নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আলহামদুলিল্লাহ। যা চাইনি তার চেয়ে বেশি দিয়েছেন প্রিয়তম রব। যা পাইনি তার জন্য আফসোস নেই। সিজদাবনত শুকরিয়া। প্রত্যাশার একটি ঘর এখনও ফাঁকা কি না জানা নেই, তাঁর কাছে নি:শর্ত ক্ষমা আশা করেছিলাম। তিনি দয়া করে যদি দিতেন, শুন্য সেই ঘরটিও পূর্নতা পেত!

নতুন নকিব

যবে উৎপীড়িতের ক্রন্দল-রোল আকাশে বাতাসে ধ্বনিবে না, অত্যাচারীর খড়্গ কৃপাণ ভীম রণ-ভূমে রণিবে না- বিদ্রোহী রন-ক্লান্ত। আমি সেই দিন হব শান্ত।

নতুন নকিব › বিস্তারিত পোস্টঃ

ভয়ঙ্কর গুহায় আটকে পড়া থাই ক্ষুদে ফুটবলারদের শ্বাসরুদ্ধকর উদ্ধার অভিযান এবং ব্লগার জুন এর অনন্য সাধারন নাগরিক জার্নালিজম

১১ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৪২



আলহামদুলিল্লাহ! মহান আল্লাহর দরবারে সিজদাবনত শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি- সকল শঙ্কা-দুশ্চিন্তা কাটিয়ে অবশেষে বাচ্চাগুলো নিরাপদে মায়ের কোলে ফিরে আসায়। দেশ-বিদেশের উদ্বিগ্ন সকল আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা। উদ্ধার অভিযানে অংশগ্রহনকারী অসম সাহসী সকলকে অভিনন্দন। উদ্ধার কাজে জীবন দেয়া নেভি সিলের সদস্য অকুতোভয় বীর ডুবুরি থাই নেভি সিল সদস্য সামান গুনানকে অভিবাদন। তিনি অমর হয়ে বেঁচে থাকবেন বিশ্বজুড়ে অগনন মানুষের হৃদয়ে ভালবাসায়। ইতিহাসের পাতায়। তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা সর্বান্তকরনে।

এছাড়া থাই নৌবাহনীর দক্ষ কর্মীবৃন্দ, ব্রিটেন ও অষ্ট্রেলিয়ার সুদক্ষ দু:সাহসী ডাইভারগনসহ উদ্ধার অভিযানে অংশগ্রহনকারী টেকনিক্যাল টিমের সকল যোদ্ধাকে প্রানঢালা অভিনন্দন।

চিয়াং রাই এর প্রাক্তন গভর্নর নারাংসাক এর প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি এই জন্য যে, শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত রুদ্ধশ্বাস এই উদ্ধার অভিযানে অপরিমেয় পারদর্শিতা, অসাধারন দক্ষতা এবং অভাবনীয় নির্লিপ্ততায় তিনি নিয়োজিত রেখেছেন নিজেকে। এবং এমন অনিশ্চয়তায় ভরপুর একটি বিপজ্জনক অভিযানকে ১০০% সফলতার সাথে সমাপ্ত করতে সক্ষম হয়েছেন। অনাগত পৃথিবীর জন্য অভূতপূর্ব এই অভিযান নতুন একটি ইতিহাস হয়ে থেকে যাবে।

আর আমাদের সামু ব্লগের তারকা দক্ষ ব্লগার জুন অকল্পনীয় আন্তরিকতায় যেভাবে সপ্তাহাধিককাল যাবত দিনের পর দিন পুরো উদ্ধার অভিযানটিকে বাংলাভাষাভাষীদের সামনে তুলে ধরেছেন, প্রতিনিয়ত আপডেট দিয়ে লেটেস্ট সংবাদাদি অবহিত করেছেন অতিব দ্রুততায়। তার প্রতি জানাচ্ছি হৃদয় নিংড়ানো শুভকামনা। তিনিও সৃষ্টি করলেন অনুকরনীয়, অনুসরনীয় এবং অসাধারন একটি দৃষ্টান্ত। তাকে অন্তরের অন্ত:স্থল থেকে অনি:শেষ অভিনন্দন। তার এই শ্রমসাধ্য কর্মটি তাকে তুলে ধরেছে অনন্য উচ্চতায়। তার বিখ্যাত সেই পোস্টে তার যোগ্যতার অকপট স্বীকারোক্তি এবং স্বীকৃতি রেখে গেছেন গুনীজনদের অনেকে। তার সেই পোস্টে থাইল্যান্ডের গুহায় ১৮ দিন ধরে আটকে থাকা কিশোর ফুটবল টিমের কোচ সহ ১৩ জনের সবাই উদ্ধার.. সাফল্যের সাথে শেষ হলো এক অবিশ্বাস্য অভিযান ব্লগার আহমেদ জী এস এবং বিদ্রোহী ভৃগু -এর মন্তব্য দু'টি এখানে তুলে আনাটা প্রাসঙ্গিক মনে করছি-

আহমেদ জী এস বলেছেন: থাই গুহায় আটকে পড়া শিশুদের উদ্ধারে পৃথিবীর বাঘা বাঘা ডুবুরীদের মতো প্রচন্ড দক্ষতা আর আন্তরিকতা নিয়ে আপনিও একটি শ্বাসরূদ্ধকর, উৎকন্ঠিত অবস্থা থেকে আমাদেরকেও উদ্ধার করার পর্ব (আপডেট) চালিয়ে যাচ্ছেন অবলীলায়।

রান্নাঘরের হাতা-খুন্তি ঠেলার পাশাপাশি ব্লগে নাগরিক জার্নালিজমের একটি সঠিক ও অনুকরনীয় দৃষ্টান্ত দেখিয়ে গেলেন আপনি।থাইল্যান্ডের গুহায় ১৮ দিন ধরে আটকে থাকা কিশোর ফুটবল টিমের কোচ সহ ১৩ জনের সবাই উদ্ধার.. সাফল্যের সাথে শেষ হলো এক অবিশ্বাস্য অভিযান


বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আলহামদুলিল্লাহ!

একে একে সুস্থ ভাবে নিরাপদেই বেরিয়ে আসছে সবাই!
উদ্ধারঅভিযানের বীর সৈনিকদের সশ্রদ্ধ সালাম। সরকারকেও সাধূবাদ সর্বোচ্চ প্রয়োরিটি দিয়ে সফল উদ্ধাকাজের জন্য।
একজন নাগরিকের মূল্য, একটা জীবনের মূল্য কত এমন ঘটনায় বোঝায় যায়!
আমাদের মানবতাবোধ জাগরিত হোক এমনি উচ্চতায়!
শুধু বিরোধীতায় প্রাণ কেড়ে নেয়া নয়- সর্বাবস্থায় একটা জীবন বাঁচানোই হোক পণ।

আমাদের পত্রিকাগুলৌর আগেই আপনার কল্যানে আপডেট পেয়ে যাচ্ছি এখানে।
এ কঠিন কাজে আপনার অবদানে হ্যাটস অফ অভিবাদন। :)


পরিশেষে, সামহোয়্যার ইন ব্লগ কর্তৃপক্ষকে আন্তরিক মোবারকবাদ এবং অভিনন্দন জানাচ্ছি ব্লগার জুন এর পোস্টটিকে স্টিকি করে তারা তাদের অনন্য দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেয়ায়। তাদের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা।

মন্তব্য ২৩ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (২৩) মন্তব্য লিখুন

১| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৫

ঠ্যঠা মফিজ বলেছেন: অশেষ কৃতজ্ঞতা জানাই ব্লগার জুন আপাকে সাংসারিক ব্যস্ততার মাঝেও আপডেট দিয়ে আমাদের জানানের জন্য একই
সাথে আরো কৃতজ্ঞতা জানাই সামহোয়্যার ইন ব্লগ কর্তৃপক্ষকে যে তারা সকলকে অবগত করার জন্য পোস্টটি স্টিকি
হিসেবে নির্বাচন করার জন্য। সাথে আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ বিষয়টি তুলে ধরার জন্য।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৮:১৮

নতুন নকিব বলেছেন:



জ্বি, ব্লগার জুন অসাধারন একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন, যা রীতিমত পেশাদার সাংবাদিকদেরও হার মানায়। আর এডভেঞ্চারে পূর্ন পোস্টটির গায়ে আলতো করে পিন ঠুকিয়ে প্রথম পাতার শীর্ষে ঝুলিয়ে দিয়ে এটিকে স্টিকি করে কর্তৃপক্ষ যথাযথ দায়িত্বশীলতার আরেকটি নজির রেখেছেন।

আপনার কৃতজ্ঞতা প্রত্যেক পক্ষ গ্রহন করবেন- প্রত্যাশা আমাদের।

আপনাকেও অসংখ্য অভিনন্দন প্রথম কমেন্টে অতি মূল্যবান কিছু কথা রেখে যাওয়ায়। অনেক ভাল থাকবেন।

২| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:০২

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
চমৎকার জুন বন্দনা।
ধন্যবাদ আপনাদের উভয়কে।
জুন আপুকে তার প্রাপ্ত সম্মন
প্রদানের জন্য নতুন নকিবকে
আন্তরিক ধন্যবাদ।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৮:২৩

নতুন নকিব বলেছেন:



বন্দনা না করে কি উপায় আছে! বন্দনার কাজ যে করেছেন তিনি! শুধু বন্দনা করলেও তো অনেক কম হয়ে যায়, নূরু ভাই! তার প্রাপ্য হিসেবে তাকে যথাযোগ্য পুরষ্কারে ভূষিত করা উচিত আমাদের এবং সামু কর্তৃপক্ষের। আমার বিশ্বাস, আজ হোক কাল হোক, তিনি এ সম্মান প্রাপ্ত হবেন ইনশা-আল্লাহ। তার জন্য শুভকামনা। কৃতজ্ঞতা এবং শুভাশীষ নিরন্তর আপনার জন্যও।

৩| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:১৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


জুন ঘটনাটিকে ক্রমাগতভাবে অনুসরণ করে, সঠিক তথ্য দিয়ে, বেশ দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৮:৩০

নতুন নকিব বলেছেন:



সেটাই বলার ছিল। সংসার সামলে, সাংসারিক নানাবিধ কর্মব্যস্ততার ভেতরে থেকে এই কাজটুকুই কতজন এমন নিখুঁত, নিপুন এবং গভীর নির্লিপ্ততায় করে যেতে পারেন? আরও ভাবনার বিষয় হয় তখনই যখন দেখি তিনি একজন নারী, যাকে যুগপত সামালাতে হয় রান্নাঘর থেকে শুরু করে গোটা সংসারের দায়দায়িত্ব। তার থেকে এরকম অসাধ্য সাধন হতে দেখলে কৃতজ্ঞতায় আপ্লুত হতে হয় অলক্ষেই।

অনেক ভাল থাকবেন চাঁদগাজী ভাই। আপনার চোখের অবস্থার উন্নতি হয়েছে কিছুটা?

৪| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:২২

রাজীব নুর বলেছেন: যাকে বলে জীবন বাজি রেখে কাজ করা- তিনি তাই করে দেখালেন। মানুষগুলোকে উদ্ধারে থাই সরকার সবার সহযোগিতা নিয়েছেন। বিভিন্ন দেশের উদ্ধারকারীরা ছিলো এই টিমে। আর আমাদের দেশে এক রানা প্লাজা উদ্ধারে লেগে যায় দিনের পর দিন- পার্থক্যটা এখানেই।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৮:৪১

নতুন নকিব বলেছেন:



একদম পারফেক্ট বলেছেন। জীবন বাজির মতই ছিল তার অব্যহত উপস্থাপনা। যেন সুদূর থাইল্যান্ডের বিখ্যাত ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ থাম লুয়াং গুহা মুখে দাঁড়িয়ে তিনি। সেখান থেকে প্রতিনিয়ত আপডেট দিচ্ছেন উদ্ধার অভিযানের প্রতিটি ঘটনা সচক্ষে দেখে দেখে। তার পোস্টে সামুর পাতায় পাঠকদেরও তিনি আটকে রাখতে পেরেছেন অভিনব দক্ষতায় উদ্ধার অভিযানের শেষ পর্যন্ত। পোস্ট পাঠকরাও যেন গুহা মুখের সাক্ষাত দর্শক ছিলেন। উদ্ধার অভিযানের তারাও যেন গর্বিত অংশিদার হয়েছেন।

বাংলাদেশ থাইল্যান্ডের এই সফল উদ্ধার অভিযানের ঘটনা থেকে শিক্ষা নিতে পারে। নেয়া উচিত। তা না হলে আবার যদি রানা প্লাজা ধ্বসের মত বৃহত কোনো বিপর্যয়ের মুখে আমাদের পড়তে হয়, একই ঘটনার পুনরাবৃত্তিই হয়তো দেখা যাবে।

পাঠ এবং মন্তব্যে কৃতজ্ঞতা। ভাল থাকবেন অনেক।

৫| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০৫

সাহসী সন্তান বলেছেন: ব্লগে জুনাপুর কাজটা সত্যিই অসাধারন ছিল! আমার বিশ্বাস একজন পেশাদার সাংবাদিকও হয়তো প্রতিটা ক্ষনে ক্ষনে জুনাপুর মত এতটা নির্ভূল ভাবে খবরটা আমাদের সামনে প্রচার করতে পারতো না। হ্যাটস্ অফ টু জুন আপু... B-)

আপনাকেও ধন্যবাদ উনাকে নিয়ে সুন্দর একটা পোস্ট প্রকাশ করার জন্য! দু'জনকেই শুভ কামনা!

১২ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৮:৪৩

নতুন নকিব বলেছেন:



ব্লগে জুনাপুর কাজটা সত্যিই অসাধারন ছিল! আমার বিশ্বাস একজন পেশাদার সাংবাদিকও হয়তো প্রতিটা ক্ষনে ক্ষনে জুনাপুর মত এতটা নির্ভূল ভাবে খবরটা আমাদের সামনে প্রচার করতে পারতো না। হ্যাটস্ অফ টু জুন আপু... B-)

যোগ্যতম ব্যক্তিকে যথার্থ সম্মান জানিয়ে যাওয়ায় আপনার প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা।

আপনার প্রতিও শুভকামনা অনুক্ষন।

৬| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:১১

জোবাইর হাসান২৭ বলেছেন: আলহামদুলিল্লাহ, শুকরিয়া রাব্বে কারীমের দরবারে। আমাদের দেশ কবে যে এ সকল প্রযুক্তির দিক থেকে শক্তিশালী হবে আল্লাহই ভালো জানেন। সত্যি থাই সরকারের জনগণের প্রতি দায়বদ্ধতা অবাক করার মতো ঘটনার সাথে সাথে সকল ব্যবস্থা নেয়া আসলেই প্রসংশার যোগ্য।
আমাদের দেশ হলে এটাও একটা পলিটিক্যাল ইস্যু হয়ে ওরা ওই ঘটনাস্থলে মরে কঙ্কাল হয়ে পরকালে আবার জিন্দা হতো ।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৮:৫৪

নতুন নকিব বলেছেন:



অসাধারন একটি মন্তব্য রেখে গেলেন। কৃতজ্ঞতা।

আলহামদুলিল্লাহ, শুকরিয়া রাব্বে কারীমের দরবারে।

শুকরিয়া তো একমাত্র তাঁর দরবারেই। বাচ্চাদের জীবন তো তাঁরই হাতে। তিনিই তো এদের মৃত্যুর বিভীষিকা থেকে মাতৃক্রোড়ে ফিরিয়ে দিলেন। আমরাও বলেছি, আলহামদুলিল্লাহ।

আমাদের দেশ কবে যে এ সকল প্রযুক্তির দিক থেকে শক্তিশালী হবে আল্লাহই ভালো জানেন।

ঠিক বলেছেন। এটা আমাদের সত্যি জানা নেই। আল্লাহ পাকই ভালো জানেন। তবে কিছু কিছু আমাদের জানা থাকা উচিত ছিল।

সত্যি থাই সরকারের জনগণের প্রতি দায়বদ্ধতা অবাক করার মতো ঘটনার সাথে সাথে সকল ব্যবস্থা নেয়া আসলেই প্রসংশার যোগ্য।

বাংলাদেশ এ ঘটনা দেখুক। জনগনের প্রতি একটি দেশের, সরকারের দায়বদ্ধতার নজির দেখুক। আশা করি, দেখতে দেখতে বাংলাদেশও অনুসরনীয় দেশের কাতারে দাঁড়াবে একদিন।

আমাদের দেশ হলে এটাও একটা পলিটিক্যাল ইস্যু হয়ে ওরা ওই ঘটনাস্থলে মরে কঙ্কাল হয়ে পরকালে আবার জিন্দা হতো ।

হয়তোবা তাই। ওসব দেশে এত পলিটিক্স নেই। এত পলিটিক্যাল লিডার-ফিডারও নেই। এত এত ইস্যু-টিস্যুও নেই সম্ভবত:।

অনেক ভাল থাকবেন।

৭| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:১৮

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
ঘটনাটি বাংলাদেশে ঘটলে কি হতে পারতো কেউ কি কল্পনা করতে পারেন ??

১২ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:০০

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনার প্রশ্নটি ভাল। ধন্যবাদ। আত্মবিশ্লেষনের অভাবে আমাদের আজকের এই দুরবস্থা। এই প্রশ্নের উত্তর জোবাইর হাসান২৭ এর মন্তব্য (৬ নং) এবং তার প্রতিমন্তব্যে কিছুটা বোধ হয় এসে গেছে।

অনেক ভাল থাকবেন।

৮| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩২

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: আসলেই তাই।
ব্লগিংএ মাইলফলক হয়ে থাকবে জুনাপোর পোষ্ট।

সামুকেও ধন্যবাদ ষ্টিকি করায়।


++++

১২ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:০১

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনাকেও ধন্যবাদ। কৃতজ্ঞতা অশেষ এই পোস্টে এসে মূল্যবান মতামত রেখে যাওয়ায়।

অনেক ভাল থাকবেন। শুভ কামনা অনুক্ষন।

৯| ১১ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৫৩

আহমেদ জী এস বলেছেন: নতুন নকিব ,



মহান সৃষ্টিকর্তার দরবারে শুকরিয়া জানিয়ে, ভয়ঙ্কর গুহায় আটকে পড়া থাই ক্ষুদে ফুটবলারদের উদ্ধার অভিযানে নিয়োজিত সবাইকে আপনি জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে ধন্যবাদ জানিয়েছেন । এ থেকেই প্রমান করে দিলেন জুন এর ষ্টিকি পোস্টে তাঁরই করা অনেকটা এমন বক্তব্যের সত্যাসত্য -----
"সারা বিশ্ব জুড়ে পারমানবিক শক্তিধর দেশগুলোর ক্ষমতাধর নেতাদের আস্ফালন আর হুঙ্কার যতোই মানবতাকে তুচ্ছ জ্ঞান করুক, পৃথিবীর বাতাসে যতোই অস্ত্রের ঝনঝনানি বাজুক , মানবতা এখনও উধাও হয়ে যায়নি পৃথিবী থেকে । "

ব্লগার জুন এর অনন্য সাধারন নাগরিক জার্নালিজম দেখে , সেখানে দেয়া আমার ও "বিদ্রোহী ভৃগু"র মন্তব্য উল্লেখ করে; এই যে স্বপ্রনোদিত হয়ে পোস্টটি দিলেন তাতে আবারও প্রমান হলো - আমরা ব্লগাররা আসলেই এক প্রান ।
এ বন্ধন অটুট থাকুক ।

ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছান্তে ।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:১৭

নতুন নকিব বলেছেন:



"সারা বিশ্ব জুড়ে পারমানবিক শক্তিধর দেশগুলোর ক্ষমতাধর নেতাদের আস্ফালন আর হুঙ্কার যতোই মানবতাকে তুচ্ছ জ্ঞান করুক, পৃথিবীর বাতাসে যতোই অস্ত্রের ঝনঝনানি বাজুক , মানবতা এখনও উধাও হয়ে যায়নি পৃথিবী থেকে । "

ব্লগার জুন এর এই কথাকে অস্বীকার করার সাধ্য কার? অন্যায়, অনাচার আর অবিচার যতই বাড়ুক, পৃথিবী যতই উত্তপ্ত হোক, মানবতা যতই নিষ্পেষিত হোক, একটিমাত্র বিশ্বাসী মানুষ অবশিষ্ট থাকা অবস্থায়ও পৃথিবী ধ্বংস হবে না। অস্ত্রধারী ক্ষমতাধর দেশগুলোর সাম্রাজ্যলোভী নেতাগন, তেল, গ্যাস আর স্বর্ন লুটের হোতাগন বিশ্বময় যতই ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে রাখুন না কেন, মানবতা এখনও মরে যায়নি। মানবতা এখনও উবে যায়নি এ গ্রহ থেকে। এই মানবতার জন্যই টিকে আছে পৃথিবী। এই দৃষ্টান্ত যতদিন অব্যহত থাকবে পৃথিবী তার সৌন্দর্য্য হারাবে না। এই দৃষ্টান্ত হারিয়ে গেলে পৃথিবীও হারিয়ে যাবে ধ্বংসের অতল তলে।

আপনাদের মন্তব্যগুলোও ছিল অনন্য সাধারন। উপযুক্ত ব্যক্তিকে উপযুক্ত সম্মান দিতে পারাও কি কম কিছু! আপনাদের দু'জনের মন্তব্যই ছিল রীতিমত চমকপ্রদ।

এই পোস্টে আসায় পোস্টটি সম্মানিত হল। আপনাকে এবং খায়রুল আহসান ভাইকে নিবেদন করা আমার গতকালকের একটি ছোট্ট কবিতা ছিল। সম্ভবত: আপনার চোখে না ও পড়ে থাকতে পারে। লিঙ্কটি দিয়ে দিচ্ছি এখানে। সময় হলে দেখে এলে খুশি হব।

মমতার প্রলেপনে ব্যথা ভুলে যাও।

অনেক ভাল থাকবেন। শুভকামনা নিরন্তর।

১০| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১২:৩০

শামচুল হক বলেছেন: দুইজনকেই অভিনন্দন।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ৯:১৮

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনাকেও মোবারকবাদ। কৃতজ্ঞতা পাঠ এবং মন্তব্যে। অনেক ভাল থাকবেন।

১১| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৬

জুন বলেছেন: আমাকে নিয়ে এমন করে এতখানি বলার জন্য অনেক ধন্যবাদ নতুন নকিব। দুবার ঘুরে আসা মেসাইতে স্থানীয় পত্রিকা ও টিভিতে ২৪ শে জুন এমন একটি দুর্ঘটনার খবর শুনে উৎকন্ঠিত ছিলাম । যাই হোক সবার দোয়ায় তারা উদ্ধার হয়েছে বড় কোন বিপর্যয় ছাড়া এটাই বিশাল ব্যপার । ভালো থাকবেন সব সময় । শুভকামনা রইলো ।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৫৭

নতুন নকিব বলেছেন:



শত ব্যতিব্যস্ততার ভেতরেও আপনার এই শ্রম অনন্য সাধারন দৃষ্টান্ত হয়ে থেকে যাবে। আপনি যেভাবে নিরতিশয় যত্নে, নিপুন হাতের ছোঁয়ায়, গভীর উদ্বীগ্নতায় দিনের পর দিন উদ্ধার অভিযানের আদ্যোপান্ত বর্ননা করে গেছেন, আপডেট তুলে ধরেছেন, পেশাদার সাংবাদিকগনও কি এমনটা করেন? করলেও ক'জনে করেন? এটা সত্যি আমার কাছে অভাবনীয় লেগেছে। অবিশ্বাস্য আন্তরিকতায় আপনার অনবদ্য এই পোস্টে নিয়মিত যারা চোখ বুলিয়ে গেছেন, তারাও আপ্লুত হয়েছেন, দোআ করেছেন, প্রার্থনায় সিক্ত হয়েছেন। আমার ধারনা, বিশ্বময় অগনন মানুষের নি:সীম আন্তরিক শুভকামনাকে আল্লাহ পাক কবুল করে নিয়েছেন এবং বাচ্চাগুলোকে নিশ্চিত মৃত্যুর স্টেজ থেকে পুনরায় মাতৃক্রোড়ে ফিরিয়ে দিয়েছেন।

উদ্ধার অভিযানে আপনি, আমি কিংবা আমরা ছিলাম না। কিন্তু শুভকামনায়, বাচ্চাগুলোর সুস্থাবস্থায় ফিরে আসার পূর্ব পর্যন্ত আমাদের মন পড়ে ছিল সুদূরের সেই পাহাড়ের অচেনা গুহামুখে। তাই আমরাও একরকম উদ্ধারকর্মী যেন। আর আমাদের পেছনের ব্যক্তিটি নি:সন্দেহে আপনি।

পোস্টটি দেখে যাওয়ায় কৃতজ্ঞতা এবং শ্রদ্ধা অপরিসীম। প্রার্থনা, অনেক অনেক ভাল থাকবেন।

১২| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:১২

বিষাদ সময় বলেছেন: প্রথম তার পোষ্ট থেকেই ঘটানাটি সম্পর্কে জানি, তরাপর ক্রমাগত অকৃত্রিম আন্তরিকতায় আপডেট। ধন্যবাদ, প্রশংসা, শুভেচ্ছা এবং শুভকামনা সবই জুন আপার প্রাপ‌্য। আর সামু পোষ্ট স্টিকি করে এবং আপনি এই পোস্টটি দিয়ে তার কষ্ট ও আন্তরিকতার প্রতি শ্রদ্ধা দেখানোয় উভয়কে ধন্যবাদ।

১৫ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১০:৩১

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনার সুবিবেচিত মন্তব্যটি পেয়ে অনেক ভাল লাগলো। কৃতজ্ঞতা এবং নিরন্তর ভাল থাকবেন এটাই প্রত্যাশা।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.