নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

সাহসী সত্য।এই নষ্ট দেশ-জাতি-সমাজ পরিবর্তনের প্রচেষ্টাকারী একজন যোদ্ধা।বাংলাদেশে পর্বত আরোহণের পথিকৃত।

অনল চৌধুরী

লেখক,সাংবাদিক,গবেষক,অনুবাদক,দার্শনিক,তাত্ত্বিক,সমাজ সংস্কারক,শিক্ষক ও সব অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী যোদ্ধা

অনল চৌধুরী › বিস্তারিত পোস্টঃ

কার্যকর আইনের অভাবে ইচ্ছামতো জিনিসপত্রে দাম বাড়ানো হয়

১৬ ই মে, ২০২১ রাত ৩:৪৬


২০১১ সালে অক্টোবর থেকে বার সাবানের পরিবর্তে তরল সাবান ব্যবহার করি।

এর ফলে অপচয় কম হয় আর গোসলও ভালো হয়। কিন্ত তারপরও হাত এবং কিছু ‍ধোয়ার জন্য সাবান লাগেই।

কয়েকদিন আগে বাজারে লাক্স ১০০ গ্রাম সাবান কিনতে দেখি দাম বেড়ে হয়েছে ৩৮ টাকা, যা মাত্র কিছূ দিন আগেও ছিলো ৩৫ টাকা।

এভাবে দাম বাড়িয়ে ইউনিলিভার প্রতিদিন লাখ লাখ টাকা আর প্রতিমাসে কোটি টাকা ব্যাবসা করছে।


এধরনের দাম বাড়ানোর আগে তারা কি কারে অনুমতি নিয়েছে কিনা বা এভাবে দাম বাড়ানো ভোক্তা অধিকারের বিরোধী কিনা- সে ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের বক্তব্য জানা প্রয়োজন।

বাংলাদেশের ব্যাবসায়ীরা ইচ্ছা হলেই বিশ্ববাজারে দাম বাড়ার কথা বলে বা কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে বা অন্য যেকোন অজুহাতে চাল-ডাল-তেলসহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে দেয়। এমনকি আগে আমদানীকৃত দ্রব্যের দামও বাড়ানো হয়।

দ্রব্য ও পণ্যমূল্য বাড়নোর একটা নীতিমালা তৈরী এবং সেটা কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন।

মন্তব্য ১২ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (১২) মন্তব্য লিখুন

১| ১৬ ই মে, ২০২১ ভোর ৪:৫৬

সোহানী বলেছেন: দেশে দাম বাড়ানো নিয়ে যেন কারোই মাথা ব্যাথা নেই, আইন নেই, নিয়ম নেই, প্রতিবাদ নেই। যখন খুশি বাড়াতে পারে। আর ভোক্তাও সেটা মেনে নেয় সহজে। এভাবে তো চলা উচিত নয়। প্রতিরোধ করা উচিত।

১৬ ই মে, ২০২১ ভোর ৫:৩৫

অনল চৌধুরী বলেছেন: বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা সোজা একটা জিনিস বোঝে না যে, চালের দাম বাড়ালেও তেলের দামও বাড়বে এবং তাদের বেশী দামেই সেটা কিনতে হবে।

আর ইউনিলিভার তো বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান।
এদের কাজই তো আইনের শাসনহীন দেশে ব্যবসার নামে ডাকাতি করা।

২| ১৬ ই মে, ২০২১ সকাল ৯:১৪

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
ব্যক্তিগত সততাও একটি ব্যাপার।
আমরা সৎ নাই।

১৬ ই মে, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৪৭

অনল চৌধুরী বলেছেন: আপনি দেখেছেন, মালয়শিয়া একটা পুজিবাদী রাষ্ট্র হলেও দেশী-বিদেশী সব প্রতিষ্ঠান সেখানে কিভাবে আইন ও নৈতিকতার মধ্যে থেকে ব্যাবসা করে লাভবান হচ্ছে।
কিন্ত বাংলাদেশে সততা, নীতি বা আইন -কিছুই নাই।

৩| ১৬ ই মে, ২০২১ সকাল ১০:৩৭

খায়রুল আহসান বলেছেন: আপনার শেষ কথাটার সাথে আমি একমত। এ ব্যাপারে ভোক্তাদেরও সজাগ থাকতে হবে।
মুনাফালোভী বহুজাতিক কোম্পানীগুলোর পণ্যসামগ্রী ক্রয় না করে (গুণগত মানের তারতম্য খুব বেশি না হলে) দেশীয় কোম্পানীগুলোর পণ্য ক্রয়ের ব্যাপারে মনযোগী হওয়া উচিত বলে মনে করি।

১৬ ই মে, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৫৪

অনল চৌধুরী বলেছেন: এধরণের অযৌক্তিক মূল্যবৃদ্ধির ব্যাপারে ক্রেতাদের প্রতিবাদ জানানো উচিত।
উৎসবের সময়ে সারা পৃথিবীতে জিনিসপত্রের দাম কমানো হলেও শুধু বাংলাদেশেই বাড়ানো হয়।
আর বৃটিশ ইউনিলিভার মার্কা এইসব বিদেশী প্রতিষ্ঠান তো ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর মতো ডাকাতি করতেই এদেশে এসেছে।

৪| ১৬ ই মে, ২০২১ দুপুর ১২:১৮

জটিল ভাই বলেছেন: আইন....
শব্দটা ভেরি ফাইন!!!

১৬ ই মে, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৫২

অনল চৌধুরী বলেছেন: জনগণ নিজেরা আইন মানে না, তাই আইন ভঙ্গের প্রতিবাদও করেতে পারেনা।

৫| ১৬ ই মে, ২০২১ দুপুর ১২:১৯

রাজীব নুর বলেছেন: এই রমজানে অনেক কিছুর দাম বেড়েছে।
পাউরুটি, মিল্কভিটা দুধ-দই। সাবান। তেল। ইত্যাদি। সরকার মনে হয় এসব জানে না। বা এসব নিয়ে তাদের মাথা ব্যথা নেই। তাই ব্যবসায়িরা এই সুযোগ টা নেয়। সাধারণ মানুষের দফারফা।

১৬ ই মে, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৫৩

অনল চৌধুরী বলেছেন: উৎসবের সময়ে সারা পৃথিবীতে জিনিসপত্রের দাম কমানো হলেও শুধূ বাংলাদেশেই বাড়ানো হয়।
অথচ এসবের ব্যবসায়ীরা ধার্মিকের বেশ ধরে দোকানে বসে আছে।

৬| ১৭ ই মে, ২০২১ রাত ৩:৩৫

রাজীব নুর বলেছেন: সরকারী প্রতিষ্ঠান - এটলাস হোন্ডা, সোড ব্লেড, ন্যাশনাল টিউবস, মিল্ক ভিটা ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানের খবর কিছু জানেন

১৭ ই মে, ২০২১ রাত ৩:৪৯

অনল চৌধুরী বলেছেন: না। তবে দাম বাড়ানোতে কেউই কম যায় না।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.