নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

\"Thus let me live, unseen, unknown/ Thus unlamented let me die/ Steal from the world and not a stone/ Tell where I lye \"

মলাসইলমুইনা

মলাসইলমুইনা › বিস্তারিত পোস্টঃ

বিশেষ অতিথি (গল্প বা অনুগল্প)

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১২:৫৯



এক
অনেক্ষন ধরে বাইরের দরোজার কলিং বেলটা বাজছে |
রিঙের শব্দটা তিন তলার থেকেও শোনা যাচ্ছে |কলিম সাহেবের মুখটা কুঞ্চিত হয়ে উঠলো | কলিম সাহেব জরুরি ব্যবসায়িক কাগজ পত্র দেখছেন | তার মিলের জন্য একটা ব্যাংক লোনের জন্য এপ্লাই করেছিলেন কয়েক মাস আগে | ব্যাংক তার ব্যবসার নানান কাগজপত্র চেয়ে পাঠিয়েছিল লোন স্যাংশনের জন্য | তার গত কয়েক বছরের ট্যাক্সের কাগজ পত্রও সাথে দেওয়া হয়েছিল তার ব্যবসায়ের অর্থনৈতিক অবস্থা যাচাই করতে | প্রায় দুই মাস সব কাগজ যাচাই বাছাই করে ব্যাংক চূড়ান্তভাবে কলিম সাহেব কে জানিয়েছে তারা কলিম সাহেবকে লোনটা দিতে পারবে না | অনেক ভদ্র করে লেখা চিঠিটার একটি অর্থই আছে সেটা হলো তার ব্যবসায়ের অবস্থা ভালো না | তাই ব্যাংক মনে করে লোনটা দিলে কলিম সাহেব ঋণ শোধ করতে পারবেন না | তার মানেই হলো এই ঋণটার খেলাপি হবার সম্ভাবনা আছে | এই ব্যাংক লোনটা এই মুহূর্তে তার ব্যবসার জন্য খুবই দরকার ছিল | এই লোন না পেলে কতগুলো এলসি খোলা হবে না | ব্যবসায়ের নতুন মালপত্র কেনা যাবে না | মুটামুটিভাবে ব্যবসা টিকিয়ে রাখতেও এই লোনটার দরকার ছিল খুবই | এখন দ্রুত কথা থেকে আর লোন আপওয়া যেতে পারে সেটা ভাবতে হবে | কলিম সাহেব মুখে আত্মবিশ্বাস ধরে রাখতে চাইলেন | কিন্তু নিজের ভেতরেই মনে হচ্ছে ভরসা পাচ্ছেন না |

কর্কশ রিংটা বেজেই যাচ্ছে | দারোয়ানটা করছে কী ? এখনো খুলছে না দরজাটা | বিরক্ত কলিম সাহেব নিজেই তিন তলার বারান্দাযা গেলেন | দেখতে হবে কে এলো | নিচে পাড়ার কয়েক জন পরিচিত ছেলেকে দেখা যাচ্ছে | তিনি উপর থেকে জানতে চাইলেন কে ? ছেলেদের মধ্যে থেকে একজন জোরে সালাম দিয়ে বললো, কলিম ভাই,"একটু দরকার ছিল" | কলিম সাহেব তাদের আসছি বলে ঘরে ঢুকলেন |

দুই.
কলিম সাহেব এই পাড়ায় এসেছেন তিন চার বছর | এরই মধ্যে তিনি পাড়ায় সবার কাছেই পরিচিত হয়ে উঠেছেন | বিশেষ করে পাড়ার উঠতি বয়সের ছেলেদের কাছে তিনি খুবই প্রিয় ব্যক্তিত্ব হয়ে উঠেছেন | পাড়ার সব কর্মকাণ্ডেই তার সম্পৃক্ততা | বছরের শুরুতে নতুন বছরের অনুষ্ঠান তাতে বড় অংকের চাঁদা লাগবে, কলিম ভাই আছে | একুশে ফেব্রুয়ারির অনুষ্ঠান হবে অনুষ্ঠান করতে টাকা লাগবে, কলিম ভাই আছে | এভাবেই ধীরে ধীরে পাড়ার তরুণ যুবকদের সাথে এই পাড়ায় আসার পর থেকেই তার পরিচয় ঘনিষ্ঠ হয়েছে | পাড়ার ছেলে পেলেরা তাকে কলিম ভাই বলে ডাকে | প্রৌঢ় কলিম সাহেব তাতে খুবই পুলকিত বোধ করেন | নিজেকে ইয়ং মনে হয় !

এখন কলিম ভাই ছাড়া পাড়ার কোনো অনুষ্ঠানই কল্পনাই করা যায় না | প্রথম প্রথম পাড়ার বা স্থানীয় অনুষ্ঠানগুলোর জন্য আর্থিক সাহায্য করলেও অনুষ্ঠানে যাবার জন্য কেউ বলতো না | বা অনেক সময় বললেও অনুষ্ঠানে পিছনের সারিতেই বসতে হতো | চাঁদার অঙ্ক বাড়ার সাথে সাথে অবস্থা অনেক বদলে গেছে | একুশে ফেব্রুয়ারী, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস এসব অনুষ্ঠানে বড় অংকের চাঁদা দেবার কারণে আস্তে আস্তে তার আসন পেছনের থেকে সামনের সারিতে এসেছে | স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের কাছেও ক্রমশ পরিচিত হয়ে উঠেছেন কলিম সাহেব | এখনতো অনুষ্ঠানগুলোতে পাড়ার ছেলেরা রাজনৈতিক নেতাদের পাশেই স্টেজে বসায় তাকে | কিছু কিছু অনুষ্ঠানে কলিম সাহেব কথা বলারও সুযোগ পান | প্রথম প্রথম একটু আড়ষ্টতা ছিল কথা বলার ব্যাপারে | এখন আর সেটা নেই | এখন মাইক হাতে পেলেই আরো কথা বলতে ইচ্ছে করে | গত মাসেই ওয়ার্ড মেম্বার সাহেব বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে স্বাধীনতা যুদ্ধে নেতার ভূমিকা নিয়ে তার বক্তৃতা শুনে ভূয়সী খুব প্রশংসা করেছেন | কলিম সাহেব নিজের এই পরিচয়ে আত্মপ্রসাদ বোধ করেন |

তিন.
পাড়ার কয়েকজন ছেলে এসেছে |
এদের মধ্যে সরকার দলীয় ছাত্র সংঘঠনের সভাপতি ছেলেটা খুবই আদবের সাথে বললো, “কলিম ভাই আস সালামুআলাইকুম | কেমন আছেন?”
কলিম সাহেব বললেন, “ভালো | তোমরা কেমন আছো ? অনেক দিন দেখা নাই | কি খুবর তোমাদের,বলো?|
-কলিম ভাই, একুশে ফেব্রুয়রিত এগিয়ে আসছে | আপনিতো জানেনই আমাদের ওয়ার্ডের পক্ষ থেকে একুশে ফেব্রুয়ারির অনুষ্ঠান করার ছিল আগের থেকেই |
-হ্যা,জানিতো |
-প্রত্যেক বছরের মতোই এবারও আমাদের ছোট খাটো একটা অনুষ্ঠায় করার কথা ছিল | কিন্তু হঠাৎ একটু ঝামেলা হয়ে গেছে |
-কি ঝামেলা ?
-এবারের অনুষ্ঠানে আমাদের এমপি সাহেব আসবেন বলে কথা দিয়েছেন | হঠাৎ করেই সব ঠিক হয়েছে | এমপি সাহেব সকালে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে আরেকটা প্রোগ্রামে যাবেন তারপরে আসবেন আমাদের প্রোগ্রামে | দুপুরের খাবার এখানেই খেয়ে দলের মন্ত্রীদের সাথে মিটিঙে যাবেন |
-হ্যা, হ্যা সব সুন্দর করে করতে হবে | আমিযে টাকা দিয়েছিলাম হবে তো ?
-কলিম ভাই, একটা কথা ছিল | আপনাকে কিন্তু ঐদিন কিন্তু ফ্রি থাকতে হবে |
-কেন ?
- আপনাকে কিন্তু একুশের প্রোগ্রামে বিশেষ অতিথি থাকতে হবে |
- আমাকে ?
-জ্বী | কিছু বলতেও হবে কিন্তু একুশে ফেব্রূয়ারি নিয়ে !

মনে মনে ভীষণ খুশী হলে কলিম সাহেব | এমপি সাহেব আসবেন ! তার সাথে একমঞ্চে শুধু বসবেন তাই না অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি তিনি ! তাকে অনুষ্ঠানে বক্তৃতাও দিতে হবে ! খুশি লুকিয়ে কলিম সাহেব জিজ্ঞেস বললেন, “হ্যা হ্যা অনুষ্ঠানে সুন্দর করে করতেই হবে |আমাদের জাতির এতো বড় ঘটনা এটা | তোমাদের টাকা পয়সা লাগলে আমাকে বলবে কিন্তু !”

সভাপতি ছেলেটা একটু হেসে বললো, "আপনি ছাড়া আর কার কাছে যাবো আমরা বিপদে | হঠাৎ করে এমপি সাহেব আর দলের কেন্দ্রীয় কিছু নেতা আসার জন্য দুপুরের তাদের খাবারের আয়োজন করতে হবে | সে'জন্য অনুষ্টানের বাজেটটা একটু বেশি বেড়ে গেছে | কিন্তু প্রোগ্রামের টাকাটা এখনো জোগাড় হয়নি | ওপাড়ার মতলব সাহেব খাবারের জন্য টাকাটা দেবেন বলেছিলেন কিন্তু আজ বলেছেন এখন নাকি দিতে পারবেন না | তার কি যেন একটু অসুবিধা আছে |বড় সমস্যায় আছি | আপনি যদি একটু হেল্প করেন তাহলেই এবার সম্মানটা বাঁচে আমাদের" |
- কলিম সাহেব বললেন এমপি সাহেব আসবেন ! সুন্দর করে প্রোগ্রামটা করতে হবে | টাকা সমস্যা না | কত টাকা লাগবে"?

চার
কলিম সাহেব ডাক্তারের কাছে ফোন করলেন |
আজ তার স্ত্রী রেহানাকে নিয়ে বিকেলে ডাক্তারের কাছে যাবার এপয়েন্টমেন্ট আছে | অনেকবার পেছানোর পর আজকের আপোয়েনমেন্টটা পাওয়া গেছে | এই স্পেশালিস্ট ডাক্তার খুবই ব্যস্ত | একবার আপোয়েনমেন্ট মিস করলে এক মাসের আগে আরেকটা এপয়েনমেন্ট পাওয়া খুবই মুশকিল | রেহানার শরীরটা কিছুদিন ধরেই ভালো যাচ্ছে না | আজকের আপোয়েমেন্টটা রক্ষা করা খুবই দরকারি ছিল | ডাক্তারের অফিস থেকে আগেই জানানো হয়েছিল কতগুলো চেকাপ আর ফিজিক্যাল টেস্টের কথা আজ আর কাল পরশুর মধ্যে করতে হবে | টেস্টগুলোর জন্য আগেই সময়, ডাক্তার সব কনফার্ম করার জন্য টাকা আজ আপোয়েনমেন্টের সময়ই টাকাটা দিতে হবে | সব মিলিয়ে প্রায় পঞ্চাশ হাজার | সাধারণ সময়ে এই টাকা তেমন কোনো সমস্যা না | কিন্তু আজকে এই টাকাটা অনেক বেশি মনে হচ্ছে | ব্যাংক লোনটা পাওয়া যাচ্ছে না |

তাছাড়া,ছেলেদের কথা দিয়েছেন পঞ্চাশ হাজার টাকা দেবেন বিকেলের মধ্যে | একটা উৎসব আয়োজনের জন্য টাকা দরকার | টাকা হাতে না থাকলে সুন্দর করে অনুষ্ঠানটা করে অসম্ভব হয়ে যেতে পারে | এদিকে ছেলেরা তাকেই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হবার বায়না ধরেছে !

ফোনের ওপাশ থেকে একজন মেয়ের কণ্ঠ ভেসে আসলো, হ্যালো?
কলিম সাহেব নিজের পরিচয় দিয়ে বিকেলের এপয়েন্টমেন্টটা রিস্কেজিউল করার জন্য অনুরোধ করলেন| ওপাশ থেকে জানানো হলো সামনের তিন সপ্তাহের মধ্যে কোনো স্কেজিউল পাওয়া যাবে না | তারপরে নতুন ভিজিটের সময় পাওয়া যাবে |

পাঁচ
একুশে ফেব্রুয়ারির অনুষ্ঠান ভালো হয়েছে |
কলিম সাহেব মঞ্চে বসেছেন এমপি সাহেবের পাশেই | বিশেষ অতিথি হিসেবে অল্প সময় বক্তৃতাও করারও সুযোগ পেয়েছেন | অনুষ্ঠানের শেষে এমপি সাহেব খাবার দাবারের বিশেষ প্রশংসা করেছেন | কলিম সাহেব লাঞ্চের সব ব্যয় বহন করেছেন বলে এমপি সাহেব খুশি হয়ে বলেছেন এমন পৃষ্ঠপোষক থাকা দলের জন্য সৌভাগ্য | কলিম সাহেব খুব খুশি হয়েছেন এমপি সাহেবের প্রশংসায় | আরো বেশি খুশি হলেন এমপি সাহেবের আশ্বাসে | লোনের একটা ব্যবস্থা তিনি করে দেবেন | একটু পরেই দলীয় মিটিঙে ওই ব্যাংকের মালিক ঢাকার এমপির সাথে তার কথা হবে | উনাকে বলে দেবেন | এমপি সাহেব ভিজিটিং কার্ড দিলেন | ব্যাংকের মালিকের সাথে দেখা করে দিতে হবে | যাক বড় অংকের টাকা চাঁদা দেবার ফলটা এতদিনে পাওয়া গেছে | কলিম সাহেব খুশি হলেন খুব | খুশির সাথে কলিম সাহেব বাসায় ফিরতে ফিরতে ভাবলেন, রেহানাকে বাসায় ঢুকেই সুখবরটা দিতে হবে |

কাজের মেয়েটা দরজা খুলে দিয়ে জানালো, আম্মার শরীরটা ভালো লাগতেছেনা তাই আম্মা একটু শুইছে |
কলিম সাহেব ড্রইং রুমে একটু বসলেন | সেদিনের দৈনিকটা হাতে নিতেই ফোনের রিংটা বেজে উঠলো | ডাক্তারের অফিস থেকে ফোন | ডাক্তার সাহেব নাকি কলিম সাহেবের সাথে কথা বলতে চান! আশ্চর্য কলিম সাহেব কিছু বলবার আগেই ডাক্তার সাহেবের লাইন কানেক্ট করেছে অফিস সেক্রেটারি |
-হ্যালো, কলিম সাহেব?
-জ্বি
-আপনার ‘ওয়াইফের টেস্ট রেজাল্টগুলো আমরা আজকে পেয়েছি’|
-‘জ্বি’
- ‘রেজাল্টগুলো খুব ভালো না’ |
-কলিম সাহেব উদ্বিগ্ন গলায় জানতে চাইলেন, ‘কেন কি হয়েছে’?
-‘ক্যান্সার খুব দ্রুত ছড়িয়ে গেছে শরীরে | আরো মাসখানেক আগে টেস্টগুলো করা গেলে হয়তো ছড়িয়ে যাওয়াটা থামানো যেত’ |
কলিম সাহেব স্তব্ধ হয়ে শুনতে পেলেন ফোনের অন্যদিকে থেকে ডাক্তার সাহেবের গলা ভেসে এলো, ‘আমি খুবই স্যরি’|


ফটো : ইন্টারনেট
-----------
আমি গল্প লিখতে পারি না | কখনো লিখিও নি | এই গল্পটা নিজেই সাহস করে যে পোস্ট করছি তাও না | আমাদের ব্লগেরই ওমেরা আমার এই গল্পটা পড়ে বললো ব্লগে পোস্ট করতে | ওর কথা মত কিছু মেরামতিও করতে হলো গল্পে | ব্লগে এটাই আমার প্রথম গল্প | এই গল্পটা তাই প্রিয় ওমেরাকেই উৎসর্গ করলাম |

মন্তব্য ৫২ টি রেটিং +৯/-০

মন্তব্য (৫২) মন্তব্য লিখুন

১| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১:০৯

ওমেরা বলেছেন: ভাপু———!!!!!! আমি কিন্ত লজ্জা পাইছি । অবশ্য খুশী হয়েছি তার চেয়েও বেশী ।Thank you very much vapu.

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১:১৭

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় ওমেরা, হাঃ হাঃ হাঃ ! আনাড়ি মানুষের লেখা আনাড়ি গল্প উৎসর্গে লজ্জা ! খুব একটা দোষ দেওয়া যাচ্ছে না আপনাকে | ব্লগে প্রথম গল্পের প্রথম পাঠককে শুভেচ্ছা জানাতে হয় আনুষ্ঠানিক ভাবে | সেটা জানাচ্ছি কিন্তু |চা কফির আয়োজন করতে পারলাম না বলে খুবই খারাপ লাগছে ! অনেক ধন্যবাদ নেবেন অখাদ্য গল্প পড়ার জন্য |

২| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১:১৫

ওমেরা বলেছেন: কমেন্ট আর কি করব, গল্প তো আগেই পড়ছি ,আর আপনি তো ভাল লিখেন তাতো জানি।তবে লিখা একটু পরিবর্তনে করাতে বর্তমান সমাজের সাথে পুরোপুরি মিল আছে । আবারও ধন্যবাদ ভাপু ।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১:২৪

মলাসইলমুইনা বলেছেন: মনে হলো আমার আগের কমেন্ট দেখে শান্তনা সূচক একটা মেডেল দিতে চাইলেন | আরে না, আমার লেখা সম্পর্কে আমার ধারণা নিখুঁত | এই গল্পটা কেমন হতে পার সেটাও বুঝতে পারছি | শুধু আমার আনাড়ি লেখার সাথে আপনার নাম জড়িয়ে গেলো দেখে একটু খারাপ লাগছে !! আবারও অনেক ধন্যবাদ নেবেন অখাদ্য গল্প পড়ার জন্য |

৩| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১:৩১

ঢাকার লোক বলেছেন: Sorry for poor Mrs. Kolim! Mr. Kolim failed to make a right choice but he will be fine when his loan is granted! His loan will buy him a wife as well!! And these kids will help him find one in no time!!!

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১:৫৫

মলাসইলমুইনা বলেছেন: ঢাকার লোক: হ্যা, ঠিক বলেছেন লং পেলেন অনক কিছুই করা যাবে | এই টাকার অনেকেই বুঝি আমরা এখন সব মাপছি ! আর এতেই না পাবার হিসেবগুলো বড় বেশি হয়ে যাচ্ছে আমাদের ব্যক্তিগত, সমাজ আর দেশের জন্য | এই ডিলিম্মাটাই গল্পে বলতে চেয়েছিলাম | অনেক ধন্যবাদ গল্প পড়া আর মন্তব্যের জন্য |

৪| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১:৪২

ওমেরা বলেছেন: এতো কিপ্টামী করেন কেন ভার্চুয়াল চা,কফি দিতে তো পয়সা লাগে না !! এক মগ কফি দিলে তাই কি আর হত ।। এই নেন আমিই আপনাকে আপনার পছন্দের ব্ল্যাক ফফি ,সাথে বসন্তদিনের শুভেচ্ছা ।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৩:২১

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় ওমেরা:ধ্যাৎ,ব্লগের প্রথম গল্পের প্রথম মন্তব্যকারীকে কি শুধু ভার্চুয়াল কফি খাওয়ানো যায় ? যখন সামনে সামনি দেখা হবে তখনকার জন্য কফির অফার মুলতুবি করে রাখলাম | স্টারবাকের বিগ কাপ ক্যাফে লাটে আপনার জন্য রিজার্ভ করে রেখেছি | আপনার জন্যও বসন্ত দিনের শুভেচ্ছা অনেক অনেক |

৫| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ২:০২

কাতিআশা বলেছেন: প্রথম গল্প হিসেবে খুবই ভালো হয়েছে!...ফাল্গুনের শুভেচ্ছা রইল!

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৩:০৮

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় ব্লগার কাতিআশা :আপনার মন্তব্য পেয়ে খুবই ভালো লাগলো | কেমন করে যেন মাঝে মাঝে লাক খুব ফেভার করে আমার | প্রচন্ড গোলমাল হয়ে যাবার পরেও মানুষের সহানুভূতি পেয়ে যাই লাকের কারণেই | আমার এই আনাড়ি লেখায় আপনার খুবই সহানুভূতির মন্তব্যে পেয়ে তেমনি গুড লাকের কথা ছাড়া আর কিছু ভাবতে পারছি না | অনেক ধন্যবাদ নেবেন | ভালো থাকবেন |

৬| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ভোর ৪:৩৬

ঢাকার লোক বলেছেন: আমরা অনেকেই আজ টাকার কাছে আমাদের মনুষ্যত্ন বিকিয়ে দিয়েছি। বিমল মিত্রের বিখ্যাত কড়ি দিয়ে কিনলামেও তারই প্রতিফলন দেখেছি সে অনেকদিন আগেই, আপনার গল্পেও একই বেদনাদায়ক দৃশ্য। সময় পেরিয়ে গেছে অনেকদিন, অবস্হার উন্নতিত হয়ইনি বরং সমাজ আরো যেন অবনতির দিকেই দ্রুত ধাবিত হচ্ছে। আজ আমাদের বেড়েছে বিত্ত, লু্প্ত হতে চলেছে মনুয্যত্ব!

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:১৪

মলাসইলমুইনা বলেছেন: আপনার সাথে দ্বিমত করার সুযোগ খুব বেশি নেই | মন্তব্যে আপনি যে কথাগুলো বলেছেন এগুলোই আমাদের সমাজে এখন প্রকট |গল্পে এই সমস্যারই একটি ছবি আঁকতে চেয়েছি | জানি না অবশ্য কতটা সফল হলাম |

৭| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ভোর ৪:৪৬

জাহিদ অনিক বলেছেন:

১ম গল্প!!!

ভালো হয়েছে প্রথম গল্প হিসেবে।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৬

মলাসইলমুইনা বলেছেন: জাহিদ অনিক, অনেক ধন্যবাদ গল্প পড়া আর মন্তব্যের জন্য |

৮| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৮:৪১

ধ্রুবক আলো বলেছেন: ভালো হয়েছে।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২০

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় ধ্রুবক আলো, অনেক ধন্যবাদ গল্প পড়া আর মতব্যের জন্য |

৯| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:৩২

মোস্তফা সোহেল বলেছেন: গল্প তো ভালই লেখেন।অনেক শুভ কামনা রইল ভাইয়া।
হাত খুলে লিখতে থাকুন।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২৩

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় মোস্তফা সোহেল : প্রথম গল্প পড়া আর তার সব ভুল ত্রূটি ভুলে খুবই সময় মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ |

১০| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:৪০

রাজীব নুর বলেছেন: এটা কি বাস্তব গল্প? নাকি কয়াল্পনিক?

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:০৩

মলাসইলমুইনা বলেছেন: কিছু ঘটনা,কিছু ভাবনা,কিছু বর্ণনা সব মিলেইতো হলো গল্পটা লিখা .....|অনেক ধন্যবাদ |

১১| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:০১

সৈয়দ ইসলাম বলেছেন: ভালোলাগা জাবেন প্রিয়।
++++

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:১১

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় সৈয়দ ইসলাম: অনেক ধন্যবাদ গল্প পড়া আর মন্তব্যের জন্য |

১২| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:১১

তারেক মাহমু৩২৮ বলেছেন: ভাল লাগলো গল্পটি, আরো সুন্দর সুন্দর গল্প লিখুন।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:৪২

মলাসইলমুইনা বলেছেন: তারেক মাহমু৩২৮ : অনেক ধন্যবাদ গল্প পড়া আর মন্তব্যের জন্য |

১৩| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৫

ওমেরা বলেছেন: আমার কপাল এত বড় না ভাপু যে আপনার মত সন্মানিত মানুষের সাথে আমার কখনো সামনা সামনি দেখা হবে । তবু অনুগ্রহ করে বলেছেন এতেই আমি অনেক খুশী হয়েছি ভাপু। অনেক অনেক ধন্যবাদ ভাপু।

১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:২১

মলাসইলমুইনা বলেছেন: এই ওমেরা : আশ্চর্য ! স্টকহোম মেরিটাইম মিউজিয়াম বা Vasa Meuseum দেখার আগ্রহ আমার কত দিনের | ওটা দেখতে গেলেই আপনার কফি আপনাকে খাওয়াব | জানেন নিশ্চই সুইডিশরা পৃথিবীর থার্ড হায়েস্ট কফি কনজ্যুমার পার হেড কাউন্টে ? আমি নিজে কফি পাগল মানুষ |স্টকহোমের কফিপার্লারগুলো ঘুরে আমি কফি খেতে চাই | মেরিটাইম মিউজিয়ামের কাছে Café FOAM -এর যে ব্রেঞ্চটা আছে সেখানে আমি অবশ্যই কফি খেতে চাই | আপনার অবশ্য একটা একটা ‘kaffepaus’ নিতে হবে | ওকে ? একটু Welcome বলুন আপনাদের দেশে যেতে !

১৪| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:৪৭

জুন বলেছেন: কলিম সাহেবের মত একজন ব্যাক্তি আমার খুব চেনা । উনি নিজের পরিবারকে না খাইয়ে বড় বড় গলদা চিংড়ি পাঙ্গাশ মাছ আর বাজারের সেরা জিনিস এমপি সাহেবকে পাঠাতেন । দিন শেষে হিসাব নিকাশে বড়ই গন্ডগোল হয়ে গেল তারও আপনার কলিম সাহেবের মতই ।
প্রথম বলে নয় এমনিতেই মনে দাগ কেটে যাবার মত ভালোলাগলো গল্পটি মলাসইল্মুনা ।
+

১৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:২৬

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় ব্লগার জুন, অনেক ধন্যবাদ আমার এলেবেলে গল্প পড়ার জন্য আর খুবই সহানুভূতিমাখা মন্তব্যের জন্য | হ্যা গল্পে এই সময়ের কিছু সামাজিক অসঙ্গতিই আসলে গল্পে বলতে চেয়েছিলাম | আপনার জহুরির চোখ ঠিকই তা ধরতে পেরেছে | আবারো একবার ধন্যবাদ নেবেন আমার এই যাচ্ছে তাই লেখা পরেও অন্তহীন উৎসাহ দিয়ে যাবার জন্য |ভালো থাকবেন |

১৫| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:৪০

গিয়াস উদ্দিন লিটন বলেছেন: ওমেরা'পুর কল্যানে চমৎকার একটি গল্প পেলাম।
আমার কমেন্ট খানিও ওমেরা'পুকে উৎসর্গ করা :P

১৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:৪০

মলাসইলমুইনা বলেছেন: গিয়াস ভাই, অনেক ধন্যবাদ গল্প পড়া আর মন্তব্যের জন্য | ওমেরাকে আপনার মন্তব্য জানিয়ে দিয়েছি |

১৬| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ২:১১

মাআইপা বলেছেন: ভাল লেগেছে। খুব সাধারণ ভাবে অনেক কিছুই চিত্রায়িত করেছেন।
ধন্যবাদ সুন্দর পোস্টের জন্য।

১৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:১০

মলাসইলমুইনা বলেছেন: মাআইপা : অনেক ধন্যবাদ গল্প পড়া আর মন্তব্যের জন্য |

১৭| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ২:২৯

করুণাধারা বলেছেন: গল্পটা এমনই যে শুরু করার পর শেষ না করে উঠতেই পারলাম না। গল্প ভাল হয়েছে- প্রথম গল্প হিসাবে খুবই ভাল।

লিখতে থাকুন। শুভকামনা।

১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ২:১৫

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় ব্লগার করুণাধারা : আমার আনাড়ি হাতের লেখা গল্প পড়ে আপনার ভালো লেগেছে জেনে খুবই খুশি হয়েছি | আপনার খুবই সদয় মন্তব্য পেয়ে ভালো লাগলো অনেক | গল্প পড়া আর মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ দেবেন | ভালো থাকবেন |

১৮| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:০৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: মলাসইলমুইনা ,




যশ-খ্যাতির মোহে পড়া মানুষকে অনেক কিছুই ছাড় দিতে হয় । গল্পে তেমন একজন মানুষের কথাই উঠে এসেছে ।
প্রথম লেখা গল্পের মতো মনেই হয়নি । দারুন ।
লাগে রহো .........মুইনা ভাই ।

১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ২:৪০

মলাসইলমুইনা বলেছেন: আহমেদ জী এস ভাই :
জ্বী, এই সময়ে আমাদের সমাজের কিছু মূল্যবোধের অভাব, অবক্ষয় নিয়ে একটা গল্প লেখার চেষ্টা করলাম | আমার বর্ণনা একটা গল্প হলো কিনা এখনো বুঝতে পারছিনা কিন্তু আপনার মন্তব্যে দারুন ভাবে অনুপ্রাণিত হলাম সেটা বুঝতে পারছি খুব পরিষ্কার করে | অনেক ধন্যবাদ (অ)গল্প পড়া আর মন্তব্যের জন্য | ভালো থাকবেন এই বসন্তে ....|

১৯| ১৪ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:৩২

ভাইরাস-69 বলেছেন: গল্পের প্রসংশা করে আপনাকে আর ছোট করতে চাই নাহ! শুধু বলব, আপনার লেখা হাত বেশ ভাল আর ওদিকে ওমেরার লেখা আজ পড়লাম সে অল্প কয়েক লাইনের সুন্দর কবিতা লিখেছে। দুজনের জন্য শুধু কামনা রইল।

১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ভোর ৪:৩২

মলাসইলমুইনা বলেছেন: ভাইরাস-69 : কিছুতো করিনি শুধু ব্লগে একটু লিখেছি অনেকের সাথে | আমার সেই সামান্য লেখায় আপনার মন্তব্যে খুবই লজ্জা পেয়ে গেলাম | এই ব্লগেই কত ব্লগারকেই যে হিংসে করতে ইচ্ছে করে তাদের দুরন্ত ভালো লেখার জন্য ! যাহোক, অনেক ধন্যবাদ আপনার খুবই সহানুভূতিশীল মন্তব্যের জন্য | ওমেরাকে আপনার শুভ কামনা জানিয়ে দেব নিশ্চই |ভালো থাকুন |

২০| ১৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:৩৬

শিখা রহমান বলেছেন: গল্প ভালো লেগেছে। কবিতা, প্রবন্ধ যিনি এমন ভালো লিখতে পারেন, তার লেখা গল্পও যে ভালো হয়েছে সেটা নিশ্চয়ই বলার অপেক্ষা রাখে না। :)

শুভকামনা। ফাল্গুনী শুভেচ্ছা।

১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৮:৩৩

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় গল্পকার শিখা রহমান : আপনিতো জানেন আমি কত মুগ্ধ পাঠক আপনার গল্পের ! আপনার সাথে একই ব্লগে কখনো আমিও গল্গ লেখবো এটা কিছুদিন আগেও সবচেয়ে বড় সুখ স্বপ্নেও আমি ভাবিনি | সেটা যে হয়ে গেলো আর আমার সেই গল্পে আপনি মন্তব্য করেছেন সেটাও এখনো পুরোপুরি বিশ্বাসযোগ্য মনে হচ্ছে না | ব্লগে আপনার গল্পগুলো যেন আলো ঝলমল রাজপ্রাসাদ | আমার লেখাজোখা বিশেষ করে গল্পের ঘর সেই তুলনার হবে লতা পাতা জড়ানো, শ্যাওলা মাখা ভাঙা দেয়ালের কোনো অন্ধকার আর্কিয়োলজিকাল রুইনের মতো | আমিও সেটা জানি | কিন্তু আজকে আমার গল্পে আপনার মন্তব্যটা পড়ে এখন মনে হচ্ছে আমার গল্পের অন্ধকার ঘরও হাজার সূর্যের আলোয় ভোরে উঠেছে ! আপনার মন্তব্যটা পেয়ে ভীষণ ভালো লাগলো | প্রিয় গল্পকার অনেক ধন্যবাদ আমার লেখায় মন্তব্যের জন্য | ভালো থাকবেন |

২১| ১৫ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:৪৫

মনিরা সুলতানা বলেছেন: বাহ বেশ তো !!!!!
মনে ছাপ ফেলার মত গল্প বলেছেন ; আমার ভালো লেগেছে ।

বাসন্তী শুভেচ্ছা ।

১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:০৪

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় ব্লগার মুনিরা সুলতানা : আমার গল্প লেখার সীমাবদ্ধতা জানাই ছিল তাই আমার গল্প বলা কেমন হলো সেটা নিয়ে মাথা ঘামাইনি আসলেই | ঈগলময় কোনো আকাশে ছোট কোনো চড়ুই পাখির বিরাট আকাশে উড়ার ইচ্ছেটাকে সীমাবদ্ধ রাখার মতোই গল্প নিয়েও আমার চাওয়া ছিল খুব কম | সেভাবেই চলে যাচ্ছিলো সব | কোনো খারাপ লাগাও ছিল না সেজন্য | কিন্তু আপনার মন্তব্যে গল্প লেখাৰ আমার ছোট চড়ুই পাখি মন এখন গল্পের আকাশে ঈগল হয়ে উড়তে চাইছে | অনেক ধন্যবাদ আরো গল্প লেখার সীমাহীন উৎসাহ জোগানোর জন্য (হবে কি না তা অবশ্য এখনো জানিনা) | বসন্তের একগুচ্ছও শুভেচ্ছা আপনার জন্যও |

২২| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৭:৫১

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: কিছুটা পড়লাম , আবার সময় করে আসব ।
বসন্তের শুভেচ্ছা রইল ।

১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:২৯

মলাসইলমুইনা বলেছেন: আলী ভাই, শরীরে ভালো না লাগা নিয়েও আমার ব্লগে আসার জন্য অনেক ধন্যবাদ | আশাকরি খুব তাড়াতাড়ি পুরোপুরি সুস্থ্য হয়ে আবার আসবেন | ব্লগে আমাদের সাথে আরো অনেক্ষন করে থাকবেন |

২৩| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:০৬

সুমন কর বলেছেন: সাবলীল বর্ণনা। ভালো লেগেছে। গল্পে ভালো লাগা রইলো।

১৮ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ২:২৬

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় সুমন কর: গল্প পড়া আর মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ নেবেন | ভালো থাকবেন |

২৪| ১৬ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১১:০৯

MirroredDoll বলেছেন: what a tragedy!!!!
well writing

১৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৭:২১

মলাসইলমুইনা বলেছেন: MirroredDoll : অনেক ধন্যবাদ নেবেন গল্প পড়া আর মন্তব্যের জন্য | ভালো থাকবেন |

২৫| ১৮ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ভোর ৫:৩০

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: গল্পটি পুরাটাই পড়লাম । গল্পের আকার মোটামুটি বড় হয় বলে একটানে অনেক গল্পই পড়া হয়ে উঠেনা । তবে এই গল্পটি বেশ মনযোগ আকর্ষন করেছে । খুব স্বাভাবিক কিছু ব্যক্তিগত ব্যবসায়িক কথাবার্তা দিয়ে গল্পের গাথুনীটা শুরু হলেও ক্রমে ক্রমে এটা একটি করুন পরিনতির দিকে এগিয়ে গেছে দেখে ভাল লেগেছে । মানুষ অবিবেচক ও লোভী হলে পরিনতি কেমন হয় গল্পচ্ছলে তা সুন্দরভাবে উঠে এসেছে । গল্পটির ধরনে ও তার প্রকাশ শৈলী , ভাষা ও শব্দ প্রয়োগের সাবলীলতা হতে বুঝতে পারছি আমরা একজন শক্তিশালী গল্প লেখক পেতে যাচ্ছি ।
নিরন্তন শুভেচ্ছা রইল ।

১৯ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৯:৫৬

মলাসইলমুইনা বলেছেন: আলী ভাই (ডঃ এম এ আলী) : জানি আপনার শরীরটা পুরোপুরি এখনো ভালো না | সেই শরীরে আমার গল্পটা পড়েছেন জেনেই মনে অনেক ভালো লাগা | আর আমার গল্প পরে তার বিশ্লেষনটাতেও খুব খুশি হয়েছি | কিন্তু সবচে বেশি ভালো লাগছে আপনার শেষ মন্তব্যে | কি আর লিখি ! সব সময়ই মনে হয় এসব হাবিজাবি ছাড়া আর কিছু হচ্ছনা | গল্প লেখার চেষ্টাই করিনি আমি আগে খুব একটা | খুবই রিসেন্টলি কয়েকটা গল্প লেখা হয়েছে | আমাদের ব্লগে কত ভালো গল্পকার | তাদের গল্প পড়েও আমার মতো একজনের গল্প নিয়ে আপনার যা ধারণা হয়েছে তা জেনে এতোই অবিভুত হয়েছি যে আমার মতো সামান্য ব্লগারের আপনার মন্তব্যে যে যারপর নাই গর্বিত হবার কথা সেটাও ভুলে গেছি |আপনার সীমাহীন সদয় মন্তব্যের জন্য একটা ধন্যবাদ নিন | ভালো থাকুন |

২৬| ২১ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ২:৫৬

উম্মে সায়মা বলেছেন: সুন্দর হয়েছে গল্প। কে বলেছে আপনি গল্প লিখতে পারেননা!
আজকের সমাজের নিষ্ঠুর বাস্তবতা -_-

২১ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ভোর ৪:৪৫

মলাসইলমুইনা বলেছেন: প্রিয় ব্লগার উম্মে সায়মা : খুবই খুশি হলাম আপনার মন্তব্য পেয়ে | আমি আপনাদের মতো সব্যসাচী কিছু মানুষের সাথে থাকি ব্লগে সেই প্রথম আসার দিন থেকেই | মোগলের সাথে খানা তো মোগলাই-ই হয় | আপনাদের মতো সব্যসাচী ব্লগারদের ছায়ায় ছায়ায় থেকে আমিও তাই বিবর্তনবাদের সাক্ষী হয়ে যাচ্ছি ...| আবারো ধন্যবাদ | অনেক ধন্যবাদ মন্তব্যের জন্য

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.