নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

হাজার হাজার অসাধারন লেখক+ব্লগারের মাঝে আমি এক ক্ষুদ্র ব্লগার। পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া লেখালেখির গুণটা চালিয়ে যাচ্ছি ব্লগ লিখে... যখন যা দেখি, যা মনে দাগ কাটে তা লিখি এই ব্লগে।

সোহানী

আমি অতি বিরক্ত হয়ে আমার অনেক লিখাই ড্রাফটে নিয়েছি কারন সামুতে আমার কিছু ভাবনা শেয়ার করছি, আর এ ভাবনা গুলো আমার অনুমতি ব্যাতিরেকে কপি না করার অনুরোধ করেছিলাম কিন্তু যত্রতত্র আমার লিখার কপি পেস্ট দেখেই যাচ্ছি দিনের পর দিন।

সোহানী › বিস্তারিত পোস্টঃ

জীবন যেখানে যেমন ......... নির্বাচনের প্রবাসী ইশতেহার... এক চিমটি প্রত্যাশা সাথে এক মুঠো ভালোবাসা !!!

২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:১৯



কানাডা বা আম্রিকার বা ইউরোপের মতো ঠান্ডার দেশে সমস্যা যে প্রতি সিজনেই ড্রেস কিনতে হয়। দেশের মতো এক ড্রেস দিয়ে জীবন পার করার কথা স্বপ্নেও ভাবি না। হালকা ঠান্ডা পড়ার সাথে সাথে ফল জ্যাকেট সহ মাঝারি ড্রেস, শীতের শুরুতে ভারী জ্যাকেট সহ ভারি ড্রেস। আবার সামার শুরু হলে কত পাতলা ড্রেস পরা যায় তার চেস্টা।

তাই এবার শুরুতেই বাচ্চাদের জন্য মার্কেটে যেয়ে মনটা খুশীতে ভরে উঠলো। প্রায় প্রতিটি বড় বড় শপিং মলেই "মেইড ইন বাংলাদেশ" লিখা ড্রেস বা জুতা। আমি সাধারনত যেখানেই যাই সবসময়ই নিজের মনের অজান্তে "মেইড ইন বাংলাদেশ" লিখাটা খুঁজতে থাকি সব কাপড়ের আনাচে কানাচে। বেশ ক'বছর এ ট্যাগ না পেলেও এবারের শীতের শুরুতে প্রায় শপিং মলের বড় বড় দোকানে "মেইড ইন বাংলাদেশ" ট্যাগটা দেখতে পাচ্ছি।

আমি বা আমার মতো সাধারন প্রবাসীর বেশীর ভাগই দেশে কোন পলিটিকেল পার্টি ক্ষমতায় আসছে তা নিয়ে খুব একটা মাথা ব্যাথা নেই। আমাদের একটাই চাওয়া, "মেইড ইন বাংলাদেশ" লিখাটা যেন দেখতে পাই। আর গর্বভরে পাশের ভিন্নদেশী কাউকে দেখিয়ে বলতে পারি, লুক, দিস ইজ ফ্রম মাই কান্ট্রি। ইউ নো মাই কান্ট্রিস কোয়ালিটি ইজ দা বেস্ট।

হাঁ, একজন প্রবাসী হিসেবে এটাই আব্দার ক্ষমতাশীনদের কাছে। তাই এক মুঠো ভালোবাসার সাথে এক চিমটি প্রত্যাশার প্রবাসী ইশতেহার দিলাম। কেউ কি একটু তাকাবে এই দিকে??

- আমার দেশের মানুষগুলো যেন থাকে ডালে ভাতে।

- গার্মেন্টস্ সেক্টরগুলো যেন কাজ করতে পারে সুন্দরভাবে। কোন দেশী বিদেশী রাজনৈতিক কুটচালে যেন তা বন্ধ না হয়ে যায়।

- যে অসহায় মেয়েগুলো গ্রাম থেকে জীবনের তাগিদে এসে গার্মেন্টস্ এ কাজ করে যাচ্ছে দিনের পর দিন তারা যেন পলিটিক্স এর নোংড়ামীর স্বীকার হয়ে পোড়া লাশ না হয়ে যায়।

- যে মেয়েটি স্কুলের বই হাতে নিয়ে বের হয়েছে সে যেন স্কুল শেষ করে বাড়িই ফিরে যায়। মাঝপথে টিজিং এর স্বীকার হয়ে ঝুলন্ত লাশ না হয়ে যায়।

- যে ছেলেটি পড়তে বের হয়েছে সে যেন রাজিনীতিক মিছিলের বলির পাঠা না হয়ে যায়। পড়া শেষ করে মায়ের কাছেই ফিরে আসে।

- যে ছেলেমেয়েগুলো পড়া শেষ করে কাজের সন্ধানে বের হয়েছে তারা যেন বেকারত্বের অভিশাপের ঘানি টানতে না হয়। তাদের জীবনধারনের জন্য নূন্যতম কোন কাজ পায়।

- যে অসহায় বেকার ছেলেমেয়েগুলো কাজ না পেয়ে বিপথে যেতে বাধ্য হচ্ছে, তাদের জন্য একটু আলোর মুখ দেখানো।

- যে তরুনের হাতে নিজের লাভের জন্য নেশার দ্রব্য তুলে দিচ্ছেন তা বন্ধ করেন। একজন দু'জনের লাভের জন্য পুরো দেশকে ধ্বংসের হাত থেকে বাচঁতে দিন।

- সকালে বাসা থেকে বের হয়ে সন্ধ্যায় আবার নিজের প্রিয় মানুষগুলোর কাছে ফিরে আসার নিশ্চয়তা চাই, জীবনের নিরপত্তা চাই।

- যে সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলো আমার ট্যাক্সের টাকায়স্যেুট টাই পরে বসে আছে তারা আমাকে নূন্যতম সেবা দিবে। আমাকে নাকে দড়ি দিয়ে ঘুরাবে না।

- দেশে রাজনীতি থাকবেই কিন্তু সেটা স্কুল কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে নয়, তার পরের লেভেলে্। ছাত্র-ছাত্রীদেরকে পড়তে দিন, ওদের মেধাকে কাজে লাগতে দিন। ওরাই দেশকে নিয়ে যাবে অনেক অনেক দূর।

- শিশু ও নারীদের নিরাপত্তা দিন। ওরা যেন নিরাপদ থাকে ঘরে বা বাইরে, স্কুলে বা মাঠে, রাস্তায় বা উপসনালয়ে।

হাঁ, দেশে থাকলে হয়তো আরো অনেক কিছু নিয়ে ভাবতাম কিন্তু দেশের বাইরে আমাদের তেমন কিছু চাওয়া নেই, কিছু পাওয়া নেই। আমরা প্রবাসীরা সবসময়ই কিছু দেবার জন্য উন্মুখ। কি গভীর ভালোবাসা দেশের জন্য, এ অভাগা মানুষগুলোর জন্য বুকে ধারন করি তা কি কেউ জানে। ও আমার দেশের মাটি তোমার পরে ঠেকাই মাথা।

থাকুক একটু শান্তিতে দেশের মানুষগুলো, একটু নিরাপদে থাকুক আমার প্রিয় মুখগুলে, সামান্য ডালে ভাতে থাকুক সারাটি বছর.....।

-
-
-
-

কিছু নিবাচনী কার্টুন শেয়ার করলাম সম্পূর্ণ অপ্রয়োজনীয়ভাবে, তাই সঙ্গতকারনে ক্ষমা্প্রার্থী।




সবাই ভালো থাকুন সুস্থ্য থাকুন।

কার্টুন ক্রেডিট: গুগুল মামা!

মন্তব্য ৯৪ টি রেটিং +২০/-০

মন্তব্য (৯৪) মন্তব্য লিখুন

১| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:২৮

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: আমাদের দেশে ন্যায় নীতি কোনোদিন ঠিক হবে না আপি

মানুষ আজকাল সব এড়িয়ে যায়
প্রতিবাদ নেই কারো মুখে

২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৩২

সোহানী বলেছেন: অঅমি কিন্তু নৈারশ্যবাদী নই.......... একদিন না একদিন সবই ঠিক হবে ছবি আপু।

২| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৩০

দেশ প্রেমিক বাঙালী বলেছেন: আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে ছবিটা সুন্দর হয়েছে।

২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:২৪

সোহানী বলেছেন: ধন্যবাদ দেশ প্রেমিক ভাই। ছবিটা বাস্তবতা আর লিখাটি স্বপ্ন!

৩| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৫৯

আহমেদ জী এস বলেছেন: সোহানী,




যারা যারা নির্বাচনের ইশতেহার লিখেছেন আপনারা, তাদের সব আশাতেই গুড়েবালি পড়ে এসেছে বিগত প্রায় তিন যুগ ধরে। প্রতিবারই "যেই লাউ, সেই কদু" হয়েছে। জনগণ প্রতিবারই ডাল-ভাত জোগাতে নাভিশ্বাস তুলেছে, নিরাপদে ঘরে ফিরতে আল্লাহতায়ালার নাম জপেছে।

নির্বাচনী ইশতেহারগুলোতে যতো ভালো কথাই থাকুক না কেন তার আড়ালের মূখ্য ও একমাত্র উদ্দেশ্যই হলো ---" ভোট দে মা, চেটেপুটে খাই!" তবুও কেন যে আপনারা আশাবাদী হন ! এ তো একটা আপ্ত বাক্য যার কোনও ভিত্তি নেই, নেই কোনও বাস্তবতাও। বলতে হয় বলেই বলা! এটাই জীবন যেখানে যেমন।
আপনার প্রত্যাশার উল্টোটাই ঘটবে, কোনও সন্দেহ নেই। ( তবুও চাই আপনার চাওয়াটুক সত্য হোক, কিন্তু বিশ্বাস করি তা হবেনা!)

তবে হ্যাঁ! নির্বাচনে আপনার মতো অনেকের কাছ থেকেই "এক চিমটি প্রত্যাশা সাথে এক মুঠো ভালোবাসা !!!"র স্বাদ পাওয়াটুকুই আমাদের কপালপোড়া মানুষগুলোর একমাত্র প্রাপ্তি। আর কিছু নয়।

আসছে নতুন বছরের শুভেচ্ছা। ভালো থাকুন।

২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৩৬

সোহানী বলেছেন: আমি জানি সত্যটা,
আমি জানি সত্যের নির্মমতা,
আমি জানি জনগণ জনগণই... তাদের কেউই নেই এক আল্লাহ্ ছাড়া,
আমি জানি সবাই চেটেপুটে খেতেই আসে তারপর সে খাওয়ার কখনই শেষ হয় না,
আমি জানি নিরাপদ নামক শব্দটা কতটা কঠিন এবং কষ্টলি এবং কতটা উপহাসের,
আমি জানি এ কপালপোড়া মানুষগুলোর দিকে তাকানোর কেউই নেই, ওরা দাবার সৈন্য! যখনই দরকার সামনে ঠেলে দেওয়া হয়,
আমি জানি স্যুট টাই পরা আমলাদের সে স্যুটের খরচ যোগাতে আমাকে উলঙ্গ থাকতে হয়,
হাঁ আমি জানি সব কিছুই....... তারপরও এক চিমটি প্রত্যাশা। কখনো যদি তাদের সময় হয় তাহলে তাকাবে এ অভাগা জনগণের দিকে..............।

অনেক অনেক ভালোথাকুন প্রিয় জী ভাই শীতের ঠান্ডায় কিংবা নির্বাচনের গরমে!!!

৪| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৫৯

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: আপনার প্রবাসী ইশতেহার বেশ লাগলো।

শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা প্রিয়আপুকে।


২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৩৭

সোহানী বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ প্রিয় ভিনদেশী ভাই।

৫| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:০২

যোখার সারনায়েভ বলেছেন: প্রবাস জীবন সুন্দর হোক ।

২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৩৮

সোহানী বলেছেন: প্রবাস জীবন যাই হোক চাই দেশী জীবন সুন্দর হোক!

৬| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:০৭

ভুয়া মফিজ বলেছেন: কিছুদিন আগে আমার এক শ্রীলংকান কলীগের সাথে শপিংএ গিয়েছিলাম, একটা সুপার স্টোরে। সে চা-সহ আরো কিছু জিনিস দেখিয়ে আমাকে বললো, দেখো.....এগুলো 'মেইড ইন শ্রীলংকা' সাথে একটু বাকা হাসি। ব্যাটাকে নিয়ে গেলাম ড্রেস সেকশানে। বললাম, তোমাদের আর কয়টাই বা আইটেম! এখানে যা দেখছো তার বেশীরভাগই 'মেইড ইন বাংলাদেশ'। ব্যাটার হাসি দপ করে নিভে গেল, দেখে খুব আনন্দ পেয়েছিলাম।

এই আনন্দ টা দিয়েছে আমাদের প্রাইভেট সেক্টর। সরকারী সেক্টর কি দিয়েছে? বলতে গেলে কিছুই না! আপনার সাথে সুর মিলিয়েই বলি, আমাদের, প্রবাসীদের, সরকারের কাছ থেকে খুব বেশী চাওয়া নেই। শুধু চাই দেশের মানুষ যেনো হাসিমুখে দিনযাপন করতে পারে। দেশকে নিয়ে যেন আমরা বিদেশে গর্ব করতে পারি।

তেমন কিছু সরকার করে দেখাক........এটাই একমাত্র প্রত্যাশা!!!

২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৪৪

সোহানী বলেছেন: দিনের পর দিন গেল, যুগের প যুগ গেল.... জী ভাইয়ের মতো বলতে হয় এ পোড়া কপালের মানুষগুলোর দিকে কেউই তাকালো না।

তারপরও এক চিমটি প্রত্যাশা.................।

অনেক ভালো থাকেন মফিজ ভাই।

৭| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:১৭

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: এদেশে সাধারন জনগনের কথা কোন সরকার ভাবে কিনা জানি না।
শুধু ভোট এলেই তারা সাধারন মানুষের কাছে একটু দৌড়ায়।
ভোট শেষ হলেই সেই আগের মতই।

২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৪৭

সোহানী বলেছেন: ভাইরে সত্যটা খুব নির্মম। তারপরও একটু আশা, একটু প্রত্যাশা.............

৮| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১:২৪

অপু দ্যা গ্রেট বলেছেন:





আমাদের দেশের চিত্র হচ্ছে খাবো দাবো কল কলাবো
জন গণের টাকা মারবো

২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৪৮

সোহানী বলেছেন: অপুরে সে কথা আর বলতে......... কিন্তু কি করবো তবুও আশার বুক বাধিঁ। হয়তো কেউ কখনো ফিরে তাকাবে।

৯| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১:৫১

মাহমুদুর রহমান সুজন বলেছেন: আপনার ইশতেহারের প্রত্যেকটি দাবীই সুন্দরও নির্মল। আপনার সাথে সহমত। সবাই ভাল থাকুক। আপনিও ভাল থাকবেন।

২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৫২

সোহানী বলেছেন: সবাই ভালো থাকুক কিন্তু এ ভালো থাকাটা চাইতে হবে ক্ষমতাসীনদের থেকে। নতুবা ভালোথাকা হয়ে উঠে না কোনভাবেই......

১০| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১:৫৯

প্রামানিক বলেছেন: কথাগুলো সুন্দর এভাবে দেশ চললে দেশে কোন অশান্তিই থাকবে না। ধন্যবাদ

২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১১:০০

সোহানী বলেছেন: কিন্তু কেউই চায় না দেশ শান্তিতে চলুক। চাইলেই কোন ঘটনা নয়.............

১১| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ২:৪৭

নতুন-আলো বলেছেন: সুন্দর ইশতিহার

২৭ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:৫৩

সোহানী বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ

১২| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ২:৫৫

শাহাদাত নিরব বলেছেন: ধন্যবাদ আপু সুন্দর ভাবে ইশতেহার গুলো তুলে ধরেছেন।
তবে আফসোস মোটামুটি সব বিষয়ে ইশতেহারের সামঞ্জস্য থাকলেও প্রবাসী এবং গার্মেন্স শ্রমিক দের কারো ইশতেহারে উল্যেখ নাই।
যারা "মেইড ইন বাংলাদেশ" তৈরী করবে আর যারা এটা নিয়ে প্রাউড করবে তারা আজীবন গননার বাইরে।
সকালে ঘন কুয়াশায় টিপিন বাটি হাতে নিয়ে ইপিজেডের রাস্তা ঘনত্তয়ে ভরে থাকে আবার সন্ধ্যা নামলে তাদের ক্লান্তিময় চেহারা নিয়ে ফেরার পথে নানান আহাজারি তে ভুগতে হয়। বাস,ট্রাক,প্রাইভেট কারের ড্রাইভার রা তাদের উপর গাড়ি চালিয়ে দিতে দ্বিধা করে না কারন তারা গার্মেন্স শ্রমিক পাড়ার বখাটে ছেলেরে কটুক্তি করতেও দ্বিধা করে না কারন তারা গার্মেন্স শ্রমিক।
এবার দরুন প্রবাসীর কথাঃ-
মধ্য প্রাচ্যের দূতাবাস দুলো এক এক টা কসাই খানা।একটা রেমিটেন্স যোদ্ধা দেশের বাইরে অকাল মৃত্যু গ্রহন করলে বান্ধুরা বা আশেপাশে থাকা লোকেরা চাঁদা তুলে তার লাশ দেশে পাঠাতে হয়।
বাংলাদেশ বিমান বন্দরে গমন করলে ইমিগ্রেশান অফিসার দের প্রশংসা নাই করলাম। প্রতিবাদ করার ক্ষমতা কারোর নাই কারন তাদের কাছে ফাঁসানোর রিজনের অভাব নাই।
#এটাই_ইশতেহার

২৭ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:০১

সোহানী বলেছেন: হাঁ ঠিক, সব বিষয়ে ইশতেহারের সামঞ্জস্য থাকলেও প্রবাসী এবং গার্মেন্স শ্রমিক দের কারো ইশতেহারে উল্যেখ নাই।যারা " মেইড ইন বাংলাদেশ" তৈরী করবে আর যারা এটা নিয়ে প্রাউড করবে তারা আজ গননার বাইরে। শুধু গননার বাইরেই নয় তারাই সবচেয়ে অবহেলিত। নূন্যতম শ্রমের পয়সা ও তারা পায় সারা মাস শেষে। আর বোনাস হিসেবে পোড়া লাশ..........।

আর প্রবাসী শ্রমিকদের কথা বলছেন?? ওই সব মূর্খদের কথা ভাবার সময় কি তাদের আছে? কি অমানবিক শ্রম দেয় তারা যৈানদাসী থেকে শুরু করে শ্রমদাস তারা। তাদের টাকায় দুবাই শপিং মলে কেনাকাটা করি...........। তাদের জন্য কেউ কি আছে বা ছিল কোনকালে?........... মনটাই খারাপ হয়ে গেল।

১৩| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৩:০২

রাজীব নুর বলেছেন: গার্মেন্টস হয়ে ভালো হয়েছে। তা না হলে মেয়ে গুলোকে বাসা বাড়িতে বুয়ার কাজ করতে হতো।

২৭ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:০২

সোহানী বলেছেন: হুম বাসাবাড়িতে পিটায়ে মারে আর গার্মেন্টেস্ এ পুড়ে মারে..........

১৪| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৩:২৮

মাঈনউদ্দিন মইনুল বলেছেন: ইশতেহারে সহমত। স্কুল কলেজ ইউনিভার্সিটিতে আগেও ‘রাজনীতি’ ছিল। এখন সেটি নেই। নতুন বছরের শুভেচ্ছা রইল!

২৭ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:০৪

সোহানী বলেছেন: স্কুল কলেজ ইউনিভার্সিটিতে আগেও ‘রাজনীতি’ নেই !!!!!!!!!!!!!!!!! বলেন কি মইনুল ভাই! কবে থেকে???

১৫| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৩:৪৩

কালীদাস বলেছেন: এই সবগুলো পয়েন্টের সমাধান খুবই সিম্পল। মাত্র ২টা স্টেপ লাগবে:

১. স্কুলে এবং সবচেয়ে গুরুত্বের সাথে বাসায় নৈতিকতা এবং আদব-কায়দার শিক্ষা দিন; ধর্মের রেফারেন্স ফলো করে হোক আর ন্যান-অন্যায় বিচারবোধ থেকেই হোক। সেকেন্ডারি স্কুলে সায়েন্টিফিকভাবে সেক্সুয়াল ওরিয়েন্টেশন সম্পর্কে শিক্ষা দিন, পরিবার এবং প্রাইমারিতে পাওয়া নৈতিকতা থেকেই সবাই সচেতন হবে

২. বাস্তববাদী হন, শিক্ষা/উচ্চশিক্ষার পার্থক্য সবাইকে বোঝানো হোক এবং উচ্চশিক্ষাকে সামাজিক স্ট্যাটাসের চেয়ে প্রয়োজন এবং যোগ্যতা অনুযায়ি দেবার ব্যবস্হা করা হোক


এই দুইটা পয়েন্টে যারা সোজা হবে না, তাদেরকে আপনার স্ক্যাটার্ড হিসাবে কাউন্ট করতে হবে :( এমনকি নরওয়েতেও জেল আছে!

২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৩:২৮

সোহানী বলেছেন: প্রিয় কালদিাস ভাই, এভাবে সবাই যদি চিন্তা করতো তাহলে আজ আমরা এরকম অসহায় হতাম না। হাঁ, সত্য…. পরিবার থেকে নৈতিক শিক্ষা যদি পেতো তাহলে এরকম অনৈতিক কাজ করতে পারতো না। তাদের বিবেক তাদের বাধাঁ দিতো।

আর সেকেন্ডারি স্কুলে সায়েন্টিফিকভাবে সেক্সুয়াল ওরিয়েন্টেশন সম্পর্কে শিক্ষা নিয়ে আমার একটি লিখা ছিলো। পরিবার যদি ঠিক হয় তাহলে সমাজ ঠিক হবে, তারপর রাষ্ট্র। কিন্তু কথা হলো এর গুড়ুত্ব কি কেউ বোঝে? সারা বিশ্বে শিশু শিক্ষা সবচেয়ে গুড়ুত্বপূর্ণ আর আমাদের দেশে সবচেয়ে অবহেলিত।

শিক্ষা/উচ্চশিক্ষার পার্থক্য তো নেই উপরোন্ত সবাই দেখছি মাষ্টার্স করে একটি ছেলে মেয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছে চাকরীর জন্য। আর মাস্তানী করে লাখ টাকা আয় করছে অশিক্ষিত অর্ধশিক্ষিতরা। কিভাবে ক্ষার মূল্যায়ন হবে দেশে বলতে পারনে?

পরিবর্তন দরকার আমূল…. তার আগে দরকার আইন নিয়ন্ত্রন, কালোকে কালো বলা আর সাদাকে সাদা।

অনেক অনেক ভালো থাকেন।

১৬| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৪:৪৪

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: এরশাদ এখন শীতনিদ্রায়!!! যারা বলতে চান বাংলাদেশ সমৃদ্ধির পথে। আমার তা মনে হয় না।। ক্রান্তিকালই বলি আমি ।৩০ শে ডিসেম্বর কি হবে কে জানে?? গন অভ্যুত্থান নাকি নির্বাচন। এতদিন পর্যন্ত যে অবস্থা সুষ্ঠু নিরপেক্ষ অবস্থা কখনোই ছিলনা দেশে।দারুন একপেশে একচোখা নীতিতে ইসি পুলিশ দেশের মানুষ কি করে কে জানে??? #:-S

২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৩:৩৭

সোহানী বলেছেন: সেটাইতো ভয় কবি ভাই। দেশে এ পর্যন্ত সুষ্ঠু নিরপেক্ষ অবস্থা কখনোই ছিলনা, তাই এ নির্বাচন নিয়ে যত ভয়।

১৭| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৫৬

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: বাহ! ভীন্ন মাত্রার ইশতেহারে ভাললাগা রইল!

বাস্তবতা যদিও প্রিয় আহমেদ জিএস ভায়ার মন্তব্যে প্রকট, তারপরও স্বপ্নেরা জেগে থাকে
নিরাশায় আশাইতো চলতে ক্ষীন আলোর মতো দিশা দেয় শ্রান্ত জীবনে
কালীদাস দার মন্তব্যে সময়ের ন্যায্যতা ফুটে উঠেছে। আমাদের নীতি নির্ধারকদের গোবর মাথয় কি ঢুকবে?

স্বপ্নরা জেগে থাক ফুল হয়ে ফুটবে বলে!
আমরা সময়ের প্রয়োজনে সময়ের কাজ টুকু করে যাই নিভৃতে নিরবে
হয়তো স্বপ্ন বাস্ত হয়ে যাবে। কোন এক দিন!


+++++

২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৩:৪৯

সোহানী বলেছেন: স্বপ্নরা জেগে থাক ফুল হয়ে ফুটবে বলে!
আমরা সময়ের প্রয়োজনে সময়ের কাজ টুকু করে যাই নিভৃতে নিরবে
হয়তো স্বপ্ন বাস্ত হয়ে যাবে। কোন এক দিন!
.
.
অসাধারন বিগু। স্বপ্ন দেখা ছাড়া কিই বা করার আছে বলো। একদিন হয়তো কেউ শুনবে, কে্উ আসলে আলাদিনের সে প্রদীপ নিয়ে……. বলো কি চাও? তোমার তিনটি ইচ্ছে পুরোন করা হবে।

১) দেশের সবাই যেন থাকে ডালে ভাতে
২) সবাই যেন থাকে নিরাপদে
৩) সকল শিশু যেন পায় সঠিক শিক্ষা

১৮| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৮:১৭

সুমন কর বলেছেন: আরে, সব সুন্দর সুন্দর কথা বলেছেন। কিন্তু এ দেশে কেউ এগুলো, শোনা এবং রাখার প্রয়োজন মনে করে না.....!!
+।

২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৩:৫০

সোহানী বলেছেন: সেই জন্যই তো এতো কথা বলার চেস্টা করি সুমন ভাই।

১৯| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:০৩

বলেছেন: এক চিমটি প্রত্যাশা সাথে এক মুঠো ভালোবাসা !!!-----


আজো পৃথিবীর আঁধার ভেদ করে পূর্বের আকাশে রবী হাসে,
আজো পশ্চিম আকাশে হেলেন দিয়ে সৃর্য ঘুমায়।
আজোও কেউ একজন হেসেহেসে কাঁধে হাত রেখে মুছে দেয় চোখের জল---
আজোও আশার প্রদীপ হাতে আমি সদা অবিচল।



Rahman Lotif

২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৩:৫৩

সোহানী বলেছেন: অসাধারন ল ভাই।

আজোও আশার প্রদীপ হাতে আমি সদা অবিচল…… আলো আসবেই সত্যই একদিন। শুধু অপেক্ষার পালা….

২০| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৩৪

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: সুন্দর ইশতেহার :)
কিন্তু করার লোক নাই X((

আমার পোস্ট পড়ার দাওয়াত রইলো B-))

২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৩:৫৭

সোহানী বলেছেন: সত্যিই করার লোক নেই আর্কিওপটেরিক্স ।

দাওয়াত সবসময়ই কবুল করি। এবং সবসময়ই পড়ি কিন্তু কমেন্ট করতে পারি না কারন অফিসে যেতে যেতে ট্রেনে পড়ি বলে মন্তব্য করা হয় না। মেক্সিমাম সময়েই দাড়িঁয়েই যাই। তাই মোবাইল থেকে কমেন্ট করতে পারি না।

২১| ২৬ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ১০:৩৬

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: ছবিগুলো ;)

২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ ভোর ৪:১০

সোহানী বলেছেন: আরো অনেকগুলো কার্টুন দিয়েছিলাম বাট পরে মনে হলো পলিটিকেল কালার্ড কিছু দেয়া উচিত না….. তাই মুছে দিলাম।

২২| ২৭ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৫৬

কুঁড়ের_বাদশা বলেছেন: এখন ভালো কথাগুলো শুনতে তিতা এর মত লাগে, কারণ তিতা কথা শুনতে শুনতে আমরা এক প্রকার অভ্যস্থ। :)

২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ ভোর ৪:১১

সোহানী বলেছেন: বাদশা ভাই, তারপরও বেহায়ার মতো বলি।

২৩| ২৭ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ২:৩৯

স্রাঞ্জি সে বলেছেন:

ছবি গুলো সেই হিছে.....

ছাত্ররাজনীতি কেন থাকবেনা। ছাত্ররাজনীতি থাকা দরকার। তা বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে। ছাত্রত্ব শেষ করে সে রাজনীতি আর যেতে চাইবেনা কিংবা তার রাজনীতি সম্পর্কে ধারণা জন্মাবেনা। আর এর ফলে মুর্খরাই ক্ষমতার গদিতে বসবে।

কিন্তু আমি এও বলব ইন্টারমিডিয়েটের ভিতর ছাত্ররাজনীতি করা নিষিদ্ধ করতে হবে।

২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ ভোর ৪:২১

সোহানী বলেছেন: না ঠিক না স্রাঞ্জি । আগে মাথা খুললে এমনিতেই সব হবে মুর্খরাই ক্ষমতার গদিতে বসতে পারবে না। রাজনীতি সম্পর্কে ধারণা জন্মানোর জন্য ছাত্রজীবন থেকে শেখার কিন্তু কোনই দরকার নেই। এটা এমনিতেই মেখা হয়ে যায়।

২৪| ২৭ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ দুপুর ২:৫৩

সম্রাট ইজ বেস্ট বলেছেন: প্রবাদ আছে- যে যায় লঙ্কায় সেই হয় রাবণ। আমাদের দেশেরও হয়েছে সেই অবস্থা। অনেক আশা নিয়ে আমরা সাধারণ জনতা একেক দলকে ভোট দিই কিন্তু আমাদের আশা-আকাঙ্ক্ষার কোন বাস্তব প্রতিফলন হয় না। তারপরও নতুন করে আশায় বুক বাঁধি, নতুন করে স্বপ্ন দেখি। কারণ এটা ছাড়া যে আমাদের আর কোন উপায় নেই।

২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ ভোর ৪:৩১

সোহানী বলেছেন: তারপরও নতুন করে আশায় বুক বাঁধি, নতুন করে স্বপ্ন দেখি। আশা আর স্বপ্ন ছাড়া আর যে কোন ক্ষমতা নেই আমাদের সম্রাট।

২৫| ২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ৩:১৪

কাওসার চৌধুরী বলেছেন:



আপু,
এই অনুভুতি আমারও হতো। লন্ডনের ব্রান্ড শপগুলোতে কাপড় কিনতে গেলে, জুতা কিনতে গেলে দেখতাম Made in Bangladesh আছে কিনা? এটাকে দেশপ্রেম বলে কিনা জানি না। তবে আমার মনে হয় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে থাকা বাংলাদেশীরা চায় বাংলাদেশ মাথা উঁচু করে বিশ্ব দরবারে দাঁড়িয়ে থাকুক। সবাই বাংলাদেশকে সম্মান করুক। দেশের মানুষগুলো সুখে থাকুক।

লেখাটি খুব ভাল লেগেছে, আপু। মিস ইউ আপু। ভাল থাকবেন।

২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ ভোর ৪:৩৫

সোহানী বলেছেন: খুব মিস করেছি ব্লগ দিবসে আপনাদের আড্ডা। অনেক কিছুই যেন বলার ছিল কিন্তু সময় সুযোগ পাইনি। তাই এ আড্ডাটা মিস করে সত্যিই মন খারাপ হলো।

দেশের বাইরে গেলে দেশকে যেভাবে মিস করি তা কেউই বুঝবে না যদি না সে দেশের বাইরে যায়।

অকে অনেক ভালো থাকেন প্রিয় লেখক। আপনার বই বের করার কি অবস্থা? এই বই মেলায় কিন্তু বই চাই ই চাই…….

২৬| ২৯ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৪৫

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: মোবাইল থেকে কমেন্ট করতে Full version এ ক্লিক করো...
ডেস্কটপ ভার্সন আসবে....
অথবা ক্রোম ব্রাউজার বা যেকোনো ব্রাউজারে Desktop Site বা View বা Version এ ক্লিক করো....
ডেস্কটপ ভার্সন আসবে... লগইন করো.....

কমেন্ট করতে কিবোর্ড English লেআউট সিলেক্ট করো....
তারপর রিদ্মিক বা Gboard দিয়া কমেন্ট করো....

IPhone স্টোরে পেয়ে যাবা অ্যাপগুলা....

আর চালাতে সমস্যা হলে আমাকে কমেন্টে জানিয়ো.... B-))


আমার পোস্টগুলা পড়ো জেনে ভালো লাগলো... ;)


৩১ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:১০

সোহানী বলেছেন: কিন্তু প্রবলেম হলো প্রায় আমাকে দাড়িঁয়ে যেতে হয় তাই দাড়িঁয়ে পড়ার উপায় থাকলেও তৃতীয় হাত থাকে না টাইপ করার মত :(

২৭| ৩০ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ রাত ২:১১

স্বপ্নের শঙ্খচিল বলেছেন: আমার দেখা ভোট : জনগনের ভাবনা
................................................................................................
কিছুক্ষন আগেই সংবাদ এলো ২/১ জনের প্রান গেল , ব্যালট বক্স ছিনতাই হলো,
পুলিশের ঘুম হারাম হলো । কেন এই সহিংসতা ???
..................................................................................................
আমার ব্লগে আসুন "ভোট দিন "

৩১ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:১১

সোহানী বলেছেন: খবর দেখছি....... সবই জানি।

২৮| ৩১ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:১০

হাবিব স্যার বলেছেন: আপু, নির্বাচনতো শেষ হলো, এবার কি ইশতেহার বাস্তবায়ন হবে?

০১ লা জানুয়ারি, ২০১৯ ভোর ৬:০৭

সোহানী বলেছেন: আরে ধুর হাবিব স্যার ভাই.... নির্বাচন শেষ ইশতেহার ও শেষ!!! প্রথম ছবিটা সে কারনেই দেয়া.......

২৯| ০১ লা জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১১:২৩

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: শুভ নববর্ষ আপু :)

০২ রা জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:১৩

সোহানী বলেছেন: শুভ নববর্ষ জনাব কম্পিউটার বিশেষজ্ঞ ভাই..............

৩০| ০১ লা জানুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ১২:৩৪

আহমেদ জী এস বলেছেন: সোহানী,




সব চরম সত্যকে জেনেও এক চিমটি প্রত্যাশার কথা বলে করা প্রতিমন্তব্যটি ভালো লাগলো।
কারন, আমাদের মনে বোধহয় একটি "দেশপ্রেম" এখনও মরতে মরতে বেঁচে আছে তারই ছবি এই মন্তব্যটি।

এমন অনুভব নিয়েই রঙিন থাকুক আপনার নতুন বছরটি................



শুভেচ্ছা নববর্ষের।

০২ রা জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:২৭

সোহানী বলেছেন: যে তরুন দেশ ছেড়ে অজানার পথে পাড়ি দেয় অনিশ্চিয়তা জেনেও, উত্তাল সমুদ্রে ডুবন্ত নাবিক সামান্য কাঠের টুকরো ধরে তীরে পৈাছানোর চেস্টা করে কিংবা মৃত্যদন্ডপ্রাপ্ত আসামীও শেষ পর্যন্ত বাচাঁর আকুতি করে...............................

হ্যাপি নিউ ইয়ার প্রিয় জী ভাই।

৩১| ০১ লা জানুয়ারি, ২০১৯ বিকাল ৫:৪৫

হাবিব স্যার বলেছেন: আরে ধুর হাবিব স্যার ভাই.... নির্বাচন শেষ ইশতেহার ও শেষ!!! প্রথম ছবিটা সে কারনেই দেয়া....... B-) B-)

০২ রা জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:২৮

সোহানী বলেছেন: :( :( :( :( :( :(

৩২| ০১ লা জানুয়ারি, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২৭

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: শুভ নববর্ষ আপুনি :)

০২ রা জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:২৯

সোহানী বলেছেন: :)
:)
:)
:)
:)

৩৩| ০১ লা জানুয়ারি, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২৯

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: ধুর ছাই X(( X((
ভুল করে শায়মার পোস্টের কমেন্ট এখানে :||

কমেন্টটা ডিলিট করো #:-S

০২ রা জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:৩১

সোহানী বলেছেন: বুঝলাম হার্ডড্রাইভে কিঞ্চিত ম্যাল ফাংশানিং হয়েছে :) :)

৩৪| ০২ রা জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:৩৭

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: নিরবাচন উপলক্ষে হাছিনা বেগম হুজুর হয়েছিলেন দেখি কতদিন থাকেন। #:-S

০২ রা জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ২:৪৯

সোহানী বলেছেন: ওটা সিজনাল.........

৩৫| ০২ রা জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১১:০৯

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: আমি SSD চালাই....
আর হার্ডডিক্স হলে WD এর এক্সটারনাল HDD B-))

Intel এর Optane Memory কেনার ইচ্ছা আছে....


আর এটা ক্লিপবোর্ডের এরর :(

০৮ ই জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৮:৪০

সোহানী বলেছেন: :P :P :P মাথার উপ্রে দিয়া গেছে........................

৩৬| ০৯ ই জানুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ১:৫৪

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: হ্যাপি নিউ ইয়ার থুক্কু জন্মদিন B-)) (নতুন বেবি ;) )

১০ ই জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৮:৪৭

সোহানী বলেছেন: ধুর মিয়া আবারো স্লো ........ সময় থাকতে হার্ডওয়ার পাল্টান ..............।

এনিওয়ে.. মেনি থ্যাংস।

৩৭| ০৯ ই জানুয়ারি, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৫১

স্বপ্নীল ফিরোজ বলেছেন: শুভ জন্ম দিন।

১০ ই জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৮:৪৯

সোহানী বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ ফিরোজ ভাই...............

৩৮| ০৯ ই জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ৮:১৫

মনিরা সুলতানা বলেছেন: আপু জন্মদিনের অনেক অনেক শুভেচ্ছা আর ভালোবাসা !

ইশতেহারের এক চিমটি প্রত্যাশা ও কমাতে চাই না তোমার; আর দেশের জন্য তো ভালোবাসা বুকভরা ই।

১০ ই জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৮:৫৩

সোহানী বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ প্রিয় মনিরা।

ইশতেহারের প্রত্যাশা সেটা অলীক স্বপ্ন!!!!!!!!!!!

৩৯| ০৯ ই জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ৮:২৩

আখেনাটেন বলেছেন:

১০ ই জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৮:৫৪

সোহানী বলেছেন: এইটা কি কার ছবি ভাইজান ;) ;) ;)

৪০| ১০ ই জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ১০:২৯

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: নির্বাচনের দিন কয়েক আগে
ইসতেহার দিয়ে কিছুই হয়না ,
এটা বছরখানেক আগে দিতে হয় ।
তারপরেও বছরখানেক আগে
দিলেও দেখা যায় কোন কাজ হয়না ।
প্রায় বছরখানেক আগে
সরকারী বেসরকারী চাকুরীতে
সমান সুযোগ সুবিধা দানের বিষয়টি
সকল রাজনৈতিক দলের নির্বাচনী
ইসতেহারে যুক্ত করার যৌক্তিকতা
তথ্য উপাত্ত ও কিভাবে কোন পদ্ধতিতে তা
বাস্তবায়ন করা যাবে তার উল্লেখ করে একটি
পোষ্ট দিয়েছিলাম । সেটা করা হলে গনতন্ত্র , ধনতন্ত্র
সমাজতন্ত্র , অর্থতন্ত্র , ও এর সাথে সকল সহায়ক
পদ্ধতি ও অবকাঠামো ইসতেহারের একটি বিষয়
বস্তবায়নের মাধ্যমেই করা সম্ভব হতো ।
যাহোক, ঐ পোষ্টের মন্ত্যবের ঘরে আপনি বলেছিলেন
এটা তিনাদের কারোরই নজরে পড়বেনা , তাইতো হলো
এর পরেও আপনি বেশ সাহস করেই এ বিষয়ে কলম ধরলেন
সাধুবাদ দিতেই হয় । যাহোক, এবার না হয় নাইবা হলো,
হাল ছাড়লে চলবেনা । এ তুফান ভারী দিতে হবে পারি
কে আছ জোয়ান হও আগুয়ান হাকিছে ভবিষ্যত ।
কবি নজরুলের কবিতার এ অমোঘ বাণী বুকে নিয়ে
এগিয়ে চলুক আমাদের এ প্রজন্মের যতসব নবীন
নওযোয়ান, এ কামনাই থাকল ।

বিলম্বে হলেও
জন্ম দিনের শুভেচ্ছা রইল

১২ ই জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ৩:২২

সোহানী বলেছেন: আলী ভাই, আপনাকে দেখে খুব ভালো লাগছে। কেমন আছেন? আশা করি এ বরফ ঠান্ডার মাঝেও ভালো আছেন। এবারে কিন্তু মারাত্বক ঠান্ডা পড়বে। তাই সাবধানে থাকবেন।

আমি জানি আলী ভাই. এসব নিয়ে মাথা ঘামানোর মতো সময়. বুদ্ধি, যৈাক্তিকতা, ধৈর্য্য, আন্তরিকতা, দেশের প্রতি ভালো কিছুর তাগিদ উনারা কখনই অনুভব করেন না। আপনার সে একটি আশা বা আমার এক চিমটে প্রত্যাশার কখনই বাস্তবায়ন হবে না। তবে ওই যে আপনিই বলেন, প্রত্যাশা! দায়বদ্ধতা! তার থেকেই কিংবা মুঠো ভালোবাসা থেকেই লিখি। হয়তো কখনো কিছু একটা হবেই হবে.....।

কিন্তু আসল কথা হলো আপনার বই লিখা কবে শুরু করবেন? আপনার কোনই অধিকার নেই আমাদের মতো নাদান পাবলিককে আপনার মূল্যবান লিখা থেকে বঞ্চিত করা। প্লিজ, কিছু একটা লিখেন বা যা এ পর্যন্ত লিখেছেন তা দিয়েই শুরু করেন। আমি হয়তো বলেছি আমার বাবা/মা কিন্তু দারুন লিখতো। কিন্তু ওই যে ছাপাবো, কে পড়বে, সময় কোথায়.......... এ সব বলে বলে আজ আর কোন লিখাই খুঁজে পাই না। এমন কি আব্বুর ডায়রী লিখার অভ্যেস ছিল। প্রায় ৩০/৪০ টা ডায়রী আমি বইয়ের আলমারীতে লুকিয়ে রেখেছিলাম। কিন্তু একসময় তাও হারিয়ে গেল। আর এখন সম্ভব নয়। কারন মা চলে যাবার পর কোন কিছুর দিকেই মন দিতে চায় না। খুব কষ্ট হয় চমৎকার সে লিখার কথা মনে পড়লে।

আমার মতো এ ক্ষুদ্র মানুষকে জন্মদিনে মনে করার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। আপনারা সত্যিই আমার অনুপ্রেরণা!

৪১| ১৫ ই জানুয়ারি, ২০১৯ সকাল ৯:৪৯

মাঈনউদ্দিন মইনুল বলেছেন: শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আগেও 'রাজনীতি' ছিল (ছিল না, সেটি তো বলি নি)। তখন শিক্ষার্থীরা জেনেশুনে প্রকৃত অর্থেই রাজনীতি করতেন; এবং সঠিক উদেশ্যই নিয়েই করতেন। বাংলাদেশের রাজনীতিতে 'ছাত্র রাজনীতি' ছিল অবিচ্ছেদ্য। তা না হলে ২৩ বছরে আমরা পাকিস্তানীদেরকে বিদায় করতে পারতাম না।

এখন তারা রাজনীতি করে না। ছাত্র রাজনীতির নামে এখন যা হয়, সেটি রাজনীতি নয়, টেন্ডারবাজি আর অস্ত্রের ঝনঝনানিতে দেশপ্রেম থাকে না।

১৬ ই জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:২৭

সোহানী বলেছেন: আবারো ফিরে এসে চমৎকার মন্তব্যটি জন্য ধন্যবাদ প্রিয় মইনুল ভাই।

তারপরও সবসময়ই বলি 'ছাত্র রাজনীতি' কোনভাবেই থাকা উচিত নয়। কারন আমরা এখন যে পর্যায়ে চলে গেছি সেটি থেকে বের হওয়া কোনভাবেই সম্ভব নয়। এর সাথে অনেক কিছুই জড়িত। তাই ছাত্রদের আগে পড়তে দেয়া উচিত দেন অন্য কিছু। এ নোংরা রাজনীতির খেলায় তারা দিনের পর দিন দাবার ঘুটি হয়েই চলছে। অনেক হয়েছে, এবার বন্ধ করা উচিত।

৪২| ১৭ ই জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১১:৫৫

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: বেশি জোরে ভালো না ;)
তোমার কথামতো SSHD লাগাবো B-))

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ৩:১০

সোহানী বলেছেন: হুম... তুমারে বুঝতে হবে যে চারপাশের স্লো হার্ডডিস্কের পাশে তুমার সুপারডিস্ক বেমানান!!!!!!! ;) ;) ;)

৪৩| ২০ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:২৭

শামচুল হক বলেছেন: ভালো ইশতেহার

২৩ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ৩:১৯

সোহানী বলেছেন: হুম এখন তা বাসি ইশতেহার...

৪৪| ২৫ শে জানুয়ারি, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০৪

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: সকল দেশের সেরা আমাদের দেশ।

ভালো লাগলো আপনার আলোচনা

২৬ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১:২০

সোহানী বলেছেন: সকল দেশের সেরা ঠিক কিন্তু কিছু স্বার্থান্বেষী মানুষের জন্য সব ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে।

ধন্যবাদ নয়ন।

৪৫| ২৬ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১২:৫০

মামুন ইসলাম বলেছেন: চমৎকার ইশতেহার আপু ।তবে কেউ কি একটু তাকাবে এই দিকে?? মনে হয়না তাদের চোখ আমাদের মত সাধারন মানুষদের দিকে পড়বে। তারা নিজেদের পকেট ভারী করায় মহা ব্যস্ত।

২৬ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ১:২২

সোহানী বলেছেন: কেউই তাকাবেনা রে ভাই। এদিকে তাকানোর সময় ওদের নেই। সবাই ধান্দায় বিজি। আমরা নিজেরাই নিজেদের ভাগ্য গড়ি.....

অনেক ভালো থাকেন মামুন।

৪৬| ২৭ শে জানুয়ারি, ২০১৯ দুপুর ১২:৪১

খায়রুল আহসান বলেছেন: লেখাটা পড়েই বোঝা যায়, দেশ এবং দেশের জনগণের জন্য কতটুকু মায়া থেকে প্রবাসে বসে এ লেখাটি লিখা হয়েছে।
আহমেদ জী এস এর মন্তব্যটা (৩ নং) বারে বারে সত্য বলে প্রমাণিত হয়, তবুও আমরা এক যাদুকরী ভুলের মোহে বারে বারে ভোট দিতে যাই, ভোট চাই, ভোটের জন্য ইশতিহার লিখি! ৩ নং মন্তব্য ও প্রতিমন্তব্য- দুটোই খুব ভাল লেগেছে।
পোস্টে বিংশতিতম ভাল লাগা + + রেখে গেলাম।

২৮ শে জানুয়ারি, ২০১৯ ভোর ৪:৫৭

সোহানী বলেছেন: খায়রুল ভাই, যতটুকু ক্ষমতা ছিল কম বা বেশী চেস্টার ত্রুটি রাখিনি, কিন্তু আসলে পারিনি, ব্যার্থ হয়েছি। কিন্তু এতো অপমান অপদস্তের পরও মন কাঁদে দেশের জন্য, ওই অসহায় মানুষগুলোর জন্য। তাই সে কান্না থেকেই লিখাগুলো বার বার ফিরে আসে। জীভাই বা আপনাদের মতো কেউ আরো বেশীই আঘাত সয়েছেন তাই কষ্টটা অভিমানটা আরো বেশী, সেটা জানি ও বুঝি। তারপরও ওই যে একটুকরো আশা..........।

৪৭| ২৯ শে জানুয়ারি, ২০১৯ রাত ৮:৫১

বোকা মানুষ বলতে চায় বলেছেন: পোস্ট এবং মন্তব্যগুলো, অনেক বেশী আবেগী ছিল। পড়ে মনটা নরম হয়েছিল, পর মুহূর্তেই বাস্তব জীবনের নির্মম সত্যরূপ চোখের সামনে ভেসে উঠলো।

যাই হোক, প্রবাস জীবন ভাল কাটুক প্রতিটি প্রবাসীর; তারাই যে সচল রেখেছে দেশের অর্থনীতি।

শুভকামনা সতত।

০৩ রা ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ রাত ১০:২৫

সোহানী বলেছেন: দোস্ত ব্লগার তারপরও এক চিমটি প্রত্যাশার কথা বলি এক মুঠো ভালোবাসা থেকে।

যে পরিশ্রম প্রবাসীরা করে তা যদি তারা দেখতো তাহলে দেশের প্রতিটি মানুষ এ প্রবাসীদের আলাদা মূল্যায়ন করতো।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.