নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

\n

মা.হাসান

মা.হাসান › বিস্তারিত পোস্টঃ

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা ও আমাদের উদাসিনতা

০৭ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:৩১


ড্রিমলাইনারের বাইরের ছবি। ( সূত্রঃ Click This Link )

আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা নিয়ে আমরা আর কতকাল উদাসীন থাকবো? দাঁত থাকতে আমরা দাঁতের মর্যাদা বুঝি না। দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক চক্রান্তকারীরা সব সময় তৎপর আছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ক্ষতি করার জন্য। তাঁকে হত্যা করার জন্য অতীতে অনেক অ্যাটেম্প্ট নেওয়া হয়েছে। । তার সাথে কিছু ফেরেশতা আছে যার কারণে তিনি বারেবারে বেঁচে গিয়েছেন (সূত্রঃhttps://www.somewhereinblog.net/blog/atanubarish/30270689#c12533567)। কিন্তু শুধু ফেরেশতার উপর ভরসা করে থাকলে চলবে না । আমাদের উচিত মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা ব্যবস্থা সুরক্ষিত করার জন্য সম্ভাব্য সকল ব্যবস্থা নেওয়া।
সর্বশেষ আমরা দেখলাম কাতারিদের চক্রান্ত। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ফিনল্যান্ড থেকে কাতার হয়ে দেশে ফিরবেন। তাকে আনার জন্য ২৬০ মিলিয়ন ডলারের ড্রিমলাইনার নিয়ে বিমানের ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদ কাতারে পৌছলে পাসপোর্ট না থাকার তুচ্ছ কারণ দেখিয়ে কাতার ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ তাকে এয়ারপোর্টে আটকে দেয়। যাদের বক্ষে চেতনা আছে তাদের কাছে পাসপোর্ট চাওয়ার স্পর্ধা কাতার ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ কোথা থেকে পায়!! কাতারিরা কি জানেনা আমাদের প্রধানমন্ত্রী টাইমসের মোস্ট ইনফ্লুয়েনশিয়াল ১০০লিডারের লিস্টে আছেন (সূত্রঃhttps://bdnews24.com/bangladesh/2018/04/20/sheikh-hasina-in-times-list-of-100-most-influential-people-of-2018)? পৃথিবীর সবচেয়ে জনপ্রিয় জননেতাদের মধ্যে সপ্তম (সূত্রঃhttps://en.banglainsider.com/bangladesh/202/Sheikh-Hasina-One-of-the-top-ten-most-popular-world-leaders) ? কাতারিরা জানেনা ড্রিমলাইনার পৃথিবীর সবচেয়ে বিলাসবহুল ১০টি বিমানের মধ্যে একটি (সূত্রঃhttps://www.aviationcv.com/aviation-blog/2016/most-luxurious-presidential-aircraft4779)? মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী ভিভিআইপি বিমানের পাইলট জনাব ফজল মাহমুদ রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ সিকিউরিটি ক্লিয়ারেন্স পাওয়া একজন ক্যাপ্টেন। ওনাকে রিসিভ করার জন্য দূতাবাসের কর্মকর্তাদের অনুপস্থিত থাকা রহস্যজনক মনে হচ্ছে। কাতারিদের পাসপোর্টের যদি এতই প্রয়োজন হয় তবে দূতাবাসের কর্মকর্তারা তাৎক্ষণিকভাবে একটি পাসপোর্ট তৈরি করে তাদেরকে দিলেন না কেন? । কাতার ইমিগ্রেশন সার্ভিসের স্বেচ্ছাচারিতার কারণে বৃহস্পতিবার ঈদের ছুটির দিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অফিস খুলে পাসপোর্ট পাঠানোর স্পেশাল পারমিট বের করতে হয়েছে। আশা করি সরকার কাতারের কাছে এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ এবং নিন্দা জানাবে। মোটামুটি চোখ বন্ধ করে বলে দেয়া যায় এই ষড়যন্ত্রের পেছনে বিএনপি , জামাত এবং তাদের পাকিস্তানি প্রভুরা জড়িত ছিল। । এর আগে এরা বিমানে প্রধান মন্ত্রীর খাবারে বিষ মেশানোর চেষ্টা করেছে, বিমানের নাট বল্টু খুলে রেখে দুর্ঘটনা ঘটানোর চেষ্টা করেছে । ষড়যন্ত্রকারীদের জড় একেবারে উপড়ে ফেলতে হবে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ড্রিমলাইনার উদ্বোধন। ছবি সূত্রঃ Click This Link

এখানে একটা কথা উল্লেখযোগ্য যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে বিমানটি ব্যবহার করেন তা বদলিয়ে একটি ভালো মানের বিমান কেনার প্রয়োজন বলে আমার মনে হয়। আমাদের বিমান কেন লিস্টের শেষের দিকে থাকবে (বর্তমানে বিশ্বের দশটি সবচেয়ে বিলাসবহুল বিমানের তালিকার দশ নম্বরে- অর্থাৎ শেষে ড্রিমলাইনারের অবস্থান)? আমরা যদি আমেরিকা-কানাডা কে ছাড়িয়ে গিয়ে থাকি তাহলে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমান এয়ার ফোর্স ওয়ান এর চেয়ে উন্নত না হোক অন্তত এর সমকক্ষ হওয়া উচিত বলে আমি মনে করি ।

ড্রিমলাইনারের অপরিসর সিট। এরকম বিমানেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে কষ্টকরে যাতায়াত করতে হয়। ছবি সূত্রঃ Click This Link

এর আগের মেয়াদে পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকার সময়েও ডঃ দিপু মনি আক্ষেপ করে বলেছিলেন যে কষ্টকরে তাদের ভাঙাচোরা বিমানে যাতায়াত করতে হয়। আমাদের বাজেটের আকার ৫ লক্ষ কোটি টাকার কাছাকাছি। উন্নতিতে আমরা অনেক উন্নত দেশ কে ছাড়িয়ে গেছি। কানাডা আমাদের পিছনে পড়ে আছে। আমাদের পক্ষে কি এটা একেবারে অসম্ভব যে আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্য দুটি এবং অন্যান্য মন্ত্রীদের আরো দুটি আরামদায়ক ও নিরাপদ বিমান কিনবো? এটাই হোক জাতির পক্ষ থেকে ওনাদের জন্য আমাদের আগামী ঈদুল আজহার উপহার।

মন্তব্য ৪২ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৪২) মন্তব্য লিখুন

১| ০৭ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনাদের মতো মনোভাবের লোকেরা উনার বাবা ও পরিবারকে হত্যা করায়, কিংবা হত্যাকান্ডে সাপোর্ট দেয়ায়, উনি কঠিন পথ অবলম্বল করে চলছেন, এবং প্রায় সময় প্রয়োজনের চেয়ে বেশী; উনার কঠিন পদক্ষেপগুলোতে ভালো নাগরিকেরাও খেসারত দিচ্ছেন, আর আপনারা এসব ম্যাঁওপ্যাঁও পোষ্ট লিখে নিজের মনকে শান্ত্বনা দিচ্ছেন যে, উনার চলার পথে কাঁটা চড়াচ্ছেন!

০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ৯:২১

মা.হাসান বলেছেন: বিপথগামী খুনিরা দেশের যা ক্ষতি করেছে স্বঘোষিত মুক্তিযোদ্ধারা তার চেয়ে কম ক্ষতি করে নাই।

পাঁঠারা ব্যা ব্যা করিয়া ডাকে। অন্য সব কিছু তাদের কাছে ম্যাওপ্যাও মনে হয়।

২| ০৭ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:৫১

চাঁদগাজী বলেছেন:


বেগম জিয়া অনেক কেক খেয়েছিলেন, আপনাদের জন্যও মিষ্টি ভান্ডার খোলা আছে; কিন্তু চাবি উনার হাতে

০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ৯:৩০

মা.হাসান বলেছেন: হারাধন জুতার ব্যাপারে ঠিক বলিয়াছিল কিন্তু একটি জিনিস যোগ করিতে ভুলিয়া গিয়াছিল। জিয়াউর রহমানের ফুটবল খেলার অভ্যাস ছিল। অমন লাথি খাইলে যদি কেউ লাথি মারনেওয়ালার গুষ্টিসুদ্ধ অভিসম্পাত দিতে থাকে তবে তাতে গালিদেনেওয়ালার দোষ খুব একটা দেখি না।

৩| ০৭ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:৫০

রিফাত হোসেন বলেছেন: লোল৷ :) Double agent

০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ৯:৩৪

মা.হাসান বলেছেন: আমার প্রথম পোস্ট যারা পড়েছেন তারা আমাকে ট্রিপল এজেন্ট বলেন। আমার দ্বিতীয় পোস্টে অামি ব্যাখ্যা করেছি আমার বক্ষে আমি কোন চেতনার ব্যাজ ধারণ করি না।

৪| ০৭ ই জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১২

ঢাবিয়ান বলেছেন: লস এঞ্জেলস, প্যরিস ও কানাডা ছাড়িয়ে যাওয়া দেশের নিজস্ব এয়ারলাইনের চমৎকার একটা ভাবমুর্তি প্রতিষ্ঠিত হল বলা যায়। শুধু মুশকিল যে কাতারে থাকা বাংলাদেশীদের এই ভাবমুর্তির খেসারত দিতে হইবে।

০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ৯:৪০

মা.হাসান বলেছেন: পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে যাওয়া শ্রমিকদের কে পিটিয়ে দূতাবাসের কর্মকর্তারা যে ভাবমূর্তি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তা আর ভাঙা সম্ভব হবে বলে মনে করি নাই। তবে এখন মনে হচ্ছে চেতনাবাজরা ২০৪১ সাল নাগাদ সমস্ত রেকর্ড ভেঙে নতুন করে গড়বে।

৫| ০৭ ই জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:২২

চাঁদগাজী বলেছেন:



@ঢাবিয়ান,

কাতারে ১ লাখ বাংগালী শ্রমিকের চাকুরী চলে গেছে আজ সকালে।

০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ৯:৪৭

মা.হাসান বলেছেন: skunkরা মেফিটিডি পরিবারের একটি প্রাণী। উত্তর আমেরিকায় এদের দেখা যায়। দুর্গন্ধ ছড়ানোর জন্য এরা বিখ্যাত। বঙ্গদেশ থেকে আমেরিকায় যাওয়া এক পাঁঠার দুর্গন্ধে টিকতে না পেরে আজকে এক লক্ষ স্কাঙ্ক আত্মহত্যা করেছে।

৬| ০৭ ই জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৪৩

কলাবাগান১ বলেছেন: রাজাকারদের টিটকারীই এখন সম্বল....পারে না ৭১ এর মত নাংগা তলোয়ার নিয়ে ঝাপিয়ে পড়তে

০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ৯:৫১

মা.হাসান বলেছেন: ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস এর শুভেচ্ছা। চেতনাবাজরা আজকে এই বিষয়ে কোন পোস্ট দিল না। চেতনাবাজরা এখন সবাই হালুয়া-রুটি খাওয়ায় ব্যস্ত। দেশের ৯৮% ভাগ চেতনাবাজ রুখে দাঁড়ালে ২% পাকিরা পালানোর রাস্তা খুঁজে পেত না। কিন্তু চেতনাবাজরা ২০৪১ সাল পর্যন্ত হালুয়া-রুটি খাওয়ায় ব্যস্ত। কাজেই ২০৪১ সাল পর্যন্ত পাকিদের লাফালাফি সহ্য করতে হবে।

৭| ০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ৯:০০

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় মা. হাসান ভাই,

পড়লাম। বিষয় নিয়ে কোন মন্তব্য করব না। কিন্তু লেখার পদ্ধতিতে রসবোধের আধিক্যের জন্য পোস্টে লাইক।


শুভকামনা ও ভালোবাসা জানবেন।

০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ১০:০৩

মা.হাসান বলেছেন: আপনাদের প্রধানমন্ত্রী মোদী এত ঐশ্বরিক গুণ সম্পন্ন হওয়া সত্বেও তার কোন সুনাম করলাম না। আর আপনি জানেন স্বদেশী কুকুর বিদেশি ঠাকুর হতে উত্তম। কাজেই আপনি হয়তো আমার পোস্টে মাইন্ড করেছেন। তা মোদিজীর গুনকির্তন করে আপনি একটি পোস্ট দেন না, আমিও আপনার পোস্টে লাইক দিয়ে অাসবো। । তবে কয়েকটি বিষয়ে মোদিজি নিশ্চিতভাবেই আমাদের প্রধানমন্ত্রীর চেয়ে পিছিয়ে আছেন। প্রথমত আমাদের প্রধানমন্ত্রী একজন প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর সন্তান, জমিদারের নাতনি, পীর বংশের মেয়ে। দ্বিতীয়তঃ আমাদের প্রধানমন্ত্রী ৯৮% ভাগ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তৃতীয়তঃ নাইজেরিয়ার পত্রিকায় আমাদের প্রধানমন্ত্রী কে পৃথিবীর সবচেয়ে সাধাসিধা জীবনযাপনকারী একজন নেত্রী হিসেবে বলা হয়েছে।। লিখতে লিখতে আমার হাত ব্যাথা হয়ে যাবে, পড়তে পড়তে আপনার চোখ ব্যথা হয়ে যাবে কিন্তু লিস্ট শেষ হবে না, কাজেই আর বাড়ালাম না। লাইক দেওয়ায় অনেক অনুপ্রেরণা পেলাম অনেক ধন্যবাদ।

৮| ০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ১০:০৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনার নেতারা জানেন শেখ হাসিনা কি বস্তু; ছাগলের বাচ্চা বাঘ চিনে না, সেটাই সমস্যা

০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ১০:১৪

মা.হাসান বলেছেন: পাঁঠাদের সমস্যা এই যে হলুদ রং দেখলেই উহারা তাহাকে বাঘ ভাবিয়া ভয়ে পটি করিয়া দেয়, দুর্গন্ধ আরো ছড়াইতে থাকে।

৯| ০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ১০:০৯

চাঁদগাজী বলেছেন:



জেনারেল জিয়া আপনাদের বীরে পরিণত হয়ে, এখনো বলই খেলছেন।

০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ১০:১৭

মা.হাসান বলেছেন: জাতি জিয়াকে ভুলিয়া গেলেও ওনার লাথি খাইয়া যাহাদের ঘিলু স্থানচ্যুত হইয়া ইয়েতে জমা হইয়াছে তাহারা জিয়াকে চিরকাল মনে রাখিবে।

১০| ০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ১০:৫৪

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদের ব্যাপারে কোন কমেন্ট না করি। মশা মেরে হাত নষ্ট না করি:D. এ জন্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে...;)

আমার মাথায় ঘুরছে অন্য প্রশ্ন, ড্রিমলাইনারে কতজন মানুষ ধরে? আমাদের মাননীয় জননেত্রি দেশরত্ন হাসিনা আপু কতজন পঙ্গপাল নিয়ে পিকনিকে গিয়েছেন???:P [দেশের সব PM পঙ্গপালে বিশ্বাসী]
আচ্ছা? ওখানে ঝুলে ঝুলে/ছাদে উঠে যাবার ব্যাবস্থা করলে কেমন হয়। আরো কিছু লোক যেতে পারবে। চেতনা কোঠায়. :D


পুনশ্চঃ উইকিতে পড়লাম...
বোয়িং ৭৮৭ ড্রিমলাইনারহলবোয়িং কমার্শিয়াল এয়ারপ্লেন কোম্পানিরতৈরী করা দুই ইঞ্জিন বিশিষ্ট মাঝারিআকারের সুপরিসর বিমান। বিমানটি প্রকরণ ভেদে সর্বোচ্চ ৩ টিশ্রেণীতে ২৪২ থেকে ৩৩৫ জন পর্যন্ত যাত্রী পরিবহনে সক্ষম।
ইউনিট খরচ:
৭৮৭-৮: ১৮.৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার
৭৮৭-৮:২৫৭.১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার
৭৮৭-১০: ২৯৭.৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার

কিন্তু, PMযে কোনটা ব্যবহার করেন?!!:(



তেলবাজদের জন্য...
সুইডেন: যে দেশে এমপিদের বাড়তি সুযোগ সুবিধা না পাওয়াটাই রীতি


@চাঁদগাজী
কাকু কি ইদানিং করলার জুস খাচ্ছেন? সেমাই খান সেমাই...:D..:P

০৮ ই জুন, ২০১৯ রাত ১:১০

মা.হাসান বলেছেন: তারেক রহমান যখন পাকিস্তানি হ্যাকারদের সহায়তায় বাংলাদেশ ব্যাংক লুট করেন তখন একটি তদন্ত কমিটি হয়েছিল। এর রিপোর্ট কখনো আলোর মুখ দেখেনি। খালেদা জিয়ার ভাড়া করা গুন্ডা রা যখন প্লাস্টিকের পিস্তল হাতে বিমানের ইমিগ্রেশন পার হয়ে বিমান হাইজ্যাক করেছিল তার তদন্ত রিপোর্টে কি বলা ছিল তাও আমরা এখনো জানি না। ক্যাপ্টেন ফজল মাহমুদের তদন্ত কমিটির রিপোর্ট আপনি জানতে পারলে পোস্ট দিয়েন, ওই টা ষ্টিকি করার জন্য আমরা ফাইট দিমু। তবে ফজল মাহমুদ সাহেব অলরেডি একটা বিবৃতি দিয়ে দিয়েছেন। বাংলাদেশের ইমিগ্রেশন পার হইতে ওনার পাসপোর্ট লাগে না, অাঙুলের ছাপ দিয়েই কাজ হয়ে যায়। যেহেতু উনি কাতার এয়ারপোর্টের ইমিগ্রেশন এর সীমা পার হন নাই কাজেই বের হওয়ার জন্য উনার কোন পাসপোর্ট লাগে নাই। কাজেই ইমিগ্রেশন কতৃপক্ষের দ্বারা ওনার আটক হবার খবর ভুয়া বলে উনি দাবি করেছেন। বিমান কর্তৃপক্ষ ওনার এই দাবির সত্যতা সমর্থন করেছেন । উনি আরো দাবি করেছেন উনি এয়ারপোর্টের ভিতরের হোটেলে অবস্থান করেছেন। এয়ারপোর্ট হোটেল কর্তৃপক্ষ সম্ভবত আইডি কার্ড /পাসপোর্ট এর বদলে ওনার চেতনা দেখে ওনাকে চেকিং করতে দিয়েছে। উনি যেহেতু কাতার শহরের ভিতরে যাবেন না, এয়ারপোর্ট থেকেই ড্রিম লাইনার চালিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ফেরত আসবেন কাজেই ফেরত আসার সময় ওনার পাসপোর্ট এর দরকার হওয়ার কথা না। তাহলে ঈদের ছুটির দিনে স্বরাষ্ট্র এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অফিস খুলে স্পেশাল অনুমোদন নিয়ে ওনার পাসপোর্ট পাঠানোর কি দরকার ছিল?

প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বোয়িং ৭৮৭ -৮ ড্রিমলাইনার এর দাম ২৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার যা বাংলাদেশী টাকায় দুই হাজার দুইশত কোটি টাকার কিছু বেশি। পিকনিকের কথা কিছু জানা ছিল না। চাঁদা কত করে ধরা হয়েছিল? সুইডেনের লিংক পড়লাম। ওইটা জঘন্য দেশ। ব্যাটারা কোন দিন কানাডা বা আমেরিকা হইতে পারবে না। । খানা খাদ্যের ব্যাপারে এইটাই বলতে চাই যে পাঁঠা ঘাস লতাপাতা এই সব খাবার খাবে, মানুষ মানুষের খাবার খাবে । অনেকদিন আপনার কোন পোস্ট দেখিনা পোষ্টের বিষয় কি এখনো কোন ব্যান আছে?

১১| ০৭ ই জুন, ২০১৯ রাত ১১:৫৩

রাজীব নুর বলেছেন: পোষ্ট এবং মন্তব্য গুলো পড়লাম।
মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকলাম।
ভালো থাকুন।

০৮ ই জুন, ২০১৯ রাত ১:১৪

মা.হাসান বলেছেন: আপনার প্রজ্ঞার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। আপনি অনেক ভাল থাকেন। অনেক শুভেচ্ছা।

১২| ০৮ ই জুন, ২০১৯ রাত ১২:১৫

বলেছেন: চেতনাবাজ চাটারদল এখন হালুয়া-রুটি খাওয়ায় ব্যস্ত।

০৮ ই জুন, ২০১৯ রাত ১:১৭

মা.হাসান বলেছেন: ২১ বছর না খাওয়ার পর পাঁচ বছরে পেট ভরে নাই, এখন চাটার দল ২০৪১ সাল পর্যন্ত চাটবে।
ল ভাই ঈদের শুভেচ্ছা। পোস্টে লাইক দেয়ায় অনেক কৃতজ্ঞতা।

১৩| ০৮ ই জুন, ২০১৯ রাত ১২:৫৩

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনাদের মত মানুষকে জিয়া কখনো মানুষ মনে করতেন না; আপনারা উনাকে মনে রেখেছেন, এটা হলো টেবলেট খাওয়ার মতো।

০৮ ই জুন, ২০১৯ রাত ১:২৩

মা.হাসান বলেছেন: জিয়া আমার মত মানুষকে মানুষ ভাবতেন কিনা জানিনা, তবে পাঁঠা কে পাঁঠার ট্রিটমেন্ট দিয়েছেন এটা পরিষ্কার বুঝতে পারি।
জিয়ার ট্যাবলেট আমার খাবার প্রয়োজন পড়ে নাই, তবে জুতার মাধ্যমে জিয়া যাদের ইয়েতে ট্যাবলেট ঢুকিয়ে দিয়েছিলেন তারা প্রত্যেক দিনই জিয়ার নাম জিকির না করলে তাদের ইয়ের ব্যথা যে সারে না এটা পরিষ্কার বোঝা যায়।

১৪| ০৮ ই জুন, ২০১৯ রাত ২:১৮

অনেক কথা বলতে চাই বলেছেন: সুইডেনের কি সমস্যা? জঘন্য কেন? খুলে বলুন তো।

০৮ ই জুন, ২০১৯ রাত ২:৩১

মা.হাসান বলেছেন: সংক্ষেপে বলা যায় ওইখানকার মন্ত্রীরা এমপিরা খুব কম বেতন পান। প্রধানমন্ত্রী ছাড়া আর কেউ যাতায়াতের জন্য সরকারি গাড়ি পাননা । থাকার জন্য দেড়শ থেকে সাড়ে চারশ স্কয়ার ফিটের বাসা পান। এত কম সুযোগ সুবিধা পেলে দেশের কথা চিন্তা করবেন কি করে? অার দেশের কথা চিন্তা করার সময় না পেলে দেশকে আমেরিকা কানাডা কি করে বানাবেন? লিঙ্কটাতে গেলে আরো বিস্তারিত দেখতে পারবেন।

১৫| ০৮ ই জুন, ২০১৯ ভোর ৪:২৩

চাঁদগাজী বলেছেন:

আপনরা পুর্ণাংগ মানুষও নন, আপনারা শিবির

০৮ ই জুন, ২০১৯ সকাল ৭:৩০

মা.হাসান বলেছেন: যারা ১৯৭১ সালে পাকিস্তানিদের নিকট মুরগি সরবরাহ করিতো পরবর্তীতে তারা ভোল পাল্টাইয়া অনেকে মুক্তিযোদ্ধা সাজিয়া গিয়াছে। ইহাদের চিনিবার উপায় হইল রাজাকার সিনড্রোম অর্থাৎ নিজেদের মুক্তিযোদ্ধাত্ব রক্ষা করিবার জন্য আশেপাশে আকাশে বাতাসে তারা স্বাধীনতাবিরোধী খুঁজিতে চায়। একখানা মুক্তিযোদ্ধা সার্টিফিকেটের জন্য ইহারা নিজেদের স্ত্রী-কন্যাকে বন্ধক রাখিতেও দ্বিধা করে না।

১৬| ০৮ ই জুন, ২০১৯ সকাল ৯:০৬

বলেছেন: ""একখানা মুক্তিযোদ্ধা সার্টিফিকেটের জন্য ইহারা নিজেদের স্ত্রী-কন্যাকে বন্ধক রাখিতেও দ্বিধা করে না""''"""""''''।- আসতাগফিরুল্লাহ!!! নাউজুবিল্লাহ।।।।
এগুলো বলে না কষ্ট লাগে যে!! সব কথা মুখে বলতে নেই।।।। আফটার অল মোরা ডিজিটাল হে রামকানাই দাস!!

০৮ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১০:৫২

মা.হাসান বলেছেন: শুধু তাই নয়, দুর্গন্ধ ছড়ানো এই পাঁঠাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা ৭২ এর মেট্রিক ফেল। দেশ থেকে বিতাড়িত এই পাঁঠাগুলি আমেরিকাতে কোন চাকরি বাকরি না পাইয়া বেকার ভাতা উঠায় আর খায় আর ব্লগে পোস্টাইয়া দেশ উদ্ধার করে। ইহারা ব্লগ-এর বিনোদন।

১৭| ০৮ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


@ল ,

মুক্তিযুদ্ধ করেছেন যাঁরা তারা বাংগালী, রাজাকার যারা হয়েছে, তারাও বাংগালী; ব্লগার মা হাসান অবশ্যই রাজাকারদের পক্ষের ব্লগার, আপনি কোন পক্ষের, তা মিলায়ে দেখেন।

০৮ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:২৭

মা.হাসান বলেছেন: রাজাকারদের মুরগি সরবরাহকারী এই সমস্ত ঘেটুপুত্রগন গত ৪৮ বছরে বহুবার ভেক পাল্টাইয়াছে, কিন্তু শেষ রক্ষা করিতে পারে নাই। বাংলার জনগণ ইহাদের পশ্চাদ্দেশে গদাম লাথি মারিয়া দেশ হইতে বিতাড়ন করিয়াছে।

১৮| ০৮ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:৪৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


মুরগী সরবরাহকারী স্বাধীনতাকামীদের কাছে চিহ্নিত হয়েছে, ও মানসন্মান হরায়েছে; আপনারাও মেয়ে সরবরাহকারী হিসেবে চিহ্নিত।

০৮ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৬

মা.হাসান বলেছেন: ইহাদের প্রস্থানে জাতি রাহুমুক্ত হইয়াছে, ট্রাম্প যোগ্য অভিবাসি পাইয়াছে।

১৯| ০৮ ই জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১১

চাঁদগাজী বলেছেন:


ট্রাম্প ভালো মানুষ রাখবে, বাকীদের অবস্হা ভালো নয়।

রাজাকারেরা শুধু পাকীদের সাহায্য করেছে তা নয়, বাংগালী মেয়েদের ধরে এনে পাকীদের হাতে তুলে দিয়েছে; আপনি সেই রাজাকারদের প্রতিনিধি

০৮ ই জুন, ২০১৯ রাত ৮:১৪

মা.হাসান বলেছেন: এই সমস্ত রাজাকারেরা শৈশবে জিন্নাহর নাম জিকির করিয়া মুখে ফেনা তুলিয়াছে। জিন্নাহর ইয়ে চুশিয়া তৃপ্তির ঢেকুর তুলিয়াছে। একাত্তরে পাকিস্তানি সেনাদের ইয়ে চুশিয়াছে। ৭৫ পর্যন্ত এরা গর্তে লুকাইয়াছিল। পরে জিয়ার ইয়ে চুশিতে যাইয়া লাথি খাইয়া বিতাড়িত হইয়াছে। ইয়ে চুষার অভ্যাস এদের মজ্জাগত। এখন বৃদ্ধ বয়সে দন্তহীন মাড়ি দিয়া ট্রাম্পের ইয়ে চুশিতেছে। উদ্দেশ্য যদি একখানা বেকার ভাতার অনুমতিপত্র পাওয়া যায়। যৌবনে টিক্কা খান এদের হিরো ছিল। এখন ট্রাম্প এদের হিরো।

২০| ০৯ ই জুন, ২০১৯ সকাল ১০:৩৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা চিনিবার উপায়টা ভাল বাতলেছেন।ইহাদের চিনিবার উপায় হইল রাজাকার সিনড্রোম অর্থাৎ নিজেদের মুক্তিযোদ্ধাত্ব রক্ষা করিবার জন্য আশেপাশে আকাশে বাতাসে তারা স্বাধীনতাবিরোধী খুঁজিতে চায়।

আমি আরো কিছু যোগ করিতে চাই। এই প্রজাতি উঠতে বসতে খালেদার চৌদ্দগুষ্টি উদ্ধার করে এবং মাঝে মাঝে ব্লগারদের বিভ্রান্ত করার উদ্দেশ্যে সরকারী মন্ত্রীদের দুই একটি মৃদু গাল দেয়। কিন্ত দিনশেষে নেত্রীর বিরুদ্ধে কাউকে লিখতে দিলেই ঢাল তলোয়ার নিয়ে মাঠে নেমে পরেন।

০৯ ই জুন, ২০১৯ রাত ৮:২৩

মা.হাসান বলেছেন: ফিরে এসে মন্তব্য করায় অনেক ধন্যবাদ। পরিচয় সম্পর্কে ঠিক বলেছেন। এই সমস্ত পাঁঠাদের জন্ম রহস্য সম্পর্কে ব্লগার হারাধন একটি মন্তব্য করেছিল। মডারেটররা মন্তব্যটি মুছে দিয়েছে। তবে ব্লগার নীল আকাশের একটি পোস্টে ব্লগার হারাধন বুট জুতো থিওরি নামে একটি থিওরি দিয়েছেন। নিচে লিঙ্ক দিলাম সময় থাকলে দেখে আসতে পারেন।

https://www.somewhereinblog.net/blog/nilakas39/30275276 (২৯ নম্বর মন্তব্য)

২১| ১০ ই জুন, ২০১৯ দুপুর ১:০২

রায়হান চৌঃ বলেছেন: উুমমমহ্‌.......
মন্তব্যে মন্তব্যে চারদিকে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে।

আমি, ৪০ বছরের বয়ষ্ক মানুষ হিসেবে বলতে পারি মুক্তযুদ্ব - মুক্তিযোদ্বা / রাজাকার দেখিনাই, তবে এই ৪০ বছরে তাদের কার্যকলাপে বঝতে পারছি দুটোই দুর্গন্ধ ময় বিষ্টা, পায়খান, ঘু.............

১০ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:০৪

মা.হাসান বলেছেন: আপনার খোলামেলা মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।
শুধু খারাপ মন্তব্য না, এই পোস্টে আরেকটি সমস্যা আছে। ঈদের পরে ব্লগে ব্লগারদের উপস্থিতি খুব কম ছিল। একেকবারে ৬-১০জন ঊর্ধে ২০জন মতো ব্লগারকে লগ ইন করা অবস্থায় দেখা গেছে। ভিউয়ার ৩০০-৬০০ জন মতো উপস্থিত ছিল। এমন পরিস্থিতিতে একটি লেখায় ২০০ ভিউই অনেক, যেখানে এই ব্লগে ভিউ এখন ৪০০র উপর। এটা অস্বাভাবিক।কেউ একজন পোস্ট টি ফলো করেছে এবং ঘুরে ঘুরে এসে নোংরা মন্তব্য করেছে। আমার নিজের অন্যান্য লেখায় কমেন্টের জবাব এবং অন্যান্য আমার কমেন্ট দেখুন এবং এই লেখায় নোংরা কমেন্টকারি অপর জনের অন্যান্য লেখা ও কমেন্ট লক্ষ্য করুন, তাহলে বুঝবেন কোথা থেকে কি হচ্ছে।
যাদের লেখা আমার ভালো লাগে না তাদের পেজে আমি যাইনা। কোন লেখা পছন্দ না হলে উল্টা পাল্টা কমেন্ট করিনা। তবে পাঁঠারা এসে আমার পাতায় দূর্গন্ধ ছড়ালে আমি ঝাঁটা দিয়ে তাড়ানোর চেষ্টা করি।
আমি কাউকে আমার পাতায় ব্লক করতে চাই না বা কারো কমেন্ট মুছে ফেলতে চাই না। তবে আমি সহমত এই পাতার অনেক কমেন্টই শোভন নয়। আপনি ব্যক্তিগত ভাবে অফেন্ডেড হলে কমেন্টের ( বা জবাবের )পাশে যে লাল পতাকা আছে তাতে ক্লিক করে রিপোর্ট করতে পারেন।
আমার অন্যান্য পোস্ট গুলো ঘুরে দেখার অনুরোধ থাকলো।
অনেক শুভকামনা।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.