নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

ফয়েজ আহমদ তৈয়্যব, ইলেক্ট্রিক্যাল এবং ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং এ স্নাতক। মতিঝিল আইডিয়াল, ঢাকা কলেজ, বুয়েট এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র।প্রকৌশলী, টেলিকমিউনিকেশন এক্সপার্ট। সমাজিক সংযোগঃ বাংলাদেশের বিভিন্ন সেক্টরের কাঠামোগত সংস্কার, দুর্নীতি।

এক নিরুদ্দেশ পথিক

সমাজের প্রতিটি ছোট বড় সমস্যার প্রকৃতি নির্ধারণ করা, আমাদের আচার ব্যবহার, সমাজের প্রচলিত কৃষ্টি কালচার, সৃষ্টিশীলতা, চারিত্রিক উদারতা এবং বক্রতা, অপরাধ প্রবৃত্তি, অপরাধ সঙ্ঘঠনের ধাঁচ ইত্যাদির স্থানীয় জ্ঞানের আলোকে সমাজের সমস্যার সমাধান বাতলে দেয়াই অগ্রসর নাগরিকের দায়িত্ব। বাংলাদেশে দুর্নীতি রোধ, প্রাতিষ্ঠানিক শুদ্ধিকরন এবং টেকনোলজির কার্যকরীতার সাথে স্থানীয় অপরাধের জ্ঞান কে সমন্বয় ঘটিয়ে দেশের ছোট বড় সমস্যা সমাধান এর জন্য লিখা লিখি করি। আমার নির্দিষ্ট দৃষ্টিভঙ্গি আছে কিন্তু দলীয় সীমাবদ্ধতা নেই বলেই মনে করি, চোর কে চোর বলার সৎ সাহস আমার আছে বলেই বিশ্বাস করি। রাষ্ট্রের অনৈতিক কাঠামোকে এবং দুর্নীতিবাজদের সবাইকে তীক্ষ্ণ ভাবে চ্যালেঞ্জ করার চেষ্টা করি। রাষ্ট্র কে চ্যালেঞ্জ করতে চাই প্রতিটি অক্ষমতার আর অজ্ঞতার জন্য, তবে আঘাত নয়। ব্যক্তিগত ভাবে নাগরিকের জীবনমান উন্নয়ন কে দেশের ঐক্যের ভিত্তিমূল মনে করি। ডাটাবেইজ এবং টেকনোলজি বেইজড পলিসি দিয়ে সমস্যা সমাধানের প্রোপজাল দেবার চেষ্টা করি। আমি মূলত সাস্টেইন এবল ডেভেলপমেন্ট (টেকসই উন্নয়ন) এর নিরিখে- অবকাঠামো উন্নয়ন এবং ডিজাইন ত্রুটি, কৃষি শিক্ষা খাতে কারিগরি ব্যবস্থাপনা ভিত্তিক সংস্কার, জলবায়ু পরিবর্তন, মাইক্রো ইকনমিক ব্যাপার গুলো, ফিনান্সিয়াল মাইগ্রেশন এইসব ক্রিটিক্যাল ব্যাপার নিয়ে লিখার চেষ্টা করি। মাঝে মাঝে চোরকে চোর বলার জন্য দুর্নিতি নিয়ে লিখি। পেশাঃ প্রকৌশলী, টেকনিক্যাল আর্কিটেক্ট, ভোডাফোন।

এক নিরুদ্দেশ পথিক › বিস্তারিত পোস্টঃ

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট বিজনেইস কেইসের একটি নির্মোহ বিশ্লেষণ- প্রত্যাশার ফানুশ বনাম নিরেট বাস্তবতা

১০ ই মে, ২০১৮ দুপুর ২:৪৮


৫৭তম দেশ হিসেবে ৩ হাজার কোটি টাকায় কেনা স্যাটেলাইটের গর্বিত মালিক হচ্ছে বাংলাদেশ।

১। প্রকল্প বাস্তবায়নে মোট ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে প্রায় ২৯০২ কোটি টাকা। ১৫৪৪ কোটি টাকা জনগনের ট্যাক্সের, বাকি ১৩৫৮ কোটি টাকা বিডার্স ফিনান্সিং এর মাধ্যমে সংগ্রহ করা হয়েছে (মূলত এইচএসবিসি'র লোন)। যুক্তরাষ্ট্রের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান 'স্পেস পার্টনারশিপ ইন্টারন্যাশনাল' পরামর্শক, এতে রাশিয়ার ইন্টারস্পুটনিক ইন্টারন্যাশনাল অরগানাইজেশন অব স্পেস কমিউনিকেশনের অরবিটল স্লট ২ কোটি ৮০ লাখ ডলারে কেনা হয়।

তবে প্রাথমিক পর্যালোচনায় দেখা যাচ্ছে, অন্যান্য দেশ এর চেয়ে অর্ধেক কম দামেই স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করেছে (ছোট স্যাটলাইটের ডিজাইন ম্যানুফ্যাকচারিং উৎক্ষেপণের কষ্ট গুলো স্টান্ডার্ড, মোট আনুমানিক ১২০ মিলিয়ন ডলার, বিপরীতে বাংলদেশের ২৮৩ মিলিয়ন ডলার লেগেছে )।

এখানে ৪০টি ট্রান্সপন্ডার, যার ২০টি দেশীয় ব্যবহারের জন্য রেখে বাকি ২০টি বিদেশে বিক্রি করা হবে বলে যানা গেছে। এই স্যাটেলাইট অপারেশন, মার্কেটিং, রেগুলেটরি ইত্যাদি কাজ করার জন্য সরকার একটা পাবলিক লি: কোম্পানী করেছে।

২। ২০ টা ট্রান্সপন্ডার দ্রুত বিক্রি হয়ে গেলে ৭/৮ বছরেই টাকা উঠে আসার কথা। ১৫ বছরের লাইফ সাইকেলের অর্ধেকে ব্রেক ইভেনে গিয়ে পরবর্তি ৬-৭ বছরে প্রভিট মেইকিং স্ট্রাটেজি নিতে হবে। শুরুতেই খরচ দ্বিগুণ হয়ে যাওয়ায় বিজনেইজ কেইস ঝুকিপুর্ণ হয়েছে। তবে বিক্রির জন্য চাই সঠিক ও যোগ্য আন্তর্জাতিক মার্কেটিং কোম্পানি। এখানে বিদেশী এজেন্সি নিয়োগ করা লাগবে। এই ফিল্ডে যেহেতু বাংলাদেশের একেবারেই অভিজ্ঞতা নাই তাই কিছু সময় বিদেশী এজেন্সি লাগবে কিন্তু কথা হচ্ছে একটি নির্দিস্ট সময়ের মধ্যে দ্রুত নিজেদের মার্কেটিং টিম ডেভেলোপ করতে হবে। অর্থাৎ মার্কেটিং এজেন্সির কন্ট্রাক্টেও যৌথ প্রয়াস রাখা চাই যাতে মার্কেইং মেথড, টুল এবং কমিউনিকেশন চ্যানেল সম্পর্কে লোকালরা সম্যক অবগত হয়ে দ্রুত ডেভেলপ করে ফেলেন।

তদুপরি বাংলাদেশের পক্ষে সাউথ এশিয়ান বাজার পাওয়ার সুযোগ নেই বললেই চলে, যদি না তারা এক্সট্রিম্লি লো রেইটে বা লার্জ ডিস্কাউট অফারে কাউকে ম্যানেইজ করতে পারে। কারণ এই স্যাটেলাইটের কাভারেইজ এই অঞ্চলে অপটিমাম না। কাভারেইজ
অপটিমাম হোল ইন্দোনেশিয়া ফিলিপাইন এই এলাকায় আবার ঐ এলাকায় "এশিয়া স্যাট-৯" কমার্শিয়াল অপারেশন করছে। ফলে খুব সহজ হবে না বিদেশী কাস্টমার খুঁজে আনা। এক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক রেইট থেকে ডিস্কাউট দিয়ে হলেও ফার ইস্ট এলাকার কাস্টমার খুঁজতে হবে।

৩। এখন দেশে প্রায় ৩০টি স্যাটেলাইট চ্যানেল সম্প্রচারে আছে যারা চ্যানেল সিঙ্গাপুরসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে স্যাটেলাইট ভাড়া নিয়ে পরিচালিত হচ্ছে। এ জন্য প্রতি মাসে একটি চ্যানেলের ভাড়া বাবদ গুনতে হয় তিন থেকে ছয় হাজার মার্কিন ডলার। সব মিলিয়ে স্যাটেলাইটের ভাড়া বাবদ বছরে চ্যানেলগুলোর খরচ হয় ২০ লাখ ডলার বা প্রায় ১৭ কোটি টাকা। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট চালু হলে এই স্যাটেলাইট ভাড়া কিছু কমতে পারে। কিন্তু এই জন্য দেশীয় কাস্টমার মাইগ্রেইট করা দরকার দ্রুত। আবার যেহেতু স্যাটেলাইটের অপটিমাম কভারেইজে বাংলাদেশই নেই তাই দেশীয় টিভি ও অন্য সম্প্রচারকারী প্রতিষ্ঠান এটি কারিগরি কারণে নাও ব্যবহার করতে পারেন। (১১৯.২ পুর্ব, যা ১০২ পুর্ব হলে বা এর কিছু কম হলে এই এলাকার জন্য ভালো হত)। অন্যদিকে চাইলে যখন তখন দেশীয় কাস্টমারদের ( টিভি ব্রডকাস্টিং, ভিস্যাট, ডিটিএইচ) মাইগ্রেইট করা যাবে না, কেননা তারা বিদেশী পার্টনারদের সাথে দীর্ঘ মেয়াদী চুক্তিতে আবদ্ধ। তবে ডিটিএইচ (ডিরেক্ট টু হোম) এর নতুন বিজনেইস দাঁড়াবে।

সব মিলে দ্রুত কিভাবে বিদেশী কাস্টমার পাওয়া যায় তার দুর্নীতি হীন সঠিক চেষ্টা থাকতে হবে।

৪। ৩০ জন টেকনিক্যাল এক্সপার্টকে স্যাটেলাইট অপারেট করার জন্য ফ্রান্স থেকে ট্রেনিং দিয়ে আনা হয়েছে। সেটা একটা সঠিক পদক্ষেপ। তবে ট্রান্সপন্ডার ও তরঙ্গ (ফ্রিকুয়েন্সি) বিক্রি না হলে এই রিসোর্স নষ্ট হবে।


উল্লেখ্য, কয়েকটি বিষয়ে উপর নজর দিতে হবে!

ক। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ থেকে ইন্দোনেশিয়া ফিলিপাইনে সবচেয়ে ভাল কোয়ালিটির সেবা দেওয়া যাবে কারন এই স্যাটেলাইটের অরবিটাল পজিশন অনুযায়ী ওই দেশগুলা সুপার কোয়ালিটির সিগনাল পাবে। কেন এই বেস্ট সার্ভিং তালিকায় বাংলাদেশ নেই, তা নিয়ে উত্তর খুঁজতে হবে, বৈকি!

তবে হতে পারে,
অর্বিটাল স্লট অকুপাইড হয়ে গেছে, কেননা বাংলাদেশ এই ব্যবসায় ৫৭ তম! সময়ের কাজ সময়ে করার বোধ ও দুরদর্শিতা না থাকলে বাংলাদেশকে এভাবেই সর্বত্র পিছিয়ে পড়তে হবে।

খ। বেক্সিমকো এবং বায়ার মিডিয়া/সামিটের মত দেশীয় কোম্পানি ট্রান্সপন্ডারের ফ্রিকুয়েন্সি কিনবে বলেছে। তারা বেশ উচ্ছ্বসিত। এক্ষেত্রে নজর দিতে হবে যাতে তারা যেন কোন ধরণের অনৈতিক সুবিধা না পায়। অর্থাৎ দলীয় ব্যবসায়ীরা যাতে জনগণের ট্যাক্স ও বৈদেশিক ঋণে নির্মিত প্রকল্পে অন্যদের চেয়ে সস্তায় বা বিনা টাকায় তরঙ্গ বরাদ্দ না পায়। সেবা ও তরঙ্গ বরাদ্দে দেশীয় ব্যবসায়ীদের সবার সমান এক্সসেস নিশ্চিত করতে হবে।


কিন্তু এর আগেই, ডিরেক্ট টু হোম (ডিটিএইচ) লাইসেন্স (যেখানে নতুন বিজনেইসের সম্ভাবনা আছে) বিষয়ে ইতিমধ্যেই মহা দুর্নীতির আভাষ পাওয়া যাচ্ছে, অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে বেক্সিমকো এবং বায়ার মিডিয়া ডিটিএইচ লাইসেন্স নাকি ভিতরে ভিতরে হাতিয়ে নেয়ার চুক্তি করে ফেলেছে। বিটিয়ারসি নয় বরং বেক্সিমকো এবং সামিটের এই দুই দুর্বিত্ত গ্রুপ থেকেই বাংলাদেশী টিভি ও অন্য সম্প্রচার কোম্পানী গুলোর স্যাটেলাইট সার্ভিস কিনতে হবে বলে খোদ বিটিয়ারসি এবং স্যাটেলাইট প্রজেক্টের মুখপাত্র নিশ্চিত করছেন। যদি এটাই সত্য হয় তাইলে এই গোপন লাইসেন্সিং চুক্তি বাতিল চাই। ঠিক কি দামে তারা লাইসেন্স নিয়েছে, কিভাবে লাইসেন্স অকশন হয়েছে তার সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা দাবী করি। ঠিক কি দামে কি পরিমাণ ব্যান্ডউইথ/ডিটিএইচ লাইসেন্স তাদের দেয়া হয়েছে, কিধরণের বিডীং হয়েছে তার সুস্পষ্টতা বের করতে আদালতকে সক্রিয়া হতে হবে।
Click This Link

গ। বিদেশী মার্কেটিং এজেন্সি খোঁজা ও নিয়োগের নাম করে কমিশনের অর্থ হাতানোর যে কোন দুর্বিত্ত চেষ্টা থাকবে। এইসব বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে। বিদেশী কাস্টমারের অভাবে এটি আরেকটি "দোয়াল ল্যাপটপ" টাইপ প্রকল্প না হয়ে উঠুক তার জন্য সবার দুর্নীতি মুক্ত চেষ্টা থাক চাই।

ঘ। ইউজ কেইস হিসেবে প্রত্যন্ত অঞ্চলে টেলিকম ও ইন্টারনেট সেবার যে কথা বলা হচ্ছে তা ভ্যালিড না। স্যাটেলাইট কমিউনিকেশন কষ্ট এবং সময় দৈর্ঘ্য লোকাল টেলিকম সেবার অনুকুলে নয়। ফলে নন ভ্যালিড ইউজকেইসে যাতে সময় ও অর্থ নষ্ট না হয়। তবে ফার ইস্টের দেশ গুলোর সাথে ইন্টেলস্যাটের মাধ্যমে বর্তনামে যে আন্তঃ রাষ্ট্র ভয়েস আদান প্রদাণ হয় তাকে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটে মাইগ্রেইট করা যায় কিনা সেটা বিজনেইস ইউজ কেইস দেখা যেতে পারে।

পরিশেষে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ। বিশেষ করে সম্ভাব্য টেকনিক্যাল টিমের জন্য শুভকামনা। এই স্যাটেলাইট প্রকল্প সব দিক থেকে সফল হয়ে উঠুক।

ছবি, প্রথম আলো থেকে নেয়া।

মন্তব্য ২৫ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (২৫) মন্তব্য লিখুন

১| ১০ ই মে, ২০১৮ বিকাল ৩:২০

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: আগ্রহ ছিলো অনেক আগে থেকেই। আপনার বিজনেইস কেইসটি খুব ভালো লাগলো। অনেক তত্থ্য পেয়েছি।

তবে, স্যাটেলাইটটি'র লাইফ টাইম আর ডেপ্রিসিয়েশন কষ্ট সম্পর্কিত তথ্য যোগ করলে কেইসটি আরো সমৃদ্ধ হবে।

আর, শর্ট টার্ম টার্গেট পূরণে মার্কেটিং এজেন্সী'র সাহায্য অপরিহার্য।

আপনাকে ধন্যবাদ।

১০ ই মে, ২০১৮ বিকাল ৫:৩৮

এক নিরুদ্দেশ পথিক বলেছেন: স্যাটেলাইটটি'র লাইফ টাইম আর ডেপ্রিসিয়েশন কষ্ট সম্পর্কিত তথ্য যোগ করলে কেইসটি আরো সমৃদ্ধ হবে। - আপনার সাথে সহমত, খুব বেশি তথ্য পাবলিক ডোমেইনে নেই। আমি বিষয়টা সম্পুর্ণ করবো।

আপনাকে ধন্যবাদ।

২| ১০ ই মে, ২০১৮ বিকাল ৪:৫২

চাঁদগাজী বলেছেন:



আকাশে স্যাটেলাইট কম নেই, এখন যেভাবে ভাড়া করে চালিয়ে যাচ্ছে, সেটাই ঠিক ও সমীচীন ছিলো; যেহেতু নিজেরা কিছুই করার মত পজিশনে নেই

১০ ই মে, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩৪

এক নিরুদ্দেশ পথিক বলেছেন: এখন সিঙ্গাপুর আর ভারতীয় স্যাটেলাইট ভাড়া করে চালাচ্ছে যেগুলার স্যাটেলাইট কভারেইজ বাংলাদেশে ভাল। দেশীয় সম্প্রচারকারীদের অনেকেই হয়ত তাই কন্টিনিউ করে যাবে।

বাংলাদেশকে কভার করা অর্বিটাল স্লট এই অঞ্চলের দেশ গুলো আগেই অকুপাই করে ফেলেছ্‌ কেননা বাংলাদেশ এর ব্যবহার ও ব্যবসায় বেশ পিছিয়ে, ৫৭ তম! সময়ের কাজ সময়ে করার বোধ ও দুরদর্শিতা না থাকলে বাংলাদেশকে এভাবেই সর্বত্র পিছিয়ে পড়তে হবে।

অনেকেই বলছেন, এখন না নিলে পরে তাও পাওয়া যেত না। এর পক্ষে বলতে চাইলে আমি বলবো হতে পারে। তবে বিপক্ষে মতই বেশি-

ইন্দোনেশিয়া'র জিও লোকেশনের অক্ষাংশ (এমনকি দ্রাঘিমাংশও) বরাবর প্রথিবির অংশে স্থলভাগ খুবই কম, প্রায় সবই জল। তাই ইন্দোনেশিয়ার একক প্রয়োজন ছাড়া অন্য কোন দেশ সেখানে স্যাটেলাইট কভারেইজের তেমন আগ্রহ দেখাবে না। আর ইন্দো নেশিয়ার স্যাটেলাইট আছে।

সব মিলে, বলা যায় যা করেছেন করেছেন, এখন ডিস্কাউন্ট দিয়ে, উন্নত অপারশন সেবা দিয়ে ফার ইস্ট এলাকার কাস্টমার আনার দুর্নীতি মুক্ত উদ্যোগ নিন। নাইলে বিজনেইজ কেইস দাঁড়াবে না।

৩| ১০ ই মে, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:০১

মামুনুর রহমান খাঁন বলেছেন: অরবিটাল পজিশনটাই আমাদের ব্যাকফুটে ঠেলে দেয়ার জন্য যথেষ্ট। আমাদের দেশীয় চ্যানেলগুলোও এই স্যাটেলাইট ব্যবহার করতে আগ্রহী হবেনা ট্রান্সমিশন জটিলতার কারনে। অপটিমাল কাভারেজে যেহেতু বাংলাদেশই নেই তাই বাংলাদেশী কোন চ্যানেল চাইলেও এই স্যাটেলাইটে আপলিংক পাঠাতে জটিলতায় পড়বে। তাদের এক্সিসটিং ট্রান্সমিশন ইকুইপম্যান্ট দিয়ে এটা সম্ভব নাও হতে পারে। একই সমস্যা হবে ডাউনলিংকের ক্ষেত্রেও। এত দূর থেকে কোয়ালিটি সিগনাল পাওয়া কষ্টকর হবে যার ইফেক্ট পড়বে পিকচার ও সাউন্ড কোয়ালিটিতে।
শুরুতে ১০২ ডিগ্রীর জন্য আবেদন করা হয়েছিল কিন্তু সেটা পায়নি। আমাদের ওই পজিশনের জন্যই জোর দিয়ে চেষ্টা করা দরকার ছিল। তাতে কিছুটা সময় দেরী হলেও তা আমাদের জন্য লাভজনক হতো। দেখা যাক, ভবিষ্যতই বলবে জনগনের ট্যাক্সের টাকা জলে ঢালা হলো কিনা।

১২ ই মে, ২০১৮ রাত ৩:৩৪

এক নিরুদ্দেশ পথিক বলেছেন: স্যাটেলাইট ডেবরিস বলছে বিশ্বে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপন করেছে এমন দেশের সংখ্যা ৫৮টি। এই ৫৮ দেশের সাথে সাথে সংস্থা আছে আরো ২০টি। তবে আমাদের দেশ থেকে প্রাথমিকভাবে জানানো হচ্ছে আমরা ৪১ তম দেশ হিসেবে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপন করব। সম্ভবত এটা পুরাতন হিসেব।
৫৮ দেশ স্যাটেলাইট পাঠালেও তাদের অধিকাংশই অন্যের উপর নির্ভর করে স্যাটেলাইট উড়িয়েছে। সম্পূর্ণ নিজস্ব প্রযুক্তি কাজে লাগিয়েছে ১০ টি দেশ। তারা হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়া, চীন, ফ্রান্স, জাপান, উত্তর কোরিয়া, ভারত, ইরান এবং ইসরায়েল।

যতটুকু জানা গেছে রাশিয়ান মহাকাশ সংস্থা ইন্টারস্পুটনিকের কাছ থেকে ১৫ বছরের জন্য ২১৯ কোটি টাকায় অরবিটাল স্লট ভাড়া নিয়েছে বাংলাদেশ। চুক্তি নবায়ন করা যাবে ১৫ বছর পরপর। থ্যালেস এলাইনার সাথে চুক্তি ১৯৫১ কোটি টাকার। তবে প্রকল্পের মোট ব্যয় একেক জায়গায় একেক রকম বলা হয়েছে। ৭১ টিভি বলছে ব্যয় চার হাজার কোটি টাকা। আর চ্যানেল নাইন বলছে ২৯৬৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকার দেবে ১৩১৫ কোটি টাকা এবং সেবা নেয়া প্রতিষ্ঠান অগ্রীম দেবে ১৬৫২ কোটি টাকা। আর্থিক আলোচনায় যাওয়ার জন্য আমরা চ্যানেল নাইনের সর্বনিম্ন বাজেটটা নিচ্ছি। পৃথিবীর যত দেশই স্যাটেলাইট উড়িয়েছে তারা প্রত্যেকেই ইনিশিয়াল স্যাটেলাইট নিজের অক্ষরেখায় উড়িয়েছে। বাংলাদেশ অবস্থান করছে ৮৬-৯১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমা রেখায়। সে হিসেবে বাংলাদেশ এ অবস্থানেই স্যাটেলাইট পাওয়ার কথা। ৮৮-৯১ এ রাশিয়ার দুটি সহ মোট চারটি স্যাটেলাইট রয়েছে। তাই এখানে স্থান পাওয়া সম্ভব না। কিন্তু ৮৬-৮৮ ডিগ্রি খালি থাকার পরও মহাকাশ সংস্থা আইটিইউ বাংলাদেশকে স্লট দেয় নি।
বাংলাদেশ এরপর চেষ্টা করে ১০২ ডিগ্রিতে। সেখানে রাশিয়া, অষ্ট্রেলিয়া এবং গ্যালির ভাষ্যমতে বাংলাদেশের বন্ধু ফ্রান্সসহ বেশ কয়েকটি দেশ আপত্তি জানায়। তাদের আপত্তি ছিল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট তাদের সম্প্রচারে বিঘ্ন ঘটাবে। দুবার ধাক্কা খেয়ে বাংলাদেশ চেষ্টা করে ৬৯ ডিগ্রিতে। বিধি বাম এখানেও একই আপত্তি নিয়ে চীন, সিঙ্গাপুর,মালেশিয়া সহ আরো কয়েকটি দেশ বাংলাদেশকে তাড়িয়ে দেয়। হিসেব করে দেখা গেছে স্যাটেলাইটের মালিক ৪০ দেশের মধ্যে ২০ দেশ সরাসরি বাংলাদেশের ব্যাপারে আপত্তি জানিয়েছিল।

দ্বিমুখী দৌড়ানি খেয়ে বাংলাদেশ সবশেষে স্থান পায় ১১৯.১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমা রেখায়।
প্রশ্ন হচ্ছে ৯০ ডিগ্রির বাংলাদেশকে ১১৯.১ ডিগ্রির স্যাটেলাইট কতটা নিখুঁতভাবে কাভার করবে?

যে কোন অবস্থানে থাকলেই যদি নিখুঁত কাভার করা সম্ভব হত তবে প্রতিটা দেশ কেন নিজের অবস্থানেই স্যাটেলাইট উড়ায়?
কিংবা কোন সমস্যা না হলে বাংলাদেশের ব্যাপারে তারা আপত্তি জানাল কেন?

সবশেষে আইটিইউ কেন খালি থাকার পরও বাংলাদেশকে ৮৬-৮৮ ডিগ্রিতে স্লট দিল না?সরকার বিদেশে সেবা দিয়ে ৫০ মিলিয়ন ডলার আয়ের স্বপ্ন দেখছে। কিনবে কারা? ভুটান, নেপাল, মায়ানমার, আরব কিংবা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া।

আমরা নিজেরা এখনো সম্পূর্ণ রূপে ভারত নির্ভর। সে জায়গায় ভারত বাদ দিয়ে নেপাল ভুটান আমাদের কাছে থেকে সেবা নেবে এটা হাস্যকর যুক্তি। যুক্তিটাকে আরো হাস্যকর করার জন্য এশিয়ায় স্যাটেলাইট সংখ্যা দেখি।

ইন্দোনেশিয়া ১৩, জাপান ১৯৭, মালেশিয়া ৯/৭, পাকিস্থান ৩, ফিলিপাইন ২, থাইওয়ান ৯, আরব আমিরাত ৭, ভিয়েতনাম ৫, সিঙ্গাপুর ৪, থাইল্যান্ড ৮, সৌদি আরব ১৩, দক্ষিণ কোরিয়া ১৮, কাজাখস্থান ৫ টি, তুরষ্ক ১০, ইরান ৫, তুর্কেমেনিস্থান ১ টি।
হিসেব শেষ না।
আরব স্টেট কমিউনিকিশন অর্গানাইজেশনের রয়েছে ১৩ টি, এশিয়া স্যাটেলাইট টেলিকম কোম্পানী ৭ টি, কমনওয়েলথের ১৪৯৬ টি।

বাকি কে?
ভুটান, নেপাল, মায়ানমারের প্রতিবেশী ভারতের মাত্র ৬৭ টি (ISRO মতে ৮৪, স্যাটেলাইন ডেবরিস মতে ৭১) আর চীনের মাত্র ২৪৪ টি।

এবার আপনি বলুন, এদের এতসব স্যাটেলাইট বাদ দিয়ে সদ্য আসমানে তোলা স্যাটেলাইট থেকে কে সেবা কিনবে?
আর যদি কেউ কিনতেই যায়, ভারত চীন তাদের ব্যবসার লসকে নিশ্চয়ই নীরবে মেনে নেবে না।

বাংলাদেশ আশা করছে ভারতও আমাদের একমাত্র স্যাটেলাইট থেকে সেবা কিনবে। অথচ তাদের নিজেদেরই ৮৪ টা স্যাটেলাইট আছে। এতগুলো স্যাটেলাইট রেখে তারা আমাদের থেকে সেবা কেন কিনবে?


একটাই বিকল্প, বেশ ডিস্কাউন্ট দিয়ে ফার ইস্টের কিছু বেসরকারি গ্রাহক যদি পাওয়া যায়!! প্রতিবেশী কোন কাস্টমার পাওয়া যাবে না। দেশীয় টিভি সম্প্রচারের গ্রাহক ও পাওয়া যাবে না। দেশীয় সম্ভাবনা ডিরেক্ট টু হোম ডিশ টিভি, যা শুনছি বেক্সিমকো হাতিয়ে নিয়েছে, এখন আদালতে মামলা করে এই দুর্বিত্তপণার অবসান করতে হবে (যদি সত্য হয়ে থাকে)।

৪| ১০ ই মে, ২০১৮ রাত ৯:১১

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: সমৃদ্ধ পোষ্টে না জানা অনেক বিষয়ে পরিষ্কার ধারনা পেলাম!

দেশী নিউজ সাইটগুলো তো খালি তেল মারা নিউজে ব্যাস্ত! বাংলাদেশ যে এর আওতায়ই নেই- এই পোষ্টেই জানলাম।
আপনার পরামর্শ সব সময়ই কল্যানকর। কিন্তু নিয়ন্ত্রকেরাতো নিজের আখের নিয়ে ব্যাস্ত। সার্বিক দেশ জনতার কল্যানের কথা ভাবার সময় কই!

শুভকামনাতেই নতুন আশার পথ চলার শুভকামনা রইল

১২ ই মে, ২০১৮ রাত ৩:৩৫

এক নিরুদ্দেশ পথিক বলেছেন: শুভকামনা করা ছাড়া আর কিছু করার নাই!

৫| ১০ ই মে, ২০১৮ রাত ১০:৩৭

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: একে তো বাংলাদেশীদের দেশপ্রেম কম তার উপর ভালো সিগনালও পাবেনা। তাহলে কেন দেশী চ্যানেল ব্যবসায়ীরা ওখানে ইনভেস্ট করবে? তাহলে কেন মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে বলা হচ্ছে ট্রান্সপন্ডার বিক্রি করে টাকা উঠানো যাবে?

১২ ই মে, ২০১৮ রাত ৩:৩৫

এক নিরুদ্দেশ পথিক বলেছেন: একটু ডীফিকাল্ট হবে টাকা তুলে আনা, দেখা যাক!

৬| ১১ ই মে, ২০১৮ সকাল ১০:৫০

অর্ধ চন্দ্র বলেছেন:
ধন্যবাদ,দারুন বলেছেন।

৭| ১১ ই মে, ২০১৮ দুপুর ১২:১৩

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: বেস্ট সার্ভিং তালিকায় বাংলাদেশ নেই কন কি?
তাইলে বাংলাদেশ এই স্যাটেলাইট দিয়ে করবে কি ?
চাঁদে মুলা চাষের সম্ভাব্যতা যাচাই ?

১১ ই মে, ২০১৮ বিকাল ৩:৪৬

এক নিরুদ্দেশ পথিক বলেছেন: কথা সত্য ভাই। তবে যেসব দেশে কভারেজ ভালো সেখানে কয়েকটা ট্রান্সপন্ডার বিক্রি করতে পারলে কিছু টাকা উঠতে পারে। দেখা যাক।

৮| ১১ ই মে, ২০১৮ দুপুর ১২:৪০

উম্মু আবদুল্লাহ বলেছেন: ও আচ্ছা। এই স্যাটেলাইট বাংলাদেশ নিজে তৈরী করেনি। আমি তো ভেবে বসেছি বাংলাদেশ নিজস্ব গবেষনাগারে তৈরী করেছে।

১২ ই মে, ২০১৮ রাত ৩:৩০

এক নিরুদ্দেশ পথিক বলেছেন: আপনিও!!

৯| ১১ ই মে, ২০১৮ বিকাল ৪:০৭

শাহ আজিজ বলেছেন: প্রথম দিনে কেউ পোস্ট দিয়েছিল আর ওখানে যে ছবি ছিল তা দেখেই বোঝা যাচ্ছিল তা ইন্দোনেশিয়ার অপরের অরবিটে , আমি মন্তব্যে উল্লেখ করেছিলাম। চীন সহ দক্ষিন এশিয়ার ওপর তাদের বানিজ্যিক স্যাটেলাইট কম নয়। এটা দেখুন On 23 March 2017, Bangladesh signed the South Asia Satellite agreement with India. The agreement formally known as "Agreement between the Government of Republic of India and the Government of the People's Republic of Bangladesh concerning to orbit frequency co-ordination of 'South Asia Satellite' proposed at 48.
SATCAT no.‎: ‎42695
Launch mass‎: ‎2,230 kg (4,916 lb)
Launch date‎: ‎5 May 2017, 11:27 UTC
Names‎: ‎GSAT-9
এখানের ভাড়া বা ক্রয় কনকিছুই পরিস্কার নয়।

With the South Asia Satellite (GSAT-9) India was only offering just one — or maybe a few — transponders, but China has offered Afghanistan an entire satellite, not for free but presumably at a discounted cost. It's something like China offering the main course and India supplying the dessert. The Afghans ... আরেক বিপদ ।
চীনের একাধিক স্যাটেলাইট আছে ।
ফিলিপিন এলাকায় বছরে গড়ে ৩৪ টি টাইফুন হয় । এটার মার্কেটিং হতে পারে । বড় কথা হচ্ছে স্পারসো ( আছে কি?) আবহাওয়া জনিত ছবি পাঠাত বিনা মুল্যে এবং পাঠাচ্ছেও , তাদের কবল থেকে ব্যাবসা বাগানো নতুন একটি কোম্পানির কঠিন হবে। যদি এমন বিবেচনা করা হয় ওই এলাকায় সব পুরাতন স্যাটেলাইট তাহলে এটি ভালো উদ্যোগ । দেশের সব গাড়িতে জিপি এস করে লিঙ্ক ব্যাবহার করতে বাধ্য করলে গাড়ির তাবৎ সেবা ম্যায় কি স্পীড কন্ট্রোল পর্যন্ত করা যাবে। বাংলাদেশের বড় শহরের মানচিত্র , ট্রাফিক যোগ হলে এক বিপ্লব হবে। সবাই গাড়িতে বসেই মনিটরে তার গন্তব্যের ভিড় দেখতে পাবেন । আরও নানাবিধ কাজ করা যাবে বিশেষ করে মউজা ভিত্তিক মাপ জোক এবং আসল পরিমান হাতে করে জগাখিচুড়ি হবে না। বঙ্গোপসাগরে নজরদারি এক উল্লেখযোগ্য বিষয় হবে।

আশা করি সফল হবে তবে দাম পড়ে গেছে অনেক বেশি ।

১২ ই মে, ২০১৮ রাত ৩:২৭

এক নিরুদ্দেশ পথিক বলেছেন: নাসা বলছে মহাকাশে পাঠানো মোট স্যাটেলাইটের সংখ্যা ৬৬০০। তবে Satelite Debris এর ওয়েবসাইট মতে সংখ্যাটা গত বছর পর্যন্ত ৭১৪২। তার মধ্যে মাত্র ৫৮% অর্থাৎ প্রায় ৪০৭৭ টি ঠিক জায়গামতো পৌছাতে সক্ষম হয়। এই ৪০৭৭ টির সবকটা কিন্তু অক্ষত অবস্থায় নেই। নাসার সর্বশেষ হিসেব মতে মাত্র ১০৭১ টি এবং UNOOSA এর মতে ১৩০৫ টি স্যাটেলাইট এখন কাজ করছে।
যেখানে UNOOSA এর আগষ্ট ২০১৫ এর হিসেব মতে ৪০৭৭ স্যাটেলাইটের মধ্যে ফিরিয়ে আনা হয়েছে ১৩২৯ টি, ১৫৩৯ টি কোন না কোন ভাবে ক্ষয় হয়ে গেছে আর একদম কক্ষপথ থেকে বিচ্যুত হয়ে গেছে ১৭৫ টি।

স্যাটেলাইটের সবগুলোই যে পৃথিবীর কক্ষপথে পাঠানো এমন না। ৪৭ টি পাঠানো হয়েছে চাঁদে, ১৫ টি শুক্রে, ১৩ টি মঙ্গলে, ১ টি গ্রহানুপুঞ্জে।

২০১৪ সালে পুরো বছরে পাঠানো হয়েছিল ২৩৯ টি স্যাটেলাইট। আর ২০১৫ এর আগষ্ট পর্যন্ত পাঠানো হয়েছে ১০৬ টি।

স্যাটেলাইটের কিন্তু বেশ কিছু প্রকারভেদ আছে। নানান প্রকারভেদের কারণে এক স্যাটেলাইট দিয়ে সচরাচর একটা কাজই করা হয়। বর্তমান সময়ে এসে এক স্যাটেলাইট দিয়ে অনেক কাজ করার ইতিহাস খুবই বিরল।

স্যাটেলাইট সবচেয়ে বেশি ব্যাভার করা হয় যোগাযোগ ব্যবস্থা বা টেলিকমিউনিকেশনের কাজে ব্যবহার করা হয়। মহাকাশে পাঠানো শতকরা ৫৬% স্যাটেলাইট দেখভাল করছে দুনিয়ার সমস্ত টেলিকমিউনিকেশন। টেলিকমিউনিকেশন এর পরে আছে আবহাওয়ার কাজ। আর্থ অবজারভেশন বা আবহাওয়া সংক্রান্ত কাজে ব্যবহার করা স্যাটেলাইটের সংখ্যা মোট স্যাটেলাইটের ২৬%।
প্রযুক্তিগত উন্নয়ন বা এস্ট্রোলজিক্যাল কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে ১৪১ টি স্যাটেলাইট। নৌ সিগন্যাল কিংবা সামরিক কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে ৯১ টি স্যাটেলাইট।
স্পেস সায়েন্সের কাজে ব্যবহার করা হয় ৫% স্যাটেলাইট।

স্যাটেলাইট গুলোর মধ্যে বাণিজ্যিক স্যাটেলাইট ৫২%, সরকারী ৩০%, সামরিক ২৭%, সিভিলিয়ান (সচরাচর বিভিন্ন বড় বড় নামকরা ভার্সিটি পাঠিয়ে থাকে) ৮%।
লক্ষ্য করে দেখুন সবগুলো পার্সেন্টেজ যোগ করলে ১১৫% হয়। তার মানে এই ১৫% স্যাটেলাইট হচ্ছে বহুমূখী কাজে ব্যবহার করার জন্য।

মহাকাশে সর্বোচ্চ ৩৪৮৮ স্যাটেলাইট পাঠিয়েছে রাশিয়া। বলাই বাহুল্য, তাদের স্যাটেলাইট নষ্টও হয়েছে সবচেয়ে বেশি।
বর্তমানে সচল স্যাটেলাইটের অর্ধেকেরও বেশি স্যাটেলাইটের মালিক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পাঠিয়েছে ২১৩৭ টি স্যাটেলাইট।

স্যাটেলাইট ডেবরিস বলছে বিশ্বে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপন করেছে এমন দেশের সংখ্যা ৫৮টি। এই ৫৮ দেশের সাথে সাথে সংস্থা আছে আরো ২০টি। তবে আমাদের দেশ থেকে প্রাথমিকভাবে জানানো হচ্ছে আমরা ৪১ তম দেশ হিসেবে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপন করব। সম্ভবত এটা পুরাতন হিসেব।
৫৮ দেশ স্যাটেলাইট পাঠালেও তাদের অধিকাংশই অন্যের উপর নির্ভর করে স্যাটেলাইট উড়িয়েছে। সম্পূর্ণ নিজস্ব প্রযুক্তি কাজে লাগিয়েছে ১০ টি দেশ। তারা হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়া, চীন, ফ্রান্স, জাপান, উত্তর কোরিয়া, ভারত, ইরান এবং ইসরায়েল।

যতটুকু জানা গেছে রাশিয়ান মহাকাশ সংস্থা ইন্টারস্পুটনিকের কাছ থেকে ১৫ বছরের জন্য ২১৯ কোটি টাকায় অরবিটাল স্লট ভাড়া নিয়েছে বাংলাদেশ। চুক্তি নবায়ন করা যাবে ১৫ বছর পরপর। থ্যালেস এলাইনার সাথে চুক্তি ১৯৫১ কোটি টাকার। তবে প্রকল্পের মোট ব্যয় একেক জায়গায় একেক রকম বলা হয়েছে। ৭১ টিভি বলছে ব্যয় চার হাজার কোটি টাকা। আর চ্যানেল নাইন বলছে ২৯৬৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকার দেবে ১৩১৫ কোটি টাকা এবং সেবা নেয়া প্রতিষ্ঠান অগ্রীম দেবে ১৬৫২ কোটি টাকা। আর্থিক আলোচনায় যাওয়ার জন্য আমরা চ্যানেল নাইনের সর্বনিম্ন বাজেটটা নিচ্ছি। পৃথিবীর যত দেশই স্যাটেলাইট উড়িয়েছে তারা প্রত্যেকেই ইনিশিয়াল স্যাটেলাইট নিজের অক্ষরেখায় উড়িয়েছে। বাংলাদেশ অবস্থান করছে ৮৬-৯১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমা রেখায়। সে হিসেবে বাংলাদেশ এ অবস্থানেই স্যাটেলাইট পাওয়ার কথা। ৮৮-৯১ এ রাশিয়ার দুটি সহ মোট চারটি স্যাটেলাইট রয়েছে। তাই এখানে স্থান পাওয়া সম্ভব না। কিন্তু ৮৬-৮৮ ডিগ্রি খালি থাকার পরও মহাকাশ সংস্থা আইটিইউ বাংলাদেশকে স্লট দেয় নি।
বাংলাদেশ এরপর চেষ্টা করে ১০২ ডিগ্রিতে। সেখানে রাশিয়া, অষ্ট্রেলিয়া এবং গ্যালির ভাষ্যমতে বাংলাদেশের বন্ধু ফ্রান্সসহ বেশ কয়েকটি দেশ আপত্তি জানায়। তাদের আপত্তি ছিল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট তাদের সম্প্রচারে বিঘ্ন ঘটাবে। দুবার ধাক্কা খেয়ে বাংলাদেশ চেষ্টা করে ৬৯ ডিগ্রিতে। বিধি বাম এখানেও একই আপত্তি নিয়ে চীন, সিঙ্গাপুর,মালেশিয়া সহ আরো কয়েকটি দেশ বাংলাদেশকে তাড়িয়ে দেয়। হিসেব করে দেখা গেছে স্যাটেলাইটের মালিক ৪০ দেশের মধ্যে ২০ দেশ সরাসরি বাংলাদেশের ব্যাপারে আপত্তি জানিয়েছিল।

দ্বিমুখী দৌড়ানি খেয়ে বাংলাদেশ সবশেষে স্থান পায় ১১৯.১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমা রেখায়।
প্রশ্ন হচ্ছে ৯০ ডিগ্রির বাংলাদেশকে ১১৯.১ ডিগ্রির স্যাটেলাইট কতটা নিখুঁতভাবে কাভার করবে?

যে কোন অবস্থানে থাকলেই যদি নিখুঁত কাভার করা সম্ভব হত তবে প্রতিটা দেশ কেন নিজের অবস্থানেই স্যাটেলাইট উড়ায়?
কিংবা কোন সমস্যা না হলে বাংলাদেশের ব্যাপারে তারা আপত্তি জানাল কেন?

সবশেষে আইটিইউ কেন খালি থাকার পরও বাংলাদেশকে ৮৬-৮৮ ডিগ্রিতে স্লট দিল না?সরকার বিদেশে সেবা দিয়ে ৫০ মিলিয়ন ডলার আয়ের স্বপ্ন দেখছে। কিনবে কারা? ভুটান, নেপাল, মায়ানমার, আরব কিংবা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া।

আমরা নিজেরা এখনো সম্পূর্ণ রূপে ভারত নির্ভর। সে জায়গায় ভারত বাদ দিয়ে নেপাল ভুটান আমাদের কাছে থেকে সেবা নেবে এটা হাস্যকর যুক্তি। যুক্তিটাকে আরো হাস্যকর করার জন্য এশিয়ায় স্যাটেলাইট সংখ্যা দেখি।

ইন্দোনেশিয়া ১৩, জাপান ১৯৭, মালেশিয়া ৯/৭, পাকিস্থান ৩, ফিলিপাইন ২, থাইওয়ান ৯, আরব আমিরাত ৭, ভিয়েতনাম ৫, সিঙ্গাপুর ৪, থাইল্যান্ড ৮, সৌদি আরব ১৩, দক্ষিণ কোরিয়া ১৮, কাজাখস্থান ৫ টি, তুরষ্ক ১০, ইরান ৫, তুর্কেমেনিস্থান ১ টি।
হিসেব শেষ না।
আরব স্টেট কমিউনিকিশন অর্গানাইজেশনের রয়েছে ১৩ টি, এশিয়া স্যাটেলাইট টেলিকম কোম্পানী ৭ টি, কমনওয়েলথের ১৪৯৬ টি।

বাকি কে?
ভুটান, নেপাল, মায়ানমারের প্রতিবেশী ভারতের মাত্র ৬৭ টি (ISRO মতে ৮৪, স্যাটেলাইন ডেবরিস মতে ৭১) আর চীনের মাত্র ২৪৪ টি।

এবার আপনি বলুন, এদের এতসব স্যাটেলাইট বাদ দিয়ে সদ্য আসমানে তোলা স্যাটেলাইট থেকে কে সেবা কিনবে?
আর যদি কেউ কিনতেই যায়, ভারত চীন তাদের ব্যবসার লসকে নিশ্চয়ই নীরবে মেনে নেবে না।

বাংলাদেশ আশা করছে ভারতও আমাদের একমাত্র স্যাটেলাইট থেকে সেবা কিনবে। অথচ তাদের নিজেদেরই ৮৪ টা স্যাটেলাইট আছে। এতগুলো স্যাটেলাইট রেখে তারা আমাদের থেকে সেবা কেন কিনবে?

৩। শুরুতেই বলেছি স্যাটেলাইটের বিভিন্ন রকমফের আছে। একেকটা দিয়ে একেক কাজ করা হয়। এ জন্য মাত্র দশটা দেশ ও সংস্থা ছাড়া সবকটা দেশের রয়েছে একাধিক স্যাটেলাইট ।
দাবী করা হচ্ছে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট দিয়ে সব কাজ করা হবে।
এটা আদতে কতটুকু সম্ভব। আর যদি করাও যায় তবে কী সব কাজ নিখুঁতভাবে হবে?

উদাহরণ হিসেবে যদি ভারতকে আনি তবে তাদের ৮৪ টা স্যাটেলাইটের মধ্যে ৩৪ টা স্যাটেলাইট কেবল টেলিকমিউনিকেশনের জন্য। বাকি গুলো আর্থ আবজারভেশন, নেভিগেশন বা স্পেস সায়েন্সের জন্য আলাদা আলাদা করা। ৮৪ স্যাটেলাইটের কেবল একটির কাজ দেখানো হয়েছে কমিউনিকেশন প্লাস আবহাওয়া মনিটরিং।
তারমানে তাদের ৮৩ টা স্যাটেলাইটকে মাত্র একটা করে কাজের জন্য পাঠানো হয়েছে। আমাদেরটা দিয়ে হবে তো?https://www.facebook.com/permalink.php?story_fbid=2104991073118860&id=100008239626905&hc_location=ufi

১০| ১১ ই মে, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৫২

মামুনুর রহমান খাঁন বলেছেন: বঙ্গবন্ধু-১ একটি কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট। এটিতে ৪০ টি ট্রান্সপন্ডার ছাড়া আর কিছু নেই। টিভি ব্রডকাস্টিং ও টেলিকমিউনিকেশন ছাড়া আর কিছুই পাওয়া যাবেনা এর থেকে।
অনেকে আবহাওয়া, ঝড়ের গতিপথ, ইমেজিং, গবেষণা, জিপিএস নানাবিধ সুবিধার কথা বলছেন। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে প্রত্যেকটি ফাংশনের জন্য আলাদা ধরনের স্যাটেলাইট লাগে। যেই মোবাইলে ক্যামেরা নেই সেটা দিয়ে আপনি ছবি তুলবেন কিভাবে। বিষয়টা এমনই।

১২ ই মে, ২০১৮ রাত ৩:২৩

এক নিরুদ্দেশ পথিক বলেছেন: বঙ্গবন্ধু-১ একটি কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট। এটিতে ৪০ টি ট্রান্সপন্ডার ছাড়া আর কিছু নেই। টিভি ব্রডকাস্টিং ও টেলিকমিউনিকেশন ছাড়া আর কিছুই পাওয়া যাবেনা এর থেকে।

অনেকে আবহাওয়া, ঝড়ের গতিপথ, ইমেজিং, গবেষণা, জিপিএস নানাবিধ সুবিধার কথা বলছেন। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে প্রত্যেকটি ফাংশনের জন্য আলাদা ধরনের স্যাটেলাইট লাগে।


আপনার বক্তব্য সঠিক। বাংলাদেশ আবহাওয়া বিষয়ে ভারতীয় স্যাটেলাইট ব্যবহার করে, এই নিয়ে একটা চুক্তি আছে।

১১| ১১ ই মে, ২০১৮ রাত ৮:৩২

রাজীব নুর বলেছেন: পোষ্ট টির জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

১২ ই মে, ২০১৮ রাত ৩:২৩

এক নিরুদ্দেশ পথিক বলেছেন: জ্বি ভাই, পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

১২| ১২ ই মে, ২০১৮ ভোর ৬:১১

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: বোঝা গেলো বাংলাদেশ সরকারের টাকা পয়সার মোটেও অভাব নাই - ৩/৪ হাজার কোটি টাকা তো কিছুই নয় (অর্থমন্ত্রী তো আগেই বলেই দিয়েছেন) | ক্ষমতাসীন নেতৃত্ব এবং আমলাদের ভাষ্যে এই স্যাটেলাইটের পিছনে টাকাপয়সা খরচের মূল উদ্দ্যেশ্য হলো এর মাধ্যমে আরো অধিক সাশ্রয় এবং বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন |

খুবই ভালো কথা | এখন যদি সরকার মহোদয় কক্সবাজারকে একটি আন্তর্জাতিক মানের পর্যটন সিটিতে রূপান্তরিত করার জন্য আরো কয়েক হাজার কোটি টাকা খরচ করে অবকাঠামোর (বিমান বন্দর, রানওয়ে, রাস্তাঘাট, সৈকত, ইত্যাদি) উন্নয়ন করে মনোনিবেশ করেন তবে বাংলাদেশের বিপুল বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের আরেকটি খাতের সম্ভাবনা দেখা যেতে পারে | এর পূর্ব শর্ত হিসাবে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন, পুলিশ, কাস্টম, সিভিল এভিয়েশন সহ সকল পর্যায়ে সৎ এবং দক্ষ কর্মকর্তাদের পোস্টিং দিয়ে পর্যটনের মডেল সিটি হিসাবে গড়ে তোলার আন্তরিকতার প্রদর্শনের সুযোগও কিন্তু এই ধনকুবের সরকারের আছে |

১৩| ১২ ই মে, ২০১৮ সকাল ৭:১২

শাহ আজিজ বলেছেন: একটি দুর্দমনীয় খায়েশ পূর্ণ হল বাপের নাম আকাশে তুলে।

@নিরুদ্দেশ পথিক @ মিজানুর রহমান খান অনেক ধন্যবাদ বিষদ আলোচনা করে বিষয়টিকে স্বচ্ছতায় আনার জন্য।

১৪| ১৪ ই মে, ২০১৮ বিকাল ৩:৫৫

গড়ল বলেছেন: আপনি যেহেতু তড়িৎ প্রকৌশলী ভাল করে জানেন যে ট্রান্সপন্ডার সেন্ডারের সিগন্যাল গ্রহন করে ও তা অ্যাম্পলিফাই (বিবর্ধন) করে আবার ফেরত পাঠায় যাতে বহু সংখ্যক গ্রাগক ঐ একই সিগন্যাল গ্রহন করেতে পারে। অনেকটা টিভি বা রেডিও রিলে ষ্টেশনের মত। কিন্তু টেলিযোগাযোগের জন্য ট্রান্সিভার দরকার হয়। অতএব এটা শুধুই টিভি ব্রডকাষ্টিং স্যাটেলাইট এবং সেক্ষেত্রেও আমাদের টিভি চ্যানেলগুলোর বাধাগুলোতো আপনি বলেছেনই। অবশেষে এটা একটা লস প্রজেক্ট, অথচ সরকার কিন্তু ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয়ের যে তিন ছাত্র ন্যানস্যাটেলাইট বানাল এবং নাসা সেটা উৎক্ষেপনও করল তাদের কোন মূল্যায়ন করল না। ওটাই ছিল বাংলাদেশের জন্য আদর্শ মডেল। ইতিমধ্যে নাকি আফ্রিকার কিছু দেশ ন্যানস্যাটেলাইট নিয়ে আগ্রহ দেখিয়েছে। বাংলাদেশ একটা সম্ভবনাময় খাত হারাচ্ছে আবার।

১৫| ১৭ ই মে, ২০১৮ বিকাল ৪:২৭

হাঙ্গামা বলেছেন: তাহলে খালি গর্ব করেই দিনাতিপাত করা ছাড়া কি করার আছে?
দেখা যাক স্যাটেলাইটের কিচ্ছা আর কতদুর গড়ায় !

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.