নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

মডারেশন ষ্ট্যাটাসে আমি জেনারেল, তবে একদা সেফ ছিলাম।

ফরিদ আহমদ চৌধুরী

বিষয় যতই জটিল হোক,ভাবতে ভালো লাগে

ফরিদ আহমদ চৌধুরী › বিস্তারিত পোস্টঃ

ঘুষ

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ৯:৪৩



গুরু দয়ালের পিসতুতু দাদা এলো তাদের বাড়ী। বড় চাকুরী করেন। গুরু দাদাকে তার বেকার ছেলের চাকুরীর জন্য মিনতি জানালেন।দাদা বল্লেন, কোন চিন্তা নেই। তারপর মাথাটা মুখের কাছে টেনে এনে কানে কানে বল্লেন, তবে আট লাখ টাকা লাগবে। গুরু অমনি মাটিতে লুটিয়ে পড়ে অজ্ঞান হলেন। গুরুর স্ত্রী উচ্চস্বরে কান্না জুড়ে দিলে পাড়া-পড়শী জমেগেল। গুরুর স্ত্রী পিসতুতু ভাসুরকে দোষারোপ করে বল্ল, ইনি কি জানি কি বলছেন তা’তেই এ অবস্থা হয়েছে।
-আরে না না আমিতো একটা সুসংবাদ দিলাম।
-সুসংবাদে অজ্ঞান হলো কেন?
-খুশিতে।জ্ঞান ফিরলে তুমি জিজ্ঞেস করে দেখ!

অবস্থা সুবিদের নয় দেখে গুরুর দাদা তখন মানে মানে কেটে পড়লেন।
জ্ঞান ফিরার পর সবাই গুরুর নিকট সুসংবাদের কথা জানতে চাইল।গুরু যতই বলছে বলা যাবেনা কিন্তু সবাই সে কথা শুনবেই শুনবে। বেশী জিজ্ঞাস করছে গুরুর স্ত্রী। অগত্যা গুরু স্ত্রীর মাথা মুখের কাছে টেনে এনে সে যা শুনেছে সে কথা বল্ল। অমনি স্ত্রী মাটিতে লুটিয়ে পড়ে অজ্ঞান হয়ে গেল।তখন গুরু সবাইকে উদ্দেশ্য করে বল্ল, দেখলেতো! আমার কথা বিশ্বাস হলোতো! এখন তোমরা কে কে সে কথা শুনবে, তারা থাক, বাকীরা চলে যাও। গুরুর কথা শেষ হতে না হতে সবাই চলে গেল।
স্ত্রীর জ্ঞান ফিরতেই সে বল্ল, এখন কি উপায় হবে গো!
-নিরুপায় হবে গো।
-ছেলেটার বুঝি আর চাকুরী হবেনা গো।
-কি করে হবে গো। আমাদেরতো আট হাজার টাকাও নেই গো।
- তবে ছেলেটা কি করবে গো।
- কি আর করবে! শাক-সবজি তরকারী বেচবে।
-তো এত পড়াশুনা করে কি লাভ হলো?
- তা’ না হোক; তরকারী বেচলে নিশ্চই লাভ হবে।

গুরুর ছেলে এতক্ষণ বাসায় ছিলনা। সে বাসায় ফিরল বিপর্যস্ত চেহারা নিয়ে। ঘরে ঢুকেই ঠাস করে বিচানায় শুয়ে পড়ল। গুরু স্ত্রীকে বল্ল, দেখতো ছেলেটা শুতেগিয়ে ঠাস করল কেন? গুরুর স্ত্রী ছেলের কাছে গিয়ে জিজ্ঞাস করল, কিরে শুতে গিয়ে ঠাস করলি কেন?
-তোমাদের জন্য কি একটু ঠাসও করতে পারবনা? কি আশ্চর্য!
- নানা শুধু শুধু ঠাস করবি কেন? তোর কি হয়েছে?
- বিয়ে।
- ওমা একি কবে, কোথায়?
-আমার না!
-কার?
-অটো বিয়ে করেছে!
-কাকে?
-সিএনজিকে!
-অটো বিয়ে করেছে সিএনজিকে, মাথা ঠিক আছে বাবা?
- ভুল হইছে, অটোওয়ালা বিয়ে করেছে সিএনজি ওয়ালাকে!
- কি যা তা বলছিস?
-ভুল হইছে, অটো ওয়ালা সিএনজি ওয়ালার মেয়ে বিয়ে করেছে।
-তাতে তোর কি?
-আমি সেই মেয়েকে ভাল বাসতাম!
-বাঁইচা গেলি তাকে আর তোর বিয়ে করতে হবে না।

গুরুর ছেলে বিড়বিড় করে, বেকার বেকার, বেকার বলেই অটো ওয়ালা তার মেয়ে আমার কাছে বিয়ে দেয়নি।

কিছুক্ষণ পর কিছু ছেলে-পেলে এসে দেখে, গুরু , তার স্ত্রী ও ছেলের চোখে জল। একজন বল্ল, আনন্দাশ্রু অন্য জন বল্ল কান্নার জল। এনিয়ে তাদের মধ্যে গবেষণা শুরু হল।

মন্তব্য ৪৬ টি রেটিং +২৭/-০

মন্তব্য (৪৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ৯:৫৯

ব্লগ সার্চম্যান বলেছেন: সুন্দর লেখা ।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৫০

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ ব্লগ সার্চম্যান।

২| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:২৪

কলিমুদ্দি দফাদার বলেছেন: গল্পটা আরেটু বড় করতে পারতেন, সাধারণ এই ধরনের গল্প একটু বড় পড়তে বেশি ভাল লাগে। প্লট আর উপস্থাপনা ধারুন ছিল।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ২:০৭

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: আরেকটু বড় করলাম।

৩| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৩:৫০

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: কমন ট্রাজেডি! :(

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:২১

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: ঠিক বলেছেন।

৪| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৩:৫০

নতুন নকিব বলেছেন:



অসংখ্য ধন্যবাদ প্রিয় কবি।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:২৩

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: আপনার জন্য শুভেচ্ছা প্রিয় কবি।

৫| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:০৫

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ঘুষ বেশ জটিল একটি অনৈতিক কাজ । সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে একে বন্ধ করা না হলে একে রোধ করা খুবই কঠীন , এমনকি ঘুষ এখন বেসরকারী অফিসেও চালু হয়েছে । সামাজিক সচেতনতা ও সামাজিক প্রতিরোধ ও ধর্মীয় মুল্যবোধ ও কঠীন অনুশাসন একে নির্মুলে গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা পালন করতে পারে । ধন্যবাদ গল্পের আকারে এর একটি ভয়াবহ রূপ তুলে ধরার জন্য ।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:২৪

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: ঘুষ এখন মহামারি আকারে বিরাজ করছে।

৬| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:২৪

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: ঘুষ ব্যাপারটি পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতেও নাকি ব্যাপক ।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৪:২৭

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: কিন্তু এটি আমাদের দেশে জনগনের সহ্য সীমার বাইরে চলে গেছে। ঘুষখোরদের বিরুদ্ধে জনগন আন্দোলনে নামলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবেনা।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৩:৪৩

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন:



কবি সেলিম আনোয়ার

কবিতার ক্যানভাসে হৃদয় কথন
ফুটেউঠে। মায়াময় বিচিত্র রঙের
মুগ্ধতায় সম্মোহন বিস্তৃত; আকাশে
বিদ্যমাণ তারাদের মতন সুন্দর।
বর্তমান পাড়িদেয় অতীত স্মরণে
ভবিষ্যৎ ডাকে আয় কোলের কিনারে,
স্বপ্নচুঁড়ে পৃথিবীর এপ্রান্ত ও প্রান্ত
কবিতায় আলপনা, অদ্ভুত সর্বত্র।

মোহময় কথামালা হে কবি সেলিম
আপনার কবিতায়, সাজানো গুঁছানো
পরিপাটি সে আঙ্গিনা দৃষ্টির প্রশান্তি।
অনন্তর মনভাবে রুচির বৈচিত্র
অফুরন্ত। পরিহারে কপট চরিত্র
অনুরূপ বাস্তবতা দেখিনি অনেক।

৭| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ বিকাল ৫:৪৩

আলী আজম গওহর বলেছেন: আমি প্রায় প্রতিদিন সামুতে এসে কিছু আলোচিত, নির্বাচিত পোষ্ট পড়ি।আপনার পোষ্ট আলোচিত হওয়া নিয়ে অনেক কথা হয় দেখি।
২৪ টি লাইক আর ১২টি কমেন্টের মধ্যে সেলিম আনোয়ার,ডাঃএম এ আলী, ব্লগ সার্চম্যান ছাড়া কেউ এর আগে আর কেউ আমার চোখে পড়েনি।প্রত্যেকের লিংকে গিয়ে দেখি, তারা আপনার সাথে বিশেষ ভাবে সংপৃক্ত।
তাহলে আপনি বলুন আপনার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ কোন দৃষ্টিতে দেখব?

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:১৭

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: ব্লগে আমি অনেক দিন আছি। আমার অনেক চেনা জানা লোকও রয়েছে।এমন চেনা জানা লোক অনেকেরই রয়েছে। এখানে কেউ বন থেকে উঠে আসেনি বরং জন থেকে উঠে এসেছে। আর চেনা জানা লোকের মন্তব্য করাতে বারণও নেই। এখন কোন লোকের ইচ্ছার উপর আমি হস্তক্ষেপ করতে পারিনা। আমি এটা বলতে পারি না যে আমার পোষ্টে মন্তব্য করলে অন্যদের পোষ্টেও মন্তব্য করতে হবে। কারণ এখানে সবাই স্বাধীন।
আর আমি সাধারণত নতুন ব্লগারদের পোষ্টে বেশী পরিমাণে গিয়ে থাকি। অনেক ব্লগারের পোষ্টে গেলে দেখবেন সেখানে আমার মন্তব্যই প্রথম। আমার পোষ্টে ব্লগার চাঁদগাজি প্রথম মন্তব্য করে ছিলেন। সেই থেকে আমি তার পোষ্টে প্রায় নিয়মিত মন্তব্য করি।কিন্তু চাঁদগাজী আমার কেউনা। এরকম অনেকেই আমার পোষ্টে নিয়মিত মন্তব্য করে অন্য কোথাও করে কিনা জানি না।আপনি আমার ব্লগ সার্চ করলে দেখবেন অনেকেই আমার পোষ্টে এখন আর মন্তব্য করেনা। আগামীতেও অনেকে করবে না। নতুনেরা আবার সে স্থান দখল করবে।
আমার কিছু মত কারো কারো বিপক্ষে যায়। তাই তারা আমাকে মাঝে মাঝে বিশেষ ভাবে টার্গেট করে। এমন টার্গেট অন্যদেরকেও করে। ব্লগে যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয় তাদের সবাইকে আপনি বাদ দিয়ে দেখুন, তারপরো দেখবেন এখন যাদের লেখা কেউ পড়েনা তখনও তাদের লেখা কেউ পড়বেনা, হাতেগনা কয়েকজন ছাড়া।
আমার ব্লগ সার্চ করলে আপনি দেখবেন তাতে সবার উপস্থিতি বিদ্যমান। তাহলে আপনারা যাদের কথা বলছেন সে নিরিহ বেচারাদের দোষকি? এখানে কি আপনারা বর্ণবাদ বা কৌলিন্য প্রথা চালু করতে চান? আপনারা কি এটা বলতে চান যে ওরা আপনার পোষ্ট পড়বে তারা আপনার পোষ্ট পড়বেনা? বরং আমি মনে করি ব্লগে ছোট বড় সবার অধিকার সমান। মনে রাখবেন ভোটে প্রধান বিচারপতির যেমন এক ভোট তেমনি তাঁর কাজের বুয়ারও একভোট। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এমন সবার অধিকার সমান থাকে। কিন্তু কিছুলোক ব্লগে ব্রাহ্মণ্যবাদ চালু করতে চায়।

৮| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:৫৯

কলিমুদ্দি দফাদার বলেছেন: আপনার ব্লগের নিক মাল্টিনিক অভিযোগ আমি ও দেখেছি। প্রথমে আপনি নিজ পরিচয়ে আইডি চালান। তারপরে আপনি একজন বয়স জৈস্ট শ্রদ্ধেয় মানুশ। আপনাকে নিয়ে ব্যাক্তি আক্রমণাত্মক মন্তব্য দেখতে খারাপ দেখা যায়। আপনার উচিত অভিযোগ গুলোর স্পষ্ট বা পরিস্কার জবাব দেওয়া। আমার তো মনে হয় এই ধরনের অভিযোগ আপনার বিরুদ্ধ লজ্জাজনক, বয়স্ক কেউ নিজ ব্লগ আলোচিত পাতায় যাওয়ার জন্য মাল্টিনিক অভিযোগ বাচ্চামিপনা ছাড়া আর কিছু নাহ

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫৬

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: অভিযোগকারী সব সময় মামলা জয়ী হয় ঘটনা এমন নয়। অনেক সময় অভিযোগ সঠিক হয়না। আর অটোরিড,মাল্টি অভিযোগ, সিন্ডিকেট এসব অভিযোগ অনেকের বিরুদ্ধেই রয়েছে। আর আমিতো প্রতিদিন পোষ্ট দিচ্ছিনা যে আমার কারণে কেউ আলোচিত পাতা পাচ্ছেনা। আপনিকি তবে চাচ্ছেন যে কোন ভাবেই আমার লেখা আলোচিত পাতায় যেতে পারবেনা? আমার লেখা যদি পাঠক পছন্দ করে তবে আলোচিত পাতায় যেতে ক্ষতিকি? আর এর চেয়ে নিম্ন মানের পোষ্টকি আলোচিত পাতায় যাচ্ছে না? আমার কোন পোষ্ট আলোচিত পাতায় যাওয়ার যোগ্য ছিলনা একটু খুঁজে দিবেন কি জনাব দফাদার সাহেব? আর আপনি হঠাৎ আমার উপর এমন ক্ষেপে যাওয়ার কারণ কি? আমি কি আপনার মনে কষ্ট দেওয়ার মত কিছু করেছি? আর আলোচিত পাতায় যাওয়ার যোগ্য পোষ্ট আলোচিত পাতায় যাবে এটাতো স্বভাবিক!

৯| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫১

আলী আজম গওহর বলেছেন: আমার পরিচিত'র দিক থেকে এই পোষ্টে পরিচিত ব্লগার মাত্র ৭%।বিজন রয়, এবং চাঁদগাজী নতুনদের পোষ্টে অনেক মন্তব্য করতেন।তাদের কোনো পোষ্টে আমি কখনো এমন বৈষম্য দেখিনি।আমার কথা বাদ দিন।আপনি দেখেছেন কখনো?
সামুর অনেক ব্লগার হয়ে কষ্ট করে সময় বের করে ভালো পোষ্ট লিখে।কিন্তু বেশি মন্তব্য করার সুযোগ পাইনা।তাই তাদের পোষ্ট আলোচিত হতে পারেনা।
আপনার অনেক সময়। আপনি ব্লগিং এর মূল উদ্দেশ্য থেকে সরে গিয়ে সিনিয়র দের নিয়ে একটার পর একটা সনেট লিখে যাচ্ছেন।হয়তো বলবেন উৎসাহিত করছি।আপনি যদি ভালো লেখক হন তাহলে আপনার সামান্য কথাতেই ব্লগাররা উৎসাহিত বোধ করবেন।রবীন্দ্রনাথ কারো পোষ্টে শুধু উপস্থিত হলে সে কি পরিমান উৎসাহ পাবে ভাবুন!নতুনদের খুশি করে বেশি করে মন্তব্য করছে ।বিনিময়ে তারা আপনার ব্লগে আসছে পোষ্ট আলোচিত হচ্ছে।ফলে ভালো লেখক অথচ সময় কম এমন লেখকের লেখা আড়ালে থেকে যাচ্ছে।নতুন লেখকরা বিভ্রান্ত হচ্ছে।
এটাকি সুবিচার? এটাকে সিন্ডিকেট বাজি না বলে কি উপায় আছে?
আপনারতো একটা অনুপাত বজায় রাখতে হবে ভাই।আপনি জানা ও লেখার প্রতি বেশি সময় দিয়ে মানসম্মত পোষ্টের মাধ্যমে প্রতিদিন আলোচিত পাতায় গেলে কে আপনার বিরুদ্ধে অভিযোগ করবে?
নির্বাচনের সাথে তুলনা করলে, আপনার অতিরিক্ত সময়কে অতিরিক্ত টাকার সাথে তুলনা করা যায়।[নতুন ব্লগারদের কাছে আমি ক্ষমাপার্থী]

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:২০

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: উৎসাহ এবং স্বীকৃতি যদি অনুচিত কাজ হয় তবে উৎসাহ ও স্বীকৃতি প্রদানের এত এত ব্যবস্থা কি তবে ভুল? আপনারা আসলে কি বলতে চান আমি বুঝতে পারিনা। আমিতো চাই উৎসাহ পেয়ে তাঁরা আরো ভালো লেখা উপহার দিন। তাতে আমরা অনেক জ্ঞান অর্জন করতে পারব। আমরা ব্লগে সময় কাটাই ভাল পোষ্ট উপভোগ করার জন্য, এমন চাওয়া কি তবে অন্যায়? আমি কি তবে শুধুই অখাদ্য কূ-খাদ্য গিলব? আমি ব্লগার সোনাবীজ ও ধুলোবালিছাঁই কে নিয়ে আমি সনেট রচনা করেছি বিনিময়ে তিনি আমার শিক্ষক বনে গেলেন। তিনি শিখালেন আমি শিখলাম এবং এখন সে রকম কবিতা লিখে উপস্থাপন করছি। সভ্যতা এবং ভাষা বদল হয়েছে। নতুন পরিস্থিতিতে নতুন সাহিত্যিকের দরকার পড়েছে। তো নতুনদের মধ্য হতে নতুন সাহিত্যিক জন্ম নিলে আপনার ভাষাও সাহিত্যের উপকার হবে না অপকার হবে? তো আমার সামান্য উৎসাহে যদি আপনার দেশ ও ভাষা এমন সাহিত্যিক পায় তাতে আপনার বিরোধীতা কেন? সামুর প্রতিষ্ঠাতা জানার সৃষ্ট এ ব্লগ আমার দেখা আর সব ব্লগ থেকে উত্তম। আমি তাঁকে আরো উত্তম কাজ করে এ ব্লগকে আরো উত্তম করতে তাঁকে নিয়ে একটা সনেট লিখেছি এটা কি আমার অন্যায়? আমার তাঁদের নিয়ে লেখা সনেট মন্তব্য মাত্র। তাতে তাঁদের উন্নতি ঘটলে জাতির মঙ্গল হবে বলে আমি মনে করি আপনি কি এর সাথে একমত নন? আমি ব্লগার জানার মেয়েকে নিয়ে সনেট লিখেছি তিনি নিজেই তাঁর মেয়ের জিনিয়াস হওয়ার সংবাদ দিয়েছেন। আমি চাই আমার সনেট দেখে তিনি তাঁর মেয়েকে আরো উত্তম রূপে গড়ে তুলুন, এটাওকি অন্যায়। আমি এমন বহু ঘটনা দেখেছি উৎসাহ মানুষকে অনেক বদলে দেয়। আমার উৎসাহে গ্রামের এক বখাটে এখন গ্রাফিক্স ডিজাইনার তারা আমাকে এখন বেশ সমিহ করে। আমি ফল গাছ লাগাচ্ছি ফল দিবে মনে করেই এবং আমি হাতে হাতে ফলও পাচ্ছি। আর সে কারণে আপনার সাথে আমার মতের মিল হচ্ছেনা। কারণ আপনার সে অভিজ্ঞতা নেই।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১১:৪৪

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: ক্রিয়ার প্রতিক্রিয়া হিসেবে এক পক্ষ যেমন আমার প্রবল বিরোধীতা করছে। তেমনি এক পক্ষ এর উল্টটাই করছে। অথচ এতে আমার কিছুই করার নেই।

১০| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:১০

কলিমুদ্দি দফাদার বলেছেন: ফরিদ ভাই আপনি আমার প্রিয় একজন ব্লগার। ব্লগের শুরু থেকে আপনি নানাবিধ ভাবে উৎসাহ দিয়ে আসছেন। আপনাকে কোন কারনে কস্ট দিয়ে থাকলে আমি ক্ষমাপ্রার্থী। ব্লগের যারা অভিযোগ করছে তাদের অধিকাংশ নিক নাম তারা আপননি একজন বয়স্ক মানুশ হওয়া সত্তে ও বাজে কথা বলছে। এইটা খারাপ লাগে।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:২৭

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: আমাকে নিয়ে আর কি বাজে বলছে। চাঁদগাজিকে এর চেয়ে ঢের বেশী বাজে বলছে। আপনি সম্ববত একবার আমাদের ক’জনকে কূখ্যাত বলেছিলেন। আর বাস্তব হলো অনেকে না বুঝেই সমালোচনা করে। চাঁদগাজি আমাকে প্রথম অবস্থায় মন্তব্য করেছিলেন, ‘কার কোরবাণীর ছাগল ব্লগে এসে পন্ডিত হলো? আমি তার এ মন্তব্যে রাগ বা অসন্তুষ্ট হয়নি।কারণ আমি জানি যে একদিন আমাকে ছোট করছে এর কাফফারায় একদিন সেই আমাকে বড় করবে। আর চাঁদগাজির আমার প্রতি এখনকার মন্তব্য দেখলে আপনি বুঝবেন, তখন তাঁর প্রতি রাগ না করে আমি সঠিক করেছিলাম কিনা। চাঁদগাজি আমার প্রায় সব পোষ্টে মন্তব্য করেছেন। আর এখন সব সময় আমার পাশেই আছেন।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:৩৮

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: আপনি সাহিদা সুলতানা নামক যে মেয়েটির সমালোচনা করেছেন সে মাত্র এইচ এস সি সেকেন্ড ইয়ারে পড়ে। সামু তার কলম কেড়ে নিয়ে তাকে থামিয়ে দিল। সে জানে না কিন্তু জানতে চায় এটাকে আপনারা তার অপরাধ সাব্যস্ত করে তাকে থামিয়ে দিলেন। সে আর ফরিদ আহমদ চৌধুরী নয় যে প্রতিকূল পরিস্থিতিতে টিকে থাকবে। আমি জেনারেল হয়েছি। তিনলাখ সদস্যের একটা গ্রুপ আমাকে তাদের এডমিন বানিয়েছে। আমি পোষ্ট দিয়েই সে গ্রুপে শেয়ার করি। আমার দু’টি আইডি ছোট মেয়ের আইডি সহ আরো অনেক গ্রুপে শেয়ার করি। ফেসবুকের প্রায় সব বড় গ্রুপের আমি সদস্য। আমি ব্লগ থেকে অনেক বেশী পোষ্ট ফেসবুকে দিয়ে থাকি কারণ সেটার আউটপুট ব্লগ থেকে ভাল। আমি অসংখ্য ব্লগে যাতায়ত করি সে জন্য হয়তো পাঠক পাই। এখন আমার লেখা যদি পাবলিক না পড়ে তবে আমার লাভ কি? আর অপ প্রচার আমাকে প্রবল ভাবে সহায়তা করছে। পাবলিক আমার প্রতি কৌতুহলি হচ্ছে। কাজেই অপ প্রচারকে আমি নেতি বাচক বিবেচনা করিনা।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১২:৩৪

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন:



কলিমদ্দিন দফাদার

কলিমদ্দি দফাদার কি করিয়া গেল
করিয়াতে? তারপর কোরিয়ান কন্যা,
কি করিয়া তার মন জয় করে ফেলে?
বিস্ময়ের ঘোরে মনে এ প্রশ্নটা জাগে।
উত্তরতো জানা নেই অনুমান করি,
কলিমদ্দি জাদুকর প্রেম জাদু জানে
কোরিয়ান কন্যা তাতে দেশ-জাতি ভুলে
কলিমদ্দি হাতে সফে মন প্রাণ তার।

আল্লাহর উপহার দাম্পত্যের জুটি
তারাদুই দু’জনার অবারিত প্রেমে
ঘরবাঁধে একসাথে হাসিখুশি মন।
ছবি দেখে মনে হয় স্বপ্নময় দেশে
তারা থাকে।তা’থাকুক, চিরকাল তারা
দুইমন এক হয়ে এ কামনা মনে।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১২:৩৭

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: দফাদার সাব অবশেষে কবিতাটা লিখেই ফেল্লাম।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১২:৩৯

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: দুইমন এক হয়ে একামনা করি।

১১| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:৪৪

চাঁদগাজী বলেছেন:



খুবই ছোট প্লট, লিখার ধরণের ফলে প্লটটি বিকশিত হয়েছে।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১০:৪২

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: সুন্দর মূল্যায়নের জন্য ধন্যবাদ।

১২| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:৪৬

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: হা হা হা, হাসাইতে হাসাইতে মারিয়ালবেন নাকি !! এত্ত মজার গল্প আপনি কেমনে তৈরি করেন! আইডিয়া পান কই!!

মজাই মজা, সম্পূর্ণই মজা লাগাই দিলেন গুরু ...... +++++

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১০:৪৩

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: আপনি খুশি হয়েছেন জেনে আমিও অনেক খুশী হয়েছি।

১৩| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ৯:৩০

শাহাদাৎ হোসাইন (সত্যের ছায়া) বলেছেন: সুন্দর গল্প।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১০:৪৪

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ শাহাদাৎ ভাই।

১৪| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১১:০৫

নাঈম জাহাঙ্গীর নয়ন বলেছেন: এর আগেরবার শুধু পড়ে মজা পাইছি তাই বলে গিয়েছিলাম তাড়াতাড়ির মধ্যে। কিন্তু মন্তব্যের ঘরে এত সমালোচনা আমার দেখা হয়নি। এবার সব দেখে কি বলবো ভাবছি, হয়তো বলা ঠিক হবে না!!

একটা কথা বলেই যাই, নির্বাচিত পাতায় যাওয়া সব পোষ্টই কি মানসম্পন্ন ? সব মানসম্পন্ন পোষ্টই কি নির্বাচিত পাতায় যাচ্ছে ?

_________
ঘুষ - এত্ত বেড়ে গেছে যে ঘুষ ছাড়া কোন সংস্থা নাই! ছোট থেকে বড় পর্যন্ত ঘুষ বিস্তৃতি লাভ করেছে!! এখন এমন পরিস্থিতি বিরাজ করছে যে, যে ঘুষ খায় না সে সবচেয়ে খারাপ লোক!! দেখা যায় ঘুষ না নিলে ঘুষের চেয়েও জঘন্য অপবাদ নিয়ে চাকরি হারানোর ঘটনাও ঘটেছে! তাই অনেককে বাধ্য হয়েও ঘুষ নিতেই হচ্ছে!!
কোটি টাকার সরকারি কাজ ২০ লখের বেশি হচ্ছে না!! বাকি ৮০ লাখ বিভিন্নভাবে ঘুষ দিতেই শেষ!!
ঘুষ না থাকলে বাংলাদেশ সিঙ্গাপুর হয়ে যেতো অনেক আগেই।।

আপনার পোষ্ট রসিক হলেও খুব সুন্দর একটা বিষয় উপস্থাপন করেছেন সুন্দরভাবে। কৃতজ্ঞতা রইল পোষ্টে।

শুভকামনা আপনার জন্য

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১১:১৭

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: মানের বিষয় একেক জনের নিকট একেক রকম। দেখা গেল বর্তমান প্রধানমন্ত্রী অনেকের নিকট মহা মানসম্পন্ন আবার অনেকের নিকট তাঁর কোন মানই নেই। আবার সাবেক প্রধানমন্ত্রী অনেকের নিকট মহা মানসম্পন্ন আর অনেকের নিকট তাঁর কোন মান নেই। এরা নিজের নিকট মান সম্পন্নকে অপরের উপর চাপায় কেন এটাই বুঝে আসেনা।

১৫| ১৮ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১:৩৬

:):):)(:(:(:হাসু মামা বলেছেন: সুন্দর গল্প ।

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ৮:১৭

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ মামা

১৬| ১৮ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ২:২৪

হিমাদ্রী হিমু বলেছেন: ভাল্লাগছে ভাই :)

১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ৮:১৮

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: ভাললাগার জন্য অনেক শুভেচ্ছা।

১৭| ১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ৯:১৩

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: ঘুষ প্রথা আমাদের সমাজের জন্য অভিশাপ। সুদ-ঘুষ যতদিন বন্ধ হবে না পৃথিবীতে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবেনা।
সুন্দর একটি পোষ্টের জন্য ধন্যবাদ ভাই।

১৯ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:৪১

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: আমাদের দেশে এটা এখন অসহনীয় মাত্রায় চলছে।

১৮| ১৮ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১০:৩৯

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: অন্য রকম, বেশ ভাইটামিন যুক্ত :-B

১৯ শে জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১:৪৩

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: সব বনে-বাদাড়ে থেকে পাওয়া লতা-পাতা থেকে কবিরাজি পদ্ধতিতে প্রাপ্ত ভিটামিন।

১৯| ২০ শে জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩০

আলী আজম গওহর বলেছেন: আমি আপনার প্রতি শ্রদ্ধার সাথে বিপরীত মতামত গুলো নিয়ে আলোচনা করতে চাই।
মানুষের আসল চেহারা যারা দেখতে বাধ্য হয় তারা একটা দায়িত্ববোধ থেকে লেখালেখি করে।বেশির ভাগ ভালো লেখক প্রকৃতির আসল রুপ দেখতে পাওয়ার ফলেই তৈরি হয়।উনাদেরকে তেলমাখা সনেট লিখে উৎসাহিত করার চিন্তার মধ্য ব্যক্তিগত সার্থ ছাড়া অন্য কিছু থাকা প্রায় অসম্ভব যখন সংশ্লিষ্ট ব্লগারের পোষ্টে মন্তব্য আকারে না লিখে প্রথম পাতায় দিয়ে আলোচিত হবেন।
সময় পেলে আমি আবার আসব।ভালো থাকুন।

২০ শে জুলাই, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫৮

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: আপনি ইবাদত করেন কেন? জান্নাতের স্বার্থ ছাড়া এমনি? আর তৈলের বদনাম করছেন কেন? তৈল ছাড়া কি আপনার চলে? মনে রাখবেন ভেজল না হলে তৈলে কোন ক্ষতি নেই। সুতরাং নিজের চরকায় তৈল দিন। আমার তৈলের গুনাগুন আপনাকে বিচার করতে হবেনা। আমি আপনাকে জ্ঞানী অথবা গুনী এর কোনটাই মনে করি না। যদিও আপনি নিজেকে নিজেকে অনেক জ্ঞানী মনে করেন। আপনার মত আপনি ধুয়ে তিন বেলা পানি খান। আপনার মত গায়ে পড়ে আমাকে গিলাতে আসবেন না। আপনার কুমড়ো পঁচা মতের কোন গুরুত্ব আমার নিকট নেই। এমন অপদার্থ জ্ঞানী ঢের দেখেছি।

২০ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:৩২

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: আল্লাহ কি ইবাদত ছাড়া আপনাকে এমনিতেই জান্নাত দান করবেন? আপনার মাথায় কি মগজ আছে? আপনি আমার তৈলে ভেজাল থাকলে গুনে কুলালে বের করে দিন। নতুবা খাঁটি তৈলের সমালোচনা করবেন না। হরপ্রসাদ স্বাস্ত্রী বলেছেন জগতের সবচেয়ে শক্তিশালী পদাদার্থ তৈল। ভেজাল না হলে এর প্রতি ফোটা কাজে লাগে। তবে অনেকে ভেজাল তৈলে কার্য সিদ্ধি করে সেটা খারাপ। ভেজাল তৈল হলো যা সঠিক নয় এমন। আমি যদি বলি সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর তবে এটা হবে খাঁটি তৈল। আমি যদি বলি শয়তান খুব ভাল তবে সেটা হবে ভেজাল তৈল। এখন আপনি বলুন আমার কোন কবিতায় ভেজাল রয়েছে? আমি কি কোন গুনহীনকে গুণী বলেছি? যদি গুণীকেই গুণী বলে থাকি তবে দোষের কি হলো? এখন সাদাকে সাদা বলায় যদি কেউ আমাকে ধন্যবাদ দেয় তবে আপনার তাতে আপত্তি কেন? আপনি কে এসব বলার?

২০ শে জুলাই, ২০১৭ রাত ৮:৪১

ফরিদ আহমদ চৌধুরী বলেছেন: গুণীজনের গুণের ভক্ত আমি। আমি তাদের নিয়ে লিখতেই থাকব-ইনশাআল্লাহ। প্রকাশ করার সুযোগ যেখানে পাব সেখানে প্রকাশ করব। হিংসুকের গুষ্ঠি যতপারে হিংসাকরে করুক। আমি তার পরোয়া করি না।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.