নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

টারজান০০০০৭

টারজান০০০০৭ › বিস্তারিত পোস্টঃ

মন্তব্যের প্রতি = প্রতিমন্তব্য। (ভুল না সঠিক ?)

৩০ শে জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:০৩




জনৈক ব্লগার একখানা পোস্ট প্রসব করিয়াছিলেন ! পোস্টের মূল বক্তব্য ভালোই ছিল ! ইনিয়ে বিনিয়ে তিনি ইন্ডিয়ার ভালো অর্জনকে উল্লেখ করিয়া নসিহত করিলেন , ইন্ডিয়ার ভালো অর্জনগুলোকে অনুসরণ না করিয়া খারাপগুলোকে অর্থাৎ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যাকে কেন অনুসরণ করিব? বক্তব্য ভালোই লাগিয়াছিল ! তবে তাহার প্রদেয় ডাটা বিশ্বাস হয় নাই ! তাই প্রতিমন্তব্য করিতে যাইয়া দেখি পোস্ট গায়েব ! এখন এই মন্তব্য লইয়া কি করি ! তাই প্রতিমন্তব্য দিয়াই পোস্টের জন্ম ! তবে এই পোস্টও গায়েব হইবার সম্ভাবনা আছে যদি দাদাদের বা দাদাদের দাদাদের কলিজায় বেদনা জাগে !



ইন্ডিয়ার ২১% আর বাংলাদেশের ৩১ % লোক দারিদ্রসীমার নিচে বাস করে ইহা বিশ্বাসযোগ্য নহে ! খোলা চোখেই ইহা মিথ্যা !

ইন্ডিয়ার ৫০ % লোকে এখনো খোলা জায়গায় ইয়ে করে , বাংলাদেশে মাত্র ২ % !

ইন্ডিয়ার একখানা রাজ্যের সমান বাংলাদেশ রাষ্ট্র ! তারপরও বাংলাদেশ যেভাবে অর্থনীতি , মানবসম্পদ উন্নয়নে আগাইতেছে , এই ধারা বজায় থাকিলে ইন্ডিয়াকে ছাড়িয়া বহুদূর যাইবে ! সমস্যা রাজনীতিতে, তাহাতেও ইন্ডিয়ার বাম হাতের মধ্যমা আঙ্গুল প্রবিষ্ট আছে।

নিরোদ সি চৌধুরী বলিয়াছিলেন, দাসত্ব করিলে প্রথম শ্রেণীর শক্তির দাসত্ব করা উচিত ! তিনি ইন্ডিয়ার সোভিয়েতের দাসত্ব পছন্দ করিতেন না ! তিনি সোভিয়েতকে দ্বিতীয় শ্রেণীর আর আমেরিকাকে প্রথম শ্রেণীর শক্তি মনে করিতেন। আমারও একই কথা ! দাসত্ব করিতে হইলে বা অনুসরণ করিতে হইলে সাবস্টেন্ডার্ড ইয়েধারী ইন্ডিয়া কেন, প্রমান সাইজের মেরিকা বা নিদেনপক্ষে কর্মক্ষম চায়নার করুক ! ধজঃভঙ্গ ইন্ডিয়ার কেন ?

মন্তব্য ৩৪ টি রেটিং +২/-০

মন্তব্য (৩৪) মন্তব্য লিখুন

১| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:১৬

আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন: মোবাইল টয়লেটই ভালো। হাওয়া বাতাস লাগে। প্রাকৃতিক কর্ম সম্পাদনের সাথে সাথে প্রাকৃতিক দৃশ্যও দেখা যায়। নিজের আব্রু না ঢাকলেও চলে, কারণ অন্যেরা চোখ ঢেকে দ্রুত কেটে পড়ে বলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আব্রু রক্ষা হয়। বাসার টয়লেটে এসব সুবিধা পাওয়া যায় না।

৩০ শে জুলাই, ২০১৮ সকাল ১১:২৮

টারজান০০০০৭ বলেছেন: হা হা হা ! পাটক্ষেতের অভিজ্ঞতা আছে মনে হইতেছে হেনা ভাই ! নির্বাচনের খবর কি ?

২| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:১৫

স্রাঞ্জি সে বলেছেন: আপনি একখান ভাল কথা কইছেন।

যদিও ইন্ডিয়া আমগোর মিত্র বইলা কথা। তাগোর অনুসরণ না কইরা কি পারমু।

৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:১৮

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আমি কই নাই ! এইডা নিরোদ সি চৌধুরীই কইছে ! তৃতীয় শ্রেণীর শক্তির দাসত্ব কইরা কি লাভ ! দাসত্ব করিলে প্রথম শ্রেণীর শক্তির করা উচিত ! যেমন জাপান , কোরিয়া করিয়াছিল !

৩| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:১৯

সিনথিয়া আফরিন বলেছেন: ধন্যবাদ ।

৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:২১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: কেন ভইন ?

৪| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৬

পুকু বলেছেন: আপনি বা আপনার মতো অনেকেই ভারতকে বক্রোক্তি করে মন্তব্য করে।এটা inferiority complex.তুলনা করাটাই বাতুলতা।আপনার চিন্তাভাবনা কোথায় নেমেছে যে আপনাকে পায়খানায় গিয়ে তুলনা করতে হচ্ছে।scientific develoment,economy,literature,education, mass communication এসব নিয়ে তুলনা করুন যাতে কিছু শেখার আছে।আপনার আলোচনায় যে সব তথ্য(?) দিয়েছেন তাতে আপনার জানার পরিসীমার ব্যপারে প্রশ্ন উঁকি দেয়।দেখার দৃষ্টিভঙ্গি পালটান।আপনার জানার বাইরে অনেককিছু আছে যার সম্বন্ধে আপনি একেবরেই অবগত নন।Think positive be positive.আর পায়খানা সম্বন্ধে বলছেন?!!!আমার বাড়ির বেড়ার ওপারে আপনার দেশ!কে ধান ক্ষেতে হাগে না পাট ক্ষেতে না কোমোডে হাগে জানা আছে।আপনার প্রবচনের অপেক্ষা রাখে না।ভাল থাকুন আর ভাল চিন্তাভাবনা করুন।Think positive.

৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:০০

টারজান০০০০৭ বলেছেন: যে দেশের প্রতি হাজার আর্টিকেলের ২/৩ টি অথেন্টিক , তাহাদের জ্ঞান-বিজ্ঞানকে অনুসরণ করিতে বলিতেছেন ? যেদেশের কেরানি চাকুরীর আবেদনে পিএইচডিধারীরাও আবেদন করে, তাহাদের অনুসরণ করিতে বলিতেছেন ? যেদেশে মানুষের চেয়ে গরুর দাম বেশি, তাহাদের অনুসরণ করিতে বলিতেছেন ! ধর্ষণের রাজধানীর কথা আর বলিলাম না !ইন্ডিয়ান পিএইচডিধারীদের আমাদের দেশের একাডেমিশিয়ানরা কি চোখে দেখে, তাহা জানেন ? (কিছু বিষয় ভালো আছে সন্দেহ নাই !) আমার কথা কি পরিষ্কার বুঝিয়াছেন ? আমি নিরোদ সি চৌধুরীর কথাকে বলিয়াছি ! তিনি দ্বিতীয় শ্রেণীর শক্তি সোভিয়েতের দাসত্বই পছন্দ করিতেন না, সেখানে আমরা কিভাবে তৃতীয় শ্রেণীর শক্তির দাসত্ব করিতেছি ! দাসত্ব করিলে প্রথম শ্রেণীর শক্তিরই দাসত্ব করা উচিত, নিরোদ সি চৌধুরীর সাথে আমি একমত !

পোস্টটা ইন্ডিয়া বিরোধিতার জন্য দেওয়া হয় নাই ! একজনা ভুল তথ্য দিয়া ইন্ডিয়ার ভালোকে অনুসরণ করিতে বলিয়াছিল বিধায় নিরোদ সি চৌধুরীকে স্মরণ করাইয়া দিলাম ! ইন্ডিয়ার সম্পর্কে পসিটিভ থিঙ্ক ইন্ডিয়াই এদেশের মানুষকে কখনো করিতে দেয় নাই একমাত্র মুক্তিযুদ্ধের সময় বাদে !

৫| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১২:৩৭

ইব্‌রাহীম আই কে বলেছেন: হুটহাট যে কোন জায়গা থেকে একটু ইনফরমেশন পাইলেই সেটা নিয়ে কোন লেখা পোস্ট করা ঠিকনা (তথ্য ভিত্তিক লেখা যেগুলো।)

আগে নিজে একটু যাচাই করে দেখা উচিৎ, ভুল-শুদ্ধ। যাইহোক আপনার লেখা আমাকে আর বেশি সচেতন করেছে। ধন্যবাদ এর জন্য।

৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:০২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: পোস্টটা ইন্ডিয়া বিরোধিতার জন্য দেওয়া হয় নাই ! একজনা ভুল তথ্য দিয়া ইন্ডিয়ার ভালোকে অনুসরণ করিতে বলিয়াছিল বিধায় নিরোদ সি চৌধুরীকে স্মরণ করাইয়া দিলাম ! ধন্যবাদ।

৬| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:২৭

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় টারজানভাই,

বক্তব্য যে ভাবেই বলুন, আসল উদ্দেশ্য মধুর। এখন কতৃপক্ষ সেমত চললে হল ।

শুভেচ্ছা নিয়েন।

৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:৩৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ভাইরে , আপনাদের মতন কিছু মানুষ আছে বইলাই ইন্ডিয়ারে একেবারে বাদ দিতে পারি না ! বক্তব্যতো পরিষ্কার সন্দেহ নাই ! আমি আসলেই নিরোদ সি চৌধুরীর এই কথাকে সমর্থন করি ! ধন্যবাদ ! ভালো থাকবেন !

৭| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:৩২

রাকু হাসান বলেছেন: পোস্টে বিষয় বস্তু আমার ও ভাল মনে হয়েছে কিন্তু ভুল তথ্য কাম্য নয় । কিছু জিনিসের এগিয়ে ইণ্ডিয়া এগিয়ে বলার অপেক্ষা রাখে না ,সেই সাথে আমরাও । ভাল কিছু থেকে শিক্ষা নেওয়া মন্দ নয় আমার কাছে । তবে সেটা যেন অনুসরণ না হয় ,ব্যক্তি ,রাষ্ট্র বা সমাজ বিশেষ ভিন্ন পদ্ধতি থাকবে ,সেটাই স্বাভাবিক । তাদের অনেক কিছু অমাদের ক্ষেত্রে মিলবে না ,েএটাই স্বাভাবিক । ভারতে অন্যায়ের প্রতিবাদ ও বেশি ,যেখানে অামরা অনেক পিছিয়ে । গুরুর বিষয়টা তে তাদের ধর্মীয় দুর্বলতা আছে তাই হয়তো বেশি । আমরা অসাম্প্রদায়িকতার দিক থেকে পুরো উপমহাদেশ দেশে অনেক এগিয়ে ,এটা কম নয় । তা দের অনুকরণ না করলেও চলবে । তবে উৎসাহিত হতে পারি । মনে পড়ছে ‘‘অনুকরন নয়, অনুসরন নয়, নিজেকে খুঁজুন,
নিজেকে জানুন, নিজের পথে চলুন’’ ডেল কার্নেগীর বিখ্যাত উক্তি ,ব্যক্তি বা রাষ্ট্র উভয়ের জন্য প্রযোজ্য বলে মনে হয় ।

আপনার প্রথম অংশে বলার ভঙ্গি দেখে মনে হচ্ছিলো ,রবীন্দ্র,শরৎ পড়ছি না তো ! ;)

৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ১:৪৩

টারজান০০০০৭ বলেছেন: উপমহাদেশের জাতিগুলো পরস্পর অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত !একের কালচার , আচরণ অন্যে মানিয়া থাকে ! ইহা অনেকটা বন্ধুদের দেখিয়া কিছু করার মতন ! তবে ইন্ডিয়া বা পাকিস্তান আমাদের আদর্শ হইবার যোগ্যতা রাখে না ! তাহারা আমাদের অনুসরণীয় হওয়া উচিত নহে ! যদি বলিউড হলিউডের নকল করিয়া ছবি বানায়, তাহা হইলে ঢালিউড , বলিউডের নকল করিবে কেন , হলিউডেরই নকল করুক ! ইহাই আমার বক্তব্য !

আমার প্রদেয় তথ্যে ভুল থাকিলে ধরাইয়া দিন , সংশোধন করিয়া লইব !

৮| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:৪৬

আবু তালেব শেখ বলেছেন: সাত নং মন্তব্যের উঃ টা জটিল হয়েছে,,,,

৩০ শে জুলাই, ২০১৮ দুপুর ২:৫১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ ! বক্তব্য পরিষ্কার করিতে পারিয়াছি বলিয়া স্বস্তি পাইতেছি !

৯| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৩০

ব্লু হোয়েল বলেছেন: এত এত জিডিপি কি আমাদের ভাল লাগে ?
https://www.bbc.com/bengali/news-45002730

৩০ শে জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৩৯

টারজান০০০০৭ বলেছেন: কি বোঝাতে চাহিয়াছেন বুঝিলাম না ! বনে জঙ্গলে থাকিতো ! একটু বুঝিয়ে বলিলে সুবিধা হইতো !

আসামের বাংলাভাষীদের উচিত আলাদা রাজ্যের দাবি তোলা !

১০| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৪৬

রাজীব নুর বলেছেন: লেখা ভালো কিন্তু ছবিটা ভালো নয়।

৩০ শে জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৩:৫০

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ঠিকই ! যে ছবিটা দিতে চাহিয়াছিলাম উহা খুঁজিয়া পাইতেছি না ! তাই নাকের বদলে নরুন দিয়াই কাজ চালাইতে হইতেছে !

১১| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:৪৩

সাইন বোর্ড বলেছেন: খুবই যুক্তিযুক্ত কথা, এটাকে যারা অস্বীকার করে তাদের নিজেদের সমস্যা । সত্য সব সময় সত্য ।

৩১ শে জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:২৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: দিলমে হিন্দুস্তানী হইলে যুক্তিযুক্ত কথাও তিতা লাগিবে ! সত্যও মিথ্যা মনে হইবে !

১২| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:৫৮

কি করি আজ ভেবে না পাই বলেছেন: বন্ধু,
পুকু কৈ ইয়ে করে কৈলোনাতো ?!?
পুকুরেনাতো...............

৩১ শে জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৩২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: সাধারণত ঝোপে , জঙ্গলে বা রেললাইনের ধারে ইয়ে করা হইয়া থাকে ! অতঃপর পুকু রে গিয়াই ধৌতকরণ ! মাগার আমাদের পুকু সাহেব কোথায় করেন বলিতে পারি না !! =p~

দোস্ত ! শরিলের কি অবস্থা ? :(

১৩| ৩০ শে জুলাই, ২০১৮ রাত ১০:৫৬

পুকু বলেছেন: @লেখক-আগে একদুটো নিরদ সি চৌধুরী আপনার বর্তমান দেশে তৈরী করুন তারপর নাহয় তুলনায় যাওয়া যাবে!এটা ঠিক তে ভারতকে আরো এগিয়ে যেতে হবে।জগৎ সভায় শ্রেষ্ঠ আসন এখনো পায় নি তবে সেটা খুব দুরে নয়।

৩১ শে জুলাই, ২০১৮ বিকাল ৫:৪৯

টারজান০০০০৭ বলেছেন: @লেখক-আগে একদুটো নিরদ সি চৌধুরী আপনার বর্তমান দেশে তৈরী করুন তারপর নাহয় তুলনায় যাওয়া যাবে!

নিরোদ সি চৌধুরী ভারতে তৈরী হয় নাই , ইংল্যান্ডে তৈরী হইয়াছে ! তাই তৃতীয় শ্রেণীর রাষ্ট্র ভারতকে আদর্শ হিসেবে গ্রহণ করার দরকার দেখিনা ! ভারত নিজেও অন্যকে আদর্শ হিসেবে অনুসরণ করে ! সুতরাং ভারতকে কেন অনুসরণ করিতে হইবে ?

ভারতে নিরোদ সির মতন লোক কখনো তৈরী হইবে না !

মানবসম্পদ উন্নয়নে, অসাম্প্রদায়িকতায় বাংলাদেশ ভারতের চেয়ে আগাইয়া গিয়াছে ! অর্থনীতিও জোরদার ! ভারতের নোংরা নাক না গলাইলে বাংলাদেশ এমনিতেই বহুদূর আগাইয়া যাইবে ! অন্তত খোদ রাজধানীতে না খাইয়া মরার অবস্থা বাংলাদেশে হইবে না !

এটা ঠিক তে ভারতকে আরো এগিয়ে যেতে হবে।জগৎ সভায় শ্রেষ্ঠ আসন এখনো পায় নি তবে সেটা খুব দুরে নয়।

ভারত জগৎসভায় শ্রেষ্ঠ মহাভারতের আমলে ছিল ! মধ্যযুগে মুঘলের আমলে ছিল ! আর কখনো ভারত শ্রেষ্ঠ হইবে না ! চাকচিক্য, সামরিক শক্তি হয়তো বাড়িতে পারে। কিন্তু অমানুষের রাষ্ট্রই থাকিয়া যাইবে ! বিজেপির মতন দল যখন ক্ষমতায় আসিতে পারে, সেই ভারত বড়জোর হিটলারের জার্মানির মতন উন্নতি লাভ করিতে পারে ! আর কিছু নয় !

১৪| ০২ রা আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৩:১২

উদাসী স্বপ্ন বলেছেন: ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্সের ব্যাপারটা আমারও আছে কিন্তু তথ্যে ভুল নেই। তবে এই হিসাবটা ২০১০ এর। ২০১৬ তে বাংলাদেশে এটা এসে দাড়িয়েছে ২৪ এ ওয়ার্লডব্যাংকের তথ্য অনুসারে।

তবে ভারতের অনুসরন করতে বাধ্য হচ্ছে এদেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট শুধু এজন্য যে কোনো শক্তিশালী বিরোধীদল নেই এবং আমেরিকার অনীহা। আমেরিকার স্বার্থসংশ্লিষ্ট বয়াপারে বাংলাদেশের খুব বেশী অংশগ্রহনের সক্ষমতা নেই। ঐ যে বঙ্গোপসাগরে আমেরিকার ঘাটি, সেই ঘাটির এখন আর দরকার নেই কারন ভারত এখন তার অনেক বড় মিত্র

০৬ ই আগস্ট, ২০১৮ সকাল ১১:৩১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্সের ব্যাপারটা আমারও আছে কিন্তু তথ্যে ভুল নেই। তবে এই হিসাবটা ২০১০ এর। ২০১৬ তে বাংলাদেশে এটা এসে দাড়িয়েছে ২৪ এ ওয়ার্লডব্যাংকের তথ্য অনুসারে।

হিসেবটা যদি ৯০ এর দশকের হইতো তাহা হইলে বিশ্বাস করিতাম ! ২০১০ সালের হিসাব জাতিসংঘ বা বিশ্বব্যাংক দিলেও বিশ্বাস করিতে পারিতেছি না ! ৯০ এর দশকে রংপুরের দিকে যে অভাব দেখিয়াছি তেমন অভাব আমি ২০০৭ এও ইন্ডিয়াতে দেখিয়াছি ! অথচ ২০০৭ এ রংপুরের অনেক উন্নতি হইয়াছে ! এই স্ট্যাটিসটিক্স আমার কাছে খালি চোখেই বিশ্বাসযোগ্য নহে ! ২০১৮ সালে তো নহেই !

দেশকে নিয়ে আমি কখনই ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্সে ভুগিনা। দেশের সব দোষ, অরাজকতা, অপশাসন, দুর্নীতি , সন্ত্রাস, অব্যবস্থাপনা, স্বজনপ্রীতি সব সহই দেশকে আমি গ্রহণ করিয়াছি ! আমার খুব ভালো করিয়াই জানা আছে , আমার দেশে আমার জন্য যাহা আছে তাহা পৃথিবীর কোথাও নেই ! একারণেই বাহিরে কোথাও গেলেও দেশে আসার জন্য জানটা আইটাই করে !

তবে ভারতের অনুসরন করতে বাধ্য হচ্ছে এদেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট শুধু এজন্য যে কোনো শক্তিশালী বিরোধীদল নেই এবং আমেরিকার অনীহা। আমেরিকার স্বার্থসংশ্লিষ্ট বয়াপারে বাংলাদেশের খুব বেশী অংশগ্রহনের সক্ষমতা নেই। ঐ যে বঙ্গোপসাগরে আমেরিকার ঘাটি, সেই ঘাটির এখন আর দরকার নেই কারন ভারত এখন তার অনেক বড় মিত্র

হ্যা , আপনার বিশ্লেষণ ঠিক ! শক্তিশালী বিরোধী পক্ষ না থাকায় ভারতের মতন তৃতীয় শ্রেণীর শক্তির দাসত্ব করিতে হইতেছে ! আবার একথাও বলা যায় , শক্তিশালী বিরোধীপক্ষ যেন না দাঁড়াইতে পারে ইহাতে ভারত ইন্ধন দিতেছে ! তবে আমি বলিব রাজনৈতিক ঐক্যমত্য নাই বিধায় দেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়েও কেহ একমত হইতে পারিতেছেনা ! বরং ক্ষমতার লোভে দেশের ইয়ে পাতিয়া দেবার জন্য উভয় পক্ষকেই উদগ্রীব দেখা যাইতেছে ! যেন , যে যতবেশি পাতিয়া দিবে ততই ক্ষমতায় থাকিতে পারিবে ! আমার ধারণা উভয় পক্ষই পরাশক্তি , পাতিশক্তিগুলোর সাথে দরাদরি করিতেছে , কে কতখানি দেশের ইয়ে পাতিয়া দিয়া ক্ষমতায় যাইতে পারিবে বা থাকিতে পারিবে !

১৫| ১০ ই আগস্ট, ২০১৮ বিকাল ৩:৩৪

উদাসী স্বপ্ন বলেছেন: তবে আরেকটু ব্যাক্তিগত মতামত দেই সেটা বিএনপির আমেরিকা ইউরোপের মানুষজনের কাছে গিয়ে কান্নাকাটি। সিরিয়ায় কিন্তু এভাবেই যুদ্ধটা লাগছে। যখন স্থানীয় আক্রোশ তাড়াতে আসাদ রুঢ় মূর্তি ধারন করলো তখন সবাই যেচে পশ্চিমাদের ডেকে আনো। পশ্চিমারাও আসলো কারন সেখানে তাদের প্রচুর টাকার ইনভেস্ট সেইসাথে অন্যান্য ভূরাজনৈতিক স্বার্থ। ব্যাস শুরু হয়ে গেলো ইতিহাসে রক্তক্ষয়ী জটিল যুদ্ধ। এমন জটিল যুদ্ধ এত ছোট জায়গায় কোথাও হয়েছে কিনা জানা নাই।

আমরা যদি নিজেদের স্বার্থ নিজেরা না দেখি তাহলে বাশ খেতেই হবে। ভারত হিসাব করে দেখেছে আমাদের দখল করার চাইতে মুক্ত রাখাটাই তার জন্য লাভজনক। আবার চীন আমেরিকার কাছেও সেটা অতটা লাভজনক নয়। সমস্যা হলো পাশা যদি পাল্টে যায় তখনই আমাদের মাথা নস্ট হয়ে যাবে এবং কপালে শনি আসবে। তাই বিএনপি জামাতের এমন দেশদ্রোহী ব্যাপারটা খুব কটু লাগে দেখতে। শফিক রেহমানকে দিয়ে একটা চিঠিও তো লিখিয়েছিলো বেজি যেটা সম্পর্কে আমারদেশের মাহমুদুর রহমানেরই ডায়লগ ছিলো শি ইজ পলিটিক্যালী ডেড নাও

১৪ ই আগস্ট, ২০১৮ দুপুর ১:২৮

টারজান০০০০৭ বলেছেন: রাজনীতি ও রাজনীতিবিদদের প্রতি আমার অভক্তি আছে ! বিম্পি, জামাত, বাআল, বামাতী, কুজাত (জাতীয়) পার্টি সব মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ ! বাস্তব জীবনেও ইহারা সব রসুনের এক ইয়ের মতন একে অপরের আত্মীয় ! ঝগড়াঝাটি , মারামারি , কাটাকাটি সব যাত্রাপালা ! কর্মী , উপনেতা, পাতি নেতারা মরে। বড় নেতাদের কিছু হয় না ! হইবেও না। শুধু মারা যাইবে দেশের ইয়ে ! X((

১৬| ১৪ ই আগস্ট, ২০১৮ দুপুর ২:০৮

ভুয়া মফিজ বলেছেন: পুকু কে দেওয়া আপনার উত্তরগুলি জটিল হইয়াছে। আরো বলিতে পারিতেন........থাক, দরকার নাই। হাজার হইলেও আমাদের প্রতিবেশী!
আমাদের মাজাভাঙ্গা রাজনীতির ব্যাপারে কিছু বলিতে চাহি না, বমি চলিয়া আসে। অনুসরনের ব্যাপারে যাহা বলিয়াছেন, তাহা আমার মনের কথা। যুগ যুগ ধরিয়া ইহা আমি বলিতেছি, কিন্তু কেহই গুরুত্ব দেয় না। এখন বনের রাজার কথা যেন গুরুত্ব পায়, এই আশায় থাকিলাম।

রাজাকে আমার সশ্রদ্ধ কুর্নিশ!!!

১৪ ই আগস্ট, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৪১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: স্বাধীনতা হীনতায় কে বাঁচিতে চায় হে, কে বাঁচিতে চায় ------ বাংলাদেশ।
দাসত্ব শৃঙ্খল কে পড়িবে পায় হে , কে পড়িবে পায়------ পশ্চিমবঙ্গ !

ব্রিটিশ শাসনামলের আগে পর্যন্ত বাংলা, প্রত্যেক কেন্দ্রীয় শাসকের বিরোধিতা করিয়াছে ! সে মুঘল, পাঠান যাহারাই হউক ! আশ্চর্য হইল এই স্পৃহা বাংলাদেশেই শুধু টিকিয়া গিয়াছে ! ব্রিটিশ শাসনামলে পশ্চিমবঙ্গ দাসত্বের রাজধানী হইয়াছে ! ইংরেজ যাওয়ার পরে ইহারা এখন হিন্দি বলয়ের দাসত্ব করিতেছে ! ইহারা আজ চাহিতেছে বাংলাদেশও হিন্দি বলয়ের দাসত্ব করুক ! ভাবিতে আশ্চর্য লাগে , বাংলা, বিহার , উড়িষ্যা আগে একই রাষ্ট্র ছিল !

এই স্পৃহার কারণেই মমতাকে আমার ভালো লাগে ! বাঘিনী একখানা ! কেন্দ্রকে দেখাইয়া দিতেছে ! মমতার চেতনা সারা পশ্চিমবঙ্গের জনগনের মধ্যে ছড়াইয়া পড়ুক ! পশ্চিমবঙ্গ আলাদা হইয়া বাংলাদেশের সাথে মিলিয়া যাক ! হিন্দি বলয়ের দাসত্ব হইতে মুক্তি পাক !

জিন্নাহ ধর্মের ভিত্তিতে পাকিস্তান বানাইয়া যেমন দোষী, দেশভাগের সময় পশ্চিমবঙ্গের নেতারাও ধর্মের ভিত্তিতে বাংলাকে ভাগ করায় সমান দোষী !!

১৭| ১৯ শে আগস্ট, ২০১৮ রাত ৯:৫৬

খায়রুল আহসান বলেছেন: মূল পোস্ট এবং মন্তব্য/প্রতিমন্তব্যসমূহ পাঠ করিয়া নিদারুণ আনন্দ লাভ করিলাম। তবে স্বাধীন দেশের স্বাধীন নাগরিক হিসেবে স্বাধীনচেতা নেতাদের দ্বারা শাসিত হইতে চাই। প্রথম, দ্বিতীয় কিংবা তৃতীয়- কোন শ্রেণীর প্রভুদেরই দাসত্ব আমাদের জনগণের ভোটে নির্বাচিত (যখন হবে) নেতারা করুক, তাহা চাইনা।

২১ শে আগস্ট, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: সত্যি ,আপনার মতন সজ্জন ব্লগারের মন্তব্য পাওয়া সৌভাগ্যই মনে করি ! স্বাধীন দেশের স্বাধীন নাগরিক হিসেবে স্বাধীনচেতা নেতৃত্বের অভিলাষ সবারই থাকা উচিত। আমারও আছে ! কিন্তু বাস্তবতা হইল আমাদের নেতা- নেত্রীদের স্বাধীন অবস্থান নাই ! জোটনিরপেক্ষ আন্দোলনের ফলাফল খুব ভালো হয় নাই ! ইহাতে ভারত ছাড়া আর কেহ খুব একটা লাভবান হয় নাই ! বঙ্গবন্ধু চেষ্টা করিয়াছিলেন,উহাতে উভয় পরাশক্তি ,এমনকি ভারতেরও বিরাগভাজন হন ! তাই ক্ষমতায় যাইতে ও টিকিয়া থাকিতে তৃতীয় বিশ্বের নেতা নেত্রীরা প্রথম ,দ্বিতীয় , তৃতীয় শ্রেণীর শক্তির দাসত্ব করিয়া থাকে ! বঙ্গবন্ধুর পরে মেরুদন্ডওয়ালা নেতৃত্ব জাতি আর পায় নাই ! আর বোধহয় পাইবেও না।যেহেতু ইহাই বাস্তবতা, তাই নিরোদ সি চৌধুরীর তিক্ত বচনই স্মরণ করাইয়া দিলাম !

কিসিঞ্জার যেমন বলিয়াছিলেন , ধর্ষণ যখন অনিবার্য তখন উহা উপভোগ করাই শ্রেয়, ইহা অনেকটা তেমনই ! একই সাথে তীব্র অবমাননাকর কিন্তু তিক্ত সত্য,নির্মম বাস্তবতা। নিরোদ সি চৌধুরী কতখানি তিক্ততার সাথে ইহা বলিয়াছিলেন তাহাই ভাবি ! নিজের জন্মভূমির সার্বিক অবস্থান এমন অবমাননাকর ভাষায় আর কেহ বলিতে পারিবে বলিয়া মনে হয় না ! আমাদের রাজনৈতিক নেতা নেত্রীদের অবস্থান, রাজনীতি ইহার চেয়ে তিক্ত ভাষায় আর বলা সম্ভব নহে ! তীব্র অবমাননাকর হইলেও বাস্তবতা ইহাই যে আমরা দাসত্ব করিতেছি ! তাই মন্দের ভালো হিসেবে পছন্দ না হইলেও, প্রথম শ্রেণীর দাসত্বই বুদ্ধিমানের কাজ হইবে, তৃতীয় শ্রেণীর শক্তির দাসত্বের চেয়ে !

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.