নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

টারজান০০০০৭

টারজান০০০০৭ › বিস্তারিত পোস্টঃ

শান্তির মায়ে কি মইরা গ্যাছে ????????????

০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৪:২০



ছুডুকালে বিটিভিতে ত্রিপিটক পাঠের শেষে শুনিতাম, "জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক, সকলেই মঙ্গল লাভ করুক !!" শুনিয়া মুখস্ত হইয়া গিয়াছিল ! কিন্তু শান্তির মা দূরেই রহিয়া গেল ! পেপার-পত্রিকা পড়িলে মনটা অশান্তিতে ভরিয়া যায় ! খালি আকাম আর কুকাম ! মনডা কয় , সবকয়ডারে ধইরা শিরিষ কাগজ দিয়া ডলা দেই ! জগতে কি ভালা কাম হয় না ? ভালা মানুষ কি নাই ? তাইলে সারা বছর খালি আকাম-কুকামের খবর ছাপিস কেন? বিদেশী এক রিসার্চ আর্টিকেল পড়িয়াছিলাম, উহাতে লেখা ছিল পেপার পত্রিকা কেন সবসময় আকাম-কুকামের খবর ছাপে ! দৈনিক ইয়ের আলো যখন প্রকাশিত হইয়া ব্যাফক মার্কেট পাইয়া ইত্তে-fucker ইয়ে মারা যাওয়ার জোগাড় হইল , তখন একদিন তাহাদের উপসম্পাদকীয়তেও এই গুমোর ফাঁস হইল যে ইতিবাচক সংবাদে নাকি পেপার জনপ্রিয় হয় না, পেপার জনপ্রিয় হয় নেতিবাচক ছঙবাদে! তাইতো বলি, ইয়ের আলো শালারা এতো আকামের ছঙবাদ কেন ছাপে আর কেনই বা জনপ্রিয় !

প্রয়াত হুমায়ুন আহমেদ তাহার বহুব্রীহি নাটকে মামা চরিত্রকে টেনশন হেডেক বানাইয়াছিলেন ! তাহার মতে টেনশন ছাড়া নাকি মানুষ বাঁচিতে পারে না ! তাই মামা হইল ওই পরিবারের টেনশন হেডেক ! আমাদের পত্র পত্রিকা, মিডিয়া নিয়মিত আমাদের টেনশন হেডেক সরবরাহ করিয়া কর্তব্য পালন করিতেছে !

২১ সে আগস্ট বোমা হামলার সময় আমি ছিলাম দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ! যেখানে কাগজ নাই, ইলেক্ট্রিসিটি নাই ! আমি জানিতাম না। কোন টেনশনও ছিল না। দুইদিন পর যেই জানিলাম, আমার টেনশন শুরু হইয়া গেল , হায় হায় নাজানি কি অবস্থা !

ছাত্র অবস্থায় যখন ক্লাশ করিতাম কোন টেনশন হইতোনা ! যেই পরীক্ষার ডেট দিয়াছে জানিতাম ওমনিই প্যালপিটিশন শুরু হইয়া যাইতো !

সচেতন হইতে আর সচেতনতা তৈরী করিতে গিয়া মিডিয়া আমাদের টেনশন হেডেক মায় প্যালপিটিশন উপহার দিতেছে !

যাইহোক। মিডিয়াকে অনেক ঝাড়িলাম ! রাজীব নূর আবার রাগ করিবে ! থাউগ গা ! কইতেছিলাম শান্তির মা কই গেছে !!!!

শান্তির মা যে কই গেছে ইহাই বলিতেছি !!

আচ্ছা বলুন তো সুখ আর শান্তির মধ্যে হার্থক্য কি ? গোপাল ভাঁড়ের কথা মনে আছে ? একবার রাজামশাইয়ের পোলা হওয়ায় রাজামশাই গোপালকে জিজ্ঞাসা করিলেন, গোপাল তুমি কেমন সুখ পাইতেছ ? গোপাল কহিল, রাজামশাই, খুব জোরে প্রাকৃতিক ডাক আসিলে, সারার পরে যেমন সুখ লাগে, আমি তেমনই সুখ অনুভব করিতেছি !! (অনেকটা ছোট রাজকন্যার, বাবা তোমাকে লবণের মতন ভালোবাসির, মতন !) যাহা হউক , রাজাতো ভীষণ অগ্নিমূর্তি ! বলিলাম পুত্র হওয়ার কথা, আর গোপাল কিনা প্রাকৃতিক কর্মের সাথে তুলনা করিল ! কোটালকে বলিলেন গোপালের পশ্চাৎদেশ লাল করিয়া দিতে ! লাল পশ্চাৎদেশ লইয়া গোপাল তক্কে তক্কে রহিল ! তারপর একবার রাজামশাই গোপলাসহকারে নৌকাভ্রমণে বাহির হইলেন ! মধ্যাহ্নে রাজকীয় খানাপিনার পরে যখন সন্ধ্যা নামিয়া আসিল , রাজামশায়ের পেট গুড় গুড় ! রাজামশাই গোপালকে কহিলেন , গোপাল নৌকাটা একটু তীরে ভেড়াও ! প্রাকৃতিক কর্ম সারিয়া আসি ! গোপাল মনে মনে ভাবিল, পাইছি সুযোগ, বলিল , রাজামশাই , সন্ধ্যা নামিয়া আসিতেছে, এখন বাঘেরা বাহির হইবে ! রাজামশাই, এই জঙ্গলে তীরে নামিলে বাঘে খাইতে পারে। সম্মুখে নিরাপদ জায়গা আছে , সেখানে নৌকা ভিড়াইব ! রাজামশাই কিয়ৎক্ষণ চুপ থাকিলেন ! কিন্তুক রাজকীয় খানাপিনা ভিতরে আর আবদ্ধ থাকিতে চাহেনা ! অগত্যা রাজামশাই আবার গোপালকে নৌকা ভেড়াইতে বলিলেন ! গোপাল কহিল, এইতো রাজামশাই , আরেকটু ! গোপালের তো মতলব খারাপ ! তাই রাজামশায়ের বারংবার পীড়াপীড়িতে গোপাল তাহাকে সিলেটি মাইল দেখাইতে লাগিলেন ! একপর্যায়ে অবস্থা সঙ্গিন হইয়া রাজামশাইয়ের ঘাম ছুটিয়া গেল ! ব্রেক ফেইল মারিলে ইজ্জত লইয়া টানাটানি হইবে ! রাজামশাই আর বাঘের তোয়াক্কা করিলেন না ! জলদগম্ভীর স্বরে গোপালকে নৌকা ভেড়াইতে বলিলেন ! গোপাল বুঝিল লগ্ন উপস্থিত ! নৌকা ভেড়াইতে বাকি , রাজামশাই উসাইন বোল্টের বেগে নামিয়া জঙ্গলে হারাইলেন ! কর্ম সারিয়া তৃপ্তির সাথে যখন নৌকায় ফিরিলেন, গোপাল শুধাইল, রাজামশাই , কেমন সুখ অনুভব করিলেন? রাজামশাই মুখ বিকৃত করিয়া ফিনান্স মিনিস্টারকে কহিলেন গোপালের লাল পশ্চাৎদেশের ক্ষতিপূরণ দিতে !

তবে রাজামশাই না হইয়া ম্যাংগোপিপল হইলে নৌকার কিনারেই কর্ম সারিতে পারিত ! বাঘের হাতে প্রাণ সংহারের ঝুঁকি লইত না নিশ্চিত ! আমার এক ভাইজানের স্মৃতিকথায় ইহার নমুনা একবার পাইয়াছিলাম ! ধরা যাক তাহার নাম বাবু ! বাবুভাই তখন যশোহরে বাবস্যার কাজে নিয়মিত যাইতেন ! যশোহর টু ঢাকা রোডে তখন রাত্রিবেলায় ডাকাতি হইতো ! একারণে রাত্রিবেলায় সব বাস একসাথে ছাড়িত ! উনার পাশের একজন যাত্রী ছিলেন যিনি এই রুটে নতুন ! বেশ স্বাস্থ্যবান মানুষ ! বিচার বিবেচনা না করিয়া হকারের কাছ হইতে উল্টা সিধা খাইতে থাকিলেন ! একপর্যায়ে যখন চারটি ডিম খাইতে লাগিলেন তখন বাবু ভাই তাহাকে সতর্ক করিলেন ! বীরপুঙ্গব কহিলেন , তাহার পেটে লোহাও হজম হইয়া যায় ! কুনু ছমস্যা হইতো ন ! ভদ্রতার খাতিরে বাবু ভাই আর কিছু কহিলেন না ! যথাসময়ে বাস ছাড়িলে যাত্রীগণ কিছুক্ষনের মধ্যেই ঘুমাইয়া পড়িলেন ! মাগার বান্দা আর ঘুমাইতে পারে না ! তাহার আগ্নেয়গিরির ধুম্র বিসর্জন আর গর্জনে টেকা দায় ! সঙ্গে আছে ভূমিকম্পের মতন মোচড়ামুচড়ি ! শেষে উপায় না পাইয়া বান্দা সুপারভাইজররে ডাকিয়া গাড়ি থামাইতে কহিলেন ! সুপারভাইজর এক কথায় নাকচ করিয়া দিলেন ! লজ্জা শরমের মাথা খাইয়া শেষে বাবু ভাইকে অনুরোধ করিলেন যেন তিনি ড্রাইভারকে অনুরোধ করিয়া গাড়ি থামাইয়া দেন ! বাবু ভাই ড্রাইভারকে বলিলে ড্রাইভার অপারগতা প্রকাশ করিলেন ! বাবু ভাই আর কি করেন ! থাকিতে না পারিয়া যখন বীরপুঙ্গব কান্নাকাটি শুরু করিয়া দেওয়ার অবস্থা , বাবু ভাই তাহাকে লইয়া দরজার কাছে চলিয়া গেলেন ! দরজা খুলিয়া একহাত বাবু ভাই , আরেক হাত হেলপার ধরিয়া রাখিলেন , বান্দা কাম সারিলেন ! বাস কিন্তু চলিতে লাগিল ! তাই বলিতেছিলাম , ম্যাংগোপিপলের উপায় আছে ! রাজামশাইয়ের জানের চেয়ে ইজ্জতের মূল্য বেশি !

কোথা হইতে কোথায় চলিয়া আসিয়াছি ! বলিতেছিলাম সুখ আর শান্তির মধ্যে পার্থক্য কি ? সুখ হইল আনন্দের তীব্রতা ! আর শান্তি হইল স্বস্তিকর অবস্থা ! সুখ স্বল্প সময়ের, শান্তি দীর্ঘকালীন ! মানুষ সুখের জন্য শান্তি বিসর্জন দেয় ! ধর্ষণ মামলায় জেল খাটিয়া বাহির হইয়া এক লোক ভালো হইতে চাহিল ! ওয়াজ শুনিয়া ফেরার পথে এক নম্বর সারার পরে উঠিয়া চলিতে আসিতেই তাহার বন্ধু পানি ব্যবহার করিতে বলিলে ভীষণ রাগিয়া কহিল, এই হারামজাদার সুখের জন্যইতো জেল খাটিলাম , আর ইহাকে পানি খাওয়াইব ? বেচারা অল্প সময়ের অবৈধ সুখের কারণে শান্তি হারাইয়াছিলো বিধায় ক্ষিপ্ত ! অল্প সময়ের কথা শুনিয়া আবার ডিপজলের গানের কথা মনে পড়িল ! দুই মিনিটের কাম চাহাতে সকলে ডিপজলের সক্ষমতা লইয়া ব্যাঙ্গ-বিদ্রুপ চালাইয়াছিলো ! সেপথে আর যাইতেছি না ! বলিতেছিলাম , শান্তির মা কোথায় গ্যাছে ?



শান্তির অন্বেষণ মানবজাতির সবচেয়ে পুরোনো অভ্যাস ! শান্তির অন্বেষণেই মানবজাতি ধর্মে ধর্মে তত্ত্বে তত্ত্বে বিভক্ত ! সকলেই বলিতেছে আমার ধর্মে , আমার তত্ত্বে শান্তি ! ধর্মের কথা আপাতত বাদ দিয়া তত্ত্বের কথায় আসি ! আগে রাজার কথা মান্য করাতেই শান্তি আসিবে বলা হইতো ! ইহার পরে বলা হইলো, গণতন্ত্রে , ব্যাক্তিস্বাধীনতাতেই শান্তি আসিবে ! বাস্তবে ম্যাংগোপিপলের অবস্থা হইল রাজার আমলে খোঁয়াড়ে থাকিয়া খাইতে হইতো ! রাজা যাহা খাওয়াইতো তাহাই খাইতে হইতো ! এখন ছাগলের পাল উন্মুক্ত স্থানে চড়িয়া খাইয়া মনে করিল স্বাধীন হইয়া গিয়াছে ! বাস্তবে রাখাল যে লাঠি হাতে নজর রাখিতেছে আর অজায়গায় , বেজায়গায় যাইলে লাঠি হাঁকাইয়া পাল সোজা রাখে ইহা বুঝিতে চাহে না ! ইহাতেও শান্তি আসিল না ! কারণ রাখালের দাবড়ানিতো ঠিকই আছে ! ব্যাক্তিস্বাধীনতা মাঠের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ! মাঠের বাহিরে গেলেই......! আরেকদল কহিল শান্তি এভাবে আসিবে না ! সবাইকে এক মাঠের ঘাসই খাইতে হইবে ! কেহ নেপিয়ার খাইবে আর কেহ দূর্বা ঘাস খাইবে ইহা হইবে না ! সকলেই একপ্রকার ঘাস খাইলেই শান্তি আসিবে ! বাস্তবে দেখা গেল এনিমেল ফার্মের শুয়োর নেপোলিওনরাই ঘাস সব খাইয়া ফেলিতেছে ! ছাগলের চোখে সবুজ চশমা পরাইয়া কিছুকাল মরা ঘাস খাওয়াইয়া শান্তি খোঁজা হইল , শান্তি আর আসিল না ! তাহার পর চশমা খুলিয়া আবার শান্তির অন্বেষণ ! তবে এবার না পাইলো মাঠ, না পাইলো খোঁয়াড় ! উদ্ভট উঠের পিঠে সকলেই চলিতে লাগিল ! তবে শান্তির অন্বেষণ বন্ধ হয় নাই ! বন্ধ হয় নাই অন্ধের হাতি দেখাও ! এখন অন্ধেরা অন্ধদের হাতি দেখিতে সাহায্য করে বিধায় হাতি আসলে দেখিতে কেমন কেহই সঠিক ভাবে বলিতে পারে না ! যদি কোন চক্ষুষ্মান হাতি দেখিয়া বর্ণনা করিত তাহা হইলে হাতি কেমন জানা যাইতো !

চক্ষুষ্মানের কাছে হাতি কেমন জানিতে না চাহিয়া অন্ধের কাছে চাহিলে হাতি কেমন কেমনে জানিবে ? ভুল জায়গায় খোঁজ করিলে শান্তি কিভাবে আসিবে ? রং সাইডে গাড়ি চালাইলে ওই ট্রাফিক পুলিশের স্বামীর মতন ফাইন হইবেই ! নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের এই সময়ে কৌতুকখানা না দিয়া পারিলাম না :

এক লোক বিয়ে করল এক মহিলা ট্রাফিক পুলিশকে। বাসর রাতের পর সকালে লোকটির বন্ধু জানতে চাইল যে বাসর রাত কেমন ছিল।
লোকটি জবাব দিল,”জোরে চালানোর জন্য ১০০ টাকা, Wrong সাইডের কারনে ২০০ টাকা, আর হেলমেট না থাকার জন্য ৫০০ টাকা ফাইন করছিল।
বন্ধু:তুই কী করলি?
লোক: যা করার তাই করছি। ২০০ টাকা ঘুষ দিয়া পার পাইছি।


ঘুষ দিয়া নাহয় তাৎক্ষণিক শাস্তি হইতে বাঁচা যাইবে , তবে শান্তি আর আসিবে না ! তাহা হইলে শান্তি কোথায় ? শান্তির মা মারা গেলেও শান্তিরতো থাকার কথা ?

মানুষের জীবন তিন কালের ! অতীত , বর্তমান আর ভবিষ্যৎ ! শান্তির অন্বেষণ তাহার কথামতন করিতে হইবে যিনি যিনি তিনকাল দেখিলে পারেন, অর্থাৎ মানবজাতির পূর্ণ চিত্র দেখিতে পারেন ! আর এইখানেই ধর্মের কথা আসিয়া যায় ! পার্থিব জগতের যতবড় মনীষীই হউন না কেন, তাহাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো যাইতে পারে , তাহাদের কর্মপন্থা (ধর্মের সাথে সাংঘর্ষিক না হইলে) অবলম্বন করা যাইতে পারে , তবে তাহাদের কথা মানিয়া শান্তি পাওয়া যাইবে না ! কারণ তাহাদের সীমাবদ্ধতা আছে ! তাহারা মানবজাতির পুরো সময়কাল দেখিতে পারেন না ! জীবন সম্পর্কে তাহাদের উপলব্ধি অসম্পূর্ণ বিধায় তাহাদের উপদেশ অনুযায়ী জীবন চালাইলে শান্তি আসিবে না ! কারণ এক অন্ধ , আরেক অন্ধকে হাতি চেনাইতে পারে না ! পক্ষান্তরে, যিনি মানবজাতির পুরো সময়কাল অর্থাৎ অতীত , বর্তমান , ভবিষ্যৎ দেখিতে পারেন তিনিই চক্ষুষ্মান , তিনিই হাতির সঠিক বর্ণনা দিতে পারিবেন ! তাহার কথাই মানিয়া লইতে হইবে ! আর তিনিই আল্লাহ ! তিনিই সৃষ্টিকর্তা, তিনিই শান্তিদাতা ! তাহার কথা মানিলেই শান্তি পাওয়া যাইবে !



আমাদের এক আকাবির সুন্দরভাবে বুঝাইতেন ! তিনি বলিতেন, মানুষ শান্তি চায়, আল্লাহ পাকও শান্তি দিতে চান ! তাহা হইলে মানুষ শান্তি পায় না কেন ? কারণ আল্লাহ বলিতেছেন, আল্লাহর হুকুম আর রাসূল স. এর তরিকায় চলিলেই শান্তি আসিবে ! আর মানুষ ভাবিতেছে তাহার মনে যাহাকে ভালো লাগে, যেই জীবন ব্যবস্থা তাহার ভালো লাগে উহা অনুসরণ করিলেই শান্তি আসিবে , আল্লাহর হুকুম ও তাহার রসূলের পথ ছাড়িয়া !! একারণেই শান্তি আসে না !

আরেক আকাবির বলিতেন, দুনিয়াতে কখনো শান্তি আসিবে না যতক্ষণ না মানুষের মাঝে আল্লাহতায়ালার ভয় ও আখিরাতের বিশ্বাস না আসে ! আল্লাহ তায়ালার ভয় মানুষকে অপরাধ করা হইতে বাঁচাইবে চাই আইনের হাত নাগাল পাক আর না পাক , আর আখিরাতের বিশ্বাস তাহাকে দুনিয়ার লোভ হইতে বাচাইবে , যাহাকে সকল পাপের মূল বলা হইয়াছে !

তাই শান্তির মায়ে মরে নাই , শান্তিও মরে নাই ! জায়গার জিনিস জায়গাতেই আছে , খোঁজার মধ্যে ভুল !!!

মন্তব্য ৩০ টি রেটিং +৫/-০

মন্তব্য (৩০) মন্তব্য লিখুন

১| ০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৪:৫৫

রাজীব নুর বলেছেন: নিখিল নিঃসঙ্গতাই কি তবে মানুষের অলঙ্ঘ্য নিয়তি?

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:১৯

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আমি কই কি , আর আমার সারিন্দা বাজায় কি ?

নিখিল নিঃসঙ্গতা নিয়তি তো বটেই ! ক্ববরে তো কাহাকেও লইয়া যাওয়া যাইতেছে না !!! কি আর করা !! তয় নেক আমল করিলে নিঃসঙ্গতা দূর করার ব্যবস্থা আছে বলিয়া জানা যায় !!!

২| ০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:১৬

চাঁদগাজী বলেছেন:


মানুষকে শিক্ষিত করার দরকার ও ওদের অধিকার রক্ষা করার দরকার; তখন শান্তি জায় থাকে।

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:৩০

টারজান০০০০৭ বলেছেন: শিক্ষার দরকার আছে সত্যি ! অধিকার রক্ষারও দরকার আছে ! তবে এগুলো অর্জন হইলেও মনের শান্তি আসিতেছে না ! স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশগুলোতে সোশ্যাল সিকিউরিটি সবচেয়ে বেশি ! শিক্ষা বিনামূল্যে বা কমমূল্যে ! মৌলিক অধিকারের বেশিরভাগই রাষ্ট্রই দিতেছে ! তারপরও আত্মহত্যার হার অনেক উপরে ! মনের শান্তি বস্তুবাদের সাথে নাই ! ইহা খালি চোখেই দেখা যাইতেছে !

শান্তি শিক্ষাতে নাই , অধিকার অর্জনে নাই, ঐশ্বর্যে নাই, সম্পদে নাই !! এগুলো অর্জন হইলে সাময়িক তৃপ্তি হইতে পারে , শান্তি আসেনা ! আসলে শান্তি নিজ জায়গাতেই আছে , খোঁজার মধ্যে ভুল !!

৩| ০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:৩০

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: খালি খালি ত্যানা পাকিয়ে পোস্টটা বড় করে ফেলেছেন।
তবে মন্দ হয় নি।


আপনি লোকালয় ছেড়ে বনে চলে যান। শান্তির মা ওখানে থাকলে থাকতেও পারে। শান্তির আমারে পাইলে বইলেন, আমিও আপ্নের সাথি হমু।।

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:৩৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: খালি খালি ত্যানা পাকিয়ে পোস্টটা বড় করে ফেলেছেন।
তবে মন্দ হয় নি।


ভাইরে, ত্যানা না পেচাইলে পোস্ট তো লিলিপুটিয়ান, পিগমি , ডোডোপাখি , মগজহীন হইয়া যাইবে !! তাই তো টানিয়া লম্বা করা !!


আপনি লোকালয় ছেড়ে বনে চলে যান। শান্তির মা ওখানে থাকলে থাকতেও পারে। শান্তির আমারে পাইলে বইলেন, আমিও আপ্নের সাথি হমু।।

আমিতো বনেই আছি ! তবে ইট পাথরের এই যা ! শান্তি বা শান্তির মা কাউরেই পাইতেছি না ! কারণ জায়গামতন যাইতে পারিতেছি না ! তবে পাইলে শান্তির মাকে আপনারে দিমু আর শান্তিরে আমি নিমু ! ঠিক আছে ?

৪| ০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৫:৫২

নতুন নকিব বলেছেন:




পুরোটা পড়লুম। রসালো এবং রীতিমত দারুন।

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:৪৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: নকিব ভাই , মন খারাপ ! ব্লগে কি টিকিয়া থাকিতে পারিব নাকি বুঝিতেছি না ! মতপ্রকাশের স্বাধীনতার নামে ধর্ম , ধর্মীয় ব্যাক্তিত্বের অবমাননা যদি পাঁঠাদের অধিকার হয়, তাহা হইলে এই প্লাটফর্মে কিভাবে টেকা যাইবে ?

আমার বুঝে আসে না , ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও কোন মুসলমান কিভাবে ইহা এলাও করে ?

৫| ০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩২

লায়নহার্ট বলেছেন: {আপনি কি মানুষ না টরজান? হাহাহা, লেখাটা খুব রসাত্নক লেগেছে, আপনি কি দুইবেলা রশোগোল্লা খান...আচ্ছা গুগুল মামুর হেল্প ছাড়া বলেন তো টারজান মানে কি?}

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:৫৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আপনি কি মানুষ না টারজান ?

দিলেন তো প্যাচ লাগাইয়া ! এখন তো আমার নিজেরই সন্দেহ হইতেছে !! যাইগা ব্লগের উইকি চাঁদগাজী কাহুরে জিগায়া আসি !

আপনি কি দুইবেলা রশোগোল্লা খান...

মাত্থা খ্রাফ !! টারজান হইয়া ডায়াবেটিস হইলে কি ইজ্জত থাকিবে ? ঘন ঘন জলবিয়োগ !! ছিঃ !! তবে মধু খাই !

আচ্ছা গুগুল মামুর হেল্প ছাড়া বলেন তো টারজান মানে কি?

ই ই ই ..... টারজান মানে টারজান !! ওওওওওওওওও .........................................

পরে গুগল মামু যাহা কহিল তাহাতে ইজ্জত আছে নাকি চেক করিতে হইবে !!

৬| ০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৫০

সাইন বোর্ড বলেছেন: ভাল লাগল পড়ে ।

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:৫৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধইন্যবাদ !
শনির আখড়ার ঐদিকে একখানা সাইন বোর্ড আছে না ? আপনি কি সেই সাইন বোর্ড ?

৭| ০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৫৭

আশাবাদী অধম বলেছেন: সাধু ভাষা রম্যের জন্য সহায়ক হইলেও দীর্ঘ সময় ধরে উহা পাঠ করা বিরক্তির কারণ। আশাকরি এখন থেকে ইহা বিবেচনায় রাখিয়া পোস্টাইলে পোস্টগুলি সুখ পাঠ্য হইবে এবং আরো অধিক পাঠকপ্রিয়তা পাইবে।

দেখিয়া সুখি হইলাম যে আপনার পোস্ট বর্তমানে প্রথম পাতায় স্থান পাইতেছে।

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:০৬

টারজান০০০০৭ বলেছেন: কি করিব ? চলিত ভাষায় চলিতে পারিতেছি না যে !

এক কাজ করেন, গুগল মামুরে কন আমার ভাষারে চলিত ভাষায় ট্রান্সলেট করিয়া দিতে !

আমার অবস্থায়ও অনল চৌধুরীর মতন কচুর পাতায় পানি !! তবে ফিল্ড মার্শাল হইতে ডিমোশন দিয়া জেনারেল বানাইলে পদত্যাগ করিব !

কিন্তু বুঝিলাম না আপনি অধম কেন হইলেন ? আমি তো উত্তম দেখিতেছি !

৮| ০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:০০

কি করি আজ ভেবে না পাই বলেছেন: আবারো প্রমান দিলা এ্যাই বনের টারজান তুমিই,
এই না হৈলে মেরা দোস্ত?
একখান কল দিও, অনিমেষের 'ভাবনা' লৈয়া বিরাট ভাবনায় আছি।
সুরাহা হওন দরকার।
ঘটনা না ঝুলাইয়া হালারে ঝুলানডাই হেকমত................ ;) :D ;)

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:২২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আবারো প্রমান দিলা এ্যাই বনের টারজান তুমিই,

দোস্ত ! এক বনে দুই টারজান থাকা উচিত না ! তাই বাকিগুলানরে আগেই ঢিসা ঢিসা কইরা ভাগাইছি !

একখান কল দিও, অনিমেষের 'ভাবনা' লৈয়া বিরাট ভাবনায় আছি।
সুরাহা হওন দরকার।
ঘটনা না ঝুলাইয়া হালারে ঝুলানডাই হেকমত................ ;) :D ;)


দোস্ত , আমার অবস্থা যদি জানিতে তাহা হইলে ধরিতেও দিতা না, ছাড়া তো দূরের কথা , আগেই কাইন্দা বাঁচিতে চাহিতে !

অনি কুখ্যাত হওনের পরে আর যুগাযুগ নাই ! দেহি তুমার লগে বসমুনে ! গুহামানবও প্যাচে পইড়া গ্যাছে ! শরিলের কি অবস্থা ?

৯| ০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২৩

পদাতিক চৌধুরি বলেছেন: প্রিয় টারজান ভাই,

বেশ ভালো লাগলো। আমরাও শান্তি পেলাম কোথায় ? বড্ড বড় হওয়াই মাকে না পাইয়া শান্তিকে লইয়া মজাকরে চলে এলুম। বেশ মজা পাইলুম। তবে বেস্ট লাগলো, ট্রাফিক পুলিশের বাসরঘর। হা হা হা।

শুভকামনা জানবেন ।

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৩৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: বলেন কি , শান্তিতো আমার লগে ! আপনি তাহারে পাইলেন কোথায় ? তাইলে কি পরকীয়া করতাছে !! দাঁড়ান , শান্তির মারে পাইয়া লই !!

নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের এই সময়ে আপনার জন্য আরেকখানা :

এক মেয়ের বিয়ে হলো বাস হেল্পারের সাথে। বাসর রাতের পরদিন
এক বান্ধবী মেয়েকে জিগ্গাসা করলো: কিরে মনু, কালকে রাতে কেমন হলো?

মেয়ে তো হেভী ফায়ার: বলিস না আর আমার পাছা ব্যাথা করে দিসে।

বান্ধবী বলে: বলিস কি প্রথম রাতেই ইয়েতে। তওবা তওবা !

মেয়ে বলে: আরে না সারারাত ওস্তাদ ডাইনে চাপেন আর ওস্তাদ বামে চাপেন কইয়া পাছা থাবড়াইসে।

১০| ০৪ ঠা সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ৯:৪১

বিচার মানি তালগাছ আমার বলেছেন: এক পোস্টেই সব কথা না লিখে মাঝে মাঝে পোস্ট দিতে পারেন। লেখা ভালো হয়েছে। শেষ লাইনটা চমৎকার...

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৩৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ভাইরে, ঘরে-বাহিরে কামলা দিয়া সময় পাই না ! তাই চাঞ্চ পাইয়া একদিনেই কোষ্ঠ পরিষ্কার করিয়া কষ্ট কমাই !!!!!

১১| ০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:০০

নতুন নকিব বলেছেন:



নকিব ভাই , মন খারাপ ! ব্লগে কি টিকিয়া থাকিতে পারিব নাকি বুঝিতেছি না ! মতপ্রকাশের স্বাধীনতার নামে ধর্ম , ধর্মীয় ব্যাক্তিত্বের অবমাননা যদি পাঁঠাদের অধিকার হয়, তাহা হইলে এই প্লাটফর্মে কিভাবে টেকা যাইবে ?

আমার বুঝে আসে না , ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও কোন মুসলমান কিভাবে ইহা এলাও করে ?


--- ইহা ভাবিয়া মাঝে মাঝে আমিও বেচাইন হইয়া পড়ি! কলম তুলিয়া লই! কানের গোড়ায় গুজিয়া রাখি! ভাবি, আর নহে! যথেষ্ট হইয়াছে! তাহার পরে আবার যোগ-বিয়োগ করিয়া একসময় হিসাব মিলাই, প্রতিবাদ না করিয়া মুখ বন্ধ করিয়া রাখা তো কোন সমাধান হইতে পারে না! তাহা হইলে কি তাহাদের খালি মাঠে গোল দেওয়ার সুযোগটাকেই একেবারে উম্মুক্ত করিয়া দেওয়া হইল না?

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১১:৩৯

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আমি এখনও হিসাব মিলাইতে বসি নাই ! বসিলে কি হইবে জানি না ! দোয়া চাই ! :(

১২| ০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:১২

পাঠকের প্রতিক্রিয়া ! বলেছেন: ব্লগে থাকেন।
নচেত পাঁডাদের বিচি ফালাইবে কে??:P



পাঁডার বিচি কি খাওন যায়???:P
নাকি আস্ত পাঁঠিই মা কালিকে গিফট দিতে হবে?....;)

০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ দুপুর ১২:৫৪

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ব্লগে থাকেন।
নচেত পাঁডাদের বিচি ফালাইবে কে??:


আমি কি চাকরি লইছি ? কামলা দিয়াই টাইম পাই না , তার উফরে বিচি ফেলানোর টাকা কেহ দেয় না ! ভলান্টারি আর কতকাল !

পাঁডার বিচি কি খাওন যায়???:

চীন-জাপানের লোকেরা খায় শুনিয়াছি , আমাদের দেশ হইতে রপ্তানিও হয় বলিয়া খবরে প্রকাশ ! তবে ব্লগের পাঁঠাদের বিচি রপ্তানিযোগ্য কিনা তাহার ফিজিবিলিটি স্টাডির দায়িত্ব আপনারে দেওয়া হইল !

নাকি আস্ত পাঁঠিই মা কালিকে গিফট দিতে হবে?....;)

কষ্টতো ঐখানেই , কোন পাঠিরে কেহ বলি বানাইলো না ! এই লিঙ্গ বৈষম্যের তেব্র পোর্তিবাদ জানাইতেছি !!

১৩| ০৫ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ বিকাল ৪:৫১

লায়নহার্ট বলেছেন: {টারজান মানে সাদা চামড়া}

০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:৪৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: দেখলাম ! টারজানের কিন্তুক আরো মিনিং আছে !!! ;)

১৪| ০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ রাত ১:৫৯

কি করি আজ ভেবে না পাই বলেছেন: আমার বুঝে আসে না , ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও কোন মুসলমান কিভাবে ইহা এলাও করে ?

একদিন তাহারো বয়েস হইবে। হয়তো মুজাদ্দিদ আল ফেসানির মতন কোনো মহাত্মার সহিত সাক্ষাৎ হইবে। পূর্ণাত্মার সংস্পর্শে আসিয়া সেদিন তিনি মর্মে মর্মে উপলদ্ধি করিবেন মত প্রকাশের স্বাধীনতার দোহাইয়ে পেশাদারিত্বের স্বার্থে কি করিয়াছিলেন বিগত জীবনে। সেদিন কেবল আফসোসই করিবেন। আফসোস..........সে আফসোসই সার।

দ্যাহোতো কান্ড, তোমার পাল্লায় পড়লে আমারো আর এই ব্লগে থাকন লাগবোনা। :D ;) :P

কুখ্যাত হৈলেও শালার মিশন ঠিকাছে, চামে যবন দংশনে সিদ্ধহস্ত।

কৈ যামু? নিজভূমে পরবাস, বুঝলা? /:) B:-/

কল দিও................

০৬ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:০২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: সাপ যখন গর্তে ঢোকে তখন নাকি সোজা হইয়া ঢোকে ! এর আগে পর্যন্ত ব্যাকা হইয়াই চলে ! ইহারা ভালো হোক এই কামনা করি ! ইহারা আল্লাহ ও রাসূল স. এর ক্ষতিতো করিতে পারিবে না , ক্ষতি করিবে সহজ সরল মুসলমানদিগকে ! তাহাদের ঈমানহারা করার চেষ্টা করিবে ! আখেরে ক্ষতি তাহাদেরই হইবে ! কি আর করা !

দ্যাহোতো কান্ড, তোমার পাল্লায় পড়লে আমারো আর এই ব্লগে থাকন লাগবোনা। :D ;) :P

থাকার কি খুব দরকার ? ব্লগ লিখিয়া পেট চলিলে তাহাও নাহয় চলিত ! খালি খালি সময় নষ্ট ! ইহার চাইতে কইষা ঘুম দেওন ভালা ! তোমার ছড়ার বই কয়টা বাইর হইছে? লিখতে লিখতে কেমন লেখক হইছো ? তোমার ছড়ার হাত খুব ভালো ! লেখা বন্ধ কইরোনা !

কুখ্যাত হৈলেও শালার মিশন ঠিকাছে, চামে যবন দংশনে সিদ্ধহস্ত।

সাক্ষাতে ওর কথা শুনমু !

কৈ যামু? নিজভূমে পরবাস, বুঝলা? /:) B:-/

এইটা বুঝি সত্যি ! মাঝে মাঝে ভাবি দেশের নাগরিক না হইয়া বিশ্বনাগরিক হইলেই ভালো হইতো ! এমন একটা চাকরি যদি পাইতাম !

কল দিও................

দিমু ! গুহামানবরে পাইতাছি না ! ওরে নিয়া তোমার ওখানে যামু ভাবতাছি !

১৫| ০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ৯:৪৪

নাজিম সৌরভ বলেছেন: ধুর্মিয়া!

সকাল সকাল আপনার পোস্ট পইড়া মাথাডা গেছে আউলাইয়া!
চাইছিলাম শান্তিতে ছুটির দিন কাডামু... :(

০৭ ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ সকাল ১০:০৪

টারজান০০০০৭ বলেছেন: বিনা পয়সায় মাথা আউলাইয়া আওলিয়া হইতেছেন, অহন নজরানা দেন ! :P

শান্তির মায়েতো ব্লগে নাই , শান্তিও নাই ! জায়গার জিনিস জায়গামতন না খুজিলে কি পাওয়া যাইবে ? :D

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.