নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

এক সময় ভুল লেখা দেখলে গা ছমছম করে উঠতো। এখন বুঝি অনেকটা মানিয়ে নিয়েছি! বইয়ে ভুল-খাতায় ভুল-ব্যানারে ভুল-সাইনবোর্ডে ভুল-অনলাইনে ভুল-অফলাইনে ভুল- ভুল, ভুল আর ভুল। যেন ভুলেরই রাজ্যে আমাদের বসবাস। প্রিয় মাতৃভাষা বাংলার এই দুরবস্থা দর্শনে মর্মাহত হই। সামু ব্লগে

নতুন নকিব

যবে উৎপীড়িতের ক্রন্দল-রোল আকাশে বাতাসে ধ্বনিবে না, অত্যাচারীর খড়্গ কৃপাণ ভীম রণ-ভূমে রণিবে না- বিদ্রোহী রন-ক্লান্ত। আমি সেই দিন হব শান্ত।

নতুন নকিব › বিস্তারিত পোস্টঃ

বাইতুল্লাহর মুসাফির (পর্ব-১)

১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১০:১৯


আলহামদুলিল্লাহ। ছুম্মা আলহামদুলিল্লাহ। সকল ছানা, শুকরিয়া, প্রশংসা, স্তুতি কেবলমাত্র আমার মহান রবের জন্য যিনি তাঁর পবিত্র আলয়ে তাঁর ঘরের পানে, মক্কাতুল মুকাররমায় ডেকে নিয়েছেন এই অধমকে। কালো গিলাফে আবৃত তাঁর ঘরের সৌন্দর্য-সৌকর্য সচক্ষে দেখার সুযোগ দিয়েছেন।

প্রিয়তম রবের প্রিয় ঘর দেখে দেখে এ অতৃপ্ত নয়ন দু'ফোটা অশ্রুর নজরানা পেশ করতে পেরেছে। এত দিন দূরে ছিলাম, প্রিয় কা'বা কে বাস্তবের চোখে দেখিনি। হৃদয়ের অনুভবে কা'বা ছিল মূর্তমান। আর আজ সকল বাধা বিপত্তি পেরিয়ে হাজার হাজার মাইলের দূরত্বকে পেছনে ফেলে প্রিয় কা'বার সম্মুখে নিজেকে ভাবতেও হৃদয় ভরে ওঠে।

চর্মচক্ষে প্রথম কা'বা দর্শন:
২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭। বাইরের চত্বর পেরিয়ে গুটি গুটি পায়ে ক্রমশ: কা'বার ভেতরের দিকে যখন অগ্রসর হচ্ছিলাম অন্যরকম এক অনুভূতিতে হৃদয় মন আচ্ছন্ন হয়ে আসছিল। 'বিসমিল্লাহি অচ্ছলাতু অসসালামু আলা রসূলিল্লাহ আল্লাহুম্মাফতাহলি আবওয়াবা রহমাতিক' -বলে আব্দুল আযীয গেইট দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করে একটু অগ্রসর হতেই প্রথমে নজরে পরে প্রিয় কা'বার একাংশ। আল্লা্হু আকবার! চোখ অজান্তেই অশ্রু বর্ষন করছে! হৃদয় বিগলিত হচ্ছে! অন্তর চৌচির হচ্ছে! আমার রবের ঘর! পৃথিবীর প্রথম ঘর! আমার মালিকের ঘর! আমার সামনে! আল্লাহু আকবার! আমার মালিক, আমার রব, তিনি কতইনা ক্ষমাশীল! আমার মত গোনাহগার অধমকেও তিনি তাঁর ঘর দেখার কিসমত দিয়েছেন! মুখ থেকে অজান্তেই অস্ফুটে বেরিয়ে আসে পরম প্রিয় স্বত্বার শোকর-শুকরিয়া- 'আয় আল্লাহ, আপনি কতই না মহান! আপনার শান প্রকাশ করে- ক্ষমতা কার! আপনি কাউকে বঞ্চিত করেন না। সকলের তরে আপনার রহম অবারিত।'

আস্তে আস্তে সামনে অগ্রসর হচ্ছি আর প্রিয় কা'বার সান্নিধ্য-সন্নিকট্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু আমার মন তখন হারিয়ে গেছে অন্য কিছুতে। অন্য চিন্তায়। অন্য ভাবনায়। অন্য সময়ে। এখন থেকে প্রায় দেড় হাজার বছর পূর্বে। এই কা'বায়ই তো নামাজ পড়তেন প্রিয় রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। এই চত্বরেই তো তাঁর পবিত্র মস্তকে সিজদারত অবস্থায় উটের নাড়িভূঁড়ি চাপিয়ে দিয়েছিল দুষ্ট কাফিরগন। এই প্রিয় প্রাঙ্গনেই তো তিনি উপবিষ্ট হতেন তাঁর প্রিয় সাহাবায়ে কেরামকে সাথে নিয়ে। এখানের পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে প্রিয় নবীজীর কতইনা স্মৃতি। পদধূলি। পদস্পর্শ। আহ ধন্য এ মাটি! কতই না মোবারক তোমার কিসমত!

এসকেলেটরে করে ধীরে ধীরে নেমে এলাম নীচে। মাতাফে। এবার পুরোপুরি কা'বার সামনে। উম্মুক্ত কা'বা। আমার সামনে। কালো গিলাফে ঢাকা। প্রিয়তম কা'বা। স্বপ্নের মত লাগছে। কা'বার সামনে আমি! আমার সামনে কা'বা! কোন পর্দা ছাড়াই! কোন দূরত্ব ছাড়া! আল্লাহু আকবার! পোড়া চোখ মানে না। পাপে দগ্ধ ভোঁতা দৃষ্টি তাকাতে চায়। এবং তৃষ্ণার্ত চাতকের মত করে ভেজা চোখে তাকালাম। পূর্ন চোখে। কা'বা দেখছি। বিস্ময়াবিভূত হচ্ছি! কা'বার সৌন্দর্যে! কালো গিলাফের এত সৌন্দর্য থাকে!

বিভিন্ন সময় সংগৃহীত পবিত্র কা'বা শরীফের কিছু অসাধারন ছবি যুক্ত করে দেয়া হল। আল্লাহর ঘরের সৌন্দর্য্য প্রত্যক্ষ করার অভিপ্রায়ে মুখিয়ে থাকেন যারা। আশা করি ভাল লাগবে প্রত্যেকের।


কা'বা শরীফের দরজা। যাকে মুলতাযাম বলা হয়। এটি দোআ কবুল হওয়ার জায়গা।


কা'বা শরীফের দরজার আরেকটি ছবি।


মুসল্লিদের ভীরে টইটম্বুর পবিত্র কা'বা যেন জনসমুদ্র।


অচিন্ত্যনীয়! প্রার্থনাকারীবিহীন পবিত্র কা'বার এক ঝলক।


পুরো কা'বা কম্পাউন্ডের অনুপম দৃশ্য।


রৌদ্রকরোজ্জ্বল পবিত্র কা'বা।


উপর থেকে নেয়া অন্যরকম একটি ভিউ।


অল্প সংখ্যক তাওয়াফকারী আর রৌদ্রজ্জ্বল বাইতুল্লাহ।


কাছে থেকে তোলা অন্যরকম বাইতুল্লাহর ছবি।


অনন্য সাধারন আরেকটি ছবি।

কষ্ট করে মূল্যবান সময় ব্যয় করে এই ব্লগটি যারা পাঠ করলেন শুভকামনা প্রত্যেকের জন্য। এবং যারা করেন নি তাদের প্রতিও শুভেচ্ছা অফুরান। আল্লাহ পাক প্রত্যেক প্রার্থনাকারীর প্রার্থনা কবুল করুন। আমীন।

চলবে...

মন্তব্য ৪২ টি রেটিং +১০/-০

মন্তব্য (৪২) মন্তব্য লিখুন

১| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৫৬

জাহাঙ্গীর কবীর নয়ন বলেছেন: মাশাআল্লাহ। অত্যন্ত চমৎকার পোস্ট। ছবিগুলো পোস্ট করে সওয়াবের অংশীদার করবার জন্য ধন্যবাদ। জাযাকুমুল্লাহ।

১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ দুপুর ১২:০১

নতুন নকিব বলেছেন:



জাযাকুমুল্লাহ খাইর। পোস্টটি দেখে আপনার নয়ন যদি সামান্য শীতলতা অনুভব করে থাকে তাতেই শোকরিয়া। আল্লাহ পাক প্রত্যেক ইচ্ছুক প্রার্থী ব্যক্তিকে তাঁর পবিত্র ঘরের মুসাফির হওয়ার তাওফিক দিন।

সত্যি বলেছেন, মহান মালিকের পবিত্র এ ঘরের প্রতি অন্তরের টান নিয়ে দৃষ্টিপাত করলে নিসন্দেহে সওয়াব লাভ হয়।

ভাল থাকুন প্রিয় ভাই।

২| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৪:৩৪

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: পরের পর্বের আশায় রইলাম নকিব ভাই।

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১০:৪৬

নতুন নকিব বলেছেন:



ইনশাআল্লাহ দ্রুত সময়ে পরের পর্ব প্রকাশের চেষ্টা থাকবে।

আপনি ভাল আছেন নিশ্চয়ই। অনেক অনেক শুভকামনা। ভাবী সাহেবাকেসহ দাওয়াত থাকল গরিবের আলয়ে।

৩| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৪:৩৭

ওমেরা বলেছেন: ইনশাআল্লাহ ! আগামি বছর যাবার ইচ্ছা আছে ।ধন্যবাদ নকীব ভাইয়া শেয়ারের জন্য ।

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১০:৪৯

নতুন নকিব বলেছেন:



আল্লাহ পাক আপনার সদিচ্ছা পূরন করুন। আগামি বছর আপনার জন্য হজ্বে মাকবুল মাবরূর নছীব করুন। পোস্টে এসে কষ্ট করে পাঠ ও মন্তব্যে অভিনন্দন অন্তহীন।

৪| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৫৭

সনেট কবি বলেছেন:





কবি নতুন নকিবের‘ পোষ্টে মন্তব্য-

আপনি দেখে এলেন ভেজা চোখে প্রিয়
ক্বাবা যাতে পড়ে থাকে আল্লাহর মন
অনবরত খুশিতে ভরপুর হয়ে
দেখায় আবেগ নিজ বিনয়ী বান্দার।
প্রভু দেখে বান্দাদের দলে দলে হেথা
আগমন, যারা সব আবেগ তাড়িত
কৃতজ্ঞ মনের মাঝে জড়িয়ে আচ্ছন্ন
আল্লাহুম্মা লাব্বাইক ধ্বনিতে সর্বত্র।

আমাদের প্রিয় কবি গিয়েছেন সেথা
সেজন্য শুকরিয়ার নিমিত্তে অন্তর
বিনম্র যাতে প্রত্যাশা হোক তা’ কবুল।
পরিশেষে নিজ মনে অনুরূপ জাগে
কামনা, নিজ নসিবে সৌভাগ্য ঝুটার
আল্লাহর ঘরখানি স্বচক্ষে দেখার।

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১০:৫৩

নতুন নকিব বলেছেন:



প্রিয় কবি,
কেমন আছেন? আশা করি নিশ্চয়ই ভাল আছেন। পরিবার পরিজন নিয়ে। সনেট নিয়ে এসে বরাবরের মত উৎসাহিত করে কৃতজ্ঞতায় আবদ্ধ করলেন আবারও।

অন্তর থেকে দোআ করছি- পরিবার পরিজনসহ আপনার জন্যও দ্রুততম সময়ে প্রিয় বাইতুল্লাহ পানে হাজিরা দেয়ার তাওফিক দান করুন মহান মালিক।

৫| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:০২

মলাসইলমুইনা বলেছেন: কিছুই বলতে ইচ্ছে করছে না ! হাজার বার ব্যাখ্যা (কাবার) ছবিগুলো আবারো চেয়ে চেয়ে দেখলাম ! মনটা গেঁথে রেখেছি মাকামে ইব্রাহীমে |আল্লাহ কোনোদিন যাবার সুযোগ দেবেন, সেই অপেক্ষায় আছি | অনেক ধন্যবাদ |

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:০০

নতুন নকিব বলেছেন:



আহ! কতই না সুন্দর করে বলেছেন- 'মনটা গেঁথে রেখেছি মাকামে ইব্রাহীমে |আল্লাহ কোনোদিন যাবার সুযোগ দেবেন, সেই অপেক্ষায় আছি |'

বিশ্বাস করছি- আপনার মত সিক্ত হৃদয়ের অধিকারীকে তিনি তাঁর ঘরে অবশ্যই ডেকে নিয়ে নিবেন। এবং অচিরেই।

৬| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:০৫

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: আলহামদুলিল্লাহ্
আপনার হজ্ব কবুল হোক কামনায়

খুব খুশি হলাম শ্রদ্ধেয় কবিবর

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:০৩

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনার উচ্ছৃাস আল্লাহ পাক কবুল করুন। প্রার্থনাও। আপনার খুশিকে যেন স্থায়ী করে দেন তিনি।

দীর্ঘ দিন ব্লগ থেকে দূরে ছিলাম। আপনার সময় নিশ্চয়ই ভাল কাটছে।

৭| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:১৩

হাফিজ হুসাইন বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে এত সুন্দর পোষ্ট দেয়ার জন্য।

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:০৪

নতুন নকিব বলেছেন:



জাযাকুমুল্লাহ খাইরান ফিদ্দারাইন।

আল্লাহ পাক প্রত্যেক ইচ্ছুক প্রার্থী ব্যক্তিকে তাঁর পবিত্র ঘরের মুসাফির হওয়ার তাওফিক দিন।

ভাল থাকুন প্রিয় ভাই।

৮| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৪৩

মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান বলেছেন: আমিন, হে, আল্লাহু আমাকে কবুল করো, তোমার কাবা দেখা ও তাওয়াফ করার জন্য, সুম্মা আমিন।

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:০৮

নতুন নকিব বলেছেন:



আয় আল্লাহ! আপনি আপনার বান্দা মোঃ ছিদ্দিকুর রহমানের অন্তরের গহীনে লুকিয়ে থাকা প্রার্থনা কবুল করুন। অশ্রু সিক্ত নয়নে করা তার কাঁকুতিগুলো আপনি মঞ্জুর করুন। আপনার পবিত্র ঘরে ডেকে নিয়ে তাপিত হৃদয়ে প্রশান্তির পরশ বুলিয়ে দিন।

৯| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ রাত ৮:১১

তারেক ফাহিম বলেছেন: খুব সুন্দর পোষ্ট করেছেন কাবা ঘরের।
আল্লাহ আমাদেরকেও পবিত্র কাবা তাওয়াফ করার তৌফিক দান করুক.. আমিন।

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:১৬

নতুন নকিব বলেছেন:



প্রিয় ফাহিম ভাই,
কা'বা তো কেবল তাদেরই প্রিয়, কা'বার মালিকের সাথে যাদের রয়েছে গোপন-প্রকাশ্য সখ্য। পবিত্র কা'বা নিয়ে পোস্ট দেখলে তো ঐ সকল অন্তর প্রশান্তিতে ভরে উঠবেই।

আপনার দোআ আল্লাহ পাক কবুল করুন। আপনার বাইতুল্লাহয় গমন মঞ্জুর করুন। সাথে সাথে আমাদের জন্যও আবারও, বার বার প্রিয় বাইতুল্লাহ পানে ছুটে যেতে পারি, হাজিরা দিতে পারি তাঁর ঘরের চৌকাটে- তাঁর দরবারে আলিশানে সেই তাওফিক প্রার্থনা করছি।

১০| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ রাত ৮:২০

শখের লেখায় ২৩৪৩ বলেছেন: আল্লাহ আমাদেরকেও পবিত্র কাবা তাওয়াফ করার তৌফিক দান করুক.. আমিন।

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:১৯

নতুন নকিব বলেছেন:



প্রিয় শখের লেখায় ২৩৪৩,
আল্লাহ পাক আপনার নেক দোআ কবুল করুন।

আপনার বাইতুল্লাহয় হাজির হওয়ার ইচ্ছাকে কবুল করুন। সেই সাথে আমাদের মত গোনাহগারদের জন্যও আবারও, বার বার প্রিয় বাইতুল্লাহ পানে ছুটে যেতে পারি, হাজিরা দিতে পারি তাঁর ঘরের চৌকাটে- তাঁর দরবারে আলিশানে সেই তাওফিক প্রার্থনা করছি। আমীন।

১১| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১০:১৯

উম্মে সায়মা বলেছেন: কা'বার প্রতি আপনার মন নিংড়ানো আবেগ দেখে ভীষণ ভালো লাগল। আল্লাহ আপনার উমরাহ্‌ কবুল করুন।

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:২১

নতুন নকিব বলেছেন:



আল্লাহুম্মা আমীন।

সম্মানিত বোন উম্মে সায়মা,
আল্লাহ পাক আপনার দোআ কবুল করুন। আপনার ভাল লেগেছে জেনে সত্যি আনন্দিত।

আল্লাহ পাক আপনাকেও তাঁর ঘরের জিয়ারতকারী, মুহাব্বতকারী হিবেবে কবুল করুন।

১২| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১১:১৫

মাহিরাহি বলেছেন: আল্লাহ আমাদেরকেও পবিত্র কাবা তাওয়াফ করার তৌফিক দান করুন।

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:২৪

নতুন নকিব বলেছেন:


আল্লাহুম্মা আমীন।

প্রিয় মাহিরাহি,
মহান আল্লাহ আপনার প্রানের আঁকুতি রক্ষা করুন। দ্রুতই তাঁর ঘরের যাত্রীদের কাতারে আপনাকে কবুল করুন।

১৩| ১২ ই অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১১:৪৪

ইমরান আশফাক বলেছেন: আপনাকে হজ মুবারক। আমিও এবার হজ করে বাংলাদেশে ফিরলাম (১২ জন ফামিলি মেমবারসহ) গত ৫ই অক্টবার। ওখানে বারবার যেতে চাই যদি আল্লাহপাক তৌফিক দেয়। আপনার পোস্ট পড়ে নস্টালজিয়ায় আক্রান্ত হলাম।

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৩০

নতুন নকিব বলেছেন:



মা-শাআল্লাহ। আলহামদুলিল্লাহ।

প্রিয় আশফাক ভাই,
আপনি তো মহাসৌভাগ্যবানদের অন্যতম! ১২ জনকে সাথে নিয়ে হজ্ব করে এসেছেন। সুবহানাল্লাহ! আল্লাহ পাক আপনাদের সকলের হজ্বকে হজ্বে মাকবুল-মাবরূর হিসেবে কবুল করুন।

আহ! আপনার মত আমিও যদি পরিবার-পরিজন নিয়ে আমার প্রভূ মহিয়ানের ঘরের সামনে সিজদাবনত হতে পারতাম! আবারও ফোটা ফোটা অশ্রুতে গন্ডদেশ ভেজাতে পারতাম! কেঁদে কেঁদে বুকের ভেতরে জমানো ব্যথাগুলো উপড়ে ফেলতে পারতাম! আপনার কাছে দোআ চাচ্ছি।

আল্লাহ পাক আপনাকে দীর্ঘজীবি করুন। তাঁর ঘরের জিয়ারতে প্রতিবার কবুল করুন। আমীন।

১৪| ১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১২:০২

জাহিদ অনিক বলেছেন:

কথিত আছে শুনেছি, যত উপরেই ওঠা যাক, যে ক'তলার উপরেই ওঠা যায় কাবার কালো ঘরকেই নাকি সবথেকে উঁচু বলে মনে হয়, সেটা কি সত্যি ?

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৩৩

নতুন নকিব বলেছেন:



আসলে অনেকে না জেনে কিংবা না দেখে কিছু কিছু ক্ষেত্রে অতিভক্তি অথবা অন্ধভক্তি বশত: অতিরঞ্জন করে কোন কোন কথা বলে থাকেন। এটাও সেরকমই।

১৫| ১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১২:৩৬

কালীদাস বলেছেন: ২২ তারিখ; ওমরা করতে গিয়েছিলেন নাকি? ক্যামেরা নিয়ে ঢোকা যায় কাবা চত্বরে? ছবিগুলো সুন্দর এসেছে।
আহ, কবে যে হজ্ব করতে যাব!

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৪৪

নতুন নকিব বলেছেন:



যতটুকু শুনেছি- হজ্বের পূর্বে এবং পরে একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ওমরাহ কার্যক্রম সম্ভবত: বন্ধ থাকে। এটা সম্ভবত: সুষ্ঠুভাবে হজ্ব কার্যক্রম পরিচালনার জন্য করা হয়ে থাকে।

প্রিয় ভাই,
জ্বি, হজ্বের উদ্দেশ্যে গিয়েছিলাম। ক্যামেরা নিয়ে ওরকমভাবে কাউকে কা'বা চত্বরে ঢুকতে দেখি নি। তবে ক্যামেরার আর দরকার কি! উঁচু মানের মোবাইল ফোনই তো ক্যামেরার কাজের জন্য যথেষ্ট।

আপনার কাছে ছবির সৌন্দর্য্য বর্ননা শুনে ভাল লেগেছে।

'আহ, কবে যে হজ্ব করতে যাব!'

-এই যে ছোট্ট অথচ ধারালো 'আহ' শব্দে বুকের ভেতরের হাহাকার প্রকাশ পেয়েছে এতেই মনে হচ্ছে আপনার হজ্বের ইমিগ্রেশন মঞ্জুর হয়ে গেছে। আসমানওয়ালা মহান মালিকের পক্ষ থেকে।

ইনশাআল্লাহ, যাবেন অচিরেই।

১৬| ১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১:০৯

আবু তালেব শেখ বলেছেন: দারুন সৌভাগ্য

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৪৫

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনারও অর্জন হোক।

১৭| ১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৭:২২

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: ভালোলাগা জানিয়ে গেলাম

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৪৬

নতুন নকিব বলেছেন:



কামাল ভাই,
আপনিতো মনে হয় আগেই মালিকের ডাকে সাড়া দেয়ার সৌভাগ্য অর্জন করেছিলেন।

আপনার উপস্থিতি প্রেরনা দেয়।

১৮| ১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:০৪

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
কাবা এলাকায় নারী-পুরুষ হাত ধরাধরি করে হাটতে পারে, (আপনার ছবিতে দেখা যাচ্ছে) পাসাপাসি নামাজ পড়তে পারে।
এসব কাবার বাইরে মক্কা বা জেদ্দার রাস্তায় পারে না কেন?

১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:৫০

নতুন নকিব বলেছেন:



প্রিয় কালবৈশাখী,
ক্ষমা চাচ্ছি। এক্সাক্ট এ্যানসারটা আমি বলতে পারব না।

আপনি ভাল আছেন তো? আপনার মঙ্গল প্রার্থনা করছি।

১৯| ১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ বিকাল ৩:১৪

জুন বলেছেন: আপনার ছবিগুলো দেখে চোখ শীতল হলো । না হলে সব সময় তো পেপার পত্রিকা , টিভিতে মারা মারি হানা হানির ছবি দেখতে দেখতে ক্লান্ত হয়ে পড়েছি ধ্রুবক আলো। আমার এক আত্মীয় হজ্বে যাবার দুদিন আগে মারা গেলেন আর আমার বাতিল হয়ে গেলো । মনে করি সবই আল্লাহর ইচ্ছা ।

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:২২

নতুন নকিব বলেছেন:



পবিত্র বাইতুল্লাহর প্রিয় ছবিগুলো আপনার চোখ শীতল করেছে জেনে সত্যি আনন্দিত।

বিশ্বাসীদের অন্তরের ভেতরে এই প্রিয়তম কা'বার একটি সংরক্ষিত আসন যে সারাক্ষন বিদ্যমান। চক্ষু-অন্তর শীতলতা লাভ করবে এটাইতো স্বাভাবিক।

আত্মীয় বিয়োগজনিত কারনে আপনার যাওয়া হয় নি শুনে দু:খ প্রকাশ করছি। পরবর্তী বছরে ইনশাআল্লাহ আবার চেষ্টা করবেন আশা করি। আল্লাহ আপনার হজ্ব কবুল করুন।

২০| ১৩ ই অক্টোবর, ২০১৭ রাত ১১:১৭

নীল-দর্পণ বলেছেন: ভাল লাগল দেখে।
আল্লাহ জীবনে একবার হলেও যাতে নেন তাঁর ঘরে সেই আশা করি

১৪ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ১১:২৪

নতুন নকিব বলেছেন:



অবশ্যই যাবেন, ইনশাআল্লাহ। আল্লাহ পাকের রহমত সঙ্গী হলেই এটা সহজ। তাঁর সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের চেষ্টা হল আমাদের কাজ। বাকিটা তাঁরই দায়িত্ব।

আল্লাহ পাক আপনার আশা পূরন করুন।

২১| ১৫ ই অক্টোবর, ২০১৭ সকাল ৯:৩০

শামছুল ইসলাম বলেছেন: আমীন ।

আল্লা্হু আকবার! চোখ অজান্তেই অশ্রু বর্ষন করছে! হৃদয় বিগলিত হচ্ছে! অন্তর চৌচির হচ্ছে! আমার রবের ঘর! পৃথিবীর প্রথম ঘর! আমার মালিকের ঘর! আমার সামনে! আল্লাহু আকবার! - লেখাটা পড়তে পড়তে অসম্ভব রকমের আবেগে হৃদয় ভরে গেল ।
শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা ।

১৫ ই অক্টোবর, ২০১৭ দুপুর ২:৫৩

নতুন নকিব বলেছেন:



প্রিয় শামছুল ইসলাম ভাই,
আল্লাহ পাক আপনার হৃদয়ে তাঁর ভালবাসার আসনকে মজবুত করে দিন। তাঁর ঘরের জিয়ারতের খোশ কিসমত দান করুন। আমীন।

শুভকামনা আর শুভাশীষ অশেষ আপনার জন্যও।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.