নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

জানার আছে অনেক কিছু, শিক্ষা নিবে কতজন?

শাইয়্যানের টিউশন (Shaiyan\'s Tuition)

সবার জন্যে শিক্ষা। আমার জন্যে তো বটেই। নিজে আগে শিক্ষা নিয়ে আরেকজনের মাঝে তা ছড়িয়ে দেওয়া...এটাই থাকবে আমার লেখাগুলোর উদ্দেশ্য।

শাইয়্যানের টিউশন (Shaiyan\'s Tuition) › বিস্তারিত পোস্টঃ

স্বস্তিকা প্রতীকঃ শুধু হিটলার নয়, পৃথিবী\'র বিভিন্ন জাতি, ধর্ম ১২০০০ বছর ধরে ব্যবহার করে আসছে

১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:০০



স্বস্তিকা এমন একটি প্রতীক যা দেখে মানুষ এখন ভয় পায়। এই ভয় পাওয়ার পিছনে কারণও আছে। বিংশ শতাব্দীতে এই চিহ্নটি এমন এক ঘৃণিত মানুষ ব্যবহার করেছিলো যার হাতে লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়। শুধু তা-ই নয়, এই মানুষটি'র কারণে পৃথিবীর সবচেয়ে ভয়ংকর ও ধ্বংসাত্মক যুদ্ধ সংঘটিত হয়। এডলফ হিটলারের এসব কাজের কারণেই আজ স্বস্তিকা প্রতীকটি মানুষের মনে ভয় জাগায়। অথচ, হিটলারের আগেও এই চিহ্নটি হাজার হাজার বছর ধরে বিভিন্ন জাতিসত্বা একটি শক্তিশালী প্রতীক হিসেবে ব্যবহার করে আসছিলো।


যেভাবে স্বস্তিকা প্রতীকের আধ্যাত্মিক চর্চার শুরু হলো

ভারত ও অন্যান্য দেশের হিন্দু এবং বৌদ্ধরা হাজার হাজার বছর ধরে স্বস্তিকা ব্যবহার করে আসছে। এমনকি আজও এই প্রতীকটি মন্দির, বাস, ট্যাক্সি এবং বইয়ের মলাটে দেখা যায়। এটি প্রাচীন গ্রীস আর রোমের অধিবাসীরাও ব্যবহার করতো। ধ্বংস হয়ে যাওয়া প্রাচীন শহর ট্রয়ের ধ্বংসাবশেষের মধ্যেও এই চিহ্নটি ছিলো। প্রাচীন ড্রুইড আর সেল্টস জাতিও এই স্বস্তিকা চিহ্ন ব্যবহার করতো বলে তাদের ব্যবহার্য দ্রব্যগুলোতে প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে। স্ক্যাণ্ডিনেভিয়ার ফিনল্যাণ্ডের অধিবাসী নরডিক গোত্রও এটি ব্যবহার করতো। শুধু
তা-ই নয়, প্রথম দিকের খ্রিস্টানরাদের মাঝেও স্বস্তিকা চিহ্ন ব্যবহারের প্রমাণ আছে। মধ্যযুগের ক্যাথলিক খ্রিস্টানদের সামরিক দল টিউটনিক নাইটরাও স্বস্তিকা প্রতীকটি ব্যবহার করতো। কিন্তু, প্রশ্ন হচ্ছে, কেন এই চিহটি এতো গুরুত্বপূর্ণ আর কেনইবা এডলফ হিটলার তা ব্যবহার করলেন?




যে সময়ে স্বস্তিকাকে ভালো চোখে দেখা হতো

স্বস্তিকা একটি সংস্কৃত শব্দ যার অর্থ 'এইটি', 'ভালো হওয়া', 'ভালো অস্তিত্ব', এবং 'সৌভাগ্য'। যদিও বিভিন্ন দেশে এই প্রতীকটি বিভিন্ন নামে পরিচিত। যেমন- চীনে এটি 'ওয়ান', জাপানে 'মাঞ্জি', ইংল্যান্ডে 'ফিলফেট', জার্মানীতে 'হেকেংক্রোইয়েয', গ্রীসে 'টেট্রাস্কেলিয়ন' বা 'ঠেট্রাগামাডিওন'।

১৯৭৯ সালে, সংস্কৃত পন্ডিত পি,আর, সরকার স্বস্তিকার গূর অর্থ 'স্থায়ী বিজয়' বলে মত ব্যক্ত করেন। তিনি এও বলেছিলেন যে, প্রত্যেকটি প্রতীকের মতোই স্বস্তিকারও ইতিবাচক এবং নেতিবাচক অর্থ রয়েছে। আর, তা নির্ভর করে কিভাবে তা আঁকা হয়। উপরের ছবিটির ডান দিকে স্বস্তিকা চিহ্নটি ভগবান বিশসূ ও সূর্যের প্রতীক। আর, বামেরটি কালী ও যাদু'র প্রতীক।

যে কোন প্রতীকের এই দ্বৈত অর্থ প্রাচীন কালেও ছিলো। যেমন- প্যান্টাগ্রাম প্রতীকটি যদি নিচের দিকে হয়, তাহলে তা নেতিবাচক হিসেবে ধরা হতো। আর, উপরের দিকে হলে ইতিবাচক অর্থ বোঝাতো।




স্বস্তিকা'র ১২০০০ বছরের ইতিহাস

ইউক্রেনের মেজিনে আইভরি দিয়ে বানানো ১২০০০ বছরের পুরোনো একটি ক্ষুদ্র প্রস্তরমূর্তি পাওয়া গিয়েছে যাতে স্বস্তিকা চিহ্নটি খোদাই করা। আজ থেকে ৮০০০ বছর আগে নবপ্রস্তরযুগের দক্ষিণ ইউরোপ, আজ যা সার্বিয়া, ক্রোশিয়া, বসনিয়া ও হারজগভিনা নামে পরিচিত, সেই অঞ্চলে ভিংকা নামে একটি সংস্কৃতি ছিলো যেখানে স্বস্তিকা ব্যবহৃত হতো।

বৌদ্ধ ধর্মে স্বস্তিকা সৌভাগ্য, সমৃদ্ধি, প্রাচুর্য এবং অনন্তকালের প্রতীক। এই চিহ্নটি সরাসরি বুদ্ধের সাথে সম্পর্কিত। বুদ্ধ মূর্তির বুকে এবং পায়ের পাতায় এই প্রতীকটি দেখা যায়। বৌদ্ধরা মনে করে, এই চিহ্নটি হচ্ছে 'বুদ্ধের মন'।

রোমের অবস্থিত খৃষ্টান ক্যাটাকম্বসে স্বস্তিকা চিহ্নটি 'যোটিকো যোটিকো' শব্দের পাশে অংকিত আছে। এই শব্দ দুটোর মানে- 'প্রাণের প্রাণ'। স্বস্তিকা প্রতীকটি ইথিওপিয়ার রহস্যময় 'লেলিবেলা চার্চ'-সহ পৃথিবী'র বিভিন্ন চার্চে দেখা যায়।

ফিনল্যাণ্ডের অধিবাসী নরডিক গোত্রে স্বস্তিকাকে 'ওডিন' নামে পরিচিত ছিলো যার অর্থ 'ঘুরন্ত চাকতি হয়ে শূণ্য স্থা্নে গমন' বা 'স্বস্তিকা সকল বিশ্বের মাধ্যমে নিচে দেখছে'। উত্তর আমেরিকার নাভাজো রেড ইন্ডিয়ানরাও স্বস্তিকা চিহ্ন ব্যবহার করতো। প্রাচীন গ্রীসে, পন্ডিত পিথাগোরাস স্বস্তিকাকে 'টেট্স্তিকাকেনামে অভিহিত করে এর অর্থ করেন - 'যে প্রতীক আকাশ এবং মাটিকে এক করে'। তার স্বস্তিকার ডান বাহু আকাশকে নির্দেশ করে আর বাম বাহু মাটিকে।



ফিনিশীয়রা স্বস্তিকার অর্থ 'সূর্য' বলে মনে করতো। তাদের পূজারিণীরা এই প্রতীককে পবিত্র হিসেবে জানতো।

তাই, প্রশ্ন আসতেই পারে, পৃথিবী'র এতোগুলো জাতি-ধর্মে কেন স্বস্তিকা প্রতীকের প্রায় একই অর্থ প্রচলন ছিলো? আর, একজন মানুষ বা একটি দলের অকাজের কারণে কেন এতোগুলো মানুষের বিশ্বাসকে অবহেলা বা উপেক্ষা করা হচ্ছে!






তথ্যসূত্রঃ

১) Jennifer Rosenberg - Learn the History of the Swastika
২) Bruce M. Sullivan (2001). The A to Z of Hinduism. Scarecrow Press. p. 216. ISBN 978-1-4616-7189-3.
৩) Adrian Snodgrass (1992). The Symbolism of the Stupa. Motilal Banarsidass. pp. 82–83. ISBN 978-81-208-0781-5.
৪) Cort, John E. (2001). Jains in the World: Religious Values and Ideology in India. Oxford University Press. p. 17. ISBN 978-0195132342 – via Google Books.
৫) Beer, Robert (2003). The Handbook of Tibetan Buddhist Symbols. Serindia Publications, Inc. ISBN 978-1932476033 – via Google Books.
৬) "History of the Swastika". Holocaust Encyclopedia. United States Holocaust Memorial Museum. 2009.



মন্তব্য ১০ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (১০) মন্তব্য লিখুন

১| ১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:৫৩

সুপারডুপার বলেছেন: প্রতীক মানুষই বানায়, মানুষই নষ্ট করে। প্রতীকে বিশ্বাসকারী ও তাবিজ-কবজে বিশ্বাসকারীর মধ্যে কোন পার্থক্য নাই।

লোগো হিসাবে নাৎসিদের লোগো এটা বেশিরভাগ মানুষরেই মাথায় ঢুকে গেছে। যেহেতু প্রতীক মানুষই বানায়-মানুষই নষ্ট করে, মানুষই এখন সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এই প্রতীক থেকে দূরে থাকো।

পাকিদের পতাকাতেও সুন্দর চাঁন-তারা প্রতীক আছে। এইগুলোর মানে ভালো হলেও কি যায় আসে ! পাকি মানেই বর্বর জাতি। তাই পাকি প্রতীকও বাংলাদেশিদের মনে ঘৃনা হয়েই থাকা উচিত।

১৯ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:০২

শাইয়্যানের টিউশন (Shaiyan\'s Tuition) বলেছেন: চাঁন-তারা প্রতীক আমার মনে অনেক সাহস জোগায়। পাকিস্তানের পতাকায় ঐটা হয়তো এক্সিডেন্টালি চলে গিয়েছে।

২| ১৯ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ২:৫৬

সুপারডুপার বলেছেন: লেখক বলেছেন: চাঁন-তারা প্রতীক আমার মনে অনেক সাহস জোগায়
......................................................................................
পৃথিবীতে এত প্রতীক থাকার পরও বর্বর জাতির প্রতীক আপনার মনে সাহস যোগায়। তার মানে দাড়ায় , আপনার মনের ভিতর বর্বরতা সুপ্ত অবস্থায় আছে।

১৯ শে আগস্ট, ২০১৯ সকাল ৯:১১

শাইয়্যানের টিউশন (Shaiyan\'s Tuition) বলেছেন: বর্বরতার মানে একেকজনের কাছে একেক রকম।

আর, আপনাকে বলি, শুধু চাঁদ-তারা নয়, সবুজ রঙ-ও আমার খুব প্রিয়।

আরও বলবো?

তাহলে শুনুন। আমার দাদার ভাই আমৃত্যু চাঁদ-তারা খচিত পতাকা নিজের বিছানার পাশের দেয়ালে টাঙ্গিয়ে রেখেছিলেন। তাঁর মৃত্যু হয় মাত্র কয়েক বছর আগে।

আমার মায়ের দাদা পাকিস্তানের সময়কার রাষ্ট্রীয় পদক 'তগমায়ে খেদমত' প্রাপ্ত।

আমি দু'জনের রক্তই আমার গায়ে আছে।

হয়েছে? এবার হাঁটেন।

৩| ১৯ শে আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:২৭

রাজীব নুর বলেছেন: জানলাম।
আসলে এই ব্যাপারটা নিয়ে কখনও ভাবিই নি।
প্রতীক।

১৯ শে আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৪৫

শাইয়্যানের টিউশন (Shaiyan\'s Tuition) বলেছেন: আমিও ভাবিনি। কিন্তু, যখন ভাবা শুরু করলাম, তখন খুব ইন্টারেস্টিং তথ্য পেলাম।

ধন্যবাদ।

৪| ১৯ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:২৪

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: স্বস্তিকা প্রতিক সম্পর্কে আমার তেমন কিছু জানা ছিল না। শুধু জানতাম যে হিটলার ও নাজি বাহিনী এই প্রতীকটি ব্যবহার করতেন। আপনার লেখা পড়ে অনেক কিছু জানতে পারলাম। ধন্যবাদ।

১৯ শে আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩৭

শাইয়্যানের টিউশন (Shaiyan\'s Tuition) বলেছেন: আমিও খুব একটা বেশি জানতাম না। একদিন, একটি চায়নিজ ছায়াছবিতে বুদ্ধের মূর্তিতে স্বস্তিকা চিহ্ন দেখে খুব অবাক হয়েছিলাম।

এখন জানতে পারলাম, এটার অর্থ আর ইতিহাস।

ধন্যবাদ।

৫| ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:৫৩

সুমন কর বলেছেন: ভালো পোস্ট। শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ।

২২ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ৯:৪২

শাইয়্যানের টিউশন (Shaiyan\'s Tuition) বলেছেন: পড়া ও লাইকের জন্যে আপনাকেও অনেক ধন্যবাদ।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.