নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সাহসী সত্য।এই নষ্ট দেশ-জাতি-সমাজ পরিবর্তনের প্রচেষ্টাকারী একজন যোদ্ধা।বাংলাদেশে পর্বত আরোহণের পথিকৃত।

অনল চৌধুরী

লেখক,সাংবাদিক,গবেষক,অনুবাদক,দার্শনিক,তাত্ত্বিক,সমাজ সংস্কারক,শিক্ষক ও সব অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী যোদ্ধা

অনল চৌধুরী › বিস্তারিত পোস্টঃ

এখন আর কাউকে হাসাতে পারি না

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ৩:৪৬


জন্মের পর থেকেই শুনে এসেছি, সবার সাথে ভালো ভাবে কথা বলা, হাসি-ঠাট্টা করা ভদ্র সমাজের রীতি এবং মহত্বের লক্ষণ। যখন পাঠশালাগুলিতে পড়েছি, সহপাঠী ও বন্ধুদের বেশীরভাগকেই এভাবে কথা বলতে দেখেছি। কিন্ত এসব যে খারাপ, আর ইতরের মতো অন্যকে আঘাত করে কথা বলা মানে যে ব্যাক্তিত্ব,সেটা জীবনে প্রথম শুনেছিলাম ২০০৬ সালে ষ্ট্যামফোর্ডে চলচ্চিত্র নিয়ে এম এ পড়ার সময় একদল নীচ আর নিকৃষ্টের কাছে।

এরা সবাই যদি গ্রামের নোংরা পারিবারিক বা সামাজিক পরিবেশ থেকে আসতো, তাহলে বলার কিছু ছিলো না। যদিও গ্রাম আর গ্রাম্য নোংরামী এক জিনিস না। গ্রামে থাকলেই যদি সবাই নোংরা হতো, তাহলে শহরে থাকলেও সবাই সভ্য আর ভদ্র হতো। ১৪ পুরুষ ধরে শহরে থেকেও যারা পরশ্রীকাতরতা, দলাদলি, পরচর্চা,পরনিন্দার উর্ধে উঠতে পারে না, তারাও নোংরা গ্রাম্য সংস্কৃতি বহন করে। আমাদের অনেকের পূর্ব পূরুষরা আরব, ইরান,ইরাক,তুরস্ক, আফগানিস্তান থেকে আসলেও তাদের বেশীরভাগই প্রথম গ্রামেই বসবাস শুরু করেছিলেন।কিন্ত এদের মধ্যে দিগন্ত টিভি’র মালিক, ফাসীতে ঝোলা রাজাকার কাসেম আলীর পোষা ভৃত্যর মতো গ্রামের ক্ষ্যাত যেমন ছিলো, তেমনই ছিলো দেশের বিখ্যাত এক চলচ্চিত্র ও টিভি অভিনেতা ও ‍পরিচালকের পেশাদার পতিতা মেয়ে , বর্তমানে টিভি নাটকে ভাড়ের চরিত্রে অভিনয় করা এক নকলবাজ, নষ্ট, লম্পট, যে এখন আবার নীতি-আদর্শ শেখানোর দোকান খুলে বসেছে আর এক শিষ্টাচার জ্ঞানহীন স্বঘোষিত বিরাট ‘‘জ্ঞানী-গুণী’ সহ ঢাকায় বসবাস এবং পড়াশোনা করা ২/১ জন।

শ্রেণীকক্ষে শিক্ষকদের যেকোনো প্রশ্নের উত্তর দিতাম আমি। শিক্ষকরা পৃথিবীর যেকেনো দেশের চলচ্চিত্রসহ যেকোনো বিষয় সম্পর্কে তথ্যের দরকার হলেও আমাকেই জিজ্ঞেস করতেন। তাদের শিক্ষা সহকারী হিসেবে কাজ করতাম, যেটা ‍উন্নত দেশে চালু আছে । ইত্তেফাক এবং যুগান্তরে নিয়মিত গবেষণামূলক লেখা লিখতাম। এদের সভ্য বানানোর জন্য বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার আমার লেখা অনেক বই দিয়েছিলাম।এরা যেকোনো বিপদে পড়লে আমার সাহায্যই নিতো, কিন্ত বিপদ শেষ হওয়া মাত্র অভদ্রতা শুরু করতো।

আর শিক্ষকরা চলচ্চিত্র বা অন্য কোনো বিষয়ে প্রশ্ন করলে এরা উত্তর দিতে না পেরে হা করে তাকিয়ে থাকতো। পথের পাচালীর মতো একটা নীম্নমানের বাংলা চলচ্চিত্র দেখেও সমালোচনা লিখতে পারতো না, দশম শ্রেণীর নোটবই থেকে নকল করে লিখতো, এমনই শোচনীয় ছিলো এদের জ্ঞান-বুদ্ধির অবস্থা।

এদের একমাত্র দক্ষতা ছিলো নীচতা,অসভ্যতা, যোগ্যদের হেয় করা আর প্রচন্ড পরশ্রীকারতায়।এরা এসবই করতো যোগ্যতায় ধারে-কাছে আসতে না পেরে হীনমণ্যতার কারণে ।

এদের আচরণ সম্পর্কে জানতে পেরে শিল্প নির্দেশনা শিক্ষক উত্তম গুহ একদিন শ্রেণীকক্ষে দীর্ঘসময় ধরে এদের বকাবকি করে বলেছিলেন, ‘‘মানুষকে হাসানো একটা ঐশ্বরিক গুণ আর দু:খ দেয়া বা কাদানো নোংরা নীচতা, যেটা সবাই পারে।’’
কিন্ত এদের কারনে হাসির কথা বলা যে বন্ধ করেছিলাম, এখনো সেটা থেকে মুক্ত হতে পারিনি। তাই এখন আর হাসির কিছু বলতে বা লিখতে পারিনা।

হাজার বছরের গোলামীর ফলে বাঙ্গালীর মানসিকতার যেসব ক্ষতিকর পরিবর্তন সাধিত হয়েছে, সেগুলির একটা হচ্ছে ভদ্রতা ও নম্রতাকে দূর্বলতা বলে ভাবে। তাই এরা শক্তের ভক্ত আর নরমের যম। এরা চাবুক পেটা খেলে ঠিক থাকে। অথচ ইউরোপ-এ্যামেরিকার রাষ্ট্রপতিরাও সবার সাথে হাসি-ঠাট্টা করে। ক্যানাডার প্রধানমন্ত্রী সেদিনও এক অনুষ্ঠানে পাঞ্জাবী ভাংড়া নাচ নেচেছেন। এজন্য কেউই তাদের ব্যাক্তিত্বহীন ভাবে না। Justin Trudeau Bhangra Dance

গত কয়েকমাস ধরে চেষ্টা করেও একটা হাসির নাটক লিখতে পারছি না।

ব্লগে লেখা পড়ে অনেকেই মনে করে খুবই নিরস এবং খুব রাগী একজন লেখক।

আমি রাগী ঠিকই কিন্ত সেটা শুধু অপরাধীদের বিরুদ্ধে। অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সেখানে পড়ার সময়ও সবসময়ই করেছি। এজন্য দুর্নীতিবাজ,মাদক ব্যবসায়ী এবং বিরাট সন্ত্রাসী দলের বিরুদ্ধেও একাই লড়তে হয়েছে। এরা এটা দেখেও অপরাধীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অংশ নেয়ার পরিবর্তে প্রকাশ্যে নিজেদের মীরজাফরের মতো বিশ্বাসঘাতক প্রমাণ করে সমর্থন করেছিলো এইসব সন্ত্রাসীদের।

কিন্ত এছাড়া সবসময়ই শান্ত ও কৌতুকপ্রিয় ছিলাম, যেটা এই সব নীচদের কারণে ছাড়তে হয়েছে।

এভাবেই অসভ্যরা সভ্য লোক এবং সভ্যতা -সবই নষ্ট করে., শুধু নিজেদের ব্যার্থতা ও অপদার্থতার কারণে।

মন্তব্য ৫৮ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (৫৮) মন্তব্য লিখুন

১| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ৩:৫৩

চাঁদগাজী বলেছেন:



আপনার বয়স কত?

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ৩:৫৪

অনল চৌধুরী বলেছেন: কতো হতে পারে?

২| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:০৭

কবিতা ক্থ্য বলেছেন: ভাই অনল,আপনাকে বলার মতো কিছু নেই।
আমার চাইতে আপনি বড়। শুধু বলবো- এদের নিয়েই এগুতে হবে। হয়তো কোনো দিন তারা তাদের ভুল বুঝবে।
সেই দিনের অপেক্ষায়...

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:০৯

অনল চৌধুরী বলেছেন: ধন্যবাদ।
কিন্ত এরা বড় ক্ষতি করেছে, যেটা না করলে ভালো কিছু সাহিত্য সৃষ্টি করতে পারতাম।

৩| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:১০

চাঁদগাজী বলেছেন:




আমি বুঝার চেষ্টা করছি, সবাই কেন আপনার খারাপ ব্যবহার করে?

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:১৪

অনল চৌধুরী বলেছেন: সেটা আপনার ভালো জানার কথা। কারণ আপনার বিরুদ্ধেও একসময় এখানে জঘণ্য আক্রমণ করেছিলো কিছু কীট।
যোগ্যদের হেয় করা চেষ্টা করা এদেশের বেশীররভাগ মানুষের বৈশিষ্ট।

৪| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:১৬

কবিতা ক্থ্য বলেছেন: আমার মনে হয় - আপনি এখনো সেই ক্ষমতা রাখেন।
বিশ্বাস করুন- এখনো খুব দেরি হয়ে যায়নি।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:২৬

অনল চৌধুরী বলেছেন: ঠিকই বলেছেন।
এবছর থেকেই পুরো দমে টিভি অনুষ্ঠান বানানোর কাজ শুরু করবো্। আর কয়েকটা ছবি বানাতেই হবে।
পূর্ব-পুরুষদের রক্তের ঋণ শোধের জন্য দেশ-জাতি পরিবর্তনের জন্য নিজের সব স্বার্থ ছেড়ে কতোটা করেছি, সেটা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে জানাতে হবে।
চিত্রনাট্য লেখা, অভিনয়, পরিচালনা- সব কিছু একাই করতে হবে।

৫| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:২৮

রামিসা রোজা বলেছেন:

মানুষকে হাসানো একটা ঐশ্বরিক গুণ আর দু:খ দেয়া বা কাদানো নোংরা নীচতা, যেটা সবাই পারে।’’-----
খুব দমীয় কথা ।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:২৯

অনল চৌধুরী বলেছেন: আমাদের শ্রদ্ধেয় শিক্ষক উত্তম গুহ স্যার বলেছেন।

৬| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:৩০

রামিসা রোজা বলেছেন:
এক নং মন্তব্য ও প্রতিমন্তব্য দুটো পড়েই হেসেছি ।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:১৯

অনল চৌধুরী বলেছেন: ধন্যবাদ।
ভবিষ্যতে আরো হাসানোর চেষ্টা করবো।

৭| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:৩১

কবিতা ক্থ্য বলেছেন: আপনার জন্য শুভ কামনা।

১৪ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ২:১৮

অনল চৌধুরী বলেছেন: ধন্যবাদ।

৮| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:৩৬

কবিতা ক্থ্য বলেছেন: জানি- আপনার কোনো সাহায্য দরকার নাই, তবু যোগাযোগ রাখলে খুশি হবো।
আশাকরি - আপনার উদ্দেশ্য পুরোন হোক।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:১৮

অনল চৌধুরী বলেছেন: প্রত্যেকটা মানুষ গুরুত্বপূর্ণ। কারণ কারো একার চেষ্টায় ভালো কিছু করা যায় না।
বিন্ত আপনার সাথে যোগাযোগের মাধ্যম কি সেটাতো বলেননি।

৯| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৫:৪৭

মিরোরডডল বলেছেন:



কে বলেছে অনল হাসাতে পারে না ! এই যে এই পোষ্ট পড়ে আমি কতো হাসলাম :)

এখানে বলা হয়েছে এদের সভ্য বানানোর জন্য অনলের লেখা বই দেয়া হয়েছে,
Isn’t it a super funny statement? =p~

দুঃখ ! সরকার কেনো ঘরে ঘরে এ বই পৌঁছে দিচ্ছে না, তাহলেইতো সব অসভ্যরা সভ্য হয়ে যায় :|
মানুষ কে সভ্য বানানো যদি এতো সহজ কর্ম হতো একজন লেখকের একটা বই পড়ে সভ্য হয়ে যাবে, তাহলে জাতি হিসেবে আমাদের কোথায় থাকার কথা এখন ?

পোষ্টে বলা হয়েছে কৌতুক প্রিয় ছিলো, নীচদের কারনে ছাড়তে হয়েছে ।
একজন মানুষের মাঝে যখন জেনুইননেস আর কনফিডেন্স থাকে, তখন পাছে লোকে কিছু বলে, হু কেয়ারস, সে তার নিজের মতো করেই চলে, পথচ্যুত হয়না ।

৪ নং প্রতিমন্তব্যে বলা হয়েছে চিত্রনাট্য লেখা, অভিনয়, পরিচালনা- সব কিছু একাই করতে হবে।
এই না হলে অনল, একের ভিতর বহুগুন :)

Cant wait to watch that movie one day.
Its very sad you don’t even know you’re a full package of fun :)

বাই দ্যা ওয়ে ইউ ক্যান ডিলিট মাই কমেন্ট অর ব্লক মি, নেভার মাইন্ড :)

গুড লাক ফর ইউর মুভি মেকিং !

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:০২

অনল চৌধুরী বলেছেন: শীত গরমে কিছু লোকের একটা অসুখ বৃদ্ধি পায়।
BLOCK AND BLACK LISTED

১০| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৫:৫৯

সোহানী বলেছেন: পথের পাঁচালী নিম্ন মানের বাংলা চলচিত্র?????

প্লিজ, এর থেকে ভালো কিছু একটা করে আমাকে জানাবেন। দরকার হলে প্লেনের টিকেট খরচ করে হলেও দেখতে আসবো।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ২:২৪

অনল চৌধুরী বলেছেন: পথের পাচালীর মতো একটা নীম্নমানের বাংলা চলচ্চিত্র -এই কথা বলে স্বাধীন মত প্রকাশ করাও ছিলো চলচ্চিত্র নিয়ে পড়ার সময় আমার সবচেয়ে বড় অপরাধের একটা।
কারণ জঙ্গীদের যেমন নির্দিষ্ট কিছু পূজনীয় ব্যাক্তি থাকে, সেরকম সত্যজিতও তোতাপাখির মতো শুনে শুনে ভক্তি দেখানো এইসব শিক্ষার্থীদের খুব প্রিয় পরিচালক ছিলেন, যার বিরুদ্ধে কথা শুনলে তারা ক্ষেপে যেতো।
পথের পাচালী দারিদ্রের নোংরা প্রদর্শনী ছাড়া কিছুই না। পৃথিবীর কোনো দেশের এধরণের ছবিকে ভালো ছবি বলা হয়নি শুধু ভারত আর বাংলাদেশ ছাড়া।https://www.somewhereinblog.net/blog/AnolChowdhury/30307173
জহির রায়হানের জীবন থেকে নেয়া' ( ১৯৭০) বাংলাদেশের আলোর মিছিলে-১৯৭৩, আবার তোরা মানুষ হ-১৯৭৩ এর চেয়ে অনেক ভালো ছবি।
চলচ্চিত্র নির্মাণের উদ্দেশ্য বিনোদন দেয়া অথবা সমাজ পরিবর্তনমূলক বক্তব্য প্রদান। দারিদ্রের প্রদর্শণী দেখানো কেোন চলচ্চিত্রের উদ্দেশ্য হতে পারে না।
পথের পাচালী কেনো ভালো ছবি , এ ব্যাপারে নিজে থেকে ১০ টা যুক্তি দেন। আর সব লেখককেই চলচ্চিত্র পরিচালক হতে হবে, এমন কোনো কথা নাই।

১১| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ৭:৪৬

সাসুম বলেছেন: পথের পাঁচালী নিম্ন মানের বাংলা চলচিত্র?

আলহামদুল্লিল্লাহ! আমরা বাংলার কুব্রিক ওরফে টারান্টিনো পেয়ে গেছি। শুধু সময়ের অপেক্ষা!

যাজাকাল্লাহ খায়রান

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:১০

অনল চৌধুরী বলেছেন: Click This Link
চলচ্চিত্রে বেগানা নারী-পুরুষের মেলামেশা দেখা যে নিষিদ্ধ, সেটা জানেন?

১২| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ৮:২০

অগ্নিবেশ বলেছেন: পথের পাঁচালী নিম্ন মানের বাংলা চলচিত্র? - অলনকা এই বিষয়ে একটা পোস্টান, আমরা আপ্নের গ্যানের ঝলক দেখপার চাই।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ২:২৭

অনল চৌধুরী বলেছেন: অনেকবার দিয়েছি। সেগুলি পড়েছেনও , কিন্ত ভুলে গেছেন। আবার পড়েন।https://www.somewhereinblog.net/blog/AnolChowdhury/30307173
আমাকে বাংলাদেশে আর কেউ কাগু সম্বোধন করেনি। শূনে আমিও হাসতে পারলাম।

১৩| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ১০:১৯

আল ইফরান বলেছেন: আপনি ঠিকই বলেছেন যে পথের পাচালি একটা নিম্নমানের ফালতু ছবি। আপনার পরিচালিত ছবির অপেক্ষায় রইলাম বস। B-)) =p~

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:১৩

অনল চৌধুরী বলেছেন: যতো ভালো ছবিই বানাক না কেনো, তোতাপাখিদের কাছে পথের পাচালী সেরা হবে।কারণ এটা তাদের মাথায় কুসংস্কারের মতো অন্ধভাবে গেথে গেছে, যেমন যায় জঙ্গীদের মাথায় জঙ্গীবাদ। Click This Link

১৪| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ১১:০২

কালো যাদুকর বলেছেন: পথের পাচালী অবশ্যই একটি উন্নত ও ক্যাসিক ঔপন্যাস এবং ছায় ছবি ৷
শুধু আমরা না অনেক শ্রেণীতে ( বিদেশেও ) দেখেছি, ভদ্রতাকে দুর্বলতা ভাবা হয় ৷

এর সাথে হাঁসানোর সম্পর্কটা পরিষ্কার হল না ৷

ধন্যবাদ

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:২২

অনল চৌধুরী বলেছেন: ধন্যবাদ। আপনার পথের পাচালী ভালো লেগেছে, আমার লাগেনি। তার যথেষ্ট কারণ বিভিন্ন লেখায় উল্লেখ করেছি।
আর লেখাটা আরেকবার পড়লে সব বুঝতে পারবেন। Click This Link
** হাসির কথা বলতাম , তাই ব্যাক্তিত্বহীন ভাবতো।

১৫| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ সকাল ১১:৪৮

মেহেদি_হাসান. বলেছেন: পথের পাঁচালী নিম্ন মানের মুভি কিনা সেটা আমরা জানি।
আপনার মুভির অপেক্ষায় রইলাম। বাংলা কোন মুভি অস্কার পেলে দেশের নাম হয়।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:০৫

অনল চৌধুরী বলেছেন: কোনো পুরস্কার দিয়ে কোনো চলচ্চিত্র বা সাহিত্যকর্মের শ্রেষ্ঠত্ব নির্ধারণ করা যায় না। নগীব মাগফুজ,নাদিম গর্ডিমাররা নোবেল পেলেও কোনোদনও টলষ্টয় বা নজরুলের পর্যায়ে যেতে পারবে না।

১৬| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ১২:১২

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: হাসানো কঠিন কাজ আবার কঠিন না । মানুষ ভাল কাজ বা উপকার পেলেও একটু হাসে।

যাদের কারণে আপনার ক্ষতি হয়েছে কাজ দিয়ে সেটা দেক্ষিয়ে দিন।

পোস্টের সাথে হাসির কোন সংযোগ পাওয়া গেলনা। পথের পচালী নিয়ে আপনার আরও গভীর পর্যবেক্ষণ দরকার।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ২:৩৩

অনল চৌধুরী বলেছেন: ধন্যবাদ। কাজের ক্ষতি শুধু এরা না, রাষ্ট্রীয়ভাবেও করা হয়েছে বইমেলায় অংশগ্রহণ বন্ধ করে। আমি টাকার জন্য লেখালেখি করিনা, করি দেশ জাতি পরিবর্তন করার জন্য।
বাংলাদেশের ৯৯.৯৯ শিক্ষিত দর্শকই পথের পাচালী ভক্ত। কিন্ত ভিন্নমতের প্রতিও শ্রদ্ধা থাকা দরকার,। কেনো এটার বিরুদ্ধে লিখছি।
পড়েন: Click This Link

১৭| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ১২:৩২

নেওয়াজ আলি বলেছেন: “এরা সবাই যদি গ্রামের নোংরা নর্দমা থেকে আসতো , তাহলে বলার কিছু ছিলো না।” ৬৮ হাজার গ্রাম নিয়ে বাংলাদেশ। তাই আপনাকেও কিছু বলার নাই। নিজের ঢোল নিজে বাজান। আরেকজন বগ্লারও আছে শুধু নিজের পরিবারের কথা লিখে।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:০০

অনল চৌধুরী বলেছেন: এ ব্যাপারে একটা লেখা দিয়ে বিস্তারিত লিখতে হবে। না হলে আপনার ভুল ধারণার অবসান হবে না। গ্রাম আর গ্রাম্য নোংরামী এক জিনিস না।
গ্রামে থাকলেই যদি সবাই নোংরা হতো, তাহলে শহরে থাকলেও সবাই সভ্য আর ভদ্র হতো। ১৪ পুরুষ ধরে শহরে থেকেও যারা পরশ্রীকাতরতা, দলাদলি, পরচর্চা,পরনিন্দার উর্ধে উঠতে পারে না, তারাও নোংরা গ্রাম্য সংস্কৃতি বহন করে।
আমাদের অনেকের পূর্ব পূরুষরা আরব, ইরান,ইরাক,তুরস্ক, আফগানিস্তান থেকে আসলেও তাদের বেশীরভাগই প্রথম গ্রামেই বসবাস শুরু করেছিলেন।
সুতরাং ব্যাক্তিগতভাবে নিয়ে ভুল ধারণা করবেন না।

১৮| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ১২:৪০

আতিকুররহমান আতিক বলেছেন: পথের পাঁচালী নিম্নমানের মুভি কথাটা অত্যন্ত সাহসী ও প্রজ্ঞাপূর্ণ । আমার কাছে ভালো লেগেছে। কারন আশা করা যায় নিকট ভবিষ্যতে আমরা আপনার কাছ থেকে আরো অনেক উন্নত মানের চলচ্চিত্র পাবো। যা আমাদের বাংলা সিনেমার ভান্ডার সমৃদ্ধ করবে। আপনার জন্য শুভ কামনা। আপনি মুভি বানিয়ে যদি ব্লগে পোস্ট দিয়ে একটু কষ্ট করে কনফার্ম করেন নিশ্চয় চেষ্টা করব মুভিটা দেখার।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ২:৫২

অনল চৌধুরী বলেছেন: ধন্যবাদ একমাত্র আপনারও ভিন্ন মত গ্রহণ করা মানসিকতা আছে। কিন্ত যে যতো ভালো ছবিই বানাক না কেনো, তোতাপাখিদের কাছে পথের পাচালী সেরা হবে।কারণ এটা তাদের মাথায় কুসংস্কারের মতো অন্ধভাবে গেথে গেছে, যেমন যায় জঙ্গীদের মাথায় জঙ্গীবাদ।

১৯| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ১:০২

ঢাবিয়ান বলেছেন: রকমারীতে আপনার লেখা অনেক বই আছে দেখলাম। এই দেশে এখন বাপের টাকায় বসে খাওয়া বেকারের সংখ্যা অনেক। এরাই এখন এই দেশের কবি সাহিত্যিক, জাতির বিবেক!!! ভদ্রতা সভ্যতার সংজ্ঞা এদের বই পড়ে শিখতে হবে!!!

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ২:৪০

অনল চৌধুরী বলেছেন: যার অনেক বই আছে,সেগুলি তো অনেক বিক্রিও হয়। আর কেউ যদি নিজের পিতার টাকায় জমিদারী করে টলষ্টয়ের মতো দেশের সেবা করে, তাতে অন্যের সমস্যা কোথায়?
আমার উপর হঠাৎ ক্ষোভের কারণ কি?

২০| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ১:৪৯

ডার্ক ম্যান বলেছেন: আপনি একা একা কোন ভাল কিছু করতে পারবেন না । আপনাকে অনেক সহনশীল হতে হবে । যে সহে সে টিকে রহে, এটা সবসময় মাথায় রাখবেন ।
আপনি প্রথমে শর্ট ফিল্ম বানান। আর ইতিমধ্যে যদি বানিয়ে থাকেন তাহলে লিঙ্ক দিন । আর সিনেমাতে আমি অধমরে চান্স দিয়েন।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:১০

অনল চৌধুরী বলেছেন: ধন্যবাদ।
যথেষ্ট কারণ না থাকলে কারো উপর কখনো রাগ করিনা। ১০ আ র১৪ নম্বর মন্তব্যকারীকে দন্ডবিধির ৫০৪ ধারা অনুযায়ী শাস্তি দেয়ার ক্ষমতা দেশের আইন আমাকে দেয়। লেখার ব্যাপারে করে সন্তব্য না করে এই ফাজিলে ইচড়ে-পাকার একমাত্র কাজই বড়দের সাথে অভদ্রতা করা, যে ব্যাপারে একে অনেকবার সতর্ক করেছি। ব্লগও এর বিরুদ্ধে কোনো ব্যাবস্থা নেয় না।
আমি কাজ শুরু করলে অপনি অবশ্যই থাকবেন।
আগে কি অভিনয় বা থিয়েটার করেছেন?
আর না করলেও সমস্যা নাই।

২১| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ২:৫৪

রাজীব নুর বলেছেন: হাসির নাটক লেখা খুব কঠিন কিছু না।
সহজ ভাবে লিখবেন। তাহলেই হয়ে যাবে।

আমি মানুষকে খুব হাসাতে পারি।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:১১

অনল চৌধুরী বলেছেন: তাহলে নাটক লেখা শুরু করেন। যৌথ প্রযোজনায় বানানোর পর বিক্রি করলে আপনার বেকারত্বেরও অবসান হবে।

২২| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ২:৫৯

রাজীব নুর বলেছেন: মানুষকে নাটক দিয়ে হাসানোর ওস্তাদ ছিলেন আমার বস হুমায়ূ আহমেদ।

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:০৮

অনল চৌধুরী বলেছেন: টিভি নাটকে বাংলাদেশে আর কেউ তার কাছে পৌছাতে পারেননি।
বহুব্রীহি দেখেন।
যদিও তার কথার সাথে কাজের মিল ছিলো না।

২৩| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৩:৫৩

ঢাবিয়ান বলেছেন: আপনি চলচিত্র নিয়ে পড়াশোনা করেছেন অথচ চলচিত্রের রিভিউ কিভাবে লেখে তাই জানেন না। পথের পাচালি ও সত্যজিত রায়কে ক্রিটিসাইজ করতে যেয়ে আপনি যেসব শব্দ ব্যবহার করেছেন তা কোন অবস্থাতেই গ্রহনযোগ্য নয়। হেইট স্পীচ ও ফ্রিডম অভ স্পীচ এর সংজ্ঞাই আপনার জানা নাই আর আপনি এসেছেন অন্যদেরকে সভ্যতার জ্ঞান দিতে!!

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ১০:২৬

অনল চৌধুরী বলেছেন: ২১ বছর চলচ্চিত্র নিয়ে পড়াশোনা - গবেষণা করে, এই বিষয়ে অসংখ্য লেখার পর এখন আপনি যদি আমাকে চলচ্চিত্র শেখাতে আসেন , তাহলে সেটা গুরুমারা বিদ্যা হবে।
সত্যজিত রায় সম্পর্কে আমি জীবনে কোনো বাজে কথা বলিনি। কিন্ত পথের পাচালীকে সারাজীবনই আবর্জনা বলেছি আর বলবো।

২৪| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:৩৮

জুন বলেছেন: আপনি কি লিখেছেন এইসব ! আমিতো হাসতে হাসতে শ্যাষ :`>

১৪ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৪:৪২

অনল চৌধুরী বলেছেন: ধন্যবাদ। আপনি যখন বলছেন, তখন আবারো হাসানো শুরু হবে। তবে একইসাথে অপরাধীদেরও শাস্তি দেয়াও অব্যহত থাকবে।

২৫| ১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ৮:১৩

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অন্তরের অন্তঃস্থল ও বহিঃস্থল থেকে আপনাকে অভিবাদন প্রিয় অনল ভাই। পোস্ট পড়ে অনেক হাসলাম। জীবনে এত হাসার সুযোগ কদাচিৎ পেয়েছি। আপনি সমস্যার মূলে বেত্রাঘাত করেছেন- আসলেই, সবাই হাসাতে পারে না। এটা একটা ঐশ্বরিক গুণ।

আপনার হাত হোক প্রতিবাদের হাত
সমস্যার মূলে করুন সজোরে বেত্রাঘাত
আপনার সাথে আমরাও হাঁটবো পাশাপাশি
একদিন আপনার মুখে ফুটবেই বিজয়ের হাসি

শুভেচ্ছা রইল

১৩ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ১০:৩০

অনল চৌধুরী বলেছেন: ধন্যবাদ সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই ভাই্
আপনার সমর্থন যখন পাওয়া গেছে, তখন মনে হয়,দৃশ্যমান গণমাধ্যমে ভালো কিছু করতে পারবো, যেটা নিয়ে গত ২১ বছর ধরে পড়াশোনা করছি।

২৬| ১৪ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ১২:০২

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: তাহলে নাটক লেখা শুরু করেন। যৌথ প্রযোজনায় বানানোর পর বিক্রি করলে আপনার বেকারত্বেরও অবসান হবে।

সত্যিই কি আর আমার এত প্রতিভা আছে? নাই।

১৪ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ২:০৯

অনল চৌধুরী বলেছেন: চেষ্টা করলে অবশ্যই পারবেন। ব্লগে যেসব গল্প লেখেন সেগুলি নিয়েই তো নাটক বানানো যায়।

২৭| ১৪ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ১২:০৬

রাজীব নুর বলেছেন: লেখক বলেছেন: টিভি নাটকে বাংলাদেশে আর কেউ তার কাছে পৌছাতে পারেননি।
বহুব্রীহি দেখেন।
যদিও তার কথার সাথে কাজের মিল ছিলো না।

শুধু বহুব্রীহি না, আমি তার সমস্ত নাটকই দেখি। প্রতিদিন দেখি। দেখতে দেখতে মূখস্ত।

১৪ ই জানুয়ারি, ২০২১ রাত ২:০৭

অনল চৌধুরী বলেছেন: এখানকার সব বিজ্ঞ ব্লগার জানেন যে আমি কারো পক্ষে বা বিপক্ষে বা ব্যাক্তিগত কারণে কাউকে ভালো বা খারাপ বলি না। সবসময় যেটা সত্য সেটাই বলি।
হুমায়নের নাটকে ছাড়িয়ে যাওয়ার মতো কোনো নাট্যকার এখনো টিভিতে দেখা যায়নি। এরকম অনেকেই হয়তো আছেন কিন্ত তারা পরিচিতির বাইরে।

২৮| ১৪ ই জানুয়ারি, ২০২১ বিকাল ৪:৫০

ডার্ক ম্যান বলেছেন: কখনো অভিনয় করি নি। বছর দুয়েক আগে একজনের কাছে স্ক্রীপ্ট লেখার কলাকৌশল শিখতে চেয়েছিলাম। তিনি আমাকে মাসখানেক ঘুরিয়ে না করেছেন।
চট্টগ্রামে আসলে কাজ শেখানোর মত লোক নাই।

১৮ ই জানুয়ারি, ২০২১ ভোর ৪:৪৩

অনল চৌধুরী বলেছেন: নিজে চেষ্টা করলে যেকেউ অভিনেতা হতে পারে। আর ব্লগে যখন লেখেন, পান্ডুলিপি লেখাও কঠিন হবে না।
দৃশ্য নম্বর:
অভিনেতাদের নাম:
স্থান:
সময়:
সংলাপ:
এভাবে ছক লিখে গল্প লিখতে শুরু করবেন, যেভাবে বিভিন্ন নাটকে পড়েছেন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.