নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

আমি \'স্মৃতিকাতরতা \' নামক ভীষণ এক রোগগ্রস্ত, সেই সাথে বিষাদগ্রস্থ মানুষ। আমার চিকিৎসার প্রয়োজন।

স্বপ্নবাজ সৌরভ

এক ফালি মেঘ, এক ফোঁটা জল- রংধনুকের একটি কণায়, একটি নিমেষ ধরতে চেয়ে আমার এমন কাঙালপনা ।

স্বপ্নবাজ সৌরভ › বিস্তারিত পোস্টঃ

ওরা এখন কেমন আছে জানি না....

১০ ই আগস্ট, ২০২২ দুপুর ১:০৪



এক যুগ মানে ১২টা বছর। অনেকটা সময়। সেই দীর্ঘ সময়ে অনেক কিছুই পাল্টে যায়। সেই সময়টাতে আমার হাতে অনেক সময় ছিল। জীবনটা তখন ছকে আটকে পড়েনি। ঢাকা থেকে বাড়ি গেলেই উচ্ছলতায় কেটে যেত সময়। সময়ের সাথে সাথে যেই উচ্ছলতা কমতে থাকলো। এটাই স্বাভাবিক।
১২ বছর উল্লেখ করলাম কারণ আজকের পোস্টটা ১২ বছর আগের সময় নিয়ে। দুপুরে মজিবুলের দোকানে চা খেতে খেতে আমাদের মনে হলো বিকালে কোথাও যাওয়া দরকার। সময় পেলেই আমরা পদ্মায় হাওয়া খেতে চলে যায়। হার্ডিঞ্জ ব্রিজ আর লালন সেতুর আসে পাশে আড্ডা দেই। তাই সেই মুহূর্তে ওইখানে যেতে ইচ্ছে হলো না। পদ্মার পাড় এমন একটা জায়গা যেখানে সারাদিন সময় দিলেও মন খারাপ হবে না। সিদ্ধান্ত হলো , পদ্মার আশেপাশেই কোথাও যাবো। এর মধ্যে কেউ একজন বললো , পদ্মার মাঝে একটা বিচ্ছিন্ন স্থলভূমি আছে , চর জেগেছে আমরা ঐখানে যাবে। ঐখানে নাকি বসতি গড়ে উঠেছে।
বিকেলের আলোয় আমরা পদ্মা পাড়ে পৌছালাম। ওখান থেকে হেঁটে যেতে হবে বেশ খানিক টা। এই রাস্তায় হাঁটতে খারাপ লাগে না কখনো। গোলাপনগর সোলেমান বাবার মাজার পেড়িয়ে নৌকা নিয়ে নদী পার হতে হবে। ঐখানে নদীর মোহনায় চর জেগে উঠেছে.... জায়গাটার নাম ঢাকার চর

যাওরার এবং ফেরার পথে কিছু ছবি তুলেছিলাম। আমার ছবি তোলার হাত ভালো না। বেছে বেছে দুই একটা দিলাম। রেজ্যুলেশন ভালো না। ক্ষমাসুন্দর চোখে দেখবেন।


ছবিঃ হেঁটে যাচ্ছি নদী ঘেঁষে । সামনেই হার্ডিঞ্জ ব্রীজ।

ছবিঃ অনেকদূর হেঁটে এসেছি। পেছনে হার্ডিঞ্জ ব্রীজ।

ছবিঃ নৌকা থেকে

ছবিঃ ঢাকার চরে পৌঁছে গেছি। দূরে হার্ডিঞ্জ ব্রীজ দেখা যায়।

ছবিঃ ওদের সাথে দেখা। আমরা নাম দিয়েছিলাম 'ঢাকার চরের বিচ্ছু'।

ছবিঃ এখানে গরুর চড়ছে।

ছবিঃ হাঁটছি।

ছবিঃ বিচ্ছুদের কোলাজ।

ছবিঃ ঢাকার চর থেকে ফেরা।


আমার এই পোস্টটা কোন ভ্রমন কাহিনীমূলক ছবি ব্লগ নয়। চাইলে প্রাকৃতিক বর্ণনা দিতে দিতে পোস্টটা লেখা যেত। ইচ্ছা হয়নি।
ঢাকার চর দর্শনীয় কোন স্থান নয়। কোথাও যেতে হবে বলে ঘুরতে ঘুরতে যাওয়া। আজ ১২ বছর পর হুট করে কেন জানি মনে পড়লো।

আমাদের দেখে যেই বিচ্ছুরা দাঁত বের করে হেসেছিলো , পিছু ছাড়বে না কিছুতেই । হেঁটে এসেছিলো নৌকা পর্যন্ত। বিদ্যুৎ নেই , কুপির আলোয় তাদের দাঁত গুলোই ঝিলিক দেয়। কেমন আছে তারা ? স্কুলে যায় ? ১২ বছর অনেক সময়। এই ১২ বছরে সুইস ব্যাংকে টাকার পাহাড় জমে। অনুদান গুলো বেদখল হয়ে যায়। ঢাকার চরের বিচ্ছুদের জীবন ২০ বছরেও বদলায় না। বদলায়নি কখনো।
তবে এখানে নিয়মিত রাত নামে। নেমে আসে ঘোর অন্ধকার , হ্যারিকেনের আলোয় ঝাপসা ছায়া। তবু মুখে আলোকিত হাসি রয়ে যায় । সে আলোয় হয়তো ভোর হয়। পৃথিবী তার নিয়ম মতোই চলে।

মন্তব্য ১৪ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (১৪) মন্তব্য লিখুন

১| ১০ ই আগস্ট, ২০২২ দুপুর ১:২৫

শাহ আজিজ বলেছেন: আবেগি পোস্ট , ভাল লাগলো ।

১০ ই আগস্ট, ২০২২ দুপুর ১:৪৬

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
অনেক ধন্যবাদ আপনাকে। আমার গত পোস্ট গুলোতে আপনাকে খুজেছিলাম। ব্যস্ত ছিলেন মনে হয়।

২| ১০ ই আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৪:২৪

নূর মোহাম্মদ নূরু বলেছেন:
ওরা হয়তো ভালোই আছে।
চমৎকার লিখেছেন!

১০ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৯:৩৩

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: ভালো থাকার কি কথা, বলেন?
পাঠ ও ভালো লাগায় ভালো লাগলো।

৩| ১০ ই আগস্ট, ২০২২ বিকাল ৫:৩৬

শাওন আহমাদ বলেছেন: ছবি গুলো সুন্দর! প্রকৃতি দেখলে চোখ জুড়িয়ে যায়। লিখার শেষের অংশটুকু হৃদয় নাড়া দিয়েছে।

১০ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৯:৫৫

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
আমি ছবি তুলতে পারিনা। প্রকৃতির ছবি এমনিতেই মনোরম। তাই কসরত করতে হয়নি।
শেষের লাইন গুলোর জন্যই মূলত পোষ্টটা লেখা। অনুভব করেছে জেনে ভালো লাগলো।

৪| ১০ ই আগস্ট, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:৫০

কামাল৮০ বলেছেন: চর নিয়ে হানিফ সংঙ্কেতের একটা সুন্দর নাটক আছে।তার পরিচালনায় প্রথম নাটক।এখানে নোঙ্গর।চরে কি ভাবে বসতি গড়ে উঠে।

পদ্মায় অনেক চড় পরতেও দেখেছি ভাংগতেও দেখেছি।আমাদের নিজের বাড়ী যখন পদ্মায় ভাংগে দাড়িয়ে দেখেছি।তখন আমার ৫/৬ বছর বয়স।

চমৎকার স্মৃতিচারণ।

১০ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১০:০২

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: চর দখল নিয়ে কোন নাটক?
আপনি নিয়মিত আমার লেখা নিয়মিত পড়ছেন এবং মন্তব্য করছেন। ভালো লাগছে।

৫| ১০ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৮:০৫

মনিরা সুলতানা বলেছেন: কী যে সবুজ সুন্দর ছবি ! উচ্ছলতা স্মৃতি সব মিলিয়ে ভালোলাগা।

১০ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১০:১০

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: অনেক ধন্যবাদ মনিরাবু। উচ্ছ্বল স্মৃতিগুলো বেঁচে থাক সবুজের মাঝে।

৬| ১০ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৯:০৩

শূন্য সারমর্ম বলেছেন:


ভালো নেই সম্ভবত,এখন ওরা দুরন্ত কিশোর;ছবি দেখে বুঝা যাচ্ছিলো,তখনি অপুষ্টিহীনতায় ভুগছে।

১০ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১০:১১

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন:
ভালো না থাকারই কথা ছিল। রুগ্ন, অপুষ্ট শরীরে হাসি বেশিদিন থাকে না।

৭| ১০ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ১০:৩১

ককচক বলেছেন: জন্মের পর থেকেই তাদের বেঁচে থাকার যুদ্ধ শুরু। মৃত্যু পর্যন্তই যুদ্ধ করে যায়।

১১ ই আগস্ট, ২০২২ সকাল ৮:৫৭

স্বপ্নবাজ সৌরভ বলেছেন: ঠিক বলেছেন।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.