নির্বাচিত পোস্ট | লগইন | রেজিস্ট্রেশন করুন | রিফ্রেস

টারজান০০০০৭

টারজান০০০০৭ › বিস্তারিত পোস্টঃ

ধর্ম কি আসলেই সকল অধর্মের মূল?

২৭ শে জুন, ২০১৯ দুপুর ২:৫৭

ব্লগে বেশ কিছুকাল ধরিয়া ধর্মে এলার্জি লইয়া কিছু পোস্ট ঝুলিতেছে ! ইহাদের মূল বক্তব্য হইলো ব্লগে ধর্ম লইয়া আলোচনা উচিত নহে , ধর্ম লইয়া আলোচনা আসিলে উহাও সমালোচনা , প্রশ্নের সম্মুখীন হইবে , এবং তাহাও ব্লগারদের মানিয়া নেওয়া উচিত বলিয়া কেহ কেহ মত প্রকাশ করেন ! কিছু মাছি মারা কেরানি , সহমত ভাই/ভইন ইহার সমর্থনে মন্তব্যও করেন ! ধর্মীয় বিষয়ে পোস্ট দিয়া ব্লগাররা নাকি ধর্মকেই সমালোচনার লক্ষ্যবস্তু বানাইতেছে ! তাই ধর্মকে সমালোচনার লক্ষ্যবস্তু হইতে বাচাইতে হইলে ব্লগে ধর্ম লইয়া পোস্ট দেওয়া উচিত নহে !! সত্যি সেলুকাস , আমি তো মাননীয় স্পিকার হইয়া গেলাম !!

নিছক ধর্মীয় মাছালা লইয়া কচলাকচলি আমারও পছন্দ নহে ! কারণ বেশির ভাগ ব্লগারের ধর্মীয় বিষয়ে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নাই, এমনকি সাধারণ জ্ঞানেরও অভাব রহিয়াছে ! আর ধর্মীয় বিধান লইয়া কচলাকচলি তো এমনিতেও নিষেধ ! তারউফরে, ধর্মীয় বিষয়ে প্রাইমারি ইস্কুলের জ্ঞান লইয়া যেইসব বিশেষ অজ্ঞ পোস্ট আর মন্তব্য প্রকাশ পায় উহাকে কেবল অকাল গর্ভপাতের সাথেই তুলনা করা যাইতে পারে !!

যাহা হউক , প্রতিবেশী হিসেবে ভারতের আকাম-কুকাম বিশেষ করিয়া মুসলমানদের উপরে সাম্প্রদায়িক হামলা , হত্যা , নির্যাতন আমাদের গনমানসেও প্রভাব ফেলে বৈকি ! এবং উহার প্রেক্ষিতে ব্লগে পোস্টও প্রসব হইতে দেখা যায় ! মাগার আশ্চর্যজনক বিষয় হইলো এইসব আকাম-কুকামে যাহারা জড়িত তাহাদের দিকে আঙ্গুলি তাগ না করিয়া ধর্মের দিকেই কামান দাগা হইতেছে ! বেচারা ভিকটিম যদি ধর্মাবলম্বী না হইয়া পাঁঠা হইতো তাহা হইলে পাঁঠাগিরিও কি অধর্মের মূল হইতো ?

ভূমিকা ছাড়িয়া এবার মূল আলোচনায় আসি 'ধর্মই যাবতীয় অধর্মের মূল, অশান্তির মূল' এই আপ্তবাক্য নতুন নহে ! পাঁঠারা ইহা বহুকাল আগে হইতেই বলিয়া আসিতেছে ! তাহাদের উদ্দেশ্য কি তাহাও অস্পষ্ট নহে ! কিন্তু ইতিহাস কি বলিতেছে ? ধর্মই অধর্মের মূল , নাকি অধর্মই অধর্মের মূল কারণ ?

সভ্যতার ইতিহাস অনেক পুরাতন হইলেও প্রামাণ্য ইতিহাস খুব পুরাতন নহে ! সভ্যতার ইতিহাসের সাথে ধর্মের ইতিহাসও জড়িত। ধর্মের বিরোধিতার ইতিহাস পূর্বে বিচ্ছিন্ন হইলেও মূলত রেনেসাঁর পর হইতেই জোরেশোরে শুরু হয়। ধর্মকে একপাশে রাখিয়া সেকুলারিজম , আরও পরে ধর্ম বিরোধী কম্যুনিজম শুরু হয় ! মূলত ইহার পর হইতেই পাঁঠা সম্প্রদায়ের ধর্মে খাউজানী প্রকাশ্যে আসে ! বাস্তবে ধর্ম অনুসারীরা হাজার হাজার বছর ধইরা যে পরিমান আকাম-কুকাম করিয়াছে, সেকুলার ও ধর্মবিরোধীরা খুব অল্প সময়েই তাহাদের অতিক্রম করিয়া আকাম-কুকাম রে বহুগুনে বর্ধিত করিয়া বিপ্লব ঘটাইয়া ফেলিয়াছে ! তাহাদের এই বিপ্লবের ফলাফল আমরা আজও ভুগিতেছি !!

প্রথম মহাযুদ্ধ, দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ, স্তালিনের শাসনকাল, মাও জে দঙের শাসনকাল, কোরিয়া যুদ্ধ , ইরাক, আফগানিস্তান যুদ্ধ , ভিয়েতনামের যুদ্ধ, আমেরিকা, ইউরোপের বিভিন্ন যুদ্ধ সহ আজও যেসব যুদ্ধ হইতেছে উহা ধর্মযুদ্ধ নহে ! এগুলো সবই সেকুলার, ধর্ম বিরোধীদের স্বার্থ যুদ্ধ ! ধর্ম এখন আর বেশিরভাগ রাষ্ট্র ব্যবস্থায় নাই ! বেশিরভাগ শাসনত্রন্ত্রই তো সেকুলার মতবাদেই তৈরী ! তাহা হইলে যুদ্ধ সহ সকল আকাম-কুকামের দায় ধর্মের ঘাড়ে চাপানো কেন ? 'কেষ্টা বেটাই চোর' আর কতকাল চলিবে ? মাথা ব্যাথার কারণে মাথা কাটিয়া ফেলার এই আজব প্রেসক্রিপশন আর কতকাল চলিবে ? এইসব চালুনি, সুঁইয়ের পশ্চাৎদেশের ফুটো আর কতকাল খুঁজিবে ?

এইসব লেজকাটা শেয়াল আমাদেরকেও লেজ কাটিতে আহবান করিতেছে !!!!

মন্তব্য ২০ টি রেটিং +০/-০

মন্তব্য (২০) মন্তব্য লিখুন

১| ২৭ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:২৭

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনি অল্প পরিসরে অনেক কিছু বলার চেষ্টা করেছেন; ফলে, অনেক কিছু পরিস্কার করতে পারেননি। ধর্ম মানুষ সৃষ্টি করেছেন একটি 'নিদ্দিষ্ট যুগে'; আজকে নতুন ধর্ম সৃষ্টি হওয়ার পরিবেশ নেই। এক সময়ের সবচেয়ে বিশাল সৃষ্টি ছিলো গ্রীক ধর্ম, রোমান ধর্ম; এই ২টি ধর্ম এখন বাতাসে মিশে গেছে; আপনি কারণগুলো বুঝার কথা। স্হান ও কাল অনুসারে ধর্ম সৃষ্টি করা হয়েছিলো, এখন ধর্ম সৃষ্টির জন্য স্হান ও কালের অভাব দেখা দিয়েছে, এটা আপনার কাছে পরিস্কার কিনা।

২৭ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:৩৮

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আপনি অল্প পরিসরে অনেক কিছু বলার চেষ্টা করেছেন; ফলে, অনেক কিছু পরিস্কার করতে পারেননি।

বড় পোস্ট লোকে পড়ে না ! তাই সং ক্ষিপ্ত করিতে হইয়াছে !! কোন জায়গাটা অস্পষ্ট তাহা বলিলে মন্তব্যে পরিষ্কার হইয়া যাইবে !

ধর্ম মানুষ সৃষ্টি করেছেন একটি 'নিদ্দিষ্ট যুগে'; আজকে নতুন ধর্ম সৃষ্টি হওয়ার পরিবেশ নেই। এক সময়ের সবচেয়ে বিশাল সৃষ্টি ছিলো গ্রীক ধর্ম, রোমান ধর্ম; এই ২টি ধর্ম এখন বাতাসে মিশে গেছে; আপনি কারণগুলো বুঝার কথা। স্হান ও কাল অনুসারে ধর্ম সৃষ্টি করা হয়েছিলো, এখন ধর্ম সৃষ্টির জন্য স্হান ও কালের অভাব দেখা দিয়েছে, এটা আপনার কাছে পরিস্কার কিনা।

আপনি তো জেনেরালাইজ করিয়া ফেলিতেছেন। সব ধর্ম মনুষ্য সৃষ্ট নহে !! ধর্ম হারাইয়া যায় গ্রহণযোগ্যতা হারাইলে ! গ্রিক ও রোমান ধর্ম কিন্তু অন্য ফর্মে টিকিয়া আছে ! নতুন ধর্ম তৈরী হওয়া বা টিকিয়া থাকা সম্ভব নহে , কারণ বিদ্যমান ধর্মের বাহিরে কোন মহামানব আসিবে না ! কেহ দাবি করিলে গ্রহণযোগ্যও হইবে না !

২| ২৭ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:৪০

মাহমুদুর রহমান বলেছেন: আপনার ভাবনায় আমি সম্মান জানাই।

২৭ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৬

টারজান০০০০৭ বলেছেন: ধন্যবাদ ! অধর্মই অধর্মের মূল , ধর্ম নহে !

৩| ২৭ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৪:৫৬

চাঁদগাজী বলেছেন:

আপনি বলেছেন, "গ্রিক ও রোমান ধর্ম কিন্তু অন্য ফর্মে টিকিয়া আছে ! "

-গ্রীকেরা ও রোমানরা ততকালীন সময়ে সবচেয়ে জ্ঞানী ছিলেন; তারা যেই ধর্ম বানায়েছিলেন, সেটার স্হান দখল করেছে খৃষ্টান ধর্ম; এখন ক্রমে খৃষ্টান ধর্ম হারিয়ে যাচ্ছে! খৃষ্টান ধর্ম একদিন হারায়ে যাবে, সভ্যতা বদলায়ে গেলে ধর্ম বদলায়েছে; এখন নতুন সভ্যতায় নতুন ধর্ম না এলে, আগেরগুলো হারিয়ে যাবার পর, ধর্ম থাকার কথা নয়।

২৭ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:০৯

টারজান০০০০৭ বলেছেন: মনুষ্য সৃষ্ট মতবাদগুলোর উপরে আস্থা হারাইয়া মানুষ ধর্মের দিকেই বেশি করিয়া ঝুঁকিবে ! ধর্ম থাকিবে একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ! তাহার পর মানুষ ধর্মহীন হইতে থাকিবে !

নতুন ধর্ম আর আসিবে না !

৪| ২৭ শে জুন, ২০১৯ বিকাল ৫:৫১

চাঁদগাজী বলেছেন:


আপনি আদি গ্রীকদের সভ্যতা, বীরত্বপুর্ণ রূপকাহিনীতে ভরপুর সাহিত্য, বর্ণিল জীবনের সাথে, তাদের রূপকথার ধর্মের মিল দেখেন কিনা?

২৮ শে জুন, ২০১৯ সকাল ৯:৩৩

টারজান০০০০৭ বলেছেন: দেখিতো ! গ্রিকদের মিথোলজির সাথে প্যাগানিজমের মিল যেমন আছে তেমনি হিন্দু পূরণের সাথে হিন্দু ধর্মেরও মিল আছে ! তবে কিবতীদের ধর্ম অর্থাৎ খ্রিস্টান ও ইহুদিদের ধর্মের সাথে বা ইসলামের সাথে কোন পুরান বা মিথোলজি কিন্তু নাই।

৫| ২৭ শে জুন, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৩৭

রাজীব নুর বলেছেন: ধর্ম'ই দেশটারে খাইলো।

২৮ শে জুন, ২০১৯ সকাল ৯:৪৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: আচ্ছা ! ধর্ম কোথায় আছে বলুন তো ? কত পার্সেন্ট ব্যক্তির জীবনে, পরিবারে , সমাজে , রাষ্ট্রে ধর্ম আছে ? খুবই কম ! বরং অধৰ্মই বেশি ! তাই খাওয়ার ব্যাপার বলিতে গেলে বলিতে হয় ধর্ম নহে , অধর্মই দেশটারে খাইলো !

তা ভাইজান রিভার্স গেইম সব জায়গায় চলে না !

৬| ২৭ শে জুন, ২০১৯ রাত ৮:৪৯

চাঁদগাজী বলেছেন:


এই ধরণের পোষ্ট দিয়ে ব্লগে না থাকলে, আলোচনা হবে কিভাবে?

২৮ শে জুন, ২০১৯ সকাল ৯:৪৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: দুঃখিত ! জরুরি প্রয়োজনে বাহিরে যাইতে হইয়াছে ! পরে আর বসিবার সুযোগ হয় নাই !

৭| ২৭ শে জুন, ২০১৯ রাত ১০:৫৮

কানিজ রিনা বলেছেন: সৃষ্টি কর্তাকে নুন্যতম বিশ্বাসী মানুষ যার যার
ধর্ম মানে তারা কখনও ধর্ম বিরোধী কথা
বলেনা। ধর্মীয় পোষ্টে কেউ ভুলভাল লিখলেও
বিজ্ঞ জ্ঞানীজন সুন্দর করে বুঝিয়ে দেন
এটাই সুন্দর। আমি ধর্মীয় পোষ্টে সব সময়
দেখি ভাল ভাল উক্তি বা উপমা তুলে ধরা
হয়। তাতে অনেকেই তর্ক বিতর্ক করে।
কখনও কখনও অসালীন ভাযা প্রয়োগ
করে এতে ব্লগের পরিবেশ নষ্ট হয়।
উদাশী সপ্নকে ব্লগে দেখছি না। তার
ভাষাগত দিকটা এতটা অশালীন তা
এই ব্লগের সবাই জানে। তার প্রতি আমার
অনুরোধ ছিল খারাপ ভাসা বাদ দিয়ে কি
তর্ক হয়না।
এই আমি আমার ধর্মের ভাল উপমা নিয়ে
বেঁচে আছি। যেমন ধর্য ধরুন আল্লাহ্
ধর্যশীলকে পছন্দ করেন। এমন অসংখ্য
উপমা যা আমি হৃদয়ে ধারন করে শক্তি
সাহস নিয়ে চলি তাই আমি হেড়ে যাইনা।

চাঁদগাজীকে একটা কথা বলতে চাই মানুষ
যখন সৃষ্টিকর্তার উপর বিশ্বাস হাড়ায় তখন
সে পদে পদে অপমান হয় এবং তারা পথ
ভ্রস্ট হয়। ষতদিন মানুষ সৃষ্টি কতার বিশ্বাস
রাখবে ততোদিন ধর্ম বিলুপ্ত হবেনা। সে যে
ধর্মই হোকনা।
প্রতিটি ধর্নই ভাল কিছু শিখার আছে শিখার
কোনও শেষ নাই।
আপনার লেখায় শেষ প্যারাটায় সত্য বলেছেন।
অসাধারন সময় উপযোগী পোষ্ট। অসংখ্য
ধন্যবাদ।

২৮ শে জুন, ২০১৯ সকাল ৯:৫৭

টারজান০০০০৭ বলেছেন: মানুষের ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক জীবন এখন ধর্ম নিয়ন্ত্রণ করে না , করে সেকুলারিজম, আধুনিকতা, বিভিন্ন মনুষ্য সৃষ্ট মতবাদ। তাহার পরও আকাম-কুকামের দায় ধর্মের ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টা কেন ? ইহা কি মানসিক সমস্যা, অবসেশন ? নাকি উদ্দেশ্যমূলক ? ধর্মের বাধা অপসারণ করিলেই মুক্তি হইবে ইহা তো নতুন নহে। সেই ব্রিটিশ আমল বরং তাহার আগে হইতেই ইহা বলা হইতেছে ! বাস্তবে ধর্মের বাধা অপসারণ যে জাতিগুলো করিয়াছে তাহাদের অবস্থায়ও আমরা দেখিয়াছি, ধর্ম হইতে দূরে সরিয়া আমাদের কি অবস্থা তাহাও আমরা দেখিতেছি ! দুনিয়াবী উন্নতি হইলেও আত্মিকভাবে দেওলিয়া , মানবিকতা শূন্য ! মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ !

৮| ২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ১২:৪০

আর্কিওপটেরিক্স বলেছেন: পড়লাম।

২৮ শে জুন, ২০১৯ সকাল ১১:১১

টারজান০০০০৭ বলেছেন: দেখলাম !

৯| ২৮ শে জুন, ২০১৯ রাত ১:৪১

নতুন বলেছেন: 'কেষ্টা বেটাই চোর' আর কতকাল চলিবে ? মাথা ব্যাথার কারণে মাথা কাটিয়া ফেলার এই আজব প্রেসক্রিপশন আর কতকাল চলিবে ? এইসব চালুনি, সুঁইয়ের পশ্চাৎদেশের ফুটো আর কতকাল খুঁজিবে ?


খুব বেশিদিন এই সমস্যা থাকবেনা... ;)

খৃস্টান ধম`এখন মাঝে মাঝে কোন সপ্তাহে রবিবারে চাচে` যাবার মধ্যে চলে এসেছে...
হিন্দুধম` এখন গরুর মাংস না খাওয়া আর পুজার মন্ডপে প্রতিমা দেখার মধ্যে সিমাবদ্ধ....
বৌদ্ধ ধম্বালম্বীর সংখ্যা দেশে খবই কম...তবে বিশ্বে অনেকেই নিবানা লাভের জন্য বৌদ্ধ ধমে`র দিক্ষা নিচ্ছেন... অবশ্য এরা তাদের ধমে` মতেও চলতো না... একটা ফ্যাসন হিসেবে এইসব করে অনেকে

আর ইসলামের অবস্তা কি এটা মনে হয় বত`মানের ধমান্ধরা ভাবে না...

বাংলাদেশ দূনিতিতে ১ নং ছিলো.... সুদ খায় না কত ভাগ মুসলমান? মসজিদে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে কত ভাগ? দেওয়ান বাগীর নাকি লক্ষ লক্ষ মুরিদ....
এমন করে চিন্তা করুন... তবে বাংলাদেশের মুসলমানের ইমানের কি অবস্থা সেটা বুঝতে পারবেন.... ;)

ধম` এখন বাতিল আইডিয়া.... আরো কিছু কাল চলবে... কিন্তু তারপরে Agnosticism ধমের স্থান নেবে....

০৪ ঠা জুলাই, ২০১৯ সকাল ১১:৪২

টারজান০০০০৭ বলেছেন: খুব বেশিদিন এই সমস্যা থাকবেনা... ;)

জী ! থাকবে , থাকবে ! তবে পাঁঠারা তেলাপোকার মতনই টিকিয়া থাকিবে !

খৃস্টান ধম`এখন মাঝে মাঝে কোন সপ্তাহে রবিবারে চাচে` যাবার মধ্যে চলে এসেছে...
হিন্দুধম` এখন গরুর মাংস না খাওয়া আর পুজার মন্ডপে প্রতিমা দেখার মধ্যে সিমাবদ্ধ....
বৌদ্ধ ধম্বালম্বীর সংখ্যা দেশে খবই কম...তবে বিশ্বে অনেকেই নিবানা লাভের জন্য বৌদ্ধ ধমে`র দিক্ষা নিচ্ছেন... অবশ্য এরা তাদের ধমে` মতেও চলতো না... একটা ফ্যাসন হিসেবে এইসব করে অনেকে

আর ইসলামের অবস্তা কি এটা মনে হয় বত`মানের ধমান্ধরা ভাবে না...


অন্যান্য ধর্মের সাথে ইসলামের পার্থক্য এইখানেই ; ইসলাম শুধুমাত্র আচার সর্বস্ব নহে ! ইহা লইয়া আমার একখানা পোস্ট আছে দেখিয়া লইবেন !

বাংলাদেশ দূনিতিতে ১ নং ছিলো.... সুদ খায় না কত ভাগ মুসলমান? মসজিদে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে কত ভাগ? দেওয়ান বাগীর নাকি লক্ষ লক্ষ মুরিদ....
এমন করে চিন্তা করুন... তবে বাংলাদেশের মুসলমানের ইমানের কি অবস্থা সেটা বুঝতে পারবেন.... ;)


আসলেই খারাপ। তবে ধর্মানুভূতি, চেতনার উন্নতি ঘটিতেছে ইহাই সুসংবাদ ! আগে তো ধর্ম নিয়া ভাবা, ধর্ম পালন শুধুমাত্র গরিবের সংস্কৃতি ছিল, এখন সর্বস্তরে কম-বেশি ধর্ম লইয়া ভাবা হইতেছে , পালন করা হইতেছে ইহাই সুসংবাদ !

ধম` এখন বাতিল আইডিয়া.... আরো কিছু কাল চলবে... কিন্তু তারপরে Agnosticism ধমের স্থান নেবে....

মনুষ্য সৃষ্ট মতবাদের উপর আস্থা উঠিয়া যাইবার কারণে মানুষ ধর্মের দিকেই ফিরিবে ! অন্ততঃ এক নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত তো বটেই ! নাস্তিকতা আসিবে সত্যি তবে উহা এখনকার মতন ধর্ম বিদ্বেষের কারণে নহে, বরং মন চাহি জিন্দেগী, নফসের অনুসরণের এমন নেশাগ্রস্ত হইবে যে ধর্মকে স্রেফ উপেক্ষা করিবে ! উহাও একেবারে শেষ কালে ! এই ভবিষ্যৎবাণী ধর্মেই আছে , ইহাতে পাঁঠাদের কোন কেরামতি নাই !

১০| ০৫ ই জুলাই, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১৩

নতুন বলেছেন: আশাবাদী হওয়া ভালো। আমিও আশা করি মানুষ ভালো থাকুক...খারাপ কাজ বাদ দিয়ে ভালো জীবন জাপন করুন।

কিন্তু সেটার জন্য সুধুই মুসলামান হবার দরকার নাই। অন্য ধমের মানুষের মাঝেও অনেক ভালো মানুষ আছে।

আবার যারা ধম` মানেনা তাদের মাঝেও অনেকেই আছে যারা খুবই সত এবং ভালো জীবন জাপন করে।

আপনি ধম`কে ভালো পাইতেছেন এবং মনে করছেন এটা ছাড়া ভালো মানুষ হওয়া সম্ভব না।

কিন্তু বিশ্বের অনেক দেশের মানুষকে কাছ থেকে দেখে তাদের সাথে কাজ করে তাদের সমাজ/ধমকে দেখে আমি জানি ভালো মানুষ হতে হলে মুসলমান হতে হবেনা।

বত`মানে বাংলাদেশের মুসলমানেরা নামে মুসলমান.... এবং এরা নামে ধামিক কিন্তু কাজে ধম` অনুসরন করেনা...তাই দেশে সব ভন্ডমুসলমানের কারনে দূনিতি/আকাজে পরিপূন`....

কিন্তু যখন এই মানুষ গুলি ধমের থেকে দুরে গিয়ে মানবতাকে সম্মান করতে শিখবে তখন আবার সবাই ভালো মানুষের মতন আচরন করে। এবং মিথ্যা বলা.দূনিতি, নারীদের নিযাতন কমে যাবে...

২৯ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৪:৩৫

টারজান০০০০৭ বলেছেন: মুসলমান না হইলে মানুষ ভালো হইতে পারিবে না ইহাতো আমি বলি নাই ! ভালো মানুষের সংজ্ঞাও একেকজনের কাছে একেকরকম ! তবে ভালো মুসলমান অবশ্যই ভালো মানুষ।

মানুষ ধর্ম হইতে দূরে সরিয়া যাইবে ইহা স্বপ্ন যাহা সত্য হইতে পারে , তবে ধর্ম হইতে দূরে সরিয়া মানবতা শিখিবে মানবতাবাদীদের দেখিয়া ইহা নিজ্যস স্বপ্নদোষ বলিয়াই মনে হইতেছে !!

আপনার মন্তব্য লিখুনঃ

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন

আলোচিত ব্লগ


full version

©somewhere in net ltd.