নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

কিচ্ছুটি বলার নাই.......

জটিল ভাই

ঝটট্রিল সব জটিলতা

জটিল ভাই › বিস্তারিত পোস্টঃ

খিঁচুড়ি | দ্যা সাহায্য

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ১২:২১


(ছবি নেট হতে)

বিসমিল্লাহিররাহ্'মানিররাহিম।
আসসালামুআলাইকুম।

শুরুতে সত্য-মিথ্যা না জানা ২টা কৌতুক কাহিণী বলে নিই।

আইয়ূব খান নাকি বাংলার কবি-সাহিত্যিকদের ডেকে বলেছিলেন, আপনারা কি কবি হলেন যে একটা রবীন্দ্রসংগীত রচনা করতে পারলেন না!

আবার রবীন্দ্রনাথ নাকি কবি জসীম উদদীনকে বলেছিলেন, আপনি পল্লীগীতি কেন লিখেন? রবীন্দ্রসংগীত লিখতে পারেন না? জবাবে কবি জসীম উদদীন বলেছিলেন, তখনতো আর তা রবীন্দ্রসংগীত থাকবে না। তখনতো সেটা জসীমসঙ্গীত হয়ে যাবে।


তা ইদানিং মনে হচ্ছে লেখকেরাও ঠিক সেই ক্ষেত্রেই বিচরণ করছেন যেখানে পাঠক নাই। সবাই লেখক ও পরামর্শদাতা। অবশ্য অন্তর্জালের সুবাদে যখন ব্যাঙেরছাতার মত ঘরে-ঘরে শিল্পী আর সাহিত্যিক ছড়িয়ে পরেছে, শিল্পীর ভারে যখন শিল্পই জর্জরিত, কেউ যখন প্রতিভা দেখতে না চেয়ে সবাই প্রতিভা দেখাতে ব্যস্ত এই ভাবনা নিয়ে যে "আমিই সর্বোত্তম!" তখন এমন পরিবেশ না হওয়াটাই অস্বাভাবিক।

রবীন্দ্র-নজরুলেরা মরে গিয়ে বেঁচে গেছেন। নয়তো আজ বেঁচে থাকলে রবীন্দ্র নজরুল হতে পারতেন না। হলেও তাঁদের লেখা নিয়ে গবেষণা অন্তত হতো না। বরং পাঠ্যবইয়ে তাঁদের সাহিত্যের ভাব উদ্ধারে জোর না দিয়ে প্রশ্নগুলো নিম্নরূপ হতো।

১/ কবি জসীম উদদীনকে পল্লী সম্পর্কে তথ্য দিয়ে লিখার মানোন্নতিতে সহায়তা কর।
২/ আল্লামা ইকবাল ছাগু কিনা যাচাই করো।
৩/ শেখ সাদী (রহঃ) কিভাবে গার্বেজ না লিখে ভালো কিছু লিখতে পারেন সেই পরামর্শ দাও।
৪/ কবি নজরুল জামাত-শিবির কিনা বিশ্লেষণ কর।
৫/ গীতাঞ্জলীর মানোন্নয়নের জন্যে রবীন্দ্র নাথকে পরামর্শ দাও।
৬/ মাইকেল মধু সূদন দত্তকে সনেট না লিখতে উৎসাহিত কর।


এরকম হাজারো বিরম্বনার মাঝে বোধ করি ঐতিহাসিকগণ পরে যেতেন। শুধু তাই নয়, তখন ঐতিহাসিক রাজনীতিবিদগণও এসকল জ্ঞাণীদের সংস্পর্শে এসে কিছু জ্ঞাণ লাভ করতে পারতেন। পলাশীর যুদ্ধ এখন হলে নিশ্চই নবাব সিরাজ মীর জাফরকে বিশ্বাস না করার পরামর্শ পেয়ে পলাশীর ঐতিহাসিক পরাজয় হতে রক্ষা পেতেন। এমন আরো বহুকিছু হয়ে আজ সব সভ্যতা, সাহিত্য, সংস্কৃতি, ইতিহাসসহ সব আজ নতুনভাবে লিখা থাকতো যেখানে দেখা যেতো ব্যাঙেরছাতার অবদান অপরিসীম।

আর এসবক্ষেত্রে মনে হয় তাঁরা সবচাইতে বেশি বিতর্কিত হতেন নিজেদের ধর্মের কারণে যেহুতু অন্তর্জালের সিংহভাগই ধর্মহীণ বা অধর্মীদের নিয়ন্ত্রণে আছে বলে মনে হয়। কারণ কবি, সাহিত্যিক, রাজনীতিবিদ যাই হোন, সবার ইতিহাস ঘেটে ধর্মের চিহ্ন পাওয়া যাবেই। কারণ ধর্ম মানব জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। ধর্ম ছাড়া কোনো কাজ সম্ভব বলে মনে হয় না। সবস্তরেই ধর্ম বিদ্যমান তা প্রত্যক্ষই হোক, কিংবা পরোক্ষ।

আমাদের মাননীয়া প্রধানমন্ত্রীর তাহাজ্জুদ পড়ার কথা সবার যেমনি জানা, মদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর ভারতীয় মুসলমানদের খবরও সবার জানা। সর্বোচ্চ এসব ক্ষেত্রে যদিও হয় না তারপরও ধর্ম নিরপেক্ষ মানে যে যার ধর্ম নিয়ে থাকা সম্ভব। ধর্মহীণ হওয়া অসম্ভব।

এখন সাহিত্যের মাঠেও তাই। কোনো হিন্দু ব্যক্তির জীবন নিয়ে লিখতে গেলে যেমন গরুর গোস্ত সংযোজন করা যাবে না, তেমনি মুসলমানের কাহিণীতে সিঁদুর দিয়ে বিয়ে লিখাও অসম্ভব। আবার বিয়ে-শাদী ছাড়া লিভটুগেদার লিখলে সেই লেখক কি সমালোচনার উর্ধে থাকবে? যদিও এখন অনেকেই সাহিত্যকে সে পথে নিতে টানাটানি করছেন, তাই বলে কখনও কক্সবাজারের কেলি গঙ্গাস্নানে গিয়ে করতে পারবেন না। আর এভাবে সাহিত্য কোন না কোনোভাবে ধর্মের অধীনস্থ হয়েই চলবে এবং চলতে বাধ্য। এখন বড়জোর ধর্মকে ধর্মের স্থানে রেখে ধর্ম ছাড়া সাহিত্য রচনা খুব বেশিদূর যেতে পারবে বলে মনে করিনা। কারণ সাহিত্যে ব্যবহারের মতো এমন খুব কম উপকরণই বিদ্যমান যা ধর্ম পর্যন্ত গড়ায় না। তাই আমার মতে ধর্মহীণ সাহিত্য লবণ, মরিচ, তেল, সব্জি সব বাদ দিয়ে শুধু পানি দিয়ে তরকারি রান্নার সমতুল্য।

তো যে সাহায্যের কথা বলতে চাচ্ছিলাম, চারিপাশের উপদেশ আর পরামর্শ শুনে লিখতে যাওয়া লেখকের হাতে হাতকড়া লাগাবার সমতুল্য মনে হচ্ছে। "আমারোতো ছিলো মনে, কেমনে পরিলো ব্যাটা সেটা জানতে!" এমন মাইন্ড রিডার হওয়া আমার সম্ভব নয় যে সবার মনের মাধুরী মিশিয়ে খিঁচুড়ি পাক করে লিখে সবার কাছে হিরো বনে যাবো। আমার লিখা জসীম উদদীনের জসীমসংগীতের মত করে জটিলরচনাই হবে। ক বা খ গংদের মতো করে তাদের মস্তিষ্ক হতে নিঃসৃত লিখা আমার পক্ষে লেখা অসম্ভব। আমার লিখাতে ধর্ম থাকবে আমার মতো করেই। সেইক্ষেত্রে ভুল হলে আলোর পথে আসবো যদি বুঝি আসলেই তা ভুল। অযথা আলেয়াকে আলো ভেবে ছুটবো না। কারো মনের মতো লিখা না হলে তাকে আস্বস্থ করতে পারবো না যে সেভাবে লিখে নিজের স্বকীয়তা হারাবো। বরং অনুরোধ করতে পারবো এড়িয়ে যাবার। কারণ, বাকস্বাধীনতা মানে অন্যের বাকরুদ্ধ করে দেওয়া নয়। সর্বোচ্চ এড়িয়ে চলা।

তা এমতাবস্থায় জাতি কি আমায় মেনে নেবে?
নাকি গলা ধাক্কা দিয়ে বের করে দেবে?
নাকি গলা ধাক্কা খাবার আগে নিজ দায়িত্বে মঙ্গলে চলে যাবো?


আল্লাহ্ আমাদের সঠিক পথের সন্ধান দিন।

আল্লাহ্ হাফিজ।

মন্তব্য ৩৯ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (৩৯) মন্তব্য লিখুন

১| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ২:০৬

সোবুজ বলেছেন: প্রথমটা সত্যি হলেও হতে পারে।কারন আইউবের রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্বন্ধে কোন ধারনাই ছিল না।দ্বিতীয়টা শত ভাগ মিথ্যা।রবীন্দ্রনাথ আহাম্মক ছিলেন না।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ ভোর ৪:০১

জটিল ভাই বলেছেন:
কিন্তু রবীন্দ্রনাথ ছাড়াও অনেক আহম্মক ছিলো এবং আছে।

২| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ২:২৩

সোবুজ বলেছেন: সেই সময়েও এই সমস্যা ছিল।কল্লোল গ্রুপ (সুধীন্দ্রনাথ দত্ত,বুদ্ধদেব বসু,অমিয় চক্রবর্তী,জীবনানন্দ দাশ ও বিষ্ণু দে) রবীন্দ্রনাথের কবিতাকে কবিতাই বলতো না।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ ভোর ৪:০০

জটিল ভাই বলেছেন:
সেই গ্রুপটার স্ট্যান্ডার্ড ছিলো যা এখনের গ্রুপটার নেই।

৩| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ২:২৯

সোবুজ বলেছেন: পলাশীর পরে অনেক যুদ্ধ হয়েছে ইংরেজদের সাথে।সেখানে মিরজাফর ছিল না।তার পরেও পরাজয় স্বীকার করতে হয়েছে।ওদের অস্ত্র ছিল উন্নত।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ৩:৫৯

জটিল ভাই বলেছেন:
সেইসাথে ব্যাঙেরছাতারও অভাব ছিলো।

৪| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ২:৩৪

সোবুজ বলেছেন: ধর্মহীনতার প্রচার ২০ বছরও হয়নি।তাতেই হাল ছেড়ে দিলেন।৫০ বছর গেলে কি অবস্থা হবে।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ৩:৫৮

জটিল ভাই বলেছেন:
আগেতো যাক...

৫| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ২:৪৩

সোবুজ বলেছেন: আপনি আপনার মতোই লিখুন।ফরমায়েশি লিখতে গেলে কোনটাই হবে না।ঘানি যখন একবার টানতে শুরু করেছে শেষ পর্যন্ত এটাই টানতে হবে।আমি লেখি না আমার সমস্যা নাই।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ৩:৫৮

জটিল ভাই বলেছেন:
লিখার মত কিছু আছে কি?

৬| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ ভোর ৫:৪৮

অধীতি বলেছেন: লেখক বলেছেনঃ "কারণ সহিত্যে ব্যবহারের মত এমন খুব কম উপকরণই বিদ্যমান যা ধর্ম পর্যন্ত গড়ায় না।"
এটা চিরন্তন সত্য। আজ পর্যন্ত দেশি-বিদেশি যত সাহিত্য পড়লাম ঘুরে ফিরে ধর্মের সাথে প্যাঁচ খাবেই। কারণ লেখকরা সামাজিক সংকটকে তুলে ধরে উপমা, রূপকের মাধ্যমে তো ধর্মের ভিত্তিতেই যেহেতু সমাজ ব্যবস্থা তো সাহিত্যের প্রধান কাচামালের জোগান এখান থেকেই আসে। আর এখান থেকেই লালসালু ধরা খায়। তখন ফতোয়াবাজদের চিৎকার চেঁচামেচিতে একটা শোরগোল বাঁধে। আমার দেখা মতে অধিকাংশ ধার্মিক সবসময় চিন্তা করেন গল্প উপন্যাসে থাকবে শুধু উপদেশ আর উপদেশ, ডেল কার্নেগির মত আরকি। তাদে ভাষ্য হল সাহিত্যের ভেতরে প্রেম, যৌনতা যুবসমাজকে নষ্ট ও ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। অনুসন্ধান করলে দেখা যাবে তারা কোন এক বান্দরের পরামর্শে চটি জাতীয় কিছু বই পড়ছে যেখানে কামনা প্রকাশ পায় এমন লাইনগুলো তুলে ধরে ধর্মের আলোকে আরেক বাটপার সমালোচনা লিখছে। অথচ এরা সাহিত্যের 'স' ও জানেনা বুঝেনা।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ সকাল ১১:০৪

জটিল ভাই বলেছেন:
বিশ্লেষণধর্মী মন্তব্যের জন্য জটিলবাদ।
আমার দেখা মতে অধিকাংশ ধার্মিক সবসময় চিন্তা করেন গল্প উপন্যাসে থাকবে শুধু উপদেশ আর উপদেশ, ডেল কার্নেগির মত আরকি। উক্ত বিষয়ের মতো করে ভাবা একেবারে অযৌক্তিক নয় কারণ "মোরাল অব দ্যা স্টরি" বলতে একটা কথা আছে। তবে এটা সত্য যে, নাস্তিক বা ধর্ম বিদ্বেষী বা বক-ধার্মিকরা নিজের সাহিত্য ব্যবসা চাঙ্গা রাখতে বেশি সময় ধর্মকে টার্গেট করে। আবার অনেক ধর্মপ্রাণও সাহিত্য না বুঝে শুধু শব্দ নিয়ে আন্দোলন করেন। আর এতে করে অনেক সুপাঠকেরই সাহিত্যে অরুচি এসেছে। চাইলেই এগুলো বন্ধ করতে পারলেও ব্যবসার ধস্ নামার আশংকায় বন্ধ করবে না, আবার সুসাহিত্যকদের সাহিত্যের সাহিত্যের বাজার হতে তাড়িয়ে বেড়াবে।

৭| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ সকাল ৭:২৭

আহমেদ জী এস বলেছেন: জটিল ভাই,




জটিল লেখা!
কক্সবাজারের কেলি গঙ্গাস্নানে গিয়ে করতে পারবেন না।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ সকাল ১১:০৫

জটিল ভাই বলেছেন:
জাজাকাল্লাহ্। তা কেমন আছেন প্রিয় ভাই?

৮| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ সকাল ৯:১১

জুল ভার্ন বলেছেন: অত্যন্ত জটিলবাদী লেখায় প্লাস।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ সকাল ১১:০৭

জটিল ভাই বলেছেন:
জাজাকাল্লাহ্। আল্লাহ্ আমাদের সঠিক পথ ও বুঝ দান করুন। আমিন।

৯| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ সকাল ১১:১৫

নিমো বলেছেন: বজনীনতা,সর্বজনীন মত, স্বমতের জটিল খিচুড়ি হয়েছে। তবে সাহায্য,দেখার, পরামর্শের মত মসলা মাত্রা ছাড়িয়েছে কেবল। ট্রম্পের মত চাইলে নূতন ব্লগও খুলে ফেলতে পারেন। তাতে কোন কড়া থাকবে না। না চাইতেও পরামর্শ দিয়ে দিলুম, ক্ষমা সুন্দর জটিল দৃষ্টিতে দেখবেন। ভালো থাকুন।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ সকাল ১১:২৩

জটিল ভাই বলেছেন:
হাহাহাহাহাহা..... বিগত মারের প্রতিশোধ নিলেন কি ভাবি মডু? =p~
এখানে মডু হতেও আপনাকে এমন খিঁচুড়ি নিয়েই কাজ করতে হবে। চাইলে জিলিপি নিয়েও কাজ করতে পারেন। শুনছি কাঁচা আমাের জিলিপি নাকি হেব্বি মার্কেট পেয়েছে! =p~
না ভাই, নিজে ব্লগ খুলে ধান্দা করার মন বা মত কোনটাই নাই। যদ্দিন পরের ধনে পোদ্দারি চলে তদ্দিনই চালিয়ে যেতে চাই =p~

১০| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ সকাল ১১:১৬

নিমো বলেছেন: *সার্বজনীনতা

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ সকাল ১১:২৫

জটিল ভাই বলেছেন:
হারহামেশায় আমিও এমন সর্বজনীনতা আর সার্বজনীনতার দ্বন্দে ভুগী :D

১১| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ সকাল ১১:৫৬

কাজী ফাতেমা ছবি বলেছেন: জটিল লিখা এত প্যাঁচপুচ বুঝি না

তবে আমার লেখাগুলো ইদানিং পাঠকশূণ্যতায় ভুগছে :(

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ দুপুর ১২:৪৪

জটিল ভাই বলেছেন:
জাজাকাল্লাহ্। তবে হাজারো কুপাঠকের চাইতে মনে করি একজন সুপাঠক অতিউত্তম। তাই পাঠশূণ্যতা নিয়ে হতাশ হবেন না।

১২| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ দুপুর ১২:০৫

গেঁয়ো ভূত বলেছেন: অনেক জটিল লেখা হইছে প্রিয় জটিল ভাই। অনেকেই অনেক জটিল জটিল মন্তব্য লিখে দিয়েছেন তাই আমার আর নতুন করে কিছুই বলার নাই। শুধু এটুকুই বলবো স্বকীয়তা কখনো বিসর্জন দেবেন না। দেখেন আপনি আমার কোনো পোস্ট এ কখনো মন্তব্য করেননি, পড়েন কিনা তাও জানিনা, তবুও আপনার ব্লগ এ আসি কেন? ভালো লাগে বলেই তো।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ দুপুর ১২:৫৪

জটিল ভাই বলেছেন:
অভিযোগ গুরুতর। সেজন্যে কায়মনোবাক্যে ক্ষমা প্রার্থনা করছি প্রিয় মল্লিক ভাই। যদিওআমার দিক হতে ঘটনা সত্য নয়। যতদূর মনে পরে আপনার শেষ লিখাতেও আমার মন্তব্য বিদ্যমান। তবে সময় সুযোগের অভাবে সব লিখা পড়ি আর মন্তব্য করি সে দাবী করতে পারবো না। আর আপনার লিখার পরিমাণ অনেক কম যার কারণে এমন হয়েছে। কারণ, ব্লগে খুব কম সময় নিয়ে পড়তে আসা হয়। সেক্ষেত্রে তখন প্রথম পাতায় বা ২/৩ পৃষ্ঠা পড়ার পর আর আগে বাড়ার সুযোগ থাকেনা। ফলে আপনার লিখা অনেক সময় চোখ এড়িয়ে যায়। আবার লগনিন না করে অনেকের লিখা পড়ে মন্তব্য ভেবে রাখলেও পরে আর করা হয় না। আবার অনেক সময় ক্যাঁচাল এড়াতে মন্তব্য হতে দূরে থাকি। আবার অনেক লেখার টপিকে জ্ঞাণ কম থাকায় মন্তব্য করা হয় না। আশা করি এসকল দোষ ক্ষমাসুলভ দৃষ্টিতে দেখবেন। তাই বলে আপনাদের ভালবাসাতে যেমনি টিকে আছি তেমনি চেষ্টা করি সর্বোচ্চ ভালবাসতে। যদিও হয়তোবা সময় ও সুযোগের অভাবে তেমন প্রকাশ ঘটেনা। তাই বলে আমায় দয়া করে এমনভাবে অভিযুক্ত করবেন না প্রিয়।
জাজাকাল্লাহ্।

১৩| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ দুপুর ১২:১২

নীল আকাশ বলেছেন: অন্য কারো কথায় না উপদেশে লিখতে হয় না। এতে লেখার স্বকীয়তা থাকে না।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ দুপুর ১২:৫৫

জটিল ভাই বলেছেন:
জাজাকাল্লাহ্। শতভাগ সহমত প্রিয় ভাই। লিখা চলুক আপন গতিতে।

১৪| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ দুপুর ১:৩৯

প্রামানিক বলেছেন: পুরোটাই পড়লাম। কথাগুলো যুক্তিযুক্তই বটে।

১১ ই এপ্রিল, ২০২২ দুপুর ২:২৫

জটিল ভাই বলেছেন:
জাজাকাল্লাহ্ তা এখন শরীর কোমন ভাই?

১৫| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ১১:৩২

জিকোব্লগ বলেছেন: জটিল ভাইয়ের জটিল কথা !

১২ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ৩:৫১

জটিল ভাই বলেছেন:
জাজাকাল্লাহ্।

১৬| ১১ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ১১:৪৪

জিকোব্লগ বলেছেন:



নিমোকে যতদূর মনে পড়ে সোনাগাজী গ্রূপের সদস্য হলেও হতে পারে। তবে ১০০% সিউর না।
নিমো আপনাকে ব্লগ ছাড়ার পরামর্শ দিচ্ছে , কাহিনী কী B:-)

১২ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ৩:৫৫

জটিল ভাই বলেছেন:
আমি যদ্দূর জানি তিনি কাভা গ্রুপের সদস্য হতে জোর প্রচেষ্টারত। =p~ তবে যদি আপনার সন্দেহ সত্যি হয় তবে হয়তো কাভা গ্রুপের সদস্য হয়ে কাকে-কাকে ব্লগ ছাড়া করবেন তার লিস্ট তৈরী করতে উহার লিস্টের সাহায্য গ্রহণ করিতেছেন। =p~ আপাতত আমি তিনাকে মডু হতে গাইডলাইন দিচ্ছি =p~

১৭| ১২ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ১২:২৮

নিমো বলেছেন: জিকোব্লগ বলেছেন:নিমোকে যতদূর মনে পড়ে সোনাগাজী গ্রূপের সদস্য হলেও হতে পারে। তবে ১০০% সিউর না।
আপনার অমুককে তমুক মনে হওয়া রোগের চিকিৎসা করুন।

জিকোব্লগ বলেছেন:নিমো আপনাকে ব্লগ ছাড়ার পরামর্শ দিচ্ছে , কাহিনী কী B:-)
আপনি যে পোস্ট না পড়েই উড়া ধুরা মন্তব্য করেন, এটাই হল কাহিনী। জটিল ভাই বুঝেছেন, আর সেই মতই মন্তব্যের জবাব দিয়েছেন। চুলকানি বেশি হয়ে থাকলে, জটিল ভাইয়ের অব্যর্থ মলম লাগান।

১২ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ৩:৫৮

জটিল ভাই বলেছেন:
হাহাহাহাহাহা...... মডু হইতে চাইলে এতো ক্ষ্যাপিলে চলিবে? =p~ চরম ধৈর্য্যর পরীক্ষা দিতে হইবে! রেগে গেলেন তো হেরে গেলেন! আর রাগলে সন্দেহ সঠিক হইবার সম্ভাবনা অধিক! মডুর কষ্টের খবর মেয়েদের মতো করে শুধু মডুর বালিশ জানবে =p~

১৮| ১২ ই এপ্রিল, ২০২২ সকাল ৭:৪৬

নিমো বলেছেন: লেখক বলেছেন:
হাহাহাহাহাহা...... মডু হইতে চাইলে এতো ক্ষ্যাপিলে চলিবে? =p~

ভাইজান ক্ষেপিলাম কোথায় ? বেশি বেশি ওয়াঁ ওঁয়া করা শিশুকে মাঝে মাঝে পাছায় চাপড় মারিয়া শান্ত করিতে হয়। তাহাই করিলাম মাত্র।

লেখক বলেছেন:চরম ধৈর্য্যর পরীক্ষা দিতে হইবে!
আপনাকেও তো আমার উত্তর বুঝিয়া, মন্তব্য করিতে হইবে।

লেখক বলেছেন:আর রাগলে সন্দেহ সঠিক হইবার সম্ভাবনা অধিক!
সন্দেহবাতিকগ্রস্ততার মলমও বেঁচিবার চেষ্টা করিয়া দেখুন, সাফল্য আসিবে।

লেখক বলেছেন:মডুর কষ্টের খবর মেয়েদের মতো করে শুধু মডুর বালিশ জানবে =p~
আপনি ও জিকো যে মডুর বালিশ হইতে উদ্গ্রীব, ইহা জানিয়া যারপরনাই হাসির উ্দ্রেক ঘটিল।

১৯| ১২ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ১১:০৩

জিকোব্লগ বলেছেন:



@নিমো , আপনার সোনাগাজী / চাঁদগাজীকে সাপোর্ট দেওয়ার
মন্তব্য আমার চোখ এড়িয়ে যায় নি। কিন্তু আমি বলছি 'সোনাগাজী
গ্রূপের সদস্য হলেও হতে পারে। মন্তব্য সঠিক ভাবে পড়েন নি।

মন্তব্য সঠিক ভাবে না পড়ে আবালের মতন প্যাচাল পারছেন। মনে হয় জায়গা মত লেগেছিল।

দেখেন মন্তব্য সঠিক ভাবে পড়তে পারার অব্যর্থ মলম সোনাগাজীর কাছে থেকে নিতে পারেন কী না।

২০| ১২ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ১১:৩০

নিমো বলেছেন: জিকোব্লগ বলেছেন:@নিমো , আপনার সোনাগাজী / চাঁদগাজীকে সাপোর্ট দেওয়ার
মন্তব্য আমার চোখ এড়িয়ে যায় নি।

তা সেটা একটু এখানে পেশ করুনতো জনাব। দেখি কিভাবে আমি সমর্থন করেছি। প্রয়োজন হলে আপনিও আমার সমর্থন পাবেন।
ব্লগ ছাড়ার কথাটা আমি কোথায় বলেছি ? সেটাও দেখাবেন। সারাক্ষণ ধর্মের বুলি, আচরণে তার ছিঁটেফোঁটাও নেই কেন ?

২১| ১৩ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ১১:২৪

জিকোব্লগ বলেছেন:



@নিমো , আমি মুসলিম। আমি ইসলাম ধর্মকে সমর্থন করি। তাই আমি ইসলাম ধর্ম সম্পর্কিত
পোস্টকেও সাপোর্ট দেই, সেটা যে ই লেখুক না কেন। সারাক্ষণ ধর্মের বুলি বলা কোথায় দেখলেন?
ধর্ম নিয়ে মনে হয় আপনার একটু চুলকানি আছে। কোনো দিন যদি মলম বিশেষ জায়গা মতন
পড়ে তখন আপনার এই চুলকানি ভালো হলেও হতে পারে। নচেৎ চুলকানির জ্বালায় আবোল
তাবোল প্রলাপ বকতেই পারেন। ক্রনিক চুলকানি হলে কোনো মলম-ই কাজ করবে না। তখন
চুলকানির তীব্র জ্বালায় সারাজীবন-ই আপনি আবোল তাবোল প্রলাপ বকতেই পারেন।
সোনাগাজী / চাঁদগাজীকে কোথায় কোথায় সাপোর্ট করেছেন , আপনি নিজেই আপনার মন্তব্যের
হিস্ট্রি ঘেটে দেখুন। স্ক্রিনশট দিয়ে দিয়ে আপনাকে নিয়ে এনালাইসিস করার আমার সময় নাই।

আপনার চুলকানি ভালো হোক , এই শুভ কামনা রইলো।

২২| ১৩ ই এপ্রিল, ২০২২ রাত ১১:৩১

নিমো বলেছেন: জিকোব্লগ বলেছেন: স্ক্রিনশট দিয়ে দিয়ে আপনাকে নিয়ে এনালাইসিস করার আমার সময় নাই।
হা হা হা! কিন্তু ১৬ নাম্বারে আমাকে নিয়ে মন্তব্য করার সময় পাওয়া গিয়েছিল। আপনারা পারেনও।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.