নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

কিচ্ছুটি বলার নাই.......

জটিল ভাই

ঝটট্রিল সব জটিলতা

জটিল ভাই › বিস্তারিত পোস্টঃ

প্রয়াত নিক সম্পর্কে কপি-পেস্ট যুক্ত করে কৌতুক করা যাবে কি?

২৬ শে এপ্রিল, ২০২২ সন্ধ্যা ৬:২০

বিসমিল্লাহিররাহ্'মানিররাহিম।
আসসালামুআলাইকুম।


(সামুর স্ক্রিনসট)

মানুষ মিথ্যাবাদী হয়? নাকি মিথ্যাবাদী মানুষ হয়?

কিছু মানুষের তিলকে তাল করার অবস্থা দেখলে উপরের কথাটা বারবার মাথায় আসে। অনেকের মতে তারা সঠিক পরিবেশ না পাবার কারণে বখে গেছে। আবার কেউ বলেন তাদের সঠিক শিক্ষার অভাব। তবে আমি মনে করি তাদের পরিবেশ হতে উঠে আসা তাদের এমন অস্বভাবিক করে তুলে। যে যেমন পরিবেশ হতে উঠে এসেছে সে মরলেও তার আচরণে সেই পরিবেশের প্রভাব থাকবে। তাইতো বলা হয়, ঢেঁকি স্বর্গে গেলেও ধানই ভানে। তেমনি এক উদাহরণ যুদ্ধাপরাধী সাকা চৌধুরী। তার প্রতিটি বাক্য ছিলো দাম্ভিকতা পূর্ণ যা মৃত্যু অবধি বহাল ছিল। এতো কিছুর পরও তার আচরণে পরিবর্তন আসেনি কারণ অবশ্যই শিক্ষা নয়। কারণ শিক্ষা হলে তার সহপাঠি সবাই যুদ্ধাপরাধী হতো। কিন্তু অবশ্যই তার সহপাঠিদের মাঝে দেশপ্রেমিক আছে। বরং তার অনুসারিদের মাঝেই দেশদ্রোহীতা থাকা স্বাভাবিক।

ভাবতে পারেন এতোদিন বাদে শুধু-শুধু এমন মৃত একজনকে কেন টেনে আনছি? তার কারণ হলো, এই ব্লগেরও তেমন একজন সাজাপ্রাপ্ত ও ব্যানকৃত যার মন্তব্যে সাকা চৌধুরীর মতো ভাব প্রকাশ ঘটতো। আবার তার মতো নিজেকে শুধু দেশপ্রেমী নয়, জাতীয় বীর পর্যায়ের দাবীদার ছিলো সেই ব্যক্তি। কিন্তু সে প্রয়াত হলেও এখন মনে হচ্ছে তার এক অর্বাচীন অনুসারি আবার ডাল-পালা মেলতে জোর প্রচেষ্টারত। তার আচরণ অনেকটা গ্রাম্য প্রবাদ বাপের আগে বিয়া করার মতো। নয়তো দুইদিনের বৈরাগী হইয়া ভাতেরে অন্ন কইতো না যদি সুপরিবেশ আর সুমানুষের ছায়ায় বেড়ে উঠতো।


(সামুর স্ক্রিনসট)

তা এই পর্যায়ে প্রথমআলোতে প্রকাশিত সাকা চৌধুরী সম্পর্কে "সাকার যতো দম্ভোক্তি" নামক একটি লিখা সরাসরি তুলে ধরছি। বিষয়টা অনেকেরই হয়তো জানা। তবুও দিচ্ছি যেনো মৃত্যুর আগ মুহুর্তেও একজন দেশদ্রোহীর উক্তি বিবেচনাপূর্বক পাঠক অন্য ব্যক্তি সম্পর্কে ধারণা করতে পারে যার কথায় একজন দেশদ্রোহীর কথা বলার ঢং বিদ্যমান বলে আমার মনে হয়। যদি আমার ধারণা ভুল হয় সেজন্যে ক্ষমাপ্রার্থী। তা প্রথমআলোতে যেভাবে লিখা হয়েছে-

মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল ও এই বিচার নিয়ে সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরী বারবার কটাক্ষ করেছেন। বিচারের প্রতিটি পর্বে নিজের অতীত ও বর্তমান নিয়ে দম্ভোক্তি করেছেন। রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলির প্রতি বিদ্রূপ করেছেন।
সাকা চৌধুরীকে গ্রেপ্তার করা হয় ২০১০ সালের ১৬ ডিসেম্বর দিবাগত রাতে। মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল তাঁকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর। বিচার চলাকালীন করা সাকা চৌধুরীর কিছু দম্ভোক্তি পাঠকের জন্য তুলে ধরা হলো—
২০১৩ সালের ১ অক্টোবর রায় ঘোষণার সময় ট্রাইব্যুনাল ৩ নম্বর অভিযোগ পড়ার সময় সাকা চৌধুরী বলেন, ‘যুদ্ধে ৩০ লাখ লোক মারা গেছে তো? লেইখা দিলেই হয়, তার মধ্যে ২০ লাখ আমি মারছি...।’ তিনি বলেন, ‘রায় তো গতকালই ওয়েবসাইটে পাওয়া গেছে। এই রায় এখান থেকে হয়নি। এই রায় বেলজিয়াম থেকে এসেছে।’ রায় ঘোষণার শুরুতে সাকা চৌধুরীকে পাঁচবার নির্বাচিত সাংসদ বলে উল্লেখ করেন বিচারপতি আনোয়ারুল হক। এ সময় সাকা চৌধুরী বলেন, ‘কয়বার সাংসদ নির্বাচিত হয়েছি তাও বলতে পারে না।...এত মিথ্যা কথা বলছে, ওটা লিখতে ভুলে গেছে।’
রায়ের প্রথম অংশ পড়ার একপর্যায়ে সাকা চৌধুরী বলেন, ‘আমাকে লক্ষ লক্ষ মানুষ রায় দিয়ে নির্বাচিত করেছে, আর আমি এই তিনজনের রায় শুনতে এসেছি...।’
নূতন চন্দ্র সিংহকে হত্যার অভিযোগের বর্ণনার সময় ট্রাইব্যুনাল বলেন, তিনি একজন জনপ্রিয় মানুষ ছিলেন। সঙ্গে সঙ্গে সাকা চৌধুরী মন্তব্য করেন, ‘সে মদ বেচত।’
সাজা ঘোষণা শুরু হলে সাকা চৌধুরী বলেন, ‘তাড়াতাড়ি ফাঁসি দিয়ে দাও। সাঈদীর মতো লোকরে ফাঁসি দিছে, আমি তো মস্ত বড় গোনাগার।’ রায় পড়া শেষে তিনি উচ্চ স্বরে বলতে থাকেন, ‘এ রায় তো আগেই আইন মন্ত্রণালয় থেকে বেরিয়েছে। এ জন্য আইন মন্ত্রণালয়কে ধন্যবাদ।...রায় এসেছে বেলজিয়াম থেকে। এরা শুধু মুখ নাড়ছে।’ রায় পড়ার সময় বিচারকদের কটাক্ষ করে সাকা চৌধুরী বলেন, ‘কী ইংরেজি লিখছে? নিজেরাই পড়তে পারছে না।’ রায়ে স্বাধীনতাযুদ্ধের দলিলপত্রের প্রসঙ্গ এলে টিপ্পনী কাটেন, ‘সহি হাদিস’।
২০১২ সালের ১৪ মে আদালতকক্ষের শৃঙ্খলাভঙ্গ এবং চিৎকার করে কথা বলার জন্য সাকা চৌধুরীকে সতর্ক করেছিলেন ট্রাইব্যুনাল। এতে সাকা চৌধুরী উচ্চ স্বরে বলেছিলেন, ‘মিস্টার নিজামুল হক (ট্রাইব্যুনাল-১-এর তৎকালীন চেয়ারম্যান বিচারপতি নিজামুল হক), ডোন্ট শো ইউর রেড আইজ, আই রিকোয়েস্ট ইউ উইথ ডিউ রেসপেক্ট অ্যান্ড হিউমিলিটি।’ (জনাব নিজামুল হক, চোখ রাঙাবেন না, যথাযোগ্য শ্রদ্ধা ও বিনয়ের সঙ্গে বলছি।)
২০১০ সালের ৩০ ডিসেম্বর ট্রাইব্যুনালে প্রথম হাজিরার দিন সাকা চৌধুরী বলেন, ‘আমি সিটিং মেম্বার অব পার্লামেন্ট। আমাকে কথা বলতে দিতে হবে। বর্তমান সরকার কারজাই সরকার। এই কারজাই সরকারকে মানি না।’ ট্রাইব্যুনালে বিএনপির সমর্থক ও আইনজীবীদের ঢোকা নিয়ে হইচই হলে তিনি বলেন, ‘প্রয়োজনে ৫০০ কেন, ৫০০০ আইনজীবী আসবে। প্রয়োজনে কারওয়ান বাজার, পল্টন ময়দানে বিচার হবে।’
২০১১ সালের ১৭ জানুয়ারি শুনানির দ্বিতীয় দিনে এজলাসে ঢুকেই সাকা চৌধুরী বলেন, ‘এটা কি ক্যামেরা ট্রায়াল? পাবলিক ট্রায়াল হতে হবে। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের যদি পাবলিক ট্রায়াল হয়, আমারটা কেন পাবলিক ট্রায়াল হবে না?’
রাষ্ট্রপক্ষ ২০১১ সালের ২০ এপ্রিল জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি চাইলে সাকা চৌধুরী বলেন, ‘গণ-আদালতে একবার এ অপরাধে বিচার হয়েছে। এক খাসি কতবার কোরবানি দেবেন?’ ২০১১ সালের ২৪ নভেম্বর ট্রাইব্যুনালে সাকা চৌধুরী বলেন, ‘আমাকে কোনো অভিযোগ ছাড়া গ্রেপ্তার করে তারপর তদন্ত করা হলো। ব্যাপারটা এমন—বাপের পরিচয় ছাড়া ছেলের শাদি হয়ে গেছে। এখন বাপের পরিচয় হালাল করতে বাপের বিয়ে করাচ্ছে।’

এবার হতে একটু খেয়াল করে দেখবেন এভাবে অন্যকে ক্রিটিসিজমের মাধ্যমে নিজেকে জ্ঞাণী জাহিরের যারা চেষ্টা করে তারা কি স্বরচিত কৌতুক করে? নাকি……….

মহান রাব্বুল আল-আমিন আমাদের সঠিক বুঝ দান করুন।

আল্লাহ্ হাফিজ।

মন্তব্য ২ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (২) মন্তব্য লিখুন

১| ২৭ শে এপ্রিল, ২০২২ রাত ১১:১৭

জিকোব্লগ বলেছেন: আপনাকে কি জেনারেল করেছে ?

২৮ শে এপ্রিল, ২০২২ ভোর ৫:৩১

জটিল ভাই বলেছেন:
হাহাহাহাহাহা...... না, আলহাম্দুলিল্লাহ্ সেইফ আছি :)
ঈদ সামনে তাই ব্যস্ত। সেইসসাথে ব্লগের ঊপর হতে আবারো মন উঠে যাচ্ছে। অবশ্য সেটা হলেই আমার জন্যে উত্তম। অপ্রয়োজনে অনেক সময় নষ্ট হচ্ছে।
খবর নেবার জন্যে আন্তরিক জটিলবাদ প্রিয় ভাই।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.