নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সর্ব দর্শন বাঞ্ঝনীয় নয়

শাহ আজিজ

সবাইকে নয় সবখানে নয়

শাহ আজিজ › বিস্তারিত পোস্টঃ

সৌদি সংস্কারঃ মেয়েদের আবা পরার প্রয়োজন নেই

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৭:৩৬


সৌদি আরবের একজন শীর্ষ ধর্মীয় নেতা বলেছেন, ‘পরিবারের সদস্য নয়—এমন পুরুষদের সামনে যে নারীদের “আবা” পরতেই হবে, এমন কোনো বিষয় নেই। তবে অবশ্যই আবরু বজায় রেখে পোশাক পরতে হবে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে তাঁদের “আবা” পরতে হবে।’

সৌদি আরবে মেয়েরা মাথা থেকে পা পর্যন্ত পুরো শরীর ঢাকতে ঢিলেঢালা একধরনের পোশাক পরেন, যাকে আবা বলা হয়। এটি পরা সৌদি আরবে আইনত বাধ্যতামূলক।

বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সৌদি আরবের কাউন্সিল অব সিনিয়র স্কলারসের জ্যেষ্ঠ সদস্য শেখ আবদুল্লাহ আল মুতলেক বলেছেন, ‘এটি পরার কোনো দরকার নেই।’

সাম্প্রতিক সময়ে সৌদি সমাজে সংস্কার শুরু হয়েছে। দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হচ্ছে। চলতি বছরের মার্চে সেখানে প্রথম সিনেমা হল খুলবে। গত ডিসেম্বরে গানের কনসার্টে অংশ নেন প্রথম কোনো নারী সংগীতশিল্পী। সম্প্রতি স্টেডিয়ামে গিয়ে মেয়েদের খেলার দেখারও অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এত সব সংস্কারের মধ্যে এবার আবা নিয়ে ধর্মীয় ব্যাখ্যা দিলেন দেশটির শীর্ষ ধর্মীয় নেতা।

গত শুক্রবার শেখ আবদুল্লাহ আল মুতলাক বলেন, ‘মুসলিম বিশ্বের ৯০ শতাংশ নারীই আবা পরেন না। কাজেই আমাদেরও উচিত হবে না মেয়েদের এটা পরতে বাধ্য করা।’

তবে ধর্মীয় নেতার এই মন্তব্য ঘিরে ইতিমধ্যে অনলাইনে তীব্র বিতর্ক ও আলোচনা শুরু হয়েছে। অনেকেই তাঁকে সমর্থন দিলেও বিরোধিতাও করছেন কেউ কেউ।

মাশারি ঘামদি নামের এক ব্যক্তি টুইট করেন, ‘আবা আমাদের অঞ্চলের একটা ঐতিহ্য। এটি কোনো ধর্মীয় ব্যাপার নয়।’

তবে এক নারী তীব্র বিরোধিতা করে লিখেছেন, ‘যদি এক শ ফতোয়াও জারি করা হয়, তারপরও আমি আমার আবা ছাড়ব না। মরলেও না। মেয়েরা, তোমরা এই ফতোয়ায় কান দিয়ো না।’

সৌদি আরবে যেসব নারী আবা না পরে বাইরে যান, তাঁরা ধর্মীয় পুলিশের ভর্ৎসনার শিকার হন। ২০১৬ সালে রিয়াদের রাস্তায় এক নারী তাঁর আবা খুলে ফেললে পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে। তবে নারীরা এখন কেবল কালো রঙের নয়, বিভিন্ন উজ্জ্বল রঙের আবা পরেন। লম্বা স্কার্ট বা জিনসের সঙ্গে খোলা আবা পরা বেশ জনপ্রিয় ফ্যাশন আধুনিক তরুণীদের।

মন্তব্য ৪০ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (৪০) মন্তব্য লিখুন

১| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৭:৫৭

নিরাপদ দেশ চাই বলেছেন: মেয়েদের পক্ষে যুগান্তকারি একটি সিদ্ধান্ত। নেকাবসহ বোরখা পদ্ধতি মুলত মেয়েদের উপড় জোরপুর্বক একটা চাপিয়ে দেয়া পোষাক। এটা জুলুম ছাড়া আর কিছু না। ইসলাম ধর্মে এই বিজাতীয় পোষাকের কোন উল্লেখ নেই। মেয়েদের আব্রু বজায় রেখে শালীন পোষাকের কথা বলা হয়েছে। সৌদি এতটাকাল ধরে মেয়েদের উপড় একটা জুলুম চালিয়ে আসছিল এবং সৌদিকে অনুকরন করে অন্যান্য মুস্লিম দেশে পুরুষেরা তাদের স্ত্রী, কন্যাদের উপর এই পোষাক চাপিয়ে চলছে। এখন যদি খোদ সৌদি থেকে এই প্রথা বিলুপ্ত করা হয়, তবে অন্যান্য দেশেও সেটার প্রভাব পড়বে এবং মেয়েরা এই জুলুম থেকে রেহাই পাবে।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:০৪

শাহ আজিজ বলেছেন: সহমত । খুব পরিচ্ছন্ন আবেদন।

২| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:২৬

খাঁজা বাবা বলেছেন: আব্রু বজায় রাখার জন্য এর চেয়ে ভাল আর কোন পোশাক আছে কি?
জানা থাকলে বলবেন

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:০৬

শাহ আজিজ বলেছেন: আমাদের দুই নেত্রীর পোশাক কি যথেষ্ট নয় আব্রু রক্ষার জন্য ?

৩| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:৫৩

রাজীব নুর বলেছেন: ধর্ম টাকে দূরে রাখতে পারলে উন্নতি সম্ভব। দেখুন আজ ধর্মকে দূরে রেগে দুবাই কত উন্নত হয়েছে। সেখানে সৌদি ধর্ম কে আকড়ে ধরে দিনদিন অন্ধকারে যাচ্ছে।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:০৬

শাহ আজিজ বলেছেন: সহমত

৪| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ৯:৫৯

শিখণ্ডী বলেছেন: @খাঁজা বাবা--আপনি আবা,বোরখা পরেন না কেন? আপনার সুঠাম দেহ দেখে কত তরুনী, বধুদের মনে ফাগুনে আগুন জ্বলে, তা কি জানেন?

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:০৮

শাহ আজিজ বলেছেন: খুব ভাল সাজেশন :( :((

৫| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সকাল ১০:১০

নিরাপদ দেশ চাই বলেছেন: খাজা বাবারা ধর্মের নামে মেয়েদের বাসায় আটকে রাখবে, গায়ের ওপড় তাবু টাঙ্গিয়ে স্ত্রী কন্যাদের বাইরে যেতে বাধ্য করবে এবং নিজেরা তাব্লীগি দাওয়াতের নামে গেটটুগেদার খানা পিনার পার্টি করবে এবং অন্যের আরাম হারাম করে নিজেরা আরাম আয়েসে বাদশাহী জীবন যাপন করবে।

৬| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:০৩

কামরুননাহার কলি বলেছেন: যেখানে হজ করতে যেয়ে মেয়েরা মানুষ নামে পশুর হতে নির্যতিত হয় সেখানে আবা আর বোকরা দিযে কি হবে।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:১২

শাহ আজিজ বলেছেন: মিশরীয় এক মহিলা সর্ব প্রথম মুখ খুলল এই যৌন আচরনের বিরুদ্ধে তাও কালো পাথর চুম্বন করার সময়ে সবচে বেশি হয়। ওখানে মহিলারা হজের পোশাকএর উপর বুরকা /আবা পরে কিন্তু আরব পুরুষ মানেই যৌনতা ।

৭| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:১৩

রানার ব্লগ বলেছেন: শরীরের আব্রুর থেকে চোখের আব্রুর বেশি দরকার।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:১৬

শাহ আজিজ বলেছেন: আরব ধর্ষকদের এই উপদেশ দেবেন না।

৮| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:১৫

কামরুননাহার কলি বলেছেন: ঐ রকম মানুষকে পুরুষ নয় বলুন পশু, ওদেরকে পশুর মতো করে বন্দি করে রাখাই ভালো। পৃথীবির জন্য মঙ্গল বয়ে আনবে।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:১৮

শাহ আজিজ বলেছেন: হা হা হা :P

৯| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১২:২২

রানার ব্লগ বলেছেন: আমি বুঝি না রেপ বা ধর্ষণ করতে যে পরিমানের শারিরিক পরিশ্রম লাগে এতে অনুভুতি কৈ থেকে আসে? মাঝে মাঝে নিজেকে নিয়া চিন্তায় পড়ে যাই।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:১৪

শাহ আজিজ বলেছেন: খেজুর প্রচণ্ড পুষ্টিকর আর সাথে ঘন জিনশেং এর পেস্ট তাদের নিত্য দিনের খাবার । আর জেনেটিক বলে কথা।

১০| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:০৪

আবু তালেব শেখ বলেছেন: এটা ভালো উদ্যোগ নাকি খারাপ, এখনো ধারনা করতে পারিনি।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:১৬

শাহ আজিজ বলেছেন: জানিনা কেননা আরব্য রজনী সম্পর্কিত জ্ঞান কম।

১১| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:০৬

আবু তালেব শেখ বলেছেন: রানারব্লগ ভাই আপনি জেলখানায় গিয়ে সাজাপ্রাপ্ত ধর্ষকের ইন্টার্ভিউ সংগ্রহ করলে উঃ পাবেন

১২| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:১২

নীল বৃষ্টি(রিপন) বলেছেন: ডাইরেক্ট মন্তব্য করার সেই জ্ঞান নেই, এতটুকুই বলবো সৌদি আর সৌদি নেই। তবে আশা করি অচিরেই সৌদি আর আমেরিকার মধ্যে শুধু ভাষাগত পার্থক্য ছাড়া আর কোন কিছু থাকবে না।

১৩| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:২০

গড়ল বলেছেন: মুরগীওতো ধর্ষনের স্বীকার হচ্ছে, পাকিস্তানে এক মুরগীকে ধর্ষন করে হত্যা করা হয়েছে। সৌদি পূরুষেরা ভেড়া ও কুকুরের সাথেও যৌন কর্ম করে। তো এসব অবলা পশু-পাখীদের আবা পড়ানোর ব্যাপারে কোন ফতোয়া বা হাদিস আছে নাকি জানতে চাচ্ছি।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:৩২

শাহ আজিজ বলেছেন: :D B-)) :``>> :-B

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ দুপুর ১:৩৫

শাহ আজিজ বলেছেন: খাজা বাবাকে ফতোয়া দিতে বললে হয় !:#P

১৪| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৩:১১

সাহরাব বলেছেন: সবারই দেহের পর্দার সাথে সাথে মনেরও পর্দা মেইনটেইন করা খুব দরকার। নিচের গল্প টুকু শুধু বিবেকবানদের জন্য দিলাম !
Quoted
একটা অমুসলিম ছেলে একটি মুসলিম ছেলেকে প্রশ্ন করলো !!
তোমাদের ধর্মে মেয়েদের পর্দা করতে বলেছে কেন ?

মুসলিম ছেলেটি ভাবলো তাকে কোরআন ও হাদিছ দিয়ে উওর দিলে সে নাও মানতে পারে৷
তাই সে কিছুই না বলে পাশের দোকান হতে দুইটি চকলেট কিনে একটির প্যাকেট খুলে দুইটি চকলেটই মাটিতে নিক্ষেপ করলো ৷
তারপর অমুসলিম ছেলেকে বললো,
তুমি ঐ দুটো চকলেট থেকে একটি বেছে নাও !
সে মাটি হতে প্যাকেট মোড়ানো চকলেটটি নিজের জন্য নিল

মুসলিম ছেলেটি তখন জিজ্ঞেস করলো ,
তুমি ঐ প্যাকেট বিহীন চকলেটটি নিলেনা কেন ?
অমুসলিম ছেলেটি বললো,
এইটা খোলা হওয়াতে ময়লা লেগে গেছে তাই।

তখন মুসলিম ছেলেটি বলল,
একটি চকলেটের বেলায় যদি প্যাকেট মোড়ানোটাকে নিরাপদ,পরিস্কার,উওম মনে করো,
তবে আসমান জমিনের সবচাইতে দামি ও সুন্দর মানুষের মধ্যে নারীর সৌন্দর্যের
হেফাজত পর পুরুষ, নারী লোভি, কুদৃষ্টি হতে বাচার জন্য আল্লাহর দেওয়া পর্দার হুকুম কোন কারনে অযৌক্তিক বলবে ??

অমুসলিমছেলেটির আর কোন উওর ছিলনা...
Unquoted

১৫| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৩:৩৮

চুলবুল পান্ডে বলেছেন: রাজীব নরসুন্দর বউকে জন্মদিনের পোষাক পরালেও কেউ কিছু বলবে। তবে ব্লগার স্বনামে লিখলেই ভাল হয় - সাহা আশিষ

১৬| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৩:৫৯

জাহাঙ্গীর কবীর নয়ন বলেছেন:

১৭| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৪:৩২

জোয়ান অব আর্ক বলেছেন: কি দিন আসলো! আগে মেয়েরা খালি মাথায় ঘুরে বেড়াত আর মোল্লারা ফতোয়া জারি করে তাদেরকে বোরখা পরতে বাধ্য করত, আর এখন কি হয়? মোল্লারা বোরখা পড়তে নিষেধ করে, আর নারীরা তীব্র প্রতিবাদ করে বলে, বোরখা ছাড়বোনা।

আজীব দেশের আজীব কায়দা কানুন!

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:১৬

শাহ আজিজ বলেছেন: সময়ের খেলা শুধু ।

১৮| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৪:৫০

তারেক ফাহিম বলেছেন: প্রতিবাদ করাটাই স্বাভাবিক।

১৯| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৪:৫২

রাজীব নুর বলেছেন: আপনি আমার মন্তব্যের সাথে সহমত পোষন করেছেন তার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ বিকাল ৫:১৯

শাহ আজিজ বলেছেন: ;)

২০| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২৯

উম্মে সায়মা বলেছেন: এ বিবৃতি নিয়ে বোধহয় একটা ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। একটা পোস্ট পেলাম। সেটার অংশ হুবহু তুলে দিলাম।

"বর্তমানে সৌদি আরবের সেক্যুলার গোষ্ঠী সৌদি নারীদেরকে বেপর্দা করার যে প্লান নিয়ে আগাচ্ছে খুব সম্ভব তারাই প্রথম শাইখের দেয়া উত্তরে ছিদ্রান্বেষণের প্রয়াশ চালায় এবং এ বিষয়ে টুইটারে ব্যাপকভাবে হ্যাশট্যাগ ছড়িয়ে দেয়। এরপর আরবী ও ইংরেজীর অনুকরণে বাংলাতেও প্রধান শ্রেণীর কয়েকটি সংবাদ মাধ্যমও নেতিবাচকভাবে খবরটি প্রচার করে। যদিও শাইখের অডিও-তে কোন অস্পষ্টতা ছিল না। তিনি শুধুমাত্র আবায়াতুর রা’স তথা মাথা থেকে পা পর্যন্ত এক কাপড়ে তৈরী সৌদি সমাজে প্রায় এককভাবে প্রচলিত বিশেষ বোরকা পরা আবশ্যক নয় মন্তব্য করেছিলেন। ব্যাপক প্রচলনের কারণে সৌদিতে বা সৌদিরা আবায়া বললে এ পোশাককেই বুঝে থাকে। যদিও এটাকে ‘আবায়াতুর রাআস’ও বলা হয়। বোরকার অপর একটি ধরণ হচ্ছে- ‘আবায়াতুল কাতিফ’ (কাঁধের উপর পরিধেয় বোরকা) যেটা আমাদের দেশসহ বিশ্বের অন্যান্য দেশের দ্বীনদার নারীরা পরে থাকেন। শাইখ বুঝাতে চেয়েছেন, প্রথমটিই পরা আবশ্যক নয়। দ্বিতীয়টি পরলেও পর্দা হবে। বাংলাভাষী সাংবাদিকদের অনেকে এ পার্থক্য বুঝেননি কিংবা এক্ষেত্রে ইংরেজী বা আরবী মিডিয়ার অনুকরণের মাধ্যমে ভুল ব্যাখ্যা করে প্রপাগাণ্ডায় শরীক হয়েছেন।"

২১| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪২

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: যার যা খুশী পরার স্বাধীনতা থাকা দরকার।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:১৩

শাহ আজিজ বলেছেন: তবে তা শালীন এবং ভদ্রজনিত ।

২২| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ৮:৫৭

সাদা মনের মানুষ বলেছেন: ওরা মনে হয় পৃথিবীর সাথে সমান্তরালে এগোনোর পরিকল্পনাটা এবার নিয়ে নিয়েছে

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:১০

শাহ আজিজ বলেছেন: বিপদ কাটেনি ভায়া , যাদের জেলে ঢোকানো হয়েছে তারা ভীষণ শক্তিশালী , যারা মুক্তি পেয়েছে তারা পশ্চিমাদের এজেন্ট হিসাবেই কাজ করত । অতএব এরা ছাড়বেনা এত সহজে । বিষাক্ত হিসাবে রাজ পরিবারের কজন যুবরাজকে হত্যা করেছে , এদের মধ্যে বাদশা আব্দুল্লাহর ছেলের সাথে যুদ্ধ করে তাকে হত্যা করেছে। গনঅসন্তোষ এড়াতে নিষিদ্ধ বিসয়কে টোপ হিসাবে পাব্লিক খুশি করার চেষ্টা । তবে বলতে হয় ৩২ বছর বয়সী যুবরাজ খুবই পারদর্শী ক্ষমতা রক্ষা এবং এতগুলো বিপক্ষের যুবরাজকে আটক করা । এত সহজ কাজ ছিল না এই অপারেশন ।

২৩| ১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১০:৫৩

বিজন রয় বলেছেন: সুখবর!

ধর্মীয় গোঁড়ামি দূর হচ্ছে আস্তে আস্তে।

১৩ ই ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ রাত ১১:১২

শাহ আজিজ বলেছেন: তবে তাই হোক

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.