নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

কংক্রিটের জঞ্জালে একজন সাধারণ মানুষ।

অগ্নিপাখি

প্রতিদিন হাজারো মানুষ হারিয়ে যায়, আমি সেই হারিয়ে যাওয়া মানুষদেরই একজন। ভালবাসি বই পড়তে, বই সংগ্রহ করতে, স্ট্যাম্প জমাতে, ভালো মুভি দেখতে, মাঝে মাঝে লেখালেখি করতে, ভালবাসি কবিতা আর ভালবাসি একা একা পুরনো ঢাকায় ঘুরে বেড়াতে। হুমায়ুন আহমেদ আমার প্রিয় লেখক। এছাড়া অন্যান্য লেখকদের বইও ভালো লাগে। অন্যান্য লেখকদের মধ্যেঃ আহমদ ছফা, মোহাম্মদ জাফর ইকবাল, আনিসুল হক, নিমাই ভট্টাচার্য, শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়, আখতারুজ্জামান ইলিয়াস, জাহানারা ইমাম, সৈয়দ মুজতবা আলী, শহীদ জহির রায়হান, সত্যজিৎ রায়, তারাশঙ্কর, বিভূতিভূষণ, সুনীল, সমরেশ , খূশবন্ত সিং, এলান পো, এরিখ মারিয়া রেমার্ক, মার্ক টোয়েন, ম্যাক্সিম গোর্কি, ভিক্টর হুগো, ফ্রাঞ্জ কাফকা এর লেখাও অনেক বেশী ভালো লাগে। মুক্তিযুদ্ধ আমার অন্যতম পছন্দের একটা বিষয়। মুক্তিযুদ্ধের উপর লেখা যে কোন বই পেলে কিনে পড়ি। ঘৃণা করি যুদ্ধাপরাধী রাজাকারদের। এইতো এই আমি।

অগ্নিপাখি › বিস্তারিত পোস্টঃ

ছবি ব্লগ ঃ কুমিল্লা ভ্রমন

০২ রা মে, ২০১৬ বিকাল ৩:২২

গত মার্চ মাসের শেষের দিকে কাজের প্রয়োজনেই যাওয়া হয়েছিলো বাংলাদেশের পূর্বের সুন্দর সাজানো গোছানো ও ঐতিহাসিক শহর কুমিল্লাতে। কাজের ফাকে ফাঁকেই ছবিগুলো তোলা।


কুমিল্লা দাউদকান্দিতে মহাসড়কের ঠিক পাশে স্বাধীনতা স্তম্ভ।


শহরের রাস্তা ধরে হাঁটতে হাঁটতে দেখতে পেলাম একটি ব্যাপ্টিস্ট চার্চ ।


কুমিল্লা যাবার পথে বাসের জানালার পাশে বসে সূর্যাস্ত। কানে তখন বাজছিল আমার অনেক প্রিয় একটি গান - "জানি দেখা হবে।"


কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান "ভিক্টোরিয়া কলেজ"। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ ১৮৯৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। রায় বাহাদুর আনন্দ চন্দ্র রায় রানী ভিক্টোরিয়ার নামে এটি প্রতিষ্ঠা করেন।


কুমিল্লার আরেকটি ঐতিহাসিক স্থান কান্দিরপাড় এর "মহারাজ বীরচন্দ্র মানিক্য বাহাদুর পাঠাগার" । ১৮৮৫ সালে তৎকালীন জেলা প্রশাসক এফ এইচ স্ক্রাইন ত্রিপুরা জেলার চাকলা রোশনাবাদের জমিদার নরেশ মহারাজ ‘বীরচন্দ্র মানিক্য বাহাদুর ’- এর কাছে পাঠাগার তৈরীর নিমিত্ত জমি প্রদানের অনুরোধ জানান । মহারাজ কুমিল্লা শহরের প্রাণকেন্দ্র কান্দিরপাড়ে ১০ বিঘা জমির উপর একটি ভবন নিজস্ব অর্থায়নে করে দেন। এটিই এখন কুমিল্লার গনপাঠাগার ও নগর মিলনায়তন, যা কুমিল্লা টাউন হল নামে পরিচিত। এ টাউন হলে পদধূলি দিয়েছেন মহাত্মা গান্ধী, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস, মওলানা ভাসানী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ অনেক বরেণ্য ব্যাক্তি।










কুমিল্লার ঐতিহাসিক "ধর্মসাগর" এর কিছু আলোকচিত্র। ত্রিপুরা রাজ্যের অধিপতি মহারাজ ধর্মানিক্য ১৪৫৮ সালে জনগনের পানি ও জলের সুবিধার জন্য এ দীঘি খনন করেন।

















































"শালবন বৌদ্ধ বিহার" এর আলোকচিত্র।

কুমিল্লা ময়নামতির ঐতিহাসিক "শালবন বৌদ্ধ বিহার" । ধারণা করা হয় যে খৃষ্টীয় সপ্তম শতাব্দীর শেষ থেকে অষ্টম শতাব্দীর প্রথম ভাগে দেববংশের চতুর্থ রাজা শ্রীভবদেব এ বৌদ্ধ বিহারটি নির্মাণ করেন। শালবন বৌদ্ধ বিহার বাংলাদেশের প্রাচীন সভ্যতার নিদর্শনগুলোর মধ্যে অন্যতম। কুমিল্লা জেলার লালমাই-ময়নামতি প্রত্নস্থলের অসংখ্য প্রাচীন স্থাপনাগুলোর একটি এই বৌদ্ধ বিহার।



















"ওয়ার সিমেট্রি" এর ভেতরের কিছু আলোকচিত্র

ওয়ার সিমেট্রি বাংলাদেশের কুমিল্লাতে অবস্থিত একটি কমনওয়েলথ যুদ্ধ সমাধি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে বার্মায় সংঘটিত যুদ্ধে যে ৪৫০০০ কমনওয়েলথ সৈনিক নিহত হন, তাদের স্মৃতি রক্ষার্থে মায়ানমার (তৎকালীন বার্মা), আসাম, এবং বাংলাদেশে ৯টি রণ সমাধিক্ষেত্র তৈরি করা হয়েছে। বাংলাদেশে দুটি কমনওয়েলথ রণ সমাধিক্ষেত্র আছে, যার একটি কুমিল্লায় এবং অপরটি চট্টগ্রামে অবস্থিত। এই সমাধিক্ষেত্রটি "Commonwealth War Graves Commission (CWGC)" কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ও তারাই এ সমাধিক্ষেত্র পরিচালনা করেন। প্রতি বছর নভেম্বর মাসে সকল ধর্মের ধর্মগুরুদের সমন্বয়ে এখানে একটি বার্ষিক প্রার্থনাসভা অনুষ্ঠিত হয়।
সমাধিক্ষেত্রটিতে ৭৩৬টি কবর আছে। এর মধ্যে অধিকাংশ কবর হল সে সময়কার হাসপাতালের মৃত সৈনিকগণের। তাছাড়াও যুদ্ধের পর বিভিন্ন স্থান থেকে কিছু লাশ স্থানান্তর করেও এখানে সমাহিত করা হয়। বাহিনী অনুযায়ী এখানে রয়েছেন ৩ জন নাবিক, ৫৬৭ জন সৈনিক এবং ১৬৬ জন বৈমানিক। সর্বমোট ৭২৩ জন নিহতের পরিচয় জানা সম্ভব হয়েছিল।

এই স্থানগুলো ছাড়াও কুমিল্লাতে আরও ঐতিহাসিক স্থান আছে ঘুরে আসার মতো। তবে আমি সময় স্বল্পতার জন্য অন্য কোথাও যেতে পারিনি। তবে যে কয়দিন এই সুন্দর জেলা শহরটিতে ছিলাম- এর সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়েছি।

* প্রতিটি ছবির নিচের তথ্যগুলো ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত।


মন্তব্য ৮ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (৮) মন্তব্য লিখুন

১| ০২ রা মে, ২০১৬ বিকাল ৪:০৫

অহনাব বলেছেন: ধন্যবাদ পোস্টের জন্য।

০২ রা মে, ২০১৬ রাত ৯:৩৮

অগ্নিপাখি বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ পোস্টে সময় দেবার জন্য।

২| ০২ রা মে, ২০১৬ বিকাল ৪:৩৯

হাসান মাহবুব বলেছেন: এবার কুমিল্লায় গেলে ধর্মসাগরটা দেখবো। ওটা বাকি আছে।

০২ রা মে, ২০১৬ রাত ৯:৩৯

অগ্নিপাখি বলেছেন: ধর্মসাগর জায়গাটা খুবই সুন্দর। চারিদিকে সবুজ আবার পাশে সুন্দর হেটে চলা পথ। এক কথায় অসাধারণ।

৩| ০২ রা মে, ২০১৬ সন্ধ্যা ৬:১০

সুমন কর বলেছেন: আমিও কিছু দিন আগে কুমিল্লা থেকে ঘুরে এলাম। আজ আপনার পোস্টের মাধ্যমে আবার ঘুরলাম।

শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

০২ রা মে, ২০১৬ রাত ৯:৪০

অগ্নিপাখি বলেছেন: আপনাকেও ধন্যবাদ।
ভালো থাকবেন।

৪| ১৮ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৩৭

নালু বলেছেন: একটা ছবিতে নিজেকে দেখতে পেলাম। ভালো লাগলো। মেমরি ফিরে পেলাম।

২২ শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১২:৩৮

অগ্নিপাখি বলেছেন: ব্লগার নালুকে ধন্যবাদ পোস্টে সময় দেবার জন্য।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.