নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সনেট কবি রচিত সনেট সংখ্যা এখন ৬৩৫ যা সনেটের নতুন বিশ্ব রেকর্ড, পূর্ব রেকোর্ড ছিল ইটালিয়ান কবি জিয়েকমো দ্যা ল্যান্টিনির, তাঁর সনেট সংখ্যা ছিল ২৫০।

সনেট কবি

রেকর্ড ভেঙ্গে রেকর্ড গড়ার দারুণ সখ। কিন্তু এমন সখ পূরণ করা দারুণ কঠিন। অবশেষে সে কঠিন কাজটাই করে ফেল্লাম। সর্বাধীক সনেট রচনার সাতশত বছরের পূরনো রেকর্ড ভেঙ্গে নতুন রেকর্ড গড়লাম। এখন বিশ্বের সর্বাধীক সনেট রচয়িতা সনেট কবি, ফরিদ আহমদ চৌধুরী।

সনেট কবি › বিস্তারিত পোস্টঃ

সবার জন্য চাকুরী

১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ সকাল ৯:৪৭



চাঁদগাজী বলেছেন,‘এক বছরের মধ্যে সব মানুষের জন্য চাকুরী বের করা সম্ভব’।প্রধানমন্ত্রীকে বলব, জনাব চাঁদকে ডাকুন, তাঁর বুদ্ধি নিয়ে সবার জন্য চাকুরী বের করুন। দেখবেন জনগণ সব আপনার হয়ে যাবে।এরশাদ ৯ বছর দেশ শাসন করে জেলে গিয়েছে। জনগণ তাকে জেল থেকে বের করতে আন্দোলন করেনি। খালেদা ১০ বছর দেশ শাসন করে জেলে গেছে জনগণ তাকে জেল থেকে বের করতে আন্দোলন করছে না। আপনি ১৪ বছর দেশ শাসন করেছেন, বেকার সমস্যার সমাধান হয়নি। আর এক বছরে যদি এ সমস্যার সমাধান হয়। তবে মনে হয় আপনাকে আর জেলে যেতে হবে না। আর যেতে হলেও জনগণ আপনার পিতার মত আপনাকে জেলের তালা ভেঙ্গে বের করে আনবে। হয়ত আপনাকে তখন জেলে পুরে রাখা সম্ভব হবে না।কাজেই আপনার অবস্থান যেন জনতার বিপক্ষে না হয়। কারণ জনগণকে প্রতিপক্ষ বানিয়ে কেউ কোন দিন ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারেনি।
বাংলাদেশী প্রতিভার মূল্যায়ন হয় বিদেশে। বাংলাদেশী প্রতিভা দিয়ে উন্নতি করছে অন্যদেশ। বাংলাদেশী সংসদ সদস্য হচ্ছে অন্যদেশে। অথচ আমাদের দেশী প্রতিভার মূল্যায়ন স্বদেশেই হচ্ছে না। আমরা বুদ্ধিমান মন্ত্রী কামনা না করে তৈলবাজ মন্ত্রী কামনা করলে আমাদের উন্নতি হবে কেমন করে?
অভাবে স্বভাব নষ্ট। অভাবের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে হবে। সবার আগে দূর করতে হবে চাকুরীর অভাব। জনগণ সব কাজে কাজে নিযুক্ত হয়ে গেলে সরকারকে বিরক্ত ও বিব্রত করার লোক থাকবে না।
সরকারের পিছনে দেশের টাকা ব্যয় হচ্ছে শুধু তাদের সুখ-শান্তির জন্য নয়, বরং এর বিনিময়ে তাদেরকে জনগণের শান্তি সুনিশ্চিত করতে হবে।

মন্তব্য ১৬ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (১৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ সকাল ৯:৫২

খায়রুল আহসান বলেছেন: চাঁঁদকে ডাকলেই তো আর চাঁদকে হাতে পাওয়া যায় না। চাঁদ থাকে আকাশে! :)

১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ সকাল ৯:৫৭

সনেট কবি বলেছেন: কিন্তু এ চাঁদ জমিনেই আছে। তাঁর অসংখ্য পোষ্ট জুড়ে শুধুই আশার কথা। তথাপি আমরা কেন হতাশ হয়ে বসে থাকব। বেকার সমস্যা আমাদের প্রধান সমস্যা। এ সমস্যা সমাধানে ভালো আইডিয়া যেখান থেকে পাওয়া যায় সেখান থেকে গ্রহণ করতে হবে। নতুবা সংকট প্রকট হতেই থাকবে।

২| ১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ সকাল ১০:২৩

ক্স বলেছেন: আপনি কি নতুন কোন আন্দোলনের উস্কানি দিচ্ছেন? এবার বেকারত্ব দূরীকরণের আন্দোলন শুরু হলে সরকার বুঝবে কোটা সংস্কার আন্দোলন কত ফালতু আন্দোলন ছিল!

১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ সকাল ১১:৩০

সনেট কবি বলেছেন: জনগণকে যেন এ নিয়েও আন্দোলন করতে না হয় সে কথাই বলছি। সরকারের মূল দায়িত্বই হচ্ছে জনগণের সমস্যা সমাধান করা। যে করেই হোক সরকারকে সেটা করতেই হবে। অন্য দেশেতো এমন অবস্থা যে আমাদের বেকারেরা সেখানে ঠাঁই পাচ্ছে। তো এমন অবস্থা তৈরী করতে হবে যেন এখানেই যেন কর্ম সংসংস্থান মিলে যায়।

৩| ১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ সকাল ১১:৫৬

রাজীব নুর বলেছেন: চাঁদগাজী এই কথাটা এত বার বলেছেন এবং এত আত্মবিশ্বাসের সাথে বলছেন- যে কথাটা আমি মনে প্রানে বিশ্বাস করে ফেলেছি। আসলেই দেশে সবার হাতে চাকরি থাকলে অনেক সমস্যার সমাধান এমনিতেই হবে যাবে।

১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ দুপুর ১২:০১

সনেট কবি বলেছেন: আমিও তাঁর কথা বিশ্বাস করে ফেলেছি। কিন্তু যাদের বিশ্বাস করা সবচেয়ে জরুরী তারা বিশ্বাস না করলেতো আর সমস্যার সমাধান হবে না। চাঁদগাজীকে নিয়ে অনেকের চুলকানি আছে। কিন্তু বেচারার একটা গুণহলো সব কথা অকপটে বলে ফেলে। সমাস্যার সমাধান দেওয়ার চেষ্টা করে। আমি মনেকরি রাষ্ট্রের তাঁকে কাজে লাগানো উচিৎ।

৪| ১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ দুপুর ১২:৩১

তার ছিড়া আমি বলেছেন: সত্যিই বলেছেন। এ দেশে মেধার মূল্যায়ন হয় না। বাধ্যহয়ে মেধাগুলো বিদেশে পাচার হয়ে যায়।

১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ দুপুর ২:২৩

সনেট কবি বলেছেন: আমাদের নেতৃত্বের দক্ষতার অভাব রয়েছে। যে নেতৃত্বে যাচ্ছে সে ব্যর্থ হচ্ছে। ক্ষমতার কেদ্রে যারা রয়েছেন তাদের দক্ষতা সমস্যা সমাধানের মত নয়। সে জন্য সমস্যা না কমে বরং বাড়ছে। এদিকে গণতন্ত্রের জন্য অনেক ত্যাগের পরেও আমরা গণতন্ত্রের পথে হাঁটতে শিখিনি। ২০০৬ সালের ক্ষমতাসীনরা অন্যের জন্য যে গর্ত খুঁড়েছিল সে গর্তে এখন তারাই পড়ে আছে। এজন্য তাদের দুঃখে জাতির মাথা থাকলেও তাতে কোন ব্যাথা নেই। বিদেশে পাচার হওয়া মেধা দেশে ফিরানোর কোন পথ দেখছি না।

৫| ১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৯

ঢাকাবাসী বলেছেন: ২৪ কোটি লোকের সমস্যার সমাধান এত সহজ? মানুষ কমান, ২৪ কোটিকে ৪ কোটি করুন দেখবেন সব সমস্যার সমাধান হয়ে গেছে!

১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ দুপুর ২:১৫

সনেট কবি বলেছেন: কিন্তু জনাব চাঁদগাজী বেশ আত্ম বিশ্বাসের সাথেই কথাগুলো বলছেন। তাই বলছিলাম তাকে কাজ করার সুযোগ তৈরী করে দেওয়া দরকার। ২৪ কোটি লোককে ৪ কোটিতে পরিণত করা সম্ভব নয়। কাজেই সে চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলাই ভাল। তবে শিল্প প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বাড়িয়ে কর্ম সংস্থানের সুযোগ তৈরী করা যায়। প্রধানমন্ত্রীও হয়ত সেটা ভাবছেন। সে জন্য বৈদেশীক বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার চেষ্টা করছেন।
চাঁদগাজী এ সংক্রান্ত অসংখ্য পোষ্ট দিয়ে সে দিকে ব্লগারদের মনোযোগ আকৃষ্ট করার চেষ্টা করেছেন বা এখনো করছেন। তো অনেক জাতির সমস্যার সমাধান হয়ে তারা এখন উন্নত হয়েছে। আমাদের জনসংখ্যাকে জন সম্পদে পরিণত করে সংকট উত্তরনের চেষ্টা করা গেলে ক্ষতি কি? চাঁদগাজী যখন বলছেন তাঁর কাছে ফর্মূলা আছে তো সে ফর্মূলা মোতাবেক আমাদের জাতীয় সংকট উত্তরনের চেষ্টা করা হলে ক্ষতি কি? ছেলে-মেয়েরা কোটা সংস্কার আন্দোলন করলো, তাতে তাদের সবার চাকুরীতো হবে না। কারণ এতো চাকুরীতো নেই। কাজেই চাকুরীর নতুন নতুন ক্ষেত্র থেরী করা ছাড়া বিকল্প দেখছিনা।

৬| ১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ বিকাল ৪:৪৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনি সেরেছেন, আমার কথা সরাসরি বলে আমাকে চাপের মাঝে ফেলেছেন। কোটার আন্দোলনটা "চাকুরী সৃষ্টির আন্দোলনে" পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা আছে ।

সরকার হঠাৎ আমাকে বা আপনাকে কোন দায়িত্ব নেয়ার জন্য ডাকবে না; আমাদের কাজ আমাদিগকে করতে হবে। ৪৭ বছরে কোন সরকার "চাকুরী সৃষ্টি করবো" বলে এজেন্ডা দেয়নি; এটা বিরাট সময় সমস্যা; তারা বর্তমান যুগের অর্থনৈতিক উন্নয়নের মুলনীতি (চাকুরী সৃষ্টি) নিয়ে এখনো কাজ শুরু করেনি।

এটা বিরাট চ্যালেন্জ হবে, ১ বছরের ভেতরে সবার জন্য চাকুরী বের করা; তবে, সম্ভব। আমাদের সরকারের যে রিজার্ভ আছে, মানুষের হাতে যেই পরিমাণ ক্যাশ আছে, মানুষ যেই পরিমাণ দক্ষ, যেই পরিমান রেমিটেন্স আসছে, জীবনযাত্রার মান পশ্চিমের তুলনায় যেই পরিমাণ সস্তা, সবার জন্য চাকুরী বের করা সম্ভব।

আমাদের সবাকে মিলিতভাবে চেষ্টা করতে হবে। আমি চোখের সমস্যায় ভুগছি; আমার ভালো হতে সময় লাগবে; ভালো হওয়ার পর, আমি এই ব্যাপারে সরকারকে জানাবো ও সাধারণ মানুষকে নিয়ে চেষ্টা করবো। সরকার এখন ভোট নিয়ে চরম সমস্যায় আছে; এসব নিয়ে কিছু করবে না।

আমরা সবাই মিলে সমাধান বের করবো; আমাদের মানুষদের এত কষ্ট করার কথা নয়।

১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ রাত ১০:০৩

সনেট কবি বলেছেন: আপনার কথামত যদি সরকার পারে, যে ভাবে পারে, যাকে নিয়ে পারে তবে সেটা হবে এক বিরাট ব্যাপার। আমাদের কিছু না থাকলেও বিপুল পরিমাণ জন সম্পদ আছে। সে জন্য আমরা আপনার ভাব না সঠিক বলে মনে করি। নেতৃত্বের গুনে অনেক দেশ এগিয়ে গেছে, অনেক দেশ উন্নত হয়েছে। আবার নেতৃত্বের দোষে অনেক দেশ ধ্বংস হয়েছে। সে জন্য আমরা নেতৃত্বের দৃষ্টি ভংগির পরিবর্তন চাই। দেশ পিছিয়ে থাকলে এখানে আগাছার পরিমাণ বাড়তেই থাকবে। কথায় বলে অলস মস্তিষ্ক শয়তানের বাসা।

আপনি বলছেন সরকার আপনাকে ডাকবে না। আমরা চাই সরকার আপনাকে ডাকুক। আপনার প্রতিভা কাজে লাগুক। ব্লগে রাজনীতি নিয়ে আপনার চেয়ে বেশী কেউ ভাবে বলে মনে হয় না। আমরা চাই আপনার ভাবনার বাস্তবায়ন দেখে যেন আপনি মরতে পারেন।

আপনার পরে আপনার ভাবনার বাস্তবায়ন হলেও জোতি উপকৃত হবে কিন্তু আপনি দেখলেন না এই যা। আপনার ভাবনায় অনেকের এলার্জি আছে। তারা হতাশ লোক। কিন্তু আমরা আশাবাদী হতে চাই। আমরা চাই কোন সমাধান বেরিয়ে আসুক।
আপনার এত কষ্টের ভাবনা বেকার যাক, আমরা সেটা চাই না।

এত্তগুলো মানুষের জীবন প্রচন্ড ঝুকির মধ্যে আছে। মানুষ বিভিন্ন ভাবে কষ্ট পাচ্ছে। অসুখ হলে যথাযথ চিকিৎসাও নেই। এত সমস্যা সহ্য করা জনগনের জন্য কঠিন। কাজেই জন সেবার দায়িত্ব নিয়ে সরকারকে জন সেবার মান বাড়ানোর কথা ভাবতেই হবে।

৭| ১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৫

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন: আয়তন ও সম্পদের সাথে তুলনা করলে বাংলাদেশের জনসংখ্যা অতিরিক্ত রকম বেশী। এতো বেশী জনসংখ্যা নিয়ে এতো ছোট একটা দেশ যে চলছে সেটাই এই শতাব্দীর সব চেয়ে আশ্চর্য ঘটনা।

আগে মানুষ কমাতে হবে। তারপর সব সমস্যার সমাধান হবে।

১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ রাত ১০:১৩

সনেট কবি বলেছেন: মানুষ কমানোর পথ দেখছি না। আগের তুলনায় জন সাধারণ অনেক সচেতন। তথাপি সংখ্যা বাড়ছে। একটা স্কেলে থেমে থাকছে না। জন সংখ্যা কমাতে সচেতনতা বাড়াতে হবে। অলস সময় কাটাতেও অনেকে জনসংখ্যা বৃদ্ধি করছে। নারী-পুরুষ সব কাজে লাগলে অধিক সন্তান জন্মদানের সময় পাবে না। কাজেই কর্ম সংস্থান সৃষ্টি অতি জরুরী। মানুষ কমালে সে কম মানুষেরও যদি কর্ম সংস্থান না থাকে। আয় উৎপাদন না থাকে তথাপি মানুষ না খেয়ে মরে। ৭৬ এর মনন্তরের সময় তিন কোটি জন সংখ্যার এককোটি না খেয়ে মরেছে এখন তার ছয় গুণ হয়েও কেউ না কেয়ে মরে না। এক জন ভিক্ষুকও ছয়-সাত কেজি চাউল পায়। এক ভিক্ষুকের রোজ আয় ছয় সাতশত টাকা শুনে আমি অবাক হয়েছি। তার এক মেয়ে প্যারা মেডিকেল পাশ আর দুই মেয়ে অনার্সে পড়ে। তাহলে বুঝুন অবস্থা!

৮| ১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩৮

চাঁদগাজী বলেছেন:


@মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন,

আমাদের দেশে জনসংখ্যার বিস্ফোরণ ঘটেছে: প্রতি বর্গমাইলে প্রায় ৩০০০ মানুষ বাস করছেন; কানাডায় ৭২ জন। এটাকে কন্ট্রোলে আনার দরকার।

তবে, এখন যেই পরিমাণ মানুষ আছেন, তাঁদেরকে দক্ষ করলে জাতি বিশালভাবে লাভবান হবে। জাতির পয়সা জাতির জন্য খরচ করলে আমরা ভালো থাকবো।

১৩ ই এপ্রিল, ২০১৮ রাত ১০:১৯

সনেট কবি বলেছেন: একটা দিকে আমাদের কোন অভাব নেই। জনারণ্যে আমাদের বাস। প্রতিবেশিরাও গিফট হিসেবে কিছু পাঠাচ্ছে। এখন লোক যা আছে এ গুলোকে কাজে লাগাতে পারলে জনারণ্যেও আমরা খেয়ে পরে হয়ত বাঁচতে পারব। আমার মনে হয় মানুষ কাজে কাজে থাকলে জন সংখ্যা উৎপাদন কিছুটা কমতে পারে।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.