও এটি খুব উৎকৃষ্ট একটি জায়গা।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৪ সকাল ১০:৩২

কেএসরথি বলেছেন: কথা সত্য!!!

৩| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৪ সকাল ১০:০৬

এস.কে.ফয়সাল আলম বলেছেন: আপনার ভ্রমন অভিজ্ঞতা পড়ে দুধের স্বাধ অনেকটা ঘোলে মেটালাম :)

ভাল লেগেছে।
পরবর্তী পর্বের অপেক্ষায়।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৪ সকাল ১০:৩৩

কেএসরথি বলেছেন: ধন্যবাদ ফয়সাল ভাই।

৪| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৪ দুপুর ১২:১১

তূর্য হাসান বলেছেন: প্রাঞ্জল বর্ণনা। ভালো লাগল।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৪ সকাল ১০:৩৫

কেএসরথি বলেছেন: ধন্যবাদ তূর্য ভাই।

৫| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৪ দুপুর ২:১৪

কান্ডারি অথর্ব বলেছেন:


আপনার সাথে কানাডায় এসে পৌঁছলাম। অনেক ভাল লাগছে সিরিজটা +++

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৪ সকাল ১০:৩৭

কেএসরথি বলেছেন: ধন্যবাদ সময় নিয়ে পড়ার জন্য।

৬| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৪ বিকাল ৩:২৯

ক্যপ্রিসিয়াস বলেছেন: ধন্যবাদ দারুন সব ছবি ও বর্ণনা জন্য
পরবর্তী পর্বের অপেক্ষায় রইলাম।

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৪ সকাল ১০:৩৯

কেএসরথি বলেছেন: ধন্যবাদ সময় নিয়ে পড়ার জন্য কাপ্রিসিয়াস ভাই।

৭| ৩০ শে আগস্ট, ২০১৪ বিকাল ৫:১০

বাকি বিল্লাহ বলেছেন: চলুক...

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৪ সকাল ১০:৪০

কেএসরথি বলেছেন: ধন্যবা।দ ।

৮| ৩১ শে আগস্ট, ২০১৪ সকাল ১০:২৭

সোহানী বলেছেন: ভাই আপনি যদি এ্যামিরেটস্ এ যেতেন তাহলে টের পেতেন যাত্রী সেবা কাহাকে বলে। এ্যামিরেটস্ এর স্টাফরা বাঙ্গালীদের মানুষ হিসেবে ট্রিট করে না।

তবে ইস্তাম্বুল এয়ারপোর্ট মিস করেছেন একটুখানি কারন তাদের কিছু দারুন সপ, স্যুভেনির, হালুয়া সব মিলিয়ে দেখার মতো একটি এয়ারপোর্ট... দুবাই এয়ারপোর্ট এর মতো বড় না হলে ও ছোট কিন্তু গোছানো।

যাহোক দু'ঘন্টায় রিস্ক নেননি সেটা ঠিক আছে তবে আমার একবার ডেসেলড্রাফ থেকে দুবাই ২৫ মিনিটে প্লেন ধরতে জান মোটামুটি হাতে নিয়ে দৈাড়িয়েছিলাম।

প্রান্জল লিখায় +++++

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৪ রাত ১১:৪০

কেএসরথি বলেছেন: ঠিক বলেছেন। মিডল ইস্টের লোকজনেরা আমাদের তো মানুষই মনে করে না। ইস্তানবুলে কিছু টা সময় কাটানো গেলে মন্দ হতো না, তবে ঐ যে সব সময় চিন্তায় থাকি, তাই তাড়াহুড়া করেই প্লেন ধরি।

২৫ মিনিটে প্লেন ধরা আসলেই একটা অসম্ভব কাজ। কিন্তু সেই অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন আপনি ;)

৯| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৪ সকাল ১১:০০

আমি সাদমান সাদিক বলেছেন: ভাল লাগল ।।

১৯ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৪ রাত ১১:৪০

কেএসরথি বলেছেন: ধন্যবাদ সাদমান সাদিক :)

১০| ২০ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৪ রাত ১২:০০

আবু শাকিল বলেছেন: ছবি গুলা অনেক সুন্দর হইছে।ছবির মত =p~ =p~

বিমানে দেয়া খাবারের যে ছবি দিয়েছেন তা খুব সস্তা মানের মনে হচ্ছে।
কোন এয়ারলাইন্স ???

২২ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৪ রাত ৮:৩৯

কেএসরথি বলেছেন: কমেন্টের জন্য ধন্যবাদ ভাইয়া।

আপনার কথা ১০০% সত্য। খাবারের মান খুবই বাজে ছিল। এটা ছিল ঢাকা থেকে ইস্তানবুল পথের খাবার। অথচ ইস্তানবুল থেকে টরন্টো যাবার খাবার কিন্তু ভালই দিয়েছে। ব্যাটারা ঢাকা থেকে যাবার সময়ই এই রকম বাজে সার্ভিস দেয়। হয়ত মনে করে "ঢাকা থেকে তো গরু-গাধারাই উঠবে, ওদের জন্য ঘাস-পাতা রাখলেই চলবে"। X(


টার্কিশ এয়্যারলাইন্স।

১১| ০২ রা সেপ্টেম্বর, ২০১৫ সকাল ৯:০৭

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: বেশ লাগছে আপনার কানাডার ভ্রমণ কাহিনী, সই সাথে ভীন দেশকে জানার মতো ছবিগুলো, শুভেচ্ছা

১২| ১৪ ই জুন, ২০১৮ সকাল ১১:৩৮

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: সুন্দর। আপনার সাবলীল লেখা পড়ে ভালো লাগলো।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.