নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সাহসী সত্য।এই নষ্ট দেশ-জাতি-সমাজ পরিবর্তনের প্রচেষ্টাকারী একজন যোদ্ধা।বাংলাদেশে পর্বত আরোহণের পথিকৃত।

অনল চৌধুরী

লেখক,সাংবাদিক,গবেষক,অনুবাদক,দার্শনিক,তাত্ত্বিক,সমাজ সংস্কারক,শিক্ষক ও সব অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী যোদ্ধা

অনল চৌধুরী › বিস্তারিত পোস্টঃ

পাপিষ্ঠ এ্যামেরিকার সংশোধন অসম্ভব

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৩:১১


২৫ মে মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের বড় শহর মিনিয়াপলিসে পুলিশের হাতে জর্জ ফ্লয়েড নামে এক কৃষ্ণাঙ্গ নির্মমভাবে নিহত হন। এরপরই শুরু হয় বিক্ষোভ।

উত্তাল হয়ে ওঠে মিনিয়াপোলিস। মঙ্গল ও বুধবার বিক্ষোভকারীরা পুলিশের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

বৃহস্পতিবার আন্দোলনকারীরে মিনিয়াপলিসের একটি থানায় আগুন জ্বালিয়ে দেন। ঐ অগ্নিসংযোগের একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল। বেশ কয়েকটি ভবন ও গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনাও ঘটে।

শুক্রবার কারফিউ ভেঙে রাস্তায় নেমে আসেন বিক্ষোভকারীরা। পুলিশের গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। দোকানপাট ভাঙচুর করা হয়। বিভিন্ন সড়কে আগুন জ্বলতে দেখা যায়।

মিনেসোটার গভর্নর টিম ওয়ালজ শহরে ন্যাশনাল গার্ড মোতায়েন করেন। এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পরিস্থিতিকে নজিরবিহীন বিপজ্জনক বলে উল্লেখ করেন তিনি।

উত্তাল যুক্তরাষ্ট্র, জরুরি অবস্থা জারি
হোয়াইট হাউসের সামনে কয়েকশ বিক্ষোভকারী। ছবি: সিএনএন

এদিকে শুক্রবার সন্ধ্যায় হোয়াইট হাউসের সামনে কয়েকশ বিক্ষোভকারী কৃষ্ণাঙ্গ হত্যার বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ করেন।

এ সময় বিক্ষোভকারীরা ফ্লয়েডের ছবি হাতে নিয়ে ‘আমি শ্বাস নিতে পারছি না’ স্লোগান দিতে থাকেন।

স্লোগানের এই কথা ফ্লয়েড মৃত্যুর আগে পুলিশ অফিসারকে বারবার বলছিলেন। যা এখন পুরো যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিবাদের ভাষা হয়ে উঠেছে।

এর আগে স্থানীয় সময় সকাল ৭টার দিকে ওয়াশিংটন ডিসিতে জড়ো হতে শুরু করেন বিক্ষোভকারী। পরে তারা হোয়াইট হাউসের দিকে অগ্রসর হলে তা বন্ধ করে দেওয়া হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের সিক্রেট সার্ভিস টুইট করে বলে, ‘আমাদের কর্মীরা বিক্ষোভ চলাকালীন অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে সহায়তা করছে। জননিরাপত্তার স্বার্থে আমরা সবাইকে শান্ত থাকতে বলছি। ইত্তেফাক রিপোর্ট।

*********************

সন্ত্রাসী এ্যামেরিকা একমাত্র সাদা ছাড়া আদিবাসী,কালো,মুসলমান কাউকেই মানুষ মনে করে না। যেখানে যখন ইচ্ছা গুলি-হত্যা-নির্যাতন করে।করোনায় ১ লাখের বেশী এ্যামেরিকান মরেছে। এই সংখ্যা কোথায় যাবে,তার কোন ঠিক নাই।তারপরও তাদের আচরণের কোনো পরিবর্তন হয়নি।

এখনও কালোদের পশুর মতো হত্যা করছে বর্ণবাদী সাদা পুলিশ।
৪০০ বছর ধরেই চলছে এই ভয়ংকর বর্ণবাদী আচরণ।

শুধু তাই না,ইসরাইলের প্রতিও তাদের অন্ধ সমর্থন আরো তীব্র হয়েছে।

বিগত ২০ মে যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইলের সাথে এ যাবৎ করা সব চুক্তি বাতিল করে দিয়েছেন ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। অধিকৃত জর্দান নদীর পশ্চিম তীরের একাংশ ইসরাইলের অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে এ ব্যবস্থা নিয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার রাতে এক বিবৃতিতে মাহমুদ আব্বাস জানান, তিনি এখন থেকে তেল আবিবের সাথে পিএলও’র সই করা সব চুক্তি বাতিল করার পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের সাথে করা কোনো সহযোগিতাচুক্তি আর মেনে চলবেন না। ফিলিস্তিনি সংবাদ সংস্থা ওয়াফা জানিয়েছে, ইসরাইলের পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনার জন্য রামাল্লায় অনুষ্ঠিত এক জরুরি সভায় এ ঘোষণা দেন অব্বাস।

এই সন্ত্রাসী রাষ্ট্রের চূড়ান্ত ধ্বংস না হওয়া পর্যন্ত বিশ্বের দেশে দেশে আগ্রাসন,গণহত্যা,লুটপাটের মতো বর্ণবাদী আক্রমণও কোনোদিন বন্ধ হবে না।

মন্তব্য ৩৩ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (৩৩) মন্তব্য লিখুন

১| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৩:৩০

কাজী আবু ইউসুফ (রিফাত) বলেছেন: Trump born culprit.

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৩:৩৫

অনল চৌধুরী বলেছেন: Not only Trumph,all white supremist are racists.

২| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৩:৩০

নতুন বলেছেন: ঘটনা কি এখন আবার একজন আমেরিকানের জন্য কি দরদ লাগছে?

আপনার তো খুশি হবার কথা। আরো ১ জন পুলিশের হাতে মারা পরেছে । নিজেরা মারা মারি করছে এটা তো আপনার খুশি হবার কথাা। 105,480 জন করানায় মারা গেছে আরো একজন পুলিশ মেরেছে।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৩:৩৮

অনল চৌধুরী বলেছেন: এ্যামেরিকার যে কালোরা নির্যাতিত,তাদের মৃত্যুতে আমি কোনোদিনও খুশী হইনি। তাদের নিয়ে চলচিত্র বিষয়ক লেখায় ধারাবাহিকভাবে লিখছিও।
চোখ নাই,তাই দেখেন না।

৩| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৩:৩৪

হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
ঘটনাটি নিন্দনিয়।
তবে গ্রেফতারে বাধা দেয়া হলেই শুধুমাত্র এ ধরনের শক্তিপ্রয়োগ ও দুর্ঘটনা হয়।
এত কিছুর পরও আমেরিকার নাগরিক আইন ও পুলিশি ব্যাবস্থা, বিচার ব্যাবস্থা পৃথিবীর যে কোন দেশের চেয়ে মানবিক।
ইসলামি দেশগুলো থেকে হাজার গুন বেশী মানবিক।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৩:৪০

অনল চৌধুরী বলেছেন: একজন অধম তাই আরেকজন অধম হবে,এটা কোনো যুক্তি হতে পারেনা।
এ্যামেরিকায় সাদাদের চেয়ে কালোরা পুলিশের গুলিতে তিনগূণ বেশী মরে।
১৯৯২ এ রডনি কিং থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত অগণিত দেখলাম।
এরা কেইউ কিন্ত অপরাধী না,নীরিহ ব্যাক্তি ছিলেন।

৪| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৩:৪৪

নতুন বলেছেন: হাসান কালবৈশাখী বলেছেন:
ঘটনাটি নিন্দনিয়।
তবে গ্রেফতারে বাধা দেয়া হলেই শুধুমাত্র এ ধরনের শক্তিপ্রয়োগ ও দুর্ঘটনা হয়।


আপনি আশা পাশে পুলিশ আছে নাকি ভাই?

এই রকমের কয়টা মৃত্যু সাদাদের সাথে হয়েছে? কোন সাদা কি কখনোই গ্রেপ্তারে বাধা দেয় নাই?

পুলিশেরা কালোদের সন্ত্রাসী মনে করে। তাদের দৃস্টিভঙ্গিতে সমস্যা আছে। অনেক ভিডিও আছে যেখানে পুলিশ কালোদের সাথে খারাপ ব্যবহার করছে, ঘটনা দেখলে মনে হয় তারা কালো বলেই এমন করে।

যদিও কালোরা মানুষও সুবিধার না। তবু রাস্ট দৃস্টিভঙ্গিকে কালোদের খারাপ জানাটা ঠিক না।

৫| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৩:৫০

নতুন বলেছেন: করোনায় লাখের উপরে মানুষ মারা গেছে সেটাতে আপনি খুশি।

আর আজ একজন কালো মারা গেলো তাতেই কস্টে বুক ভাষাইতেছেন?

১ লক্ষ যারা করোনাতে মারা গেলো তাদের মাঝে কি কোন কালো মানুষ ছিলো না? বাংলাদেশী ছিলো না?

সবাই সাদা ছিলো নাকি?

৩১ শে মে, ২০২০ ভোর ৪:০১

অনল চৌধুরী বলেছেন: করোনায় মানুষ মরা আর কাউকে বর্ণবাদী আক্রমণ করে হত্যা করা কি এক?
তাহলে তো করোনায় কালোরা মরার কারণে ২ মাস আগেই সেখানে দাঙ্গা শুরু হতো।

আমার সব লেখা পড়লে মন-মানসিকতার সমস্যাগুলি কেটে যাবে। মগজ নতুনভাবে রি-ইনষ্টলড হবে।

আর যেসব বাংলাদেশী এ্যামেরিকার সন্ত্রাসী নীতিকে সমর্থন করে, তাদেরও প্রতিও আমার কোনো সহানুভূতি নাই।
তারাও একেকটা সন্ত্রাসী।তাদের কালোদেরমতো আফ্রিকা থেকে এ্যামেরিকায় ধরে আনা হয়নি,তারা লোভের কারণে সেখানে গেছে।

৬| ৩১ শে মে, ২০২০ ভোর ৫:৫৭

নেওয়াজ আলি বলেছেন: দরকার আছে হওয়ার

৭| ৩১ শে মে, ২০২০ সকাল ১০:৫৮

সাইন বোর্ড বলেছেন: দেখা যাক, শেষ পর্যন্ত জল কোথায় গিয়ে পৌছায় ।

০১ লা জুন, ২০২০ ভোর ৫:৪১

অনল চৌধুরী বলেছেন: এবার খারাপ পর্যায়ে যাবে।
কালোরা বরাবার অন্যায় সহ্য কবে না।
এদের সাথে অনেক বামপন্থীও আছে।

৮| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:৪৬

নতুন বলেছেন: লেখক বলেছেন: করোনায় মানুষ মরা আর কাউকে বর্ণবাদী আক্রমণ করে হত্যা করা কি এক?
তাহলে তো করোনায় কালোরা মরার কারণে ২ মাস আগেই সেখানে দাঙ্গা শুরু হতো।

আমার সব লেখা পড়লে মন-মানসিকতার সমস্যাগুলি কেটে যাবে। মগজ নতুনভাবে রি-ইনষ্টলড হবে।


যেই মানুষের মগজ থেকে করোনায় মৃতদের খবরে উল্লাস আসে তার লেখা পড়ে মানুষিক সমস্যায় আক্রান্ত হবে মানুষ। B-)

দাঙ্গা শুরু করোনায় সেটা তো আমি বলিনাই। বলেছি কালোরাও তো করোনায় মারা গেছে আর তখন আপনি উল্লাস করেছেন । এখন ১ জন কালোকে পুলিশ মেরেছে আপনার দরদ উতলে পড়ছে?

করোনা একটা রোগ রোগে কেউ মারা গেলে মানুষ উল্লাস করে সেটা আমি প্রথম দেখেছি আপনার পোস্ট থেকে। আপনি যে এতো বড় বুদ্ধিজীবি সেটা আগে জানতাম না।

এখন মনে হচ্ছে এটা জেলাসির কারনে হতে পারে। আমেরিকা যাবার ট্রাই করেছিলেন জীবনে? ভিসা দেয় নাই? না কি অন্য কোন সমস্যা?

৩১ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৯

অনল চৌধুরী বলেছেন: কালকেই দেখলাম একজনের লেখায় গিয়ে এ্যামেরিকা বিরোধী মন্তব্য করততে। একেক সময়ে একেরকম কথা বলছেন।
আমি কি বলি সেটা আপনার মতো ২/১ জন স্বলল্পবোধসম্পন্ন ব্যাক্তি ছাড়া এখানে প্রায় সবাই সমর্থন করেন। করোনার মধ্যেও সন্ত্রাসী এ্যামেরিকা যা করছে,না থাকলে আরো কয়েক লাখ লোক মারতো আর উদ্বাস্ত বানাতো।

এখন মনে হচ্ছে এটা জেলাসির কারনে হতে পারে। আমেরিকা যাবার ট্রাই করেছিলেন জীবনে? ভিসা দেয় নাই? না কি অন্য কোন সমস্যা- আপনি যেমন,বুদ্ধিও তেমন নিজের দেশে জমিদারী বাদ দিয়ে যাবো সন্ত্রাসী-বর্ণবাদী দেশে গোলামী করতে ?
আমি কি উদাসী ?

তবে আমার যোগ্যতা দিয়ে আমি পৃথিবীর যেকোনো দেশে কোনো সময়ে যেতে পারি।

৯| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ১২:৫৪

চেংকু প্যাঁক বলেছেন: অনল চৌধুরীর লেখা ভাল লাগে

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:২৮

অনল চৌধুরী বলেছেন: ধন্যবাদ।
একমাত্র ভালো লোকদেরই ভালো জিনিস ভালো লাগে।
কিন্ত খারাপ লোকদের কাছে ভালো সবকিছুই অসহ্য লাগে।
উপরের একজনের মন্তব্য পড়লে বুঝবেন।

১০| ৩১ শে মে, ২০২০ দুপুর ১:০৭

রাজীব নুর বলেছেন: দুনিয়ার সবচেয়ে সভ্য পুলিশ হলো আমস্টারডাম এর পুলিশ। অদ্ভুত ব্যাপার হলো- এদেশের কারাগারে কোনো লোক নেই। পুলিশের কাউকে গ্রেফতার করতে হয় না। জনগন ভদ্র।

৩১ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:২১

অনল চৌধুরী বলেছেন: স্পেনীয় আর পর্তূগীজদের মতো বেলজীয়রাও একসময় পৃথিবীর সবচেয়ে বড় খুন-ডাকাত ছিলো।
দক্ষিণ এ্যামেরিকা-আফ্রিকা এমনকি বাংলাদেশের চট্রগ্রাম-সন্দীপে অনেক দাঙ্গা-রক্তপাত করেছিলো।
কিন্ত এখন তারা সভ্য হয়েছে।
আর বাঙ্গালীরা প্রতিযোগিতা করছে,কে কতোটা নষ্ট হতে পারে !!!!

১১| ৩১ শে মে, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪২

অনল চৌধুরী বলেছেন:

১২| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:০৫

নতুন বলেছেন: অবশ্যই আমেরিকার সম্রাজ্যবাদের বিরোধিতা করি। বণ`বাদের বিরোধিতা করি।

কিন্তু কিছু কিছু বুদ্ধিজীবীর মতন লাখো সাধারন মানুষ মারা যাওয়ায় উল্লাস করিনা।

সাধারন মানুষ রাজনিতির সাতে পাচে থাকে না। সাধারন মানুষ মারা যাওয়া উল্লাস করা মানুষিক বিকারের লক্ষন।

যদি মানুষের মৃত্যুতে কারুর খারাপ না লাগে সে মানুষ হওয়া যোগ্যতা রাখে না।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:১৯

অনল চৌধুরী বলেছেন: সাধারণ মানুষ আর কারা সব সন্ত্রাসরে সমর্থক আর মদদদাতা-এটা বুঝতে না পারাটাই আপনার সমস্ত সমস্যার মুল কারণ।
নিজে গিয়ে একটা জরীপ করে দেখেন,কয়জন এ্যামেরিকান দেশে দেশে তাদের গণহত্যা-লুটপাটের সমর্থক আর কয়জন বিরোধী।।
তাহলেই সব স্পষ্ট হবে।

১৩| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:৩২

ডার্ক ম্যান বলেছেন: মুক্তিযুদ্ধে আমেরিকার প্রশাসন আমাদের বিপক্ষে ছিল কিন্তু সাধারন জনগণ আমাদের পক্ষে ছিল ।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:১৪

অনল চৌধুরী বলেছেন: সেটা অল্প সংখ্যক।সবাই না।বিটলস-হ্যারিসন-রবি-শংকর খোনে বাংলাদেশের জন্য গান গেয়েছিলেন।

১৪| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৮:৩৫

নতুন বলেছেন: এটা জানতে হলে আমেরিকাতে গিয়ে নিজে জরিপ করতে হবে বুঝি???

তাহলে আপনি যে আপনি নিজে গিয়ে জরীপ করে সবার কাছ থেকে জেনেছেন যে আমেরিকার সাধারন মানুষ সন্ত্রাসের সমর্থক আর মদদদাতা এটা আমার জানা ছিলো না।

যদি আমাদের আপনার গবেষনায় পাওয়া তথ্য দিয়ে লিখতেন তবে জাতী ধণ্য হইতো। B-))

আর আপনার যদি আমেরিকানদের জানতে আমেরিকায় যাওয়া না লাগে তবে আমাকে কি জন্য নিজে গিয়ে জরিপ করতে বলছেন একটু জানাবেন কি????

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ১:৫৮

অনল চৌধুরী বলেছেন: Click This Link ৯০% এর বেশী এ্যামেরিকান আফগানিস্তানে কোন অনুমতি ছাড়াই সন্ত্রাসী হামলার পক্ষে ছিলো। সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধের নামে দেশে দেশে তারা ৫ লাখের বেশী মানুষ মেরেছে।More than 90 percent of persons surveyed in polls have regularly expressed approval of the insertion of ground troops into Afghanistan.


https://www.voanews.com/middle-east/us-war-terror-kills-nearly-500000-afghanistan-iraq-pakistan

১৫| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:১৮

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: এই ধরনের ঘটনা বাংলাদেশে ঘটলে এরকম মাত্রার প্রতিবাদ হোতো না। এই ধরনের প্রতিবাদে যদিও বাড়াবাড়ি আছে তবে বারাবারির বিরুদ্ধেই এই প্রতিবাদ তাই বাড়াবাড়ি অস্বাভাবিক নয়।

৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:২৬

অনল চৌধুরী বলেছেন: কালোদের এভাবে মারা নতুন কোনো ঘটনা নিয়মিতই হচ্ছে।

১৬| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ৯:৪৬

নতুন বলেছেন: লেখক বলেছেন: Click This Link এর বেশী এ্যামেরিকান আফগানিস্তানে কোন অনুমতি ছাড়াই সন্ত্রাসী হামলার পক্ষে ছিলো। সন্ত্রাসবিরোধী যুদ্ধের নামে দেশে দেশে তারা ৫ লাখের বেশী মানুষ মেরেছে।
https://www.voanews.com/middle-east/us-war-terror-kills-nearly-500000-afghanistan-iraq-pakistan


ওহ আপনি তাহলে আমেরিকার ভিসা পান নাই? তাই একটা ভোটের ফল দেখেই লাখো আমেরিকার মৃত্যুতে উল্লাস করছিলেন?

আর আমাকে নিজে গিয়ে জরিপ করতে বলতেছেন?

আপনি তো জ্ঞানী মানুষ সম্ভবত বুঝতে পেরেছেন বত`মানে আমেরিকায় বিক্ষোভটা কেন হচ্ছে?

সবাই ১ জন কালো মানুষের মৃত্যুর পরে বন`বাদী আচরনের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছে।

তাই একটা ভোটে কিছু মানুষ আমেরিকার পক্ষে ভোট দিলেই সবাই খারাপ হয়ে যায় না। মিডিয়া তাদের দেখিয়েছে যে তারা বিপদে আছে তাদের নিরাপত্তার জন্য আমেরিকা এই কাজ করেছে তাই তারা কনভিন্সড হয়েছে।

তারাও এক রকমের ভিকটিম। আর আপনি =p~

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ২:০৪

অনল চৌধুরী বলেছেন: সবাই ১ জন কালো মানুষের মৃত্যুর পরে বন`বাদী আচরনের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমেছ ওই জংলী দেশের সবাই এতো সভ্য হলে দেশের সরকারগুলিকে কোনোদিন আগ্রাসন,গণহত্যা,লুটপাটের মতো বর্ণবাদী আক্রমণও করতে দিতো না।

গাজী আর উদাসীর পর সিআইএ কি এ্যামেরিকার বর্ণবাদী-জঙ্গী-জংলী খ্রিষ্টানদের পক্ষে ওকালতি করার জন্য বেতনভোগী কর্মচারী নিয়োগ দিয়েছে?
মন্তব্যের নমুনা দেখে তো তাই মনে হচ্ছে!!!

১৭| ৩১ শে মে, ২০২০ রাত ১০:১৫

আলাপচারী প্রহর বলেছেন: একটা ভিডিও ক্লিপে দেখলাম, নিজেকে আপাদমস্তক কাপড়ে ঢেকে, মুখোশ, মাস্ক পড়ে, ছাতা দিয়ে মাথা ঢেকে একজন দমাদম হাতুরি দিয়ে বড় শো রুমের আয়না গুলো ভাঙছে।
কাছে দাড়ানো এক চ্যাংড়া কালো ছেলের সন্দেহ হলে চ্যালেঞ্জ করে। দৈবক্রমে ঐ কাপড়ে ঢাকা লোকের ফর্সা হাত বেরিয়ে পড়ে।

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ২:০৬

অনল চৌধুরী বলেছেন: ঝোপ বুঝে কোপ কি শুধু বাঙ্গালীরাই মারতে জানে?
ওই জংলী-জঙ্গী সাদারা আরো ভালো জানে।

১৮| ০১ লা জুন, ২০২০ রাত ২:১০

নতুন বলেছেন: আপনি তো কইলেন না যে গুগুলে গবেষনা কইরা আমেরিকার জনগনকে বুঝইয়া ফালাইছেন। আর আমার কেন আমেরিকা গিয়া জরিপ করতে হইবো???

০১ লা জুন, ২০২০ রাত ২:২৭

অনল চৌধুরী বলেছেন: তো আপনি গুগল গবেষণা করেই বলেন,কতো % এ্যামেরিকান সন্ত্রাসী বিশ্বের দেশে দেশে আগ্রাসন,গণহত্যা,লুটপাটের মতো বর্ণবাদী আক্রমণের বিরোধী?

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.