নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমার নাম- রাজীব নূর খান। ভাবছি ব্যবসা করবো। ভালো লাগে পড়তে- লিখতে। বুদ্ধিমান লোকদের সাথে আড্ডা দিতে ভালো লাগে। কোনো কুসংস্কারে আমার বিশ্বাস নেই। নিজের দেশটাকে অত্যাধিক ভালোবাসি। সৎ ও পরিশ্রমী মানুষদের শ্রদ্ধা করি।

রাজীব নুর

আমি একজন ভাল মানুষ বলেই নিজেকে দাবী করি। কারো দ্বিমত থাকলে সেটা তার সমস্যা।

রাজীব নুর › বিস্তারিত পোস্টঃ

আমার কিছু সহজ সরল প্রশ্নের উত্তর দেন আপনারা... প্লীজ

১৬ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১১:৫২



১। বাংলাদেশে কি কোনো সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান আছে? সব সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান'ই তো হয়ে গেছে বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠান। তারা টাকা ছাড়া কিছু বুঝে না। যেমন ধরুন হাসপাতাল। হাসপাতাল গুলোতে এত খরচ কেন? আমি আজ তিনটা হাসপাতালে গেলাম খোঁজ নিতে বাচ্চা ডেলিভারী করতে খরচ কত হয়। প্রথমে স্কয়ার হাসপাতালে গেলাম- তারা বলল, তিন দিনে নিম্মে নব্বই হাজার টাকার মতো লাগবে। আমি বললাম এত টাকা কেন? তারা উত্তর দিল- রুমে এসি আছে, টিভি আছে, ফ্রিজ আছে, সার্ভিস চার্জ আছে। আরেক হাসপাতালে গেলাম (সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ) তারা বলল- ৬০ হাজার টাকার মতো লাগবে। আমাদের সেন্ট্রাল এসি। ৫০% ওষুধ আমরা দিব। তারপর বারাকা হাসপাতালে গেলাম- তারা বলল, চল্লিশ ধরে রাখেন। (তখন এক পিয়ন এসে ফিসফিস করে বলল- যেহেতু চল্লিশ বলছে, আপনি এর সাথে আরও ২০/৩০ যোগ করে রাখবেন)।
আমার কথা হলো- নরমাল ডেলিভারী হবে না সিজার হবে এটা না জেনেই তারা কিভাবে টাকার অংক বলে দিল? সবচেয়ে বড় কথা এত টাকা কেন লাগবে? সবার তো অবৈধ টাকা নেই। সব মিলিয়ে ৮/১০ হাজার টাকা লাগতে পারে। এত টাকা কেন??? দরিদ্র একটা দেশে এত টাকা কেন লাগবে? স্বাস্থ্যমন্ত্রী আপনি কি এই ব্যাপারে কিছু জানেন না?

২। একজন মানুষ দুপুরে হোটেলে ভাত খেতে গেলে কম পক্ষে ৩০০ টাকা লাগে। রাস্তার পাশে ছাপড়া হোটেলে খেতে গেলেও প্রায় ২০০ টাকা লাগে। এত দামের কারনেই দুপুরবেলা রাস্তার পাশের চায়ের দোকান গুলোতে খুব ভীড় হয়। অসংখ্য মানুষ ৩০ টাকার মধ্যে দুপুরের খাবার সেরে নেয়। এক কাপ চা, দুইটা বিসকিট অথবা একটা রুটি আর কলা খেয়ে দুপুরের খাবার খেয়ে নেয়। হোটেল গুলোতে খাবারের মান খুব খারাপ কিন্তু দাম অত্যাধিক বেশি। খুব বেশী। এই শহরে শুধু ডাল আর ভর্তা দিয়ে ভাত খেলেও ৮০ টাকা লাগে। যাই হোক, এত টাকা তো লাগার কথা না। নিজের চোখে প্রতিদিন দেখি- নোংরা পরিবেশে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ এই সব খাবার খাচ্ছে। আমাদের দেশে বেশির ভাগ লোকের বেতন ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার মধ্যে। তাদের ঘর সংসার আছে, বাচ্চা কাচ্চা আছে। ঘর ভাড়া দিয়েই তো তাদের অর্ধেক বেতনের টাকা শেষ হয়ে যায়। সাড়ে পাঁচ শ' টাকা দিয়ে এক কেজি গরুর মাংস কেনার ক্ষমতা থাকে না অনেকের'ই। কিন্তু আমি বাজারে গেলে দেখি অসংখ্য মানুষ লাইন ধরে দাঁড়িয়ে গরুর মাংস কিনছে। দামী দামী রেস্টুরেন্ট গুলোতে কী প্রচন্ড ভীড়। এই লোক গুলো কারা? বেশির ভাগ মানুষ যে হোটেলের খাবার গুলো খায়, সেই হোটেলে খাবারের মান যে প্রচন্ড খারাপ এবং দাম অত্যাধিক বেশি- তা কি সরকার জানে?

৩। আমাদের পাশের বাসায় এক পশু ডাক্তার আছে। সে অনেক টাকার মালিক। কিছুদিন আগে তার ছেলেকে একটা বাইক কিনে দিল- দেড় লাখ টাকা দিয়ে। এই ঈদে বাড়ির সবাইকে নিয়ে মালোশিয়া থেকে ঘুরে এলো। তার ছেলে এক জোড়া কবুতর কিনলো ৯ হাজার টাকা দিয়ে। আচ্ছা, একজন পশু ডাক্তারের বেতন কত? এই পশু ডাক্তার অফিসের গাড়ি দিয়ে তার পরিবার নিয়ে নানান জায়গায় ঘুরে বেড়ায়। রাত ১২ টা পর্যন্ত সরকারি অফিসের গাড়ি তার কাছে থাকে কি করে? এই ব্যাপারে সরকার কি কিছু জানে? সেদিন দেখি ডাক্তার সাহেব তার ছেলে বলছে- 'মেরে হাড্ডি ভেঙ্গে দিবি' তারপর আমি বুঝব। একজন বাবা তার সন্তানকে বলতে পারেন(?)- 'মেরে হাড্ডি ভেঙ্গে দিবি'। ঢাকা শহরে তার তিনটা বাড়ি। ইশ আমি যদি পশু ডাক্তার হতে পারতাম!

৪। রাতে ভাত খেতে বসে টিভির সংবাদ দেখা আমার দীর্ঘ দিনের অভ্যাস। যাই হোক, হঠাত দেখি এক মন্ত্রী বলছেন, দুর্নীতি করলে কোনো ছাড় দেয়া হবে না। গরীবের সম্পদ নিয়ে- দুর্নীতি সহ্য করা হবে না। সে যত ক্ষমতাবান'ই হোক। কিন্তু এই মন্ত্রীকে আমি নিজের চোখে দেখেছি- বাংলাদেশের সেরা একটা কোম্পানীতে টাকা নেওয়ার জন্য বসে আছে। ব্যাপারটা এমন দাঁড়িয়েছে যে, চোর, চোরকে বলছে চুরি করা যাবে না। গুলিস্তান এলাকায় দেখেছি- এক পকেটমার পকেট মেরে দৌড়ে পালাচ্ছে আর চিৎকার করে সামনের দিকে এক হাত তুলে বলছে- পকেটমার পকেটমার। একটা প্রতিষ্ঠানে যে যার কাজ বা দায়িত্ব যদি সঠিকভাবে পালন করে তাহলে সেই প্রতিষ্ঠান খুব দ্রুত উন্নতি করে। ঠিক সেভাবে সরকারের প্রতিটা মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী আর সচিবগন যদি তাদের কাজ বা দায়িত্ব যথযথভাবে পালন করে তাহলে একটা দেশের খুব দুত উন্নতি করা সম্ভব।

৫। রাজনীতিবিদদের ছত্রছায়ায় থাকা কিছু লোক হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক হয়েছে। এত এত টাকা---যে পরিবারের সবাই মিলে দু'হাতে খরচ করেও শেষ করতে পারছে না। স্কুলে বাচ্চার বেতন দিচ্ছে- প্রতি মাসে ২৫ হাজার টাকা। কাজের বুয়াকে পর্যন্ত বিদেশ ভ্রমন করিয়ে আনছে। মানুষের কাছে ভালো সাজার জন্য মসজিদ মাদ্রাসা আর এতিমখানা দিচ্ছে। টিভি চ্যানেল খুলছে। এব্যাপারে কি সরকার কিছু জানে না? যদি জানে তাহলে ব্যবস্থা নিচ্ছে না কেন? এই ভন্ড লোক গুলোর টাকা কেড়ে নিয়ে দেশে অনেক শিল্প কারখানা স্থাপন করা যায় না? বেকারদের একটা গতি হয় না? সহজ হিসাব গুলো কেউ বুঝতে চায় না।

৬। এক লোক মুক্তিযোদ্ধা নয়। তবু তার মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট আছে। সরকার থেকে তেল, চাল, ডাল এবং নগদ টাকা সবই পাচ্ছে। সবচেয়ে বড় কথা তাকেই আবার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে- গ্রামে গিয়ে সঠিক মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা তৈরি করতে। সে ইচ্ছে মতো টাকা নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা বানাচ্ছে। আমি নিজের চোখে দেখলাম- গ্রাম থেকে ফিরে এসে ছেলেকে আই ফোন কিনে দিল। শপিং করার জন্য একটা বান্ডিল দিয়ে দিল। সেদিন সে আমাকে কথায়-কথায় বলল- অনেকে এসে আমার পায়ে ধরেছে- তবুও আমি মুক্তিযোদ্ধা বানাইনি। অনেকে অনেক উপর লেভেলের লোকজন দিয়ে ফোন করিয়েছে তবু মুক্তিযোদ্ধা বানাই নাই। এটা আমার রাষ্ট্রিয় দায়িত্ব। ইত্যাদি ইত্যাদি। তার মিথ্যা কথা শুনে আমার খুব রাগ হলো। আমি বলেই ফেললাম- টাকার বিনিময়ে আপনি নাকি মুক্তিযোদ্ধা বানাচ্ছেন? সে রেগে-মেগে আমাকে মারতে আসলো।

মন্তব্য ২১ টি রেটিং +৮/-০

মন্তব্য (২১) মন্তব্য লিখুন

১| ১৬ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১১:৫৮

চাঁদগাজী বলেছেন:

"
৬। এক লোক মুক্তিযোদ্ধা নয়। তবু তার মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট আছে। সরকার থেকে তেল, চাল, ডাল এবং নগদ টাকা সবই পাচ্ছে। সবচেয়ে বড় কথা তাকেই আবার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে- গ্রামে গিয়ে সঠিক মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা তৈরি করতে। সে ইচ্ছে মতো টাকা নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা বানাচ্ছে। "

-শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের অধিকারটুকুও রক্ষা করতে পারলেন না, উনার দক্ষতা নিতান্তই কম; দেশ চালাচ্ছেন জমিদারের মতো।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১২:১৯

রাজীব নুর বলেছেন: ওস্তাদ আমি এই দেশে থাকব না।

২| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১২:২০

আলআমিন১২৩ বলেছেন: সিনিয়র ব্লগারের কাছে দায়িত্বশীল পোষ্ট আসা উচিৎ।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১২:৫৬

রাজীব নুর বলেছেন: মানে কি? বুঝিনি। বুঝিয়ে বলুন।

৩| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১২:২০

কলিমুদ্দি দফাদার বলেছেন: কস্ট হলে ভাল কোথাও বাচ্চার ডেলিভারি করান। আপনার বাচ্চার জন্য শুভকামনা আর আপনি এর ড্রিপেস হইয়েন। হাসি খুশি থাকার চেস্টা করুন।

৪| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১২:৫৪

মেঘনা পাড়ের ছেলে বলেছেন: শুধু ১ নং এর বিষয়ে কিছু বলছি।স্কয়ার, ইউনাইটেড, এ্যাপোলো এই হসপিটালগুলি জনসেবার জন্য খুলেনি। ওরা ব্যাবসার জন্য খুলেছে। আমি এগুলিকে ৫ স্টার হসপিটাল বলি।

মগবাজারে আদ্ব-দ্বীন হসপিটালে এবিষয়ক এক্সপেন্স ঢাকার বেসরকারী হাসপাতালের মাঝে সর্বনিন্ম (৫০০০-১০০০০ এর মধ্যে)। সার্ভিস যথেস্ট ভাল, যদি নাক উচু না হয়।

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১২:৫৬

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে।

৫| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১২:৫৫

সচেতনহ্যাপী বলেছেন: দেশের বাস্তব অবস্থা!!

৬| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১:১৩

:):):)(:(:(:হাসু মামা বলেছেন: বাস্তব বিষয় । :(

৭| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১:৪১

আর্ফ জামান সুজন বলেছেন: বাস্তবতা এটাই।

৮| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ২:০৬

ড.ঝঁটকা বলেছেন: জানিনা, গবেষণা করতে হবে

৯| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ৭:৪৬

শাহাদাৎ হোসাইন (সত্যের ছায়া) বলেছেন: সত্যিকারের পর্যাবেক্ষন।

১০| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ৮:১৪

পুলক ঢালী বলেছেন: একদম সঠিক কথা বলেছেন। খুব সামান্য একটু যোগ করতে চাই।




স্কয়ার, এ্যাপোলো, ইউনাইটেড, হাসপাতালগুলি আমজনতার জন্য নয়, এগুলি সিঙ্গাপুর বা ব্যাংকক বা ভারত গিয়ে যারা চিকিৎসা করেন তাদেরকে টার্গেট করে বানানো হয়েছে। সাধারন মানুষের জন্য সাধারন হাসপাতালই ভরসা। (একটা কথা এড করতে চাই, যদিও শোনা কথা, স্কয়ার হাসপাতাল জার্মানীসহ আরও কিছু দেশের ডাক্তার,ইকুইপমেন্ট বা চিকিৎসা সহায়তা ও ডোনেশন নিয়ে সাধারন মানুষের জন্য ব্যাপকভাবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো কিন্তু বিদেশী ডাক্তারদের নাকি আবার এখানকার মেডিক্যাল এসোসিয়েশনের কাছে পরীক্ষা দিয়ে সার্টিফিকেট নিতে হয় তাই ঐ প্রকল্প বাদ হয়ে গেছে। হায়রে সেলুকাস! দেখা যাবে বিদেশী কিছু ডাক্তার হয়তো এদেশীয় ডাক্তারদের শিক্ষক অথচ এদেশে সেবা দিতে গেলে তাদেরই আবার তাদের ছাত্রদের কাছ থেকে ডাক্তারী সনদ নিতে হবে!!! অবশ্য শোনা কথা বিশ্বাস করা উচিৎ নয় :D )

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১০:৩৯

রাজীব নুর বলেছেন: সহমত।

১১| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১০:০১

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:




আপনি দেশের মানুষকে ভালবাসেন। স্বছ জলের আয়নায় তাই দেখছি!

১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১০:০৪

রাজীব নুর বলেছেন: অবশ্যই আমি আমার দেশের মানূষকে ভালোবাসি।

১২| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১০:০৯

ভ্রমরের ডানা বলেছেন:


পাঠকের সাথে যোগাযোগ ঠিক রাখতে মন্তব্যের প্রতিউত্তরের জন্য আপনার প্রতি অনুরোধ রইল!

১৩| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:০২

বারিধারা বলেছেন: আদ দীন হাসপাতালে সেরকম যত্ন আত্তি পাবেন না। তবে খরচ অনেক কম পড়বে। নরমাল ডেলিভারি করাতে চাইলে ইসলামী ব্যাংক হাসপাতাল আর রাজারবাগের মুতমাইন্না হাসপাতাল ভাল। তবে কথা একই। যত্ন আত্তি পাবেন না। স্কয়ার বা এপোলোতে করলে সিজার ডেলিভারি কনফার্ম, যদি না ডাক্তার অপারেশন করতে দেরি করে ফেলে।

১৪| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ সকাল ১১:৩৩

রাজীব নুর বলেছেন: ধন্যবাদ।

১৫| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ দুপুর ১২:৪৬

ঢাকাবাসী বলেছেন: চাঁদগাজী বলেছেন শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের অধিকারটুকুও রক্ষা করতে পারলেন না, উনার দক্ষতা নিতান্তই কম; দেশ চালাচ্ছেন জমিদারের মতো। আসলে এই দেশটা কেমনে চলছে জানিনা। আমেরিকাতে যে ব্রীজ বানাতে ১০ কোটি টাকা লাগে এদেশে সেটা বানানো হচ্ছে ১২০ কোটি টাকাতে। ফলে ঐ যে বললেন কিচু লোক এত খরচ করে কিভাবে, এভাবেই প্রতি ডীলে ১০০ কোটি টাকা করে কামিয়ে তারপর এদিক ওদিক ভাগ দিয়ে নিজে ৫০ কোটি টাকা পেলে আর লাগে? হাসপাতালগুলো জায়গামত মাল দিয়ে নিজেদের রাস্তা সাফ রাখে এখন নরমাল ডেলিভারী আর হবেনা সিজারিয়ান করাতেই হবে আর ৫০ হাজার থেকে লাখ টাকা খসাবেই।

১৬| ১৭ ই জুলাই, ২০১৭ রাত ১১:৩৪

মাহমুদুর রহমান সুজন বলেছেন: তাইতো দেখছি!!!! এতো টাকা কোথায় পায় ওরা!! আমাদের নেই কেন? আমাদের হাতে টাকা এলে কি এই কথাগুলো মনে থাকবে। যাদের কাছে এখন টাকা আছে তাদের কাছে এক সময় টাকা ছিলনা তারাও এমনি ভাবতো এখন তার খরচ করছে তাইতো মনে হয়।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.