নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

হেথা নয়, অন্য কোথা, অন্য কোনও খানে।

অর্ক

মানুষের উল্টোদিকের ছবি তুলতে তুলতে ভাবি/ একদিন এই জুনে পাঠিয়েছিলে চিঠি/ জঙধরা লাল বাক্স অচল পড়ে সেই থেকে/ তুমি দাঁড়াও না ঝুল বারান্দায় সেদিনের মতো

অর্ক › বিস্তারিত পোস্টঃ

ওপার বাংলার শিয়ালদহ রেল স্টেশনের বিশ রুপির নুডলস

১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ৯:২৮



ওপার বাংলার শিয়ালদহ রেল স্টেশনের পাশে ছোটো একটি স্ট্রিট ফুড শপের নুডলস (চাওমিন)। ২০১৮ সাল। তখন এর মূল্য ছিলো বিশ রুপি। সেবার যতোদিন ছিলাম, প্রায় প্রতিদিনই সন্ধ্যা বা রাতে একবার হলেও ওখানে খেতাম। প্রিয় খাবার। স্টেশনে ওঠার সিঁড়ির মুখেই টিন শেডের ছোটো দোকানটা। নুডলসটা খেতে ভারি সুস্বাদু এবং পরিমানেও পেট ভরার জন্য যথেষ্ট। খুবই সাধারণভাবে রান্না হয়। সিদ্ধ নুডলস মশলা লবন পেঁয়াজ শসা গাজর দিয়ে তেলে ভেজে পরিবেশন করা হয়। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, এতে ভালো পরিমাণে শসা গাজর আছে। পুষ্টিকর বলতেই পারি। ওয়ান টাইমার প্লেটে ওয়ান টাইমার চামচসহ পরিবেশিত হয়। দারুণ উপভোগ্য। সন্ধ্যার পর থেকে মাঝরাত অব্দি দেদার বিক্রি হয় নুডলস, ভেজিটেবল রোল ও অন্যান্য দুয়েকটি খাবার। ওখানে এরকম আরও ছোটো ছোটো দোকান ও ভ্রাম্যমাণ খাবার ব্যবস্থা আছে। ওই বিশেষ দোকানের এই নুডলসটাই সবচে’ ভালো লেগেছিল। মধুর স্মৃতি হয়ে আছে।

মন্তব্য ১২ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (১২) মন্তব্য লিখুন

১| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ৯:৫৯

কবিতা পড়ার প্রহর বলেছেন: মশল্লাদার ইয়াম্মি ইয়ামী চাওমিন।

বুঝাই যাচ্ছে।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:৫৬

অর্ক বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ।

২| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:৫১

শেরজা তপন বলেছেন: ভারতের সবখানেই কিছু স্ট্রিট ফুড স্বাদে অনন্য ও দামেও বেশ সস্তা!

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:১০

অর্ক বলেছেন: ঠিক বলেছেন। কোলকাতা মুম্বাই দুটো শহরেই স্ট্রিট ফুডের জয়জয়কার।

ধন্যবাদ ভাই।

৩| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:০৮

কামাল১৮ বলেছেন: ট্রেন মিস করে কতোদিন শিয়াদা স্টেশনে বহু সময় কাটিয়েছে।অনেক স্মৃতি আছে শিয়ালদা স্টেশনে অতটা স্মৃতি কমলাপুর স্টেশনেও নেই যদিও আমাদের বাসা থেকে কমলাপুর এক মিনিটের পথ।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:০৭

অর্ক বলেছেন: ভালো লাগলো জেনে। আমার আবার হাওড়া স্টেশন ভালো লাগে। ভোরের ট্রেনে দীঘা বর্ধমান যেতে ওখানে রাতে অবস্থানও করেছি। হাজারো স্মৃতি।

ধন্যবাদ।

৪| ১১ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:২০

*আলবার্ট আইনস্টাইন* বলেছেন: কোলকাতায় শালপাতা দিয়ে তৈরি বাটিতে নুডুলস, ঝালমুড়ি, লুচি-পরোটা-ডাল বিক্রি হয়। এই খাবারগুলো মুখরোচক ও কমদামে পাওয়া যায় বলে জনগনের ভিড় লেগে থাকে। জোড়াসাঁকো, ঠাকুরপুকুর এলাকাগুলোতে দোকানিরা ইনস্ট্যান্ট এক ধরনের নুডুলস বানায়- গরম ও সুস্বাদু। শিয়ালদহ রেল টার্মিনালের আশেপাশে এইসব খাবার এভেইলেবল।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:১২

অর্ক বলেছেন: আপনি তো ভালো জানেন দেখছি। কোলকাতা স্ট্রিট ফুডের ওপর দারুণভাবে নির্ভরশীল শহর। বিশেষ করে ওল্ড কোলকাতা তো স্ট্রিট ফুড ছাড়া ভাবাই যায় না।

ধন্যবাদ।

৫| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:১০

সোহানী বলেছেন: সব দেশেই স্ট্রিট ফুড একটা আর্ট। এবং জনপ্রিয়। তবে দেশে থাকতে স্ট্রিট ফুড নিয়ে যে ভয় ঢুকে গেছে মাথায় এখনো সেখান থেকে বের হতে পারিনি। তাই দেশের বাইরে যেখানেই যাই কিছু না পেলে ম্যাকই ভরসা।

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ দুপুর ১২:১৩

অর্ক বলেছেন: যাহ, অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন নাকি! হা হা হা। এখন এখানেও স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে রান্না করা ভালো স্ট্রিট ফুড পাওয়া যাচ্ছে।

মুম্বাইয়ে ম্যাকডোনাল্ডে বিভিন্ন বার্গার খেয়েছি। আন্ধেরিতে ওদের রেস্টুরেন্টেও যেতাম। বার্গার কফি খেতাম। আমি দারুণরকম হতাশ। উচ্চমূল্য, অল্প পরিমাণ, স্বাদহীন (ঝাল লবনের ঘাটতি)। তবে হ্যা খাবারগুলো দেখতে সুন্দর ও স্বাস্থ্যকর।

ধন্যবাদ।

৬| ১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:৫১

স্বামী বিশুদ্ধানন্দ বলেছেন: আমাদের প্রতিবেশী দুটো দেশেই (ভারত ও মিয়ানমার) খাদ্য ও নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম অনেকটা সস্তা। বাংলাদেশে এতো আকাশচুম্বী কেন ?

১২ ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ সকাল ১১:৫৫

অর্ক বলেছেন: আমাদের দেশের মানুষের সীমাহীন লোভ, সীমাহীন চাহিদা। ভারতীয়রা যে খুব এগিয়ে তা নয়। মায়ানমারের মানুষ পৃথিবীর সবচেয়ে সভ্য সৎ সজ্জন ভালো মানুষ। ওরা তাদের নারীদের যে সম্মান করে, সে পর্যায়ে বাংলাদেশ বা পাকিস্তান আমার জীবিতকালে যেতে পারবে না। আগামী পাঁচশ বছরেও যেতে পারবে না।

ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.