নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

টারজান০০০০৭

টারজান০০০০৭ › বিস্তারিত পোস্টঃ

পশ্চিমে ধর্ম এখন সামাজিক সংস্কৃতি মাত্র। ইসলামও কি তাহাই হওয়া উচিত ?

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৪:০৪



ধর্ম নিয়া পোস্ট দিতে ইচ্ছে করে না। কারণ, না দেখিতে চাহিলেও পাঁঠাদের ইয়ে দেখিতেই হয় ! তাহাও নাহয় দাঁতমুখ খিঁচিয়া দেখা গেল ! কিন্তুক তাহাদের ইয়ে নামাইলে মডু খড়গহস্ত হইয়া থাকে ! বড়ই আজব ! বাকস্বাধীনতার নামে একজন ব্যক্তি লক্ষ লোকের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করিলে বা ধর্ম , ধর্মীয় ব্যক্তিত্বের নামে কুৎসা গাহিয়া সমষ্টিকে আক্রমন করিলে উহা মডুর কাছে আপত্তিকর মনে হয় না , মনে হয় একজন ব্যক্তিকে ব্যক্তিগত আক্রমন করিলে ! ব্যক্তির চেয়ে দল ছোটই দেখা যাইতেছে ! যাহা হউক , মডুর কাজ মডু করিয়াছে .............তাহা বলিয়া টারজানের তো ইয়ে করা শোভা পায় না।


এই পোস্ট , আমার আগের পোস্টের সম্পূরক , কেননা আগের পোস্ট হইতেই প্রতীয়মান হইয়াছে আমাদের বুদ্ধুজীবী , পাঁঠারা ইসলামকে কেমন ধর্ম বানাইতে চাহিতেছে , আর ইসলাম মূলত কেমন ধর্ম ! যেহেতু ধর্মবেত্তা নই , তাই ভুল হইতে পারে। ব্লগে কোন ধর্মবেত্তা থাকিলে সংশোধনের আবেদন রইল।



আমাদের বুদ্ধুজীবীদের মন্তব্য হইতে ইহাই প্রতীয়মান হয় যে , সারা বিশ্বে ধর্ম এখন জীবনের গাইডলাইন নহে , ধর্ম হইলো সামাজিক সংস্কৃতি , আচার , রুসম মাত্র। তাই ধর্ম জীবনের সব ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নহে। একারণেই ধর্মকে শোকেসে সাজাইয়া রাখিয়া মাঝে মাঝে আহা উহু করিলেই, বা ধর্মবেত্তাদের কিছু দিয়া দিলেই , বা ধর্মীয় কাজে টাকা ঢালিলেই তাহাদের কাছে যথেষ্ট মনে হইতেছে ! ইহাতে আকাম কুকামেরও সুবিধা, যেহেতু ধর্ম শুধুমাত্র আচার হওয়ার কারণে জীবনের বেশিরভাগ ক্ষেত্রে গাইড হইতে পারে না , একারণে মনে যাহা আকাম কুকাম চায় তাহাতে বাধা দেওয়ার কেহ বা কোন কিছু থাকে না। মজা আর মজা !

ইতিহাস হইতে দেখা যায় , রাজনৈতিক ক্ষমতা হারানোর সাথে সাথে ধর্মের প্রভাব কমিতে থাকে, ম্যাংগোপিপল জীবন হইতে ধর্মকে দূরে সরাইয়া নিজেদের ইচ্ছামতন চলিতে থাকে , এমনকি ধর্ম এক পর্যায়ে শুধু আচারসর্বস্ব হইয়া যায়। রেনেসাঁর পরে পশ্চিমে ধর্ম তাই আচার সর্বস্বই হইয়াছে। পোপের রাজনৈতিক ক্ষমতা যাওয়ার পরে এই পরিণতি। নির্দিষ্ট দিনে উপাসনালয়ে গেলেই হইয়া যায় , চ্যারিটি কর্মে অংশগ্রহণ করিলেই ধার্মিক বলা হয়। অন্যান্য ধর্মের অবস্থাও কমবেশি ইহাই।



বাকি রইলো ইসলাম। ইসলাম এখনো শুধুমাত্র আচারসর্বস্ব, সামাজিক সংস্কৃতির অংশ হয় নাই। ইসলামের ক্ষেত্র এতো কম নহে। ব্যক্তি, সমাজ , রাষ্ট্র সকল ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। জীবনের সকল ক্ষেত্রে, ঘুম হইতে ওঠা থেকে ঘুমানো পর্যন্ত ইসলামের নির্দেশনা আছে, জন্ম হইতে মৃর্ত্যু পর্যন্ত, পায়ের নখ হইতে মাথার চুল পর্যন্ত , সকল আচার-ব্যবহার , লেন-দেন, সামাজিক মেলামেশা , রাষ্ট্রীয় আইন ও পরিচালনা সবকিছুতেই ইসলামের নির্দেশনা আছে। একারণেই রাষ্ট্রক্ষমতা না থাকিলেও বাকিগুলোতে ইসলাম থাকিয়া যায়। একজন মানুষ যদি ইসলাম মানিতে চায়, তাহাকে রাসূল স. কে পরিপূর্ণ অনুসরণ করিয়া চলিতে হইবে। কি সুরতে, কি সীরাতে , কি সারিরাতে ! তাহার পা হইতে মাথা পর্যন্ত সুন্নত থাকিতে হইবে। পোশাক, চুল-দাড়ি সুন্নতের অনুসরণে হইবে। তাহার সীরাত রাসূল স. এর ২৪ ঘন্টার জিন্দেগীর অনুসরণে হইবে। অর্থাৎ, তাহার খাওয়া , পড়া , উঠা-বসা , মেলামেশা , লেন-দেন , আচার-ব্যবহার, আখলাক, বিবাহ-সাদি , আত্মীয়তা সবকিছু রাসূল স. এর সুন্নত অনুসরণে হইবে। তাহার সারিরাত অর্থাৎ কর্ম , ফিকির রাসূল স. এর কর্ম ও ফিকিরের হইবে। অর্থাৎ মানুষকে আল্লাহর দিকে ডাকা , মানুষের কল্যাণকামনা হইবে। সুতরাং একজন মুসলমানের শুধুমাত্র আচার-সর্বস্ব হওয়া, ইসলামকে রেওয়াজ-রুসূম হিসাবে মানা, বা ইসলামকে শুধুমাত্র সামাজিক সংস্কৃতির অংশ বানানোর কোন উপায় নাই।

এইখানেই আমাদের বুদ্ধুজীবীদের, পাঁঠাদের চরম আপত্তি ! তাহারা ইসলামকে অন্য ধর্মের মতন একপাশে হটাইয়া রাখিতে চায়। ব্যাক্তিগত জীবনে , সমাজে , রাষ্ট্রে , চিন্তায়- চেতনায় প্রবেশ করিতে দিতে চায় না ! বিশেষ করিয়া রাজনীতিতে তো অবশ্যই না । কারণ, তাহাদের দর্শনের এতই দৈন্যদশা যে ইসলামের নামে ভ্রান্ত মতবাদ লইয়াও কেহ খাড়া হইলেও তাহাদের মোকাবেলায় ইহারা অপারগ হইয়া যায় ! তাই তাহাদের স্লোগান দিতে হয় , "ধর্ম লইয়া রাজনীতি, সবচেয়ে বড় দুর্নীতি !!" রাজনীতির অর্থ পরিবতন হইয়া যেভাবে আকাম-কুকাম, চাপাবাজি, সন্ত্রাসে রূপান্তরিত হইয়া গিয়াছে তাহাতে ধর্ম লইয়া রাজনীতি এখন বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দুর্নীতিই হইয়া গিয়াছে ! কিন্তু সমস্যা হইয়াছে , ধর্মহীন রাজনীতি আরো বড় দুর্নীতি হিসেবে প্রমাণিত হইয়াছে। আমরা চোখের সামনে দেখিতেছি !

ইসলামকে একপাশে সরাইয়া দেওয়ার চেষ্টা আজকের নহে। ইংরেজ আমল হইতেই হইতেছে ! এখনকার বুদ্ধুজীবীদের মতন তখনকার বুদ্ধুজীবীরাও কহিতেন, ধর্মের বাধা অপসারণ না করিলে মুসলমানের উন্নতি নাই ! এই মাইনকা চিপার বাসিন্দাদের নসিহত আজ শতবছর ধরিয়া ম্যাংগোপিপল শুনিতেছে ! মুসলমান তাহাদের কথা শুনিয়া ধর্মরে সাইডে রাখিতে রাখিতে নিজেই নদীতে পড়িতেছে , ইহাতেও নসিহত বন্ধ হয় নাই ! এখন ধর্ম হইতে ভাগিয়া সমুদ্রে যাইতে বলিতেছে !

অথচ অন্য জাতির জাগতিক উন্নতি তাহাদের ধর্ম হইতে ভাগিলে হইতেও পারে , মুসলমানের উন্নতি হইতেই পারে না। ইতিহাস সেই সাক্ষ্যই দেয় ! বরং ইসলামকে আচারসর্বস্ব না বানাইয়া, সামাজিক সংস্কৃতি না বানাইয়া পরিপূর্ণ ভাবে মানাই সমাধান, নির্দেশনা ! ইহাতেই আল্লাহতালার সাহায্য , ইহাতেই মুক্তি। ইসলামের বৈশিষ্ট্য, অন্যদের সাথে পার্থক্য ইহাই।

মন্তব্য ৫০ টি রেটিং +৩/-০

মন্তব্য (৫০) মন্তব্য লিখুন

১| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৪:৩২

সনেট কবি বলেছেন: ভাল লিখেছেন।

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৪:৩৪

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ কবি ! কেমন আছেন ?

২| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৪:৪৩

আতোয়ার রহমান বাংলা বলেছেন: ভাল লিখেছে। ধন্যবাদ

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৪:৪৬

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ।

৩| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:০২

মোঃ মাইদুল সরকার বলেছেন:
ইহুদী নাসারাদের উন্নতী দেখে আজ কিছু নামধারী মুসলিম মনে করে ধর্মই উন্নতীর পথে বাধা।

আর নরাধম আমি বলি-তুই নিজেই ধর্মের জন্য বাধা হয়ে দাড়িয়েছিস।

ইসলামের পতাকা সদা সমুন্নত থাকুক।
++++++++++++++++++++++

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৫:১২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ইতিহাস না পড়িলে , ওলামায়ে হকদের সাহচর্যে না আসিলে মাইনকা চিপার বাসিন্দাদের বর্জ্য পদার্থই সুস্বাদু মনে হইবে ! তাহাই হইতেছে। অন্ধ বুদ্ধুজীবীরা হাতির কান হাতাইয়া কুলা বলিতেছে , আর আমরা ম্যাংগোপিপল কুলা বলিয়া মানিয়া লইতেছি। চক্ষুস্মানদের কাছে যাইতেছি না ! তাই হাতি দেখিতে কেমন আমাদের অজানাই থাকিয়া যাইতেছে !

৪| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০০

চাঁদগাজী বলেছেন:


পশ্চিমে ইসলামই এখন ২য় ধর্ম, লন্ডন, প্যারিস, বেলজিয়ামে ইসলামই ২য় ধর্ম; ওখানে ইসলামের কি অবস্হা? তুরস্ক, বসনিয়া, আলবেনিয়া হচ্ছে পশ্চিমের মুসলিম দেশ, ওখানে ইসলামের কি অবস্হা?

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:২৬

টারজান০০০০৭ বলেছেন: সার্বিক অবস্থা ভালো নহে , তবে মেহনত চলিতেছে !

সঙ্গদোষে লোহা ভাসে , তাই ওখানকার মুসলিমরাও পশ্চিমাদের সাথে ভাসিতেছে ! তাহাদের মতোই ধর্মকে আচারসর্বস্ব ভাবিতেছে ! তবে সকলেই নহে।

৫| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:০৪

চাঁদগাজী বলেছেন:


ধর্মকে কেহ কিছু করছে না, সব ধর্মই কয়েক'শ বছর পরে নিজের থেকেই বদলে যায়। হিন্দু ধর্ম সবচেয়ে বেশী বদলাচ্ছে, ওরা নতুনটা নিয়ে আগের চেয়ে বেশী খুশী থাকে, এটাই হিন্দু ধর্মের টিকে থাকার সিক্রেট

০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৬:৩৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: "ধর্মকে কেহ কিছু করছে না, সব ধর্মই কয়েক'শ বছর পরে নিজের থেকেই বদলে যায়। "

আপনার বুঝি ইতিহাস জানা নাই ? উপমহাদেশে বৌদ্ধ ধর্মকে মুছিয়া ফেলার চেষ্টা, সোভিয়েত রাজ্যগুলিতে মসজিদ, মাদ্রাসা বন্ধ, গির্জা বন্ধ , আলবেনিয়াতে হোজ্জার আমলে ধর্মই নিষিদ্ধ এগুলো কি ?

অন্য ধর্মের কথা জানি না , তবে ইসলামের মূলনীতিগুলোর পরিবর্তনের সুযোগ নাই। ১৪০০ বছরে হয় নাই।কেয়ামতের আগে অতিকায় হস্তির মতন লোপ পাইবে , তেলাপোকার মতন টিকিয়া থাকিবে না ! তবে উহার দেরি আছে।

৬| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:২৪

আরোগ্য বলেছেন: চিরন্তন সত্য যে, ইসলাম ছাড়া রক্ষা নাই। না ইহকালে না পরকালে।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৯:৪৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ইহাই সত্যি ! যে যাহাই হউক , দিনশেষে মুসলমানই ! আল্লাহর কাছে দুনিয়াবী সম্পদ , ব্যবসা, চাকুরী, ডিগ্রী, চেহারা এগুলোর মূল্য নাই ! তাই মউতের পরে সব মূল্যহীন যদি না আল্লাহর হুকুম আর রাসূল স. এর তরিকা অনুযায়ী হয় !

৭| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৩২

জেকলেট বলেছেন: সমস্যাটা হচ্ছে নিজেকে আবার মুসলমান বলতেও হবে আর না হয় সেই সকল সুবিধা পাওয়া যায়না। আমার বাপ মুসলমান তাই আমি ও মুসলমান মুহাম্মদ কউন হো??? এই সকল গাজাখোর রাই ইসলামের পরিবর্তন চায়।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ৯:৫১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: না , সকলেই নহে। বহু মুসলমান আছে যাহারা না বুঝিয়াই মাইনকা চিপার বাসিন্দাদের বর্জ্য পদার্থ সুস্বাদু মনে করিয়া গিলিতেছে ! ঈমানের স্বাদ কি , আমলের স্বাদ কি তাহা জানে না ! তাহারা না বুঝিয়াই ইসলামকে আচার সর্বস্ব ভাবিতেছে , কারণ আমাদের বুদ্ধুজীবীরা তাহাদের বুঝাইতেছে ,ধর্মকে সাইডে রাখিতে হইবে ! জীবনের সকল ক্ষেত্রে ইসলাম নহে। ব্লা ব্লা ব্লা !

৮| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ সন্ধ্যা ৭:৪৬

প্রশ্নবোধক (?) বলেছেন: কেহ কেহ ব্লগার বাবাজী নিজেকে একজন নাস্তিক হিসেবে জাহির করিয়া থাকেন। আবার কৌশলে গো-মুত্র খোর মুশরিকদের সংগে সংগ দিয়ে মুত্রমনা হইয়া ভুত-পেত্নী স্বর্বস্ব ধর্মকে অগ্রে টানিয়া আনিতে চাহেন। এতেই প্রতিয়মান হইয়া থাকে যে উনারা আসলে নাস্তিকতায় বিশ্বাস না করিয়া শয়তানের ভজনানন্দ গাহিতে অধিক ভালবাসেন । তাহারা প্রকৃতপক্ষে ইসলাম বিরোধী।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:০১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: নাস্তিক হওয়া এতো সহজ নহে যদিনা পিতামাতা বা পরিবেশে নাস্তিকতার প্রভাব থাকে। বিশেষ করিয়া মুসলমানের ঘরে জন্মগ্রহণ করিয়া নাস্তিক হওয়া কঠিন !

সাপ যেমন সারাক্ষন আঁকাবাঁকা চলিলেও গর্তে ঢোকার আগে সোজা হইয়া ঢোকে, বেশিরভাগ নাস্তিক মরণের আগে সোজা হইয়া যায় ! ইহা এক প্রকার মানসিক অসুস্থতা বলিয়া আমার বিশ্বাস।

ব্লগের নাস্তিকরা নাস্তিক নহে। ইহাদের একদল ইসলাম বিদ্বেষী, আরেকদল ছাগু বিরোধিতা করিতে যাইয়া ইসলামরে গুলি করিয়া বসে ! আরেকদল বামাতী। যেহেতু তাহাদের গুরুরা ধর্মের বিরোধী ছিল তাই ইহারাও না বুঝিয়াই , না জানিয়াই বিরোধিতা করে। আবার মরার আগে হজ্ব করিয়া , নামাজ পড়িয়া পাপ মোচনের চেষ্টাও করে। এখলাসের সাথে হইলে আল্লাহ মাফও করিয়া দিবেন আশা করা যায়।

৯| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ রাত ৮:৫৮

ওমেরা বলেছেন: আল্লাহ দুনিয়াতে মানুষ সৃষ্টি করেছেন ও দুনিয়াতে চলার জন্য মানুষকে একটা পূর্ণাংগ জিবনবিধান দিয়েছেন। সেই বিধান আমরা ঠিকমত মানছি না বলেই আমাদের জীবনে বিপর্যয় আসছে ।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:০৯

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ।বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বিপর্যয় আমাদের হাতের কামাই। তবে বিপর্যয় মুমিনের জীবনেও আসিতে পারে ! উহা আসে পরীক্ষা স্বরূপ অথবা সতর্কতা স্বরূপ। যদি মুসলমানের দোষ থাকে তাহা হইলে সতর্ক করা হয়। যদি নেককার হয় আর সবর করে তাহা হইলে তাহার মর্যাদা, নেয়ামত বাড়াইয়া দেওয়া হয় !

দ্বীন মানার জন্য পরিবেশ প্রয়োজন, মোটিভেশন প্রয়োজন , চর্চার প্রয়োজন।

১০| ০৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ রাত ১০:০৬

রাজীব নুর বলেছেন: ধর্ম নিয়ে খুব কম জানি। তাই চুপ থাকলাম।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:১৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: যতটুকু জানি ,২৪ ঘন্টার জীবন চালানোর জন্য যেটুকু এলেম দরকার সেটুকু জানা ফরজ। সুতরাং ইসলাম সম্পর্কে না জানা থাকিলে ওলামায়ে হকদের কাছে গিয়া শিখিয়া লন , জানিয়া লন ! মুসলমান হইলে জানিতে হইবে।

বাঁচতে হলে জানতে হবে ! :D

১১| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:২৪

নীল আকাশ বলেছেন: মুসলিম দের জন্য ইসলাম একটা পরিপূর্ন জীবন ব্যবস্থা। জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত। এটা কেয়ামত পর্যন্ত অপরিবর্তনশীল। এটাকে অস্বীকার করে মানে িসলাম ধর্ম থেকে সড়ে যাওয়া। আর তার পরিনতি ইতিহাস বলে, কখনোই ভালো হয় নি।

চমৎকার একটা লেখা, আমি মুগ্ধ হয়েছি। লেখককে ধন্যবাদ।
শুভ সকাল।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:৩১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ।
ইহাই সত্য। ইসলামকে শুধু আচার সর্বস্ব বা সামাজিক সংস্কৃতির অংশ বানানোর সুযোগ নাই। ইসলাম জীবনের সকল ক্ষেত্রের জন্য।

১২| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:০০

লোনার বলেছেন: দেখুন: view this link

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:০৯

টারজান০০০০৭ বলেছেন: পড়লাম। ভালো লিখেছেন!

১৩| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:৫২

নতুন বলেছেন: পরিবত`ন আসবেই সেটা আপনি না চাইলেই্ও আসবে।

সমাজ যখন পাল্টায় তখন তার আচরনও পাল্টায়.... তাই ধমে`র দেওয়া নিয়মও সময়ের সাথে ব্যকডেটেড মনে হতে থাকে সমাজের মানুষের কাছে।

বাকি রইলো ইসলাম। ইসলাম এখনো শুধুমাত্র আচারসর্বস্ব, সামাজিক সংস্কৃতির অংশ হয় নাই। ইসলামের ক্ষেত্র এতো কম নহে। ব্যক্তি, সমাজ , রাষ্ট্র সকল ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

* দেশের ৬০-৭০% মানুষই এখন ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে না। কিন্তু শুক্রবারে মসজিদে জায়গা পাবেন না।
* মাদক, মদ, নেশাতেও অনেক মানুষ যুক্ত..... তারাও নামে মুসলমান.... তারাও কিন্তু ঈদের নামাজ পড়ে... ইফতার করে... এমনকি তাদের শুক্রবারে জুম্মাতেও পাবেন।
* দেশের কত ভাগ মানুষ চাকুরীতে ঘুষ খায়?????
* দেশের কত ভাগ মানুষ ব্যবসাতে ভ্যাজাল দেয়???
*দেশের কত ভাগ মানুষ ব্যাংকে টাকা রেখে সুদ খায়???

এই রকমের প্রশ্নের লিস্টটা অনেক লম্বা.... আর তার উত্তর দিয়ে যদি হিসাব করেন... তবে বুঝতে পারবেন আপনি যেটা বলছেন পশ্চিমাদের সম্পকে`.... সেটা ইতিমধ্যে আমাদের সমাজে শুরু হয়েছে.... :(

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১২:৫৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ। আপনি খুব গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য করেছেন।

পরিবর্তন আসবে সন্দেহ নাই , ইতোমধ্যে শুরুও হইয়াছে ! আর ইহা একদিনে হয় নাই ! দীর্ঘদিন ধরিয়া মাইনকা চিপার বাসিন্দাদের নসিহতের ফলে ম্যাংগোপিপল ইসলামকে অন্য ধর্মের মতোই শুধুই আচার বা সামাজিক সংস্কৃতি মনে করিতেছে । তবে অন্যান্য ধর্মের অনুসারীদের তুলনায় মুসলিমদের মধ্যে এখনো মৌলিকতা বাকি আছে !

অন্যান্য জাতি তাহাদের ধর্মের বাহিরেই নিজস্ব স্ট্যান্ডার্ড বানাইয়া লইয়াছে। তাহাই অনুসরণ করিতেছে। ইহাতে উন্নতিও করিতেছে।কিন্তু ইহা মুসলমানের জন্য প্রযোজ্য নহে। মুসলমান বাস্তবে তাহাদের স্ট্যান্ডার্ড বিশ্বাসও করে না। জানে ইহা আমাদের জন্য নহে। আমাদের প্রেসক্রিপশন দেওয়াই আছে। নতুন প্রেসক্রিপশন প্রয়োজন নাই। নতুন প্রেসক্রিপশন ফেল মরিয়াছে।

মুসলমানদের ইতিহাস বলে, মুসলমান ধর্ম হইতে দূরে গিয়া সফলতা লাভ করিতে পারিবে না। বাস্তবেও আমরা তাহাই দেখিতেছি। আজও বুদ্ধুজীবী মহল মুসলমানকে ধর্ম হইতে দূরে যাইতে বলিতেছে ! দুইশত বছরে অনেকদূর গিয়াও কিছু হয় নাই ! আমরা তাহাদের অনুসরণ শত শত বছর ধরিয়া করিতেছি। বাস্তবে উহা ময়ূরের কাক সাজার মতন ব্যার্থতায় পর্যবেশিত হইয়াছে। ময়ূরের কাক সাজার প্রয়োজন নাই , বরং ময়ূরকে পরিপূর্ণ ময়ূর হওয়ারই প্রয়োজন !

নিজেদের ঠাকুর ছাড়িয়া বিদেশের কুকুরের অনুসরণে ভালো কিছু হয় নাই। তাই নিজেদের প্রেসক্রিপশন অনুসারে নিজেদের ঠাকুরের কাছে ফেরা দরকার। দুইশত বছরের ভুল সংশোধন করাই উচিত।

মুসলমানের মধ্যে যেসমস্ত বদ আমল , বদ আখলাক দেখা যাইতেছে , ইহার কারণও ধর্ম হইতে দূরে থাকা। আমাদের আকাবেরিনরা কহিতেছেন, ঈমানের দুর্বলতার কারণেই আমলের ঘাটতি আসে, বদ আমল, বদ আখলাক দেখা যায়। ধর্মকে একপাশে রাখিয়া দিলে ঈমানের দুর্বলতা কাটিবে কেমনে ? তাই এই পরিবর্তনে ইসলামের দোষ নাই, দোষ হইলো ইসলাম হইতে দূরে থাকার, ময়ূরের কাক সাজার চেষ্টার !

১৪| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১২:৪৭

দেশ প্রেমিক বাঙালী বলেছেন: ইসলামকে যত সামাজিক আচারসর্বস্ব করবে ততই নিগৃহীত হবে, পদদলীত হবে অপমানিত হবে এটাই স্বাভাবিক।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:০০

টারজান০০০০৭ বলেছেন: জী ! দুইশত বছর ধরিয়া ধর্মকে দূরে রাখিয়াও কাক হওয়া যায় নাই। ময়ূর কিভাবে কাক হইবে , নাকি হওয়া উচিত ? ময়ূরকে তো পরিপূর্ণ ময়ূর হইতে হইবে , তবেই না সফলতা।

১৫| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১২:৫৭

নতুন নকিব বলেছেন:



বরাবরের মত সুন্দর পোস্ট। অভিবাদন। পোস্টে +++

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:৪১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ ! কেমন আছেন। আপনার পোস্ট দেখিয়া মন খারাপ করিয়াছি ! নিজেকে অপরাধী মনে হইতেছে !

১৬| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:০৪

ভীতু সিংহ বলেছেন: আগের মতই সুন্দর পোস্ট পেলাম আপনার কাছ থেকে। পোস্টে+++

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:৪২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ। সিংহ ভীতু হইবে কেন?

১৭| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:৩১

কে ত ন বলেছেন: যাহা লিখিয়াছেন, যাহাদের উদ্দেশ্য লিখিয়াছেন, সার্থক হইবে যদ্যপি উহারা আপনার বার্তা সম্যকভাবে অবগত হয়। তা সত্ত্বেও আপনার বানান রীতিতে কিছুমাত্র ত্রুটি বিদ্যমান, যাহা সংশোধন করিবার আহবান রহিল।
১। বুদ্ধুজীবী। আপনি এই ভুল অসংখ্যবার করিয়াছেন। সম্ভবত জ্ঞানের ঘাটতিই ইহার কারণ। সঠিক বানানটি হইবে বুদ্ধিজীবি।
২। মূত্রমনা। সঠিক বানান হইবে মুক্তমনা।
আশা করি যথাশীঘ্র বানানদ্বয় সংশোধন করিয়া লইবেন।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:৫১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আমার বানামে সমস্যা আছে সন্দেহ নাই ! :D তবে "মুত্রমনা" আমার ব্যবহৃত শব্দ নহে !

আমার জ্ঞানের ঘাটতি আছে সন্দেহ নাই ! তবে 'বুদ্ধুজীবী' শব্দটি আমি ইচ্ছাকৃত ভাবে 'বুদ্ধিজীবী'র পরিবর্তে ব্যবহার করি ! কারণ আমাদের দেশে যাহাদেরকে 'বুদ্ধিজীবী' বলা হয়, ইহাদের অধিকাংশকেই আমি বুদ্ধুই মনে করি। তবে সকলেই নহেন। আমার শ্রদ্ধাভাজন অনেকেই আছেন যাহারা সত্যিকারের বুদ্ধিজীবী !

ধন্যবাদ।

১৮| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:৩২

নতুন বলেছেন: পরিবর্তন আসবে সন্দেহ নাই , ইতোমধ্যে শুরুও হইয়াছে ! আর ইহা একদিনে হয় নাই ! দীর্ঘদিন ধরিয়া মাইনকা চিপার বাসিন্দাদের নসিহতের ফলে ম্যাংগোপিপল ইসলামকে অন্য ধর্মের মতোই শুধুই আচার বা সামাজিক সংস্কৃতি মনে করিতেছে । তবে অন্যান্য ধর্মের অনুসারীদের তুলনায় মুসলিমদের মধ্যে এখনো মৌলিকতা বাকি আছে !

মানুষ কেন ইসলামের থেকে দুরে চলে যাচ্ছে???

আপনার কি মনে হয় এই দুরত্ব দিন দিন বাড়ছে না কি কমছে?

কেন দুরত্ব বাড়ছে???

কেন মানুষ নিজের ভালো না বুঝে মন্দের দিকে যাচ্ছে????

বাস্তবতা টা কি? ধমের প্রয়োজন কি এখন কমে যাচ্ছে দিন দিন??

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ২:৩৬

টারজান০০০০৭ বলেছেন: মানুষ কেন ইসলামের থেকে দুরে চলে যাচ্ছে???

ইহার কারণতো অনেক। তবে আমার কাছে মনে হয় পরিবেশ পাইতেছে না, ঈমানের চর্চা হইতেছে না বা কম হইতেছে , যাহার কারণে ঈমানের স্বাদ, আমলের স্বাদ পাইতেছে না ! ঈমানের বিষয় , ইসলামের মূলনীতিগুলোর আলোচনা কম হওয়ায় মানুষ ইসলাম নিয়া ভাবিতেছে না বা কম ভাবিতেছে !

আর মানুষ শুধু ইসলাম হইতে দূরেই যাচ্ছে না , কাছেও আসছে !

আপনার কি মনে হয় এই দুরত্ব দিন দিন বাড়ছে না কি কমছে?

প্রফেসি ইহাই বলে , দূরত্ব বাড়িবে, কমিবে আবার বাড়িবে !

কেন দুরত্ব বাড়ছে???

ইহা জানিনা , ওলামায়ে কেরাম ভালো বলিতে পারিবেন !


কেন মানুষ নিজের ভালো না বুঝে মন্দের দিকে যাচ্ছে????

ইহাও জানিনা !

বাস্তবতা টা কি? ধমের প্রয়োজন কি এখন কমে যাচ্ছে দিন দিন??

ধর্মের প্রয়োজন কমছে না , বরং বাড়ছে। এই অস্থিরতার যুগে ধর্ম ছাড়া মানুষ আর কারো কাছ থেকে শান্তি পাইবে না। তাই ধর্মের দিকেই সবাই ফিরিবে , ফিরিতেছে !

১৯| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:৫৬

নতুন নকিব বলেছেন:



অালহামদুলিল্লাহ। কোন পোস্ট? বুদ্ধিমানেরটা? অাপনি ইনশাঅাল্লাহ, বুদ্ধিমানদের কাতারেই থাকবেন।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ২:০৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: না, "ইসলামে বাকস্বাধীনতা তথা, কথাবার্তার শিষ্টাচার।"

মনে হইয়াছে , আমার মধ্যে অনেক ঘাটতি !

২০| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৩:১৬

ফারিহা হোসেন প্রভা বলেছেন: দ্বিতীয় ছবিটি দেখে আঘাত পেলাম।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৩:২৯

টারজান০০০০৭ বলেছেন: কেন বলুনতো ?

২১| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৩:৩৯

ফারিহা হোসেন প্রভা বলেছেন: ওইটা হবে কি কোনো সিয়া মুসলমানদের কাজ?
আপনার পোষ্ট পড়লাম, বুঝতে পারছিনা আপনি এতো ইসলাম বিরোধী কথাবার্তা বলছেন কেন।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৩:৪৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: কোনটা ইসলাম বিরোধী , সুনির্দিষ্টভাবে বলুন। হইলে অবশ্যই সংশোধন করা হইবে।

২২| ০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৩:৪৮

ফারিহা হোসেন প্রভা বলেছেন: আমরা মুসলিম জাতি। আমাদের অনেক কর্তব্য আছে আমাদের রব ও নবীজীর প্রতি। তাই নয় কি?
হ্যা একটু কঠিন, একটু নয় অনেক কঠিন। তবে এটাইতো বাস্তব পরিক্ষা। এই পরিক্ষায় পাস করাটাই তো মেইন।

০৯ ই অক্টোবর, ২০১৮ বিকাল ৩:৫৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: কর্তব্যতো অবশ্যই আছে।

তবে ইসলাম বিরোধী কোন অংশ সেটা নির্দিষ্টভাবে বলুন।

২৩| ১০ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:১৬

এ আর ১৫ বলেছেন: সংস্কৃতি বা কালচার -- এটা ব্যপক বিষয় ---- মানুষের চিন্তা চেতনা , জীবন জাপন , খাদ্যাভাষ , ভাষা ,ধর্ম, প্রফেসন সহ নিত্ত জীবনের সব কিছু নিয়ে সংস্কৃতি বা কালচার এবং এই সমস্ত উপাদান নিয়ে পুর্ব , পশ্চিম , উত্তর, দক্ষিণ সব সাধারন মানুষের বিভিন্ন রকমের কালচার ।
সুতরাং ধর্মটা সামাজিক সংস্কৃতির একটা অংশ সেটা পূর্বে ও যেমন , পশ্চিমে ও তেমন , উত্তরে ও দক্ষিণে একই রকম ।

১৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১১:৫২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধর্ম সামাজিক সংস্কৃতির অংশ ইহাতে সন্দেহ নাই। তবে অন্যান্য ধর্মের মতন ইসলাম শুধুই সামাজিক সংস্কৃতির অংশ নহে। জীবনের সকল ক্ষেত্রেই ইসলামের নির্দেশনা আছে। এখানেই ইসলামের সাথে অন্যান্য ধর্মের পার্থক্য , এখানেই বুদ্ধুজীবীদের সাথে আমাদের ধর্মবেত্তাদের মতবিরোধ। আমাদের বুদ্ধুজীবীরা ইসলামকে অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের মতন শুধুই সামাজিক সংস্কৃতির অংশ বানাইতে চায়।

ধন্যবাদ।

২৪| ১৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:৩৫

এ আর ১৫ বলেছেন: জীবনের সকল ক্ষেত্রেই ইসলামের নির্দেশনা আছে।

এমন দাবি সব ধর্মের মানুষ নিজের ধর্ম সম্পর্কে দাবি করে ।

১৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ১:৪২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: হ্যা , ইহা ঠিক। প্রত্যেকে তাহার নিজ ধর্মকেই প্রাধান্য দিবে ইহাই স্বাভাবিক। তবে প্রমান তো থাকিতে হইবে ? মানুষের জীবনের সকল কর্মের নির্দেশনা ইসলাম ব্যাতিত অন্য কোন ধর্মে আছে বলিয়া আমার জানা নাই। আপনার থাকিলে বলিতে পারেন। ধন্যবাদ।

২৫| ১৮ ই অক্টোবর, ২০১৮ দুপুর ২:০২

উদাসী স্বপ্ন বলেছেন: যেই না একটা বর্বর মিথ্যা ধর্ম এইটা তো সাহাবীরা, তাবেঈ তাবেইনরাই পালন করতে পারে নাই। অবশ্য সহী ভাবে পালন করলে আরো ভালো হয়, তখন সবাই বুঝবে শিশুরামী জঙ্গি ধর্মটা আইএসআইএসের সহী রূপ।

অলরেডি স্লোভাকিয়া এটা ব্যান করছে, সাউথ কোরিয়া চীন এটা সরকারী ভাবে পালন করতে বাঁধা দেয়, স্পেনে কোরান ব্যান। আর অস্বাস্থ্যকর ক্ষতিকর হিজাব তো বহু দেশে ব্যান করা হইছে। জঙ্গি ধর্ম শেষ হতে দেরী নাই

২৬ শে অক্টোবর, ২০১৮ সকাল ১০:৫২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আপনার মন্তব্য মুছিলাম না। সামু যে পাঁঠা প্রতিপালন করিতেছে তাহার প্রমান হিসেবে রাখিয়া দিলাম !

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.