নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

কংক্রিটের জঞ্জালে একজন সাধারণ মানুষ।

অগ্নিপাখি

প্রতিদিন হাজারো মানুষ হারিয়ে যায়, আমি সেই হারিয়ে যাওয়া মানুষদেরই একজন। ভালবাসি বই পড়তে, বই সংগ্রহ করতে, স্ট্যাম্প জমাতে, ভালো মুভি দেখতে, মাঝে মাঝে লেখালেখি করতে, ভালবাসি কবিতা আর ভালবাসি একা একা পুরনো ঢাকায় ঘুরে বেড়াতে। হুমায়ুন আহমেদ আমার প্রিয় লেখক। এছাড়া অন্যান্য লেখকদের বইও ভালো লাগে। অন্যান্য লেখকদের মধ্যেঃ আহমদ ছফা, মোহাম্মদ জাফর ইকবাল, আনিসুল হক, নিমাই ভট্টাচার্য, শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস, জাহানারা ইমাম, সৈয়দ মুজতবা আলী, শহীদ জহির রায়হান, সত্যজিৎ রায়, তারাশঙ্কর, বিভূতিভূষণ, সুনীল, সমরেশ , খূশবন্ত সিং, এলান পো, এরিখ মারিয়া রেমার্ক, মার্ক টোয়েন, ম্যাক্সিম গোর্কি, ভিক্টর হুগো, ফ্রাঞ্জ কাফকা এর লেখাও অনেক বেশী ভালো লাগে। মুক্তিযুদ্ধ আমার অন্যতম পছন্দের একটা বিষয়। মুক্তিযুদ্ধের উপর লেখা যে কোন বই পেলে কিনে পড়ি। ঘৃণা করি যুদ্ধাপরাধী রাজাকারদের। এইতো এই আমি।

অগ্নিপাখি › বিস্তারিত পোস্টঃ

ছবি ব্লগঃ পৃথিবীর ১৫ টি রহস্যময় স্থান

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ বিকাল ৪:২৭

১. The Door to Hell/ Turkmenistanঃ



১৯৭১ সালে সোভিয়েত প্রকৌশলীরা তুর্কমেনিস্তান এর কারাকুম মরুভূমিতে তেলের সন্ধানে এটি খনন করেছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে তেলের পরিবর্তে গ্যাস পাওয়া যায় এবং প্রকৌশলীরা দুর্ঘটনার আশংকায় গ্যাস পোড়ানর জন্য আগুন ধরিয়ে দেন। তারা ধারনা করেছিলেন সম্পূর্ণ গ্যাস নিঃশেষ হতে সপ্তাহখানেক সময় লাগবে। কিন্তু আজও সে আগুন জ্বলছে।

২. Ship Graveyard in Muynak/ Uzbekistan:



একসময়ের সমৃদ্ধ বন্দরনগর আজ এরকম পুরনো ভুতুড়ে জাহাজের আশ্রয়স্থল।

৩. Jatinga (Assam) / India:



ভারতের আসাম রাজ্যর “দিমা বাসাও” জেলাতে অবস্থিত এই গ্রামের নাম জাতিঙ্গা। বছরের একটি নির্দিষ্ট সময় এ গ্রামের আকাশ হতে শত শত পাখি ইচ্ছাকৃত ভাবে মাটিতে পড়ে মৃত্যুকে বরন করে।

৪. Oradour Sur Glane (Ghost Town)/ France:



নাজি অধ্যুষিত ফ্রান্স এর এই গ্রামে ১৯৪৪ সালের ১০ ই জুন কুখ্যাত “এস এস” (স্কুতস্তাফেল) বাহিনী ৬৪২ জন নারী শিশু ও পুরুষকে নির্বিচারে হত্যা করে।

৫. Hoia Bacio Forest/ Romania:



এ ভৌতিক অরণ্যটি রোমানিয়ার পশ্চিমে “Cluz Napoca” তে অবস্থিত। এই অরণ্যকে বলা হয় “বারমুডা ট্রায়াঙ্গল অফ রোমানিয়া”। কথিত আছে অদ্ভুত ধরনের গাছের এই বনে মানুষ প্রবেশ করলে আর ফিরে আসে না। অনেকে এই অরণ্যকে “গেইট ওয়ে টু অ্যানাদার ডাইমেনসন” বলে থাকে।

৬. Leap Castle/ Ireland:



আয়ারল্যান্ড এর সবচেয়ে ভৌতিক প্রাসাদ বলা হয় এই “লিপ ক্যাসল” কে। ১২৫০ খ্রিষ্টাব্দে “Tiege O’ Carroll” এই প্রাসাদে একজন যাজক কে তার পরিবারের সামনে হত্যা করে। একই সময়ে তিনি তার বড় ভাইকেও হত্যা করেন নিষ্ঠুর ভাবে যা “দ্যা ব্লাডি চ্যাপেল কিলিং” নামে পরিচিত। ১৯২২ সালে এই প্রাসাদের গোপন কুঠুরি থেকে অসংখ্য মানুষের কঙ্কাল আবিষ্কৃত হয়। বলা হয় এদের অত্যন্ত নিষ্ঠুর ভাবে হত্যা করা হয়েছিলো।

৮. Akodesseua Fetish Market/ Togo:



টোগো এর রাজধানী লোমে তে অবস্থিত এই অদ্ভুত বাজারে কালো জাদু ও ভুদু এর সব উপকরন পাওয়া যায়।

৯. Centralia (Ghost Town) Pennsylvania/ United States of America:



১৯৬২ সালে ভূগর্ভস্থ খনিতে এক ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পড়ে এই শহরের রাস্তায় ফাটল দেখা দেয় এবং ঘরবাড়ি ভেঙ্গে যেতে থাকে। ১৯৮১ তে এই ভুতুড়ে শহরে মাত্র ১০০০ জন অধিবাসী ছিল যা ২০১০ এ মাত্র ১০ জনে নেমে আসে। বর্তমানে এই শহরটি পুরোটাই ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। তবুও এখনও কিছু মানুষ এখানে বসবাস করে।

১০. Island of Dolls/ Mexico:



“জুলিয়ান সান্তানা বারেরা” যিনি এই দ্বীপে একাকী বসবাস করতেন কোন একদিন তার ঘরের সামনের খাড়িতে এক বাচ্চা মেয়ের মৃতদেহ ভেসে আসতে দেখেন। মৃতদেহের যথাযথ সৎকার এর পরবর্তীতেই অনেক বাতিল ভয়ংকর দর্শন পুতুল একই জায়গা থেকে ভেসে আসতে থাকে। জুলিয়ান এই পুতুল গুলোকে গাছের সাথে বেধে রেখেছিলেন এই ভেবে যে এতে মৃত মেয়েটির আত্মা শান্তি পাবে। বলা হয় পুতুলগুলো জীবিত এবং এরা রাতে দ্বীপে ঘুরে বেরায়। রাতে অনেক অদ্ভুত শব্দ শুনতে পাওয়া যায় এই দ্বীপে। অনেক ফিসফিসানি, কথা বলবার আওয়াজ, কান্নার শব্দ, হেটে বেড়ানোর শব্দ আরও অনেক কিছু।

১১. Hashima Island (Ghost Island)/ Japan:



খনিতে কর্মরত শ্রমিকদের ও তাদের পরিবারদের বাসস্থান হিসেবে এই দ্বীপ গড়ে তোলা হয়েছিলো। ১৯৭৪ সালে পরিত্যাক্ত ঘোষণা করা হয় এই দ্বীপ। এই দ্বীপটি জাপানের অন্যতম প্রধান পর্যটন আকর্ষণ। ২০১৫ সালে এই দ্বীপটিকে UNESCO- “World Heritage Site” বলে ঘোষণা করে।

১২. Pripyat/ Ukraine:



তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের অন্তর্গত ইউক্রেন এর দক্ষিনে অবস্থিত এই শহরটি গড়ে তোলা হয় চেরনোবিল এর পরমানু বিজ্ঞানীদের জন্য। পরবর্তীতে ভয়াবহ চেরনোবিল দুর্ঘটনার পড়ে এই শহরটি পরিত্যাক্ত ঘোষণা করা হয়। এখনও এখানে তেজস্ক্রিয়তার উপস্থিতি আছে।

১৩. Hanging Coffins of Sagada/ Philippines:



ফিলিপিনের ইগ্রাত আদিবাসী গোষ্ঠী বিশ্বাস করে যে মৃত্যুর পড়ে ভুমির উপরে তাদের শায়িত করা হলে (উচু জায়গায়) তারা স্বর্গের কাছাকাছি থাকবে। তাই তারা এখনও কেউ মারা গেলে তাদের কফিন উচু জায়গায় পাহাড়ের কিনারে ঝুলিয়ে রাখে।

১৪. Poveglia/ Italy:



১৭৯৩-১৮১৪ পর্যন্ত ইতালির এই দ্বীপে দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যাক্তিদের আটক রাখা হত। ১৯২০ সালে এই দ্বীপে একটি মানসিক হাসপাতাল তৈরি করা হয়। বলা হয় যে চিকিৎসক এই হাসপাতাল পরিচালনার দায়িত্তে ছিলেন তিনি নাকি মানসিক রোগীদের উপর ভয়াবহ সব নিষ্ঠুর পরীক্ষা চালাতেন এবং হত্যা করতেন। এই চিকিৎসক ও একদিন দ্বীপের একটি উচু টাওয়ার থেকে পড়ে যান- যদিও এতো উপর থেকে পড়েও সে মারা যায়নি কিন্তু লোকশ্রুতি অনুযায়ী কিছুক্ষণ পরই অদ্ভুত কুয়াশা চারদিক ছেয়ে ফেলে এবং সেই হত্যাকারী চিকিৎসক কেও আর কেউ খুঁজে পায় নি।

১৫. Aokigahara Forest (Suicide Forest)/ Japan:



ফুজি পর্বতমালার পাদদেশে অবস্থিত জাপানের কুখ্যাত অরণ্য এইটি। প্রতি বছর অনেক হতাশ মানুষ এই বনে এসে আত্মহত্যা করে। আত্মহত্যা নিরুতশাহিত করবার জন্য এই অরণ্যর প্রবেশমুখেই লেখা আছে – ““Your life is a precious gift from your parents,” and “Please consult the police before you decide to die!” আত্মহত্যা করবার জন্য এইটি পৃথিবীর দ্বিতীয় জনপ্রিয় স্থান।

মন্তব্য ৩০ টি রেটিং +৯/-০

মন্তব্য (৩০) মন্তব্য লিখুন

১| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ বিকাল ৪:৩৮

প্রামানিক বলেছেন: অনেক কিছু জানা হলো। ধন্যবাদ

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ বিকাল ৪:৪৩

অগ্নিপাখি বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ। ভালো থাকবেন।

২| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ বিকাল ৪:৪৯

স্পর্শিয়া বলেছেন: অসাধারণ ভালো লাগলো।

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ বিকাল ৪:৫৫

অগ্নিপাখি বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে পোস্টে সময় দেবার জন্য।
ভালো থাকবেন।

৩| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ বিকাল ৫:০৮

নাবিক সিনবাদ বলেছেন:

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ সন্ধ্যা ৬:০৩

অগ্নিপাখি বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ।

৪| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ বিকাল ৫:১২

দেশ প্রেমিক বাঙালী বলেছেন: চমৎকার পোষ্ট।

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ সন্ধ্যা ৬:০৪

অগ্নিপাখি বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে।
ভালো থাকবেন।
আমার ব্লগে স্বাগতম

৫| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ বিকাল ৫:৩৮

মোঃ সাকিব সরোয়ার বলেছেন: খুবই ভালো লেগেছে, চমৎকার পোস্ট। লেখককে অনেক ধন্যবাদ !!!

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ সন্ধ্যা ৬:০৪

অগ্নিপাখি বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ।

৬| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ সন্ধ্যা ৬:০৮

রহস্যময় ডিটেকটিভ ঈশান বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে।অনেক অজানা জিনিস জানতে পারলাম।

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ৮:০৭

অগ্নিপাখি বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ।

৭| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ সন্ধ্যা ৬:১১

আজাদ হোসেন হৃদয় বলেছেন: চমৎকার পোস্ট।

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ৮:০৮

অগ্নিপাখি বলেছেন: ধন্যবাদ।
ভালো থাকবেন,।

৮| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ সন্ধ্যা ৭:০২

ডাঃ মারজান বলেছেন: ভাই জটিল পোস্ট। অতি আনন্দ পেলুম!

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ৮:০৯

অগ্নিপাখি বলেছেন: আপনাকে আনন্দ দিতে পেরে আমিও আনন্দিত।
ভালো থাকবেন।

৯| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ৮:২০

কেএসরথি বলেছেন: সুন্দর পোস্ট।

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ৮:৩৯

অগ্নিপাখি বলেছেন: ধন্যবাদ।

১০| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ৮:২৫

জুন বলেছেন: ব্যাখ্যাতীত রহস্যময় স্থানগুলোর ইতিহাস জানা হলো। আরো কত আশ্চর্য জনক কাহিনী যে লুকিয়ে আছে এই ধরাতে তার খবর আমরা কেই বা জানি।।ে তব পাখিদের মৃত্যু বড্ড করুন লাগলো ।

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ৮:৪০

অগ্নিপাখি বলেছেন: ঠিক বলেছেন।
ধন্যবাদ পোস্টে সময় দেবার জন্য।

১১| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ৮:৩৯

রিকি বলেছেন: জায়গাগুলোতে একবার করে ঘুরে আসতে মন চাই...রহস্য ডাকে 'আয় আয়' ! :( পোস্টে অনেক অনেক ভালোলাগা রইল. :) :) :)

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ৮:৪১

অগ্নিপাখি বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনাকে।
ভালো থাকবেন।

১২| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ১০:৫৫

ঢাকাবাসী বলেছেন: দুর্দান্ত পোস্ট, দারুণ ভাল লাগল্ ।

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ১১:১৮

অগ্নিপাখি বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনাকে সময় দেবার জন্য।

১৩| ১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ১১:২৮

হাসান মাহবুব বলেছেন: ভালো পোস্ট।

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৫ রাত ১১:৩০

অগ্নিপাখি বলেছেন: ধন্যবাদ।

১৪| ২৫ শে অক্টোবর, ২০১৫ রাত ১২:০৮

ঠ্যঠা মফিজ বলেছেন: অনেক তথ্য সমৃদ্ধ্য পোস্টের জন্য ধন্যবাদ ।

২৫ শে অক্টোবর, ২০১৫ ভোর ৪:১৬

অগ্নিপাখি বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ।

১৫| ৩১ শে ডিসেম্বর, ২০১৫ রাত ৩:০৬

রক্তিম দিগন্ত বলেছেন: ইহা আমার জন্য অত্যাবশ্যকীয় এক পোষ্ট। +
প্রিয়তে জমা রাখলাম।

০২ রা জানুয়ারি, ২০১৬ বিকাল ৫:৫৬

অগ্নিপাখি বলেছেন: নতুন বছরের শুভেচ্ছা। পোস্টে সময় দেবার জন্য ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.