নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

এই ঈষদোষ্ণ রোদ্দুর মিছিলে স্বাগতম

রোদ্দূর মিছিল

দলছুট এক ইউক্যালিপটাস ছালহীন দেহে মাখে কুয়াশার হিম নিঃসঙ্গ বেদনায়। পাতা ঝরার আর্তনাদে ভেঙ্গে খান খান নিরবতা। ক্যানভাসের বিমূর্ত ছবির মত এলোমেলো আমার অনুভূতিগুলো আঁধারের হাতছানিতে নিমজ্জিত - কিছুটা সময়। অঃতপর- রাত্রির আঁধার ভেঙ্গে চলি শুন্য রাজপথে দূরের চাঁদ আলো ফিরিয়ে নেয় মন হারায় আঁধার মরুতে।

রোদ্দূর মিছিল › বিস্তারিত পোস্টঃ

আনকনভেনশনাল: বেঁচে থাকা অথবা.../রোদ্দুর মিছিল

১৬ ই মার্চ, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪৬


"ন রাখি মাটিতে, ন রাখি পাটিতে, ন রাখি পালঙ্কের 'পরে
সিঁথির সিঁদুরে রাখিব বন্ধুরে বাঁধিয়ে রেশম ডোরে ...."

...মহা জ্বালা তো! মেয়েটা ইদানিং স্বপ্নেও আসতে শুরু করেছে...

ভাবলো অনিমেষ অথবা জীবনানন্দ অথবা আহম্মদ উল্লাহ্। থাক না নামটা। নামে কী-ই বা আসে-যায়?

...হ্যাঁ, স্যোসাল সাইন্সে পড়ে যে মেয়েটা। আর প্রতিদিন শাটল ট্রেনের ১০০৮৫৬৩ নাম্বারের বগীটায় করে ভার্সিটিতে যাতায়াত করে একঝাক বন্ধুদের সাথে...

তিরতির করে কাঁপতে কাঁপতেই কাবার্ড থেকে এম্পুল আর ডিস্পোজ্যাবল সিরিঞ্জের প্যাকেটটা বের করলো নিকোলাস অথবা প্রমতোষ অথবা আল-আমিন।

...আহা! কি মিষ্টি গলা! প্রানের কোথায় যেন গিয়ে টুপ করে ঢুকে পড়ে সেই হ্যাভেনলি গলার গান। সুরের সাথে আবেগে মাখামাখি হয়ে আহ্লাদে আটখানা হয় যেন বাণীগুলো । আর এই সুর-বাণীর বেপরোয়া বেলেল্লাপনা ইথারে মিশে গিয়ে সৃষ্টি করে অনন্ত কালের মায়াময়তা। বেঁচে থাকার অথবা জন্মান্তরের ক্ষুধা হয় সুতীব্র । প্রায়শই শোনা হয়ে যায় বুকে কাঁপন জাগানিয়া সে সুরেলা আওয়াজ ওরই বন্ধুদের অনুরোধের কল্যাণে...

এম্পুলের মাথাটা অলস কাঠ-ঠোকরা পাখির নিতান্ত বে-খেয়ালে একটা ঠোকর মারার মত মৃদু শব্দ করে ভেঙ্গে গেল। ভাবনায় একটু ছেদ পড়লো আরশাদ উল্লাহ্ অথবা যোসেফ অথবা পরিমলের। সীল করা প্লাস্টিকের প্যাকেট থেকে সিরিঞ্জটা বের করবার সময় যথারীতি সেই বিরক্তিকর পটপট টাইপ শব্দটা হলো। এই প্লাস্টিকের আওয়াজটা অন্য সাধারণ প্লাস্টিকের প্যাকেটের আওয়াজের মত নয়। কেমন যেন গায়ে পড়ে খুনসুটি করা মানুষগুলোর খ্যাসখ্যাসে গলার মত।

...আনমনেই হয়তো বা দৃষ্টি স্হির হয়ে যায় মেয়েটার মুখের দিকে তখন। তা না হলে ওর সাথে ক্রাশ খাওয়া, না ভুল হল, ওর ভয়ানক অবিশ্বাস্য রেজাল্টের সাথে ক্রাশ খাওয়া মেয়েগুলো এমন করে তাকাবে কেন ওর দিকে? নিশ্চয়ই খুব ছ্যাবড়া ছ্যাবড়া লাগে দেখতে ওকে তখন...

ভাবলো উমর ফারুক অথবা নিত্যানন্দ অথবা গৌতম।

...ভাগ্যিস, মেয়েটা ওর এই ক্ষেত ক্ষেত চাহনিটা অত দূর থেকে ঠিক ঠাওর করতে পারেনা। তা নাহলে ওর অমন মিষ্টি চেহারাটা কৎবেলের মতো হয়ে যেত। মৌ-চাকের মত মধু-ঠাসা ওই কন্ঠ থেকে মিষ্টি সুরের বদলে হয়তো বেরুতো কেবল যাঁতাকলের ঘর-ঘর...

তীব্র আর অসহ্য ব্যাথার মধ্যেও ভীষণ হাসি পেল জীবরান অথবা ক্রিস্টোফার অথবা সমরেশের।

...অথচ স্বপ্নে সে কিছুই মনে করে না - হোকনা সে বোকা বোকা দৃষ্টিতেই তাকিয়ে থাকা। তবুও কি অবলীলায়ই না তাকে বলে দেওয়া যায়, "আমি তোমার সঙ্গে বেঁধেছি আমার প্রাণ"! নাহ্ , থাক। বরং "সেই ভালো, সেই ভালো/ আমারে না হয় নাl জানো"...

চামড়ায় তিক্ষ্ণ চুম্বন দিয়ে শিরার খুব মধ্যে অবাধ ঢুকে গেলো নাছোরবান্দা মরফিন - সূঁচালো ধাতব গলিপথ ধরে। একটু পরেই ব্যাথারা সব হাওয়ায় মিলিয়ে যাবে, আর সুতীব্র ঘুমের কোলে নেতিয়ে পড়বে অর্ফিয়াস অথবা দূর্যোধন অথবা বিম্বিসার।

ছবি: ইন্টারনেট

মন্তব্য ৬ টি রেটিং +১/-০

মন্তব্য (৬) মন্তব্য লিখুন

১| ১৬ ই মার্চ, ২০১৮ রাত ৯:১৯

ক্লে ডল বলেছেন: পুরো লেখাটা দারুন লেগেছে! কিন্তু মরফিনের চুম্বন ভাল লাগেনি। অর্ফিয়াস অথবা দূর্যোধন অথবা বিম্বিসার ভাল থাকুক।
ছবিটাও ভাল লাগেনি।

১৬ ই মার্চ, ২০১৮ রাত ১০:০৫

রোদ্দূর মিছিল বলেছেন: যে মানুষগুলো মরফিনের উপরেই বেঁচে আছে; নেশাসক্ত হয়ে নয়, বরং এছাড়া আর কোনও উপায় নেই বলে, তাদেরকে ইগ্নোর করি কিভাবে? ভালো আমারও লাগেনা এমন বেঁচে থাকার গল্প শুনতে। কিন্তু সত্য কঠিন হলেও তা সত্যই। আপনার মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। ভালো থাকুন।

২| ১৬ ই মার্চ, ২০১৮ রাত ১০:১৭

সোহানী বলেছেন: ওয়াও আই লাইক ইট!!!

ফলো করলাম আরো কিছু জানার আগ্রহে!

১৬ ই মার্চ, ২০১৮ রাত ১০:২০

রোদ্দূর মিছিল বলেছেন: ধন্যবাদ। শুভেচ্ছা জানবেন।

৩| ১৮ ই মার্চ, ২০১৮ সকাল ১১:৫৩

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন: মাদকের ছোবলে জীবন শেষ যুবকের সাথে স্বপ্নও।

১৯ শে মার্চ, ২০১৮ রাত ১:২৯

রোদ্দূর মিছিল বলেছেন: এখানে ঠিক মাদকাসক্তির কথা বলা হয়নি। একটি রেয়ার বোন এ্যান্ড স্পাইন ডিসঅর্ডার সিম্পটমের সাথে নিত্য লড়াইরত এক যুবকের গল্প বলা হয়েছে, যেখানে ব্যাথার পরিমাণ অসহনীয় পর্যায়ে চলে গেলে মরফিন ব্যবহার করে নিবারণ করার ব্যাপারে প্রেসক্রাইব করা হয়েছে - যেহেতু অন্য কোন এ্যানালযেজিক কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারেনা। এই ডিজঅর্ডার এমন কি ক্যান্সারাসও হতে পারে, অর্থাৎ বোন ক্যান্সারেও রুপ নিতে পারে। ধন্যবাদ আপনার মন্তব্যের জন্য। দেরীতে প্রত্যুত্তর করার জন্য দুঃখিত।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.