নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

জীবনকে যারা উপভোগ করতে চান, আমি তাঁদের একজন। সহজ-সরল চিন্তা-ভাবনা করার চেষ্টা করি। আর, খুব ভালো আইডিয়া দিতে পারি।

সত্যপথিক শাইয়্যান

অন্যদের সেভাবেই দেখি, নিজেকে যেভাবে দেখতে চাই। যে বিষয়গুলো নিয়ে লেখার চেষ্টা করি- মোটিভেশনাল গল্প-কাহিনী-প্রবন্ধ, ছড়া এবং কবিতা

সত্যপথিক শাইয়্যান › বিস্তারিত পোস্টঃ

বুদ্ধিজীবী বিষয়ে শাইয়্যানের আরো কিছু বক্তব্য

১২ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:৫১

প্রয়াত বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং হাত-পা ছাড়াই বুদ্ধি খরচ করে জীবিকা নির্বাহ করে গিয়েছেন। একজন রিক্সাওয়ালা হাত-পা ছাড়া নিজের জীবিকা নির্বাহ করতে পারবেন কি? শাইয়্যানকে অনেকটা এভাবেই প্রশ্ন করা হয়েছিলো।

কিছুটা ভেবে তাঁর উত্তর ছিলো এরকম-
যদি, বুদ্ধি-'জীবী' মানে যিনি শুধু বুদ্ধি দিয়ে জীবন অতিবাহিত করেন, শ্রম দিয়ে করেন না, এমন যদি বুঝায়, তাহলে, আমার প্রশ্ন, বুদ্ধি প্রয়োগের জন্যে কি শ্রম দিতে হয় না? স্টিফেন হকিং তাঁর বুদ্ধি আমাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্যে কোন শ্রম দেননি? পৃথিবীতে অনেক অনেক পদার্থবীদ রয়েছেন। কতজন সর্বোচ্চ লেভেলে যেতে পেরেছেন?

ঠিক তেমনই, একজন সর্বোচ্চ মানের রিক্সাওয়ালা আমাদেরকে গন্তব্যে পোঁছে দেওয়ার জন্যে বুদ্ধি খরচ করেন না? আপনি লক্ষ্য করে দেখবেন, কোন রিক্সাওয়ালা জোয়ান হওয়া ষত্বেও নিরাপদ উপায়ে রিক্সা চালায়, আবার অনেক বুড়ো রিক্সাওয়ালাও একে-বেকে রিক্সা চালিয়ে আমাদের বিপদে ফেলে। অনেক রিক্সাওয়ালা তাঁর গন্তব্যে পৌঁছানোর জন্যে শর্ট-কাট পথগুলো চিনে, আবার কোনটা চিনে না। কোনজন রিক্সার সঠিক যত্ন নেন, কোনজন নেন না।

অর্থাৎ, যদি কে কিভাবে জীবন অতিবাহিত করছি সেটাই যদি হয় নিজেদের চেনানোর মাপকাঠি, তাহলে নিজের বুদ্ধির সর্বোচ্চ ব্যবহারকারীরাই হতে পারেন নিজেকে 'বুদ্ধিজীবী' হিসেবে পরিচয় দেওয়ার দাবীদার। সেই হিসেবে, একজন ক্রিকেটার যিনি এখনো খেলে যাচ্ছেন তাঁর সর্বোচ্চ লেভেলে, তিনিও নিজেকে বুদ্ধিজীবী হিসেবে পরিচয় দিতে পারেন। কারণ, একটা বলকে কিভাবে ভালো ভাবে পেটাতে হয়, তা তিনি অন্য অনেকের চেয়ে ভালো ভাবেই বলতে পারেন, নিজের বুদ্ধি খরচ করে।

তবে, শুধু জীবিকা অর্জনের মাধ্যমকেই আমরা নিজেদের সংজ্ঞায়িত করার জন্যে বেছে নিই, সেখানেই আমার প্রথম আপত্তি। শ্রমের মাধ্যমে বুদ্ধি আমরা কি শুধু উপার্জনের জন্যে ব্যয় করি? প্রার্থনা করা ও সমাজ-সেবা'র জন্যে ব্যয় করি না?

দ্বিতীয় আপত্তি হচ্ছে, বুদ্ধিজীবীর সংজ্ঞা নিয়ে। আসলে আমাদের জানা উচিৎ, বুদ্ধি আমরা কি জন্যে করবো। একটু চিন্তা করলে দেখা যায়, আমরা পাঁচ লেভেলে বুদ্ধি খরচ করে থাকি- নিজেদের জন্যে, পরিবারের জন্যে, সমাজের জন্যে, দেশের জন্যে এবং পৃথিবী'র জন্যে। আর, যে যত উপরের লেভেলে বুদ্ধি খরচ করে শ্রম দিবে সে তত বড় লেভেলের চিন্তাবীদ বা বুদ্ধিজীবী।

সেই হিসেবে, একজন রিক্সাওয়ালার চিন্তা-ভাবনা যদি উপরের স্তরে হয়ে যায়, তাহলে তাকে তো বুদ্ধিজীবী বলতেই হবে। এমনকি হাত-পা ছাড়া অবস্থায়ও সে উপরের লেভেলে বুদ্ধি প্রকাশ করে সেই অনুযায়ী শ্রম দিতে পারে- যেমন, রিক্সা কিভাবে নিরাপদে চালানো যায় তার উপর ট্রেইনিং যে মুখ দিয়েও নিতে পারে, মানুষকে উপদেশ দিতে পারে তাঁর সেই মুখ দিয়েই!

আমি কোন স্তর বা লেভেলে নিজের সর্বোচ্চ বুদ্ধি ব্যবহার করে প্রতিষ্ঠিত হতে পারছি, সেটাই কি নিজের বুদ্ধি খরচের মাপকাঠি হওয়া উচিৎ নয়?

শাইয়্যান তাঁর স্যারকে বলেছে- 'আমার মনে করে, তা-ই হওয়া উচিৎ।'


=======================================
এ সম্পর্কে পূর্বের দুটি পোস্টঃ

১) একজন রিক্সাওয়ালা কি বুদ্ধিজীবী হতে পারেন?- Click This Link
=======================================

মন্তব্য ৩ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৩) মন্তব্য লিখুন

১| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:১৩

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: লেখাটা একেবারে কেঁচি কাটা হয়ে গেলো ! ধন্যবাদ আবরো ধন্যবাদ ।

০৫ ই আগস্ট, ২০১৮ রাত ৮:৩৩

সত্যপথিক শাইয়্যান বলেছেন: এভাবে ধন্যবাদ পাবার যোগ্যতা এখনো হয়েছে কি না সেটা নিয়ে কিঞ্চিৎ দ্বিধায় আছি।

আপনাকে অশেষ ধন্যবাদ।

২| ১২ ই জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৪:২২

রাজীব নুর বলেছেন: আপনার পোষ্ট পড়ে ছোটবেলার ''শ্রমের মর্যাদা'' রচনা'র কথা মনে পড়লো।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.