নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

“নিতান্ত শায়িত আমি / কোথা আছি / কেউ তা জানে না শুধু / মাছেদের / রাষ্ট্রযন্ত্র তটস্থ / সমাজ / তারা জানে আমার / স্ট্যাটাস” -(ব্রাত্য রাইসু)

তাওহিদ হিমু

.

তাওহিদ হিমু › বিস্তারিত পোস্টঃ

সাবাস ভারত! সাবাস পাকিস্তান! হায়রে বিচারপতি এস কে সিনহা..

২৫ শে আগস্ট, ২০১৭ রাত ১০:৩১

ভারতে এক ধর্মগুরু বাবা রাম রহিমকে ধর্ষণের দায়ে কারাদণ্ড দেওয়া হচ্ছে, এজন্য তার লাখ লাখ উন্মত্ত ভক্ত সহিংস দাঙ্গা শুরু করেছে। আজ (২৫/০৮/২০১৭) বিকেলেই কয়েক ডজন লোক নিহত হয়ে গেছে। তবুও ভারতের আদালত তাকে জেলে পাঠিয়ে ছাড়ল। ভারতীয়দের কাছে কয়েক ডজন উন্মত্ত মানুষের জীবন ও কয়েক হাজার কোটি টাকার সম্পদ রক্ষার চেয়েও একজন অপরাধীকে আদালতের রায়ে বছর সাতেক জেলে রাখা বেশি গুরুত্বপূর্ণ।
অন্যদিকে পাকিস্তানের আদালত তাদের অভিজাত প্রতাপশালী প্রধানমন্ত্রী নওয়াজকে সরিয়ে দিল। একেই বলে আইনের শাসন!

আর আমাদের বাংলাদেশে শিক্ষিত/অশিক্ষিত আতিনেতা-পাতিনেতাও কথায় কথায় বিচারপতিদের ১৪ গোষ্ঠী উদ্ধার করে, আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আমাদের রাজনৈতিক দলগুলো কত রকম কর্মসূচি পালন করে। আমাদের আদালত গণতন্ত্রের স্বর্ণযুগে এসেও রাজনৈতিক নেতা-মন্ত্রী-প্রধানমন্ত্রীর পায়ের নিচে। একটু নিরপেক্ষতা বা স্বাধীনতা চর্চা করতে গেলেই সেই বিচারপতির কোমর ভেঙ্গে দেওয়া হয় এখানে। আফ্রিকার জঙ্গলের অবস্থাও হয়ত এর চেয়ে ভাল।

বিচারপতি এস কে সিনহারা যত হতভাগা, তার চেয়ে বেশি হতভাগা এই দেশের আম-আদমি, যারা গণতন্ত্রের স্বাদ আজও পেল না।
বর্বর পাকিস্তানি জানোয়ারেরাও সভ্য হয়ে যাচ্ছে, অসভ্য থেকে গেলাম আমরা বাঙালিরা।

মন্তব্য ৯ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৯) মন্তব্য লিখুন

১| ২৫ শে আগস্ট, ২০১৭ রাত ১১:০৫

নুর ইসলাম রফিক বলেছেন: আমাদের আদালত গণতন্ত্রের স্বর্ণযুগে এসেও রাজনৈতিক নেতা-মন্ত্রী-প্রধানমন্ত্রীর পায়ের নিচে।
অতিতে অনেক বিচারপতি ইচ্ছে পূর্বক এমনটা হয়েছেন।
হয়েছেন ও তাই।
এরই ধারাবাহিকতায় রাজনৈতিক নেতা-মন্ত্রী-প্রধানমন্ত্রীর পায়ের নিচে রাখতে চায়।
আর স্বাধিনতা খাঁচায়। কেউ কেউ সেই খাঁচাতে খোঁচায়।

২| ২৫ শে আগস্ট, ২০১৭ রাত ১১:০৮

উম্মু আবদুল্লাহ বলেছেন: ধর্ষনের দায়ে যার জেল হয়েছে তার মুক্তি চায় কি করে এরা। কি জঘন্য। সেই লোক যদি দোষী না হয়ে কারাদন্ড পেয়ে থাকে তাহলে সেইটার সমর্থনে মানুষকে জড়ো করুক। কিন্তু সহিংসতা কেন?

সাবাস ভারত। ধর্ষক যেই হোক তাকে জেলে ঢোকাতে পারে তারা। আর বাংলাদেশে? এখানে প্রকাশ্যে সেনচুরি উদযাপন করা হয়!!

২৫ শে আগস্ট, ২০১৭ রাত ১১:৩৫

তাওহিদ হিমু বলেছেন: আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে জড়ো হওয়াও আদালত অবমাননা। কারণ আদালত সত্য বিষয় বিবেচনায় নিয়ে সঠিক বিচার করেছে। রাষ্টের সকল নাগরিক একত্রে জড়ো হলেও সত্যকে মিথ্যা বা মিথ্যাকে সত্য করার সুযোগ নেই।

৩| ২৫ শে আগস্ট, ২০১৭ রাত ১১:৫২

উম্মু আবদুল্লাহ বলেছেন: " আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে জড়ো হওয়াও আদালত অবমাননা।"

আদালত অবমাননা নিয়ে আমার ধারনা খুব ভাল নয়। কিন্তু মিথ্যা সাক্ষ্যে যদি কারো কারাদন্ড হয়ে যায় সেইটা তো ন্যায় বিচার হয় না। আদালত যদি ভুল করে থাকে, যার উদাহরন পৃথিবীতে অজস্র, তবে মানুষ কোথায় গিয়ে ন্যায় বিচার পাবে?

২৬ শে আগস্ট, ২০১৭ রাত ১২:৪৭

তাওহিদ হিমু বলেছেন: সাক্ষ্য ভুল নাকি সঠিক, সেটা আদালত যাচাই করবে। বিজ্ঞ হাকিমগণ বুঝেন নি, মাদ্রাসার ভগ্নগাল ছেলেরা বুঝে যাবে, এমনটা হওয়া অসম্ভব প্রায়। তারপরও আদালত ভুল করলে সেটা ঠিক করার দায়িত্ব সংসদ বা রাষ্ট্রপতি। অন্য কেউ আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে রাস্তায় তাণ্ডব চালাতে পারে না। চালালে তা অপরাধ।

৪| ২৬ শে আগস্ট, ২০১৭ রাত ১২:১০

ডার্ক ম্যান বলেছেন: বিচারপতি সিনহা যা করেছেন তার সবটাই নাকি নাটক।

২৬ শে আগস্ট, ২০১৭ রাত ১২:৪৯

তাওহিদ হিমু বলেছেন: হায়! এরা নাটক ছাড়া কিচ্ছু বুঝে না। কখনো মোশাররফ করিমের থার্ড ক্লাশ জোকের নাটক, কখনোবা নেতাদের কাল্পনিক নাটক

৫| ২৬ শে আগস্ট, ২০১৭ সকাল ১০:৩৯

শফিক2003 বলেছেন: Our constitution provides all the supreme power to the people's representative of elected prime minister and elected prime minister is the core house of power .If any ruling party MP deny to any law, he will be sacked from his position and party . Basically after the Ersad period , people had few opportunity to see the real democracy in here.

৬| ২৬ শে আগস্ট, ২০১৭ রাত ৯:১৬

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: বিচারপতি এস কে সিনহারা যত হতভাগা, তার চেয়ে বেশি হতভাগা এই দেশের আম-আদমি, যারা গণতন্ত্রের স্বাদ আজও পেল না।

বর্বর পাকিস্তানি জানোয়ারেরাও সভ্য হয়ে যাচ্ছে, অসভ্য থেকে গেলাম আমরা বাঙালিরা।

++++

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.