নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি একজন ছাত্র। পদার্থ বিজ্ঞান নিয়ে সম্মান শ্রেণিতে পড়ছি।

তাওহিদ হিমু

.

তাওহিদ হিমু › বিস্তারিত পোস্টঃ

আওয়ামীলীগ নাকি বিএনপি- কাকে সাপোর্ট দেব বুঝতেছি না

১২ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:৪৯

বিএনপি ক্ষমতায় এলে
গণতন্ত্র ফিরে আসবে, বাকস্বাধীনতা কিছুটা ফিরবে, শিক্ষাব্যবস্থা ঠিক হবে; সন্ত্রাস, মাফিয়া ও প্রভাবশালী সিন্ডিকেটগুলোর ত্রাস/দাপট কমবে।
কিন্তু ধর্মনিরপেক্ষতা ও প্রগতি থাকবে না।

আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকলে
ধর্মনিরপেক্ষতা ও প্রগতি 'নামে' হলেও থাকবে।
কিন্তু গণতন্ত্র থাকবে না, শিক্ষাব্যবস্থা নষ্ট হতে থাকবে; গুণ্ডা-সন্ত্রাস ও প্রভাবশালী সিন্ডিকেটগুলোর ত্রাস/দাপট কমবে না, ফলে একটির পর একটি আর্থিক কেলেঙ্কারিও হতে থাকবে।

দু'দলের দ্বারা অর্থনৈতিক উন্নতি ও উন্নয়ন সমানে হবে (যদিও আওয়ামীলীগ উন্নয়নের ঢোল বেশি পেটায়)।
কিন্তু মানবাধিকার লঙ্ঘন, চুরি, দুর্নীতি ও দলবাজিতায় দু'দলই সমান হয়ে থাকবে। দু'দলই প্রতিপক্ষকে দমন-নিপীড়ন করবে;- আওয়ামীলীগ করবে রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে, বিএনপি করবে নিজ দলের সন্ত্রাসদের দ্বারা।

আবার বাংলাদেশের রাজনীতিকে স্থিতিশীল রাখতে এই দু'দলের যে-কোনো একটিকে ক্ষমতায় থাকতে হবে। তৃতীয় কোনো শক্তি 'চির-অদম্য' বাঙালিকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারবে না, অতীতে যেমন পারে নি;- বাঙালির রক্তে মিশে আছে দ্রোহ। রাষ্ট্র অস্থিতিশীল হলে অর্থনীতি খারাপ হয়ে যাবে, সমাজে সুখ-শান্তি-শৃংখলা থাকবে না।

এই জটিল পরিস্থিতিতে "কাকে সাপোর্ট দেব- আওয়ামীলীগ নাকি বিএনপি?" প্রশ্নের উত্তর দেওয়া কঠিন।
আমার পর্যবেক্ষণ বলছে: এতদিন আওয়ামীলীগের পক্ষে ছিল বেশিরভাগ বুদ্ধিজীবী, সুশীল সমাজ ও জ্ঞানীগুণী মানুষের সমর্থন, কিন্তু আওয়ামীলীগের ইদানীংকালের বাড়াবাড়ির জন্য তারা অন্য চিন্তা করছে। দেখা যাক কী হয়।

মন্তব্য ২৬ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (২৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১২ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:০০

চাঁদগাজী বলেছেন:



আপনি বুদ্ধিজীবি মানুষ, আমরা আপনাকে অনুসরণ করবো। আপনি আগে ঠিক করেন, কাকে সাপোর্ট দেবেন, আপনি যাকে সাপোর্ট দেবেন, এবার সেই জয়ী হবে।

১২ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:১৫

তাওহিদ হিমু বলেছেন: নাহ। অন্যকে বা গুরুকে অন্ধভাবে অনুসরণন করা কখনোই ঠিক না। আমি কখনোই বলি নি যে, আমি কারো দেখাদেখি একটা দল বেছে নেব। আমি বরং নিজেই ভাবছি কাকে ভোট দেব, যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয়।

২| ১২ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:০৭

আবু তালেব শেখ বলেছেন: পরিবার তন্ত্র আগে বিলুপ্ত হওয়া দরকার।

১২ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:১৬

তাওহিদ হিমু বলেছেন: হবে না, হবে না। হলে ত ভালই হত। নতুন নতুন নেতৃত্ব সবসময় নতুন কিছু নিয়ে আসে, আধিকতর দক্ষ হয়।

৩| ১২ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:১৮

আবু তালেব শেখ বলেছেন: যতদিন পরিবার তন্ত্র বিলুপ্ত না হয় ততদিন কোন সাপোর্ট করবো না

৪| ১২ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:১৭

মনে নাই বলেছেন: সাপোর্ট করা বা না করার মাঝে কি আদৌ কোন পার্থক্য আছে!!

১২ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:২৪

তাওহিদ হিমু বলেছেন: অবশ্যই পার্থক্য আছে! জনসমর্থন হারিয়ে বঙ্গবন্ধু-জিয়া-এরশাদ সবাই পড়ে গেছিল। হাসিনা-খালেদাও জনসমর্থন হারানো মাত্রই ছিটকে পড়েছে গদি থেকে। ভোট দিতে না পারলেই যে সমর্থনের মূল্য নেই, তা ভুল। সমর্থন নানানভাবে কাজ দেয়।

৫| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:০০

আমি তনুর ভাই বলেছেন:

১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:৩১

তাওহিদ হিমু বলেছেন: দুঃখ দুঃখ! ;(

৬| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:১৪

অনিকেত বৈরাগী তূর্য্য বলেছেন: বিম্পি-জামাত ক্ষমতায় আসা দরকার, আম্লীগ যেহেতু নিজেদের শুধরে নিচ্ছে না; বিম্পি-জামাত এসে এদের টাইট দেবে।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:৩৭

তাওহিদ হিমু বলেছেন: হেহেহে... আমার পর্যবেক্ষণ আরো বলছে: বেশিরভাগ মানুষ আপনার মতই ভাবছে।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:৪০

তাওহিদ হিমু বলেছেন: কিন্তু জামাত-শিবির ক্ষমতার ধারেকাছে আসাটা ভয়ের কথা

৭| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ২:৫০

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
বিএনপি ক্ষমতায় এলে গণতন্ত্র ফিরে আসবে?

২০০৬এ ইয়াজউদ্দিনের তত্তাবধায়ক, দেড়কোটি ভুয়া ভোটার। উপদেষ্টা সব খ্যাদাইয়া ভোটার বিহীন নির্বাচন প্রায় সমাপ্তির পথে ছিল। নিজামী-মোজাহেদ সহ ৬৩ জন বিনাপ্রতিদন্দিতায় নির্বাচিত হয়ে গেছিল।
১-১১ না আসলে ওভাবেই চলত।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:০২

তাওহিদ হিমু বলেছেন: "তারা অধম, তা বলে আমি অধমতর হব না কেন?" আওয়ামীলীগ বুঝি এই নীতিতে বিশ্বাস করে? বাস্তবেও দেখলাম, বিএনপি একটা নোংরামি শুরু করলে আওয়ামীলীগ তা তিনগুণ বাড়িয়ে সেই নোংরামিকে পূর্ণতা দেয়, যেমন ১৫৪ জন সাংসদকে বিনাভোটে নির্বাচিত করেই ছেড়েছিল ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনে; বিএনপি জাস্ট ট্রাই করেছিল, পারে নি।

ব্রো, আমার ব্লগ একটু মন দিয়ে পড়লেই দেখবেন, আমি/আমরা দু'দলের একটাতেও নাই (যে জন্য আপনাদের দুনো দলই আমাদের গালি দেয়)।
১/১১ হইছে ভাল হইছে, বিএনপি শাস্তি হইছে, কিন্তু "৫ জানুয়ারি" এসে দেশের ২৩ বছরের গণতন্ত্রকে আবার হোঁচট খাওয়াল।
বিএনপি এলে গণতন্ত্র ফিরবে বলেছি এইজন্য যে, আওয়ামীলীগের একতরফা নির্বাচন, ভোট-ডাকাতি, দলীয়করণ, প্রতিপক্ষকে দমন, একটার পর একটা আর্থিক কেলেঙ্কারি, নপুংসক শিক্ষামন্ত্রী, লাগাতার প্রশ্নফাঁস, লীগাশ্রয়ী ব্যবসায়ী মাফিয়াদের দাপট, আইনশৃঙ্খলার অবনতি, পুলিশের চরম স্খলন, চাঁদাবাজি দেখতে দেখতে জনগণ ক্লান্ত ক্লান্ত ক্লান্ত। আমি বলছি না যে, বিএনপির আমলে এগুলা ছিল না; ছিল, কিন্তু এতটা লাগামহীন ছিল না। সরকার চোর-সন্ত্রাস-মাফিয়াকে নিয়ন্ত্রণ না করায় এমন বাজে অবস্থা (নিয়ন্ত্রণ করবে কি, আওয়ামীলীগের মূল শক্তিই ত তারা)। এই নিয়ন্ত্রণ করতে না পারাটা তাদের অদক্ষতা, অযোগ্যতা, অক্ষমতা। 'অতিদেশসেবা' করে এরা একটু অক্ষম হয়ে গেছে। তাদের ৫ বছর রেস্টে থাকা প্রয়োজন।
এক চোরে অনন্তকালের জন্য গদি পেয়ে গেলে তাদের লুট লাগামহীন হওয়াটাই স্বাভাবিক। তাই দ্বিতীয় চোরকে দরকার।
তার চেয়ে বড় কথা হলো, গণতন্ত্রের মূল শর্ত নির্বাচন। আওয়ামীলীগ সেটাই নষ্ট করল। তাই তাদের প্রতি এত বিরক্তি। সত্যি বলছি- ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি ফেয়ার নির্বাচন করে আ'লীগ ক্ষমতায় এলে আমি হয়ত তাদেরকেই সমর্থন করতাম এতসব না ভেবে। সবার আগে নির্বাচন। নির্বাচনে রাজাকাররা ক্ষমতায় এলে হয়ত খারাপ লাগবে, কিন্তু সেটাই নৈতিকতা। সরকার জনগণের দ্বারাই নির্বাচিত হতে হবে।

৮| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৩:২০

কুকরা বলেছেন: নির্বাচন ফেয়ার হওয়া দরকার

১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:৩৫

তাওহিদ হিমু বলেছেন: ফেয়ার নির্বাচনের পর দু'দলের মধ্যে যে বড় চোর, সে এলেও আফসোস লাগত না। মনরে বুঝাইতাম, পিপল চোরকে ভোট দিছে, তাই চোরের পার্টি ক্ষমতায়। গণতন্ত্রের সবচে বড় শর্ত নির্বাচনই যদি হয় ভোট ডাকাতির, সেই ভোট ডাকাতি নিজের চোখে দেখলে, আফসোস না করে উপায় নাই।

৯| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ ভোর ৪:০৫

:):):)(:(:(:হাসু মামা বলেছেন: B-) =p~ :(

১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:৩০

তাওহিদ হিমু বলেছেন:

১০| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:৫৭

রাজীব নুর বলেছেন: ফলাফল শূণ্য।
সব রসুনের একই ....

১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:১০

তাওহিদ হিমু বলেছেন: তাও ঠিক। :(
তবু একেকবার একেকটা ট্রাই করা যায় এই আশায় যে, ধীরে ধীরে বেটার টেস্ট পাওয়া যাবে।

১১| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:১৮

এভো বলেছেন: কাউকে ভোট দেওয়ার দরকার নাই -- ভোট তালিকায় শুধু নাম থাকলে হোল । কাউকে ভোট দিতে আসতে হবে না কষ্ঠ করে , আপনার ভোট দিয়ে দেওয়া হবে !!!!!

১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:১৩

তাওহিদ হিমু বলেছেন: আমার ভোট আমার সামনেই ভোটডাকাত সন্ত্রাসেরা নিয়ে নিচ্ছে, দূরে পদলেহী পুলিশ-বিজিবি নিষ্ক্রিয় দর্শকের মত চেয়ে আছে, এটাই সবচে কষ্টের। সব তারা খাক, আমাদেরকে শুধু ভোটটি দিতে দিক সুষ্ঠু নির্বাচনে। তাও দিচ্ছে না।

১২| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:৪৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: আওয়ামীলীগ একাই ৩০০। গত নির্বাচনে তাদের কারো সাপোর্ট এর দরকার হয়নি। আগামী নির্বাচনও সেভাবে করার চিন্তায় আছে।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:১০

তাওহিদ হিমু বলেছেন: মুজিব-জিয়া-এরশাদ এদের কেউই হাসিনার চেয়ে কম ছিল না, কিন্তু থাকতে পারে নি বেশিদিন। যে যখনই ক্ষমতা কুক্ষিগত করার নির্লজ্জ চেষ্টা করেছে, সে তখনই বা তার কিছু পড়েই পড়ে গেছে, পতিত হয়েছে। আমি মনে করি, আওয়ামীলীগ আগামী নির্বাচনে ঝামেলা না করে সুষ্ঠু নির্বাচন দিলে তারা জিততে পারে এবং না জিতলেও পরেরবার নিশ্চিত জিতবে। কিন্তু যদি আগামী নির্বাচনও গায়ের জোরে চুরি করে নেয়, তাহলে তাদের দলের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। দেশ অস্থিতিশীল হবে। এদেশে কেউই বেশিদিন খেয়ে যেতে পারবে না। ইতিহাস ঘেঁটে দেখুন, বাঙালি জাতি আসলেই অদম্য ও চিরদ্রোহী।

১৩| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৩১

শাহিন-৯৯ বলেছেন: নির্বাচনে রাজাকাররা ক্ষমতায় এলে হয়ত খারাপ লাগবে, কিন্তু সেটাই নৈতিকতা। সরকার জনগণের দ্বারাই নির্বাচিত হতে হবে।

আপনার প্রতিউত্তরটি হল- গনতন্ত্রের মূল ব্যাখা।
ধন্যবাদ সুন্দর করে লেখার জন্য।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:১৬

তাওহিদ হিমু বলেছেন: আবার গণতন্ত্র মানে শুধু নির্বাচনও না; সুষ্ঠু নির্বাচনের পাশাপাশি প্রত্যেকের মানবাধিকার, মৌলিক অধিকার, আদালতের স্বাধীনতা, ন্যায়বিচার, বাকস্বাধীনতা, বিশ্বাসের স্বাধীনতা, উন্নতি ইত্যাদি সবই গণতন্ত্রের অপরিহার্য বৈশিষ্ট্য।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.