নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

টারজান০০০০৭

টারজান০০০০৭ › বিস্তারিত পোস্টঃ

এরশাদ কাকুরে অবমূল্যায়নের তীব্র প্রতিবাদ জানাই !

২০ শে এপ্রিল, ২০১৭ দুপুর ১:৫৮



যে যাই বলুক, বাংলাদেশের মানুষ এরশাদ কাকুর আমলের চেয়ে কোনো কালেই শান্তিতে আছিলো না।কাকুর আমলে ল্যাংটা রাজনীতিজীবী , পাঁঠা বুদ্ধুজীবী, ফকিরের পোলা ইন্ডাস্ট্রিয়ালিস্ট, লম্পট চেলিব্রিটি, বিচিহীন ব্লগার আর খাপো ছাম্বাদিকদের যাত্রাপালাগুলো দেখতে হয় নাই।কাকুরে অবমূল্যায়নের তীব্র প্রতিবাদ জানাই ! দেশটা স্বাধীন করছে বঙ্গবন্ধু , উন্নয়নের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করছে জিয়া, বিল্ডিং বানানি আর দোকান সাজাইছে কাকু , ব্যবসা করতাছে ছাগুবৃন্দ, গোলাপি আর গোপালী বিবিরা। লাভের গুড় খাইতাছে পিঁপড়ারা।মুক্তিযোদ্ধা ও জনগণের অবদান হইলো শ্রমিক আর মিস্তিরির।

কাকু ভুল সময়ে জন্মগ্রহণ করিয়াছেন।সব মাছ গু খায় , আর ঘাইরা মাছের নাম হয়। এহনকার নেতাগো চরিত্র বর্ণনা কেবল রসময় গুপ্তই করিতে পারিবে! সেই জমানা বলিয়া তিনি লম্পটের উপাধি পাইয়াছেন। এই জমানা হইলে তিনি সোলেমান খান বা টং ক্রুজের মতন চেলিব্রিটি হইতেন ! প্রথম আলু, সমকাম, ইত্তেFuck , বালের কণ্ঠ, যৌন কন্ঠ, পুটকিলাবের ছাম্বাদিকরা তাহাদের ছিঃনেমা পাতায় কাকুর সেইরাম ছবি ছাপাইতো , কিস মি, ম্যারি মি কইয়া মাইয়ারা হেদায়া পড়তো , ট্যাবলয়েড ইয়েরজমিন, ইয়েরদিন, ইয়ের সময় কাকুর প্রেমকাহিনী লেইখা শ্যাষ করিতে পারিত না , চাকিব খানরা ফ্লপ খাইয়া কাকুর ছবিতে ভিলেন হওয়ার লাইগ্যা লাইন ধরিত।হাই ক্লাস পতিতারা তাহাকে মদন দেবতা হিসেবে নৈবদ্য দিতো।

যাই হোক , কাকুর মেধার পরিচয় আর দিতে হইবো না ! সব খেলোয়াড়রে কাটাইয়া গোল দিয়া তিনি প্রমান করিয়াছে তিনি কতবড় খেলোয়াড় ! এমনকি অবসরের পরেও বিভিন্ন দলের কোচ হিসেবে কাকু সফলতার সাক্ষর রাখিয়া যাইতেছেন ! কাকুর মেধার সামান্য নমুনা দিতাছি :
একবার সরকারের নীতি নির্ধারকদের একটি দল জটিল সমস্যায় পড়িলেন। সমস্যাটা লিঙ্গ নির্ধারন সংক্রান্ত।

তো তারা গেলেন গোপালী ম্যাডামের কাছে। ম্যাডাম, কাঁঠাল কোন লিঙ্গ? ম্যাডাম বলিলেন , এটা নির্ধারন করা কোনো সমস্যা নহে । আমি আজিকেই বাংলা একাডেমীর ডিজিকে বলিয়া দিতাছি । তিনি জানায়া দিবেন।
কিন্তু দুইদিন গেল, ডিজি জানাইলেন না।

তখন তাহারা গেল এরশাদ কাকুর কাছে। কাকুর ঝটপট জবাব-আরে কাঁঠাল হইলো পুং লিঙ্গ। কারণ কাঁঠালের বিচি আছে ! (পাঁঠারাও কি কাঁঠাল ?)।

এরপর পত্রিকার খবর বাহির হইলো -পুলিশ একদল ছাত্রকে ডান্ডা দিয়া বোঙ্গা বোঙ্গা দিতাছে !

আচ্ছা, পুলিশ কোন লিঙ্গ? জানিতে চাওয়া হইলো ম্যাডামের কাছে। গোপালী ম্যাডাম কহিলেন , এইটা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে খোঁজ লইতে হইবে । সেই খোঁজ আর আসে না দেখিয়া এরশাদ কাকুর কাছে জানিতে চাওয়া হইলো । তিনি কহিলেন, যেহেতু পুলিশের ডান্ডা আছে তাই পুলিশ পুংলিঙ্গ !

এরপর প্রশ্ন উঠিল আইন কোন লিঙ্গ। এইবারও গোপালী ম্যাডাম গোলাপি ম্যাডামের মতোই ফেইল। বলিতে পারিলেন না । অগত্যা আবার কাবিল এরশাদ কাকুর কাছে জিজ্ঞাসা। তিনি ভেবেচিন্তে কহিলেন , আইনের ফাঁক আছে, তাই আইন স্ত্রী লিঙ্গ !


প্রমাণিত হইলো কাকু কত দক্ষ প্রশাসক ছিলেন! আশা করি চাঁদগাজী কাকু ও জাতি তাহারে সঠিক মূল্যায়ন করিবে!

মন্তব্য ৭ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (৭) মন্তব্য লিখুন

১| ২০ শে এপ্রিল, ২০১৭ দুপুর ২:১৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: চাঁদগাজী কাকু , আফনে কুতায় !

২| ২০ শে এপ্রিল, ২০১৭ বিকাল ৪:৪৫

দেশ প্রেমিক বাঙালী বলেছেন: হা হা হা ...........। মজা পাইলাম।







ভালো থাকুন নিরন্তর। ধন্যবাদ।

২০ শে এপ্রিল, ২০১৭ বিকাল ৪:৫১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আফনারে মজা দিতে পারিয়া আমিও মজা পাইয়াছি !

৩| ২০ শে এপ্রিল, ২০১৭ সন্ধ্যা ৬:১১

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: হাঃ হাঃ হাঃ।

২২ শে এপ্রিল, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩৪

টারজান০০০০৭ বলেছেন: হা হা হা ! আমিও মজা পেলুম। ধন্যবাদ।

৪| ২২ শে এপ্রিল, ২০১৭ দুপুর ১২:৫৩

আবু মুছা আল আজাদ বলেছেন: মজা পেলাম..........

২২ শে এপ্রিল, ২০১৭ সন্ধ্যা ৭:৩৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ। মজা দিতে পেরে আমিও মজা পেলুম।

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.