নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

স্বপ্ন দেখি সভ্য পৃথিবীর, যেখানে মানুষের মাঝে সত্যিই শুধু মানুষ পাবো, যেখানে মানুষের বেশে কোন অমানুষ থাকবে না ।

অচেনা হৃদি

অচেনা হৃদির ডিজিটাল ডায়েরিতে আপনাকে স্বাগতম!

অচেনা হৃদি › বিস্তারিত পোস্টঃ

ফ্ল্যাট ট্রিটমেন্ট

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:২৮



মেয়েটার পেছনে ছেলেটা নাছোড়বান্দার মত ঘুরেই চলছে । মেয়েটা কত রকমে বুঝিয়ে বলল সে এখন শুধু পড়ালেখা আর ক্যারিয়ার নিয়ে ভাবছে, কোন রিলেশনে জড়াতে চায় না । অথচ অবুঝের মত ছেলেটা মেয়েকে বিরক্ত করছে । প্রতিদিন কলেজে যাবার পথে দাঁড়িয়ে ছেলেটা মেয়েটাকে বেশ আবেগময় ভাষায় প্রেম নিবেদন করে । মেয়েটা স্বাভাবিকভাবে না করে দেয় । ছেলেটা পরদিন এসে আবার নতুন কোন ডায়ালগ দিয়ে প্রেম নিবেদন করে । মেয়েটা আবারো তাকে ফিরিয়ে দেয় ।

এভাবে একদিন ছেলেটা মেয়েকে বলে, ‘দেখো, তোমাকে আমি ভুলতে পারবো না । তুমি যদি সারাজীবন আমাকে ফিরিয়ে দাও তবুও আমি প্রতিদিন সকালে তোমার কাছে মন ভিক্ষা চাইবো । আমাকে ফিরিয়ে দিও না প্লিজ, আমি তুমি একসাথে জীবন কাটাবো । কথা দিচ্ছি, আমি তোমার জন্য এক তাজমহল বানিয়ে দেব । মৃত্যুর পর সেই তাজমহলে আমি তোমার পাশে থাকতে চাই । একবার যদি তুমি আমার হাত ধরো আমি তোমাকে ছেড়ে যাবো না, বেঁচে থাকি বা মরে যাই, কেয়ামতের আগে আর কেউ তোমাকে-আমাকে পৃথক করতে পারবে না ।’
মেয়েটা কিছুক্ষণ নীরবে ছেলের চেহারার দিকে তাকিয়ে রইল । মেয়েটা মনে মনে ভাবল, আহা, এই ছেলে তো দেখি আমায় নিস্তার দেবে না । তার প্রপোজে যতদিন সাড়া দেব না ততদিন সে নতুন উদ্যমে আমাকে বিরক্ত করতে থাকবে । এই ছেলেটাকে একটা ফ্ল্যাট ট্রিট দিলে নিশ্চিত সে একদম শান্ত হয়ে যাবে । আর কখনো বিরক্ত করবে না ।
মেয়েটার মুখে হাসি ফুটে উঠলো । ছেলের চোখে চোখ রেখে মেয়েটা বলে, সত্যিই তুমি আমাকে আজীবন ভালবাসবে ?
ছেলেটা বলে, হ্যাঁ সত্যিই আজীবন ভালবাসবো ।
মেয়েটা আবার বলল, মৃত্যু পর্যন্ত তুমি আমার পাশে থাকবে ?
ছেলেটা বলল, হ্যাঁ হ্যাঁ মৃত্যু পর্যন্ত পাশে থাকবো ।
মেয়েটা সুন্দর করে হাসি দিয়ে বলল, সত্যিই আমার জন্য তাজমহল বানিয়ে দেবে ?
ছেলেটা ব্যপক উৎসাহ নিয়ে বলল, হ্যাঁ হ্যাঁ আমি তোমাকে তাজমহল বানিয়ে দেবো !
মেয়েটা ভুবন ভোলানো রিনরিনে হাসি দিয়ে বলল, আহ, আমি তো তোমার মত এমন একজনকেই চাই । আমি তোমার প্রস্তাবে রাজি । শোন, আগামিকাল সকাল দশটা বাজে তুমি আমার সাথে দেখা করার জন্য রেডি থেকো । আমি তোমাকে ফোন দিয়ে বলে দেবো কোথায় আসতে হবে । প্লিজ আমি ফোন দেবার আগে তুমি আমাকে কল দিও না, কেমন ?
ছেলেটা খুশিতে উচ্ছসিত কণ্ঠে বলল, ইয়েস ! আর মনে মনে বলল- যাহ শালী শেষ পর্যন্ত তোকে সিস্টেম করে ফেললাম !

পরদিন ছেলেটা সেজেগুজে রেডি হয়ে মেয়েটার ফোনের অপেক্ষায় অধীর আগ্রহ নিয়ে বসে রইল ।
ঠিক সকাল দশটা বাজেই মেয়েটা ছেলেকে ফোন দিল । ছেলের মোবাইলে মেয়েটার কল আসতেই আনন্দে নেচে উঠে ছেলেটা কল রিসিভ করে বলল, হ্যালো জান, কোথায় তুমি ? তুমি কোথায় প্লিজ তাড়াতাড়ি বল ! আমি আর পারছি না । অপেক্ষা করতে করতে আজ আমি মরে যাচ্ছি । তোমাকে দেখলেই আমি যেন বাঁচি । কোথায় তুমি ?
মেয়েটা হেসে বলল , জান এতোগুলান দিন যখন ধৈর্য ধরছো আর একটু কষ্ট কর প্লিজ । আমি মিরপুরে আছি, তুমিও চইল্যা আসো, আজ আমগো অনেক কিছু করনের আছে ।
ছেলেটা বলল, ওয়াও ! মিরপুরে কোথায় জান ? বোটানিক্যাল গার্ডেনে ?
মেয়েটা বলল, আরে ধুর । বোটানিক্যাল গার্ডেনের ঝোপ জঙ্গলে গিয়া কি করমু ? আমি একটা ফ্ল্যাটে আসছি । তুমিও চইল্যা আসো ।
ছেলেটা মনে মনে বলে উঠলো, আরে এ তো দেখি মেঘ না চাইতেই বৃষ্টি ! আমার ভাগ্যটা যে এতো ভালো তা তো কখনো ভাবিনি । খুশিতে উদ্বেলিত ছেলে চিৎকার দিয়ে বলল, ওহ ফ্যান্টাস্টিক জান ! আমি এখুনি আসছি । কোথায় তুমি ? এড্রেসটা বল ।
মেয়ে হেসে বলে, মিরপুরে নাভানা রিয়েল এস্টেট গ্রুপ একটা নতুন হাউজিং প্রজেক্ট করছে । আমি সেখানে আমাগো জন্য একটা ফ্ল্যাট কিনতাছি । তুমি টাকা নিয়া আসো ।
ছেলেটা কিছুই বুঝল না । সে কিছুটা অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করে, কি বললা জান ? বুঝি নাই !
মেয়েটা জবাব দেয়, বুঝো নাই ? আইচ্ছা আবার কইতাছি, হুনো । তুমি আমি মিলা তো বাকি জীবন একলগে কাটামু । তো আমরা কি হারাজীবন গাছের তলায় থাকমু ? নাহ, আমরা একটা ফ্ল্যাট কিন্যা সেখানে আরামে থাকমু । এর লাইগা আমি নতুন ফ্ল্যাট দেখতে আসলাম । ফ্ল্যাট দেখে আমার পছন্দ হয়া গেছে । আমি অখনি বুকিং দিয়া দিতাছি । কাগজপত্র সব রেডি । এখন খালি টাকাটাই বাকি, তুমি ঝটপট বিশ লাখ টাকা নিয়া আসো ।
ছেলেটা সব শুনে তব্দা মেরে গেলো । কিছুক্ষণ চুপ থাকার পর হো হো করে হেসে ছেলে বলল, জান তুমি তো সেইরাম জোকস করতে পারো । তোমার কথা শুনে আমার খুব হাসি পাচ্ছে । তোমার কথা বলার স্টাইল পুরো গুন্ডাদের মত হচ্ছে ।
মেয়েটা হেসে বলল, আরে জান, আমি তো এমনেই কতা কই ? তোমার কাছে আমার কতার স্টাইল ভাল্লাগছে ? অসুবিদা নাই, তুমি আমার কতা হুনতে হুনতে হারাজীবন হাসতে পারবা । তয় এখন হাসাহাসির টাইম নাই । টাকা নিয়া আসো ।
ছেলে বলে, তুমি রিয়েলি রিয়েল এস্টেটের অফিসে গেছো ?
মেয়ে শান্ত গলায় বলল, হ্যাঁ, হাঁচাই আসছি । দাঁড়াও তোমারে ইমোতে একটা ভিডিও কল দিতাছি । তাইলেই বুঝতে পারবা ।

সাথে সাথে মেয়েটা ভিডিও কল দিল । ভিডিও কলে ছেলেকে মেয়েটা দেখাল সে হাউজিং সোসাইটির অফিসে বসে আছে, তার হাতে ফ্ল্যাট বুকিং দেবার কাগজপত্র সব রেডি । সব দেখে শুনে ছেলে ভয়ে ভিডিও কল কেটে দিল । মনে মনে সে ভাবতে লাগলো তার সাথে মেয়েটা এসব কি করছে ! এই মেয়ে কি সুন্দর শুদ্ধ বাংলায় কথা বলত । আজ তার কথার একসেন্ট একদম মাস্তানদের মত হয়ে গেছে । মেয়েটা কি ছেলেটাকে সত্যিই ফ্ল্যাটবাড়ি কিনে দিতে বলছে ? নাকি এটা আসলে প্রাঙ্ক ! চারদিকে যেভাবে প্রাঙ্ক বেড়ে গেছে এই মেয়েটা হয়ত সেভাবেই প্রথম ডেটিংটাকে স্মরণীয় করে রাখতে প্রাঙ্ক করছে ।

মেয়েটা আবারো কল দিল । ছেলেটা কল রিসিভ করবে না ইগনোর করবে বুঝল না । কল বাজতে বাজতে কেটে গেল । মেয়েটা আবারো কল দিল । ছেলেটা কাঁপা হাতে কল রিসিভ করল । মেয়েটা আদুরে গলায় মিষ্টি ধমক দিয়ে বলল, এই তুমি কেটে দিলা কেন ? আমার কতা তো শেষ অয় নাই । আচ্ছা কতা পরে কমুনে, তুমি টাকা নিয়া আসো ।
ছেলেটা তোতলাতে তোতলাতে বলল, আ-আ-আমি টাকা কো-কোথায় পাবো ?
মেয়েটা বলল, আরেহ, তুমি তাজমহল বানানোর জন্য টাকা জমাই রাখছ না ! দেখো, মরার পরে তাজমহল দিয়া কি অইব ? তুমি আমি মরার পর আজিমপুর কবরস্থানের এক কিনারে পইড়া থাকমু । কাজেই ওইটা নিয়া ভাইবো না । আপাতত যদ্দিন বেঁচে আছি আমরা মিরপুরের ফ্ল্যাটে থাকমু । মরার পর তোমার কাছে তাজমহল চাই না জান । তোমার কাছে আমার একটাই আবদার, তাজমহলের ফাণ্ড ভাইঙ্গা আমারে ফ্ল্যাট কিন্যা দাও ।
ছেলেটা থতমত খেয়ে বলল, জান আজ সকাল থেকে আমার খুব পাতলা পায়খানা চলছে । আমি মিরপুর কিভাবে যাবো বল ? আমি তো বের হতেই পারছি না ।
মেয়েটা আফসোস করে বলল, ইশ! আজেবাজে জিনিস খায়া পেট খারাপ কইরা ফালাইছো । আচ্ছা কষ্ট কইরা এদ্দুর আসার দরকার নাই । আমি তোমারে মেসেজ দিয়া রিয়েল এস্টেট কোম্পানির একাউন্ট নাম্বার দিতাছি । তুমি তাড়াতাড়ি বিশ লাখ টাকা পাঠাই দাও । পারলে আরও বেশিও দিতে পারো । আগে পরে যখনই হউক সব টাকা তো তোমারেই শোধ করতে হইব । এখন যত টাকা দিয়া ফালান যায় তত ভালা । পেশাব পাইখানা সারায়া বের হইয়া ব্যাংকে যাও, অসুবিধা নাই । আমি এইখানে আছি । টাকা জমা দিয়াই আমারে একটা কল দিও জান ।
ছেলেটা তাড়াতাড়ি ফোন কেটে দিল । তারপর দ্রুত মোবাইলটা বন্ধ করে সিম খুলে তোষকের নিচে রেখে দেয় ।

পরদিন থেকে মেয়েটা নিশ্চিন্তে কলেজে আসা যাওয়া করতে লাগলো । কেউ আর কোনদিন পথ আটকিয়ে প্রেম নিবেদন করে তাকে বিরক্ত করেনি ।

মন্তব্য ৭০ টি রেটিং +১২/-০

মন্তব্য (৭০) মন্তব্য লিখুন

১| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৩৪

সিগন্যাস বলেছেন: ঘুমুচ্ছি পরে পড়বো |-)

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৩৯

অচেনা হৃদি বলেছেন: আইচ্ছা ঠিক আছে, তয় একখান কতা আছে । আপনের নাকি সামুতে কয়েকখান মাল্টি নিক আছে ? ঘুম থেকে উইঠ্যা হেইগুলা থেকে কয়েকটা কমেন্ট রাইখেন !
=p~

২| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৪২

রাজীব নুর বলেছেন: মেয়েটা মেয়েটা---
মেয়েটার নাম নেই?

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৪৮

অচেনা হৃদি বলেছেন: নেই মানে ! নাম ছাড়া কি মানুষ হয় নাকি । মানুষের বিশেষ করে মেয়েদের নাম তো থাকেই, এই মেয়েটারও চমৎকার মনমাতানো মনোহারিণী একটা নাম আছে, মেয়েটার সেই নাম শুনেই কতজন তার প্রেমে পড়ে যেতো ! আর আপনি বলছেন মেয়েটার নাম নেই ?

মেয়েটার নাম হল...
:-/

( :( বিরাট এই কমেন্ট লিখতে লিখতে আমি মেয়েটার আসল নাম ভুলে গেছি ! )

:P =p~

৩| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৫০

লায়নহার্ট বলেছেন: {নিকটা কি হ্যাক হয়েছে?}

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৫৬

অচেনা হৃদি বলেছেন: জী, জনাব সিংহহৃদয় সাহেব । এই নিকের মালিক হৃদিতা ম্যাম আজকের জন্য তাঁর ব্লগ হ্যাক করার সুযোগ দিয়েছেন । চাইলে আপনিও একবার ট্রাই করতে পারেন...
Email: hrridita_huntress@yahoo.com
Pass: oW396402

Carry On guys.....

=p~

৪| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৫৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


নতুন ধরণের কিছু, হাসলাম।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:০৬

অচেনা হৃদি বলেছেন: ধন্যবাদ স্যার ।
এর আগের পোস্টেও বলেছিলাম আপনি মন্তব্য করলে হঠাত কলিজা শুকিয়ে যায় । আপনি স্ট্রেইটকাট কথা বলতে ছাড়েন না, পুরনো ব্লগারদেরও উচিৎ কথা শুনিয়ে দেন । তাই নোটিফিকেশনে আপনাকে আসতে দেখলেই ভয় হয়, না জানি আবার কি ধমক দিয়ে গেলেন ।

সবসময় খুব গোছালো মিষ্টি কথা বলতে ভালো লাগে না । তাই আজ একটু ব্যতিক্রম হবার চেষ্টা করলাম ।
আপনাকে হাসাতে পেরে আমি আনন্দিত । :)

৫| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:০৪

তারেক ফাহিম বলেছেন: ফ্ল্যাট ট্রিটমেন্ট এমনিও হয় ;)

ছেলেটি ভালোই শিক্ষা পেয়েছে।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:১২

অচেনা হৃদি বলেছেন: :)
এমন ফ্ল্যাট ট্রিটমেন্ট বাস্তবে হয় কি না জানি না ভাইয়া । এটা লেখকের উর্বর মস্তিষ্ক হতে উৎপন্ন একটি গল্প । বাস্তবতার সাথে এর আদৌ মিল নেই ।

পাঠ ও সুন্দর মন্তব্যের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ । ভালো থাকুন ভাইয়া ।

৬| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:০৯

অচেনা হৃদি বলেছেন: পোস্টটা দিতেই কেউ একজন প্রিয়তে নিয়ে গেলেন । এমন হালকা রসিকতার পোস্ট কার কাছে প্রিয়তে নেবার মত মনে হয়েছে জানতে মন চাইছে । কেউ হয়ত সাময়িকভাবে প্রিয়তে রেখেছেন । জানতে পারলে ভালো লাগতো ।

৭| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:১০

মিঠু পারভেজ বলেছেন: যদিও কল্পনা তবুও ভাল একটা ইনফো পাইলাম,
মাগার কোন মাইয়ারে ওহন থিকা তাজমহল বানানোর কথা দেওন যাইবো না।
দিলেই ফ্লাট ট্রিটমেন্ট :)

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:২৬

অচেনা হৃদি বলেছেন: ওয়াও, এইটা তো দেখতাছি মিনা কার্টুনের সেই টিয়াপাখি মিঠু !!!
হিহিহি....
ভাই সাবধান থাইকেন, কাউরে প্রপোজ করার সময় এতো বিরাট তাজমহলের নাম নেয়ার দরকার নাই ! আপনে কইয়েন তারে বসুন্ধরা নয়তো ডিওএইচএস-এ তিনরুমের একখান ফ্ল্যাট কিন্যা দিবেন । এতেই কেল্লা ফতে হয়া যাইব !
=p~

পাঠ ও মন্তব্যে শুভেচ্ছা এবং হৃদির ব্লগে স্বাগতম ! :)

৮| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:১০

স্রাঞ্জি সে বলেছেন: ভাল লাগল, আর কিছুটা হাসলাম।

+++

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:২৮

অচেনা হৃদি বলেছেন: ধন্যবাদ ভাইয়া, পাঠ ও মন্তব্যে শুভেচ্ছা ! :)

৯| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:১১

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: মেয়েটা বেশ ভাল চাল দিয়েছে।

এভাবেই বুদ্ধির জোরে মানুষ বেঁচে যায়।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৩১

অচেনা হৃদি বলেছেন: :)
জী সরকার ভাইয়া । কোথায় আছে না, বুদ্ধি থাকলে ঘরজামাই থাকা লাগে না ! সেই কথার নতুন সংস্করন হল- বুদ্ধি থাকলে ছেলেদের পামে গলে যেতে হয় না । =p~

সুন্দর মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা ভাইয়া । ভালো থাকবেন !

১০| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:১৫

জাহিদ অনিক বলেছেন:

হুম ! ভালো লিখেছেন। মেয়েটা বেশ বাস্তববাদী। আই লাইক হার।
ছেলেরা এমন হয় একটু কল্পনায় উড়তে টুরতে চায়। তারপর এরকম দুই একটা ধাক্কা টাক্কা না খেলে বাস্তবে ফিরে আসে না।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৩৫

অচেনা হৃদি বলেছেন: :)
১০টা মন্তব্যের মাঝে সবচেয়ে ভালো লেগেছে আপনার মন্তব্যটি । চমৎকার এই মন্তব্যের জন্য হৃদিপুর্ন ধন্যবাদ ভাইয়া ।

অনেক ছেলে তো কল্পনার হাওয়ায় এতো বেশি ভেসে যায়, পরে আর ঠাণ্ডা মাথায় ল্যান্ডিং করতে পারে না । =p~

১১| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:২৪

পলাশবাবা বলেছেন: হু এই মাইয়ার লেসবিয়ান হওয়া ছাড়া উপায় নাই।

১৩ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১২:১৯

অচেনা হৃদি বলেছেন: আপনার মন্তব্যের জবাব দেবার ইচ্ছে আমার নেই । তবে চাইলে পরের মন্তব্যগুলো দেখতে পারেন । সেখানে কয়েকজন আপনাকে সম্বোধন করে কিছু বলেছে ।

১২| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৩৭

তারেক ফাহিম বলেছেন: বাস্তবতার সাথে এর আদৌ মিল নেই

আপনার মস্তিষ্কে যেহেতু আসছে কোন না কোন মেয়ের মাথায়ও অাসবে :P

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৪২

অচেনা হৃদি বলেছেন: :) মন্তব্যে আবারো মতামত জানানোয় ভাইয়াকে ধন্যবাদ ।
আশা করি আপনার কথাটা সত্য হোক । আমার লেখা থেকে যদি কেউ একটা দিকনির্দেশনা পেয়ে যায় তাহলে তো আমি ধন্য ।
ভীষণ ভালো থাকুন ভাইয়া ।

১৩| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৬

সম্রাট ইজ বেস্ট বলেছেন: "কথা দিচ্ছি, আমি তোমার জন্য এক তাজমহল বানিয়ে দেব"

ব্যাটা একটা গাড়ল! আর কোন জিনিস দেয়ার ওয়াদা করতে পারল না! ;) তাজমহলের কথা বলেই তো ফেঁসে গেল। :P

ওই তাজমহলের কথা না বললেই তো আর ফ্ল্যাট ট্রিটমেন্টের ব্যাপারটা আসত না। :) ব্যাটা গাড়ল বুঝতেই পারেনি এভাবে মেয়েটির কাছে ফেঁসে যেতে পারে। আর হৃদি সেটা নিয়ে ব্লগে মোক্ষম একটা গল্প ফেঁদে বসতে পারে। :P কারণ তাজমহল পৃথিবীতে একটাই আছে। ওটা আর দ্বিতীয়বার হবে না। :) তাই ব্যাটার উচিত ছিল অন্য কোন জিনিসের দোহাই দিয়ে প্রপোজ করা। ;)

লেখা পড়ে মজা পেয়েছি। হৃদিকে মগুজে লোক মনে হচ্ছে! আরও লেখা চাই।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:০৮

অচেনা হৃদি বলেছেন: =p~
অবজেকশন ইউর অনার !
আবেগি লোকজন প্রেমের অফারে এমন সব উপমা দিয়ে ফেলে যেগুলো নিয়ে তাদের ফাসিয়ে দেয়া কোন ব্যপারই নয় । আপনি এই গাড়লের কথা বলছেন ? স্বয়ং জাতীয় কবি নিজেও এরকম কথা বলে ফেসে যেতে পারেন । আপনি কি সেই নজরুল সঙ্গীত শুনেছেন ?
মোর প্রিয়া হবে এসো রাণী,দেব খোঁপায় তারার ফুল
কর্ণে দোলাব তৃতীয়া তিথির,চৈতী চাঁদের দুল ।
কন্ঠে তোমার পরাবো বালিকা,হংস-সারির দুলানো মালিকা ।
বিজলী জরীণ ফিতায় বাঁধিব,মেঘ রং এলো চুল ।
জ্যোছনার সাথে চন্দন দিয়ে
মাখাব তোমার গায়
,রামধনু হতে লাল রং ছানি,আলতা পরাব পায় ।
আমার গানের সাত-সুর দিয়া,তোমার বাসর রচিব প্রিয়া ।
তোমারে ঘেরিয়া গাহিবে আমার,কবিতার বুলবুল !!!

এখন বলুন তো ভাইয়া, জাতীয় কবিকে যদি বোল্ড করা জিনিসগুলো কেউ এনে দিতে বলে উনি কি পারবেন ?
=p~

লেখা ভালো লেগেছে জেনে উৎসাহ পেলাম । আশা করি সবসময় ভালো লেখা দিয়ে আপনাদের মন জয় করতে পারবো ।
পাঠ ও সুন্দর মন্তব্যে ভালোলাগা ভাইয়া, ধন্যবাদ ।

১৪| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৮

লাবণ্য ২ বলেছেন: ছেলেটার জন্য উচিত শিক্ষায় হইছে আপু।গল্পে ভালোলাগা রইল।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:১১

অচেনা হৃদি বলেছেন: :)
আপনার কাছে গল্পটা ভালো লেগেছে তা আরও আগে আমি বুঝেছি । লাইক দিয়েছেন গল্পে ।
পাঠ ও মন্তব্যে একরাশ শুভেচ্ছা ।

১৫| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:০১

বিদ্রোহী ভৃগু বলেছেন: হা হা হা

শেষ পর্যন্ত এইই!!!!
আহা! বেচারার ভালুবাসার হাতে ওরাল স্যালাইন ধরায়া দিলেন! :P

গল্প আর নতুন আইডিয়ায় +++

১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:১৫

অচেনা হৃদি বলেছেন: নাহ, একটু কারেকশোন করে দিচ্ছি ভাইয়া, অরাল স্যালাইন ধরিয়ে দিইনি । কম্বল ধরিয়ে দিয়েছি । এমনভাবে সে গা ঢাকা দিয়েছে সামনে সে আর কখনো আসার সাহস পাবে না ।
হিহিহি....

নতুন আইডিয়া আপনার মনপুত হয়েছে জেনে খুব ভালো লাগছে ।
ভালোবাসা রইল । :)

১৬| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:২৮

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন:

এটা কী কোন প্রেম গবেষণা মুলক পোষ্ট! :P


পড়ে মজা পেলাম। :P

১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:২৬

অচেনা হৃদি বলেছেন: ;)
এই পোস্টের লেখক এখনো গবেষণা করার মত স্কলার হয়নি ভাইয়া!



পড়ে মজা পেয়েছেন জেনে আশস্ত হলাম। এটা তো মজা দেবার জন্যই লিখেছি।
পাঠ ও মন্তব্যে শুভেচ্ছা। :)

১৭| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪৭

সনেট কবি বলেছেন: বেশ।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:২৯

অচেনা হৃদি বলেছেন: :)



ধন্যবাদ সম্মানিত কবি!
আমি দুজন প্রবীণ ব্লগারের ( চাঁদগাজী এবং সনেট কবির) প্রশংসা পেলাম। ফিলিং প্রাউড!

১৮| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:১৫

ভুয়া মফিজ বলেছেন: ছেলেটা জেনুইন রোমিও না, ভেজাল আছে। জেনুইন রোমিও হলে এতো সহজে হাল ছাড়তো না।
তবে রোমিও তাড়ানোর বুদ্ধি মন্দ না। আর যার মাথায় এতো এতো বুদ্ধি, সে ঝামেলামুক্ত থাকার জন্য আরো নিত্য নতুন বুদ্ধি বের করবে এতে কোন সন্দেহ নাই।

মজা পেলুম!!!

১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪৯

অচেনা হৃদি বলেছেন: হিহিহি...
ভাইয়াগো, এই যুগটা মে বি জেনুইন রোমিওদের অনুকূলে নেই । তাই তো এখন আর জেনুইন রোমিও পাওয়া যায় না । =p~

আর যার মাথায় এতো এতো বুদ্ধি এতটুকু পড়ে মনে করেছিলাম আপনি লিখেছেন-যার মাথায় এতো এতো বুদ্ধি, সে কিভাবে ঘুমাতে পারে ? এই কথাটার একটা সুন্দর প্রতিমন্তব্য লিখে ফেলেছিলাম । এখন তা ব্যকস্পেচে দিয়ে দিলাম । :P

ভাইয়ার জন্য একটা প্যারোডি জ্ঞানের লিরিক-
পারবো না হতে আমি রোমিও,
তাই মিরপুরে তুমি একা ঘুমিও,
আসতে হবে না আর দেখতে আমায়
....

=p~

১৯| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:০১

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: মেয়েদের এভাবেই ট্রিট করা উচিত ছেলেদের। কিছু ছেলে মনে করে মেয়ে মানেই তার সাথে প্রেম করতে হবে...

১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৫২

অচেনা হৃদি বলেছেন: =p~


জী ভাইয়া, ওদেরকে ছেড়ে দেন । নিজেরাই বাস্তবতা বুঝে ফিরে আসবে !

২০| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:০৬

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় বোন

খুব মজা পেয়েছি । দারুণ উপভোগ্য হয়েছে। লাইকও দিয়েছি ।


অনেক শুভকামন আপনাকে।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৫৫

অচেনা হৃদি বলেছেন: লাইক, মন্তব্য এবং শুভকামনার জন্য হৃদিপুর্ন ভালোবাসা ।

ভালো লাগলো, আপনি আগের মত প্রিয় বোন/আপু না লিখে শুধু প্রিয় বোন লিখেছেন ।
অনেক ধন্যবাদ ভাইয়া ।
:)

২১| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:৩৩

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: পাইছি আজকে,

@পলাশবাবা,
পলাশ ভাইয়া?
কই লুকাই ছিলেন এতদিন?
হীরক রাজ্যে? ওখানে কি লেবিদের সাথে ছিলেন?:P
আমার ভাগের হীরেটা কই??

আপনার জিয়াভক্ত সৈনিকরা সব তো ব্লগ ছাইড়া পালাইলো। এদিকে আমরা গাজীভাই এর ম্যাওপ্যাও লেখা পড়তে পড়তে ক্লান্ত! তাদের একটু লিখতে বলেন। নাকি আপনিই আবার শুরু করবেন? আমার বাহিনীকে ফাইটের জন্যে রেডী করবো নাকি?;)

"নিজে জেনারেল জিয়া একজন সাধারন আর্মি অফিসার। দেশে প্রতি বছর অমন হাজারো অফিসার তৈরী হয়।"
-- হায়! হায়!
আমার বাণীটাই কপি করলেন। আমারে ইয়াবা বাবাও বানাইয়া ফালাইলেন? আমি তো ক্রসফায়ারে পইড়া মইরা যামু!:D
ইয়ে মানে?
এখন বাংলাদেশে মেজর পদে কতজন আছে??:P


পুনশ্চঃ
আমার পিচ্চি হিরোইন দারুন লিখ। আপনি অর স্কুলে ভর্তি হইয়া যান.....:P.:P

১৩ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১২:১৭

অচেনা হৃদি বলেছেন: =p~

২২| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:৩৯

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: পড়েনা চোক্ষের পলক,
কী তোমার লেখার ঝলক।
কেমন করে লিখ তুমি, জাতী তা জানতে চায়?
তোমার বয়সের তুখোড় লেখক, এই ব্লগে একটাও নাই।;)


পিচ্চি হিরোইন,
জানোই তো সেদিন কুঁড়েকে বাঁশডলা দিতে গিয়ে আমার মাথাতেই বাঁশ পড়েছে। কয়েকদিন আমাকে হাসপাতালে থাকতে হবে(ডুব মারবো)। এদিকে ব্লগের ছোট-বড় সব আপুর সাথে আমার ভাব দেখে দু-চার জনের রাইতে ঘুম আসে না। ওদের জ্বালাতে কমেন্টটা করলুম!:D


ও, ভালো কথা!
ব্লগে থাকতে গেলে দু-চারটা খচ্চরের কটু কথা শুনতে হয়। ওসব জাস্ট ইগনোর, ওকে?
পারত পক্ষে কাউকে ব্লক করবে না। ওরা আরো দশটা আইডি খুলে জ্বালাবে(ওমেরার মত)।

তোমার লেখা ভাল। মন্তব্যটা ঝালাই করতে হবে। সময় পেলে শায়মা ও সোহানী আপুর মন্তব্যগুলো পড়বে(খাটাশদের শায়েস্তার জন্য)। আর কোন সীদ্ধান্ত নিতে হলে বড়দের সাথে কথা বলবে। পারলে ছ্যাঁচড়াদের নাকে দড়ি দিয়ে ঘুরাবে। (আমার এক বন্ধু মেয়ের নামে আইডি খুলে কি কান্ডটাই না করেছিল?:D)


অনেক জ্ঞান দিলুম। মডুরা আমাকে দেখলে ফাঁসি দেবে। আমি পালাই....(পলাশ মিয়ারে ডলা দিতে মন্তব্যটা করলুম!);)
ভালো থেকো কিউটের ডিব্বা।


পুনশ্চঃ
তোমরা আবার ভেবো না, নতুন আইডি খুলে জিরোগিরি দেখাবো! আমি কাউকে(মডুদের) ভয় পাই নাকি?:P

১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪২

অচেনা হৃদি বলেছেন: =p~
টুপিওয়ালা আলাদিনের প্রোফাইল পিক দেখে প্রথমে ভেবেছিলাম এইটা ভ্রমরের ডানা । :P
মন্তব্য পড়তে পড়তে বুঝলাম এটা নিজাম উদ্দিন মোহাম্মদ মণ্ডল ! ;)

আপনার এই রহস্যময় ছদ্মবেশের কারণটা বুঝতে পারছি । কুঁড়ের বাদশা তো আপনার জিগরি দোস্ত ছিল । এমনকি আপনি কখন শ্বশুরবাড়ি যান না যান তাও উনি খবর রাখতেন ! =p~ ওনার সাথে কি হয়েছে বুঝতে পারলাম না ।

ব্লগে আমি সেফ হবার পর হতে আমার প্রতি পোস্টে দুই একটা দড়িছেঁড়া গরু এসে গোবর ফেলে যাচ্ছে । আগে রাগ করে পোস্ট ডিলিট করে দিতাম । এখন আর ডিলিট করছি না ।

ব্লগার শায়মার নাম শুনেছি শুধু, উনাকে অনলাইনে এখনো আমি দেখিনি । আর সোহানি আপু যে বখাটেদের বেলন দিয়ে বেলে সমান করে দেন তা আমি দেখেছি । সত্যি কথা বলতে কি যেদিন প্রথম দেখেছি সোহানি আপুর পোস্টে অশ্লীল মন্তব্য পড়ছে সেদিন বুঝে নিয়েছিলাম এই ব্লগে থাকতে হলে কিছু বেয়াদবকে সহ্য করতে হবে । আমি এখনো নতুন, আর কিছুদিন যাক ভাইয়া, এরপর দেখবেন এই বেয়াদবেরা আমার পোস্টে কমেন্ট করার আগে অযু করে আসবে । আর যাই হোক, এখন তো আমি আপনাদের সাপোর্ট পাচ্ছি ।

আশা করছি আপনার রিয়েল নিক নিয়ে আবার আমাদের কাছে ফিরে আসবেন ।
শুভকামনার জন্য অনেকগুলো ধন্যবাদ । ++

২৩| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:২২

লায়নহার্ট বলেছেন: {এই যুগে কি কেউ ইয়াহু চালায়?.....@পলাশবাবা আপনার মতো একটা আবালও ৭ বছর ধরে ব্লগ চালায়, আমি লজ্জায় ২-৩ দিন ব্লগে আসতে পারবো না}

১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৫৬

অচেনা হৃদি বলেছেন: হিহিহি...
যে লিখেছে তার লজ্জা লাগছে না আপনার এতো লজ্জা কেন লাগছে ?

ইয়াহু টেস্ট করছেন ? ;)

=p~

২৪| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪৭

কুঁড়ের_বাদশা বলেছেন: পিচ্চি হিরোইন,
জানোই তো সেদিন কুঁড়েকে বাঁশডলা দিতে গিয়ে আমার মাথাতেই বাঁশ পড়েছে। কয়েকদিন আমাকে হাসপাতালে থাকতে হবে(ডুব মারবো)। এদিকে ব্লগের ছোট-বড় সব আপুর সাথে আমার ভাব দেখে দু-চার জনের রাইতে ঘুম আসে না। ওদের জ্বালাতে কমেন্টটা করলুম!


পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! ওস্তাদ,

আমার নামে বদনাম করা চলিবে না ভাইযূ!!!!!!!!!!!! ;)
তাহার সহিত একটু আদবের সহিত কথা বলিতে হইবে,দার্শনিক কুঁড়ের বাদশা বলে কথা!!!!!!!!!!!!! :P :P
আই কিতা করছি !!!!!!!!!!!!!!!!!!!!!! ;)

১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:০২

অচেনা হৃদি বলেছেন: ওয়াও,
কুঁড়ের বাদশা ইজ অন....

যাক, এই মন্তব্য পড়ে আমার মনে হচ্ছে বরফ গলছে, নিজাম মন্ডল এবং কুঁড়ের বাদশা আবার রিকনসাইল করছেন । আমরা আবার এই দুই রসিক বন্ধুকে আগের মত ফিরে পাবো । প্লিজ ভাইয়া, আপনাদের মাঝে কোন মেজর সমস্যা হয়েছে বলে আমার মনে হয় না, যদি কোন সমস্যা থেকেও থাকে তবে সব ভুলে আবার আগের মত ব্লগে আমাদের আনন্দ দেবেন ।

কুঁড়ের বাদশা এবং নিজাম মন্ডলের জুটি অক্ষুণ্ণ থাক ।
:)

২৫| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৯:৪৯

শিখা রহমান বলেছেন: মজা লেগেছে। একটু অন্যরকম লেখা। পোষ্টে ভালোলাগা আর হৃদিমনিকে ভালোবাসা।

১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:০৮

অচেনা হৃদি বলেছেন: :)
আপু, আপনার এই ছোট কমেন্ট আমার জন্য অনেক বড় অর্জন । কেন বলছি জানেন ? সত্যিটা বলে ফেলি, শুধু পুরুষ লোক যদি প্রশংসায় ভাসিয়ে দেয় তবে তাকে যোগ্যতার মাপকাঠি হিসেবে ধরতে আমার একটু খটকা লাগে । আপনি অনেক সিনিয়র এবং অভিজ্ঞ আপু । আপনি যেখানে আমাকে সাপোর্ট দিচ্ছেন সেখানে আমি একটি পুর্নাঙ্গ এবং যথাযোগ্য উৎসাহ লাভ করতে পারছি ।

আমার ব্লগে স্বাগতম আপু, প্লিজ যদি ত্রুটি দেখতে পান তাও জানাবেন । আপনাদের সংশোধনী পেলে আমার লেখার মান আরো বাড়বে ।

আপুর জন্য হৃদিপুর্ন ভালোবাসা রইল ।

২৬| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:১১

কুঁড়ের_বাদশা বলেছেন:

তওবা!!! তওবা!!!! কিতা যে কন আফা !!!!!!!!!!!!!!!! ;) :P ;)
নিজাম মন্ডল আমার ওস্তাদ, তাহার সহিত মোর নো গ্যন্জাম।সে উপরে, এমনি মজা করে মন্তব্য করেছে!!!! ;) :P ;)
তবে পচাঁ শামুকে কখনো কখনো পা কাটে ,ওস্তাদ আমায় বদদোয়া দিছে!!!!!!!!!!! :( :P :)

১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:০৯

অচেনা হৃদি বলেছেন: হিহিহি....

প্লিজ উনার বদদোয়া আর নিয়েন না, উনি হলেন নিজামউদ্দিন আউলিয়া !
আমাদের ব্লগের সেইন্ট নিজাম ।

=p~

ভাইয়া আপনিও কি ব্যান বা ব্লক কিছু খেয়েছেন ? একদম নীরব হয়ে গেলেন ! কোন লেখালেখি নেই আপনার !

২৭| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:৫২

অর্থনীতিবিদ বলেছেন: হাঃ হাঃ হাঃ হাঃ হাঃ হাঃ হাঃ হাঃ
সেই রকম হইছে। অসাধারণ। কমেন্ট লিখতেছি আর হাসতেছি। পোস্টে + (নয় নম্বরটা)

১২ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১১:৪৩

অচেনা হৃদি বলেছেন: =p~



হাসুন মিস্টার ইকনোমিস্ট, আপনারা যত প্রাণ খুলে হাসবেন আমি তত সফল । আপনাদেরকে হাসানোর জন্যই তো কষ্ট করে লেখালেখির এই আয়োজন ।

সুন্দর মন্তব্য, লাইক এবং হাসির জন্য একগুচ্ছ ভালোবাসা রইল ।

২৮| ১৩ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১২:৩৭

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:





বুদ্ধিদীপ্ত লেখা! গল্প হিসেবে উত্রে গেছে!

১৩ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১২:৪০

অচেনা হৃদি বলেছেন: =p~


ধন্যবাদ ভাইয়া । এতো রাতে কোত্থেকে এলেন ? সারাদিন উনার কোন খোঁজ নেই, রাতে উল্কার মত এসে মন্তব্য করে ফেললেন !

২৯| ১৩ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১২:৪২

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:


ঢুঁ মেরে গেলাম! শুভেচ্ছা রইল বেয়াইন!

১৩ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১২:৪৫

অচেনা হৃদি বলেছেন: ওয়াও,



আমাকে বেয়াইন বানিয়ে ফেললেন ? বেশ ভালো লাগলো !!! +++
:)

৩০| ১৩ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ১:০৩

পলাশবাবা বলেছেন: বাহ বাহ কতিপয় রোমিও দেখা যাচ্ছে আক্রমণ করে বসেছে। কিন্তু আমার যে রোমিওদের সাথে যুদ্ধ করার আগ্রহ নাই।


যাই হোক লেখা পড়ে আমার যা মনে হয়েছে আমি তাই মন্তব্য করেছি। আমি তাই করি। আমি ইন শা আল্লাহ তাই করব। কাউকে খুশি করে মন্তব্য করা সম্ভব না।

৩১| ১৩ ই জুলাই, ২০১৮ ভোর ৬:২০

সামু পাগলা০০৭ বলেছেন: হৃদি আপু!

প্রথম ক লাইন পড়ে হেসে উঠলাম এটা ভেবে যে হয়ত নিজের কোন অভিজ্ঞতা লিখছেন। পরে বুঝলাম কোথায় যাচ্ছে গল্পটি! আরো বেশি ইন্টারেস্ট পেয়ে গেলাম। এমন গল্পের প্রয়োজনীয়তা প্রচুর। নানা ধরণের হাবিজাবি রোমান্টিক গল্প পড়ে নারী পুরুষের মধ্যে একধরণের ফ্যান্টাসি তৈরি হয়। রোমান্সের মোহনায় ভাসতে ভাসতে তারা সবাইকে উপন্যাসের চরিত্রগুলোর মতো মহামানব মনে করতে শুরু করে। মুভিতে বখাটে প্রেমিক ভালোবাসায় শুধরায়, কিন্তু বাস্তবে তারা প্রেমিকার জীবন বিগড়ায়! এই গল্পের নায়িকার মতো সব মেয়েই যদি যার তার প্রেমের প্রস্তাবে হ্যাঁ না বলে, কদিনের পাগলামিতে ভেসে না গিয়ে, একটু বিচার বিবেচনা করে নেয় তবে অনেক বিপদ থেকে বেঁচে যাবে। ছেলেদের জন্যেও একই কথা। একজন মেয়েকে নীল শাড়ি ও নীল চুড়িতে পথে দেখামাত্র প্রেমে না পড়ে, তার চরিত্র কেমন সে দিকে খেয়াল করে এগোনো উচিৎ। বিশেষ করে, যেহেতু এসব প্রেম ইয়াং বয়সে আসে, সেসময়ে ভুল কোন সম্পর্ক পড়াশোনা ও ক্যারিয়ার শেষ করে দিতে পারে। সময় গেলে সে সময় আর ফিরে না। সম্পর্ক এবং জীবন কোনটিই খেলনা নয়, এসব ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন জরুরী।

আপনার কথাবার্তায় হিউমার মেশানো থাকে, চরম সত্যি কোন কিছুও হাসতে হাসতে বলতে পারবেন বোধ করি। লেখাতেও সেই হিউমারের ছাপ পড়ে, তবে খেয়াল করে পড়লে শিক্ষনীয় অংশটুকুও অনুধাবন করা যায় সহজেই।

এই গল্পের নায়িকার ম্যাচিউরিটিকে স্যালুট, নায়িকার স্রষ্টাকেও সাবলীল, শিক্ষনীয় লেখনীতে ধন্যবাদ।

জাহিদ অনিকের কমেন্টটি বেশ লাগল! তার কমেন্টে লাইক। বাহ! ছেলে তো ম্যাচিউর হচ্ছে! :P
সম্রাট ইজ বেস্ট এর কমেন্টের আপনার মজার প্রতিউত্তর এবং শিখা আপুর কমেন্টের সেই হনেস্ট কথাটি জোশ লাগল!

আপনার পোস্টগুলো ফুল প্যাকেজ। মূল লেখা, মন্তব্য, প্রতিমন্তব্য সবকিছুতেই থাকে প্রচুর নির্মল বিনোদন এবং শিক্ষনীয় কথামালা।
এভাবেই ব্লগিং করে যান....

শুভকামনা আপু!

১৩ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৫০

অচেনা হৃদি বলেছেন: আপনার শুভকামনা ফুলের মত প্রস্ফুটিত হয়ে উঠুক ।

আমার কাছে তো আপনার পোস্টগুলোকেই ফুল প্যাকেজ মনে হয় । আমি আপনার পোস্টে মন্তব্য করার পর সেগুলোর প্রতিমন্তব্য পাবার পর অন্তত আরও চার-পাঁচবার পড়ি অন্যদের মন্তব্য এবং আপনার প্রতিমন্তব্য পড়ার জন্য । মন্তব্যে আপনার উপস্থাপনা আমার কাছে ভালো লাগে । বিশেষ করে আমার কাছে অবাক লাগে যখন দেখি আপনি অতি দ্রুত জুতসই রিপ্লাই দেন । আপনি মে বি রিয়েল লাইফেও এমনি, এজন্য মজার কিংবা তিতকুড়ে সব মন্তব্যে আপনি উপস্থিত পাল্টা প্রতিমন্তব্য জুড়ে দিতে পারেন ।
আমার মন্তব্য যদি ভালো হয়ে থাকে সেটা আসলে আমার বাবা মায়ের অবদান, আমার বাবা মা ঝগড়াঝাটিতে এমনভাবে চেইন কমেন্ট চালিয়ে যান যেগুলো শুনে আমি অনেক কিছু শিখেছি ;) বাবা মায়ের কথার ভেতর হাসির খোরাক থাকে, একে অন্যকে কৌশলে ধমক দেবার আয়োজন থাকে । এবং সত্য কথা হল মাঝে মাঝে উনাদের বিতর্ক প্রতিযোগিতার কারণে বেশ কষ্টও লাগে । তবে সেই ছোট হতেই অশালীনতা থেকে পরিবার বেশ যত্নের সাথে আমাদের দূরে রেখেছিল, যে কারণে ফেসবুক কিংবা ব্লগের অশালীন ভাষা দেখলে হোঁচট খেয়ে যাই । ভার্চুয়াল রিয়েলিটি দেখে অশালীন ভাষা ফেস করার বিদ্যাটা রপ্ত হয়ে যাচ্ছে, এটা ব্লগের উপকারিতাও বটে ।

ইয়াং বয়সে, বিশেষত আর্লি ইয়াং এইজে প্রেম বিষয়ে আপনার মন্তব্যটা ধ্রুব সত্য । সমস্যা হল আমাদের দেশে বাংলা হিন্দি সিনেমাতে শুধু অবাস্তব ধাঁচের প্রেমই শেখানো হয় । অল্প বয়সের ছেলে মেয়েরা নিজের জীবনকে চেনার আগে প্রেম চিনছে । প্রেমে পড়ে তারা একধরনের ফ্যন্টাসিতে ভুগে থাকে ।

প্রথম ক লাইন পড়ে হেসে উঠলাম এটা ভেবে যে হয়ত নিজের কোন অভিজ্ঞতা লিখছেন। =p~ আপু, প্রেম ভালোবাসার ব্যপারে আমার সব বিদ্যা পুঁথিগত । প্র্যাক্টিকেলি প্রেমের ব্যপারে আমার কোন অভিজ্ঞতা নেই । তবে হ্যাঁ, যদি কোন সুন্দর অভিজ্ঞতা হয়ে যায় সেটা নিয়ে সুন্দর করে আর্টিকেল লিখে আপনাদের সাথে শেয়ার করে ফেলবো । =p~

আমার লেখার সাথে আপনার মন্তব্য বেশ মানিয়ে যায় । মনে হয় যেন আমার লেখাকে পুর্নতা দিতে, সুন্দর এন্ডিং দিতেই আপনি মন্তব্য করেন । হৃদিপুর্ন ভালোবাসা জানবেন ।

৩২| ১৩ ই জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:৪০

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: লেখক?
২১ নাম্বার মন্তব্যটা মুছে ফেলুন।
পলাশ ভাই ওটা গল্পের নাইকাকে বলেছে। নাইকা দশটা প্রেম করুক না হয় দুরে গিয়ে মরুক, আমাদের কি??;)


@পলাশবাবা
পলাশ ভাইয়া?
তুমি এত ভালো হলে কবে থেকে? যাও তোমার সাথে আর নো ঝগড়া! মিষ্টি খাও আর নতুন কিছু লিখ..


@কুঁড়ের_বাদশা
দিলে তো শায়মা আপার কথা মনে করে।
আমি ব্লগে এসেছি আর আপাকে মন্তব্য করি নি, এমনটা হয়েছে কখনো? আজ তোমাদের জন্য আমি লজ্জায় তাকে মন্তব্য করতে পারছি না।
তোমাকে হিমালয়ে সাধনা শেষে গঙ্গাস্নান করে আসতে হবে। তারপর ভেবে দেখা যাবে....
গানাঃ
Jab Life Ho Out Of Control,
Honto Ko Karke Gol.
Honto Ko Karke Gol,
Siti Bajaake Bol... (2)
Aal Izz Well.....

১৩ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:০৪

অচেনা হৃদি বলেছেন: =p~


মন্তব্যকারি নিজেই যদি তাঁর মন্তব্য মুছে ফেলতে বলেন তাহলে আমি মন্তব্য মুছে দিই । কিন্তু ভাইয়া, এখানে আপনার ২১ নং মন্তব্যের সাথে আরও দুটি মন্তব্য জড়িয়ে আছে । মুছতে গেলে তো সব মুছে ফেলতে হবে । :( তাই প্লিজ, এই মন্তব্য মুছে দিতে বলবেন না । এটা থাক ।

মন্ডল ভাইয়া আর কুঁড়ের বাদশা মিলে আবার আগের মত ব্লগে হাসির জোয়ার এনে দিক, এই সুন্দর আশাবাদ ব্যক্ত করছি । :)

৩৩| ১৩ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:১৫

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: নেই মানে ! নাম ছাড়া কি মানুষ হয় নাকি । মানুষের বিশেষ করে মেয়েদের নাম তো থাকেই, এই মেয়েটারও চমৎকার মনমাতানো মনোহারিণী একটা নাম আছে, মেয়েটার সেই নাম শুনেই কতজন তার প্রেমে পড়ে যেতো ! আর আপনি বলছেন মেয়েটার নাম নেই ?

মেয়েটার নাম হল...
:-/

( :( বিরাট এই কমেন্ট লিখতে লিখতে আমি মেয়েটার আসল নাম ভুলে গেছি ! )


মেয়েটার নাম নীলা।

১৩ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৯

অচেনা হৃদি বলেছেন: =p~


ওহ ইয়েসসসস !
আপনি কিভাবে জানলেন ভাইয়া ? এই ঘটনা তো ছেলেটা আর মেয়েটা ছাড়া কেউ তো জানতো না !

৩৪| ১৩ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:১৭

মাহের ইসলাম বলেছেন: আমার অবশ্য গল্পের তুলনায় কমেন্টগুলো বেশী ভালো লেগেছে।

১৩ ই জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০১

অচেনা হৃদি বলেছেন: :)


সুন্দর একটি মন্তব্য করার জন্য ধন্যবাদ ভাইয়া ।
কমেন্টগুলো ভালো লাগাই স্বাভাবিক, আসলে যারা কমেন্ট দিয়েছেন উনাদের তো আপনি আমার চেয়েও ভালো চিনেন । উনারা সবাই আমার চেয়ে ভালো এবং প্রথম সারির ব্লগার ।
আমি গর্বিত কারণ আমি সম্মানিত ব্লগারদের মন্তব্য পাচ্ছি ।

৩৫| ১৪ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:৫০

রক বেনন বলেছেন: হা হা হা!!! কোথায় আগরতলা আর কোথায় চৌকির তলা। কোথায় লিটনের ফ্ল্যাট আর কোথায় নাভানা রিয়েল এস্টেট এর ফ্ল্যাট!! হা হা হা!!

১৪ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:১১

অচেনা হৃদি বলেছেন: :(



লিটনের ফ্ল্যাটএর কথা শেষ পর্যন্ত চলেই আসলো!

৩৬| ২২ শে জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৯

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
এমন কান্ড তো আগে শুনিনি, আপুমনি।

তবে লেখাটা দুর্দান্ত।

২২ শে জুলাই, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২০

অচেনা হৃদি বলেছেন: আসলে ভাইয়া এমন কান্ড কখনো ঘটেওনি । এটা আমার কল্পনাজাত গল্প । :)

গল্পটি পড়ে অল্প কথায় সুন্দর একটি মন্তব্য করায় ভাইয়াকে ধন্যবাদ !

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.