নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

\nAre U laughing at me ?

কোথাও কেউ নেই

কোথাও কেউ নেই › বিস্তারিত পোস্টঃ

ইসলামের দৃস্টিকোন থেকে বিয়ে

১৩ ই জুলাই, ২০১৯ রাত ১:২১

বিয়ে জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ন অধ্যায়। বর্তমানে, বাল্য বিবাহ, বৈবাহিক জীবনে মত পার্থক্য চরম আকার ধারন আকার করেছে।
প্রথমে আসি কখন একজন ব্যক্তি বিয়ের উপযুক্ত হয়।
আল –কুরানের একটি গুরত্বপুর্ন উক্তিঃ
ইয়াতীমদেরকে যাচাই করবে যতক্ষণ না তারা বিবাহ যোগ্য হয়। এবং তাদের মধ্যে ভালমন্দ বিচারের জ্ঞান দেখলে তাদের সম্পদ ফিরিয়ে দিবে। তারা বড় হয়ে যাবে বলে, অপচয় করে তাড়াতাড়ি খরচ করে ফেলনা । যে অভাব মুক্ত সে যেন নিবৃত থাকে এবং যে বিত্তহীন সে যেন সংগত পরিমানে ভোগ করে। তোমরা যখন তাদের সম্পদ সমর্পন করবে তখন সাক্ষী রাখিও। হিসাব গ্রহনে আল্লাহ্‌ই যথেষ্ট। (সূরা- নিসা, আয়াত ৬)
এইখানে লক্ষ্যনীয়, বিচার বুদ্ধির সাথে সম্পদ হস্তান্তর এবং বিবাহযোগ্যতাকে সম্পর্কিত করা হয়েছে।
যদিও বিয়ের জন্য উপযুক্ত বয়স সরাসরি উল্লেখ হয়নি, পরোক্ষভাবে এখানে, ছেলে/মেয়ের বিয়ের উপযুক্ত সময়ের কথা বলা হয়েছে।
এখন প্রশ্ন আস্তে পারে কেন সরাসরি কোন সংখ্যা বলে দেওয়া হলনা, কারন কোন উপার্যনক্ষম ব্যক্তি যখন নিজের এবং পরিবারের দায়িত্ব নেওয়ার জন্য সহনশীল হয় এবং নিত্য নৈমত্তিক সমস্যা মোকাবেলার জন্য জ্ঞান বুদ্ধি অর্জন করে তখনই সে বিবাহযোগ্য বলে আধুনিক সমাজ মনে করে থাকে। ইসলাম ধর্মও এর বিপরীত নয়। উপরুক্ত কুরাআনের আয়াত থেকে এটিই প্রতিয়মান হয় ।
নিম্নোক্ত হাদীসটি লক্ষ্য করিঃ
It was narrated from 'Abdullah bin Buraidah that his father said: "Abu Bakr and 'Umar, may Allah be pleased with them, proposed marriage to Fatimah but the Messenger of Allah said: 'She is young.' Then 'Ali proposed marriage to her and he married her to him."
https://sunnah.com/nasai/26
Grade: Sahih (Darussalam)
Reference : Sunan an-Nasa'i 3221
In-book reference: Book 26, Hadith 26
English translation: Vol. 4, Book 26, Hadith 3223

হুসায়ন ইবন হুরায়াছ (রহঃ) ... আবদুল্লাহ ইবন বুরায়দা (রহঃ) তাঁর পিতার সূত্রে বর্ণনা করেন, আবু বকর এবং উমর (রাঃ) ফাতিমা (রাঃ)-এর বিবাহের পয়গাম পাঠালে রাসূলুল্লাহ্ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেনঃ সে তো অল্প বয়স্ক। এরপর আলী (রঃ) প্রস্তাব করলে তিনি তাঁর সাথে বিবাহ দিলেন
Click This Link
বিয়ের সময় ফাতিমা (রাঃ) এর বয়স ছিল আনুমানিক (১৫-১৯) বছর। এবং হযরত আলি (রাঃ) এর বয়স ছিল আনুমানিক (২১-১৫) বছর।
ইসলাম ধর্ম আদব এবং সভ্যতার দিক থেকে যে কোন যুগ/ আদর্শ থেকে সবসময় এগিয়ে থাকবে। নিম্নোক্ত হাদিসটি লক্ষ্য করিঃ
It was narrated from Ibn 'Umar that the Prophet said: "None of you should propose marriage to a woman when someone else has already proposed to her."
https://sunnah.com/nasai/26
Grade : Sahih (Darussalam)
Reference : Sunan an-Nasa'i 3238
In-book reference : Book 26, Hadith 43
English translation : Vol. 4, Book 26, Hadith 3240

এবার আসি, পরিবারের ভিতরে পরস্পর বোঝাপরাকে সেই সময়ে সাহাবীরা কিভাবে গুরুত্ব দিতেন।

It was narrated from Jabir that he married a woman at the time of the Messenger of Allah, and the Prophet met him and said: "Have you got married, O Jabir?" He said: 'Yes.' He said: 'A virgin or a previously-married woman?' I said: 'A previously-married woman.' He said: 'Why not a virgin who would play with you?' I said: 'O Messenger of Allah, I have sisters, and I did not want her to come between them and I.' He said: 'That's better then. A woman may be married for her religious commitment, her wealth or her beauty. You should choose the one who is religiously committed, may your hands be rubbed with dust (may you prosper).'
https://sunnah.com/nasai/26
Grade: Sahih (Darussalam)
Reference: Sunan an-Nasa'i 3226
In-book reference: Book 26, Hadith 31
English translation: Vol. 4, Book 26, Hadith 3228

এখানে লক্ষ্যনীয় বিষয়, সাহাবী এমন একজনকে বিয়ে করেছেন যিনি তার পরিবারের সাথে সমঝোতা করে চলতে পারবেন।

মন্তব্য ১ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (১) মন্তব্য লিখুন

১| ১৩ ই জুলাই, ২০১৯ সকাল ৭:৩৭

রাজীব নুর বলেছেন: এই জন্যই বিয়েটা করে ফেলেছি।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.