নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

Rajib Samir (রাজিব সামির)

mdrajibsamir

আমার ভেতর আরেক আমি... যাকে আমি চিনি না......। রাজিব সামির

mdrajibsamir › বিস্তারিত পোস্টঃ

পায়ের রগে টান পরলে কি করবেন

১১ ই জুলাই, ২০১৯ বিকাল ৩:০৮


ঘুমের মধ্যে পায়ের কাফ মাসল সংকুচিত হয়ে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করেননি, এমন মানুষ পাওয়া কঠিন। হাঁটুর নিচ থেকে পায়ের পেছনের দিকের মোটা ও লম্বা মাংসপেশিকে কাফ মাসল বলে। পায়ের রগে এমন হঠাৎ টান পড়ার কারণ, কী করবেন, প্রতিরোধের উপায় কী—তা নিয়ে কিছু পরামর্শ:

কেন হয়?

■ শরীরে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়ামের ঘাটতি।

■ অতিরিক্ত ব্যায়াম, পরিশ্রম বা পায়ের পেশির বেশি ব্যবহার।

■ পানিশূন্যতা বা ডিহাইড্রেশন। খুব ঠান্ডা আবহাওয়া।

■ গর্ভকালীন, বিশেষ করে শেষের দিকে প্রয়োজনীয় খনিজের অভাবে রগে টান পড়ে।

■ বেশি সময় বসে থাকা, শক্ত জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকা, ঘুমের সময় ভুল দেহভঙ্গির কারণে এমন হতে পারে।



কী করা উচিত?

■ পা সোজা করে পায়ের পেছনের মাংসপেশিতে হালকা মালিশ করতে পারেন।

■ গরম পানিতে তোয়ালে ভিজিয়ে হালকা সেঁক বা পানির বোতলে গরম পানি দিয়ে সেঁক দিতে পারেন পনেরো থেকে বিশ মিনিট।

■ ভয় পাবেন না, কারণ রিল্যাক্স পজিশনে থাকলে কিছু সময়ের মধ্যে ব্যথা চলে যায়।

■ গর্ভকালীন যে রগে টান পড়ে, বেশির ভাগ সময় প্রসবের পর পায়ের টান চলে যায়।



প্রতিরোধের উপায়

■ নিয়মিত কাফ মাসল স্ট্রেচিং করতে হবে।

■ সোজা হয়ে পায়ের আঙুলের ওপর ভর করে দাঁড়ালে কাফ মাসলে স্ট্রেচ হয়। দশ সেকেন্ড ধরে রেখে পা নামিয়ে ফেলুন। তিন বা চারবার করুন। প্রতিদিন অন্তত একবার।

■ বসে দুই পা সোজা করে, তোয়ালে দিয়ে পায়ের পাতা সামনের দিকে টেনে আনার চেষ্টা করুন। দশ সেকেন্ড ধরে রেখে ছেড়ে দিন। পাঁচ থেকে ছয়বার করুন।

■ সপ্তাহে অন্তত পাঁচ দিন ত্রিশ মিনিট করে হাঁটুন

■ শরীরে পর্যাপ্ত পানির অভাব হলে পায়ের মাংসপেশিতে টান লাগে। তাই প্রচুর পানি বা তরল গ্রহণ করুন। যেমন স্যুপ, ফলের রস, ডাবের পানি ইত্যাদি।

■ ক্যালসিয়ামসমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। যেমন ডিম, দুধ, সবুজ শাকসবজি, ফল, কলিজা ইত্যাদি।

ডাক্তারের পরামর্শে ক্যালসিয়াম সাপ্লিমেন্ট খেতে পারেন।

■ কিছু অবস্থান পরিহার করুন: যেমন পা ক্রস করে বসলে পায়ের ওপর চাপ পড়ে এবং রক্ত চলাচল ব্যাহত হয়। তাই এ ধরনের অবস্থানে বসবেন না। দীর্ঘ সময় একই ধরনের অবস্থানে না থেকে দু–এক ঘণ্টা পরপর বদলাতে হবে।

■ রাতে যাঁদের বেশি ক্রাম্প বা টান হয়, তাঁরা ঘুমাতে যাওয়ার আগে গরম পানিতে গোসল করতে পারেন।

■ সাঁতার খুব ভালো ব্যায়াম। সপ্তাহে অন্তত তিন দিন সাঁতার কাটতে পারেন।



ফিজিওথেরাপি পরামর্শক, পিটিআরসি

মন্তব্য ৮ টি রেটিং +৪/-০

মন্তব্য (৮) মন্তব্য লিখুন

১| ১১ ই জুলাই, ২০১৯ বিকাল ৩:১৭

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: ভাল তথ্যসম্বলিত পোষ্ট ।
আমাদের অনেকের বেশ উপকারে লাগবে ।
শুভেচ্ছা রইল ।

২| ১১ ই জুলাই, ২০১৯ বিকাল ৪:৫২

তানজীর আহমেদ সিয়াম বলেছেন: উপকারী পোষ্ট :)

৩| ১১ ই জুলাই, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০০

করুণাধারা বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ এই পোস্ট দেয়ায়। এই সমস্যা আমার প্রায়ই হয়।

৪| ১১ ই জুলাই, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১৮

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: আমার বহুবার হয়েছিলো এবং এর কারন আপনার লেখার মাধ্যমে জানতে সক্ষম হয়েছি।ধন্যবাদ আপনাকে।

৫| ১১ ই জুলাই, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২২

রাজীব নুর বলেছেন: প্রথম আলোতে আজ বা গতকাল এরকম একটা লেখা পড়েছি।

৬| ১২ ই জুলাই, ২০১৯ সকাল ৮:১৯

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: এই সমস্যাটা আমার প্রায়ই হয়। আপনার পোস্ট পড়ে উপকৃত হলাম। ধন্যবাদ।

৭| ১৪ ই জুলাই, ২০১৯ রাত ১০:৩৬

IDEALISTIC বলেছেন: খুব ভালো পোস্ট।

৮| ১৭ ই জুলাই, ২০১৯ রাত ১০:৫২

সুমন কর বলেছেন: তথ্যবহুল পোস্ট। শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.