নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

পরম সত্য বলে কিছু নেই।

জেন রসি

সময়ের সাথে দাবা খেলি। বোর্ডের একপাশে আমার অস্তিত্ব নিয়ে বসে আছি। প্রতিটা সিদ্ধান্তই এক একটা চাল। শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত খেলাটা উপভোগ করতে চাই!

জেন রসি › বিস্তারিত পোস্টঃ

ইয়াবা মজিদ এবং মিউচ্যুয়াল ডিলেমা

০৯ ই মে, ২০১৭ বিকাল ৪:০৩




ইয়াবা মজিদ


লোকটার নাম মজিদ। মানুষ তাকে ইয়াবা মজিদ নামে চিনে। নিজ দেশে সে একজন স্টার। সাকিব খান বা সাকিব আল হাসানের মতই। সে জনগণকে ইয়াবা সেবা দেয়। কাজটা খুব কঠিন। কারন কাজটা বৈধনা। যেকোন অবৈধ ব্যবসায় সফল হওয়ার জন্য অনেক বড় মাপের আর্টিস্ট হতে হয়! মজিদও নিজেকে একজন আর্টিস্ট ভাবে। এই দেশের মানুষ এমনিতেই নানা রকম হতাশায় আক্রান্ত। টাকা থাকলেও সুখ নাই। না থাকলেও সুখ নাই। মানুষের অসুখের দিনে পর্ণ সাইটগুলো এবং অবৈধ মাদক ব্যবসায়ীরা আপ্রান চেষ্টা করে যাচ্ছে তাদের হতাশা থেকে মুক্তি দিয়ে যেতে। মানুষের ডিম্যান্ড দিনে দিনে বাড়ছে। মানুষ মুক্তি চায়। মসজিদ, মন্দির আর আজকাল মানুষকে শান্তি দিতে পারছেনা। শান্তি দেয় এমএমএস! শান্তি দেয় বোম মেরে মানুষ হত্যা, শান্তি দেয় ইয়াবা! মজিদ আসলে মানুষকে শান্তি দিয়ে যাচ্ছে। হতাশা থেকে মুক্তি দিচ্ছে সে এদেশের তরুন সমাজকে। এ কাজে অনেক রিস্ক আছে। দেশের আইন কানুন তার বিরুদ্ধে। সেটা নিয়ে অবশ্য সে খুব একটা চিন্তিত না। কারন আইন কানুনে কি লেখা আছে বা বলা আছে এটা মুখ্য ব্যাপার না। কারা সেসব এক্সিকিউট করার দায়িত্বে আছে সেটাই মুখ্য ব্যাপার।

কয়েকদিন আগে মজিদের শহরের মেয়র সংবাদ সম্মেলন করে ইয়াবার বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করেছে!তারপর থেকে অনেকেই নড়েচড়ে বসেছে। সেদিন রাতে মজিদ ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট দুতার্তেকে স্বপ্নে দেখেছিল। এই দুতার্তে তার দেশে সব অবৈধ মাদক ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন ভাবে মেরে ফেলছে। নো মারসি টাইপ অবস্থা। মানবধিকার সংস্থা দরদ দেখাতে চেয়েছিল। তাদের বলা হয়েছে ফাক ইউ! বিশ্বের মোড়ল হয়ে বারাক ওবামা নাক গলাতে গিয়েছিল। গালি খেয়ে ফিরে এসেছে! দুতার্তে তাকে নিয়ে মশকরা করছিল। কিরে মজিদ, তোর মেয়রের উপর নাকি আমার আত্মা ভর করেছে? সে নাকি অবৈধ মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষনা করেছে? মজিদের খুব বলতে ইচ্ছে করছিল ফাক ইউ! কিন্তু তার আগেই তার ঘুম ভেঙ্গে যায়! তার বুক ধড়পড় করছিল।


হাবু ক্রসফায়ারে নিহত হয়েছে। ঘটনা খারাপ। মেয়রের উপর দেখা যাচ্ছে আসলেই দুতার্তের আত্মা ভর করেছে। হাবু মজিদের ব্যবসায় একজন ডিস্ট্রিবিউটর ছিল। খুবই সফল ছিল সে তার কাজে। তাকে এভাবে মেরে ফেলায় মজিদের অনেক ক্ষতি হয়ে গেল। এই হত্যাকাণ্ডে দেশজুড়ে বিভিন্ন রকম প্রতিক্রিয়া হচ্ছে। মানবধিকার কর্মীরা বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে চীৎকার চেঁচামেচি শুরু করে দিয়েছে। এদের কাজকারবার দেখলে মজিদের হাসি পায়। তবে তাদের কথাবার্তা এখন তার পক্ষেই যাবে! এতে যদি মেয়র একটু থামে! মজিদের ইচ্ছা করে এইসব অ্যাকটিভিস্টদের গিফট হিসাবে ইয়াবা পাঠায়! এদের মধ্যে কেউ কেউ আবার তার ইয়াবা সেবা নিয়মিতই নিচ্ছে! এটা মজিদ জানে! যে সাংবাদিক এক সপ্তাহ আগে তার বিরুদ্ধে পত্রিকায় রিপোর্ট লিখেছিল, সে মজিদের শহরে সমুদ্র বিলাসে আসলে বিনোদনের জন্য কি কি করে সেটাও মজিদ জানে। এত কিছু জানে বলেই মজিদ আজ একজন সফল এবং ক্ষমতাবান মানুষ। মজিদ জানে কখন কিভাবে কার ডিম্যান্ড পূরণ করতে হয়। কখন কার পায়ে চুমু দিতে হয়! আর কখন কার মাথায় আঘাত করতে হয়। তবে মেয়রকে নিয়ে মজিদ সংশয়ে আছে। তার মতিগতি সে কিছু বুঝে উঠতে পারছেনা। আর এই সংশয় থেকেই মজিদের মনে ভয়ের জন্ম হয়। দুদিন পর মেয়র সমুদ্রবিলাসে আসবে। তাকে কিভাবে সন্তুষ্ট করা যায় সেটা নিয়ে মজিদ ভাবছে।


মেয়র বসে আছে। তার হাতে হাভানা চুরুট! তার মুখোমুখি বসে আছে মজিদ। ইয়াবা মজিদ। মেয়র সমুদ্র বিলাসে এসেছেন। এসেই তিনি একটা সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন ইয়াবা নামক কোন মাদকের অস্তিত্ব এই দেশে থাকবেনা। মেয়র মজিদের দিকে ঠাণ্ডা চোখে তাকিয়ে আছে। বল মজিদ, তোমাকে আমার কেন দরকার? কনভিন্স মি!

স্যার, আমাকে আপনার দরকার নেই। আপনার দরকার ক্ষমতা। আপনার দরকার ক্ষমতায় টিকে থাকা! এই টিকে থাকার লড়াইয়ে আমি আপনার দিকের একজন সৈনিক! আমি ইয়াবা নিয়ে বিজনেস করি। এই বিজনেস করাটা আমার কাছে একটা আর্টের মত ব্যাপার।আপনার দেশের তরুন সমাজ হতাশায় নিমজ্জিত। তাদের অনেক কিছু নিয়েই হতাশা। আপনার পক্ষে কোন ভাবেই এদের সন্তুষ্ট করা সম্ভব না। আমি এদের এই হতাশা থেকে মুক্তির একটা সুযোগ করে দিয়েছি। তারা ইয়াবা নিয়ে বুঁদ হয়ে থাকলে দেশের কোথায় কি হচ্ছে, কেন হচ্ছে এসব নিয়ে ভাবনা চিন্তা করবেনা। তারা ক্রাইম করবে কিন্তু বিপ্লব করবেনা। ক্রিমিনাল আপনার জন্য কোন সমস্যা না। বরং আপনার আইন শৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে তাদের মেরে ফেললে দেশের মানুষ বাহবাই দেবে। কিন্তু একজন বিপ্লবী আপনার জন্য সমস্যা। যে তরুন রাজনীতি, সমাজনীতি, অর্থনীতি, বিজ্ঞান ধর্ম এসব নিয়ে যত বেশী পড়বে সে তত বেশী তার নিজের অধিকার সম্পর্কে সচেতন হতে থাকবে। সে তখন আপনার ক্ষমতা নিয়ে তত বেশী প্রশ্ন করা শুরু করবে।এসব হচ্ছে দার্শনিক কারন যে কারনে আমার মত মানুষকে আপনার দরকার। প্র্যাকটিক্যাল কারনও আছে। আমাকে সরিয়ে দিলে বা মেরে ফেললে এই এলাকায় আরেক মাদক ব্যবসায়ী চলে আসবে। আপনার বিরোধী পক্ষের দখলে চলে যাবে সব কিছু। আপনি জানেন আজকাল সিন্ডিকেট ছাড়া ক্ষমতায় টিকে থাকা যায়না। সে সিন্ডিকেটে বুদ্ধিজীবী, কবি সাহিত্যিকের যেমন প্রয়োজন হয় তেমনি আমার মত মাদক ব্যবসায়ীরও প্রয়োজন আছে। আমরা সবাই মিলেই একটা ক্ষমতার বলয় তৈরি করি। আপনার ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্যই আমাকে আপনার প্রয়োজন আছে। মজিদ কথাগুলো বলে মেয়রের দিকে খুব আত্মবিশ্বাসের সাথে তাকায়। মেয়রের মুখে হাসি খেলা করছে। যে হাসির অনেক রকম অর্থ করা যায়!


সাদি কিছুক্ষন আগে তার মাকে জবাই করে হত্যা করেছে। তার সারা শরীরে মায়ের রক্ত লেগে আছে। মহিলাটার কাছে সে টাকা চেয়েছিল। টাকা দেয়নি। সাদি শান্তি চেয়েছিল। মুক্তি চেয়েছিল। একমাত্র ইয়াবাই তাকে শান্তি দিতে পারে। হতাশা থেকে মুক্তি দিতে পারে। মহিলাটা তাকে সে শান্তির পথে, মুক্তির পথে যেতে বাঁধা দিচ্ছিল। তাই সাদি তাকে সরিয়ে দিয়েছে। মহিলাটা জাহান্নামে যাক! সাদির এখন ইয়াবার প্রয়োজন!


মিউচ্যুয়াল ডিলেমা


ছেলেটার টাকা আছে। ক্ষমতা আছে। লবিং করার মত লবিস্ট আছে। ক্ষমতাবান ব্যবসায়ী বাবা আছে। ছেলেটার একটা পুরুষাঙ্গও আছে! সে নিজেকে এই দেশের রাজা মনে করে। দেশটা তার কাছে একটা হারেমখানা। দেশের মেয়েগুলো সব তার সেবাদাসী! মোল্লাটাও মসজিদকে এমন হারেমখানাই মনে করেছিল। আর যাকে সে ধর্ষণ করেছিল সে ছিল তার সেবাদাসী। যে বাবাটা তার মেয়েকে নিয়ে আত্মহত্যা করেছিল সেও আসলে ব্যাপারটা বুঝতে পারেনি। ভুল করে বিচার চেয়ে ফেলেছিল। নিজের ভুল বুঝতে পেরে সে অবশ্য মেয়েকে নিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

এসব রাজা বাদশাদের একটা কামনা বাসনার ব্যাপার আছে। তারা যা করে তা মিউচ্যুয়ালীই করতে চায়। কিন্তু মেয়েগুলো, শিশুগুলো বুঝেনা।তখন তাদের বুঝাতে হয়। এই বুঝানোর সময় কিছু নিষ্ঠুরতা দেখাতে হয়! হান্নান সাহেবের মেজাজ খারাপ! একদল রামছাগল এসব না বুঝেই ধর্ষণ ধর্ষণ বলে পুরো দেশ এক করে ফেলছে। আরে বাবা! এক বাবা তার মেয়েকে নিয়ে আত্মহত্যা করেছে, এক শিশু মসজিদে ধর্ষিত হয়েছে এসব নিয়ে আলোচনা কর! ছোটলোকদের নিয়ে আলোচনা করে বুদ্ধিজীবী সাজ! তা না এবার বড়লোকদের কাজকারবারেও নাক গলানো শুরু করে দিয়েছে। তার ছেলে একটা পুরুষ মানুষ! তার একটা কামনা বাসনার ব্যাপার আছে! সেই কামনা বাসনার ব্যাপারটা মেয়েরা বুঝবেনা? ছেলেত সব মিউচুয়ালিই করতে চায়! মেয়েরা বুঝেনা বলেইত তাদের ধর্ষণ করতে হয়! কিন্তু তাতে কি? তার মানেত মিউচুয়ালিই সব কিছু করার ইচ্ছা ছিল। আজকালকার ছাগলগুলো দর্শনও বুঝেনা। শুধু বুঝে ধর্ষণ। কয়েকদিন তনুকে নিয়ে খুব চিল্লাছিল। সেনাবাহিনী নিয়ে অনেক কথা বলেছিল! এখন সব ঠাণ্ডা! ছাগলগুলা বুঝেনা ক্ষমতাবানরা যেখানে ধর্ষকদের বডিগার্ড হয়ে বসে থাকে সেখানে লাফালাফি করে কোন লাভ নেই!


হান্নান সাহেব এবং তার ছেলেকে ধরে আনা হয়েছে। কারা কোথায় তাদের ধরে এনেছে সেটা কিছুই বুঝা যাচ্ছেনা। তাদের সামনে একদল তরুন তরুণী দাঁড়িয়ে আছে। সবাই মুখোশ পরে আছে। তাদের মধ্যে একজন হান্নান সাহেবকে বলল, আপনার এবং আপনার ছেলের কথায় যুক্তি আছে। আসলে সে যা করেছে মিউচুয়ালিই করেছে। মেয়েগুলো রাজি হয়নি বলেই সবকিছু একটু ভিন্ন ভাবে করতে হয়েছে। হান্নান সাহেব এবং তার ছেলে এমন কথায় খুব আনন্দিত হয়। যাক এই ছেলেমেয়েগুলো ছোটলোকদের মত অশিক্ষিত নয়। তার বুঝে! কিন্তু তাদের কেন এভাবে কিডন্যাপ করে নিয়ে আসা হলো? এ কথা বলার জন্য কিডন্যাপ করার প্রয়োজন কি? হান্নান সাহেবের ক্ষণিকের আনন্দ আবার মাটি হয়ে যায়! তার নিস্পাপ ছেলেটাও তার দিকে অসহায়ের মত তাকিয়ে আছে।

এখন আপনারা আমাদের এখানে বন্দি। একজন কথা বলে। এখানে আমরাই রাজা বাদশা! আপনারা প্রজা। আমাদের একটা খায়েশ আছে। আমাদের খায়েশ মানে অধিকার! সেটা মেনে নেওয়াটা আপনাদের কর্তব্য! আমরা আসলে ব্যাপারটা মিউচুয়ালিই করতে চাই! হান্নান সাহেবের ছেলের মাঝে কেমন যেন একটা ভয় হয়! সে বুঝতে পারে খুব খারাপ কিছু ঘটতে যাচ্ছে। সেদিন মেয়েগুলোও বুঝেছিল। একজন সরাসরি তার দিকে তাকায়! ছেলেটা ভয়ে কেঁপে উঠে! আমরা ঠিক করেছি খুব সন্মানের সাথে মিউচুয়াল বোঝাপড়ার মধ্যে দিয়ে আপনাকে খাসী বানাব। অর্থাৎ আপনাকে আমরা রসুনের কোয়া ট্রিটমেন্ট দেব! সে দৃশ্য আপনার বাবা বসে বসে দেখবে! আপনি রাজি থাকলে ভালো। না থাকলেও কোন সমস্যা নেই। আমরা যা করার মিউচ্যুয়ালীই করব। কয়েকজন তরুন তরুণী ছেলেটার দিকে এগিয়ে যায়! একই সাথে বাবা এবং ছেলের আর্তনাদের আওয়াজ শোনা যায়!


দুটো গল্পই কাল্পনিক। কোন ব্যক্তি বা ঘটনার সাথে মিলে গেলে সেটার দায়ভার লেখকের নয়!





মন্তব্য ৪৪ টি রেটিং +১৩/-০

মন্তব্য (৪৪) মন্তব্য লিখুন

১| ০৯ ই মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৪১

চাঁদগাজী বলেছেন:


"দুটো গল্পই কাল্পনিক। কোন ব্যক্তি বা ঘটনার সাথে মিলে গেলে সেটার দায়ভার লেখকের নয়! "

ঘটনা ঘটলো, মিডিয়ায় এলো, সেটা দেখে লিখলেন; ঘটনা মিলে গেলে দায়বার নেবেন না; এ কি ধরণের কথা, সরকারী চাকুরী করেন?

০৯ ই মে, ২০১৭ রাত ৯:৪৭

জেন রসি বলেছেন: না ভাই, আমি বেকার মানুষ। কেউ চাকুরী দেয়না। ;) দায়ভার নেবনা কারন গল্প লিখেছি। এখন গল্পের সাথে কোন ঘটনা মিলে গেলে সেটাত আর আমার দোষ না! আমিত আর ঘটনা ঘটাইনি! ;)

ধন্যবাদ আপনাকে। :)

২| ০৯ ই মে, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৫২

সুমন কর বলেছেন: মিউচ্যুয়ালী দু'টো গল্প পড়ে নিলাম। আর কিছু বলা যাবে না, কারণ গল্পে দারুণ কিছু বলা আছে। +।

সময়োপযোগী টাটকা লেখা। ;)

০৯ ই মে, ২০১৭ রাত ৯:৫৬

জেন রসি বলেছেন: ধন্যবাদ দাদা। :) সব মিডিয়ার অপপ্রচার! ;)

৩| ০৯ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:০২

শায়মা বলেছেন: এই জন্যই কথায় আছে, ভাবিয়া করিও কাজ করিয়া ভাবিও না!!!!!!! :)


কিন্তু চাঁদগাজী ভাইয়া!!!!!!!!!!! হা হা হা হা

আমার মনে চাঁদগাজী ভাইয়া জীবনেও এই নীতি মানে নি!!!!!!!!! :P


মানে করে ফেলেও ভাবেনি....... অন্যরা ভেবেছে সেটা নিয়ে..... ভাবতে ভাবতে পাগল, উন্মাদ হয়ে গেছে কিন্তু ভাইয়া আছে নিজের আউল মনের বাউলা বনে ..... হা হা হা

০৯ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:২০

জেন রসি বলেছেন: চাঁদগাজী ভাই কুল। ;) তার মন্তব্য আমি উপভোগ করি। যেমন এখানে তিনি আমাকে খুবই যৌক্তিক একটা প্রশ্ন করেছেন। আমি কেন সরাসরি কিছু না লিখে গল্প লিখলাম। গল্প লিখে বলাটা আমার স্টাইল। সরাসরি আঘাত করে মনে যা আসে তাই বলে ফেলা ওনার স্টাইল! এই স্টাইল সহ্য করতে না পেরে অনেকেই ব্লগে পাগলামি করে নিজেরাই নিজেদের ইমেজের বারোটা বাজিয়েছেন! ব্যাপারটা হাস্যকর! ;)

৪| ০৯ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:২৬

কল্পদ্রুম বলেছেন: পোস্টে +
দুটো গল্পই ভালো লেগেছে।মিউচুয়াল ডিলেমা বেশি ভালো ছিলো।

০৯ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:৪২

জেন রসি বলেছেন: পড়ার জন্য এবং মন্তব্য করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। :)

৫| ১০ ই মে, ২০১৭ সকাল ৭:৪৯

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: প্রথম গল্পটা আমাদের দেশে বাস্তব, দ্বিতীয়টার শেষাংও বাস্তব হলে খারাপ হতো না।

১০ ই মে, ২০১৭ সকাল ৯:২৮

জেন রসি বলেছেন: প্রথমটা সত্য। বিচারহীনতার সংস্কৃতি চলতে থাকলে দ্বিতীয়টাও হবে।

ধন্যবাদ আপনাকে।

৬| ১০ ই মে, ২০১৭ সকাল ৯:২৩

ডঃ এম এ আলী বলেছেন: প্রথমে লিখা মন্তব্যটি সেভ না করে পোষ্ট দিয়ে খেয়েছি ধরা , অনেকক্ষন চাকা ঘুরে Bad way 504 শো করে লেখা গায়েব ।
পরের চেষ্টা , সফল হলে তো হল , না হলেও মনে হল কিছু কথা বলে যাই । গল্প দুটি বেশ সাংকেতিক বগুবিধ অর্থ ধরে , চাঁদ গাজী , সায়মাপু আর কর বাবু সুত্র ধরে না দিলে এটা বুঝতে জান যেতো বের হয়ে । রূপকের উপরে রুপক, তার পরেও মিউচুয়াল , এযে কঠীন মুনসিয়ানা লিখাটির ভিতরে , ভাবনাটাযে কোন দিকে কার দিকে যাবে ধরতে একটু অসুবিধা হলেও বুঝা যাচ্ছে গল্প দুটির আছে পরিস্কার নিশানা । লক্ষ ভ্রষ্ট যে হবেনা তাতে নিশ্চিত ।

অভিনন্দন রইল গল্পটির জন্য ।

অনেক অনেক শুভেচ্ছা রইল ।

১০ ই মে, ২০১৭ সকাল ৯:৪০

জেন রসি বলেছেন: হ্যাঁ সামু কাল থেকেই অনেক স্লো। এতে করে ব্লগিং করতে আসলেই অনেক সমস্যা হচ্ছে। আপনি দ্বিতীয়বার মন্তব্য করেছেন বলে ধন্যবাদ।

সব গল্পই আসলে বিভিন্নভাবে চারপাশের কথা বলে। ঘটে চলা ঘটনা, কল্পনা সব মিলেইত মানুষের গল্প।

শুভকামনা রইলো আলী ভাই। :)

৭| ১০ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:১৭

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: প্রথমটি সাময়িক প্রেক্ষাপটে সম্পূর্ণ যৌক্তিক । ইয়াবা সম্রাটরা ক্ষমতার বলয়ে নক্ষত্র হয়ে ওঠছেন আর ইয়াবা শান্তির প্রহসনে যুব সমাজকে ধ্বংস করে দিচ্ছে । মা কে হত্যা করতে হাত পা কাঁপছে না ।

১০ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:৪৪

জেন রসি বলেছেন: ইয়াবা সম্রাটরাত দেশ ও জাতির সেবা করে যাচ্ছে। জাতি বুঝেনা। ;)

ধন্যবাদ সেলিম আনোয়ার ভাই। :)

৮| ১০ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:৩৫

আহমেদ জী এস বলেছেন: জেন রসি ,




গল্পের ঘটনার কিছু মোটেও কাল্পনিক নয় , সমসাময়িক । যদিও স্যাটায়ার আছে ।

মিউচ্যুয়াল ডিলেমার ২ নম্বরের সাথে মনে হয় নীচের লিংকের বক্তব্যের মিল আছে আরও কঠোরতম রূপে ----------------------

জেসাস রিবর্ন (ছোট গল্প)

( ব্লগের খামখেয়ালীপনার জন্যে মন্তব্য সংক্ষেপিত )

১১ ই মে, ২০১৭ রাত ২:১৪

জেন রসি বলেছেন: মানুষ সুবিচার না পেলে চুপচাপ বসে থাকবেনা। আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়া শুরু করবে। মোটা অংকের টাকার কাছে প্রশাসন যেভাবে বিক্রি হচ্ছে তাতে সাধারন মানুষের আস্থা এবং সন্মানত কমছেই, কয়েকদিন পর তারা পাল্টা আঘাত হানতেও ভয় বা দ্বিধা করবেনা।

আমি ব্যক্তিগত ভাবে খুবই শান্তিপ্রিয় মানুষ। কিন্তু আবার প্রবল ভাবেই সেলফ ডিফেন্সের সমর্থক। এক গালে থাপ্পর দিলে আরেক গাল পেতে দিয়ে পরকালে সুখ আসবে এমন কোন ভ্রান্তি নেই।

আপনার অসাধারন গল্পটি পড়েছি। আসলে মাঝেমাঝে সময়ের প্রয়োজনেই কঠোর হতে হয়।

ব্লগ অনেক স্লো ছিল। এখন বোধহয় ঠিক হয়েছে। ধন্যবাদ জী এস ভাই। :)

৯| ১০ ই মে, ২০১৭ রাত ১১:৫৮

শাহরিয়ার কবীর বলেছেন:

দুটো গল্পই কাল্পনিক হলেও ............................



সুন্দর লিখেছেন ।

১১ ই মে, ২০১৭ রাত ২:১৬

জেন রসি বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই। :)

১০| ১১ ই মে, ২০১৭ রাত ১:২৯

সচেতনহ্যাপী বলেছেন: সমসাময়িকই বলে ধরে নিলাম, পড়া শেষ করে।।
এবং ভাললাগাটুকুও জানিয়ে গেলাম।।

১১ ই মে, ২০১৭ রাত ২:১৯

জেন রসি বলেছেন: ধন্যবাদ সচেতনহ্যাপী ভাই। :)

১১| ১১ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:০৮

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: দুটো গল্পই ভালো লাগলো।

ধন্যবাদ ভাই জেন রসি।

১১ ই মে, ২০১৭ সকাল ১১:৩২

জেন রসি বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে। :)

১২| ১১ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১২:২৮

বলেছেন: প্রথম অংশটুকু বাংলাদেশের সমসাময়িক চিত্র ।
আর শেষ অংশটুকু হুমায়ুন আহমেদের মাতাল হাওয়া উপন্যাসের পরিমার্জিত রুপ

১১ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১২:৫৬

জেন রসি বলেছেন: এই প্রথম আমার পোস্টে নামহীন কোন ব্লগারের মন্তব্য পেলাম। :P হুমায়ূন আহমেদের মাতাল হাওয়া না বোধহয়। তার লিলুয়া বাতাস উপন্যাসে একজন যৌননির্যাতনকারী চরিত্রকে খাসী বানানো হয়। তাছাড়াও বাস্তবে এবং কল্পকাহিনীতে এমন আরো অনেক উদাহরন আছে। তবে আমার দ্বিতীয় গল্পটাও আসলে সমসাময়িক। সুবিচার না পেয়ে মানুষের ক্ষোভ দিনে দিনে বাড়ছে। অনলাইনে অফলাইনে আমি মানুষকে বলতে শুনেছি যে পুলিশ এদের ধরবেনা। প্রসাশন বিচার করবে না। তার চেয়ে বরং আমাদেরকেই ধরে এদের লিংগ কেটে ফেলতে হবে। খাসী বানিয়ে ফেলতে হবে। মানে এক্সট্রিম অপরাধের জবাবে এক্সট্রিম পানিশমেন্ট। সে অব্জারভেশন থেকেই এটা লেখা। সুবিচার না পেলে এমনটা হতেও পারে।

ধন্যবাদ আপনাকে। :)

১৩| ১১ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১:১৮

আলোরিকা বলেছেন: কি কাকতালীয় ব্যাপার ----আজকাল যে এমনই হচ্ছে ;) অপেক্ষায় আছি আর কবে আমাদের দেয়ালে পিঠ ঠেকবে !!

শুভকামনা । ভাল থাকুন সুলেখক :)

১১ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১:২৪

জেন রসি বলেছেন: কাকতালীয়ই বটে! ;) আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে এখন দেয়ালও ভাঙা শুরু হয়ে গেছে! এখন শুধু খাঁদে পরার অপেক্ষা।

ধন্যবাদ আপু। আপনার জন্যও শুভকামনা রইলো। :)

১৪| ১১ ই মে, ২০১৭ দুপুর ২:২২

নীলপরি বলেছেন: দুটো গল্পই দারুন লাগলো ।

শুভকামনা । :)

১১ ই মে, ২০১৭ দুপুর ২:২৬

জেন রসি বলেছেন: ধন্যবাদ নীলপরি আপু।

শুভকামনা। :)

১৫| ১১ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:০২

সিনবাদ জাহাজি বলেছেন: দুটো গল্পই ভালো লেগেছে।
আমাদের সমাজ জীবনের সঠিক চিত্রটা ফুটে উঠেছে লিখায়।
+++

১১ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:১৯

জেন রসি বলেছেন: ধন্যবাদ আপনাকে। :)

১৬| ১২ ই মে, ২০১৭ ভোর ৬:১৮

সোহানী বলেছেন: সব কিছুই কাল্পনিক... কোনভাবেই কোথাও মিল খুজার ব্যার্থ চেস্টা করা উচিত নয়। কারন দেশের আইন শৃংখলা পরিস্থিতি এখন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রিত। ....... তাই যৈাথভাবে সকল সেবকরা দেশের সকল যুবসমাজকে শান্তি দেয়ার কাজে কখনই বাধাঁ হয়ে দাড়াঁয় না। বরং এক হয়ে কাজ করে। সে শান্তি ইয়াবাই হোক বা ধর্ষন হোক............. জয় ইয়াবার জয়... জয় ধর্ষকের জয়.....

যারা এসব কাজে বাধাঁ দিবে তারা জাতির শত্রু, বিরোধীয় ষড়যন্ত্র.......... তাদের সমূলে নির্মূল করা হবে। জয় ইয়াবার জয়... জয় ধর্ষকের জয়.....

১২ ই মে, ২০১৭ বিকাল ৩:০৪

জেন রসি বলেছেন: ক্ষমতায় কেউ একক ভাবে টিকে থাকতে পারেনা। টিকে থাকতে হলে একটা শক্তিশালী সিন্ডিকেট লাগে। এই সিন্ডিকেটের মধ্যে রাজনীতিবিদ বুদ্ধিজীবী, শিক্ষক, বিজনেসম্যান হতে শুরু করে অবৈধ মাদক ব্যবসায়ীও থাকে। এরা সবাই মিলে একটা সিস্টেমে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ ভাবে একে অপরকে টিকে থাকতে সাহায্য করে। আমাদের দেশে এখন এমন সব সিন্ডিকেটদের দখলে।

১৭| ১২ ই মে, ২০১৭ রাত ১০:০০

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:



সামু স্লো থাকায় একটি কাজ সেদিন করতে পারিনি
আজ তা করে গেলাম। সাথে একটি বিষয়ে আপনার
কথা শুনতে চাই তাহলো আদি মাফিয়া ও নব্য মাফিয়াদের
কার্যকলাপের মধ্যে কি কোন পার্থক্য আছে
নাকি তাদের আদি অন্ত বলতে কিছু নাই !!!

১৩ ই মে, ২০১৭ দুপুর ১:২৬

জেন রসি বলেছেন: কাজ করার ধরন বা কর্মপদ্ধতিতে পার্থক্য অবশ্যই আছে। আবার এখন সিস্টেম বা পলিসির নামেও মানুষকে খুব সহজে বিভ্রান্ত করা যায়! যেমন ধরুন ব্যাংক। এরা নানা ভাবে আমাদেরকে একটা বিভ্রান্তির মধ্যে রাখে। যা আমরা খুব সহজে বুঝতে পারিনা। তারা ঠিক কোথায় কিভাবে আমাদের সাথে ধোঁকাবাজিটা করছে এটা আমরা ধরতে পারিনা। সব যুগেই আসলে অবৈধ মাফিয়ার সাথে বৈধ মাফিয়ারাও ছিল। যুগের পরিবর্তনের সাথে সাথে, জ্ঞানের পরিবর্তনের সাথে সাথে মাফিয়াদেরও পরিবর্তন ঘটে।

১৮| ১৪ ই মে, ২০১৭ দুপুর ২:৩০

কল্লোল পথিক বলেছেন: সময়োপযোগী সুন্দর লেখা।

১৪ ই মে, ২০১৭ বিকাল ৩:০৩

জেন রসি বলেছেন: ধন্যবাদ ভাই। :)

১৯| ১৪ ই মে, ২০১৭ বিকাল ৩:৪২

কানিজ ফাতেমা বলেছেন: এমন চমৎকার একটি ধারোলো লেখা পড়ে সামু ব্লগে আমার পদচারনা স্বার্থক হয়ে উঠেছে ।

এক ভয়াল পরিণতির দিকে আমরা ক্রমশ: এগিয়ে যাচ্ছি ।

শুভ কামনা রইল ।

১৪ ই মে, ২০১৭ বিকাল ৫:২৮

জেন রসি বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনাকে। শুভকামনা। :)

২০| ২৫ শে মে, ২০১৭ রাত ৮:১৯

হাসান মাহবুব বলেছেন: ঠান্ডা ভাঁপের বিধ্বংসী বিস্ফোরক।

২৫ শে মে, ২০১৭ রাত ১০:৫৪

জেন রসি বলেছেন: হাহাহা.....

ধন্যবাদ হামা ভাই।

২১| ০৬ ই জুন, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:২০

গেম চেঞ্জার বলেছেন: গল্পকে যদি বাস্তবে নেয়ার কোন উপায় জানা থাকে তাহলে বলেন....

০৭ ই জুন, ২০১৭ রাত ৮:১২

জেন রসি বলেছেন: আমরা নিজেরাইত এক একটা গল্প।

২২| ০৭ ই জুন, ২০১৭ রাত ৯:৩০

গেম চেঞ্জার বলেছেন: আমাদের জীবনের গল্পগুলো যেরকম, পড়া গল্পগুলোর শেষ ভিন্নরকম! 8-|

১০ ই জুন, ২০১৭ দুপুর ২:০৪

জেন রসি বলেছেন: গল্পের পরিনতির হাজার রকম সম্ভাব্যতা থাকতে পারে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.