নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

বেলাশেষে ক্লান্ত-তৃষ্ণার্ত পথিকের ন্যায় আসলাম সামুর তীরে, রেখে যেতে চাই কিছু অবিস্মরণীয় কীর্তি । পারি না আর না পারি, চেষ্ঠার ত্রুটি রাখবো না, এই ওয়াদা করছি ।

মোশারফ হোসেন ০০৭

একজন শৌখিন লেখক আমি, আবার কবিও বলা যেতে পারে । যখন যা ভালো লাগে তাই লিখি ।

মোশারফ হোসেন ০০৭ › বিস্তারিত পোস্টঃ

গতকাল ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে কাকে সমর্থন করেছিলেন ? হ্যাঁ, আপনিই তো লিজেন্ড =p~

১৯ শে জুন, ২০১৭ দুপুর ২:০৪

গতকাল চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ভারত বনাম পাকিস্তানের খেলা হয়েছে এবং শক্তিশালী ভারতীয় ক্রিকেট দলকে ১৮০ রানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নস লীগ-২০১৭ এর চ্যাম্পিয়ন হয় পাকিস্তান । হ্যাঁ, ভারত আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্র আর ব্রিটিশদের কল্যাণে পাকিস্তানিদের সাথে আমাদের পুরনো একটা সম্পর্ক ছিল । খেলা শুরু হওয়ার আগে আমাকে একজন প্রশ্ন করেছিল যে আমি এই দুইটি দলের মধ্যে কোন দলের সাপোর্টার ? আমি জবাবে বলেছিলাম, আমি এন্টি ইন্ডিয়া । তার মানে স্বভাবতই আমার সাপোর্ট হেলে যায় পাকিস্তানের দিকে । প্রশ্নকর্তা এটাই ধরে নিয়েছিল । কিন্তু আমি উত্তর দিয়ে আমি নিজেই অবাক । সত্যিই তো, এন্টি ইন্ডিয়া হলে তো আমাকে পাকিস্তানকেই সাপোর্ট করতে হয় । কিন্তু তাদের পুরনো কুকীর্তির জন্য সেটাও তো করা উচিৎ না । তাহলে উপায়...... !!

ফেসবুকে ঢুকলেই কতিপয় হিন্দু ধর্মাবলম্বী (আমার কাছে এদেরকে কেন জানি সবসময় কট্টরপন্থী বলেই মনে হয়) ভাই/আপুদের এদেশের ক্ষমতাসীন সরকার আর ভারতের প্রতি অত্যন্ত তৈল মনোভাব দেখলে সত্যিই গা গুলিয়ে আসে । বলছি না, আমাদের ক্ষমতাসীন সরকারের সব খারাপ, তাদেরকে মোটেও সাপোর্ট করা যায় না । কিন্তু ভাল-খারাপ সবকিছুর মধ্যেই আছে । তাদের ভালো বিষয়গুলো নিয়ে যেমন মাত্রাতিরিক্ত পামজাতীয়ভাবে গেঁজানো হয় ঠিক তেমনি তাদের খারাপ বিষয়গুলো নিয়েও (মাত্রাতিরিক্ত না হোক) যে সমালোচনাটুকু করা উচিৎ, যেটা এই হিন্দু ভাই/আপুরা কোনদিনই করেন না (ভবিষ্যতেও করবেন না বোধ করি) ।

এবার আসি তাদেরই অতিরিক্ত ভারতপ্রীতি নিয়ে । আমাদের দেশের হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অনেকেই মুখে স্বীকার না করলেও শুধুমাত্র ধর্মজনিত কারণেই ভারতের উপর আলগা একটা মহব্বত প্রদর্শন করেন প্রায়শই । ভারত এদের কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ । আমাদের দেশেই অধিকাংশ মানুষ যেখানে ভারতের সংস্কৃতির আমাদের দেশের সংস্কৃতির উপর ভয়ংকর আগ্রাসনকে প্রতিবাদ জানাচ্ছে, তখন সেই হিন্দু ধর্মাবলম্বী লোকজন মুখে পুরো কলুপ এটে বসে থাকেন । আচ্ছা সবকিছু বাদ দেই, ক্রিকেট নিয়েই যেহেতু কথা হচ্ছিল, সেটা নিয়েই বলি । ২০১৫ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সাথে ভারত যখন ভয়ংকর অন্যায় করলো, তখন বেশ কয়েকজন হিন্দু ধর্মাবলম্বী লোকজনকে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রতিবাদ করতে দেখেছিলাম কিন্তু পরবর্তীতে আবার যা সেই । এরাই আবার পরবর্তীতে ভারতের ক্রিকেট সাফল্যে চিৎকার-চেঁচামিচি করে আনন্দমূলক পোস্ট দিয়ে দিয়েছেন । তার মানে কি দাঁড়ালো !! সমস্যার শুরু কিন্তু এখানেই । এই আপনারাই আবার পাকিস্তানকে ধর্মজনিত কারণে সাপোর্ট করলে তাকে রাজাকার, জন্ম ঠিক নেই, পাকিস্তানের দালাল, চামচা ইত্যাদি বলতে ছাড়েন না । যেন ভারতের সাপোর্ট করার কারণে আপনাকে আধুনিক মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়ে গেছে । :/ :/

আমার কয়েকজন স্টুডেন্টকে জিজ্ঞেস করলাম, তোমরা এই খেলায় কোন দলের সাপোর্টার ? তারাও বলে স্যার, আমরা ভারতকে একেবারে সহ্য করেই পারি না । তাই আমরা পাকিস্তানের সাপোর্ট । এরপর যেটা হলো সেটার জন্য সত্যিই আমি প্রস্তুত ছিলাম না । এদের মধ্যেই হঠাৎ কেউ একজন বলে ওঠলো, "পাকিস্তান জিন্দাবাদ" । আমি হঠাৎ-ই আঁৎকে উঠলাম । বলে কি সে !! যেই শ্লোগানটাকে বন্ধ করার জন্য ১৯৭১ সালের ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ করলাম, ৩০ লক্ষ মানুষকে হারালাম, ২ লক্ষ মা-বোনের ইজ্জত হারানোর সাক্ষী হলাম সে শ্লোগানটাই কিনা ভবিষ্যৎ প্রজন্মের একজনের কাছে শোনা লাগলো !! কি সূক্ষ্মভাবে ভারতের বিরোধিতা আমাদের তরুণ প্রজন্মের ভিতর ঢুকে যাচ্ছে !! এই তরুণ প্রজন্ম বড়ই হচ্ছে প্রতিবেশী রাষ্ট্রকে ঘৃণা করে !! আসলেই ভাবতে অবাক লাগে না ? এই ক্ষমতাসীন সরকার যদি আইন করে সবার মুখ বন্ধ না করতো কিংবা সবাইকে যদি স্বাধীনভাবে মত প্রকাশের সুযোগ দিতো, তাহলে সেই বিরোধিতাগুলো খালি অন্তরে না, মুখ দিয়েও বেরিয়ে যেতো । :(

ভারত আমাদের যুদ্ধে সাহায্য করেছে, আমাদের পাকিস্তান থেকে রক্ষা করেছে, আমাদের বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্র, আমাদের পরিবারের মত ইত্যাদি রাবিশ কথাবার্তা বন্ধ করেন । ভারত ১৯৭১ সালে আমাদের সাহায্য করেছে একমাত্র আমাদের যেন অনন্তকাল শোষণ করতে পারে । ভারত যদি সত্যি সত্যি আমাদের বন্ধু হতো, হাজারো ফেলানি কখনও তাদের কাঁটাতারে ঝুলতো না, বন্ধুরাষ্ট্রের অধিকাংশ মানুষের অন্যতম প্রিয় খাদ্য গরুর মাংস খাওয়া বন্ধ করতে সেই বন্ধুই নতুন করে নাটক শুরু করতো না (অথচ ম্যাকডোনাল্ডস, কেএফসি ইত্যাদিতে সেই গরুর মাংস রপ্তানি ঠিকই হচ্ছে), তিস্তা চুক্তি নিয়ে এরকম তালবাহানা করতো না, আমাদের সংস্কৃতির ছিটেফোঁটাও তাদের দেশে ঢুকার নিষেধাজ্ঞা জারি করতো না, বেগারদেশ/কাংলাদেশ ইত্যাদি উপাধির আবিস্কারই হতো না, তাই নয় কি ? বাদ দিন তো, এই বন্ধু বন্ধু নাটক । শোষণ যারা করে তাদের শোষক বলে, বন্ধু না । তাহলে কি বুঝা গেলো, তরুণ প্রজন্ম কেন তাদের এত ঘৃণা করে ? কারণ তারা তো যা দেখে সেটাই বিশ্বাস করবে, তাই না ? ইতিহাস তো দেখার বিষয় না, শোনার বিষয় আর সবশেষে বিশ্বাস করার বিষয় । তাই পাকিস্তানকে ঘৃণা করছেন, খুব ভালো কথা কিন্তু ভারতের বিষয়টা নিয়েও সিরিয়াসলি চিন্তা করে দেখুন । তাদের আদৌ কোন ক্ষেত্রে সাপোর্ট করা যায় কি ?

মন্তব্য ১৯ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (১৯) মন্তব্য লিখুন

১| ১৯ শে জুন, ২০১৭ দুপুর ২:২১

সাকিব ইফতেখার বলেছেন: আপনার কিছু কিছু যুক্তি পারফেক্ট আর কিছু কিছু যুক্তি অযৌক্তিক।

সেসব আর বলতে যাচ্ছিনা।
তবে লিখেছেন ভালো।

২৩ শে জুন, ২০১৭ ভোর ৪:২৮

মোশারফ হোসেন ০০৭ বলেছেন: অযৌক্তিক কথাগুলো উল্লেখ করে ভুলটুকু শুধরে নেওয়ার সুযোগ দিলে খুব উপকার হতো ।

যাই হোক ধন্যবাদ কষ্ট করে লেখাটি পড়ার জন্য ।

২| ১৯ শে জুন, ২০১৭ দুপুর ২:২১

তিতাস৮১ বলেছেন: ভারতের মত বন্ধু থাকলে শত্রু দরকার হয় না ।

২৩ শে জুন, ২০১৭ ভোর ৪:২৮

মোশারফ হোসেন ০০৭ বলেছেন: হা হা হা । ঠিক বলেছেন ।

ধন্যবাদ কষ্ট করে লেখাটি পড়ার জন্য ।

৩| ১৯ শে জুন, ২০১৭ দুপুর ২:২৩

এস ওয়াই গ্লোবাল এলটিডি বলেছেন: ক্রিকেট খেলাকে রাজনীতিক ইস্যু হিসাবে দাড় কোরানো ঠিক না। কে ভারত বা পাকিস্তান সমথক সেটা বিবেচনা না করে কোন দল ভাল খেলেছে সেটা দেখা উচিত।

২৩ শে জুন, ২০১৭ ভোর ৪:২৯

মোশারফ হোসেন ০০৭ বলেছেন: একটি ক্রিকেট দল একটি দেশকেই রিপ্রেজেন্ট করে । আপনি না চাইলেও তাই ক্রিকেট আর দেশের রাজনৈতিক অবস্থানকে আলাদা করতে পারবেন না ।

যাই হোক ধন্যবাদ কষ্ট করে লেখাটি পড়ার জন্য ।

৪| ১৯ শে জুন, ২০১৭ বিকাল ৪:৫৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


আমি নিজকে সাপোর্ট করেছি; ওদের খেলা নিয়ে আমার মাথা ব্যথা নেই

২৩ শে জুন, ২০১৭ ভোর ৪:৩০

মোশারফ হোসেন ০০৭ বলেছেন: সেটাই বরং ভালো ।

ধন্যবাদ কষ্ট করে লেখাটি পড়ার জন্য ।

৫| ১৯ শে জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:১৭

নিগূঢ় বলেছেন: দারুন বলেছেন ৷ পোষ্টে +++++++

২৩ শে জুন, ২০১৭ ভোর ৪:৩০

মোশারফ হোসেন ০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ কষ্ট করে লেখাটি পড়ার জন্য ।

৬| ১৯ শে জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:২৩

বিজন রয় বলেছেন: দারুন লিখেছেন।
++++++++++++++++++

২৩ শে জুন, ২০১৭ ভোর ৪:৩১

মোশারফ হোসেন ০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ কষ্ট করে লেখাটি পড়ার জন্য ।

৭| ১৯ শে জুন, ২০১৭ রাত ৮:১২

প্রািন্ত বলেছেন: আপনার যুক্তিগুলো অযৌক্তিক। পাকিস্তান নামক বিষফোড়াকে আমরা কখনও সমর্থন করতে পারিনা। আপনার ছাত্র পাকিস্তান জিন্দাবাদ বলে স্লোগান দিলে আপনি ধমক পর্যন্ত দেয়ার প্রয়োজন বোধ করেননি? তাকে শুধরে দেয়ার প্রয়োজন বোধ করেনি? সত্যিই ভাবতে অবাক লাগে কি শিক্ষক আপনি!

২৩ শে জুন, ২০১৭ ভোর ৪:৩৩

মোশারফ হোসেন ০০৭ বলেছেন: তাকে তৎক্ষণাৎ শুধরে দিয়েছিলাম যে এমনটা বলা উচিৎ না । আসলে তাদের দুই দলের কোনটাই আমাদের সমর্থনযোগ্য না ।
আমি শিক্ষক হিসেবে কতটুকু ভালো কি খারাপ জানি না, আর আপনিই বিচার করে বসলেন, এই মানদণ্ড নিয়েই !!?? হাস্যকর করে ফেললেন ঘটনাটাকে ।

যাই হোক ধন্যবাদ কষ্ট করে লেখাটি পড়ার জন্য ।

৮| ১৯ শে জুন, ২০১৭ রাত ৯:৫৪

পুকু বলেছেন: Confused generation!!!Pakisthan is the product of two nations theory.1947 এ দেশ ভাগের সময় বাংলাদেশের বেশীর ভাগ লোক কিন্তু পাকিস্থানের পক্ষেই vote দিয়ে ছিল।মাথামোটা পাকিস্থানী নেতাদের বেকুবির জন্য বাংলাদেশ হল।এটাই সত্য।majority of the people কিন্তু মনেপ্রাণে পাকিস্থানকেই ভালবাসে।মুখে বলতে সংকোচ বোধ করে।তা হলে দেশের ও নিজেদের identityর প্রশ্ন উঠবে যে!!!! India কে গালি দিতেই হবে দেশভক্ত প্রমাণের জন্য।সত্যিকারের দেশভক্তরা দেশের বাইরে অথবা চাপাতির কোপ খায় নয়তোবা নীরব। vanish হওয়ার অপেক্ষায়!!! হায়রে বাংলাদেশ!!!সোনার বাংলাদেশ!!!

২৩ শে জুন, ২০১৭ ভোর ৪:৩৬

মোশারফ হোসেন ০০৭ বলেছেন: ভারত বিরোধিতা কয়দিন আগেও আমাদের ভিতর তেমন ছিলই না কিন্তু বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকারের নানা কু-কীর্তি ভারতকে খারাপ বানিয়ে দিয়েছে সাধারণ জনগণের কাছে । কারণ কে না জানে, বর্তমান সরকার ভারতের সমর্থনেই ক্ষমতায় এভাবে টিকে আছে । অনেকটা অতি সন্ন্যাসীতে গাঁজন নষ্ট - এরকম ব্যাপারটা । আর তারপর ২০১৫ সালে বিশ্বকাপ ক্রিকেটের কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের ক্ষমতা খাটিয়ে দুর্নীতি আর সেটাতেও আমাদের ক্ষমতাসীন সরকারের নীরব ভূমিকা যেন আগুনে ঘি ঢেলে দিয়েছিল । পাকিস্তান বিরোধিতা তো সবসময়ই ছিল, তবে ভারত বিরোধিতা আধুনিক কর্মেরই ফসল ।

যাই হোক ধন্যবাদ কষ্ট করে লেখাটি পড়ার জন্য ।

৯| ১৯ শে জুন, ২০১৭ রাত ১০:১০

Hoyto Tomari Jonno বলেছেন: খেলার সাথে রাজনীতি না মিশিয়ে ধর্ম মেশালে পাকিস্তানকে সাপোর্ট দিতে সুবিধা হয়----মুসলিম-মুসলিম ভাই-ভাই = বাংলাদেশী-পাকিস্তানি // বাংলাদেশীরা কালো কুৎসিত, দেখতে ইতর, চিন্তায় রুচিহীন আর স্বভাবে শুয়োরের বাচ্চা'___জুলফিকার আলী ভুট্রো।
ওয়াট এ কথন / সত্যিই তোম্রা ভুট্রোর বলে যাওয়া তোম্রা।
জয়তু ফাকিস্তান ৷

২৩ শে জুন, ২০১৭ ভোর ৪:৩৮

মোশারফ হোসেন ০০৭ বলেছেন: ভাই/আপুর পাকিস্তানের উপর অনেক ক্ষোভ, এটা পরিস্কার । সাথে এটাও পরিস্কার যে ভারতের পক্ষে সমর্থন । প্রথমটা যৌক্তিক কিন্তু দ্বিতীয় ব্যাপারটাই আপনাকে প্রশ্নবিদ্ধ ভুমিকায় অবতীর্ণ করছে ।

ধন্যবাদ কষ্ট করে লেখাটি পড়ার জন্য ।

১০| ২৩ শে জুন, ২০১৭ দুপুর ২:২৪

Hoyto Tomari Jonno বলেছেন:
ধন্যবাদ, লেখক কে মতামত প্রকাশের জন্য। আর আমি ভারতের ৴পাকিস্থানের পক্ষে তাতে কিছু যায়আসে না এটা স্বিকার করবেন, আজকের এই কাদাঘাটা ঘাটি দেশপ্রেম সবকিছু খেলাকে কেন্দ্র করেই ৷আচ্ছা কয়জন বাংলাদিশি ইন্ডিয়াকে সাপোট করে ষ্টাটাস দিছে ?পাকিস্থানের হয়ে যারা ষ্টাটাস দিছেন, দেখেন উপরের ছবিটিতে এইসব ষ্টাটাসের ভিতরের কমেন্ট গুলি কেমন মধুর ভাষা হতে পারে ভাবুন একবার সামান্য ইস্যুকে কেন্দ্র করে অনেক বরন্য ব্যাক্তিদেরকেও গালীগালাজ করা হয়েছে সাহিত্যিক হুমায়ুন স্যারের ওয়াইফ কে নিয়ে যা অশালীন মন্ব্যব্য করাহল তাও এইরোজার মাসে, তখন চুপথাকতে কষ্ট হয় ৷স্বাধীন দেশে বশে আক্রমন করী দেশের পতাকা উওলন জিন্দাবাদ বলে চিল্লানো যায়কি এটাকে দেশপ্রেম বলে না ফিফথ কলম বলে ৷পাকিস্তান কৃকেট জিন্দাবাদ বল্লেন না কেউ বল্লেন পাকিস্থান জিন্দাবাদ ৷তাই প্রতিবাদ করা বা ভুল ধরিয়ে দিতে গেলে যদি বলেন ভারতের সাপোট করি তাহলে আলোচনা মতামত প্রকাশই বা করি কিভাবে?

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.