নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

কেমন জানি খুব বেশি আত্মবিশ্বাসী,ভালবাসি বই পড়তে,তার চেয়েও বেশি ভাল লাগে ঘুরে বেড়াতে,আর কবিতা সে তো টানে আমায় অদৃশ্য সূতোয়।ঘুরেছি পৃথিবীর বহু দেশ, তবুও মন ভরেনি, আবার ও বের হব কোন একদিন পৃথিবীর পথে প্রান্তরে, আর হব আমার লেখা লেখির ফেরিওয়ালা।

মাহবুবুল আজাদ

আমি একদিন অনেক বড় হব আমার সীমানা ছাড়িয়ে [email protected]

মাহবুবুল আজাদ › বিস্তারিত পোস্টঃ

দিন শেষে বেঁচে থাকে স্বার্থহীন ভালবাসা

২৩ শে মে, ২০১৮ রাত ১০:৫১


রেলষ্টেশন আসলেই আমার ডিম মামলেট আর পরোটা খেতে ইচ্ছে করে। এটা হোক ঢাকার কমলাপুর বা কলকাতা দিল্লী বা আমাদের শায়েস্তাগঞ্জ এ ইচ্ছা আমার কখনোই দমে না। অদম্য ইচ্ছে ষ্টেশনে এলেই জেগে উঠে, মনে হয় জীবনেও খাইনি এমন একটা ভাব।
মোবাইলে সময় দেখি অযথাই, জানি ট্রেনের অনেক দেরি আছে এখনো, তবুও ঘড়ি দেখতে ভাল লাগে। সহজাত অভ্যাস। এদিকে পেটের ভেতর মোচড় দেয়া শুরু হয়ে গিয়েছে, নাহ আর মনে হয় বসে থেকে সময় পার করা যাবে না।

আজ রেল ষ্টেশন বেশ নিরিবিলি, সচরাচর এমন হয়না, সব সময় সবার মাঝে কেমন জানি একটা অকারণ ব্যাস্ততা থাকে, চানাচুর ওয়ালা ঝুনঝুনি বাজিয়েই যাচ্ছে, আলো আছে তারপরেও একটা কুপি বাতি জ্বলছে। দেখতে ভালই লাগে।
রাতের ট্রেন এখনো অনেক দেরি।
আমার তেমন কোন তাড়াহুড়ো নেই, ব্যাগ টা পাশে রেখে হেলান দিয়ে বসে আছি, আমি বাড়ি যাচ্ছি কোন প্ল্যান ছিল না যাবার। হঠাত মনে হল যাই অমনি রওনা। এখন আশপাশের মানুষের কর্মকাণ্ড দেখে সময় পার করতে হবে।

গৃহহীন কিছু মানুষের ঘুমের আয়োজন চলছে এদিক সেদিক, আমি অবাক তাকিয়ে দেখি, কতগুলো সারের বস্তা আর চট দিয়ে মুড়িয়ে মোটামুটি একটা বালিশ বানানো হয়েছে। মানুষ দুজন, বয়স আর কত হবে আন্দাজ করলাম খুব বেশি হলে ১২/১৪ বছর হবে। বালিশ তৈরি, বিছানা সেতো ষ্টেশনের প্ল্যাটফর্ম, কিছু খবরের কাগজ, আমি ভাবছি দুজন কিভাবে একটা বালিশে ঘুমাবে, কিছুটা অবাক হলাম, দেখি দু জন দুদিকে পা দিয়ে শুয়ে পড়ল, কি সরল একটা সমাধান।
একটু পরেই কিঞ্চিৎ নাক ডাকার শব্দ, বোঝাই যাচ্ছে নির্ভাবনার ঘুম। আমার চোখে ঘুম নেই, এ শহরে হাজারো মানুষের চোখে ঘুম নেই, অথচ কত আরামের বিছানা বালিশ আছে।
মাঝে মাঝে রেস্টুরেন্টে বসে খেতে মন চায় না, তাই দুটা পরটা আর দুটা ডিম গরম গরম নিয়ে বেশ আয়েশে আগের জায়গায় ফিরে এলাম, ঘ্রাণ টা দারুণ লাগে, এত গরম যে মুখে দেয়া যাচ্ছে না তবুও একটু একটু ফু দিচ্ছি আমার ডিম পরোটা রোল এ।
বড় কামড় দেয়া যাচ্ছেনা,
তারপর ও হা টা মোটামুটি হাঙ্গর টাইপ হয়ে যাচ্ছে।

পাশের প্ল্যাটফর্মে আবছা আলো, কথা শুনে মনে হল মা আর ছেলে,তাদের কথা কিছুটা শোনা যাচ্ছেঃ
মাগো খাইছো, নারে বাবা দুফুরে রুডি খাইছি ডাইল দিয়া, অহন তো পানি দিয়া খাওন লাগবো।
রুডি ডা শক্ত লাগে।
ছেলেটার মুখে কথা নেই, একটু পরে মাগো আইজকা তো যে টেহা পাইছি হেইডা ধার শোধ দিছি, সহালে ভাত আনুম, চিন্তা কইরো না। মন ভোলানো এ শান্তনায় ছেলেটার মন মানে না সারারাত মা না খেয়ে থাকবে।
আবার উঠে যায়, আশে পাশের খাবারের দোকান গুলো সব বন্ধ হয়ে গেছে ততক্ষণে, কিছু চায়ের স্টল খোলা আছে। অসহায় সে মুখের ভাষা অনেক করুণ, আমি চেয়ে থাকি, খালি হাতে ছেলেটা ফিরে আসছে বেশ ধীর পায়ে, মায়ের জন্য ভালবাসা আর নিজের অপারগায় সে অনেক ক্লান্ত।

একটু ভাতের আশা, একটা নরম রুটির আশা, কতটুকু বেশি চাওয়া, আমি অসহায় হয়ে বসে আছি, আমার খাওয়া থেমে গেছে, পাশ দিয়ে যাবার সময় তার বুক ভরে নিঃশ্বাস নেয়ার শব্দটা আমার নাড়িয়ে দিয়ে যায়।
ক্ষুধার্ত মা আধো ঘুমে, রাজ্যের হতাশা নিয়ে ছেলেটা বসে থাকে মায়ের পাশে।
কারো মুখে কথা নেই, আমার আর শক্তি নেই এর পর চুপ করে এসব দেখার, উঠে গেলাম রেল লাইনটা পার হয়ে, কোন কথা না বলে ছেলেটার হাতে দুটা পরোটাই ধরিয়ে দিলাম, সে মায়ের ক্ষুধার্ত মুখ দেখার সাহস আমার হয়নি।
অবাক ছেলেটার চেহারা্‌ পেছনে ফেলে আমি চলে আসি, চুপ করে হেলান দিয়ে বসে থাকি, কোন কিছু ভাবতে চাইনা, আমার চোখের কোণে একটু অশ্রু, চাইনা এ পৃথিবী দেখুক।
কেন জানি আবারো পেছনে তাকাই, আবছা আলোয় দেখা যায় দু হাত তুলে সে মায়ের দোয়া।

মন্তব্য ২৬ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (২৬) মন্তব্য লিখুন

১| ২৩ শে মে, ২০১৮ রাত ১১:২৫

স্ব বর্ন বলেছেন: বেঁচে থাকুক ভালবাসা আর জয় হোক মানবতার।আমি ব্লগে নতুন সময় হলে আমার ব্লগে ঘুরে আসুন।

২৩ শে মে, ২০১৮ রাত ১১:২৬

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: ব্লগে থাকুন সরবে আপন আলোয়।

ভাল থাকবেন নিরন্তর।

২| ২৩ শে মে, ২০১৮ রাত ১১:৪৫

রেইড ইন স্কাই বলেছেন: মানবতা বেঁচে থাকুক সবার মাঝে।

২৩ শে মে, ২০১৮ রাত ১১:৫১

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: সহমত। ভাল থাকুন নিরন্তর।

৩| ২৪ শে মে, ২০১৮ রাত ১২:১৫

অর্থনীতিবিদ বলেছেন: খুব ভালো একটা কাজ করেছেন। মহান আল্লাহ অবশ্যই আপনাকে এর প্রতিদান দিবেন।

২৪ শে মে, ২০১৮ রাত ১২:৪২

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: ইনশাহআল্লাহ, দোয়া করবেন।

৪| ২৪ শে মে, ২০১৮ রাত ১২:১৮

কাইকর বলেছেন: ভাল কাজ করেছেন একটা।ধন্যবাদ আপনাকে

২৪ শে মে, ২০১৮ রাত ১২:৪৩

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: সাথে থাকার জন্য আন্তরিক কৃতজ্ঞতা।

৫| ২৪ শে মে, ২০১৮ রাত ১:৪২

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: ভালো লাগলো, ভালো না লেগে যাবেইবা কোথায়। ভালো কাজ বলে কথা।

২৪ শে মে, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৮

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ, ভাল থাকবেন।

৬| ২৪ শে মে, ২০১৮ রাত ২:৪৮

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: আবেগীয় পোস্ট। ভালো লেগেছে...

২৪ শে মে, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৯

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: ভাল লাগায় মুগ্ধ হলাম।

৭| ২৪ শে মে, ২০১৮ সকাল ৮:০৪

শিমুল_মাহমুদ বলেছেন: সুন্দর পোষ্ট, যারা দুবেলা দুমুঠো খাবার খেতে পায় না তারাই বোঝে খাবারের প্রকৃত মুল্য। প্রাঞ্জল ভাষায় সুন্দরভাবে উপস্থাপন করেছেন। এবং কাজটির জন্য আপনাকে স্যালুট আজাদ ভাই।

২৪ শে মে, ২০১৮ বিকাল ৫:৫১

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: আমরা অবহেলায় কত খাবার নষ্ট করি, যদি চোখের এদের একটা ছবি রাখি, তাহলে কিছুটা হলেও ওদের জন্য অনেক উপকার হত।

৮| ২৪ শে মে, ২০১৮ সকাল ৯:৪৩

রাজীব নুর বলেছেন: বাইরের খাবার না খাওয়াই ভালো।
রেল স্টেশন খুব কম সময়ই নিরিবিলি থাকে।

সব মিলিয়ে ভালো লিখেছেন।

২৪ শে মে, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০৩

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: সে কথা বলে লাভ নাই, হা হা হা, আমি বাইরের খাবার না খেয়ে থাকতে পারিনা, বিশেষ করে গরম গরম যখন করা হয়। তবে ভাত মাছ/মাংস এ জাতীয় খাবার খাইনা।

৯| ২৪ শে মে, ২০১৮ সকাল ১০:৩২

MirroredDoll বলেছেন: Allah bless you my dear. You have done wonderful. Everyone should do the same.
কবে এক দিন আসবে পৃথিবীতে সবাই খেতে পারবে । অভাবে কেউ ক্ষুধার্ত থাকবে না । অর্থের অভাবে না খেয়ে ঘুমাবে না ।
মা ছেলের অংশটা ভয়ঙ্কর বেদনাদায়ক!!!

২৬ শে মে, ২০১৮ রাত ১২:২৬

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: আমরা সবাই ষে দিনের অপেক্ষায়, তবে ষে জন্য আমাদের সবার আগে নিজেকে জাগাতে হবে মানুষের জন্য।

ভাল থাকবেন।

১০| ২৪ শে মে, ২০১৮ সকাল ১১:১৮

সুমন কর বলেছেন: সুন্দর প্রকাশ। লাইনগুলো ভালো লাগল।

২৬ শে মে, ২০১৮ রাত ১২:২৬

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: অনেক অনেক ধন্যবাদ সুমন ভাই।

১১| ২৫ শে মে, ২০১৮ রাত ১০:৫১

আহমেদ জী এস বলেছেন: মাহবুবুল আজাদ ,




একজন মানুষের লেখা । আবেগময় । মানবিক মূল্যবোধে ভরা ।

২৬ শে মে, ২০১৮ রাত ১২:২৭

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: ভাল লাগল আপনাকে দেখে , কেমন আছেন?

১২| ২৫ শে মে, ২০১৮ রাত ১১:৩৩

জুন বলেছেন: চারিদিকে চোখ ফেললে এমন হাজারটা ঘটনা দেখা যায় কিন্ত আমরা চোখ বুজে থাকি। দেখেও দেখি না। শুনেও শুনিনা। আপনাকে ধন্যবাদ আপনি শুনেছেন অসহায়দের কথা। ভালোলাগলো

২৬ শে মে, ২০১৮ রাত ১২:২৯

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: আশা করি আমরা সবাই যদি এমন ভাবে অসহায় দের পাশে একটু থাকি, তাহলে এ অবস্থা বদলাতে বেশিদিন অপেক্ষা করা লাগবেনা। শুধু একটু মানবিক আবেদনে সাড়া দিলেই হবে।

১৩| ২৬ শে মে, ২০১৮ রাত ১২:৩৪

মনিরা সুলতানা বলেছেন: সত্যি'ই তাই দিনশেষে স্বার্থহীন ভালোবাসাই টিকে থাকে।
অসম্ভব মন ছুঁয়ে যাওয়া লেখা।

২৬ শে মে, ২০১৮ রাত ১০:০৭

মাহবুবুল আজাদ বলেছেন: ভাল লাগল আপু আপানকে দেখে, লেখা ছুঁয়ে গেল, এ ছোঁয়ায় বদলে যাক সব, ভাল থাকবেন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.