নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সেলিম আনোয়ার

[email protected] Facebook-selim anwar বেঁচে থাকা দারুন একটা ব্যাপার ।কিন্তু কয়জন বেঁচে থাকে। আমি বেঁচে থাকার চেষ্টা করি।সময় মূল্যবান ।জীবন তার চেয়েও অনেক বেশী মূল্যবান।আর সম্ভাবনাময়।সুন্দর।ঢাকাবিশ্বদ্যিালয়ের পাঠ চুকিয়ে নিরস চাকুরীজীবন।সামনে আরও নিরস ভবিষ্যৎ। নিরস জীবন সরসভাবে কাটানোর প্রচেষ্টায় আমি সেলিম আনোয়ার।

সেলিম আনোয়ার › বিস্তারিত পোস্টঃ

“হয়তো নয়তো” হুমায়ূন ফরীদি অভিনীত নাটক জন্মদিনে (২৯ মে) তাঁকে শ্রদ্ধাঞ্জলি ও অন্যান্য

২৮ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:০৩



হয়তো নয়তো। ফরীদি অভিনিত একটি নাটক। নাটকে ফরীদি একজন ব্যাচেলর কবি। তার কবিতার বিষয় নারী।
বাড়িওয়ালার মেয়েকে নিয়ে ইতিমধ্যে ১০১টি কবিতা লিখেছেন। কবিতার বইটি প্রকাশনার অপেক্ষায়। কিন্তু মেয়েকে তার ভালোবাসার প্রস্তাবনা করা হয়ে ওঠে না। প্রেমের কথা বলতে গেলে গলা শুকিয়ে যায়। এক গ্লাস পানি পান করে তবেই রক্ষা। এ নিয়ে মেয়েটির কষ্টের সীমা নেই সেও ভালোবাসে ফরীদিকে। ফরীদি আকাশের দিকে তাকিয়ে থাকে আর কবিতা লিখে। এক পর্যায়ে মেয়েটি ফরীদিকে বিয়ের আলটিমেটাম দেয়। কনের হাতে শেরোয়ানি সেটা তার উপস্থিতিতে পরে কাজী সাহেবের কাছে গিয়ে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সারতে হবে। কাজীকে বাসায় ডেকে আনা হয়েছে। ফরীদি সময় চায়। কেন সময় লাগবে জানতে চাইলে ফরীদি বলেন যে তিনি ২২টি মেয়েকে প্রেমপ্রস্তাব করেছেন সেগুলো ফিরিয়ে নিতে তার ২২দিন সময় লাগবে। মেয়ে অবাক হয়। যে তাকে একবারও প্রেমের প্রস্তাব দিতে পারেনি সে কিভাবে ২২ জনকে প্রস্তাব দিলো। অবশ্য ফরীদি ব্যপারটি খোলাসা করেন যে তিনি ২২ জন কে নিয়ে কবিতা লিখেছেন। হা হা । আমার মতো এক রাতে ২২টি কবিতা লিখা সব কবির পক্ষে সম্ভব নয়!! কবিরা কি এমনই হয়? সে যাই হোক মেয়ের মামা চরিত্রে অভিনয় করেছেন আলী জাকের যিনি এখনো বিবাহ করেনি। বিবাহ করা মানুষ আর মৃত মানুষ তার কাছে সমান। তার বিবেচনায় পৃথিবীটা নারীদের দখলে। সবখানে তাদের কর্তৃত্ব আর পুরুষরা এই পৃথিবীতে ভীন্ন গ্রহের এলিয়েনের মতো। অবিবাহিত মামা চরিত্রে আলী জাকেরর মতো সফল বাংলানাটকে আর কেউ নয়। বিবাহ নাটকের কথা মনে পড়ছে। নায়িকার ছোট ভাই ফেসবুক আসক্ত। তার দিনের শুরু হয় দুপুর ২:০০ টায়! আমিরুল ইসলাম চৌধুরি মেয়ের বাবার চরিত্রে। নাটকটি কমেডি ধাচের। নাটকে ফরীদি অনবদ্য অভিনয় করেছেন। তাকে কবিই মনে হবে। তার কন্ঠে আবৃত্তি সবাইকে মুগ্ধ করবে আর অভিনয়ে তিনি অনন্য অসাধারণ অতুলনীয়। কবির নায়িকা চরিত্রে চন্দা মাহাজাবীন দূর্দান্ত অভিনয় করেছেন। তবু আমার ইউটিউবে নাটক দেখার সময় মনে হলো এখানে সুবর্ণা অভিনয় করলে দারুন হতো। সুবর্ণা ফরীদির রসায়ন অসাধারণ অতুলনীয়। সুবর্ণা ফরীদির সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদ করে অভিনয়জগতের অপূরনীয় ক্ষতি করেছেন ক্ষমার অযোগ্য পাপের মতো। তাদের দুজনের উপস্থিতি দারুন ভাবে সমৃদ্ধ করতো নাটক কিংবা রুপোলী জগৎ। তারা দুজনে মিলে অসাধারণ কিছু উপহার দিতে পারতেন। নিজেদের আরো অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে পারতেন।সুবর্ণা তাতে খড়গ চলিয়েছেন নির্দয়ের মত। নাটকে সুবর্ণার অনুস্থিতিতে আমার অমনটা মনে হয়েছে। অন্যদের ক্ষেত্রে নাও হতে পারে। ২৯ মে ফরীদির জন্মদিন। এই লেখাটির অবতারনা তার জন্মদিন নিয়েই। জন্মদিনে প্রিয় ফরীদির প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি। রুপালী পর্দার সবচেয়ে গর্জিয়াস তারকা এই ফরীদি। ভিন্ন ধরণের চরিত্রে সাবলিল অভিনয় করে বহুমাত্রিক প্রতিভার প্রমান তিনি রেখেছেন। তার ইউনিক ভয়েস, তার অট্টহাসি, ট্রাজেডি কমেডি সবকিছুই অনন্য। খল চরিত্রেও তিনি অনবদ্য। তিনিই পেরেছেন খল চরিত্রকে নায়ক চরিত্রের মতো জনপ্রিয় করে তুলতে। আর তাইতো তিনি নক্ষত্র; অভিনয় জগতের ধ্রুবতারা। তার অভিনয় দেখে অনেকে অভিনয় শিখবে এটাই স্বাভাবিক। শত বছরে একজন ফরীদির জন্ম হয়। এই পবিত্র রমজানে তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করি। না ফেরার দেশে ভালো থাকুক আমাদের ফরীদি । ফরীদি মরেও অমর হয়েছেন অভিনয়ের মাধ্যমে।





হুমায়ূন ফরীদি তুমি রবে নিরবে
শত ভক্তের হৃদয়ে
ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে
তুমি কাঁদিয়েছিলে—তুমি ভাবিয়েছিলে
তুমি দেখিয়েছিলে ভালোবাসার নীল আকাশ।

হে অভিমানি
তুমি প্রিয়ার অধরে সপেছিলে
বেলী ফুলের মালা জানি...

তুমি হাসিয়েছিলে— তুমি মাতিয়েছিলে
অগণিত বাংলা হৃদয়— বিস্ময়ে তাই
জেগে ওঠে মোর প্রাণ— এই হৃদয়ের মাঝখান।
হে নায়ক! হে অভিনেতা!! হে মুক্তিযুদ্ধা বীর!!
আমায় মন্ত্রমুগ্ধ করেছো যে
অশ্রুশিক্ত নয়নে তাই আজও তোমায় স্মরি ।




চপেটাঘাত

কে তবে এই ভবে বিলোবে আশার আলো
এই নিকষ অন্ধকারে—লোভে পড়ে
করছে পাপ, মরছে মানুষ
এই লোভে পড়া —কে থামাতে পারে।

অর্থেই যদি অনর্থ সব
পাপেই যদি মরণ; জগৎ জুড়িয়া বিদ্যমান
এ কিসের বিভাজন।

মত প্রকাশে নেই যে স্বাধীনতা
করতে যদি হয়—শুধু মিথ্যের উপাসনা।
এ কেমন মতাদর্শ; নির্যাতনে নিষ্পেষণে
মানবতা যেথা সতত পদপিষ্ট।

কেউ কি নেই এই ভবে?
মুক্তমনে হক ইনসাফের কথা যে বলবে ।

তা যদি না পারি, সত্য প্রকাশে যে উদ্ধত
তারে সমীহ তো করি।
সেই তো সবার সেরা; আশরাফুল মাখলুকাত,
যে অত্যাচারী মুখোশধারীর গালে— এক প্রচন্ড চপেটাঘাত।


আবারো আকূতি

অবশেষে দুপুর পেরিয়ে আসরের ওক্তে
ফাগুনের আগুন যেন ধরিয়ে দিলে
—আমার গায়ের রক্তে।

ধমনীগুলো যেন —এক একটি খরস্রোতা নদী
এই ক্ষত বিক্ষত হৃদপিন্ডে নিনাদ ওঠে
থাকতে পাশে যদি।

ধন দওলত টাকা কড়ি
হিসাব করি নাই—
তোমার প্রেমে অন্ধ আমি
কেবল তোমায় চাই।

এমনি করে কতো রাতি
কতো দিন যে —চলে গেলো
আমার কাছে আসার সময়
তোমার কি এবার হলো ?


শোক

রাত্রী যখন গভীর—ঘুমের বিছানায়
আমরা দু'জন অধীর— ঘুমের প্রতীক্ষায়
খোকন সোনা চাঁদের কণা
ঘুম আসছে না যে—
মুখে তার যেন কথার— খই ফোঁটেছে
সেকী তবে আসবে না ঘুম রাতে!
ঘুম কাতরে জননী তার
ভীষণ রগচটা — নাক ডেকে ঘুমের ঘোরে
তার নিঠোরতা সয়না— এই প্রাণে।
খোকন সোনা বকুনি খেয়েও
ওমা বলে যায় ছুটে—আবারো তার কাছে।
ঘুমকাতর মা ঘুমের ঘোরে মানুষ থাকে না!
অনেক কষ্ট বুকে
বলি আমি "খোকনসোনা ওকে আর মা ডাকিস না।"

মনে মনে প্রমোদ গুনি
খোকনসোনা আমিতো মা না।
শত চেষ্টায়ও তোকে মমতাময়ী মা
দিতে পারিলাম না
অনেক শোক লয়ে বুকে—আমার এই কাব্য রচনা।


প্রত্যাখ্যান

দেশকে ভালোবেসে—দশের কথা ভেবে
যারা যুদ্ধে গিয়েছিলো—
দেশের জন্য যারা জীবন উৎসর্গ করেছিলো—
অতঃপর যারা জীবন বাজী রেখে
পাকহানাদারের হিংস্র থাবা থেকে— ছিনিয়ে এনে
স্বাধীনতার লাল সবুজ পতাকা উড়িয়েছিলো
—এই বাংলার বুকে;
যারা সম্ভ্রম হারিয়েছিলো
ঘরবাড়ি পিতামাতা স—ব ছেড়ে
প্রিয়তমার হাতটি ছেড়ে
যারা জিঘাংসাবুকে নিয়ে হাতে অস্ত্র ধরেছিলো,
পাকহানাদারের যুদ্ধট্যাংক গুড়িয়ে দিতে
যারা প্রিয়তমা নয় বুকে জড়িয়ে মাইন
মৃত্যুর প্রহর গুনছিলো;
যে যুবক যুদ্ধ থেকে আসেনি আর ফিরে
মায়ের আঁচলতলে—
গোধূলির আলোয় পাখিরা যেমন নীড়ে ফেরে;
দেশমাতৃকা যাদের কাছে—এতখানি প্রিয়ো
তারাতো এদেশেরই সন্তান—তাদের বন্দনা করি;
তাদের জন্য আমি আজো কলম ধরি।
তাদের মতো বিশ্বজয়ী বীর আর জন্মেনি কোনখানে
নির্দ্ধিধায় বলতে পারি—
তাদের যারা অসম্মান করে বাক্যবানে প্রশ্নবিদ্ধ করে
তারা এদেশের শুভাকাঙ্খি নয়—তারা এদেশের ক্ষতি করে
অন্য দেশের স্বার্থ চারিতার্থ করে।
আমরা তাদের ঘৃণা করি— চলো ঘৃণাভরে আমরা সবাই
তাদের প্রত্যাখ্যান করি।




উৎসর্গ ঃ হুমায়ূন ফরীদি

(উল্লেখ্য হয়তো ফরীদির জন্মদিনে পোস্ট দেব বলে ব্লগে প্রবেশ করা নয়তো...)
হয়তো নয়তো নাটকের লিংক

মন্তব্য ৩৪ টি রেটিং +৯/-০

মন্তব্য (৩৪) মন্তব্য লিখুন

১| ২৮ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:৪৯

রাজীব নুর বলেছেন: আপনার হাতে প্রতিটা কবিতা খুব সুন্দর হয়।

২৮ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:৫২

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: ১ম কমেন্টে অনেক ধন্যবাদ। এবং নিরন্তর শুভকামনা আপনার জন্য।

২| ২৮ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:১০

ভুয়া মফিজ বলেছেন: নাটক কিছুটা দেখলাম। ইফতারের পরে বাকীটা দেখবো।

হুমায়ুন ফরিদী আমারও খুব পছন্দের অভিনেতা ছিলেন। চেহারা খুব একটা ভালো না হলেও দুর্দান্ত অভিনয় দিয়ে সকলকে মন্ত্রমুগ্ধ করে রাখার বিরল ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন।

২৮ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৪:২৬

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: কিংবদন্তীর অভিনেতা দিলীপ কুমারের মতে তার চেহারা অভিনেতার চেহারা। তার চেহারা অভিনয়কে শতভাগ ফুটিয়ে তুলতে সহায়তা করতো যেমন ভাবে তার কন্ঠস্বর। তিনি সে কোন ধরণের চরিত্রে ভীষণ মানিয়ে যেতেন অভিনয়ের প্রতিটি ক্ষেত্রে তিন মানদন্ড হয়ে আছেন। সেটা রোমান্টিক হোক অথবা খল অথবা কমেডি। সেই ১৯৮৬ সালে তিনি বৃদ্ধের চরিত্রে অভিনয় করে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন।

৩| ২৮ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৯

ওমেরা বলেছেন: হুমায়ুন ফরীদিকে খুব একটা জানিনা আপনার প্রপিক পিক দেখতে দেখতে আপনাকেই আমার ফরীদি মনে হয় ।

২৮ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৩:৫৪

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: এমন যদি হতো....মন্দ হতো না
অন্য সবাই যেতো ভুলে—
অসময়ে ফরীদি হারার বিষম যাতনা...

৪| ২৮ শে মে, ২০১৯ বিকাল ৫:০৫

চাঁদগাজী বলেছেন:


উনি উনার দর্শকদের মাঝে বেঁচে থাকুক।

২৯ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:০৯

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: উনি বেচে থাকবেন লাল সবুজ পতাকায়.....দেশের জন্য তিনি যুদ্ধ করেছেনে। বাংলাদেশ যতদিন থাকবে তিনিও থাকবেন স্বমহিমায়। শুভকামনায় ধন্যবাদ।

৫| ২৮ শে মে, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:০৬

মনিরা সুলতানা বলেছেন: নাটকের লিঙ্কের জন্য ধন্যবাদ !
ফরিদী কে নিয়ে আপনার লেখা লাইনগুলো সত্যি।

পোস্টে ভালোলাগা।

২৯ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:২৫

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: কমেন্টে এবং পাঠে অনেক ধন্যবাদ।নিরন্তর শুভকামনা ।

৬| ২৮ শে মে, ২০১৯ রাত ৮:০৯

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: পোস্টে ভালোলাগা.....

ব্লগে আপনার প্রোফাইল পিকচারটার কথাও বুঝলাম :)

২৯ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১২:৩৩

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: ফরীদি মৃত্যুবরণ করলেন।তখন আমি সিলেটে পাথর কোয়েরির উপর কাজ করছিলাম। খুব কষ্ট পেলাম। ফরীদির নাটক পারপক্ষে মিস করতাম না। নাটক দেখা বন্ধ করে দিলাম।তারপর লেখালেখির শুরু। টাইম পাস আরকি। তারপর কবিতা লিখা শুরু পেয়ে গেলাম আমার কবিতা ।

৭| ২৮ শে মে, ২০১৯ রাত ৮:৩২

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
হুমায়ুন ফরিদী! কঠিন অভিনেতা! দুর্দান্ত অভিনয় ক্ষমতা!

খুব কম বয়সে অসময়ে চলে গেলেন।

২৯ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:৪২

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: সত্যি। বড় অসময়ে চলে গেলেন দেশপ্রেমিক ফরীদি। তিনি অনায়াসে আরো এক যুগ বেঁচে থাকতে পারতেন।

৮| ২৮ শে মে, ২০১৯ রাত ৮:৫৭

ভুয়া মফিজ বলেছেন: সেই ১৯৮৬ সালে তিনি বৃদ্ধের চরিত্রে অভিনয় করে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন। সম্ভবতঃ সেই চরিত্রের নাম ছিল 'সেরাজ তালুকদার' আর একটা বিখ্যাত ডায়লগ ছিল, ''আমি তো জমি কিনি না, পানি কিনি, পানি!" নাকি ভুল বললাম, কে জানে??

২৯ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:৪৩

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: সেটি ছিল খল চরিত্র। তিনি বটবৃক্ষ নাটকে একেবারে বৃদ্ধ চরিত্রে দারুন অভিনয় করেছিলেন।

৯| ২৮ শে মে, ২০১৯ রাত ৯:৪১

মাধুকরী মৃণ্ময় বলেছেন: হুমাযুন ফরিদীর মতো এত বড় অভিনেতাকে এই ছোট দেশ ধারন করতে পারে নাই। তাকে দিয়ে অনেক কিছু করানো যেত, কিছুই করানো হয় নাই। আফসোস।

২৯ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:৪৫

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: সেরকম যোগ্য পরিচালক এদেশে নেই। যদি থাকতো ফরীদিকে দিয়ে দারুন কিছু করে দেখাতে পারতেন। বিশ্বের দরবারে তিনি অনন্য হয়ে থাকতেন।

১০| ২৯ শে মে, ২০১৯ রাত ১:৪৮

বলেছেন: -হুমায়ূন ফরীদি সেরা অভিনেতা!

--দুর্দান্ত কবি ও কবিতা --

২৯ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:৪৯

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: কমেন্টে অনেক ধন্যবাদ। আজ ২৯ মে ফরীদির জন্মদিন।ফরীদির প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে তাঁর জন্মদিনের একদিন আগে পোস্ট দেয়া। হতে পারে ঈদের আগে এটি শেষ পোষ্ট। ফরীদিকে আরেকবার মনে করিয়ে দিতে পোস্ট খানির অবতরণা ।

১১| ২৯ শে মে, ২০১৯ রাত ২:৫৫

মাহমুদুর রহমান সুজন বলেছেন: উনি আমাদের মাঝে বেঁচে থাকুক অনন্তকাল।

৩০ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:০৪

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: শুভকামনায় ধন্যবাদ।

১২| ২৯ শে মে, ২০১৯ সকাল ৮:৫৫

ডঃ এম এ আলী বলেছেন:
হুমায়ুন ফরিদির জন্য রইল শ্রদ্ধা ও ভালবাসা ।
তাকে নিয়ে বলা কথাগুলি ধ্রুব সত্য।

৩০ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:০৬

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: ব্লগে সুস্বাগতম ডঃ এম এ আলী । হুমায়ূন আমাদের ছোট্ট দেশের অনেক বড় তারকা তার যথযথ মূল্যায়ন সম্ভব হয়নি ।

১৩| ২৯ শে মে, ২০১৯ সকাল ৯:২৩

জুন বলেছেন: প্রিয় অভিনেতা ফরীদি। তার অভিনীত নাটকগুলো ছিল ইউনিক। ভুল বিয়ে আর ভুল জীবনযাপনই তার অকাল মৃত্যুর জন্য দায়ী বলে আমার মনে হয়।
"পানি কিনি পানি" এই ডায়লগ কোন নাটক বা নাম কি ছিল তা জানতে ইচ্ছে করে। এতে কি অভিনেত্রী চম্পা ছিল?

৩০ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:১০

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: সিরাজ তালুকদার খুবসম্ভবত ভাঙনের শব্দ শুনি নাটকের নাম। ফরীদির ব্যাপারে এটা বলতে উনি জীবনের প্রথম নাটক থেকে সব খানে সুপিরিয়র তার অভিনয় গুণে বয়সে তার চেয়ে বড় অনেক ভাল অভিনেতা ছিলেন। কিন্তু তিনি সবার চেয়ে বড় ওঠতেন। অভিনয় একেবারে সহজাত গুণ তার । হয়তো সুপ্রেমেসিও।

১৪| ২৯ শে মে, ২০১৯ সকাল ১০:১২

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: অত্যন্ত সুন্দর শ্রদ্ধাঞ্জলি।
পোষ্ট থেকে ওনার সম্পর্কে অনেক কিছু জানা গেল। ++

ওনার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।

শুভকামনা ও ভালোবাসা প্রিয় কবি ভাইকে।

৩০ শে মে, ২০১৯ দুপুর ১:১১

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: কমেন্টে এবং শুভকামনায় আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।নিরন্তর শুভকামনা ।

১৫| ২৯ শে মে, ২০১৯ সকাল ১১:২৫

মুক্তা নীল বলেছেন: আমাদের দেশে দ্বিতীয় হুমায়ুন ফরিদী আর আসবে না । উনি সব রকম অভিনয়ে নিজেকে এডজাস্ট করে নিতে পারতেন এটাই উনার বড় গুণ ছিল। পোস্ট +++

৩১ শে মে, ২০১৯ ভোর ৪:৫৪

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: কমেন্টে এবং পাঠে অশেষ ধন্যবাদ।নিরন্তর শুভকামনা ।

১৬| ০১ লা জুন, ২০১৯ রাত ১২:০৬

রাকু হাসান বলেছেন:

হুমায়ূন ফরীদির ব্যাপক ভক্ত আমিও । উনার পুরাতন কাজগুলো এখনও প্রায়ই দেখি । দেখি আর ভাবি অভিনয় কাকে বলে !
হয়তো নয়তো আগে দেখা হয় নি । কিছুটা দেখলাম । শ্রদ্ধেয় হুমায়ূন ফরীদির নাটকে আমি বাচ বিচার করি না । ধন্যবাদ লিংক সহ পোস্ট করায় । মনে পড়ে তোমায় । এই সাক্ষাতকারটা নিশ্চয় দেখেছেন। শ্রদ্ধাঞ্জলি তো থাকবেই ।

০১ লা জুন, ২০১৯ রাত ১:৪৯

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: কমেন্টে এবং পাঠে অনেক ধন্য্বাদ।নিরন্তর শুভকামনা।

১৭| ১১ ই জুন, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৩

হাসান রাজু বলেছেন: ভাই এই নায়িকা কি আর কোন নাটকে অভিনয় করেছেন ? আগে কখনো দেখেছি বলেতো মনে হচ্ছে না।
*****
কোপা আমেরিকা শুরু হচ্ছে। B-)

১৩ ই জুন, ২০১৯ দুপুর ১২:০৫

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: কমেন্টে ও পাঠে অনেক ধন্যবাদ।নিরন্তর শুভকামনা ।

কোপা এমেরিকাতে আর্জেন্টিনার পারফরমেন্স বেটার ব্রাজিলের তুলানায় ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.