নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

হাজার হাজার অসাধারন লেখক+ব্লগারের মাঝে আমি এক ক্ষুদ্র ব্লগার। পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া লেখালেখির গুণটা চালিয়ে যাচ্ছি ব্লগ লিখে... যখন যা দেখি, যা মনে দাগ কাটে তা লিখি এই ব্লগে।

সোহানী

আমি অতি বিরক্ত হয়ে আমার অনেক লিখাই ড্রাফটে নিয়েছি কারন সামুতে আমার কিছু ভাবনা শেয়ার করছি, আর এ ভাবনা গুলো আমার অনুমতি ব্যাতিরেকে কপি না করার অনুরোধ করেছিলাম কিন্তু যত্রতত্র আমার লিখার কপি পেস্ট দেখেই যাচ্ছি দিনের পর দিন।

সোহানী › বিস্তারিত পোস্টঃ

প্লিজ তোমরা এবার ফিরে যাও....

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:১৩

প্লিজ তোমরা এবার ফিরে যাও। তোমরা যা দেখিয়েছো তা আমরা কল্পনাও করতে পারিনি। স্যালুট তোমাদের। সবাই বুঝে গেছে তোমরা কতটা শক্তিশালী। যা দেখিয়েছো তা ইতিহাস, যুগের পর যুগ কালের সাক্ষী হয়ে থাকবে তোমরা। এবার তোমাদের নিরাপত্তা দরকার। হাতুড়ি লাঠি কিরিচের সামনে তোমরা টিকতে পারবে না। তোমাদের জীবন এ পৃথিবীর সবকিছুর চেয়েও মূল্যবান। তোমাদেরকে যে দরকার আমাদের। প্লিজ প্লিজ তোমরা এবার ফিরে যাও। প্লিজ তোমরা এবার ফিরে যাও। প্লিজ তোমরা এবার ফিরে যাও।

ফেসবুক, ব্লগ, পত্রিকা কোথাও তাকাতে পারি না। এ কচি কচি মুখগুলো দেখলে বুকটা ভেঙ্গে আসে। যে দায়িত্ব ছিল আমার, তা তোমরা স্বেচ্ছায় তুলে নিয়েছো। এবার বাকিদের বুঝে নিতে দাও তোমাদের কাঁধে তুলে নেয়া দায়িত্বগুলো। প্লিজ প্লিজ তোমরা এবার ফিরে যাও। মায়ের কষ্ট তোমরা অনুভব করতে পারবে না এখন, সর্বদা অজনা শংকায় বুকটা কেঁপে উঠে.......। প্লিজ প্লিজ তোমরা এবার ফিরে যাও।প্লিজ প্লিজ তোমরা এবার ফিরে যাও।

কি সীমাহীন দূশ্চিন্তা নিয়ে দিন পর করছি তোমাদের জন্য। অন্তত মায়ের মুখের দিকে তাকিয়ে তোমরা এবার ফিরে যাও। মায়ের সে বুকের কষ্টগুলোর কথা চিন্তা করে ফিরে যাও তোমরা। প্লিজ প্লিজ তোমরা এবার ফিরে যাও।প্লিজ প্লিজ তোমরা এবার ফিরে যাও।

মন্তব্য ৯১ টি রেটিং +১৮/-০

মন্তব্য (৯১) মন্তব্য লিখুন

১| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:১৭

চাঙ্কু বলেছেন: এই নির্মম ছবিগুলো দেখতে পারছি না বলে ফেসবুকের ফিড দেখা বন্ধ করে দিয়েছি! :(

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:২০

সোহানী বলেছেন: হাঁ, কি যে কষ্টকর এ ছবিগুলো, বুকটা ভেঙ্গে যায়। আর নিতে পারছি না।

২| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:২০

ইফতেখার ভূইয়া বলেছেন: ফেসবুক, টুইটার বন্ধ করে দিয়েছি। :(

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:২৬

সোহানী বলেছেন: আমি ও তাই। যেহেতু দেশে থাকি না তাই সবসময় এসব নিউজ ফিডই ভরসা ছিল। আজ কদিন ধরে আর পড়তে পারছি না। মনে হচ্ছে সব কি অমানুষ হয়ে গেছে এরা ক্ষমতার দম্ভে!

৩| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:২১

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: ছাত্রসমাজ খুব ক্রান্তিকাল পার করছে। এর সমাধানা হওয়া উচিৎ। তবে এই মুহূর্তে আমাদের ঠিক কি করা উচিৎ তা জানিনা!!!

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:২৭

সোহানী বলেছেন: এ মূহুর্তে তোমাদের ফিরে যাওয়া উচিত। এটি হার নয়, এটি তোমাদের বিজয়। বাকিটা ভন্যদের ভাবতে দাও। ইতিহাস তোমাদের কথা বলবে।

৪| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৩৪

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:



পাক্কা ১ মাস ৭ দিন পর !!!
এই কিশোর-কিশোরীরা এখনো শিখছে; এরা জাতির "রো ম্যাটেরিয়াল"। ওদের প্রতিবাদের ভাষায়, আচরণে এখনো পরিপক্বতা আসেনি এজন্য এরা জানে না কঠিন সত্য কথাটি বলতে হয় বড়দের মত ঘুরিয়ে পেঁচিয়ে, সুন্দর ভাষায়। এজন্য বড়রা ভদ্র পোষাক পরে মনে মনে যে খারাপ গালিগুলো দেয় তাই তারা অনভিজ্ঞতার কারণে প্লেকার্ডে লেখছে।

তাদের এমন নোংরামি প্লেকার্ড প্রদর্শনী বড়দের জন্য লজ্জা ও ঘৃণার হতে পারে; তবে তাদেরকে রাস্তায় নামানোর দায়ভার বড়দের, এটি অস্বীকারের কোন সুযোগ নেই। এরা ডিজিটাল জামানার কিশোর-কিশোরী।

এর দায়ভার ১৯৭১ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত যারা এদেশের রাষ্ট্র ক্ষমতায় ছিলেন বা আছেন। যারা দেশের গণ পরিবহন ব্যবস্থাকে শৃঙ্খলাবিধির আওতায় আনতে ব্যর্থ হয়েছেন। এ আন্দোলন কোন দল বা সরকারের বিরুদ্ধে নয়, এটি একটি দেশের ঘুমিয়ে পড়া আইন ও বিশৃঙ্খলার বিরুদ্ধে; এদেশে একজন পরিবহন চাঁদাবাজ, পরিবহন মাফিয়াও মিনিস্টার হয়!!

দেশের যোগাযোগ মন্ত্রণালয়, বিআরটিসি, বিআরটিএ হলো সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্থ ডিপার্টমেন্ট। এজন্য লাইসেন্স ছাড়া চালক হয়, ফিটনেস ছাড়া বাস হয়, টাকা দিলেই লাইসেন্স মেলে। ভিআইপি ও সরকারে উচ্চ পর্যায়ের লোকদের লাইসেন্স লাগে না। এরা উল্টো পথে গাড়ি চালাতে পারে।

আমাদের দেশে আইনের কোন অভাব নেই; হাতির আকৃতির পরিবহণ আইনও আছে; তবে এগুলো কাগজ সর্বস্ব। এ আইন শুধু নিরীহ পাবলিককে ঘায়েল করতে ব্যবহার করা হয়, তবে যাদের ক্ষমতার হাত অনেক লম্বা, টাকার কুমির আইন তাদের বেলায় ভোঁতা।

আর এসবের ফলাফল হলো কিশোর-কিশোরীদের এ আন্দোলন। এদের অশ্লীল গালি ও প্লেকার্ড লেখার দায়ভারও বড়দের। বড়রা নিজেদের দায়িত্বটি ঠিকমত পালন করলে এদেরকে রাস্তায় নামতে হতো না; এ আন্দোলন দেশকে সঠিক পথে আনার একটি শুরু মাত্র।

হ্যা, আপু ঠিকই বলেছেন, এখন সময় হয়েছে ঘরে ফিরে যাওয়ার; এদের জন্য আধমরাদের, ক্ষমতাবানদের চৈতন্যে একটু হলে নাড়া দেওয়া গেল। এটা তো কম অর্জন না, তই না? এদেশে এখন পর্যন্ত কোন ট্রাফিক পুলিশের সাহস হয়নি কোন মিনিস্টার, কোন এমপি, আর্মি অফিসার, পুলিশ অফিসার, মাফিয়া নেতা, সচিব ও বিচারপতির গাড়ি আটকিয়ে গাড়ির ফিটনেস ও ড্রাইভারের লাইসেন্স পরীক্ষা করতে; কিন্তু এসব কিশোর সেনাপতিরা তা করে দেখিয়েছে। এটা অনেক বড় অর্জন; এজন্য স্যাল্যুট তোমাদের।

ভাল থাকুন প্রিয় আপু সব সময়।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৪১

সোহানী বলেছেন: কাওসার ভাই, আন্দোলনের শুরু থেকেই এ বাচ্চাগুলোর জন্য আতংক নিয়ে দিন পার করছি। নিউজ ফিড বা ব্লগের লিখার ছবিগুলোর দিকে তাকিয়ে আমি পাগল হয়ে যাচ্ছি। আমি সহ্য করতে পারছি না। আমি বাচ্চাদের কিছুই সহ্য করতে পারি না। শুধু নিজের বাচ্চা নয় পৃথিবীর সব বাচ্চাগুলোকেই আমার নিজের মনে হয়। তাই বাধ্য হয়ে এ পোস্ট লিখলাম। অনেক লিখা আসছে ব্লগে কিন্তু সহ্য করতে পারছি না বলে মন্তব্য করতে পারছি না।

পরিস্থিতি সহ্য ক্ষমতার মধ্যে আসলে আবার ফিরে আসবো ব্লগে।

৫| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৩৬

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: একই আহবান সাকিব খান করাতে সবাই গালির বন্যা বইয়ে দিয়েছে...

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৪৩

সোহানী বলেছেন: নীচে শাহিন উত্তর দিয়েছে।

কিন্তু আমি বাচ্চাদের বিনিময়ে কিছুই চাই না। ক্ষমতা/অর্থ/সড়ক.......... কিছুই চাই না। আমি ওদের প্রাণভিক্ষা চাই।

৬| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৪০

শাহিন-৯৯ বলেছেন:


@বিচার মানি তালগাছ আমার ভাই, সাকিবের গায়ে নেীকার সিল আছে। অধিকাংশ মানুষ তাকে ধান্দবাজ ভাবে।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৪৪

সোহানী বলেছেন: কিন্তু এবার সময় হয়েছে সবার সোচ্চার হবার। দলমত নির্বিশেষে সবারই এগিয়ে আসা উচিত সমাধানে। আর বাচ্চাদের ঘরে ফিরিয়ে নেয়া উচিত।

৭| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৪৮

মলাসইলমুইনা বলেছেন: হ্যা, সত্য সুন্দর পরাজিত হলে হোক অনুজেরা এবার বাড়িতে ফেরো I দানবের রক্ত পিপাসা থেকে সবার আগে আমাদের এই অনুজদের বাঁচাতেই হবে I শাজাহান খান ক্ষমতা আলো করেই থাকুক I সমাজের অক্ষমতা ক্ষমা করে প্লিজ তোমরা এবার এবার বাড়ি ফেরো I

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১:৪৫

সোহানী বলেছেন: হাঁ নাইমুল ভাই, সমাজের অক্ষমতা ক্ষমা করে এবার ওদের বাড়ি ফেরা উচিত I এর পরে কি হবে সেটা অনুমান করে শিউরে উঠছি....

৮| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৫৯

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: কন হে বে তু??:P

সহজ একটা ধাঁধা দিলুমঃ
ছাত্রদের বুঝা দরকার, লীগ এখন গোখরা সাপ। এখন ওদের হাজার খুন মাফ। দুধের শিশুগুলো না জানে লাঠি না ভেঙে সাপ মারা, না জানে সাপকে ধরা/সাপকে বশে আনা। ওদের কাছে না আছে কোন অ্যান্টিভেনম। যা হবহবার তাই হল। :( আগেই জানতুম ছোবল খাবে...:(

আচ্ছা অভিভাবকগুলো ওদের রাস্তায় বের হতে দিচ্ছে কেন??X(


পুনশ্চঃ
বুঝলে বরফ আপা! ওঝা হতে হবে। কামরুক কামাখ্যায় যাবো..:P

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১:৫০

সোহানী বলেছেন: অভিভাবকগুলো বুঝতে পারার আগেই অনেক কিছু ঘটে গেছে। এবার তাদের ফিরিয়ে নেয়া উচিত। এ গোখরা সাপ কি করতে পারে তা কোটা আন্দোলনে সবাই বুঝে গেছে।

হাঁ দেশে এখন ওঝা ছাড়া কেউই ভালো নেই। তাই ওঝা হওয়া ছাড়া গতি নাই। ওঝা হবো ক্রিম খাবো আর বিষধর সাপ নিয়ে খেলা দেখাবো.......

পুনশ্চঃ এখন গরম আপা কারন +৪০!!!!!!

৯| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১:১০

আরণ্যক রাখাল বলেছেন: সরকার দাবিগুলো পূরণ করতে পারছে কিনা সেটা জানতে সবার ফিরে যাওয়া উচিৎ। এ অবস্থায় তারা উদ্যোগ গুলো নিতে পারছেন না ঠিক মত।
যদি দেখা যায়, আবার ফিটনেসহীন গাড়ি রাস্তায় চলছে, তাহলে না হয় আবার আন্দোলনে নামা যাবে। যদিও পরবর্তীতে আবার সংগঠিত হতে দেয়া হবে কিনা কিংবা হতে পারা যাবে কিনা, সে নিয়ে সংশয় থেকেই যায়।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১:৫৩

সোহানী বলেছেন: ভাইরে এ ফিটনেসহীন গাড়ি, লাইসেন্স বিহীন গাড়ি, জ্যাম, বিচারহীনতা.... সব কিছুই একটির সাথে আরেকটি জড়িত। কোনভাবেই বন্ধ হবে না। যতক্ষন না মাথা ঠিক হয়...........।

১০| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১:১১

সুমন কর বলেছেন: হুম !!

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১:৫৩

সোহানী বলেছেন: ভাইরে আর নিতে পারছি না।

১১| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১:৪৬

ইফতি সৌরভ বলেছেন:


নিরাপদ দেশ চাই!

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১:৫৪

সোহানী বলেছেন: দেখতে চাইনা.... দেখতে চাইনা....। আমার সন্তানের এ কষ্ট........। জাহান্নামে যাক সব কিছু, আমার সন্তানদের বাচাঁন।

১২| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১:৫৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


তাদের মিশন শেষ হওয়ার দরকার, নাকি সরকার পতন অবধি চলা দরকার?

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ২:০৩

সোহানী বলেছেন: কোনভাবেই ক্ষমতা দখলের ঘুটি হবার কথা নয় এ বাচ্চাগুলোর। ওদের রক্তের বিনিময়ে কোন কিছুই চাই না। না মসনদ না রাস্তা.... কিছুই না।

১৩| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ২:০৯

:):):)(:(:(:হাসু মামা বলেছেন: খুব কষ্ট লাগছে । |-)

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ৯:৫০

সোহানী বলেছেন: ওদেরকে তো বাচাঁতে হবে..........

১৪| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ২:২৮

জুনায়েদ বি রাহমান বলেছেন: হ্যা আপু, নিউজ, ব্লগ, টিভি থেকে চোখ সরাতে পারছি না। তাদের জন্য ভয় হচ্ছে, তাদের রাস্তায় থাকা মুটেও নিরাপদ নয়। নোংরা রাজনীতি আর ক্ষমতার তুপে কোমল জীবন নষ্ট হোক সেটা কোনভাবেই চাই না।

প্লিজ তোমরা ঘরে ফিরে যাও।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ৯:৫৩

সোহানী বলেছেন: নোংরা রাজনীতি আর ক্ষমতার তুপে কোমল জীবন নষ্ট হোক সেটা কোনভাবেই চাই না।........... হাঁ চাই না তারা হোক বলির পাঠা....। ফিরে যাক তারা........

১৫| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ২:২৮

যবড়জং বলেছেন: :(

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ৯:৫৪

সোহানী বলেছেন: ফিরে যাক তারা এবার..........

১৬| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ ভোর ৬:৫৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: ১৯৭১ এ পাক হানাদারদের নিষ্ঠুরতা দেখিনি। দেখিনি আলবদর ,রাজাকারদের নিল্লজ্জ মিথ্যাচার ও নিশৃংষতা,। ২০১৮ তে সেই ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হতে দেখছে মানুষ। পাকি শাষক, গোলাম আজম , কাদের মোল্লাদের দল আবার ফিরে এসেছে অন্য এক বেশে, ভিন্ন এক নামে।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ৯:৫৬

সোহানী বলেছেন: হাঁ, এতোটা নৃশংস মনে হয় কোন গণতান্ত্রিক সরকার আর হয়নি।.......... আমি আমার সন্তানের জীবন ভিক্ষা চাই, আর কিছু নয়।

১৭| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ১০:২৫

রাজীব নুর বলেছেন: গুজব ওয়ালা/ওয়ালিদের একজনেরও কি শাস্তি হবে?

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৪

সোহানী বলেছেন: শাস্তি হয়তো হবে বা হবে না। কিস্তু সেটা রুখে দেবার মতো যথেস্ট বুদ্ধি নেই কেন সরকারের! বিষয়টি কেন এতো দূর গড়ালো। এটিতো কোন অন্যায্য দাবী নয়। প্রথমেই মেনে নিয়ে তাদের ফেরত দিলেইতো হতো। একজন মন্ত্রী জানে না কিভাবে পাবলিক সেন্টিমেন্ট নিয়ে কথা বলতে হয়.... সেইম!!! ক্ষমতার দম্ভে তারা অন্ধ হয়ে গেছে।

১৮| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ১০:৩৪

মোস্তফা কামাল পলাশ বলেছেন:

@রাজীব নুর,

এত তাড়াতারি ভুইলা গেলেন গোপালগন্জ থেকে জামাই আদর খয়ে এসে ব্লগে নাকের পানি চোখের পানিতে বন্যা বয়া দিয়েছিলেন।
কিছু মনে করবেন না, আপনার মধ্যে আওয়ামীলীগের এমপি হওয়ার সকল গুনাবলি দেখতে পাই।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৫

সোহানী বলেছেন: একজন ব্লগার এমপি হলে খারাপ না!!

১৯| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ১০:৩৫

মোস্তফা কামাল পলাশ বলেছেন:
@রাজীব নুর, গোপালগন্জের জামাই আদরের ঘটনাটাও গুজব মনে হচ্ছে।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৬

সোহানী বলেছেন: ঘটনা জানি না.......

২০| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ১০:৩৮

মোস্তফা কামাল পলাশ বলেছেন:
আপু, কোটা সংস্কার আন্দোলনে গিয়ে আমার ছোট ভাই জেলে গিয়েছিল। এর পরেও আমি তাকে মানা করি না কোটা সংস্কার আন্দোলনের মিছিলে না থাকার জন্য। আমি সেক্সপিয়ারের জুলিয়াস সিজারের নিম্নোক্ত উক্তিটি খুবই পছন্দ করি। প্রতিদি ধুকে-ধুকে মরার চেয়ে ছাত্রলীগ-পুলিশের গুলি খেয়ে হঠাৎ করে মরাটা ভালো নয় কি?

“A coward dies a thousand times before his death, but the valiant taste of death but once. It seems to me most strange that men should fear, seeing that death, a necessary end, will come when it will come.” ―William Shakespeare, Julius Caesar.

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৫:৪২

সোহানী বলেছেন: না মরা ভালো না। এভাবে গুলির সামনে নিজের বুক পেতে দেয়া কোন ভালো কিছু নয়্ বরং এতে পরাজিতই হবে জয়ী হবার সম্ভাবনা নেই। প্রবিাদের অভাবে অারো ভালোভাবে নস্টদের দখলে চলে যাবে সব। সেক্সপিয়ার যা বলেছেন তা আমাদের জন্য প্রযোজ্য নয়। কারন এরা এখন হিংস্র কুকুর। ক্ষমতার দম্ভে সাদা কালো বুঝতে পারছে না। বুক পেতে দেয়া কোন সমাধান নয়। কৈাশল বদলাতে হবে। যুদ্ধে জয়ীদের জন্যই ইতিহাস রচিত হয় পরাজিতদেরকে কাউয়ার্ড হিসেবে ধরা হয়। এখনো সময় আসেনি পলাশ।........

২১| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ দুপুর ১২:২৪

ক্স বলেছেন: এরা এখন মজা পেয়ে গেছে। তাই প্রত্যেকের হাতে আইসক্রীম ধরিয়ে দিলেও ফিরে যাবেনা। ক্লাসে টিচার পেটায়, পড়া ধরে, পরীক্ষার টেনশন, বাবা মায়ের চাপ।

আর রাস্তায় বসে মন্ত্রী এমপি পুলিশের উপর খবরদারি, মিডিয়ার সেন্ট্রাল এ্যট্রাকশন - এগুলো ছেড়ে কেউ যায়?

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৩

সোহানী বলেছেন: কথাটা ঠিক না। এরা শিশু, আদর ভালোবাসা অবশ্যই খবরদারি, মিডিয়ার এ্যট্রাকশন থেকে আকর্ষনীয়। মায়ের আহবান ওরা কোনভাবেই উপেক্ষা করতে পারবে না। মাদের ডাকতে বলেন আগে.........

২২| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৪:১৩

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: ওদের টেনশনে ওদের বাবা মা এবার মরবে। ওদের মা বাবার উচিৎ সন্তানদের কথা ভাবা

সুকান্তের ছাড়পত্র কবিতা আছে । কিন্তু আমরা ওদের জন্য পৃথিবীটা বাসযোগ্য করতে পারি নি ।নষ্টের দখলে যাচ্ছে সব। আমাদের কথা তাই আর ওরা শুনেনা। তাই তো পথে নেমে গেছে ।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৬

সোহানী বলেছেন: হাঁ, পৃথিবীটা বাসযোগ্য করতে পারি নি কারন সবকিছু নষ্টের দখলে চলে যাচ্ছে সব।

ওরা পথে নেমেছে এক বুক কষ্ট নিয়ে বা বাধ্য হয়েছে নিজেদেরকে তুলে ধরার। এখন ওদেরকে ডাক দিন, ওরা ঘরে ফিরে যাবে। ওরা আমাদের সন্তান, আমাদের কথা শুনবেই।

২৩| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৯

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: শুনেনি। আজকেও নতুন করে শিশুরা নেমেছে। তাদের মা বাবা থামাতে পারেনি । এরপর বোধহয় মা বাবা নিয়ে নামবে। :(

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৫

সোহানী বলেছেন: প্লিজ ওদের থামান। ওদের বোঝান............ ভালোবেসে আদর করে বোঝান। ওরা এক ধরনের হেলুসিনেশানে আছে। ওদেরকে ফিরাতেই হবে। ওদের নিরাপত্তা সবার আগে। একের পর এক আন্দোলনে হাতুড়ির আঘাত দেখেছি। ওরা অনেক অবুঝ... ওদেরকে বোঝাতে হবে।

২৪| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:১৭

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: ওরা উত্তরাতে। ফোনে পাওয়া যায়না। বন্ধুর ফেসবুক স্টাটাস থেকে দেয়। ওরা বারবার আসতে চায়। ওদের আটকে রাখার চেষ্টা চলছে ।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:৩৮

সোহানী বলেছেন: ওদের এখন রাজনৈতিক গুটি হিসেবে ব্যাবহারের চেস্টা চলবে। আমার সন্তানের প্রান আমার কাছেই শুধু মূল্যবান, ওদের কাছে একটি সৈন্য, দাবার একটি গুটিই শুধু। যার বিনিময়ে পাবে মসনদের চাবি...........

কবি ভাই ওদের ফেরান, ওদেরকে ফেরানোর চেস্টা করেন।

২৫| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩২

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: হ্যাঁ আপু, এবার ওরা ফিরে আসুক। সব কিছু দ্রুত স্বাভাবিক হোক। কাওসার ভায়ের কমেন্টটা ভীষণ সুন্দর হয়েছে। লাইক দিয়েছি।


নিরন্তর শুভেচ্ছা আপনাকে।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:৩৯

সোহানী বলেছেন: জি পদাতিক ভাই, ওরা ঘরে ফিরে আসুক।

কাওসার ভাই সবসময়ই ইউনিক।

অনেক ধন্যবাদ।

২৬| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:৫৫

কি করি আজ ভেবে না পাই বলেছেন: সর্বনাশ যা হবার হয়েই গেছে,
বাঘ পেয়েছে নরমাংশের স্বাদ...............

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৩৭

সোহানী বলেছেন: তারপরও বলবো ওদের ফিরে যাওয়া উচিত। এখন ওরা তরুন, রক্তে উত্তেজনা। তাই সরকারেরই উচিত মাথা ঠান্ডা রেখে বড় কোন ক্ষতি হবার আগেই ফিরিয়ে দেয়া।

২৭| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:৫৫

কি করি আজ ভেবে না পাই বলেছেন: হলুদ সবুজ বিচ্ছুতে আজ
ঢল নেমেছে রাস্তা জুড়ে;
কাক-শেয়ালে নাম লেখালো
ইতিহাসের আস্তাকুড়ে।

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৪০

সোহানী বলেছেন: হাঁ, ইতিহাস এ এমন গণজাগরন খুব একটা বেশী নেই। তাই হিরো এবং ভিলেন সময়ের স্রোতে নির্ধারন হবেই হবে।

২৮| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৯:২৯

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হুম।

এখন ফিরে যা্ওয়াই উত্তম।
কিন্তু একটা কিন্তু থেকে যায় । এখন এ অবস্থায় এভাবে হুট করে ফিরে গেলে ছাত্র এবং সাধারন জনতা সকলেই পরিবহন মাফিয়াদের কাছে আরও বেশি ভুক্তভুগি হবে। তারা উপহাস করবে। ছাত্রদের হাফ ভাড়াতো কখনোই তারা মানতে চায় না। তার উপর পরিবহন মালিক মাফিয়া গং তাদের জেদ দেখিয়ে দেশকেই অচল করে রাখছে দীর্ঘদিন। এর ঝাল তারা মেটাবে প্রতিদিনে প্রতি খেপে।!!!

তাই মধ্যম এবং উত্তম পন্থার সমাধান হলো ত্রিপক্ষীয় একটি বৈঠক।

যেখানে ছাত্র প্রতিনিধি, পরিবহন প্রতিনিধি এবং সরকার থাকবে।

জটিল কোন আলোচনা নয়, চুক্তি নয়। সরকার যে দাবী গুলো মেনেছে বলে বলছেন তাই সকলের উপস্থিতিতে সম্মতিতে যৌথ ঘোষনার মাধমে লাইভ প্রচার।

তাহলে সকলেরই উইন উইন সিচুয়েশনে থাকবে। সরকারও বিজয়ী হল। ছাত্ররা্ও ফিরে গেল। শ্রমিক মালিকরা্ও স্বেচ্ছাচার না করে সুস্থ স্বাভাবিক চলার ওয়াদায় রইল। তাতে ছাত্র ও আমজনতার ভবিষ্যত ভোগান্তি কম হবে। আর পরিবহন মাফিয়ারা্ও যা ইচ্ছে তাই করতে পারবেনা।

নইলে লিখে রাখেন - পরিবহন সেক্টরের উদ্ধত্য অন্য সকলবারের চেয়ে এবার সীমা ছাড়িয়ে যাবে।
কারণ তাদের জেদের কাছে সরকার নতজানু হচ্ছে।
ভেবে দেখুন। সম্ভব হলে উচ্চ পর্যায়ে ধারনাটুকু পৌছে দিন।

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৪৭

সোহানী বলেছেন: পুরোটা সমর্থন করিনা বিগু। কারন এ মূহুর্তে এক পক্ষের দরকার লাশ আর অন্য পক্ষের দরকার লাশ ফেলা। দুই গ্রুপই সুযোগের সন্ধানে আছে। তাই মাঝপথে এ অসহায় শিশুগুলোর জীবনের নিরাপত্তা দিতে এর চেয়ে কোন বিকল্প নেই।

একজন মা হিসেবে যদি বলো তাহলে বলবো, এ পৃথিবীর কিছুই আমি চাই না আমার সন্তানের জীবনের বিনিময়ে.....। তাই ওরা ফিরে যা এটাই আসল কথা, এটাই প্রয়োজন।

পরিবহন সেক্টর কি হলো, কি ক্ষমতার পালা বদলে আসলো তাতে কিছু যায় আসে না আমার। আমার এ মূহুর্তে দরকার ওদের নিরাপত্তা।

২৯| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৯:৪৯

গেম চেঞ্জার বলেছেন: ওরা ফিরে না গেলে ক্ষয়ক্ষতির পরিমানটা হবে আরও বেশি। আমিও চাই আমাদের ছোট-ভাইয়েরা ফিরে যাক, ওদের ওপর যা হচ্ছে সেগুলো দৈত্য বনাম মানুষের যুদ্ধে পরিণত হচ্ছে! :(

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৪৮

সোহানী বলেছেন: হাঁ গেমু, দৈত্য বনাম মানুষের যুদ্ধ হতে পারে না। ওদেরকে গুলির মুখে ছেড়ে দিতে পারি না। তাই ওদের ফিরে যেতেই হবে।

৩০| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৯:৫৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ৩ তারিখের পরে ছাত্রদের রাস্তায় নামাকে আমিও সমর্থন করি।
পরের দুই দিনে যা ঘটছে এতে আমি বাকরুদ্ধ!!!

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৫১

সোহানী বলেছেন: একই কথা আমারো লিটন ভাই। আমি এতোটা আশা করিনি। কিন্তু বুঝতে হবে সবার... হেফাজত, কোটা আন্দোলন বা আরো কিছুর পর পেশী শক্তিই হয়েছে মূল হাতিয়ার। এর বিপরীতে কি করতে পারে ওরা???

৩১| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১০:০০

শায়মা বলেছেন: আসলেই এখন ফিরে যাওয়া দরকার। বাচ্চারা যা দেখাবার দেখিয়ে দিয়েছে।

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৫০

সোহানী বলেছেন: হাঁ এখন ওদের ফিরে যাওয়া দরকার.........

৩২| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১০:০২

প্রামানিক বলেছেন: ছাত্রদের এবার ঘরে ফেরা দরকার নইলে ক্ষতির সম্ভাবনা আছে।

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৫২

সোহানী বলেছেন: শুধু ক্ষতির সম্ভাবনাই না অলরেডি অনেক ক্ষতিই হয়ে গেছে। এবার ওদের ফিরতে হবেই।

৩৩| ০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১১:২৭

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:
আগে ঠেলে পাঠিয়েছেন, এখন ফেরানো মুস্কিল হবে। যারা এখনো মাঠে ওরা এখন স্রেফ দাবার ঘুটি! ওদের ভবিষ্যৎ নিয়ে আমি আশংকিত!

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৫৬

সোহানী বলেছেন: ডানা ভাই, ওদেরকে কেউই ঠেলে পাঠাইনি। ওরা স্বতস্ফূর্ত ভাবেই অংশগ্রহন করেছিল। তখন যদি ক্ষমতাসীনরা ওদের মাথায় হাত বুলিয়ে বাড়ি ফিরিয়ে দিতো তাহলে এতদূর গড়াতো না। সবখানেতো হাতুড়ি চলে না রে ভাই। ভালোবাসা দিয়েও জয়ী হতে পারতো ক্ষমতাসীনরা। সবখানে একই ফর্মুলাতো খাটে না, তাই না!!!

৩৪| ০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১২:৪৪

এটম২০০০ বলেছেন: THE Bangladesh Military officials, Bangladesh Police officials, RAB personnel, Intelligence Department personnel, SSF officials, Bureaucrats ARE EXTREMELY WORRIED FOR THEIR CHILDREN ENGAGED IN JUST MOVEMENT. But they cannot say anything because they cannot breach discipline. But if any of their dear children is lost ....... they would see. . Chatro League, be warned for your own sake.

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:০৫

সোহানী বলেছেন: ওদের ফিরে যাওয়া ছাড়া অন্য কিছু ভাবতে পারছি না.........

৩৫| ০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১:১৭

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:
ওদের ৭ দিন নষ্ট হয়েছে। সরকারও ওদের অবস্থান বুঝে নিয়েছে। তাদেরকে এখন ফেবুতে উস্কে দেওয়া হচ্ছে।
ছাত্রদের দাবী মেনে নেবার পর তাদের আর মাঠে নামা উচিত হয়নি। আপনি মেবি আমির খসরুর অডিওটা শুনেন নি! এখন এতে রাজনীতি মিশে গেছে। এখন এতে হয়ত আর ভালবাসা কাজ করবে না। স্বরাষ্টমন্ত্রীর হুশিয়ারি আমলযোগ্য। ছাত্ররা দেশের ভবিষ্যৎ! ওদের জন্যে আমার ভালবাসা আছে। তবে ওদের পড়াশোনা করে দেশ বদলাতে হবে, আন্দোলন যা হবার হয়েছে!

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:০৮

সোহানী বলেছেন: রাজনীতি মিশে যাওয়াটাই স্বাভাবিক। ফেবু, ব্লগ সব কিছু কনসিডার করেই সরকারকে এগোনো দরকার। এগুলো বিচ্ছিন্ন কিছু নয়। সরকার ছাড়া সমাধান কেইউই দিতে পারবে না।

৩৬| ০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ১:২৮

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:



রাস্তায় ছাত্রলীগ হিংস্র হচ্ছে। প্রতিপক্ষ বিভিন্ন কৌশলে নামছে। স্বরাষ্টমন্ত্রী হুশিয়ারী দিয়েছে। ছাত্রদের সাবধানে থাকতে হবে। এটা এখন আর সিম্পল কিছু নয়!

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:১০

সোহানী বলেছেন: ছাত্রলীগ সবসময়ই হিংস্র...। দেশের সাধারন মানুষের থেকে তারা আলাদা প্রজাতী হিসেবে গড়ে উঠছে দিনে পর দিন। কিন্তু কেন? তারা কেন সাধারনের অংশ হতে পারছে না?

৩৭| ০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ৮:০৩

অক্পটে বলেছেন: সমাজের অক্ষমতা ক্ষমা করে এবার ওদের বাড়ি ফেরা উচিত @ মলাসইলমুইনার এই কথাটি কতো সত্যি। আসলেইতো! প্রশাসনের সহযোগিতায় ছাত্রলীগ-যুবলীগের হিংস্র জানোয়ার গুলো রামদা, লাঠিসোটাসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায় সেখানে কিভাবে নিরস্র ওরা টিকে থাকবে? তোমরা তো জানলে ওরা কারা। এবার তোমরা ঘরে ফিরে যাও। তোমরা বড় হও। বড় হয়ে আমাদের দেশটাকে সুন্দর করে গড়ে দিও আজ ঘরে ফিরে যাও।

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:১২

সোহানী বলেছেন: সমাজের অক্ষমতা ক্ষমা করে এবার ওদের বাড়ি ফেরা উচিত। কিন্তু এ অক্ষমতার দায়িত্ব নেয়ার আগেই সরকারের সাবধান হওয়া দরকার ছিল। আসলে ক্ষমতার দম্ভে তারা হিতাহিত জ্ঞান হারিয়েছে।

৩৮| ০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ১০:৫০

নতুন নকিব বলেছেন:



খুব সুন্দর করে লিখেছেন। আপনার হৃদয় ছোঁয়া কথামালায় সহমত। সন্তানদের এবার ঘরে ফিরে যাওয়া উচিত।

মনে প্রানে বিশ্বাস করতে চাই, নিরাপদ সড়কের দাবিতে আমাদের কলিজার টুকরা সন্তানদের স্বত:স্ফুর্ত এই পথে নেমে আসা বৃথা যাবে না। বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে যারা জীবন দিলেন, জানি, তাদের স্বপ্নগুলোও পিষে গেছে রাজপথের কালো পিচের সাথে, তবুও রাজপথে যারা রক্ত ঝড়ালেন, বিশ্বাস করি- তাদের রক্ত বৃথা যাবে না। প্রতি ফোটা রক্ত কথা বলে উঠবে একদিন। দেশের মাফিয়া নিয়ন্ত্রিত সড়ক পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা ফিরে আসতে ভিত কাঁপিয়ে দেয়া অনুজ শিক্ষার্থীদের এই আন্দোলন ভাবি দিনের জন্য পথিকৃত হয়ে থেকে যাবে। আমরা যেটা পারিনি আমাদের হৃদয়ের স্পন্দন সন্তানরা সেটা করে দেখালেন।

হ্যাঁ, বৈরি এই সময়ে তাদের ঘরে ফিরে যাওয়া প্রয়োজন। আর যেনো কোনো মায়ের বুক খালি না হয়, আর যেনো কাউকে সন্তান হারানোর বেদনায় হাহাকার করতে না হয়, আর যেনো কাউকে ভাই কিংবা বোন হারানোর যাতনা বয়ে বেড়াতে না হয় - জানি, সে অনুভূতির তীব্র চাবুক বুকে আঘাত করে চলেছে বারবার, হৃদয়ে সে রক্তক্ষরনেরই প্রতিফলন- ঘরে ফিরে যাওয়ার উদাত্ত এই আহবানের ছত্রে ছত্রে মূর্ত হয়ে উঠেছে।

অনুজদের ঘরে ফেরার এই হৃদয় নিংড়ানো আহবান জানিয়ে সকলের পক্ষ থেকে দায়িত্বটা কাঁধে নিয়ে কৃতজ্ঞতাপাশে আবদ্ধ করলেন।

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:১৫

সোহানী বলেছেন: হাঁ প্রিয় নকিব ভাই, ওদের জীবনের বিনিময়ে কিছুই চাই না। ওদের আরেকটা লাশের বিনিময়ে কোন কিছুই চাই না। এ হিংস্র হায়েনাদের সামনে ওদেরকে মুখোমুখি দেখতে চাই না। ওদের জীবনের নিরাপত্তাই এখন সবচেয়ে বেশী দরকার।

৩৯| ০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ দুপুর ২:২৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: এই আন্দোলনটা শেষের দিকে এসে একটা প্রশ্নবোধক চিহ্নের মধ্যে পড়ে গেছে। গত বুধবারে (১ আগস্ট) আন্দোলন তুঙ্গে ছিল। ঐদিন, এমনকি তার পরের দিনও যদি বাচ্চারা ঘোষণা দিয়ে আন্দোলনের সমাপ্তি টেনে দিত, একটা হাই নোটে আন্দোলনটা শেষ হতো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দাবি মেনে নেয়ার পর এবং সেতুমন্ত্রীর কথায় (ছাত্রদের দাবি যৌক্তিক) এটা শেষ করে দিলে উত্তম হতো। আমরা এসব ছোটোখাটো আন্দোলনের ফলাফল/পরিণতি সম্পর্কে মোটামুটি জানি। কিন্তু ছাত্ররা ফিরে না যাওয়ায় শনিবারে গুজব ছড়ায় এবং পত্রিকানুসারে শতাধিক ছাত্রছাত্রী আহত হয়। সবচেয়ে বড়ো ব্যাপার হলো এতে ৩য়/৪র্থ পক্ষ ঢুকে পড়ে। গতকাল স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রীর বদলে ভার্সিটির ছাত্রছাত্রী দেখা গেলো, মূল ৯ দাবির জায়গায় কোটা সংস্কার সহ আরো কিছু যুক্ত হলো। ফলশ্রুতিতে আন্দোলন মোড় নিল অন্য পথে।

অনেক ঘটনাই ইতিহাসে উঠে আসে না। অনেক কাহিনি মাটির নীচে চাপা পড়ে যায়।

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:২১

সোহানী বলেছেন: সেটাইতো কথা। খুব স্বাভাবিক কিছু চাওয়া নিয়ে ওরা মাঠে নেমেছিল। সরকার দলীয় সামান্যটুকু ও ওদেরকে আমলে নিত তাহলে বুদ্ধিমানের মতো ওদেরকে বুঝিয়ে বাড়ি ফিরিয়ে নিতো ৩য় কিংবা ৪র্থ অনুশক্তি সেখানে প্রবেশের আগে। কিন্তু সরকার বরাবরের মতােই ভেবেছে হিংস্র হলেই তারা ভয়ে চলে যাবে। কিন্তু ক্ষমতাশীনদের ভাবতে হবে দেয়ালে পিঠ ঠেকা বলে একটা কথা আছে....। হিংস্রতা দিয়ে দেশের মানুষকে বস করা যায় না বা সবসময় একই ফর্মুলা খাটে না। কিন্তু ক্ষমতার দম্ভে তারা জ্ঞান শূণ্য হয়ে পড়েছে।

৪০| ০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:৪৬

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:



সাধারণ পাব্লিককে ভরসা করে মুজিব হত্যার শিকার হয়! বাংলায় প্রবাদ আছে- যেমন কুকুর তেমন মুগুর! তাই ছাত্রলীগ, ছাত্রদল, ছাত্র শিবির স্ব স্ব রাজনীতিবিদদের প্রথম পছন্দ! তারা বুঝে গেছে, এখানে টিকে থাকতে লড়াই করতে পেশি লাগবে!

বিদেশি ফ্লেভার পেয়ে বাংগালি তার শেকড়বাকড় ভুলে যায়। তারা মনে করে আমেরিকান ইউরোপিয়ানদের মত বাংলাদেশিরাও উদার! তা কি আদতে হয়! যেমন দেশের জনগন, তেমন তার প্রতিনিধি!


আচ্ছা আপনার মতে দেশে সাধারনের সাথে কোন দল বেশি মিশছে, জনসাধারণের অংশ হয়ে উঠছে?

৪১| ১২ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ১১:৩৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: সোহানী ,




আপনার এমন উৎকণ্ঠিত আবেদনটি পড়লুম এমন একটি সময়ে যে, যখন তার আবেদনটি বিগত হয়েছে । তেমন প্রাসঙ্গিক মন্তব্য করার প্রয়োজনটিও তাই উপযোগিতা হারিয়েছে !
তবুও বলি------ একজন "মা" পথের বিপদ থেকে ফিরে যেতে আকুল মিনতি জানিয়েছেন ছেলেমেয়েদের ।
ছেলেমেয়েরা ঘরে ফিরে গেছে । মায়ের বুকেও হয়তো নেমেছে স্বস্তি ।
কিন্তু যে আলোর দিশা ওরা দেখিয়ে গেছে তার আলোতেই আগামীর পথ দেখে নিতে হবে নবীন প্রজন্মের ।

১৩ ই আগস্ট, ২০১৮ ভোর ৪:৩৯

সোহানী বলেছেন: "যে আলোর দিশা ওরা দেখিয়ে গেছে তার আলোতেই আগামীর পথ দেখে নিতে হবে নবীন প্রজন্মের" ।...... না পারবে না, স্পষ্টত: পারবে না। এরকম হিংস্রতার মাঝে কিছুই সম্ভব নয়। দিন দিন এরা আরো হিংস্র হবে আর দুটি শ্রেনী তৈরী হবে শোষন বা শোষিত শ্রেনী। এর মাঝামাঝি কিছু নেই। যে মানবিকতা, ভালোবাসা, বিচার বুদ্ধি সব থাকবে কোল্ড ফ্রিজে। মাঝে মাঝে নিজের ডিশিসানকে স্বাগত জানাই। এতোটা হিংস্রতা আমার সহ্যের ক্ষমতার বাইরে।...

অনেক আগে একটা মুভি দেখেছিলাম। সাধারনের ব্রেনকে নির্দিস্ট ফর্মেট করে দেয়া হয় এর বাইরে এরা চিন্তা করতে পারে না। তারপর দড়ি ধরে মারো টান............। হাঙ্গার গেইম মুভিটা দেখেছেন নিশ্চয় বা বইটা পড়েছেন? অভাব অনটন শিক্ষা বা চাকরীর অভাবে ডিস্ট্রিক টুয়েলভ এর দিনময় চলে সংগ্রাম তাই কোথায় খনির সব কয়লা চলে যায় সেটা নিয়ে ভাবনার সময় কোথায়???কারন সব খাবার চাকরী বরাদ্ধ কিছু লোকের জন্য...........

ধ্যাৎ কি বলতে কি শুরু করলাম.....। প্রিয় জীভাইকে দেখলে কথা বলতেই থাকি...। অনেক ভালো থাকেন...স্টে কুল!!!

৪২| ১২ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৩:৩৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: আজ আমরা যে যাই বলি, কালকের বাচ্চারা এদেরই ইতিহাস পড়বে এবং গর্বিত বোধ করবে। আজ যারা কুশাসনকে সমর্থন করছে, পুলিশের পাশে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লুঙ্গি-জামা/প্যান্ট-শার্ট পরা, হাতে কিরিচ ধরা, মাথায় হেলমেট পরা জঙ্গীদের ছাত্রদের প্রতি আক্রমণকে বাহবা দিচ্ছে, তাদের কিংবা তাদের ছেলেমেয়েদের একদিন লজ্জায় মাথা হেঁট হয়ে যাবে।
"অনেক লিখা আসছে ব্লগে কিন্তু সহ্য করতে পারছি না বলে মন্তব্য করতে পারছি না। পরিস্থিতি সহ্য ক্ষমতার মধ্যে আসলে আবার ফিরে আসবো ব্লগে" (৪ নং প্রতিমন্তব্য) - বুঝতে পারছি, কারণ এরকম অবস্থা আমারও হয়েছে।
আমি ওদের প্রাণভিক্ষা চাই - একজন মায়ের যথার্থ যাচনা!
কোনভাবেই বন্ধ হবে না। যতক্ষন না মাথা ঠিক হয় - একেবারে পেরেকের মাথায় আঘাত করেছেন!
চমৎকার, প্রাণস্পর্শঈ আবেদন! + + (আগেই দিয়ে গিয়েছিলাম)

১৩ ই আগস্ট, ২০১৮ ভোর ৪:৫১

সোহানী বলেছেন: প্রিয় মানুষদের দেখলে লগইন করতে বাধ্য হই। বুঝতেই পারছেন, পড়ছি কিন্তু মন্তব্য করছি না। কারন মন্তব্য করতে ইচ্ছে করে না, সবকিছু কেমন যেন ধুসর থেকে কালো হয়ে যাচ্ছে দিন দিন।

একসময় যখন ৫২ ভাষা আন্দোলন হয়েছিল তখন কেউই তখন বুঝতে পারেনি এরা একটা ইতিহাস তৈরী করতে যাচ্ছে তেমনি ৬৯ কিংবা ৯০। কো পত্রিকায় যখন ছবি আসবে তখন হঠাৎই চমকে উঠে ছেলে-মেয়েকে ডেকে বলবে, "আরে দেখ সে দিনগুলোর ছবি দেখ...."।

খায়রুল ভাই, যারা সমর্থন দিচ্ছে তারা কি না বুঝে দিচ্ছে???? এটা আমি বিশ্বাস করি না, এতোটা অন্ধ একটা মানুষ হতেই পারে না। অন্ধকে পথ দেখাতে পারবেন কিন্তু যে চোখ খুলে অন্ধ তাকে কি পথ দেখাতে পারবেন??????

অনেক ভালো থাকেন। আসবো শীঘ্রই আপনার কথামালা পড়ার জন্য।...........

৪৩| ১২ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৩:৫২

খায়রুল আহসান বলেছেন: কবি ভাই ওদের ফেরান, ওদেরকে ফেরানোর চেস্টা করেন (২৪ নং প্রতিমন্তব্য) - এই বুকফাটা আর্তি হয়তো ওরা শুনতে পেরেছে, তাই ফিরেও গেছে।

১৩ ই আগস্ট, ২০১৮ ভোর ৪:৫৪

সোহানী বলেছেন: না খায়রুল ভাই, ওরা ফিরে যেতে বাধ্য হয়েছে। আমিও তাই চাই, আমার কি হবে সেটা বড় কথা নয়, আমার বাচ্চাগুলোর যেন কোন কষ্ট না হয়। আর যারা বলছে ওরা নষ্টদের তালকায় চলে গেছে তাদের বলতে চাই এরকম নষ্ট সন্তানই চাই আমি যুগের পর যুগ। অনেক কথা জমে আছে আপনাদের সাথে কিন্তু সময় করতে পারছি না............

৪৪| ১৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:০৮

কথাকথিকেথিকথন বলেছেন:





ওরা আগামীর পথ দেখিয়ে দিয়ে গেছে। নাকে তেল দিয়ে ঘুমানো অগ্রজদের নাড়িয়ে দিয়েছে।
কিন্তু ওদের প্রতি রাজনৈতিক আক্রমণ আবারও প্রমাণ করলো দেশের অবকাঠামো এবং নৈতিক স্কেল কতটা ভঙ্গুর।

১৬ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ১০:৪০

সোহানী বলেছেন: অগ্রজরা নাকে তেল দিয়ে ঘুমানো ছাড়া কি বা উপায় আছে......... নতুবা হেলমেট বাহিনীর হাতুড়ির আঘাতে জর্জরিত হতে হবে।............. আর দেশের অবকাঠামো বা নৈতিকতার স্কেল খোঁজা চরম বোকামী........। তাই নয় কি!!!!!!!

৪৫| ২৭ শে আগস্ট, ২০১৮ রাত ২:৪১

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: ...................................................................................................................................................................সময়ের চাকা দূর্বার গতিতে
মৃত্যু দুয়ারে ছুটছে,
সুখ নামক অচিন পাখি
অবহেলিত সময় লুটছে।

ধন্যবাদ আপনার বুকফাটা আর্তি হয়তো ওরা শুনতে পেরেছে, তাই ফিরেও গেছে।
...................................................................................................................................................................

২৮ শে আগস্ট, ২০১৮ রাত ১১:৪২

সোহানী বলেছেন: ওরা ফিরে আসবে, অবশ্যই আসবে। যে কষ্ট নিয়ে ওরা ফিরে গেছে সেটা ওরা কখনই ভুলবে না।

৪৬| ০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ৩:৩৭

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:



পাক্কা এক মাস হয়ে গেল; আপুর নতুন কোন পোস্ট নেই!! B-) মেনে নিতে পারছি না; আশা করি শীঘ্রই নতুন পোস্ট পাব৷ইদানিং কখন যে ব্লগে আসেন সে খবরটা পর্যন্ত পাই না৷

০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ৩:৫২

সোহানী বলেছেন: হাহাহাহাহাহা............ অামি অফলাইনেই বেশী পড়ি কারন ট্রেনে বাসে যেতে যেতে পড়ি। আর মোবাইল ভার্সনে বাংলা লিখা যায় না। ইংরেজীতে কমেন্ট করতে ভালো লাগে না। তাই আপনার লিখা ওয়াজসহ সবগুলো লিখাই পড়েছি কিন্তু বাসায় এসে কমেন্ট করার সময় পাচ্ছি না। রিসেন্ট জব চেইন্জ করেছি সাথে বাকি কাজতো আছেই। তাই কঠিন দৈাড়ে আছি। এতোগুলো লিখা মাথায় ঘুরছে কিন্তু লিখতে পারছি না। ...... সময় সুযোগ নিয়ে হয়তো আসবো।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.