নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

মিরোরডডল

মিরোরডডল › বিস্তারিত পোস্টঃ

সাচুর জিন পোষ্টের রেফারেন্সে একটা কমেন্ট

১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১০:৩৮


সাচুর পোষ্টের রেফারেন্সে একটা ব্যাক্তিগত অভিজ্ঞতা শেয়ার করছি । আগেই বলে নিচ্ছি কোনও প্রশ্নের উত্তর আমার জানা নেই, কোনও এক্সপ্লেনেশন নেই । যেটা হয়েছে সেই ফ্যাক্টটা শেয়ার করছি ।

আমার একটা স্বভাব হচ্ছে ঘুমের সময় মাস্ট বেডরুমের দরজা বন্ধ করি ইভেন বাসায় কেউ নেই । একরাতে ঘুমাতে যাবো, ঠিক তখন বাইরে সুইচ অফ অন হচ্ছে । খুলে চেক করলাম । অল গুড । আবার ভেতরে এসে দরজা বন্ধ করলেই এটা হচ্ছে । তারপর এভাবে চলতে থাকলো । এটা শুরু হয় লেট নাইটে । একথা জানার পর ফ্রেন্ডসরা এসে বসে থাকে যদি এরকম হয় । কিছুই হয়না ১২/১ টা বেজে যায় । যেই ওরা চলে যাবে তখন শুরু হবে । দুটা আড়াইটা তিনটা বেজে যায় একটু পর পর হতেই থাকে । বাধ্য হয়েই দরজা খুলে রাখি । যেহেতু অভ্যাস তাই মনের ভুলেই অনেক সময় বন্ধ করে দেই, যখনই বন্ধ করছি তখনি আবার করবে । যদি দরজা একটু খুলে রাখি পাশের বেডরুমে সুইচ অফ অন হচ্ছে ।

রাত জেগে বসে থাকি ঘুমাতে পারিনা । অফিসে লেট করে যাই কারণ ভোরের আলো হলে ঘুমাই । বাসায় বলতে পারিনা মা জানলে টেনশন করবে ।তখন ঢাকার ফ্রেন্ডসরা ফোনে থাকে আমার সাথে । যেহেতু ৫ ঘণ্টার টাইম ডিফারেন্স ওরা জেগেই থাকে । এভাবে চলল ফিউ ডেইজ । ঘুমাতে না পেরে আমি সিক হয়ে যাচ্ছিলাম ।

সবাই নানারকম পরামর্শ দিচ্ছে । ফাইনালি সিডনির একটা বড় মস্কের ইমামের সাথে কন্টাক্ট করি । উনি আসলেন সাথে আমার ফ্রেন্ডস আসলো দুজন । আমার এসব বিষয়ে নলেজ জিরো । উনি কি পড়লেন আমি জানিনা, আমাকে একটা কাগজে হ্যান্ড রিটেন এরাবিক কিছু একটা লিখে দিয়ে গেলেন, বললেন এটা বাসায় রাখতে, সেটা কি আমি তাও জানিনা । অনলি ওয়ান থিং আই নো, সেইরাত থেকে এখন পর্যন্ত আর হয়নি কখনও ।

এটা সবচেয়ে ছোট আর সিম্পল ঘটনা, বাকি তিনটা বড় ঘটনা না হয় আরেক সময় লিখবো । আসলেই অনেক সময় কিছু ঘটনা ঘটে যার কোনও এক্সপ্লেনেশন নেই ।


মন্তব্য ৬৫ টি রেটিং +৬/-০

মন্তব্য (৬৫) মন্তব্য লিখুন

১| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১০:৪৯

মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেছেন:
ঘটনা মারাত্বক।

১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:০০

মিরোরডডল বলেছেন:

মারাত্মক কিনা জানিনা কিন্তু অস্বস্তিকর । থ্যাংক ইউ ।

২| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:০২

লরুজন বলেছেন: আইজকা আমার আর ঘুম অইতনা
আমি ডরাইতাছি






১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:১৪

মিরোরডডল বলেছেন:


পিপল মে স্কেয়ারড টু সি ইউ কজ ইউ আর আ ঘোস্ট :|

৩| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:০৫

খায়রুল আহসান বলেছেন: আমার এক মামার বাড়ীতে এরকম জ্বীনের অত্যাচার চলতো বলে মামীর মুখে শুনেছি। আপনারটাওতো নিজস্ব অভিজ্ঞতা, সুতরাং এটাকে তো বিশ্বাস করতেই হবে।
শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:১৭

মিরোরডডল বলেছেন:

এগেইন আই হ্যাভ টু সে , আমি জানিনা এটা কি হয়েছিলো ।
এটুকু জানি স্বাভাবিক কিছু না । সামথিং রং । থ্যাংক ইউ ।

৪| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:০৭

সাড়ে চুয়াত্তর বলেছেন: আসলে আমি এধরনের ঘটনা আগেও শুনেছি। আর আমি যেহেতু জীন বিশ্বাস করি তাই আশ্চর্য হইনি। তবে ঘটনাটা সত্যিই মনে দাগ কাটে। বাকি ঘটনা গুলি পরে কখনও বলবেন আমাদের। আমার খুব আগ্রহ হচ্ছে। তবে আপনার জন্য একটা টিপস দেই। সেটা হোল কোরআনের তেলাওয়াত করলে আপনি ১০০% নিরাপদ থাকবেন। আর আল্লাহর উপর পুরো ভরসা রাখবেন। আপনার কোনও সমস্যা হবে না ইনশাল্লাহ। আপনার ঘটনাটা অনেকে বিশ্বাস করবে না। তারা আপনার মানসিক অবস্থাকে দায়ী করবে। আসলে বিশ্বাস না করলে কিছু করার নাই। আপনি বন্ধু-বান্ধবের সাথে সময় কাটিয়ে মন হল্কা রাখবেন। আমি একা থাকতে পারি না। ধন্যবাদ একটা অদ্ভুত ঘটনা আমাদের বলার জন্য।

১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৩০

মিরোরডডল বলেছেন:



রেকর্ড করে রেখেছিলাম । অফিসের বস, কলি্‌ ফ্রেন্ডস সবাই শুনেছিল । অফিস তখন সাপোর্ট দিয়েছিল অনেক । ১০/১১ টায় অফিসে যেতাম যেহেতু ভোর বেলায় ঘুমাতাম ।

ইউ আর রাইট, আমি নিজেও জানি অনেকেই বলবে মেন্টাল । হা হা হা...
ইটস ওকে । বিশ্বাস না করাটাও স্বাভাবিক । ঐযে সেদিন বললাম । যার যার বিশ্বাস তার তার । ইন ফ্যাক্ট আমি নিজেও হয়তো শুনলে কনভিন্সড হতাম না । নিজের হওয়ায় বুঝতে পারছি । থ্যাংক ইউ । বাকিগুলো শেয়ার করবো সুন ।

৫| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:১১

নতুন নকিব বলেছেন:



আপনার অভিজ্ঞতা রয়েছে তাহলে! আসলে জিন যে আছে, জিনেরাও যে আমাদেরই মত ভিন্ন একটি জাতি- এটা কুরআনের স্পষ্ট ভাষ্য। মুসলিম হলে তাকে জিনের অস্তিত্বে বিশ্বাসী হতেই হবে। অন্যথায় তার ঈমান থাকবে না।

বড় ঘটনাগুলোও পরে জানাবেন আশা করি।

ভালো থাকার প্রার্থনা।

১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৩৭

মিরোরডডল বলেছেন:

আমি বেসিক্যালি লজিক্যাল । যুক্তি না পেলে কনভিন্সড হইনা । কিন্তু এ ঘটনা থেকে আমার রিয়ালাইজেশন এটাই যে অনেক সময় অনেক কিছু ঘটে লাইফে , সব সময় সবকিছুর ব্যাখ্যা হয় না । অনেকই থ্যাংকস আপনাকে ।

৬| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:২০

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

আশ্চর্য হলেও সত্য যে জিনরা মানবদেহের শিরা-উপশিরায় বিচরণ করতে পারে।
এমনকি মানুষের জ্ঞানবুদ্ধির ওপরও প্রভাব ফেলে তাকে বিকারগ্রস্তও করে ফেলতে পারে।
পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘যারা সুদ খায় তারা কিয়ামতের দিন এমন অবস্থায় দণ্ডায়মান হবে,
যেমন শয়তানের আছর (কুপ্রভাব) কাউকে বিকারগ্রস্ত করে ফেলে।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ২৭৫)

পবিত্র কালামে পাকে জিন ও শয়তানের উদ্দেশে মহান আল্লাহ ইরশাদ করেন, ‘যারা আমার একনিষ্ঠ বান্দা,
তাদের প্রতি তোমার কোনো প্রভাব কার্যকর হবে না।’ (সুরা : হিজর, আয়াত : ৪৩)

তাই দেখা যায়, ধর্মীয় ব্যাপারে উদাসীন লোকেরাই জিন ও শয়তানের কুপ্রভাব ও কুমন্ত্রণার শিকার হয়ে থাকে।
হাদিসে পাকে বর্ণিত হয়েছে, টয়লেটে প্রবেশের দোয়া পাঠ না করলে দুষ্ট জিনরা তার গোপনাঙ্গ নিয়ে খেলা করে।
অনুরূপ খাদ্য গ্রহণের শুরুতে ‘বিসমিল্লাহ’ না পড়লে খারাপ জিন তার খাদ্যে অংশগ্রহণ করে।
মহান আল্লাহ আমাদের জিন ও শয়তানের কুপ্রভাব থেকে হেফাজত করুন। আমিন।

১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৪৭

মিরোরডডল বলেছেন:



তাই দেখা যায়, ধর্মীয় ব্যাপারে উদাসীন লোকেরাই জিন ও শয়তানের কুপ্রভাব ও কুমন্ত্রণার শিকার হয়ে থাকে।

আপনার স্টেটমেন্ট অনুযায়ী আমি উদাসীন তাই আমাকে টার্গেট করেছে । হা হা হা .....
হতে পারে, হু নোজ ।
ফান করলাম :)
অনেক থ্যাংকস মন্তব্যের জন্য ।

৭| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:২২

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: অনেক ঘটনাই ব্যাখ্যার অতীত। কেউ কেউ হয়ত ব্যাখ্যা বের করবেন, যেমন আমি নিজেও ভাবছিলাম- দরজা লাগানোর সাথে সুইচ বোর্ডের উপর কোনো প্রেশার পড়ে অন/অফ হওয়ার সুযোগ আছে কিনা, ইত্যাদি। কিন্তু বন্ধুবান্ধবের উপস্থিতিতে এটা হচ্ছে না কেন, সেখানেই আর ব্যাখ্যা থাকে না।

আমার জীবনেও এমন একটা ঘটনা আছে, যার কোনো ব্যাখ্যা এখনো কেউ দিতে পারে নাই।

বাকি ঘটনা শোনার জন্য রইলাম।

১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৫৫

মিরোরডডল বলেছেন:



সুইচের বিষয়টা আমিও ভেবেছি, খুঁজেছি কিন্তু না সুইচের সাথে দরজার কোনও লিংক ছিলোনা । এক ফ্রেন্ড ফোনে লাইনে ছিল, সে বললো যেহেতু বন্ধ করলে এটা হয় রুমের বাইরে গিয়ে বন্ধ করো । রুমের বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করেও ওয়েট করেছি তখন হয়না । ভেতরে থাকলেই বাইরে এটা হয় । এনিওয়ে, অনেস্টলী আমার নিজেরও আইডিয়া নেই কেনো । থ্যাংকস ধুলো ।

৮| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:২৭

নতুন বলেছেন: কারন ছাড়া দুনিয়াতে কোন কিছুই ঘটেনা। :)

ঐ সুইচে কি কোন সমস্যা ছিলো?
ঐটা কি মনের ভুল ছিলো?
বাইরের কোন আলোর উতস থেকে আসা আলোর কারনে এরকম মনে হয়ে ছিলো।

কিছু জিনিস ঐ লাইট জ্বলা নেভার সাথে যুক্ত।

ঐ লাইট বা্ল্বে যদি বিদ্যুত না আছে তবে ঐ বাল্বটি জ্বলতে পারেনা।

সেযেতু জ্বলতে হলে যেই সার্কিটটি পূর্ন হতে হয়ে সেটার মাঝে একটা সুইচ থাকে। যদি ঐ সুইচে সমস্যা থাকে তবে তার কারনেও বিষয়টা হতে পারে।

এখন যদি সমস্যা না থাকে তবে কোন ভাবে ঐ সুইচটাতে বল প্রয়োগ করে সার্কিট পূর্ন করতে হবে।

তার জন্য বাইরের বল প্রয়োগ করতে হবে।

বাতি টি জ্বলতে হলে বিদ্যুত দরকার হবে। যার বিল কিন্তু আপনি দিয়েছেন।

হয়তো কিছু অজানা ঘটনার জন্যই্ আপনার মনে হয়েছিলো যে বাতিটা আপনা আপনি জ্বলেছিলো।

যেটা অনেকেই মনে করবে যে অলৌকিক ভাবে হয়েছে বা জ্বীন/ভুতের কাজ এটা। B-))

অনেক ঘটনাই আছে যেটা মানুষের কাছে অনেক দিনের রহস্য ছিলো। এমন অনেক কিছুই আছে যেটার পেছনের কারন না জানা না থাকলে রহস্যময় মনে হয়।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:০৭

মিরোরডডল বলেছেন:



মনের ভুল অবশ্যই না । ওয়ান অর টু টাইমস হলে মনের ভুল হতে পারতো কিন্তু এটা বেশ অনেকদিন রিপিটেডলি মোর দেন আ উইক হয়েছিলো ।

সুইচের বিষয়টা আমিও ভেবেছি, খুঁজেছি কিন্তু না সুইচের সাথে দরজার কোনও লিংক ছিলোনা । এক ফ্রেন্ড ফোনে লাইনে ছিল, সে বললো যেহেতু বন্ধ করলে এটা হয় রুমের বাইরে গিয়ে বন্ধ করো । রুমের বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করেও ওয়েট করেছি তখন হয়না । ভেতরে থাকলেই বাইরে এটা হয় । অনেস্টলী আমার নিজেরও আইডিয়া নেই কেনো ।

ইউ আর রাইট, কারণ জানা না থাকলে রহস্যময় মনে হয় । এটার কারণ আমার জানা নেই । আমি অনেক খুজেছিলাম একটা লজিক্যাল রিজন বার করতে । হয়তো আছে যেটা আমি পাইনি ।

থ্যাংকস নতুন সুন্দর ভিডিও আর মন্তব্যের জন্য ।

৯| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:২৮

লরুজন বলেছেন: নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:

আশ্চর্য হলেও সত্য যে জিনরা মানবদেহের শিরা-উপশিরায় বিচরণ করতে পারে।
এমনকি মানুষের জ্ঞানবুদ্ধির ওপরও প্রভাব ফেলে তাকে বিকারগ্রস্তও করে ফেলতে পারে।
পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘যারা সুদ খায় তারা কিয়ামতের দিন এমন অবস্থায় দণ্ডায়মান হবে,
যেমন শয়তানের আছর (কুপ্রভাব) কাউকে বিকারগ্রস্ত করে ফেলে।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ২৭৫)

পবিত্র কালামে পাকে জিন ও শয়তানের উদ্দেশে মহান আল্লাহ ইরশাদ করেন, ‘যারা আমার একনিষ্ঠ বান্দা,
তাদের প্রতি তোমার কোনো প্রভাব কার্যকর হবে না।’ (সুরা : হিজর, আয়াত : ৪৩)

তাই দেখা যায়, ধর্মীয় ব্যাপারে উদাসীন লোকেরাই জিন ও শয়তানের কুপ্রভাব ও কুমন্ত্রণার শিকার হয়ে থাকে।
হাদিসে পাকে বর্ণিত হয়েছে, টয়লেটে প্রবেশের দোয়া পাঠ না করলে দুষ্ট জিনরা তার গোপনাঙ্গ নিয়ে খেলা করে।
অনুরূপ খাদ্য গ্রহণের শুরুতে ‘বিসমিল্লাহ’ না পড়লে খারাপ জিন তার খাদ্যে অংশগ্রহণ করে।
মহান আল্লাহ আমাদের জিন ও শয়তানের কুপ্রভাব থেকে হেফাজত করুন। আমিন।

@নুরুবাই এইডা কি কইলেন? আমি আবার ডরাইছি

১০| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৩০

ঢুকিচেপা বলেছেন: আপনি তো ভয়ঙ্কর সাহসী।
অন্য কেউ হলে তো পরের দিন সকালেই বিদায় নিত।
ভুত এফ.এম থেকে প্রতি শুক্রবার এ ধরনের গল্প হতো, আমি শুনতাম।
প্রোগ্রামটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে আর শোনা হয় না।
এখন থেকে আপনার পোস্টের অপেক্ষায় রইলাম।

আপনার সাহসের জন্য +

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:১৬

মিরোরডডল বলেছেন:



ঢুকি, এখনও এই বাসাতেই আছি ।
আরে নাহ ! আমিও একটু একটু ভয় পেয়েছিলাম ।
ভয় না পেলেতো দিব্বি ঘুমাতাম । সবচেয়ে কষ্ট হতো ভোর বেলায়, দুই তিন ঘণ্টা ঘুমিয়ে আমি যখন ড্রাইভ করে অফিস যেতাম । মাথা বন বন আর হেজিনেস । এটা সত্যি একটা স্ট্রেসের মধ্যে দিয়ে গিয়েছিলাম ওই কটা দিন ।

১১| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৩২

রাজীব নুর বলেছেন: না ভৌতিক কিছু না। জ্বিন ভূতেরও কিছু না।
বৈজ্ঞানিক ব্যখ্যা অবশ্যই আছে।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:১৮

মিরোরডডল বলেছেন:

আই উইশ সো :|

১২| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৩৫

চাঁদগাজী বলেছেন:



ব্যাখ্যাহীন অভিজ্ঞতা; তবে, সুইচের সমস্যা ছিলো, হয়তো।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:২৩

মিরোরডডল বলেছেন:



সুইচের বিষয়টা আমিও ভেবেছি, খুঁজেছি কিন্তু না সুইচের সাথে দরজার কোনও লিংক ছিলোনা । এক ফ্রেন্ড বললো যেহেতু বন্ধ করলে এটা হয় রুমের বাইরে গিয়ে বন্ধ করো । রুমের বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করেও ওয়েট করেছি তখন হয়না । ভেতরে থাকলেই বাইরে এটা হয় । অনেস্টলী আমার নিজেরও আইডিয়া নেই কেনো । কারণ জানা না থাকলে রহস্যময় মনে হয় । এটার কারণ আমার জানা নেই । আমি অনেক খুজেছিলাম একটা লজিক্যাল রিজন বার করতে । হয়তো আছে যেটা আমি পাইনি । থ্যাংক ইউ ।

১৩| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৩৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: মিরোরডডল,




অলৌকিক। একেবারেই নিজস্ব অভিজ্ঞতা। অবাক হতেই হয় !

জীন-পরী বা প্রেত সংক্রান্ত নয় এমন একটি অভিজ্ঞতা আমারও আছে যে ঘটনার কোনও ব্যাখ্যা পাইনি।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:২৮

মিরোরডডল বলেছেন:

অলৌকিক কিনা আমি জানিনা কিন্তু একটু অস্বাভাবিক । প্লীজ আপনার অভিজ্ঞতাটা শেয়ার করে পোষ্ট করুন । কিন টু নো ।
থ্যাংকস জী এস ।

১৪| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৪০

চাঁদগাজী বলেছেন:


যারা এগুলো ব্যাখ্যা করার জন্য কোরানের রেফারেন্স দিচ্ছেন, তারা কোরানের গুরুত্ব কমায়ে দিচ্ছেন: জ্বীন, ভুত, পরী, ইত্যাদি নিয়ে রূপকথা আদি যুগে ( খ্রিষ্টান ও ইসলাম ধর্মের আগে) ছিলো; এগুলো কোরানের বিষয় হলে, কোরানের ওজন কমে যাবার কথা।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:৩২

মিরোরডডল বলেছেন:

আমি শুধু এটুকুই বলবো ব্যাখ্যার বাইরেও অনেক কিছু ঘটে ।
ওটারও হয়তো কারণ কারো কাছে থাকতে পারে কিন্তু আমি হয়তো জানিনা ।

১৫| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৪২

আহা রুবন বলেছেন: বন্ধুরা থাকলে সুইচ অন-অফ হয় না কারণ বন্ধুদের কারণে আপনি তখন ভয় পান না। আবার একা থাকলে ক্যামেরায় ছবি তোলার চেষ্টা করবেন, শব্দ রেকর্ড করার চেষ্টা করবেন। তখনও দেখবেন জ্বীন আর আসছে না।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:৩৮

মিরোরডডল বলেছেন:



গুড পয়েন্ট , বন্ধুরা থাকলে ভয় পাইনা ট্রু ।
নাহ ছবি তুলিনি বাট নিস্তব্ধতার মাঝে যখন সুইচ অফ অন হয় ওটার সাউন্ড রেকর্ড করেছিলাম ।
থ্যাংকস রুবন ।

১৬| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৫৫

মরুভূমির জলদস্যু বলেছেন: এমন হইলেতো আমার অবস্থা খারাপ হয়ে যেতো!!

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:৪১

মিরোরডডল বলেছেন:

হা হা হা......আমারও একটু খারাপ হয়েছিলোতো বটেই :)

১৭| ১৭ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১১:৫৫

নেওয়াজ আলি বলেছেন: যাই হোক মনে সাহস রাখবেন । মনের ভুল হতে পারে । তবে ঘটনা যাচাই করে দেখবেন অন্য লোক সবসময় রেখে

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:৪৩

মিরোরডডল বলেছেন:

হুম সেটাই । সাহস রাখতেই হয়, নইলে জীবন ডিফিকাল্ট হয়ে যাবে । থ্যাংক ইউ ।

১৮| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:০৩

শায়মা বলেছেন: আমারও একটা জ্বীনভূতের ভয় পাওয়া গল্প আছে।
একদিন ঠিক দুপুর বেলা ১২টা ১টার দিকে আমি আমার বেডরুমের মেঝের উপর বসে ছবি আঁকছিলাম। এমন সময় কাজ শেষ করে সুফিয়া আমাদের হেড বুয়া আর আসমা আমাদের ক্লিনার আমার রুমে ঢুকলো। তারা আমার সামনে এসে বসলো আর বসে বসে কি কি যেন গল্প শুরু করলো। কিছুক্ষণ পর হঠাৎ চারিদিক এক মিষ্টি সুগন্ধে ভরে উঠলো। আমি অবাক হয়ে গেলাম! আমি বললাম, সুফিয়া তুমি কোনো গন্ধ পাচ্ছো?

সুফিয়া নাক টেনে টুনে বললো, হ আপা ঠিকোই তো। সোন্দর গন্ধ আসতেছে। আসমাও কিছুক্ষন এদিক সেদিক করে বললো সেও গন্ধ পাচ্ছে।

এমন সময় সুফিয়া বললো, বয় পাইয়েন না আপা। ইরা বালা! কুনো ক্ষতি করবো না। ইরা বাইত আওন বালা! যেই বাইত আয়ে। সুগন্দু ছড়ায়। আমার তো চক্ষু চড়কগাছ! ইরা! ইরা আবার কিরা? মানে কারা? আমার তো ছবি আঁকা শিকেই উঠেছে। আমিও লাফ দিয়ে দাঁড়ায় গেছি। সুফিয়া কাদের কথা বলছে! ভয়ে আমার চক্ষু ছানাবড়া!

আসমা চুপচাপ শুনছিলো। সেও সঙ্গ দিলো সুফিয়াকে। হ আমিও এমুন কতা হুনছি। আমি বললাম, কি কতা হুনছিস বল এখুনি।

সে বলে ঐ যে সুগন্দের কতা। জ্বীন। ইরা বালা জ্বীন। ইরা আইলে গর বাড়ি সুগন্দে বইরা যায়। আমি তো সে কথা শেষ হবার আগেই এক দৌড়ে ঘরের বাইরে বের হয়ে দরজা বন্ধ করে দিলাম। বাড়ির সবাইকে ব্যতিব্যাস্ত করে তুললাম। জানো জানো এক আশ্চর্য্য জিনিস দেখে যাও। এই ঘরে এক আশ্চর্য্য সুগন্ধ।

আমার মনে পড়তে লাগলো নানী-দাদীরাও ছেলেবেলায় এমন বলেছিলো মনে হচ্ছে। ভালো জ্বীনরা যখন নামাজ পড়তে যায় তখন আতরের সুগন্ধ ছড়ায়। আসমার বকবকানী লেকচার তখনও চলছে। আরও আইজ হইলো হুক্কুরবার। জুম্মার দিন। বালা জ্বীনরা নামাজ পড়বার যাইতাছে।

এ্যা! বাপরে!! বালা জ্বীনরা নামাজ পড়বার যাইতাছে! বলে কি! আমার সারা গাঁয়ে কাঁটা দিয়ে উঠলো! বুকের মধ্যে ধড়ফড়!!! হাত পা কাঁপাকাঁপি। যখন আর একটু হলেও আমার হার্ট এটাক হবার দশা। তখন আমার ষষ্ঠইন্দ্রিয়ের কই যেন একটা টুং করে আঘাত লাগলো! আচ্ছা এই সুগন্ধ তো আতর মার্কা না । কেমন যেন চেনা চেনা লাগছে! আচ্ছা আমারই কোনো পারফিউমের মত লাগছে যেন। কিন্তু আজ তো আমি পারফিউম লাগাইনি। তাহলে......?????

এমন সময় আমার মাথার তারে আবারও টংকার। আচ্ছা আজ সকালে তো আসমাকে বলেছিলাম ড্রেসিং টেবিলটা মুছতে। ওহ আচ্ছা, এই তাহলে ঘটনা........

আমিঃ আসমা তুমি কি ড্রেসিং টেবিল মুছার সময় এই পারফিউমটা মুছেছিলে???

আসমাঃ আ আ আ আ হ হ মুছছিলাম......

আমিঃ মুছার সময় কি ঢাকনীটা খুলে .......

আসমাঃ আ আ আ মানে মানে মানে আমি এট্টু খুইলা, মানে এই দিক মুখ কইরা মুছতে গিয়া টিবি দিসি আর আমার গায়ে আইয়া পড়ছে......

সুফিয়া হাসতে লাগলো। আফা এই এমুন মানুষ! এ টিবি না দিয়া যাইবো ..... হাইবো ...... খাইবো ...... কি কি যেন বলতে লাগলো.....

আমার চক্ষু ছানাবড়া থেকে তখন তালবড়া! ওহ! এই তাইলে তোদের বালা জ্বীন! নামাজ পড়া জ্বীন! হুক্কুরবারের জ্বীন না?? এত এদের এক্কেবারেই হাউ মাউ খাউ ভূতের গন্ধ পাও এর গল্প!!!

যাক অবশেষে জ্বীন ভূতের গন্ধ রহস্যের অবসার ঘটিয়ে আমি শান্তি পেলাম কিন্তু বাড়ির লোকজনের হাসির পাত্র হলাম আর কি। :P

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:৫১

মিরোরডডল বলেছেন:



হা হা হা ......শায়মাপু সুপারডুপার ফানি স্টোরি =p~
আমি গেজ করছিলাম এরকম কিছু একটাই হবে ।
আর তোমার রম্য লেখা দারুণ !!!! :)

১৯| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:১০

সেলিম আনোয়ার বলেছেন: জ্বীন আছে সে বিষয়ে তদবিরও আছে পবিত্র কোরআনে জ্বিনের বিষয়টি উল্লেখ আছে । আল্লাহ তায়ালা জ্বিন আর মানব জাতিকে সৃষ্টি করেছে আল্লাহ তায়ালার ইবাদতের জন্য । তবে অনেক ভন্ড জ্বীনের ভূঞা তদবীর করে টাকা পয়সা ইনকাম করে ।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:৫৬

মিরোরডডল বলেছেন:



যেকোনো ভণ্ডামি আর লোক ঠকানো কাজই নিন্দনীয় ।
আর যদি রিলিজন নিয়ে করে সেটা আরও খারাপ ।
থ্যাংকস সেআ ।

২০| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:৩১

ডার্ক ম্যান বলেছেন: সুইচ অন অফ হয় নাকি লাইট ফ্যান অন অফ হয় ।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১:০১

মিরোরডডল বলেছেন:

সুইচ অন অফ :)

২১| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১:১০

মুক্তা নীল বলেছেন:
১০০ ভাগ সত্যি ঘটনা কারণ এরকম অনেকটাই আমার
সাথেও হয়েছে । ছোট্ট করে বলি, পুরো বাথরুম ফ্লোর
ড্রাই এবং আমি শুনতে পাচ্ছি কে যেন গোসল করছে
রাত দুইটার সময় ‌। ঠিক যখনি বাথরুমের দরজাটা
খুললাম মনে হলো কে যেন আমাকে ধাক্কা মেরে ফেলে
দিলো । উফ , কি ভয়ঙ্কর ছিল সে রাতের ঘটনা।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১:৩২

মিরোরডডল বলেছেন:



ওহ মাই গড !
নীলাপু তোমারটা অনেকই ভয়ংকর ।
হার্ট এট্যাক হবার কথা :|

২২| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১:৫৬

সোনালি কাবিন বলেছেন: Placebo effect ?

১৮ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২১

মিরোরডডল বলেছেন:

অনেস্ট আনসার হচ্ছে আমি আসলেই জানিনা কি কারণ ছিলো । placebo effect হতে পারে, হু নোজ !
কারণটা জানতে পারলে আমারও ভালো লাগতো । থ্যাংকস কাবিন ।

২৩| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ ভোর ৪:০৬

মোহাম্মদ গোফরান বলেছেন: সে ইমাম সাহেব হইত কোন দোয়া লিখে দিয়েছেন । ২০১৫ থেকে ২০১৭ আমার প্রায়ই মন খারাপ হতো মুড অফ থাকতো । কিছু ভালো লাগতো না। এক ইমাম আমকে আল্লাহর নাম গুলো পড়তে বলেছেন । আল্লাহু সালাম , আল্লাহু আল ফাত্তাহু , আল্লাহু মাজিদ । ১০০০ বার করে পড়লে মুড অন হয়ে মন ভালো হয়ে যেতো । এখন আল্লাহর ৯৯ নাম আমার মুখস্ত।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৫৫

মিরোরডডল বলেছেন:

তাই ? এতো খুবই ভালো নিউজ । থ্যাংক ইউ ।

২৪| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:০০

নূর আলম হিরণ বলেছেন: বাচ্চা জিন হবে মনে হয়, লাইট জ্বালিয়ে নিভিয়ে মজা পায়।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০০

মিরোরডডল বলেছেন:

হা হা হা ……ভালো বলেছেন । আসলে যে কি কারনে ওটা হয়েছিলো আমি নিজেও জানিনা । জানতে পারলে আমারও ভালো লাগতো । এখন যে যেভাবে ব্যাখ্যা করে । অনেক থ্যাংকস আপনাকে ।

২৫| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ৯:২৮

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন:
জ্বীন আছে এটা প্রমাণিত। যদি সুইচে সমস্যা থাকে , যদি ঠিক করার পরও একই রকমভাবে জ্বলে নিভে তবে বুঝতে হবে প্যারানরমাল কিছু।

এখন ভাল আছেন এটাই মঙ্গলজনক।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:০৫

মিরোরডডল বলেছেন:

কোনও সমস্যা পাওয়া যায়নি বলেই বিষয়টা ভাবিয়েছে আমাকে । আমিও চাচ্ছিলাম কারণটা খুঁজে পেতে । যাই হোক ইটস ওভার । অনেক থ্যাংকস মাইদুল ।

২৬| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:১১

কল্পদ্রুম বলেছেন: যাক।শেষ পর্যন্ত সমস্যা মিটে গেছে এটাই বড় ব্যাপার।জ্বীনের কারণে হোক,আর যে কারণেই হোক।অন্তত আপনাকে রাতে নির্ঘুম কাটিয়ে অফিস করতে হচ্ছে না।ব্যাপারটা কতটা স্ট্রেসফুল ছিলো বুঝতে পারি।মন্তব্যে অনেকের জীবনে ব্যাখ্যাতীত ঘটনা আছে পড়লাম।নুরু ভাইয়ের বাথরুমের হাদীসটা পড়ে আর একটু হলে চেয়ার থেকে পড়ে যাচ্ছিলাম। :) আমি এরকমটা আগে কোথাও পড়ি নাই।
আপনি কি paranormal activity সিনেমাগুলো দেখেছেন?এই একটা নামের অনেকগুলো পর্ব আছে।
আমার নিজের জীবনে এরকম অন্য জগতের কোন এন্টিটির খোঁজ পাইনি।দেখা যাক ভবিষ্যতে পাই কি না।তবে আশা করি,তারা ফ্রেন্ডলি ব্যবহার করবে।এরকম রাতে ঘুমের সমস্যা করবে না। :)

১৮ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৪

মিরোরডডল বলেছেন:



হা হা হা……কল্প ওই হাদিস নিয়ে আর কিছু না বলি সেটাই বেটার :)
ইউ আর রাইট সেই সময়টা চলে গেছে এটাই শান্তি ।
নাহ কল্প, আগে যাও দেখতাম এখন এধরণের মুভি আর দেখিনা ।
আশা করি কল্পের দেখা মিলবে তাদের সাথে আর তারা ফ্রেন্ডলি হবে :-)
সেটা নিয়ে কল্প পোষ্ট করবে আমাদের জন্য ।

২৭| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ দুপুর ১২:০৬

ঢাবিয়ান বলেছেন: সুইচ অন অফ আবার কি জিনিষ? সেইটা আবার বাসার ভেতরে থেকে কিভাবে বোঝা যায়? যাই হোক সাবধানে থাইকেন। সামনে হয়ত সাদা পোষাকে, নুপুরের আওয়াজসমেত কোন সুন্দরীর দেখা পাইতে পারেন।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫২

মিরোরডডল বলেছেন:



বিষয়টা বাসার ভেতর থেকে বাইরে না । বেডরুমের ভেতর থেকে বোঝা যায় শোনা যায় বেডরুমের বাইরের লাইট সুইচ অন অফ হচ্ছে । হা হা হা …… ভালো বলেছেন :) কিন্তু নুপুর পায়ে সাদা পোশাকের সুন্দরি আমার কাছে কেনো আসবে, সেটাতো যাবে আপনাদের কাছে । থ্যাংক ইউ । ভালো থাকবেন ।

২৮| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ দুপুর ১২:৫৮

মেঘশুভ্রনীল বলেছেন: সুইচের সমস্যা বা ইলেক্ট্রিসিটির তারতম্যের কারনে এই সমস্যার উৎপত্তি হতে পারে, যেটা হয়ত আপনার উপর সাময়িক ইম্প্যাক্ট ফেলেছিল।

পৃথিবীতে অনেক ঘটনাই ঘটে, যেগুলো স্বাভাবিক জ্ঞান দিয়ে ব্যাখা করা যায় না। এটাও সেরকম হতে পারে, তবে সম্ভাবনা কম। আমাদের ডাইমেনশনের বাইরের কোন স্পিশিস (পড়ুন জীন) হতে পারে, যার হয়ত আপনাকে দেখে দুষ্টুমি করার ইচ্ছে জেগেছে! তবে জীন হয়ে থাকলে আপনার বন্ধুদের দেখে চুপ হয়ে যাবে কেন, সেটা বুঝতে পারছি না।

যাই হোক, এরকম পরিস্থিতিতে দোয়া দুরুদ পরলে মনে জোর পাওয়া যায়।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ৮:২১

মিরোরডডল বলেছেন:



শুভ্র হতে পারে এরকম কিছু । আমিও কারণটা জানতে চেয়েছিলাম । কিন্তু সেরকম কোনকিছুই পায়নি । হা হা হা......আমি কিন্তু একবারও বলিনি এটা জিন । ভালো বলেছেন দুষ্টামি করেছে । আমারতো প্রশ্নটা সেখানেই । যদি কোনও লজিক্যাল কারণ থাকে সুইচ ইস্যু অথবা অন্য কিছু, সেটা তবে বন্ধুদের উপস্থিতিতেও হবে, আই মিন হওয়া উচিৎ । কি যেন কি হয়েছিলো । ইটস ওভার, সেটাই আনন্দের । থ্যাংকস শুভ্র ।

২৯| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ দুপুর ২:০৭

ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন:




- বিশ্বাসে মিলায় বস্তু তর্কে বহুদূর -

ব্লগার মিরোরডডল এর বাসাটি হন্টেড হতে পারে এতে করে সামনে ভয়ঙ্কর বিপদ হতে পারে। আপনার সাবধান হওয়া উচিত। আজকে সুইচ অন অফ হচ্ছে কালকে দেখা যাবে দরজা জানালা নিজে নিজে খুলছে বন্ধ হচ্ছে। কখনো মধ্যরাতে শোনা যাবে বাসায় শিশুর কান্না, বৃদ্ধ মানুষের খুক - খুক কাশি!

এমনও হতে পারে হয়তো দেখবেন বাসায় সোফাতে অথবা বিছানায় মাথা থেতলানো কেউ বসে আছেন যার মাথা থেকে চুইয়ে চুইয়ে রক্ত পরে ভেসে যাচ্ছে বিছানা থেকে পাকা ফ্লোর - - - - -

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ৯:২৮

মিরোরডডল বলেছেন:



হা হা হা...... এটা হন্টেড হাউস না । খুবই লাইভ এবং ভাইব্রেন্ট এরিয়াতে বিচের কাছে এপার্টমেন্ট । শুধু আমারটা না, এই এরিয়াতেই কোনো হন্টেড বাসা নেই । যেহেতু এটা টুরিস্ট এরিয়া, রাত ১২/১ টা পর্যন্ত ক্যাফে, রেস্টুরেন্ট ওপেন থাকে । লেইট নাইট বারোটা একটায় বিচে মানুষ ঘোরাঘুরি করে । জিন এ এলাকার ত্রিসীমানাতেও আসবেনা :) থ্যাংকস ঠামা সতর্কবাণীর জন্য ।

৩০| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ৮:০৬

সোহানাজোহা বলেছেন:




ঠাকুরমাহমুদ বলেছেন: এমনও হতে পারে হয়তো দেখবেন বাসায় সোফাতে অথবা বিছানায় মাথা থেতলানো কেউ বসে আছেন যার মাথা থেকে চুইয়ে চুইয়ে রক্ত পরে ভেসে যাচ্ছে বিছানা থেকে পাকা ফ্লোর - - - - - (১০০% এ ক ম ত)

মিরোরডডল আপনি সাবধান হোন। ঘটনা যে কোনোদিন ঘটে যেতে পারে।


১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ৯:৩৯

মিরোরডডল বলেছেন:



সোহানাপু একটা বিষয় খুব মজা পেলাম । ঠামা আর আপনি দুজনেই এক এলাকার । ওপরে সবার কমেন্ট অন্যরকম আর আপনাদের দুজনেরটা একরকম । আমার খালাবাড়ী ব্রাহ্মণবাড়িয়া । আমার কাজিনগুলো এ জায়গায় থাকলে ঠিক এই কাজটাই করতো । ভয় পেয়েছি বুঝলে আরও ভয় দেখাতো । হা হা হা ...... আই গট দা সেইম ভাইব :) থ্যাংকস আ লট আপু ।

৩১| ১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ৯:১০

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ওরে এ এ !!
বেশ অজানা টেনশনের মাঝে সময় কেটেছে দেখছি ; যাইহোক আনন্দের ব্যাপার হচ্ছে সময় কেটে গিয়েছে।

ভালো থেকো ডল।

১৮ ই জুলাই, ২০২০ রাত ৯:৫৪

মিরোরডডল বলেছেন:

হ্যাঁ আপু বলতে পারো একটু খারাপ সময় গেছে আর কি । বাট গুড থিং ইজ ইটস ওভার । আপু তুমি নভোনীল লেখোনা কেনো? অনেকদিন কোনও লেখা নেই । আমি সিওর তুমি খুব ভালো লিখবে । তুমিও অনেক ভালো থেকো মনিপু ।

৩২| ১৯ শে জুলাই, ২০২০ রাত ৯:৪৮

মনিরা সুলতানা বলেছেন: ইশ তুমি এত মিষ্টি করে বল !! মন ভালো হয়ে যায় :)
আহসান ভাই কে জানিয়েছিলাম নভোনীলের কোন এক পর্বে থাকব ; কিন্তু করোনা কালে ব্যস্ততা বেশ ল্যাপ্পি ওপেন করে ই বসা হচ্ছে না। বেশিরভাগ সময় দেখা যায় মোবাইল থেকে অনলাইনে আসি।
এখন ও আশা রাখছি এক পর্ব আমার হাতেই হয়ত রচিত হবে।

অনেক ধন্যবাদ ডল আমাকে ভালোবেসে মনে করার জন্য।
তোমার জন্য ভালোবাসা।

১৯ শে জুলাই, ২০২০ রাত ১০:৫১

মিরোরডডল বলেছেন:



তুমি কি জানো আপু আমি অন্যদেরও বলি তোমার কথা হাউ সুইট ইউ আর :)
বুঝতে পারছি ব্যস্ততায় সময় করতে পারোনা । সমস্যা নেই উই ক্যান ওয়েট ।
অবশ্যই মনে রাখি, মনে রাখবো । তোমার জন্যও এতো এতো ভালোবাসা আপুটা ।

৩৩| ২০ শে জুলাই, ২০২০ বিকাল ৫:০৪

সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই বলেছেন: রুমে কি এসি ছিল? আই মিন, সবগুলো দরজা-জানালা বন্ধ করা হতো? একটা রুমের সবগুলো দরজা-জানালা বন্ধ করা হলে ওটা প্রায় এয়ার টাইট হয়ে যায়। বাল্বটা যদি বাল্বহোল্ডার থেকে নিম্নমুখী, কিংবা ভূমির সমান্তরালও হয়, একটা সম্ভাবনা দেখা দেয়- এয়ার টাইট হওয়ার ফলে বাল্বের গোড়া হোল্ডার থেকে খুব সূক্ষ্মভাবে লুজ হয়ে সামনে চলে যায়, বা ঝুলে পড়ে, ইলেক্ট্রিক লাইন থেকে বিচ্যুত হয়ে যায়। লাইট অফ হয়ে যায়।

দরজা সামান্য খুলে রাখলে পাশের রুমে অন অফ হয়- দুটো রুম যদি কোনো কমন দরজা দিয়ে আটকানো থাকে, তাহলে দুটো রুম একত্রেই এয়ার টাইট হয়ে যায়। এক্ষেত্রে দুটো বাল্ব হোল্ডারই ফল্টি হতে পারে, এবং একটি একটি বেশি ফল্টি হওয়ায় পাশের রুমেরটা অন-অফ হয়। আরেকটা জিনিস জানা দরকার- ধীরে ধীরে অন-অফ হয়, নাকি বিপবিপ করতে থাকে? যে-ভাবেই হোক, কারণ একই।

বন্ধুরা যখন ছিল, তখনো কি এভাবে দরজা বন্ধ করে টেস্ট করা হয়েছিল? শিওর এ ব্যাপারটা? নাকি তখন দরজা বন্ধ করার কথা ভুলে গিয়েছিলেন?

এসি/ফ্যান অন/অফ করার সাথে সম্পর্ক থাকতে পারে।

এয়ার টাইটনেসের কারণে সুইচের উপরও প্রেশার পড়তে পারে।

ভিডিও করে রাখলেও হয়ত বাল্ব অন-অফ হওয়া দেখা যেত, কিন্তু কারণগুলো মূলত এগুলোই হওয়ার কথা।

উপরের সবগুলো এক্সপ্লেনেশনেও যদি সবকিছু ঠিক পাওয়া যায়, আর হুজুরদের এরাবিক লেখা কাগজ ঘরে রাখার পর এটা যদি আর কখনো না হয়ে থাকে, তাহলে লৌকিক বা বৈজ্ঞানিক আর কোনো ব্যাখ্যা আমার মনে আসছে না। আমাদের ব্যাখ্যার বাইরের অংশটা অলৌকিক। তবে, আমার ব্যাখ্যার বাইরেও আরো প্রচুর বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা থাকতে পারে। এয়ার প্রেশারটাই মূল মনে করেছিলাম। ইলেক্ট্রিক তারেও কোথাঈ গণ্ডগোল থাকতে পারে, যা দরজা খোলা-বন্ধ করার সাথে ঘরের ভেতরে প্রেশার বাড়ার সাথে রিলেটেড হতে পারে।




২৩ শে জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫৬

মিরোরডডল বলেছেন:



ধুলো কতকিছু নিয়ে গবেষণা করেছে । নাহ ধুলো এগুলোর কোনটাই না । যদি টেকনিক্যাল ইস্যু হতো, তাহলে ফ্রেডসদের সামনেও সেইম প্রবলেম হতো কিন্তু ঘটনা সেরকম ছিলোনা । যাই হোক, ইটস ওভার । কারণ হয়তো ছিলো যেটা অজানা থেকে গেলো ।

এনিওয়ে আমরা বেটার গান শুনি

অবুঝ হৃদয়
সেকথা তোমার জানাতো নয়
ফিরে যেতে যেতে মনে হল অভিমান
বাকিটা নিজের সাথে নিজের অভিনয়

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.