নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

লেখালেখি

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম › বিস্তারিত পোস্টঃ

গল্পঃ হাবিব সাহেব রেডি

০৫ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৪৫



কোন পার্টি বা অনুষ্ঠানে যাবার সময় স্ত্রী নিজে সম্পূর্ণ রেডি হয়ে বসে আছেন আর স্বামীকে রেডি হতে ঘন ঘন তাগাদা দিচ্ছেন-এমন দৃশ্য কি আপনারা দেখেছেন কোন দিন? মনে হয় না। বরং এর উল্টোটা দেখতেই আমরা অভ্যস্ত। স্বামী প্রস্তুত, অথচ স্ত্রীর সাজগোজ তখনো প্রাথমিক অবস্থায়। তিন চারটা শাড়ি বদলানো হয়ে গেছে। তারপরেও শাড়ি নিয়ে স্ত্রীর অসন্তুষ্টি যাচ্ছে না। শাড়ির সাথে অর্নামেন্ট ম্যাচ করছে না। মেকআপ বক্স খুলে স্ত্রী বেকুব হয়ে বসে আছেন। আই লাইনার, লিপস্টিক, লিপজেল, ফেস পাউডার ইত্যাদি (আমি মেয়েদের সাজগোজের সব উপকরণের নাম জানি না) মানানসই হচ্ছে না। স্ত্রীর বিরক্তি চরমে। অনুষ্ঠানের সময়ও যাই যাই অবস্থায়। স্বামীও বিরক্ত। ‘তাড়াতাড়ি করো’ ছাড়া স্ত্রীকে বেশি কিছু বলতে তিনি সাহস পাচ্ছেন না। সাধারনত এমনটা দেখে বা শুনেই আমরা অভ্যস্ত।

কিন্তু হাবিব সাহেবের ক্ষেত্রে ব্যাপারটা উল্টো। তিনি আমার প্রতিবেশী। ব্যাংকে উঁচু পদে মোটা বেতনে চাকরি করেন। বাড়ি গাড়ি সবই আছে। অফিসের এ্যানুয়াল ডিনার, অফিসিয়াল পিকনিক, ফেয়ারওয়েল, বার্থ ডে, ম্যারেজ ডে, আত্মীয়স্বজনের বিয়ে শাদী ইত্যাদি বারো মাসে তাঁর তিন তেরো উনচল্লিশ পার্বণ। আজ হাবিব সাহেবের প্রোগ্রাম হল একমাত্র শ্যালকের গোপন বিয়েতে স্বাক্ষী হিসাবে স্ত্রীসহ কাজী অফিসে হাজির হওয়া। শ্যালক তার ব্যাচমেট এক শ্যামলা মেয়েকে বিয়ে করতে চায়। কিন্তু হাবিব সাহেবের শশুর শাশুড়ি ছাত্রাবস্থায় তাদের এই বিয়েতে রাজি নন। তার ওপর মেয়ে কালো, মেয়ের বাবা প্রাইমারী শিক্ষক, মেয়েরা অনেক ভাইবোন এসব আপত্তি তো আছেই। কিন্তু শ্যালকের মন শ্যামলা মেয়ের প্রেমে টইটুম্বুর। ‘কালো? তা’সে যতই কালো হোক/ দেখেছি তার কালো হরিণ চোখ’ অনেকটা এ ধরনের মহান ভালোবাসা। তাই সে গোপনে কাজী অফিসে গিয়ে বিয়েটা সেরে ফেলার জন্য স্বাক্ষী হতে তার বোন দুলাভাইকে হাত পা ধরে রাজি করিয়েছে। প্রাপ্তবয়স্ক ছেলেমেয়ের পারস্পরিক সম্মতিতে বিয়ে হতে কোন বাধা নেই। তবে অভিভাবক শ্রেণীর দু’জন সে বিয়েতে স্বাক্ষী থাকলে বিয়েটা আরো মজবুত হয়। এ ক্ষেত্রে বোন দুলাভাইকে ঢাল হিসাবে ব্যবহার করা যাবে। শ্যালকের বুদ্ধি সুদ্ধি প্রথম শ্রেণীর।

হাবিব সাহেবের স্ত্রী শাড়ি গয়না পরে চোখে মুখে ফাইনাল টাচ্ দিয়ে পুরোপুরি প্রস্তুত। কিন্তু হাবিব সাহেবের তখনো কিছুই হয়নি। দু’তিনটা প্যান্ট বদলানো হয়ে গেছে। তারপরেও প্যান্টের রঙ মনপছন্দ না হওয়ায় সেটা খুলে ফেলে শুধু আন্ডারওয়্যার পরে তিনি বেডরুমে দাঁড়িয়ে আছেন। স্ত্রীর ধমকে শেষ পর্যন্ত প্যান্টের একটা গতি হল। সমস্যা বাধলো শার্টের সাথে টাই ম্যাচ করা নিয়ে। হাবিব সাহেবের একচল্লিশটা টাই। দেশে বিদেশে যেখানে গেছেন একটা টাই অন্তত কিনেছেন। ফলে মেয়েরা দোকানে গিয়ে একসাথে অনেক শাড়ি বা থ্রি-পিছ দেখে যেমন এটা দেখি, ওটা দেখি বলে আঙ্গুল ঘোরাতে ঘোরাতে আঙ্গুল ব্যথা করে ফেলে এবং শেষ পর্যন্ত আর কেনা হয় না, তেমনি হাবিব সাহেবও একচল্লিশটা টাই বিছানার ওপর ফেলে ট্যারা চোখে (তাঁর বাঁ চোখ সামান্য ট্যারা) যাচাই বাছাই করতে করতে শেষে ক্লান্ত হয়ে স্ত্রীর কাছে আত্মসমর্পণ করলেন। এদিকে মোবাইল ফোনে শ্যালকের দু’তিনবার তাগাদা দেওয়া হয়ে গেছে। সে তার হবু স্ত্রীকে নিয়ে কাজী অফিসে বসে আছে।

মিসেস হাবিব যে টাইটা পছন্দ করেছেন, সেটা হাবিব সাহেবের পছন্দ হচ্ছেনা। বাবার এই দুর্দশা দেখে পাশের ঘর থেকে মেয়ে বর্ণা এসে হাজির। মা এবং মেয়ে যৌথভাবে যে টাইটা পছন্দ করলো, অনুরোধে ঢেঁকি গেলার মতো করে সেটা হাবিব সাহেব গলায় ঝোলালেন বটে, তবে সমস্যা ফুরালো না। টাইয়ের সিঙ্গেল নটে তাঁকে মানাচ্ছে না, আবার ডাবল নট বাঁধলে ফাঁসির দড়ি গলায় ঝোলানোর মতো মনে হচ্ছে। মাঝামাঝি তো কিছু নেই। হাবিব সাহেবের ছেলে শিহাব কলেজ থেকে ফিরে বাবার এই সমস্যা দেখে সহজ সমাধান বাতলে দিল। সে তার মানিব্যাগ থেকে একটা কয়েন বের করে টস্ করে জানিয়ে দিল ‘ডাবল নট’। অতএব, ফাঁসির দড়িই সই। হাবিব সাহেব মনমরা হয়ে টাইয়ের ডাবল নট বেঁধে আলমীরা খুলে কোট বাছাই করতে লাগলেন। তাঁর হাফ ডজন কোট। কিন্তু শার্ট ও টাইয়ের সাথে মানানসই হয় এমন একটাও কোট এর মধ্যে আছে বলে তাঁর মনে হচ্ছে না। তাহলে কি কোট ঠিক রেখে শার্ট ও টাই বদলে ফেলবেন? নাকি শার্ট ও টাই ঠিক রেখে কমপ্লিট স্যুট পরে ফেলবেন? স্যুট পরা যায়, তবে স্যুটের রঙটা ম্যাড়মেড়ে ঘিয়ে রঙয়ের। বানানোর সময় থেকেই স্যুটটা তাঁর অপছন্দ। এই সমস্যার সমাধান হল কাজের বুয়া ফেলানির মায়ের কথায়, ‘খালুজান, ওই কালা কোটটা পইরা হেইদিন আপনারে যা মানাইছিল না! ফরসা শইলে কালা কোট পরলে আপনারে এম পি সাবের মতো দেহায়।’ আচ্ছা হল। কোটের সমস্যা গেল। কিন্তু জুতার ব্যাপারে হাবিব সাহেব কোন কম্প্রোমাইজ করতে রাজি নন। চার জোড়া জুতার মধ্যে একজোড়া কালো জুতা তাঁর পছন্দ হল। কিন্তু সে জুতা পালিশ করা নাই। মা এবং মেয়ে মিলে জুতা পালিশ করতে বসে গেল। মেয়ের পালিশ করা বাঁ পায়ের জুতায় কালি হয়ে গেল বেশি, আর মায়ের পালিশ করা ডান পায়ের জুতায় কালি হয়ে গেল কম। হাবিব সাহেব এনার্জি সেভিং বাল্বের আলোয় জুতা জোড়া অন্তত পাঁচ ছয়বার উল্টে পাল্টে দেখেও সন্তুষ্ট হতে পারলেন না। এর মধ্যে আবার শ্যালকের ফোন। হাবিব সাহেব বিরক্ত হয়ে বললেন, ‘আরে, এ শালা তো অস্থির হয়ে গেছে দেখছি। বিয়ের জন্যে কেউ এভাবে পাগল হয়? আমরা বিয়ে করিনি?’ বলে ফোন রেখে দিয়ে তিনি নিজেই জুতা পালিশ করতে বসে গেলেন।

জুতা পালিশ শেষ হলে মোজা ম্যাচিং নিয়ে কিছু ঝামেলা হল। মোজার রঙ কালো, তবে জুতার মতো কুচকুচে কালো নয়। আটার গুনে রুটি, আর বাবার গুনে বেটী। বর্ণা বললো, ‘বাবা, তুমি প্যান্টটা একটু নামিয়ে পরো, তাহলে আর মোজা দেখাই যাবে না।’
মেয়ের কথা হাবিব সাহেবের মনে ধরলো। তিনি প্যান্টটা নিচের দিকে নামিয়ে পরলেন। কিন্তু অনভ্যাসের কারণে হাঁটার সময় প্যান্ট খুলে পড়ে যাচ্ছে বলে তাঁর মনে হতে লাগলো। এবার বুদ্ধি করে তিনি নিজেই সমস্যার সমাধান করে ফেললেন। বেল্টের একটা ফুটো কমিয়ে দিয়ে প্যান্টের কোমর টাইট করে বেঁধে বর্ণার মাকে বললেন, ‘বুদ্ধি থাকলে শশুরের গোলামী করতে হয় না, বুঝেছ?’
‘বুঝেছি, এখন চল তো! ওরা কাজী অফিসের বারান্দায় এতিমের মতো বসে আছে।’

হাবিব সাহেবের চুলে কলপ দেবার অভ্যাস। এক সপ্তাহ আগে চুলে কলপ দেবার কারণে এখন চুলের গোড়াগুলো সাদা দেখা যাচ্ছে। বর্ণা তার বাবাকে সে কথা স্মরন করিয়ে দিল। হাবিব সাহেব আয়নার সামনে ঘুরে ফিরে দেখে বললেন, ‘তাই তো রে, মা।’
কিন্তু এখন কলপ করার সময় কই? ও কাজ করতে গেলে তো কোট প্যান্ট টাই জুতা সব খুলে এক মহাযজ্ঞে বসতে হবে। হাবিব সাহেবের মন খারাপ হয়ে গেল। এই সময় আবার শ্যালকের ফোন, ‘বুবু, তোমাদের এত দেরি হচ্ছে কেন? কাজী সাহেব তো আর একটু পর উঠে চলে যাবেন।’
মিসেস হাবিব মহা ত্যক্ত। স্বামীর হাত ধরে হ্যাঁচকা টান দিয়ে তিনি বললেন, ‘এই লোকটা মেয়ে মানুষেরও অধম। পুরুষ মানুষের রেডি হতে এত দেরি হয়? জবর লোকের পাল্লায় পড়েছি, বাবা!’

স্ত্রীর টানাটানিতে শেষ পর্যন্ত মন খারাপ নিয়েই কাজী অফিসে রওনা দিতে হল হাবিব সাহেবকে। সেখানে পৌঁছে দেখা গেল তাঁর শ্যালকও নেই, শ্যালকের সাথে যে মেয়ের বিয়ে হবার কথা ছিল সেও নেই। ব্যাপারটা কেমন হল? মিসেস হাবিব মোবাইলে তার ভাইকে বললেন, ‘তোরা কোথায়?’
‘তোমাদের দেরি দেখে আমরা তো বিয়ে করে ফেলেছি, বুবু!’
‘কী বলছিস তুই? স্বাক্ষী পেলি কোথায়?’
‘ওসব ম্যানেজ করে ফেলেছি, বুবু। তোমার আর দুলাভাইয়ের নাম ঠিকানা লিখিয়ে অন্যদের দিয়ে সই করিয়ে নিয়েছি।’
‘কী সব আবোল তাবোল কথা বলছিস তুই? তাই কখনো হয় নাকি?’
‘তুমি যে কী বল না বুবু! টাকা দিলে মাছের দুধও পাওয়া যায়, আর এ তো স্বাক্ষীর সই। কাজী অফিসের ভেতর বাইরে দেখো কত কোট টাই, পাজামা-পাঞ্জাবি পরা পুরুষ আর শাড়ি পরা মহিলা দালাল ঘুরে বেড়াচ্ছে। দেখে মনে হয়না এরা দালাল। টাকা দিলে এরা পাত্র পাত্রির চাচা চাচি, মামা মামী, বোন দুলাভাই সেজে সই করে দেয়। এখন কী করবো বল? তোমাদের জন্য আর কত দেরি করবো? বেকার লাইফে ক’টা টাকা গচ্চা গেল আর কী!’
মিসেস হাবিব গম্ভীর কণ্ঠে বললেন, ‘এখন তোরা কোথায়?’
‘তোমাদের বাড়িতে। বর্ণা আর শিহাব ওদের মামীকে দেখে খুশিতে পড়ার টেবিল ছেড়ে উঠে পড়েছে। ওরা এখন আমাদের বাসরঘর সাজাতে ব্যস্ত।’

মিসেস হাবিব মাথা চেপে ধরে কাজী অফিসের বারান্দায় একটা বেঞ্চের ওপর বসে পড়লেন। তাঁর সামনেই দুই তরুণ তরুণী হাবিব সাহেবের হাত ধরে স্বাক্ষী হবার জন্য কাকুতি মিনতি করছে।
‘আরে, আমি তোমাদের চিনি না, জানি না। আমি তোমাদের স্বাক্ষী হতে যাবো কেন?’
তরুণ একটা পাঁচশো টাকার নোট বের করে হাবিব সাহেবের হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলল, ‘এবার হবে তো? কাজী সাহেবের সামনে বলবেন, আপনি আমার ফুপা। নাম...........’
মিসেস হাবিব স্বামীর হাত থেকে টাকাটা ছিনিয়ে নিয়ে দলা পাকিয়ে তরুণের মুখের ওপর ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে বললেন, ‘এই লোকটার জন্য মান সম্মান আর কিছু থাকলো না। এখানে আর এক মিনিট নয়। চলো, এখুনি বাড়ি চলো।’
হিড় হিড় করে স্বামীর হাত ধরে টানতে টানতে তিনি কাজী অফিস থেকে বেরিয়ে গাড়িতে উঠে চড়া গলায় ড্রাইভারকে বললেন, ‘বাড়ি চলো। কুইক।’
‘জি, ম্যাডাম।’

হাবিব সাহেব গাড়ির রিয়ার ভিউ মিররে নিজের মাথার চুলগুলো বিভিন্ন এ্যাঙ্গেল থেকে দেখতে দেখতে বললেন, ‘বুঝলে বর্ণার মা, আসলে কলপ দেওয়ার কারণেই চুল বেশি পেকে গেছে। আমার এক কলিগ চুলে কলপ দিতে নিষেধ করেছিল। ইশ্,ওর কথা যদি শুনতাম!’
******************************************************************************************************************
ছবিঃ নেট
রি-পোস্ট।

মন্তব্য ৪০ টি রেটিং +১০/-০

মন্তব্য (৪০) মন্তব্য লিখুন

১| ০৫ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৫৪

বিএম বরকতউল্লাহ বলেছেন: বরাবরের মতো ভাল লাগল।
ধন্যবাদ।

০৫ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:০১

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই বি এম বরকতউল্লাহ।


ভালো থাকুন। শুভেচ্ছা রইল।

২| ০৫ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:০৫

রানা আমান বলেছেন: আমার ভালো লেগেছে গল্পটা ।

০৫ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:১০

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই রানা আমান।


ভালো থাকুন। শুভকামনা রইল।

৩| ০৫ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:০৮

উম্মে সায়মা বলেছেন: হাহাহা আচ্ছা বিপদ তো! হাবিব সাহেবের আর রেডি হওয়া হবেনা B-)
ধন্যবাদ হেনা ভাই।

০৫ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:১৩

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ইয়েস আর নো এই দুইয়ের গ্যাঁড়াকল থেকে বেরতে না পারলে এই অবস্থাই হয়।


ধন্যবাদ বোন উম্মে সায়মা। ভালো থাকুন। শুভকামনা রইল।

৪| ০৫ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:১১

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: বেশ মজার গল্প। নতুন লেখাও দিন মাঝে মাঝে।

০৫ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:১৬

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: নতুন লেখাও দিন মাঝে মাঝে।

মনে থাকবে। ধন্যবাদ ভাই মোস্তফা সোহেল। ভালো থাকুন। শুভেচ্ছা রইল।

৫| ০৫ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৪০

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: অনেক সুন্দর গল্প। ভালো লাগলো এবারেরটিও।

শুভকামনা রইল গুরু'র জন্য।

০৫ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৩

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন।


ভালো থাকুন। শুভকামনা রইল।

৬| ০৫ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:৩৬

রক বেনন বলেছেন: বরাবরের মতই চমৎকার রম্য হয়েছে হেনা ভাই। আপনার পোস্ট মানেই হাসি! ভালো থাকবেন হেনা ভাই। আপনার প্রতিটি দিন, ক্ষণ আর মুহূর্ত গুলো হোক হাসি আর আনন্দে ভরপুর।

০৫ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:০৬

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: আপনার প্রতিটি দিন, ক্ষণ আর মুহূর্ত গুলো হোক হাসি আর আনন্দে ভরপুর


হাঁ ভাই, আমি তো সব সময় হাসি খুশিতে থাকতে চাই। আপনারাও সব সময় হাসি খুশিতে থাকুন, এই দোয়া করি।

ধন্যবাদ ভাই রক বেনন। ভালো থাকুন। শুভকামনা রইল।

৭| ০৫ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৩:৩১

ওমেরা বলেছেন: দাদু ভাইয়া অনেক মজার গল্প !! দাদুভাইয়া আরেকটা কথা আপনার চুলে ও তো কলপ দেখতে পাচ্ছি !

ধন্যবাদ দাদু ভাইয়া ।

০৫ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:০৯

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: আরে না বুবু, আমি কোনদিন চুলে কলপ ব্যবহার করি না। চুলই তো নাই, কলপ ব্যবহার করবো কিভাবে? হাঃ হাঃ হাঃ।


ধন্যবাদ ওমেরা বুবু। ভালো থেকো। শুভকামনা রইল।

৮| ০৫ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৩:৫২

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
আগের মতোই সুখপাঠ্য,
শুভেচ্ছা হেনা ভাই,
ভালো থাকবেন।

০৫ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:১০

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ধন্যবাদ নূর মোহাম্মদ ভাই।


ভালো থাকুন। শুভেচ্ছা রইল।

৯| ০৬ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১২:৫৯

সুমন কর বলেছেন: ‘তোমাদের দেরি দেখে আমরা তো বিয়ে করে ফেলেছি, বুবু!’ -- লাইনটা পড়ে খুব মজা পেলাম।

গল্প ভালো হয়েছে।

০৬ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১০:২০

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই সুমন কর।


ভালো থাকুন। শুভকামনা রইল।

১০| ০৬ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:০৬

ইতি সামিয়া বলেছেন: ভালো লাগলো

০৬ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩১

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ধন্যবাদ বোন ইতি সামিয়া।


ভালো থাকুন। শুভেচ্ছা রইল।

১১| ০৬ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৩:৫৭

মাঈনউদ্দিন মইনুল বলেছেন:

শেষ দৃশ্যে হাসি ধরে রাখতে পারলাম না।

আবুহেনা ভাই.... সালাম জানবেন। মাথায় যেন কলুপ না দেন, তাহলে পেকে যাবে ;)

০৬ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩৩

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: আরে মইনুল ভাই! অনেকদিন পর আপনাকে ব্লগে পেলাম। কেমন আছেন ভাই?

১২| ০৬ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:০৪

জাহিদ অনিক বলেছেন: এখন চল তো! ওরা কাজী অফিসের বারান্দায় এতিমের মতো বসে আছে।’

ব্যাপারটা সত্যি বেশ বিব্রতকর। অনুধাবন করতে পারছি।

০৬ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩৫

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: হাঃ হাঃ হাঃ। ধন্যবাদ ভাই জাহিদ অনিক।


ভালো থাকবেন। শুভকামনা রইল।

১৩| ০৬ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:৪৪

সোহানী বলেছেন: হাহাহাহাহাহা হেনা ভাই, আপনার লেখা মানেই ইউনিক...........

সত্যি বলছি আমি কিন্তু সে রেয়ার শ্রেনীর মিসেস যে কিনা মিস্টারের আগে রেডি হয়...হাহাহা। অবশ্য আমার মিস্টার নিজের ড্রেস চয়েজ এর জন্য দেরী করে না সে সারা ঘর ঘোরাঘুরি করে যাবার আগ মূহুর্ত পর্যন্ত এবং বলতে থাকে আমার লাগে ৫ মিনিট। তারপর সে কচ্চপ আর খরগোশের গল্পের মতো কচ্চপই রেডি হয়ে তাড়া দেয় আর কি..........

০৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১০:৪৮

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: সত্যি বলছি আমি কিন্তু সে রেয়ার শ্রেনীর মিসেস যে কিনা মিস্টারের আগে রেডি হয়...হাহাহা। অবশ্য আমার মিস্টার নিজের ড্রেস চয়েজ এর জন্য দেরী করে না সে সারা ঘর ঘোরাঘুরি করে যাবার আগ মূহুর্ত পর্যন্ত এবং বলতে থাকে আমার লাগে ৫ মিনিট। তারপর সে কচ্চপ আর খরগোশের গল্পের মতো কচ্চপই রেডি হয়ে তাড়া দেয় আর কি...

তাহলে ঠিকই আছে। তবে পুরুষদের মধ্যে সবাই হাবিব সাহেবের মতো নয়। অধিকাংশ স্বামীরাই স্ত্রীদের আগে রেডি হয়ে যান। হাবিব সাহেব ব্যতিক্রম বলেই তাকে নিয়ে গল্প লেখা। হাঃ হাঃ হাঃ।

ধন্যবাদ বোন সোহানী। ভালো থাকবেন। শুভকামনা রইল।

১৪| ০৮ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:২৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: হাহাহাহাহাহা। পুরোটাই হাসিতে ভরপুর। অনেক মজা পেলাম পড়ে।

হাবিব সাহেবের ক্যারেকটার দারুণ ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন।

চমৎকার রম্যগল্প আশরাফুল ভাই।

শুভেচ্ছা নেবেন।

০৮ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৫:৫৬

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: আপনার ভালো লেগেছে জেনে খুশি হলাম।


ধন্যবাদ সোনাবীজ ভাই। ভালো থাকুন। শুভকামনা রইল।

১৫| ০৯ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ৯:২৫

শামছুল ইসলাম বলেছেন: হা..হা.. হাবিব সাহেবকে দারুণ ভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন ।

০৯ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ৯:৫৫

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই শামছুল ইসলাম।


ভালো থাকবেন। শুভকামনা রইল।

১৬| ০৯ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:০২

কলিমুদ্দি দফাদার বলেছেন: মুক্তিযুদ্ধ চলাকালিন সময় পেক্ষাপট ও আপনার বাল্য কালের কোন ঘটনা নিয়ে লেখবেন আশাকরি। পুরানো দিনের ঘটনা গুলো আমার খুব মনে টানে।

আর আমি খুব চেস্টা করি আপনার মত ভাল লেখতে,গল্পে প্রান দিতে, কিন্তু কেন যেন পাড়ি নাহ, অনেক ভেবে চিন্তে দেখলাম, ভাল লেখক হওয়ার জীবন সম্বদ্ধ যে অভিজ্ঞতা হওয়া দরকার তা এখনো আমার হয়ে উঠে নী। যেমন আপনার বন্ধু নিতাই বুজেছিলাম।

০৯ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:২০

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: এই ব্লগেই আমার লেখা 'বেঁচে আছি আজও' পড়তে পারেন। আশা করি, যৎসামান্য হলেও আপনার ইচ্ছা পূরণ হবে।


ভাই, ভালো লেখার অনেকগুলো পূর্বশর্তের একটা হলো অভিজ্ঞতা। এ ছাড়া প্রচুর পড়াশুনা করা, চর্চা করা, সহজাত মেধা এসব তো আছেই। আপনি চেষ্টা করতে থাকুন। নিশ্চয় একদিন ভালো লেখক হয়ে উঠতে পারবেন। আমার শুভকামনা রইল।

১৭| ১০ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:১৯

জুন বলেছেন: তরুণ একটা পাঁচশো টাকার নোট বের করে হাবিব সাহেবের হাতে ধরিয়ে দিয়ে বলল, ‘এবার হবে তো? কাজী সাহেবের সামনে বলবেন, আপনি আমার ফুপা। নাম..........
দারুন লাগলো প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত হেনা ভাই । আপনার সবগুলো লেখাই অসাধারন তবে এটা অসাধারন পাওয়ার টু =p~
৯ নং ভালোলাগাটি আমার :)
+

১০ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:২৪

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: ধন্যবাদ বোন জুন। কেমন আছেন আপনি? আপনার প্রবাস জীবনের নতুন নতুন পোস্ট পড়তে চাই।


ভালো থাকুন। শুভকামনা রইল।

১৮| ১০ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৪৯

জুন বলেছেন: আমার নতুন পোষ্ট কবেই তো দিয়েছি হেনা ভাই ঈদ কড়চা নামে, সেই ৫ ই জুলাই :|
আপনি হয়তো ঈদের ঝামেলায় খেয়াল করেন নি :)
শুভেচ্ছা রইলো ।

১০ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:০১

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: তাই নাকি? আমার তো হুঁশ জ্ঞান কমে যাচ্ছে দিনের পর দিন। এই লেখাটা খেয়াল করিনি?

১৯| ১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ রাত ১২:০৮

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ছোট্ট একটি বিষয়কে অসাধারণ দক্ষতায় টেনে কত বড় ও পাঠকের হৃদয়গ্রাহী করা যায় তাভাবতেই অবাক লাগে।
গল্পটির শুরু হতে শেষ পর্যন্ত সবটুকুই ভাল লাগল ।

অনেক শুভেচ্ছা রইল ।

১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ সকাল ৯:২৬

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: আপনার ভালো লেগেছে জেনে খুশি হলাম। ধন্যবাদ ডঃ এম এ আলী।


ভালো থাকুন। শুভেচ্ছা রইল।

২০| ১০ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ দুপুর ২:৪৯

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ধন্যবাদ ।
ভাল থাকার শুভ কামনা রইল ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.