নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

বেঁচে থাকাটা দারুণ ব্যাপার ....

সুলতানা শিরীন সাজি

shazi১৯এট জিমেইল ডট কম আমার এই পথ-চাওয়াতেই আনন্দ। খেলে যায় রৌদ্র ছায়া,বর্ষা আসে বসন্ত। কারা এই সমুখ দিয়ে আসে যায় খবর নিয়ে, খুশী রই আপন মনে-বাতাস বহে সুমন্দ। সারাদিন আঁখি মেলে দুয়ারে রব একা, শুভক্ষণ হঠাৎ এলে তখনি পাব দেখা। ততক্ষন ক্ষণে ক্ষণে হাসি গাই আপন-মনে, ততক্ষন রহি রহি ভেসে আসে সুগন্ধ

সুলতানা শিরীন সাজি › বিস্তারিত পোস্টঃ

পাতাঝরা শরতের দিন (অটোয়া,কানাডা)

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:১৩



পাতাঝরা শরতের দিন (অটোয়া,কানাডা)

কয়েকদিন আগে ইন্টারনেটে সার্চ দিয়ে দেখছিলাম ,আশেপাশে কোথায় ঘুরতে যেতে পারি এই Fall এ । Mer bleue bog trail এলো। ছবি দেখে তো আমি মুগ্ধ। বাসা থেকে বেশ কাছে। কয়েকদিন বেশ ঠান্ডা পড়ে গেছে। গাছের পাতাগুলো দ্রুত বদলাচ্ছে রং। প্রতিদিন ভাবছিলাম যাই।
খুব সুন্দর একটা বিকাল কাটিয়েছিলাম। যদিও এই বিকালটার জন্য আমার অপেক্ষা ছিল।
সামারের পর ঠান্ডা পড়তে শুরু করলে,খুব গায়ে লাগে। গাড়ি পার্কিং বেশ কিছু গাড়ি থাকলেও মানুষ বেশি চোখে পড়ছিলো না। একটু হেঁটে এগোতেই অদ্ভুত সেই কাঠের হেঁটে চলার পথ(board·walk) । কখনো জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে,কখনো পানির উপর দিয়ে। এত সুন্দর । সেই সুন্দর ছবিতে কিছুতেই আসেনা,আর সেই যে নৈঃশব্দ্যের সুর!
মুগ্ধ আমি। প্রকৃতির এমন সুন্দর এর কাছে এলে নিজেকে কেমন ছোট্ট বিন্দুর মত লাগে। কিছু পাখি উড়ছিল,এত ছোট অথচ সুন্দর সব পাখি। একটা chipmunk ছুটছিল পাখিদের পিছনে,অনেক্ষন দাঁড়িয়ে ওদের দেখলাম ।ওরা আসলে খেলছিল।কাঠবিড়ালীর ছোট প্রজাতি হলো chipmunk ।
আমরা দুইবার হাঁটলাম সেই কাঠের trail দিয়ে। একবার ছবি তুললাম,আর একবার শুধু প্রকৃতির সেই সুন্দর দেখবো বলে। স্ট্রলার এ বাচ্চা নিয়ে বেশ কয়েকটা বাবা মা এসেছিল। কেউ কেউ শুধু ছবি তুলতেই এসেছিল। বড় বড় লেন্স দেয়া ক্যামেরা নিয়ে ঘুরছিল।
সামারের সময় গেলে হয়তো অনেক সবুজ দেখতে পারতাম। Fall(Autumn) এর আলাদা সৌন্দর্য্য।
এত সুন্দর একটা বিকাল কাটিয়ে যখন ফিরছিলাম। উঁচু নীচু পথ এ গাড়ি চলছিল,মনে হচ্ছিল জীবনের কত সুন্দর দিন কেটে যাচ্ছে।
কত কিছু দেখার বাকি। কত লেখার বাকি। কত পড়ার বাকি। যেনো ভালো থাকি।
জীবন সুন্দর।
এক একটা দিনের বেঁচে থাকার স্মৃতিগুলো আরো সুন্দর।
...........................
কয়েকদিন আগে অটোয়ার Rockcliff park আর Mer bleue bog trail এ গেলাম।
আবারো কিছু ছবি তুললাম। ছয় সাতদিনের মধ্যে পাতাগুলো আরো বেশি বিবর্ণ হয়েছে। মন খারাপ হয় দেখলে।
বাতাস বইছিল আর ঝিরঝির করে পাতাগুলো পড়ছিল। মনেহচ্ছিল শিউলী বা বকুল।
পাতাদের এই ঝরে যাওয়া দেখলে মন কেমন যে করে! বুকের ভিতর উলোট পালট হয়। মৃত্যুর কথা মনে হয়।
------------------------------------------------------
আজ অনেকদিন পর ব্লগবাড়িতে এলাম। মাঝে মাঝে প্রথমপাতার লেখাগুলো পড়ে চলে যাই। আজ কেনো জানি বসতে ইচ্ছা করলো। রাইয়ান যখন ছোট ছিল,আমাকে ব্লগে বসে থাকতে দেখলে বলতো ,মামমা আর ইউ রাইটিং বাংলা ? তখন আমার ডেস্ক টপ এ খেলতো ও। এখন বড় হয়ে গেছে ,যে যার কম্পিউটার নিয়ে ঘরে বসে থাকে।
সময় চলে যাচ্ছে।
এই প্রবাসে কত বছর পার করলাম ,এই পাতাঝরা দেখতে দেখতে।অপেক্ষায় আবার আসবে বসন্ত। গাছে গেছে পাতার হাসবে। আবার ফুটবে ফুল।
ব্লগের নিয়মিত ,অনিয়মিত সব ব্লগারদের জন্য শুভেচ্ছা...............এই ব্লগ বাড়ির জন্য বুকের ভিতর অপরিসীম মায়া। কত নাম,কত নিক,কত হারিয়ে যাওয়া ব্লগার।
সবাই ভালো থাক,যে যেখানে আছে সুস্থভাবে বেঁচে থাক।
বেঁচে থাকার মত আশ্চর্য্য সুন্দর আর কিছু হয়না।


কাঠের চলার পথ,কিযে সুন্দর।


উপরের ছবিগুলো Mer bleue bog trail এর আশেপাশের।

নীচের ছবিগুলো Rockcliff park এ তোলা।




মন্তব্য ১৭ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (১৭) মন্তব্য লিখুন

১| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:১৯

বিজন রয় বলেছেন: নতুন পোস্ট দিলেন!! প্রায় এক বৎসর পর!!
তবুও তো দিলেন।

আপনার নিষ্পাপ কবিতাগুলোর অপেক্ষায় থাকি এখনো আগের মতোই।
নিয়মিত হবেন আশা করি। তাহলে নতুনরা আপনাকে চিনতে পারবে, আপনার লেখার সাথে পরিচিত হতে পারবে।

অনেক ভাল লাগল।
অনেক অনেক ভাল থাকুন।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৯:৩৫

সুলতানা শিরীন সাজি বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ আপনাকে। আমাকে এখনো মনে রেখেছেন ,ভালো লাগলো।
কবিতা অনেক জমা আছে। দিবো আপনাদের জন্য। নতুন ব্লগারদের যারা ভালো লিখছে ,আশাকরি পরিচিত হবো।
মন চাইছে আবার ব্লগে লিখতে। চেষ্টা করবো।
আপনিও ভালো থাকেন।
শুভেচ্ছা সারাবেলার।

২| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:২২

স্রাঞ্জি সে বলেছেন:



কেমন যেন বুকের ভিতর ঢেউ উঠা শব্দ করল। আসলেই জীবন ঝরাপাতার মত দিনদিন ক্ষয়ে যাচ্ছে।

°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°′′′°°°°°°°°°°°°°°

ছবিগুলোও দেখে চোখ জুড়ে গেল।


আচ্ছা এটা পুরাই গাছের....???

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৯:৩৯

সুলতানা শিরীন সাজি বলেছেন: হ্যা এটা পুরাই গাছের।
কিছুদিন আগে আমরা ওখানে যেয়ে বসে আড্ডা দিয়েছিলাম। ছোটবেলার ট্রেনে চড়ার মত অনুভূতি। :)
একটা অদ্ভুত পাতার রাজ্যে অনেকক্ষন । কয়েকদিন পরই পাতাগুলো ঝরে যাবে। গাছগুলো বেঁচে থাকবে আশা নিয়ে,আবার আসবে বসন্ত তাই।
আরো ছবি পোস্ট দিবো পরে।
শুভেচ্ছা রইলো।

৩| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:৩০

নজসু বলেছেন: আপা,
আপনার লেখা মানে আমার কাছে অন্য কিছু।
আপনার কবিতা মানে অন্য রকম ঘ্রাণ।

কবিতা যদিও পেলাম না
ছবি দেখে মুগ্ধতা নিলাম।

আমি নতুন ব্লগার।
কমেন্টটা এমন হওয়া উচিত নয়।

আপা, আপনি বলতে পারেন-
তাহারে চিনিনা আমি
সে আমারে চেনে।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৯:৪৫

সুলতানা শিরীন সাজি বলেছেন: লেখা পরে মনে হলো অনেক চেনা কেউ।
অনেকদিন ব্লগে বসিনাতো,ঠিক চিনতে পারছিনা।
আগে দুই লাইন লেখা দেখলেই বলতে পারতাম এটা কে?
সে যতই অন্য নামের আড়ালে থাকনা কেনো। আর নতুন ব্লগার আবার কি।
ব্লগে যারা আছি বা ছিলাম,সবাই আমরা একই বাড়ির। সামহোয়ারইন ব্লগবাড়ির মানুষ।
এমন প্রিয় জায়গা খুব কম আছে। অনলাইনে কত জায়গায় ঘুরে বেড়াই। এমন শান্তির জায়গা কোথাও খুঁজে পাইনা। এখানে আমরা অনেকে অনেককে দেখিনি,শুধু লেখা দিয়ে চিনি।
এই চেনাটুকু অনেক ভালো লাগে।
কত প্রিয় লেখক আছে এখানে,তাদের ব্লগবাড়ি ঘুরে লখা পড়তে ভালো লাগে।

কবিতা পোস্ট করবো আশাকরি ।
শুভেচ্ছা রইলো।

৪| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১২:১৭

কাল্পনিক_ভালোবাসা বলেছেন: সাজি আপা!! সত্যি সারপ্রাইজ পেলাম! আশা করি ভালো আছেন?

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৯:৪৮

সুলতানা শিরীন সাজি বলেছেন: :) হ্যারে হঠাৎ আসলাম ,অনেকদিন পর।
আসি মাঝে মাঝে। লেখা পড়ে চলে যাই। এই ব্লগবাড়িতে আসলে খুব ভালো লাগে।
ভালো আছি।
তোমরা ভালো থেকো। শুভেচ্ছা।

৫| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১২:৪৫

টিয়া রহমান বলেছেন: আপু ছবি গুলো মন কেরে নিল, আসলেই আপু সুস্হ ভাবে বেঁচে থাকার মত সুখের বা সুন্দর কিছু নেই, এত সুন্দ দৃশ্য গুলো দেখতে সুযোগ করে দেয়ার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৯:৫২

সুলতানা শিরীন সাজি বলেছেন: ঠিক তাই।
সুস্থভাবে বেঁচে থাকার মত আনন্দের কিছু নেই।
সৃষ্টিকর্তার কাছে কৃতজ্ঞতার অন্ত নাই,এই মানুষ জীবনের জন্য।
আর দেখতে,শুনতে,বুঝতে পারার অনুভূতির জন্য।
ছবিগুলো ভালো লেগেছে জেনে ভালো লাগলো। কয়েকবছর আগে যখন ব্লগ লিখতাম নিয়মিতভাবে। প্রায় ঘুরতে বের হয়ে যেতাম,শুধু ব্লগের ছবি সহ লেখা দিবো তাই। যে কোন ভালোলাগা প্রিয়জনদের সাথে শেয়ার করতে ভালো লাগে।
শুভেচ্ছা রইলো টিয়া।

৬| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১২:৫৮

শকুন দৃিষ্ট বলেছেন: পাতাঝরা শরতের দিন - বাক্যটিতেই কেমন যেন এক মোহময়ী বিষন্নতার আবেশ দোলা দিয়ে যায় শরীর, দেহ, মনে।

পূরণো একজনকে অনেক দিন পর পাওয়া গেল। আশা করছি ভাল আছেন।

লিখবেন নিয়মিত, শুভকামনা।

২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৯:৫৬

সুলতানা শিরীন সাজি বলেছেন: ধন্যবাদ।
একটু আগে এই ব্লগে আমার ১১ বছর হলো ।
কাল রাতে যখন এই পোস্টটা দিয়েছিলাম, ১০ বছর ১১ মাস দেখাচ্ছিল।
আজ যে ১১ বছর হবে বুঝিনাই।
কি ভালো যে লাগছে।
একেই বুঝি বলে মনের টান।
নাহলে এই মুহুর্তে আমি এই ব্লগে বসে আছি।
আর সময় দেখাচ্ছে ১১ বছর ১৫ মিনিট।
শুভেচ্ছা রইলো।

৭| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:০৬

রাজীব নুর বলেছেন: সুন্দর পোষ্ট।
ছবি গুলো খুব সুন্দর।
আর ব্লগে মাঝে মাঝে না সব সময়ন আসবেন। লিখবেন। অড়বেন। মন্তব্য করবেন।

২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ ভোর ৬:৪১

সুলতানা শিরীন সাজি বলেছেন: থ্যাঙ্কস রাজীব।
কি করে যে দিনগুলো চলে যাচ্ছে।
ইচ্ছে করে ব্লগে বসি,লিখি। আর মন্তব্য লিখতে কিযে ভালো লাগতো আগে। দেখি,পারি কিনা আবারো।
শুভেচ্ছা ।

৮| ২৪ শে অক্টোবর, ২০১৮ রাত ১০:০৮

শকুন দৃিষ্ট বলেছেন: ১১ বছর পূর্ণ হল? তাও এইমাত্র? ওয়াও! সত্যিই ঘটনার কি অপূর্ব সমন্বয়!!!

ব্লগে ১১ বছরের এই আপুটাকে ১১টি তাজা সাদা গোলাপের শুভেচ্ছা! হ্যাপি ইলাভেনথ্‌ বাড্ডে এট সামু সাজি আপু।

ভাল থাকবেন, শুভকামনা সবসময়।

২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ ভোর ৬:৪২

সুলতানা শিরীন সাজি বলেছেন: থ্যাঙ্কস। শুভেচ্ছা। গোলাপ আমার খুব পছন্দ। তাও আবার সাদা।

৯| ২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ ভোর ৬:৪৩

মলাসইলমুইনা বলেছেন: আমাদের এখানে এবার ফলটা সেই হরেক রকম রঙে আর আসেনি। মনে হয় গ্রেট লেকের ঠান্ডা পানিতে ধুয়ে গেছে ফলের সব রং।সেটা নিয়ে যেটুকু খারাপ লাগা ছিল সেটা চলে গেলো আপনার লেখা দেখে। অনেক দিন পরে লেখবার জন্য একটা বড় ধন্যবাদ নেবেন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.