নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

DEATH IS BETTER THAN DISGRACE

রসায়ন

রসায়ন › বিস্তারিত পোস্টঃ

ইহুদি ও ফিলিস্তিন | অনুসন্ধান পোস্ট

১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৪:০১

একজন ভারতীয়ের সাথে ধর্ম নিয়ে তর্ক করছিলাম ইমেইলে । বলছিলাম ভারতের ব্যবসা বাণিজ্য সব মুসলিম দেশের সাথে , তার নিজের দেশেও বিপুল মুসলিমের বাস এসত্বেও কেন তারা ইজরায়েল এর সাথে হাত মিলিয়ে কাজ করে ? ইজরাইলের দখলদারিত্ব ও অত্যাচার ফিলিস্তিনের জনগণের উপরে তাও কেন ভারত ইজরায়েল এর সমর্থক।

উত্তরে সে নিন্মোক্ত কথাটি বলেছে। এর উত্তরে কি বলা যায়। এই বিষয়ে জানাশোনারা কিছু বলুন।





মুসলিমরা বলে ১৯৪৭ সালে যখন ইহুদিদের ইউরোপ ও আমেরিকা থেকে তাড়িয়ে দেয়া হয় তখন ফিলিস্তিনের জনগণ তাদের স্বাগত জানিয়েছিলো ও আশ্রয় দিয়েছিলো । আর বর্তমানে এই ইহুদিরা অকৃতজ্ঞের মতো ফিলিস্তিনের জনগণের ওপর হত্যাযজ্ঞ ও নির্যাতন চালাচ্ছে, তাদের জায়গা জমি দখল করে নিচ্ছে ।  



এই ঘটনার সাথে ইসলামী আচরণের সম্পূর্ন মিল পাওয়া যায় ।



ইসলাম অনুযায়ী মক্কার পৌত্তলিকরা যখন মোহাম্মদ সা.  ও ইসলামের অনুসারীদের অত্যাচারের মাত্রা চরম পর্যায়ে নিয়ে যায় তখন মোহাম্মদ সা. তার দলবল নিয়ে মদিনায় চলে যায়।  তখন মদিনার লোকজনও মোহাম্মদ সা. ও তার অনুসারীদের আশ্রয় দিয়েছিল । কিন্তু পরবর্তীতে এই নবী সা. ও মুসলিমরা কিন্তু এই মদিনার ইহুদীদের উপর অত্যাচার শুরু করে ও হত্যাযজ্ঞ চালায়(যেমন মদিনার বানু কোরাইজার ৭০০ ইহুদি পুরুষকে একযোগে হত্যা করা হয়) । একসময় যে মদিনা ছিল ইহুদি অধ্যুষিত সেখান থেকে সব ইহুদিদের বিতাড়িত করে মুসলিমরা।  



এটা কি কোন অন্যায় না ???



আজকে ইজরাইল তো মুসলিমদের শিখিয়ে দেয়া কাজটাই করছে।  


মন্তব্য ৪২ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (৪২) মন্তব্য লিখুন

১| ১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৪:২০

সৈয়দ ইসলাম বলেছেন: রসায়ন,
ইতিহাস সম্পর্কে আপনার অজ্ঞতা থাকা সত্ত্বেও এইসব নিয়ে কেন আজাইরা বেজাল তৈরি করছেন। দয়া করে ইতিহাস জানুন, তারপর বাকওয়াস করুন। দেখুন, ইতিহাস এই সবের সুস্পষ্ট উত্তর দিয়ে দিয়েছে। আপনাকে প্রথমে জানতে হবে, তারপর কথা বলতে হবে। এরকম ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করবেন না; দয়া করে।

১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৪

রসায়ন বলেছেন: উত্তর জানা থাকলে দিন আর বানান শুদ্ধ করে লিখুন।

২| ১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৪:২৬

কাইকর বলেছেন: সৈয়দ ভাইয়ের সাথে সহমত পোষণ করছি।

১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৪

রসায়ন বলেছেন: নিজের মাথা দিয়ে কিছু লিখুন। উনি পোস্ট না পড়েই মন্তব্য করেছেন ।

৩| ১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৪:৩৬

রাজীব নুর বলেছেন: ধর্ম নিয়ে তর্ক করা বাদ দিন।
অযথা ঝামেলায় জড়াবেন না।

১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৫

রসায়ন বলেছেন: তর্ক ছাড়তে পারবো না ।

৪| ১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৪:৩৮

রেযা খান বলেছেন: মুসলিমরা যদি এতো জালেম হয়, তাকে জিজ্ঞেস করুন ভারতে মুসলিমদের প্রায় দুশত বছরের অধিক শাসন ছিলো, তারপরও ভারতে কেন এতো হিন্দু??

১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৭

রসায়ন বলেছেন: এটা একটা ভালো পয়েন্ট। তাকে এই কথাটা বলেছিলাম। সে উত্তরে বললো , পুরো আরব প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর ইউরোপের কলোনি ছিল , ভারতীয় উপমহাদেশ ব্রিটিশ কলোনি ছিল । তাহলে ব্রিটিশরা যদি অত্যাচারী হয় তবে আরবে বা ভারতীয় উপমহাদেশে খ্রিস্টান বাড়লো না কেন !

৫| ১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৪:৩৮

চাঁদগাজী বলেছেন:



প্যালেষ্টাইনে যখন ইহুদী এসেছে, সেটা ইংরেজদের কলোনী ছিল, মুসলমানেরা তাদের সাহায্য করেনি।

১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৭

রসায়ন বলেছেন: বিষয়টা নিয়ে স্টাডি করে দেখি।

৬| ১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:১৪

সিগন্যাস বলেছেন: চাদঁগাজী সাহেব ঠিক বলেছেন ১৯৪৭ সালে প্যালেস্টাইন ব্রিটিশ কলোনি ছিল।ব্রিটিশরাই ইহুদিদের ওইখানে নিয়ে যায়।

১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:৫৮

রসায়ন বলেছেন: এটা নিয়ে পড়াশোনা করে দেখতে হবে।

৭| ১৩ ই জুন, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৮

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: শ্রদ্ধেয় একটা বিতর্কিত বিষয়কে খুব সরলীকরণ করলে আসল বিষয়টাই যেমন বাদ যায়, আপনার আজকের পোষ্টটি তেমন লাগলো। অবশ্য একটু সমালোচনার অধিকার যদি পাঠকের থেকে থাকে। ইহুদিদের প্যালেস্টাইন ভূখন্ডে স্বাগত জানানো ছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্বের সময়ে আমেরিকা ও ইংলন্ডে বসবাসকারী ইহুদী ব্যবসায়ীদের পুরষ্কার স্বরুপ। জার্মানি থেকে ইহুদী বিতাড়নের পর দরকার ছিল ঐ সম্প্রদায়েরর পুনর্বাসন। যেটা ইউরোপ বা আমেরিকায় সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে সফ্ট কর্নার হিসাবে পছন্দ হল প্যালেস্টাইন। আসলে এখানে বিস্তারিত আলোচনার সুযোগ নেই। আমি কেবল একটি কারন তুলে ধরেছি মাত্র।


শুভ কামনা রইল।

১৩ ই জুন, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০০

রসায়ন বলেছেন: প্যালেস্টাইন ভূখণ্ডে ইহুদিদের স্বাগত জানালো কারা , ফিলিস্তিননিরা নাকি পশ্চিমারা ?

৮| ১৩ ই জুন, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনার পোষ্ট লিলিপুটিয়ান ধরণের।

১৩ ই জুন, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২৬

রসায়ন বলেছেন: যা........ভালো লাগল :P


***জেনে

৯| ১৩ ই জুন, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২৮

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: @রসায়ন - আপনি না জানার ভান করে একের পর এক ইসলাম বিষয়ক পোস্ট দিচ্ছেন তাতে মনে হয় আপনি রিভার্স গেম খেলছেন! কারণ, প্রকৃত মুসলমানরা এসব নিয়ে বিতর্ক করে না...

১৩ ই জুন, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪০

রসায়ন বলেছেন: প্রকৃত মুসলমান বিতর্ক করবে না কেন ? কোন বিষয়ে ডাউট থাকলে অবশ্যই বিতর্ক করা বা জানা উচিৎ । ইসলাম তো তাই বলে। কোরআনে আল্লাহ স্পষ্ট বলছেন, যারা জানে আর যারা জানে না তারা সমান নয় , এছাড়া আল্লাহ আরো বলেছেন , জ্ঞানীদের কাছে যেয়ে জ্ঞান অনুসন্ধান করতে।


টিপিক্যাল মুসলিমরা তো ইসলাম বিষয়ে জানার বা পড়াশোনার দায়িত্ব হুজুরদের উপরে ছেড়ে দিয়েছে , আর নিজের মাঝে মাঝে টুকটাক নামাজ রোযা , দান-খয়রাত করে করে ইসলামী দায়িত্ব পালন করছে। আমি তাদের মতো না।

আমি নিজে কোরআন হাদিস নিয়ে পড়ি ও এসব অন্যদের সাথে আলোচনা করি। যেসব বিষয়ে আমার ক্লিয়ার ধারণা হয় তার উপরে কোরআন হাদিসের আলোকে পোস্ট দেই। যেসব বিষয়ে প্রশ্ন বা ডাউট আছে তা শেয়ার করে জেনে নেয়ার চেষ্টা করি।


প্রকৃত মুসলিম বলতে আপনি যদি কেবল অন্ধভাবে জি হুজুর , জে হুজুর , হক মাওয়া , সিন্নি খাওয়া এসব বুঝে থাকেন তবে আমি তা নই ।

ধন্যবাদ ।

১০| ১৩ ই জুন, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৫৩

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: ঈমানের ৭ টি প্রধান বিষয়ের মধ্যে ১ টি হল, আল্লাহর প্রেরিত রাসূলের ওপর ঈমান আনা। এখানে কোন প্রশ্ন বা সন্দেহ করা যাবে না। মিরাজের ঘটনা যখন কেউ বিশ্বাস করছিল না বা সন্দেহ পোষণ করছিল তখন হযরত আবু বকর (রাঃ)-এর কাছে গিয়ে কেউ জানতে চাইল, এ ঘটনা কি সম্ভব? উনি জিজ্ঞেস করলেন, কে বলেছে? তারা বলল, রাসুল (সাঃ)। উনি(আবু বকর) বলে দিলেন, তাহলে আমি বিশ্বাস করি এই ঘটনা।
মদীনায় ৭০০ ইহুদি মারার ঘটনা আমি জানি না। তবে যদি সেটা হয়েও থাকে, তাহলে আমি বিশ্বাস করি নিশ্চয়ই কোন কারণ ছিল। ধন্যবাদ...

১৩ ই জুন, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:১৯

রসায়ন বলেছেন: ইসলামের পাঁচ ভিত্তি বিশ্বাস এটা ১০০% ঠিক । এছাড়া অনেক বিষয় আছে যেগুলো অন্ধভাবে বিশ্বাস করার মতো না । আপনি যদি আপনার ধর্ম সম্পর্কে নাই জানেন তাহলে একজন নাস্তিক বা বিধর্মী যখন আপনাকে আপনার ইসলাম নিয়ে প্রশ্ন করবে তখন আপনি প্রথমবারের মতো সেসব শুনে আকাশ থেকে পড়বেন এবং ঈমান নড়বড়ে হয়ে যাবে। কাজেই অবশ্যই এসব নিয়ে জানা , তর্ক বিতর্ক করার দরকার আছে ।

১১| ১৩ ই জুন, ২০১৮ রাত ৮:০০

রিফাত হোসেন বলেছেন: ৫-৬ বছর আগে ঐ গোত্রের শুধু পুরুষ হত্যা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনাসহ পোস্ট পড়েছিলাম। পুরোটা মনে নাই, যতটুকু মনে আছে ইহুদী ঐ গোত্রের লোকেরা কয়েকবার ষড়যন্ত্র করেছিল। তবে বারতি অত্যাচার মনে হয় করে নাই, করার কথাও না।

আপনি একটু গুগল করুন।

১৩ ই জুন, ২০১৮ রাত ৮:০৯

রসায়ন বলেছেন: হুম ।

১২| ১৩ ই জুন, ২০১৮ রাত ১০:১৩

কানিজ রিনা বলেছেন: বিচার মানি তালগাছের সাথে একমত।
ইহুদীরা কি জিনিস তাতো ফিলিস্তিন
দখল দারীত্ব আর কতকাল গোটা বিশ্ব
অশান্তির কারন নিজেই নিজের কাছে
প্রশ্ন করুন। হয়ত এমন এক সময় আসবে
ইহুদীরা ইসরাইল থেকে বিতারিত হয়ে যাবে।
আর বলতে হয় হিটলারের পরিকল্পনা ছিল
পৃথিবী থেকে ইহুদী নির্বংশ করে দেয়া।
হিটলারের পরিকল্পনা মনে হয় ঠিক ছিল।

১৪ ই জুন, ২০১৮ রাত ১২:৫৯

রসায়ন বলেছেন: অযৌক্তিক কথা বলবেন না । গণহত্যা কোনভাবেই সমর্থন যোগ্য না। এখন যে মায়ানমারে মানুষ হত্যা করা হচ্ছে সেটাকেও এক গ্রূপ জঙ্গি দমন বলে সুচিকে বাহবা দিচ্ছে। আপনি যেমন ইহুদিদের মারার জন্য হিটলারের উপরে খুশি তেমনি তারাও রোহিঙ্গা মারার জন্য সূচি আর মিয়ানমার সেনাপ্রধান এর উপরে খুশি । দুটোই অমানবিক ও বেকুবের মতো কাজ ।

১৩| ১৩ ই জুন, ২০১৮ রাত ১০:৩২

বক বলেছেন: আংশিক কপি করে দিলাম এখান থেকে

বানু কুরাইযা গোত্রের ইতিহাস ইদানিং বাংলা ব্লগ-জগতে জনপ্রিয়তা পাওয়া শুরু করেছে; কয়েক বছর আগেও ব্লগে কিংবা মিডিয়াগুলোতে এর প্রতি উৎসাহ ছিল না বললেই চলে। প্রায় সব লেখা কিংবা মন্তব্যগুলোর ধরণ একই রকমের। তাদের অভিযোগ, “নিরপরাধ বানু কুরাইযা ইহুদী গোত্রের সব পুরুষদের বিনা কারণে কেবল ইহুদী-বিদ্বেষীতার কারণে মুহাম্মাদ (সাঃ) হত্যা করেন।” তাদের উত্থাপিত এই অভিযোগগুলো খতিয়ে দেখার জন্যে এ লেখার প্রয়াস। তবে শুরু করার আগে অভিযোগকারীদের কিছু প্রাক অসামঞ্জস্যতা যা চোখে পড়েছে তা নিয়ে দু-কথা বলে নিই।

বানু কুরাইযা গোত্রের হত্যার ব্যথায় ব্যথাতুর বাংলার এই প্রতিবাদী, বিবেকবান লেখকদের লেখাতে সত্যি সত্যিই অগ্নি-স্ফুলিঙ্গ দেখা যায়। এমনিতে বাংলাদেশের সীমানাতে যাদের বসবাস তাদের সাথে ইহুদীদের ব্যক্তিগত পরিচিতি থাকার সম্ভবনা নেই বললেই চলে। তবে ব্লগের বিবেক বলে পরিচয় দেয়া কতিপয় মহান লেখকদের কলমের ডগা ফেটে বের হওয়া প্রতিবাদী শোণিত ধারায় লেখা ইহুদীদের বিরুদ্ধে ঘটা বানু কুরাইযা’র হত্যাকাণ্ডের পৌনঃপুনিক উল্লেখ অনেকেরই মাথাকে হয়ত এমনভাবেই ধোলাই করতে সক্ষম হয়েছে যে যেকোনো বিবেকবান লোকেরই মনে হতে পারে, “নিশ্চয়ই বানু কুরাইযার ইতিহাস ইহুদী জাতির বিরূদ্ধে ঘটে যাওয়া অন্যতম বৃহৎ হত্যাকাণ্ডই হবে।” মানবতাবাদী ও অন্যায়ের সোচ্চার প্রতিবাদী এহেন বাংলা লেখকদের লেখা পড়ে মোহাবিষ্ট আমারও ধারণা ছিল, ইহুদী জাতির বিরুদ্ধে ঘটা ইতিহাসের সকল অন্যায়ের তালিকা যদি পাওয়া যায় তাতে তো অবশ্যই বানু কুরাইযা থাকবে – এর পরে না হয় দেখা যাবে অন্যান্য ইহুদী-বিদ্বেষী অন্যায়ের সাপেক্ষে বানু কুরাইযার তুলনামূলক অবস্থানটা কোথায়! সামান্য গবেষণাতেই দেখা যায়, ইহুদী জাতির ওপর ঘটে যাওয়া প্রায় সকল অন্যায় গণহত্যা ও ধ্বংসের যেসব সুত্র পাওয়া যায় সেখানে বানু কুরাইযার ঘটনার অনুপস্থিতি (সূত্র: ১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬)। অবশ্য রবার্ট স্পেন্সর, ফ্রাঙ্ক গ্যাফনি কিংবা ড্যানিয়েল পাইপস এর মতো পেশাজীবি ইসলাম বিদ্বেষী ও তাদের চ্যালা চামুণ্ডাদের সুবাদে কিছু জায়গাতে হয়ত বানু কুরাইযা’র ঘটনাকে ইহুদী বিদ্বেষ হিসেবে পাওয়া যেতে পারে – তবে নিরপেক্ষ বিশ্লেষণে ঐসব তালিকা বাদ পড়বে সবার আগে।

মোটামুটিভাবে গ্রহণযোগ্য ও নিরপেক্ষ আন্তর্জালিক সূত্র, যেমন উইকি’র Timeline of anti-Semitism ও History of anti-Semitism, কিংবা ADL (Anti Defamation League) এর An Abridged History of Anti-Semitism এর তালিকাতে ইহুদীদের বিরূদ্ধে ঘটে যাওয়া হাজার বছরের ইতিহাসে’র নথিতেও নেই বানু কুরাইযা’র ঘটনা। এই তালিকাগুলোতে বানু কুরাইযার ঘটনা কেন নেই, তার কারণ অনুমান করতে তেমন আয়াস পেতে হয়না। কারণটা এই যে, বানু কুরাইযার ঘটনা নির্বিচার গণহত্যা নয়, বরং যুদ্ধ-প্রাক্কালে ঘটা বিশ্বাসঘাতকতার স্বাভাবিক পরিণতি। অথচ ব্লগের বিবেকবান, প্রতিবাদী ও অহর্নিশ নিজেদের পক্ষপাতহীন, আপোষহীণ, মানবতার অগ্রদল বলে জানান দিয়ে যাওয়া এই সুশীল-গোষ্ঠীকে কোনোদিনও দেখিনি ষাট লক্ষাধিক নিরীহ ইহুদী নিধনের নৃশংসতার বিরূদ্ধে ২-লাইনের লেখাও লিখতে। দেখিনি টাইটাসের জেরুসালেম আক্রমণে অকারণে এগারো লক্ষ কিংবা ক্রুসেডে মুসলিমদের পাশাপাশি লক্ষ-লক্ষ ইহুদী নিধনের জন্যে দু’কলম স্মারক। ‘মানবতাই ধর্ম’ বুলি আওড়ানো এসব ব্লগ-বুদ্ধিজীবীদের মানবতা কোনো কারণে আঁটকে থাকে কেবল বানু কুরাইযাতে কয়েক’শ ইহুদীর প্রাণদণ্ড দেয়ার তথাকথিত নৃশংসতায়। অথচ তার চাইতে হাজার-লক্ষ গুণ বড় ও আসল গণহত্যার কথা তাদের মানবতার এন্টেনাতে কখনো ধরা পড়েনা। ইহুদী গণহত্যার অসংখ্য উদাহরণ থাকা সত্ত্বেও দেয়া সূত্রগুলোতে না থাকা বানু কুরাইযার ঘটনাকে লাইম লাইটে নিয়ে আসা এহেন কপট প্রতিবাদী, মানবতাবাদীদের মায়াকান্নাকে তাই কংস মামার কুম্ভিরাশ্রু বিসর্জননের বেশী কিছু বলতে পারছি না বলে দুঃখিত।

তথাকথিত এই সুশীল গোষ্ঠীর কাছে মুসলিমরা চক্ষুশূল হলেও, তাদের অন্তর্জ্বালার মূল কারণ রাসুল (সাঃ)। তারা চলনে-বলনে, শ্বাসে-প্রশ্বাসে, অহর্নিশ একনিষ্ঠ ও একাগ্র চিত্তে নিয়োজিত আছেন ইসলাম ও বিশেষত এর নবীকে (সাঃ) হেয় প্রতিপন্ন করায় অভিপ্রায়ে। আর মানবতার লেবাসে মোড়ানো এসব সুশীলরা নিরপেক্ষতার লেন্সে কখনো ঘটনার বিশ্লেষণে প্রত্যয়ী হননা, বরং উনারা ধ্যান ও জ্ঞান অর্জন করে থাকেন উইকি ইসলাম, ইসলাম ওয়াচ জাতীয় মার্কামারা ইসলাম বিদ্বেষী ওয়েবসাইট থেকে। এরই ফলস্বরূপ ইসলামের নবীর বিরুদ্ধে এরা অ্যান্টি-সেমিটিজমের অভিযোগ আনেন, অথচ অ্যান্টি-সেমিটিজমের ঘটনাগুলোর বিশদ তালিকার মধ্যেই বানু কুরাইযা দেখা যায়না।

অ্যান্টি-সেমিটিজমের অভিযোগের বাইরেও বাংলা ব্লগের এই স্বঘোষিত, স্বনির্বাচিত নব্য ইসলাম বিশেষজ্ঞদের বানু কুরাইযা সম্পর্কে যে কয়টা অভিযোগ দেখা যায় তা হলো,

১। বানু কুরাইযা গোত্র নিরপরাধ।

২। বানু কুরাইযার সকল পুরুষদের হত্যা করা হয়।

৩। কুরাইযা গোত্রের প্রায় ৭০০ থেকে ৯০০ পুরুষকে হত্যা করা হয়।

এই লেখাতে মূলত এই ৩টি সহ আরো কিছু আনুষঙ্গিক দিকে আলোকপাত করার ইচ্ছে আছে।

২. সূত্র ও নিয়মানুগ

অন্যান্য ব্লগ বুদ্ধিজীবীদের মতো নির্মোহ ঘটনার বিশ্লেষণ আমি করবোনা, তা আগেই বলে রাখি। আমি মুসলিম; আর তাই পূর্বসূরী ইসলামী বিশেষজ্ঞের দেখানো পথেই আমি আমার বিশ্লেষণ নিয়ে এগিয়ে যাবো। আর সে সূত্র হচ্ছে কোরান ও সহীহ হাদীস। বোখারী ও মুসলিমের মতো অধিকতর বিশ্বাসযোগ্য হাদীস বইয়ের পাশাপাশি অন্যান্য হাদীস গ্রন্থ থেকেও সংশ্লিষ্ট ঘটনাগুলো আসবে। আর কোরান-হাদীসের পাশাপাশি সীরাতের বইগুলোও আলোচনায় থাকবে, তবে কোরান-হাদীসের সাথে সাংঘর্ষিক কোনো ঘটনা সীরাতে থাকলে আমরা তা সত্যি বলে গ্রহণ করবোনা। কোরান, হাদীসের সাথে সাংঘর্ষিক না হলে সীরাতের বর্ননা গ্রহণ করা যেতে পারে, তবে অবশ্যই সেক্ষেত্রে বর্ণিত ঘটনাটি যৌক্তিক বিশ্লেষণের আওতায় আসবে; আরো আসবে সে সম্পর্কে আসা পূর্বসূরীদের মতামতও।

৩. সীরাত থেকে বানু কুরাইযার সংক্ষিপ্ত ঘটনা
রাসুল (সাঃ) মদিনাতে আসার পরে মুসলিম, ইহুদী ও পৌত্তলিকদের নিয়ে এক অভিনব সাধারণতন্ত্র গড়ে তোলেন। বিপরীত চিন্তা, রুচি ও ধর্মাভাব সম্পন্ন মুসলিম, ইহুদী ও পৌত্তলিকদের দেশের সাধারণ স্বার্থরক্ষা ও মঙ্গলের জন্যে একটি রাজনৈতিক জাতিতে পরিণত করার জন্যে তিনি একটি সনদ তৈরী করেন। সনদে তিন পক্ষই স্বাক্ষর করেন। এই অভিনব ও অশ্রুতপূর্ব চুক্তি বা সনদের কিছু ধারা নীচে দেয়া হলো-

১। ইহুদী ও মুসলিমরা এক জাতি (রাষ্ট্রীক কাঠামোর মধ্যে বসবাসকারী ‘জাতি’)
২। এই সনদের অন্তর্ভূক্ত কোন গোত্র শত্রু দ্বারা আক্রান্ত হলে সবার সমবেত শক্তি নিয়ে তা প্রতিহত করতে হবে।
৩। কেউ কোরাইশদের সাথে কোনো রকমের গুপ্ত সন্ধিসূত্রে আবদ্ধ হবে না ও তাদের সঙ্কল্পকে সাহায্য করবে না।
৪। মদিনা আক্রান্ত হলে দেশের স্বাধীনতা রক্ষার জন্যে সবাই মিলে যুদ্ধ করবে এবং সম্প্রদায়গুলো নিজেদের যুদ্ধব্যয় নিজেরা বহন করবে।
৫। ইহুদী-মুসলিম সহ চুক্তিবদ্ধ সকল সম্প্রদায় স্বাধীনভাবে নিজ নিজ ধর্মকর্ম পালন করবে, কেউ কারুর ধর্ম-স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করবে না।

… ইত্যাদি।

মদিনার সাধারণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হলে চুক্তি/সন্ধি অনুসারে কুরাইযা সহ সব ইহুদী গোত্র প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিল যে তারা মুসলিমদের কোন শত্রুকে কোনরকম সাহায্য করবেনা। কোন বহিঃশত্রু মদিনা আক্রমণ করলে তারাও মুসলিমদের মতো স্বদেশ রক্ষার্থে নিজেদের সমস্ত শক্তি প্রয়োগ করবে। কিন্তু সন্ধির শর্ত ও স্বদেশের স্বাধীনতা ও সম্মানকে উপেক্ষা করে কুরাইযা সহ বাকী ইহুদী গোত্র একাধিকবার শত্রুপক্ষের সাথে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। বানু কুরাইজার ইহুদীদের এই অপরাধ আগে অন্তত একবার ক্ষমা করে দেয়া হয়। ভেঙ্গে ফেলা প্রতিজ্ঞাপত্র উহুদ যুদ্ধের পরে কুরাইযা গোত্র পুনর্বহাল করে এই শর্তে যে, এরপরে আর কখনোই তারা মুসলিমদের শত্রুদের সাথে কোন রকম যোগাযোগ ও সাহায্য করবেনা। ফলে তখন তাদের বিনাদণ্ডে ও বিনা ক্ষতিপূরণে মাফ করে দেয়া হয়। কিন্তু খন্দকের যুদ্ধের প্রাক্কালে প্রথম সুযোগ পাওয়া মাত্রই তারা এই সন্ধিপত্র ছিঁড়ে ফেলে শত্রুদলে যোগদান করে। কুরাইযা গোত্রের এই বিদ্রোহের খবর পাওয়া মাত্র আওস ও খাযরায গোত্রের প্রধান সাদ বিন উবাদা (রাঃ) ও সাদ বিন মুয়াদ (রাঃ) সহ আর কিছু সাহাবীকে মুহাম্মাদ (সাঃ) খন্দকের প্রান্ত থেকে কুরাইযা পল্লীতে পাঠান। তাঁরা কুরাইযা পল্লীতে উপস্থিত হয়ে আগের পৌণঃপুনিক চুক্তি ভাঙ্গার কথা তুলে ধরেন ও তাদেরকে এই বিশ্বাসঘাতকতার পরিণাম ভালোভাবে বুঝিয়ে দেন। কিন্তু আহযাবে মুসলিমদের পরাজয় সুনিশ্চিত ও খায়বার থেকেও ইহুদী দল মদিনা আক্রমণে আসছে – এই দুই বিশ্বাসের উপর ভিত্তি করে তারা উল্টা মুসলিমদের গালাগালি করা শুরু করে দেয়। তাদের দলপতি কাব বিন আসাদ বলে ওঠে, “মোহাম্মদ কে? আমরা তাকে চিনি না। আমরা কোনো সন্ধিপত্রের ধার ধারি না। তোমরা চলে যাও।”

এরপরে তারা খন্দকের যুদ্ধে যোগদান করে। আর কুরাইযা বাহিনীর হাত থেকে মদিনার নারী ও শিশুদের রক্ষা করার জন্যে একদল মুসলিমকে মদিনার দক্ষিণ দিকে নিয়োজিত করা হয়েছিল।

বানু নাদির গোত্রের হোয়াই-বিন-আখতাব মদিনা থেকে বিতাড়িত হবার পরে খাইবারে আসন গেড়ে বসে। সে কুরাইযা গোত্র প্রধান কাব-বিন-আসাদকে বোঝাতে সক্ষম হয় যে আরবের সকল পৌত্তলিক এখন একত্রিত। গাতাফান আর নজদের পৌত্তলিকরাও সাথে যোগ দিয়েছে। আর ঐদিকে খাইবার থেকে ইহুদীদের কয়েক হাজার সদস্যের বাহিনী খুব তাড়াতাড়ি এসে যোগ দিতে যাচ্ছে আহযাবে। সুতরাং এটাই মুসলিমদের সমূলে উৎপাটন করার সুবর্ণ সুযোগ। কাব প্রথমে নিমরাজী থাকলেও শেষে খন্দকে আহযাব পক্ষে যোগ দিতে রাজী হয়।

খন্দক থেকে ফিরে এসে রাসুল (সাঃ) মদিনায় ফিরে যখন গোসল সারলেন তখন জীব্রাঈল (আঃ) এসে বানু কুরাইযা গোত্রের বিশ্বাসঘাতকতার কথা রাসুল (সাঃ)-কে স্মরণ করিয়ে দেন, ও তার পরপরই মুসলিম বাহিনী কুরাইযা অভিমুখে রওয়ানা হয়। মুসলিম বাহিনী কুরাইযার দূর্গের সামনে এসে পৌঁছলে তারা দূর্গ-তোরণ থেকে রাসুল (সাঃ) ও তাঁর সহধর্মীনিদের উদ্দেশ্যে অশ্রাব্য গালিগালাজ করতে থাকে। তাদের ধারণা ছিল খায়বার থেকে খুব তাড়াতাড়ি ইহুদী বাহিনী এসে পড়বে, আর তারপরে দুই ইহুদী বাহিনীর যৌথ আক্রমণে মুসলিমদের বিধ্বস্ত করে ফেলবে। মক্কার কোরাঈশরা যুদ্ধ ছেড়ে চলে গেছে বলে তারা বরং খুশীই ছিল, কেননা মদিনা প্রদেশের বিশাল সাম্রাজ্য এখন কেবল ইহুদীদের হয়ে যাবে। এরপরে যথারীতি অনেকদিন দূর্গের মধ্যে অবরূদ্ধ থেকে যখন তারা দেখলো যে খায়বার থেকে ইহুদী বাহীনির আসার কোনোই সম্ভবনা নেই তখন তারা আত্মসমর্পণ করার সিদ্ধান্ত নেয়। তবে রাসুল (সাঃ) এর কাছে আত্মসমর্পন না করে তারা তাদের পুরোনো মিত্র সাদ-বিন-মুয়াদের (রাঃ) কাছে নিজেদের ভবিষ্যতের সিদ্ধান্ত ছেড়ে দেয়। সাদ (রাঃ) সিদ্ধান্ত দেন কুরাইযা গোত্রের সকল যোদ্ধাদের প্রাণদণ্ড দেয়া হোক আর মহিলা ও শিশুদের বন্দী করা হোক। [৭-১৩]

উপরে সীরাতের আলোকে বানু কুরাইযার ইতিহাস খুব সংক্ষেপে দেয়া হলো; এখন দেখা যাক বানু কুরাইযা গোত্র কি আসলেই নিরপরাধ?

৪.১ প্রথম অভিযোগ – নিরপরাধ বানু কুরাইযা গোত্রকে হত্যা করা হয়

অভিযোগকারীদের কথা বানু কুরাইযা গোত্র নিরপরাধ, কেননা হাদীস ও সীরাত ইবন ইসহাকেই বলা আছে,

When he returned from the Ditch and laid down his arms and took a bath, the angel Gabriel appeared to him and he was removing dust from his hair (as if he had just returned from the battle). The latter said: You have laid down arms. By God, we haven't (yet) laid them down. So march against them. The Messenger of Allah (may peace be upon him) asked: Where? He poirftad to Banu Quraiza. So the Messenger of Allah (may peace he upon him) fought against them.

অর্থাৎ, খন্দক থেকে ফেরার পরে মুহাম্মাদ (সাঃ) অস্ত্র রেখে গোসল করলেন, এবং তখন জীব্রাঈল (আঃ) এসে বললেন তুমি অস্ত্র নামিয়ে রেখেছ, অথচ আমরা এখনো অস্ত্রত্যাগ করিনি; সুতরাং বানু কুরাইযার দিকে এখনই রওয়ানা হও। হাদীসের এই বর্ণনা পড়ে অভিযোগকারীরা বলেন, বানু কুরাইযা তো সমীকরণেই ছিলোনা, তা এই হাদীস থেকে স্পষ্ট। বরং খন্দক থেকে ফিরে এসে রাসুল (সাঃ) অস্ত্রত্যাগ করে গোসল করছিলেন, আর তখনই জীব্রাঈল (আঃ) এসে বানু কুরাইযার দিকে অঙ্গুলি নির্দেশ করলে মুসলিম বাহিনী সেদিকে রওয়ানা হন।

এই ব্যপারে যাথারীতি অভিযোগকারীদের সূত্র বিভ্রাট দেখা দেয়। আমার বিশ্লেষণে এই সমস্যাটা সব-সময়ই দেখেছি। তারা কোরান, হাদীস কিংবা সীরাত থেকে উদ্ধৃতি দিয়ে অভিযোগ আনেন কিন্তু যখন দেখা যায় এই একই উৎসগুলো দিয়েই তাদের অভিযোগগুলো নাকচ হয়ে যাচ্ছে, তখন তারা সুবিধামতো সেই অংশটুকু ভুলে যান।তাহলে দেখা যাক কোরান, হাদীস ও সীরাত অনুযায়ী কুরাইযা গোত্র নিরপরাধ কিনা।

৪.১.১ প্রমাণ-১, সীরাত অনুযায়ী বানু কুরাইযা গোত্র অপরাধী

সীরাত ইবন ইসহাকে গেলে আমরা দেখি, যখন আয়েশা (রাঃ) কিংবা আবু-সাইদ আল খুদরীর (রাঃ) বর্ণনার আলোকে জীব্রাঈল (আঃ) এর হাদীস দিয়ে বানু কুরাইযার অধ্যায়ের সূচনা হয় তার ২-পাতা আগেই খন্দকের যুদ্ধের প্রাক্কালে খবর আসে যে কুরাইযা গোত্র বিদ্রোহ করে বসেছে [সীরাত ইবন ইসহাক পবেন এখানে],

And news came that the Jewish tribe of Banu Qurayza had broken their treaty with Muhammad.

যে সীরাত ইবন ইসহাকের রেফারেন্স দিয়ে বানু কুরাইযার নিরপরাধতার শক্ত যুক্তি তারা তুলে ধরেন, সেই একই বইয়ের মাত্র ২ পাতা আগে উল্লেখ করা কুরাইযা গোত্রের প্রতারণা আর বিশ্বাসঘাতকতার কথা কেন তারা সুবিধাজনক ভাবে ভুলে যান? তাদের দুর্বল যুক্তিবোধ কি তাহলে সুবিধাজনক ক্ষণস্থাযী স্মৃতিশক্তির ফসল?

৪.১.২ প্রমাণ-২, হাদীস অনুযায়ী বানু কুরাইযা গোত্র অপরাধী

হাদীসে আছে [মুসলিমে বর্ণিত; Book 019, Number 4364:],

It has been narrated on the authority of Ibn Umar that the Jews of Banu Nadir and Banu Quraizi fought against the Messenger of Allah (may peace be upon him) who expelled Banu Nadir, and allowed Quraiza to stay on, and granted favour to them until they too fought against him.

আব্দুল্লাহ ইবন ওমরের (রাঃ) উপরের হাদীস থেকে এটা স্পষ্ট যে কুরাইযা গোত্র একবার না, বরং ২ বার চুক্তি ভংগ করে, প্রথম বার বানু নাদীরের ঘটনার সময় (অর্থাৎ উহুদের যুদ্ধের পরে); যে অপরাধ রাসুল (সাঃ) নিজ মহানুভবতার গুণে ক্ষমা করে দেন ও আগের করা চুক্তিটি আবার ফিরিয়ে আনেন। আর দ্বিতীয়বার চুক্তি ভঙ্গ করে আলোচ্য খন্দকের যুদ্ধ চলার সময়।

৪.১.৩ প্রমাণ-৩, কোরান অনুযায়ী বানু কুরাইযা গোত্র অপরাধী

তবে সবচাইতে স্পষ্ট প্রমাণ আছে কোরানেই। বানু কুরাইযার বর্ণনা আছে সুরা আহযাবের ২৬ নং আয়াতে,

وَأَنزَلَ الَّذِينَ ظَاهَرُوهُم مِّنْ أَهْلِ الْكِتَابِ مِن صَيَاصِيهِمْ وَقَذَفَ فِي قُلُوبِهِمُ الرُّعْبَ فَرِيقًا تَقْتُلُونَ وَتَأْسِرُونَ فَرِيقًا

(২৬) কিতাবীদের মধ্যে যারা কাফেরদের পৃষ্টপোষকতা করেছিল, তাদেরকে তিনি তাদের দূর্গ থেকে নামিয়ে দিলেন এবং তাদের অন্তরে ভীতি নিক্ষেপ করলেন। ফলে তোমরা একদলকে হত্যা করছ এবং একদলকে বন্দী করছ।

And those of the people of the Scripture who backed them (the disbelievers) Allâh brought them down from their forts and cast terror into their hearts, (so that) a group (of them) you killed, and a group (of them) you made captives.

এখানে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে কুরাইযা গোত্র কোরাঈশদের সাথে চুক্তি করে মুসলিমদের সাথে করা আগের চুক্তি ভেঙ্গে দিয়ে বিশ্বাসঘাতকতা করে। এত স্পষ্ট প্রমাণ থাকার পরেও কেন তারা বানু কুরাইযাকে নিরপরাধ বলেন?

৪.১.৪ জীব্রাঈল (আঃ) এর আবির্ভাবের ব্যাখ্যা

তাহলে খন্দক যুদ্ধের পরে জীব্রাঈল (আঃ) আবির্ভূত হয়ে কুরাইযা অভিমুখে যাবার কথা মনে করিয়ে দেবার কারণ কী? সামান্য যুক্তিবোধ থাকা লোক মাত্রই কারণটা অনুমান করা উচিত। খন্দক ছিলো তখন পর্যন্ত মুসলিমদের জীবনে ঘটা সবচাইতে চ্যালেঞ্জিং যুদ্ধ। খন্দকে কুরাইশ বাহিনী সহ, গাতাফান ও নজদ থেকে আসা দশ হাজার লোকের সুবিশাল বাহিনী মুসলিম জাতিকে সর্বাংশে নির্মুলের লক্ষ্যে মদিনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। বিশাল এই বাহিনীকে মুসলিম বাহিনী মদিনার বাইরে গিয়ে মোকাবিলার কথা ভাবতেও পারেনি, তাই পার্সী মুসলিম সালমানের (রাঃ) পরামর্শ অনুযায়ী খন্দক খুঁড়ে আত্মরক্ষামূলক যুদ্ধের পরিকল্পনা করা হয়। একে যুদ্ধের আগে অল্প সময়ের মধ্যে বিশালাকায় খন্দক খোঁড়ার জন্যে মুসলিম বাহিনী ছিলেন অসম্ভব ক্লান্ত ও পরিশ্রান্ত; তার উপরে চলে এক মাসব্যাপী আগ্রাসী জোটের অবরোধ। তখনকার চলতি যুদ্ধের প্রেক্ষিতে খন্দক ছিল ব্যতিক্রম। আগের বদর ও ঊহুদ যুদ্ধ চলে কেবল এক বেলা (হয়ত কয়েক ঘন্টা), কিন্তু খন্দকের যুদ্ধের অব্যবহিত আগের বিশালাকায় খন্দক খোড়ার অহর্নিশ অক্লান্ত পরিশ্রমের পরেও মোটের উপর ৫ সপ্তাহের ধকল মুসলিমদের উপর যায়। এমতাবস্থায় ৫ সপ্তাহ পরে কুরাইযা বাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবার আগে কিছুটা বিশ্রাম নেয়া [যেমন বাসায় ফিরে অস্ত্র রেখে গোসল করে কিছুটা বিশ্রাম করা] অমূলক নয়। তবে কেবল এই চিত্রকল্পকে আলাদা ভাবে এঁকে, আগের ঘটনাগুলো সুবিধামতো ভুলে গিয়ে, যদি কেউ বোঝাতে চান যে কোনো কারণ ছাড়াই বানু কুরাইযা গোত্রের উপর অন্যায় ভাবে যুদ্ধ চাপিয়ে দেয়া হয়েছে তাহলে তার সাথে কীভাবে বিতর্ক করবেন?

আমার মতামত, কুরাইযা বাহিনীর অপরাধ সম্পর্কে সব মুসলিমই অবগত ছিলেন, এবং অক্লান্ত পরিশ্রমের ৫-সপ্তাহ পরে কিছুটা বিশ্রামের পরে অবশ্যই সে ব্যবস্থা নেয়া হতো। কিন্তু এমতাবস্থায় জীব্রাঈল (আঃ) এসে মুহাম্মাদ (সাঃ)-কে বানু কুরাইযার করা বিশ্বাসঘাতকতার কথা স্মরণে এনে দেন। এতে করে রাসুল (সাঃ) ঘটনার গুরুত্ব পুরোপুরি বুঝে উঠতে সক্ষম হন ও সবাইকে ডেকে এনে নির্দেশ দেন বানু কুরাইযাতে গিয়ে আসর সালাত পড়তে (অর্থাৎ যথাশীঘ্রই বানু কুরাইযাতে পৌঁছতে)। [৭-১৩]

৪.২ দ্বিতীয় অভিযোগ – বানু কুরাইযার সকল পুরুষদের হত্যা করা হয়

দ্বিতীয় অভিযোগ হচ্ছে সাদের (রাঃ) প্রদত্ত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কুরাইযা গোত্রের সকল পুরুষদের হত্যা করা হয়। এই অভিযোগ খণ্ডনের আগে কিছু প্রাসঙ্গিক তথ্য আলোচনা করা জরুরী। অভিযোগের ভিত্তি হিসেবে উল্লেখ করা হয় সীরাত ইবন ইসহাকের বর্ণিত হাদীসটিই। ইবন ইসহাকে আগে উল্লেখ করা জীব্রাঈল (আঃ) এর কুরাইযা অভিমুখে অভিযাত্রার নির্দেশের পরেই বলা হচ্ছে,

When Sad appeared the apostle said to the Muslims, 'Arise in honour of your chief!” Then Sad asked, 'Do you covenant with Allah to abide by my decision?' and they said, 'We do!’ The apostle of Allah also replied, 'Yes.' And Sad pronounced the following sentence, 'I decree that the men be killed, the property be divided, and the women with their children be made captives.'

এই বিষয়টার ব্যাখ্যাকল্পে সেকালের গোত্রভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থার দিকে আমাদের চোখ ফেরাতে হবে। সে আমলে যুদ্ধ, শান্তি, চুক্তি, সন্ধি, দৈনন্দিন কিংবা রাষ্ট্রিক সব কার্যাদি ছিল গোত্রভিত্তিক। আর তাই গোত্রের প্রাপ্ত বয়স্ক সবাই স্বভাবতই যোদ্ধা ছিলেন। সে সময়ের ইতিহাস পড়ে আমি এমন কোনো রেফারেন্স পাইনি যেখানে গোত্রের পুরুষ প্রাপ্তবয়ষ্ক হয়েছে কিন্তু সে যোদ্ধা নয়। পুরুষেরা ব্যবসা কিংবা কৃষিকাজ সহ যে সমস্ত মূল কাজে নিয়োজিত ছিলেন, তার বাইরে সবার আরেকটা পরিচয় ছিল, তা হলো গোত্র রক্ষায় সবাই একতাবদ্ধ যোদ্ধা। আজকালকার দিনের মতো নিয়মিত সামরিক বাহিনী সে দিনের আরব সমাজে ছিলনা। তবে যোদ্ধা জাতির উদাহরণ যে কেবল সে দেশেই আর সে কালেই প্রচলিত ছিল তা ঠিক নয়; এমনকি হালের রাষ্ট্র ইসরায়েল, তাইওয়ান, কিউবা কিংবা দক্ষিণ ও উত্তর কোরিয়ার সকল প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষই যোদ্ধা – এটা ঐ সমস্ত দেশের রাষ্ট্রিক নিয়ম। প্রাপ্ত বয়স্ক হলে সকলেরই যুদ্ধের প্রশিক্ষণ নিয়ে কিছুকাল সামরিক বাহিনীতে যোগদান করা বাধ্যতামুলক। তাই আরবের সেই রুক্ষ ও গোত্রভিত্তিক সমাজে যুদ্ধে পরাজিত হলে যুদ্ধের পরিণতি সকল পুরুষদের উপরই নেমে আসবে তা স্বাভাবিক – কেননা গোত্রের সব প্রাপ্তবয়ষ্ক পুরুষই যোদ্ধা।

সেজন্যে যদিও ইবন ইসহাকের সীরাতে সকল পুরুষদের হত্যা করার আদেশ দেয়া হয় বলে বলা হচ্ছে কিন্তু প্রাসঙ্গিক হাদীসগুলো মূল আরবীতে পড়লে দেখা যায়, সকল পুরুষদের নয় বরং সকল যোদ্ধাদের হত্যা করা হোক একথা বলা আছে। নীচে আয়েশা (রাঃ) ও আবু সাইদ আল খুদরীর হাদীসের হত্যার আদেশ সংক্রান্ত অংশটুকু পড়ুন,

فقال تقتل مقاتلتهم وتسبي (আবু সাইদ আল খুদরীর হাদীস, লিঙ্ক)
قال فإني أحكم فيهم أن تقتل المقاتلة (আয়েষা (রাঃ) এর হাদীস, লিঙ্ক)

উপরের ২-টি হাদীসেই রাজুল (رجل) বা পুরুষ শব্দের বদলে মোকাতেল (مقاتل) অর্থাৎ যোদ্ধা শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে। আর উপরে আমরা ব্যাখ্যা করলাম কী অর্থে রাজুল ও মোকাতেল সমার্থক হতে পারে। সেই অর্থে প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ যোদ্ধা কে কে তা নির্বাচন করার জন্যে যে পদ্ধতি ব্যবহৃত হয়েছিল তার একটা বিবরণ আবু-দাউদে বর্ণিত হাদীসে আমরা পাই। সেখানে বলা হচ্ছে,

Narrated Atiyyah al-Qurazi:
I was among the captives of Banu Qurayzah. They (the Companions) examined us, and those who had begun to grow hair (pubes) were killed, and those who had not were not killed. I was among those who had not grown hair.

অর্থাৎ গুপ্তাঙ্গের কেশ দেখে কোন কোন পুরুষ প্রাপ্তবয়ষ্ক ছিল তা নির্ধারণ করা হয়েছিল।

তাহলে প্রশ্ন থাকে গুপ্তাঙ্গে কেশ যাদের ছিল তাদের সবাইকেই কী মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছিল? এর বাইরে কি কেউ ছিলেন না যাকে মৃত্যুদণ্ড থেকে অব্যহতি দেয়া হয়েছিল? উত্তর হচ্ছে হ্যাঁ। আরো অনেককেই ঐদিন মৃত্যুদণ্ড থেকে অব্যহতি দেয়া হয়েছিল। নীচের ইবন ওমরের (রাঃ) হাদীসটা দেখা যাক,

Bani An-Nadir and Bani Quraiza fought (against the Prophet violating their peace treaty), so the Prophet exiled Bani An-Nadir and allowed Bani Quraiza to remain at their places (in Medina) taking nothing from them till they fought against the Prophet again. He then killed their men and distributed their women, children and property among the Muslims, but some of them came to the Prophet and he granted them safety, and they embraced Islam.

এই হাদীসটি সহ অন্যান্য হাদীস, কোরান ও সীরাতের বর্ণনা মিলিয়ে পড়লে ঘটনার যে ধারাবাহিকতা আমরা পাই তা হলো,

১। কুরাইযা গোত্রের নিজেদের নির্বাচিত বিচারক ও প্রাক্তণ বন্ধুগোত্র প্রধান, সাদ বিন মুয়াদ (রাঃ) কুরাইযা গোত্রের কেবল যোদ্ধাদের কতলের নির্দেশ দেন।
২। কে কে যোদ্ধা তা ঠিক করার জন্যে সমবেত কুরাইযা গোত্রের লোকদের প্রতি আহবান জানানো হলে কিছু লোক তাঁর কাছে এসে তাদের যুদ্ধের বিরোধিতার কথা ব্যক্ত করলে রাসুল (সাঃ) তাঁদের ক্ষমা করে দেন ও পরে তারা ইসলাম গ্রহণ করেন।
৩। আহ্বানে সাড়া না দেয়া বাকী পুরুষরা যোদ্ধা হিসেবে বিবেচিত হন ও তাদের মধ্যে অপ্রাপ্ত বয়স্কদের গুপ্তাঙ্গে কেশ দেখে ছেড়ে দেয়া হয়।

এছাড়াও ইতিহাস ও হাদীস থেকে প্রমাণ পাওয়া যায় যে বানু কুরাইযা গোত্রের প্রায় তিনশ লোককে যুদ্ধ করার অপরাধে হত্যা করার পরে বাকী অনেককে মদিনা ত্যাগ করার শর্তে ছেড়েও দেয়া হয়। ইবন-আসাকের বিশিষ্ট মোহাদ্দেস ও ইতিহাসবেত্তা বানু কুরাইযার ঘটনা সম্পর্কে নিম্নলিখিত হাদীসটি বর্ণনা করেছেন,

অতঃপর হযরত তাদের তিন শত পুরুষকে নিহত করলেন এবং অবশিষ্ট লোকদের বললেন – তোমরা সিরিয়া প্রদেশে চলে যাও, অবশ্য তোমাদের গতিবিধির উপর লক্ষ্য রাখবো। অতঃপর হযরত তাদের সিরিয়া প্রদেশে পাঠিয়ে দিলেন। [১১-১৩]

فقتل رسول الله حملعيم منهم ثلث ماىة وقل ليقيتهم انطاقوا الى ارض المحشر قاتانى آثاركم يعنى ارض الشام فسيرهم اليها …

সিরিয়া প্রদেশে পাঠানোর বর্ণনা এখানেও দেয়া আছে। [লিঙ্ক]

৪.২.১ কোরান থেকে প্রমাণ

কোরানের প্রমাণ সেই আগের আলোচিত আয়াতেই (৩৩.২৬) আছে। আয়াতটা আবার পড়ুন,

وَأَنزَلَ الَّذِينَ ظَاهَرُوهُم مِّنْ أَهْلِ الْكِتَابِ مِن صَيَاصِيهِمْ وَقَذَفَ فِي قُلُوبِهِمُ الرُّعْبَ فَرِيقًا تَقْتُلُونَ وَتَأْسِرُونَ فَرِيقًا

(২৬) কিতাবীদের মধ্যে যারা কাফেরদের পৃষ্টপোষকতা করেছিল, তাদেরকে তিনি তাদের দূর্গ থেকে নামিয়ে দিলেন এবং তাদের অন্তরে ভীতি নিক্ষেপ করলেন। ফলে তোমরা একদলকে হত্যা করছ এবং একদলকে বন্দী করছ।

And those of the people of the Scripture who backed them (the disbelievers) Allâh brought them down from their forts and cast terror into their hearts, (so that) a group (of them) you killed, and a group (of them) you made captives.

এখানে পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে যে একদলকে হত্যা করা হলো ও আরেক দলকে বন্দী করা হলো। এখান থেকে এটা স্পষ্ট যে সবাইকে হত্যা করা হয়নি।

৪.৩ তৃতীয় অভিযোগ – কুরাইযা গোত্রের ছয় থেকে নয় শতাধিক লোককে হত্যা করা হয়

সীরাতের বিভিন্ন বর্ণনা এক করে দেখলে দেখা যায় যে ছয় থেকে নয়’শ কুরাইযা গোত্রের পুরুষ যোদ্ধাদের হত্যা করা হয়। আগে সূত্র ও নিয়মানুগে যেভাবে উল্লেখ করা হয়ছে সে অনুযায়ী হাদীস শাস্ত্রে গেলে আমরা দেখি বোখারী ও মুসলিমে কোথাও কত জনকে হত্যা করা হয় তার সংখ্যা পাওয়া যায়না। কোরানেও কুরাইযা গোত্রের সর্বমোট কতজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয় তার হিসেব পাওয়া যায়না। সুতরাং কোরান ও বিশ্বস্ত হাদীস গ্রন্থের সাথে সীরাতের বর্ণনার অসামঞ্জস্যতা থাকাতে আমাদের সতর্কতার সাথে এগুতে হবে। দেখতে হবে অন্য কোনো হাদীস গ্রন্থে সংখ্যা সম্পর্কে কোনো তথ্য পাওয়া যায় কিনা। হ্যাঁ, সংখ্যার হিসেব দিয়ে কিছু হাদীস পাওয়া যায় অবশ্য নেসায়ী, তিরমিযী প্রমুখ হাদীস গ্রন্থে [১৩]। ওখানে বলা হচ্ছে যে সাদ বিন মুয়াদ (রাঃ) যখন মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন তখন চারশ’র মতো কুরাইযা গোত্রের পুরুষ উপস্থিত ছিলেন। এখন যদি ধরাও হয় যে সব পুরুষকেই মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়, তাহলেও সংখ্যা হাদীসের ইঙ্গিত অনুসারে বলা যায় যে সর্বোচ্চ হয়তবা চারশ লোকের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছিল। কিন্তু কোরান কিংবা বুখারী ও মুসলিম প্রমুখ অধিক বিশ্বস্ত হাদীস গ্রন্থের বর্ণনায় এটা আগে প্রমাণ করা হয়েছে যে কুরাইযার সব পুরুষকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়নি। তবে যাই হোক না কেন সীরাতে বর্ণিত ৬ থেকে ৯ শ লোককে মৃত্যুদণ্ড কিন্তু হাদীস অনুসারেই বিশ্বস্ত বলে প্রতীয়মান হচ্ছেনা। অতএব, কোরান ও হাদীসের অন্যান্য বর্ণনার সাথে এক করে দেখলে সয়ুতির আল জামি আল কুবরা কিংবা আলী ইবন আব্দ-আল-মালিক আল হিন্দী’র কাঞ্জুল ঊম্মালে দেয়া বর্ণনাই অধিকতর যুক্তিপূর্ণ, অর্থাৎ শ’তিনেক কুরাইযা পুরুষকে ঐদিন মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয় ও অনেককে ছেড়ে দেয়া হয়, যারা সিরিয়ায় চলে যায়। [১১, ১২]রাসুল (সাঃ) মদিনাতে আসার পরে মুসলিম, ইহুদী ও পৌত্তলিকদের নিয়ে এক অভিনব সাধারণতন্ত্র গড়ে তোলেন। বিপরীত চিন্তা, রুচি ও ধর্মাভাব সম্পন্ন মুসলিম, ইহুদী ও পৌত্তলিকদের দেশের সাধারণ স্বার্থরক্ষা ও মঙ্গলের জন্যে একটি রাজনৈতিক জাতিতে পরিণত করার জন্যে তিনি একটি সনদ তৈরী করেন। সনদে তিন পক্ষই স্বাক্ষর করেন। এই অভিনব ও অশ্রুতপূর্ব চুক্তি বা সনদের কিছু ধারা নীচে দেয়া হলো-

১। ইহুদী ও মুসলিমরা এক জাতি (রাষ্ট্রীক কাঠামোর মধ্যে বসবাসকারী ‘জাতি’)
২। এই সনদের অন্তর্ভূক্ত কোন গোত্র শত্রু দ্বারা আক্রান্ত হলে সবার সমবেত শক্তি নিয়ে তা প্রতিহত করতে হবে।
৩। কেউ কোরাইশদের সাথে কোনো রকমের গুপ্ত সন্ধিসূত্রে আবদ্ধ হবে না ও তাদের সঙ্কল্পকে সাহায্য করবে না।
৪। মদিনা আক্রান্ত হলে দেশের স্বাধীনতা রক্ষার জন্যে সবাই মিলে যুদ্ধ করবে এবং সম্প্রদায়গুলো নিজেদের যুদ্ধব্যয় নিজেরা বহন করবে।
৫। ইহুদী-মুসলিম সহ চুক্তিবদ্ধ সকল সম্প্রদায় স্বাধীনভাবে নিজ নিজ ধর্মকর্ম পালন করবে, কেউ কারুর ধর্ম-স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করবে না।

… ইত্যাদি।

মদিনার সাধারণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হলে চুক্তি/সন্ধি অনুসারে কুরাইযা সহ সব ইহুদী গোত্র প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিল যে তারা মুসলিমদের কোন শত্রুকে কোনরকম সাহায্য করবেনা। কোন বহিঃশত্রু মদিনা আক্রমণ করলে তারাও মুসলিমদের মতো স্বদেশ রক্ষার্থে নিজেদের সমস্ত শক্তি প্রয়োগ করবে। কিন্তু সন্ধির শর্ত ও স্বদেশের স্বাধীনতা ও সম্মানকে উপেক্ষা করে কুরাইযা সহ বাকী ইহুদী গোত্র একাধিকবার শত্রুপক্ষের সাথে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। বানু কুরাইজার ইহুদীদের এই অপরাধ আগে অন্তত একবার ক্ষমা করে দেয়া হয়। ভেঙ্গে ফেলা প্রতিজ্ঞাপত্র উহুদ যুদ্ধের পরে কুরাইযা গোত্র পুনর্বহাল করে এই শর্তে যে, এরপরে আর কখনোই তারা মুসলিমদের শত্রুদের সাথে কোন রকম যোগাযোগ ও সাহায্য করবেনা। ফলে তখন তাদের বিনাদণ্ডে ও বিনা ক্ষতিপূরণে মাফ করে দেয়া হয়। কিন্তু খন্দকের যুদ্ধের প্রাক্কালে প্রথম সুযোগ পাওয়া মাত্রই তারা এই সন্ধিপত্র ছিঁড়ে ফেলে শত্রুদলে যোগদান করে। কুরাইযা গোত্রের এই বিদ্রোহের খবর পাওয়া মাত্র আওস ও খাযরায গোত্রের প্রধান সাদ বিন উবাদা (রাঃ) ও সাদ বিন মুয়াদ (রাঃ) সহ আর কিছু সাহাবীকে মুহাম্মাদ (সাঃ) খন্দকের প্রান্ত থেকে কুরাইযা পল্লীতে পাঠান। তাঁরা কুরাইযা পল্লীতে উপস্থিত হয়ে আগের পৌণঃপুনিক চুক্তি ভাঙ্গার কথা তুলে ধরেন ও তাদেরকে এই বিশ্বাসঘাতকতার পরিণাম ভালোভাবে বুঝিয়ে দেন। কিন্তু আহযাবে মুসলিমদের পরাজয় সুনিশ্চিত ও খায়বার থেকেও ইহুদী দল মদিনা আক্রমণে আসছে – এই দুই বিশ্বাসের উপর ভিত্তি করে তারা উল্টা মুসলিমদের গালাগালি করা শুরু করে দেয়। তাদের দলপতি কাব বিন আসাদ বলে ওঠে, “মোহাম্মদ কে? আমরা তাকে চিনি না। আমরা কোনো সন্ধিপত্রের ধার ধারি না। তোমরা চলে যাও।”

এরপরে তারা খন্দকের যুদ্ধে যোগদান করে। আর কুরাইযা বাহিনীর হাত থেকে মদিনার নারী ও শিশুদের রক্ষা করার জন্যে একদল মুসলিমকে মদিনার দক্ষিণ দিকে নিয়োজিত করা হয়েছিল।

বানু নাদির গোত্রের হোয়াই-বিন-আখতাব মদিনা থেকে বিতাড়িত হবার পরে খাইবারে আসন গেড়ে বসে। সে কুরাইযা গোত্র প্রধান কাব-বিন-আসাদকে বোঝাতে সক্ষম হয় যে আরবের সকল পৌত্তলিক এখন একত্রিত। গাতাফান আর নজদের পৌত্তলিকরাও সাথে যোগ দিয়েছে। আর ঐদিকে খাইবার থেকে ইহুদীদের কয়েক হাজার সদস্যের বাহিনী খুব তাড়াতাড়ি এসে যোগ দিতে যাচ্ছে আহযাবে। সুতরাং এটাই মুসলিমদের সমূলে উৎপাটন করার সুবর্ণ সুযোগ। কাব প্রথমে নিমরাজী থাকলেও শেষে খন্দকে আহযাব পক্ষে যোগ দিতে রাজী হয়।

খন্দক থেকে ফিরে এসে রাসুল (সাঃ) মদিনায় ফিরে যখন গোসল সারলেন তখন জীব্রাঈল (আঃ) এসে বানু কুরাইযা গোত্রের বিশ্বাসঘাতকতার কথা রাসুল (সাঃ)-কে স্মরণ করিয়ে দেন, ও তার পরপরই মুসলিম বাহিনী কুরাইযা অভিমুখে রওয়ানা হয়। মুসলিম বাহিনী কুরাইযার দূর্গের সামনে এসে পৌঁছলে তারা দূর্গ-তোরণ থেকে রাসুল (সাঃ) ও তাঁর সহধর্মীনিদের উদ্দেশ্যে অশ্রাব্য গালিগালাজ করতে থাকে। তাদের ধারণা ছিল খায়বার থেকে খুব তাড়াতাড়ি ইহুদী বাহিনী এসে পড়বে, আর তারপরে দুই ইহুদী বাহিনীর যৌথ আক্রমণে মুসলিমদের বিধ্বস্ত করে ফেলবে। মক্কার কোরাঈশরা যুদ্ধ ছেড়ে চলে গেছে বলে তারা বরং খুশীই ছিল, কেননা মদিনা প্রদেশের বিশাল সাম্রাজ্য এখন কেবল ইহুদীদের হয়ে যাবে। এরপরে যথারীতি অনেকদিন দূর্গের মধ্যে অবরূদ্ধ থেকে যখন তারা দেখলো যে খায়বার থেকে ইহুদী বাহীনির আসার কোনোই সম্ভবনা নেই তখন তারা আত্মসমর্পণ করার সিদ্ধান্ত নেয়। তবে রাসুল (সাঃ) এর কাছে আত্মসমর্পন না করে তারা তাদের পুরোনো মিত্র সাদ-বিন-মুয়াদের (রাঃ) কাছে নিজেদের ভবিষ্যতের সিদ্ধান্ত ছেড়ে দেয়। সাদ (রাঃ) সিদ্ধান্ত দেন কুরাইযা গোত্রের সকল যোদ্ধাদের প্রাণদণ্ড দেয়া হোক আর মহিলা ও শিশুদের বন্দী করা হোক। [৭-১৩]

উপরে সীরাতের আলোকে বানু কুরাইযার ইতিহাস খুব সংক্ষেপে দেয়া হলো; এখন দেখা যাক বানু কুরাইযা গোত্র কি আসলেই নিরপরাধ?

৪.১ প্রথম অভিযোগ – নিরপরাধ বানু কুরাইযা গোত্রকে হত্যা করা হয়

অভিযোগকারীদের কথা বানু কুরাইযা গোত্র নিরপরাধ, কেননা হাদীস ও সীরাত ইবন ইসহাকেই বলা আছে,

When he returned from the Ditch and laid down his arms and took a bath, the angel Gabriel appeared to him and he was removing dust from his hair (as if he had just returned from the battle). The latter said: You have laid down arms. By God, we haven't (yet) laid them down. So march against them. The Messenger of Allah (may peace be upon him) asked: Where? He poirftad to Banu Quraiza. So the Messenger of Allah (may peace he upon him) fought against them.

অর্থাৎ, খন্দক থেকে ফেরার পরে মুহাম্মাদ (সাঃ) অস্ত্র রেখে গোসল করলেন, এবং তখন জীব্রাঈল (আঃ) এসে বললেন তুমি অস্ত্র নামিয়ে রেখেছ, অথচ আমরা এখনো অস্ত্রত্যাগ করিনি; সুতরাং বানু কুরাইযার দিকে এখনই রওয়ানা হও। হাদীসের এই বর্ণনা পড়ে অভিযোগকারীরা বলেন, বানু কুরাইযা তো সমীকরণেই ছিলোনা, তা এই হাদীস থেকে

১৪ ই জুন, ২০১৮ রাত ১:০১

রসায়ন বলেছেন: পড়লাম । রেফারেন্স ও তথ্য গুলো পর্যালোচনা করবো । ধন্যবাদ তথ্য দিয়ে সাহায্য করার জন্য ।

১৪| ১৩ ই জুন, ২০১৮ রাত ১০:৩৭

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: আপনার প্রতিমন্তব্য থেকে আবার কমেন্ট করছি। ইতিমধ্যে ইসলাম নিয়ে অনেকে মন্তব্য করেছেন, যেখান থেকে আপনার এদিকটার একটা উত্তর পেয়েছেন আশাকরি। আমি বরং ইতিহাস নিয়ে বলি, আপনার সর্বপ্রথম জানা দরকার আরব উপদ্বীপের যুদ্বের প্রেক্ষাপট। আগামীকাল দয়া করে ওটা পড়ে এরই লিংক দেবেন, গঠনমূলক আলোচনা হবে। আর হত্যা বিভিন্ন ঘটনার প্রেক্ষিতে বিশ্বে আরোও বড় গনহত্যা হয়েছে। সংগ্রামময় জীবনে যে বাঁচবে অপরকে সে শেষ করবে, এটাই বারে বারে হয়েছে। যদিও আপনার দেওয়া তথ্যকে যদি সঠিক বলে মানি।

শুভ কামনা রইল।

১৪ ই জুন, ২০১৮ রাত ১:০২

রসায়ন বলেছেন: ওকে পড়ে জানাবো ।

১৫| ১৩ ই জুন, ২০১৮ রাত ১১:০৬

বনসাই বলেছেন: ভারতীয়ের বক্তব্য সত্য নয়। মদিনায় চুক্তি হয়েছিল ইহুদিদের বিভিন্ন গোত্রের সাথে। কেউ কারো শুত্রদের সাথে সম্পর্ক রাখবে না। কিন্তু বানু কোরাইজারসহ একাধিক ইহুদি গোত্র মক্কার মুশরেকদের সাথে গোপনে যোগাযোগ রেখে মদিনার খবর দিতো। এ কারণে এই গোত্রগুলোকে মদিনা থেকে বের করে দেয়া হয়।

আর আমার জানামতে ইসরায়েল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পূর্বে সেখানে বা আরবে ইহুদিদের সাথে সম্পর্ক খারাপ ছিল না।

১৪ ই জুন, ২০১৮ রাত ১:০৪

রসায়ন বলেছেন: একইভাবে তো এটাও বলা যায়, ফিলিস্তিনে আগত ইহুদীদের সাথে মুসলিমদের ভালো সম্পর্ক ছিল কিন্তু ফিলিস্তিনের লোকজন হিজবুল্লাহ ও ইরানকে তথ্য ও নানা ভাবে সহযোগিতা করে যার প্রেক্ষিতে ইজরায়েল তাদের জায়গা দখল করছে ও হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে !

১৬| ১৩ ই জুন, ২০১৮ রাত ১১:৫০

টেকনিক্যাল এনালিসিস বলেছেন: সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ ব্লগার চাদগাজির আবিষ্কৃত কিছু শব্দ যেন কালের গর্ভে হারিয়ে না যায় তাই উনার মরণের আগেই শব্দগুলো উনার দেহে খোদাই করে পরে উনার মমি সংরক্ষণ করা হোক।

১৪ ই জুন, ২০১৮ রাত ১:০৫

রসায়ন বলেছেন: হুর মিয়া !

১৭| ১৪ ই জুন, ২০১৮ রাত ১২:৪৮

একদম_ঠোঁটকাটা বলেছেন: এসব নিজের মধ্যে রাখুন না ! কেন নিজের গলাতে চাপাতি কোপ সেধে ডেকে আনছেন। ১৫ কোটির দেশে ১৫ টা বলদ রেডি আছে কাঠমোল্লার কথায় আপনার কল্লা নামানর জন্য। ব্লগে কয়েকদিন চুক চুক আহা বাছা হবে আবার কেও ফোঁড়ন কাটবে এই বলে - আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়া উচিৎ হয়নি।

১৪ ই জুন, ২০১৮ রাত ১:০৭

রসায়ন বলেছেন: সেটাই ভাই । কথা বলাও বিপদ , মৃত্যুর কারণ ! যারা মারবে তারা জানবেও না কে কি বললো আর তাতে ধর্ম বা ইসলামের কি ক্ষতি হলো , হুজুর কইসে কোপাইতে , ব্যাস ! :(

১৮| ১৪ ই জুন, ২০১৮ সকাল ৭:১৯

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
কোন চুক্তি হয়েছিল বা চুক্তি ভঙ্গ হয়েছিল,
এমনকিছু না বলেই মনে হয়।

কারণ কথিত চুক্তিভঙ্গ একমাত্র প্রমান "সপ্নে দেখা"

তবু নাহয় মানলাম চুক্তি ভঙ্গ হয়েছিল।
মহিলা শিশুরা কি দোষ করেছিল?
তাদেরকে কেন দাসী বানানো হলো?
বাকি সকল নিরিহ মদিনাবাসীদের কেন এক কাপড়ে বিতাড়িত করা হলো?

১৪ ই জুন, ২০১৮ সকাল ৯:১৬

রসায়ন বলেছেন: দাসী বানানোটা খুবই অমানবিক ।

১৯| ১৪ ই জুন, ২০১৮ সকাল ৯:২৮

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: তর্ক ছাড়তে পারবো না ।


বিশ্বাসে মিলায় বস্তু তর্কে বহুদূর।

১৪ ই জুন, ২০১৮ সকাল ৯:৩৪

রসায়ন বলেছেন: বিশ্বাসে তো সমস্যা আরো বড়। নানা মুনির নানা মত । হাজারটা বিশ্বাস । আপনি কোনটায় আসবেন বা বিশ্বাস করবেন ? আল্টিমেটলি তর্কেই আসতে হবে
যেমন পৃথিবীতে হাজার হাজার ধর্ম , আপনি কোনটা মানবেন বা মানবেন না ??? তর্ক ছাড়া এটার উত্তর নেই ।

২০| ১৪ ই জুন, ২০১৮ সকাল ৯:৪৩

বিপরীত বাক বলেছেন: ইন্ডিয়ান মুসলিম জাতগুলো হচ্ছে পৃথিবীর বিষাক্ততম জাত। এদের থেকে ইহুদীরা অনেক ভাল।
পুরো ইন্ডিয়া থেকে মুসলমান সব নির্মূল করে দেয়া দরকার । বিতাড়ন নয়, সরাসরি রোহিঙ্গা স্টাইলে নিশ্চিহ্ন করে দেয়া ভাল।পরিবেশের স্বার্থে সমাজের স্বার্থে ধর্মের স্বার্থে।
এরসাথে পুরো বিশ্বের ইসলামকে আবার গুলিয়ে ফেলিয়েন না। ইন্ডিয়ান মুচলিমগুলোর সাথে ধর্ম নিয়ে তর্ক করা চরম মূর্খতার পরিচয়। এরা মানে ইন্ডিয়ান মুচলমগুলো নিজেদের কে আল্লাহ ‘র ডিলার এবং মোহাম্মদের এজেন্সি ভাবে।

১৫ ই জুন, ২০১৮ রাত ১:১৪

রসায়ন বলেছেন: এত রাগ কেন ভাই !

২১| ১৪ ই জুন, ২০১৮ সকাল ১০:১৯

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: বিশ্বাসে তো সমস্যা আরো বড়। নানা মুনির নানা মত । হাজারটা বিশ্বাস । আপনি কোনটায় আসবেন বা বিশ্বাস করবেন ? আল্টিমেটলি তর্কেই আসতে হবে
যেমন পৃথিবীতে হাজার হাজার ধর্ম , আপনি কোনটা মানবেন বা মানবেন না ??? তর্ক ছাড়া এটার উত্তর নেই ।

কথা তো ঠিক বলেছেন।

১৫ ই জুন, ২০১৮ রাত ১:১৪

রসায়ন বলেছেন: :)

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.